English Version

আজকের চাকরির খবর লাইভ খেলা দেখুন

আমাদের বাংলা সাহিত্য!

পোস্ট টি ভালো লাগলে আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন

বাংলা ভাষায় রচিত সাহিত্যকর্ম বাংলা সাহিত্য নামে পরিচিত। আনুমানিক খ্রিষ্টীয় নবম শতাব্দীতে বাংলা ভাষায় সাহিত্য রচনার সূত্রপাত হয়। খ্রিষ্টীয় দশম থেকে দ্বাদশ শতাব্দীর মধ্যবর্তী সময়ে রচিত বৌদ্ধ দোহা-সংকলন চর্যাপদ বাংলা সাহিত্যের প্রাচীনতম নিদর্শন। আবিষ্কারক হরপ্রসাদ শাস্ত্রী আরও তিনটি গ্রন্থের সঙ্গে চর্যাগানগুলি নিয়ে সম্পাদিত গ্রন্থের নাম দেন ” হাজার বছরের পুরান বঙ্গালা ভাষায় রচিত বৌদ্ধ গান ও দোহা “। মধ্যযুগীয় বাংলা সাহিত্য ছিল কাব্যপ্রধান। হিন্দুধর্ম, ইসলাম ও বাংলার লৌকিক ধর্মবিশ্বাসগুলিকে কেন্দ্র করে গড়ে উঠেছিল এই সময়কার বাংলা সাহিত্য। মঙ্গলকাব্য, বৈষ্ণব পদাবলি, শাক্তপদাবলি, বৈষ্ণব সন্তজীবনী, রামায়ণ, মহাভারত ও ভাগবতের বঙ্গানুবাদ, পীরসাহিত্য, নাথসাহিত্য, বাউল পদাবলি এবং ইসলামি ধর্মসাহিত্য ছিল এই সাহিত্যের মূল বিষয়। বাংলা সাহিত্যে আধুনিকতার সূত্রপাত হয় খ্রিষ্টীয় অষ্টাদশ শতাব্দীতে। ঊনবিংশ শতাব্দীতে বাংলার নবজাগরণের যুগে কলকাতা শহরকে কেন্দ্র করে বাংলা সাহিত্যে এক নতুন যুগের সূচনা হয়। এই সময় থেকে ধর্মীয় বিষয়বস্তুর বদলে মানুষ, মানবতাবাদ ও মানব-মনস্তত্ত্ব বাংলা সাহিত্যের প্রধান আলোচ্য বিষয় হয়ে ওঠে। ১৯৪৭ সালে ভারত বিভাগের পর বাংলা সাহিত্যও দুটি ধারায় বিভক্ত হয়: কলকাতা-কেন্দ্রিক পশ্চিমবঙ্গের সাহিত্য ও ঢাকা-কেন্দ্রিক পূর্ব পাকিস্তান-বাংলাদেশের সাহিত্য। বর্তমানে বাংলা সাহিত্য বিশ্বের একটি অন্যতম সমৃদ্ধ সাহিত্যধারা হিসেবে পরিগণিত হয়ে থাকে।

 

আরো পড়ুন:- আসুন জেনে নেই সিলেট জেলা সম্পর্কে কিছু অজানা তথ্য!

 

যুগ বিভাজন
বাংলা সাহিত্যের হাজার বছরের ইতিহাস প্রধানত তিনটি পর্যায়ে বিভক্ত:

আদিযুগ বা প্রাচীন যুগ (আনুমানিক ৬৫০ খ্রি. মতান্তরে ৯৫০ খ্রি.–১২০০ খ্রি.)
মধ্যযুগ (১২০১ খ্রি.–১৮০০ খ্রি.)
আধুনিক যুগ (১৮০১ খ্রি.–বর্তমান কাল)
প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, রাজনৈতিক ইতিহাসের মতো নির্দিষ্ট সালতারিখ অনুযায়ী সাহিত্যের ইতিহাসের যুগ বিভাজন করা সম্ভব নয়। যদিও সাহিত্যের ইতিহাস সর্বত্র সালতারিখের হিসেব অগ্রাহ্য করে না। সাহিত্যকর্মের বৈচিত্র্যে ও বৈশিষ্ট্যে নির্দিষ্ট যুগের চিহ্ন ও সাহিত্যের বিবর্তনের ধারাটি বিশ্লেষণ করেই সাহিত্যের ইতিহাসে যুগবিভাগ করা হয়ে থাকে।

 

আরো পড়ুন:- বাংলাদেশের পর্যটন শিল্প ও তার সম্ভাবনা!

 

আদিযুগ বা প্রাচীন যুগ
বাংলা সাহিত্যের উন্মেষের পূর্বে বাংলায় সংস্কৃত, প্রাকৃত ও অবহট্‌ঠ ভাষায় সাহিত্য রচনার রীতি প্রচলিত ছিল। এই সাহিত্যের মাধ্যমেই বাংলা সাহিত্যের আদি অধ্যায়ের সূচনা হয়।[৩] ত্রয়োদশ শতাব্দীতে তুর্কি বিজয়ের বহু পূর্বেই বাঙালিরা একটি বিশেষ জাতি হিসেবে আত্মপ্রকাশ করে। উন্মেষ ঘটে বাংলা ভাষারও। তবে প্রথম দিকে বাংলায় আর্য ব্রাহ্মণ্য সংস্কৃতি ও অনার্য সংস্কৃতির মেলবন্ধন ঘটেনি। সংস্কৃত ভাষায় লেখা অভিনন্দ ও সন্ধ্যাকর নন্দীর রামচরিত, শরণ, ধোয়ী, গোবর্ধন, উমাপতি ধরের কাব্যকবিতা, জয়দেবের গীতগোবিন্দম্, কবীন্দ্রবচনসমুচ্চয় ও সদুক্তিকর্ণামৃত নামক দুটি সংস্কৃত শ্লোকসংগ্রহ; এবং অবহট্‌ঠ ভাষায় রচিত কবিতা সংকলন প্রাকৃত-পৈঙ্গল বাঙালির সাহিত্য রচনার আদি নিদর্শন। এই সকল গ্রন্থ বাংলা ভাষায় রচিত না হলেও সমকালীন বাঙালি সমাজ ও মননের একটি গুরুত্বপূর্ণ দলিল হিসেবে বিবেচিত হয়। পরবর্তীকালের বাংলা বৈষ্ণব সাহিত্যে গীতগোবিন্দম্ কাব্যের প্রভাব অনস্বীকার্য।

 

বাংলা ভাষায় রচিত সাহিত্যের আদিতম নিদর্শন হল চর্যাপদ। খ্রিষ্টীয় দশম থেকে দ্বাদশ শতাব্দীর মধ্যবর্তী সময়ে রচিত চর্যা পদাবলি ছিল সহজিয়া বৌদ্ধ সিদ্ধাচার্যদের সাধনসংগীত। আধুনিক ভাষাতাত্ত্বিকগণ বৈজ্ঞানিক তথ্যপ্রমাণের সাহায্যে প্রমাণ করেছেন যে চর্যার ভাষা প্রকৃতপক্ষে হাজার বছর আগের বাংলা ভাষা। সমকালীন বাংলার সামাজিক ও প্রাকৃতিক চিত্র এই পদগুলিতে প্রতিফলিত হয়েছে। সাহিত্যমূল্যের বিচারে কয়েকটি পদ কালজয়ী।

 

আরো পড়ুন:- ভ্রমন পিপাসুদের দৃষ্টি কাড়বে শেরপুরের দর্শনীয় স্থানগুলো

 

মধ্যযুগ
ত্রয়োদশ শতাব্দী: বাংলা সাহিত্যের “অন্ধকার যুগ
বাংলা সাহিত্যের ১২০০-১৩৫০ খ্রি. পর্যন্ত সময়কে “অন্ধকার যুগ” বা “বন্ধ্যা যুগ” বলে কেউ কেউ মনে করেন। ড. হুমায়ুন আজাদ তাঁর “লাল নীল দীপাবলী” গ্রন্থে (পৃ. ১৭) লিখেছেন- “১২০০ থেকে ১৩৫০ পর্যন্ত সময়ের মধ্যে রচিত কোন সাহিত্য কর্মের পরিচয় পাওয়া যায়না বলে এ-সময়টাকে বলা হয় ‘অন্ধকার যুগ’। পণ্ডিতেরা এ-সময়টাকে নিয়ে অনেক ভেবেছেন, অনেক আলোচনা করেছেন, কিন্তু কেউ অন্ধকার সরিয়ে ফেলতে পারেন নি।এ- সময়টির দিকে তাকালে তাই চোখে কোন আলো আসেনা, কেবল আঁধার ঢাকা চারদিক।” কিন্তু, ওয়াকিল আহমদ তাঁর ‘বাংলা সাহিত্যের পুরাবৃত্ত’ (পৃ. ১০৫)-এ লিখেছেন- “বাংলা সাতিহ্যের কথিত ‘অন্ধকার যুগ’ মোটেই সাংস্কৃতিক বন্ধ্যাত্বের যুগ ছিল না। ধর্ম -শিক্ষা শিল্প চর্চার দায়িত্ব যাদের উপর ন্যস্ত ছিল, তারা সীমিত আকারে হলেও শিক্ষা সাহিত্য চর্চায় নিয়োজিত ছিলেন। তবে, কি হিন্দু কি মুসলমান কেউ লোকভাষা বাংলাকে গ্রহণ করেননি। বাংলা সাহিত্যের নিদর্শন না থাকার এটাই মুখ্য কারণ।”

এসময়ের সাহিত্য নিদর্শন: ১. প্রাকৃত ভাষার গীতি কবিতার সংকলিত গ্রন্থ ‘প্রাকৃত পৈঙ্গল’ ২. রামাই পন্ডিত রচিত ‘শূন্যপুরাণ’ (গদ্যপদ্য মিশ্রিত) ৩. হলায়ুধ মিশ্র রচিত ‘সেক শুভোদয়া’ (গদ্যপদ্য মিশ্রিত) ৪. ডাক ও খনার বচন

‘নিরঞ্জনের উষ্মা’ শূন্যপুরাণ এর অন্তর্গত একটি কবিতা।

 

আরো পড়ুন:- ধূমপান কেন-কিভাবে ত্যাগ করবেন?

 

প্রাক চৈতন্য বৈষ্ণব সাহিত্য
প্রাক চৈতন্য বা প্রারম্ভিক বৈষ্ণব সাহিত্য বলতে গৌড়ীয় বৈষ্ণববাদের প্রতিষ্ঠাতা চৈতন্য মহাপ্রভুর সময়কালের পূর্বে রচিত সাহিত্যকে বুঝায় । এর মধ্যে রয়েছে: বড়ু চণ্ডীদাসের শ্রীকৃষ্ণ কীর্তন; এটি মূলত গীতধর্মী কবিতার সংকলন যা বিদ্যাপতি এবং চণ্ডীদাসের বৈষ্ণব পদাবলি নামে পরিচিত; শ্রীকৃষ্ণ বিজয়, এটি হল ভগবৎ পুরাণের আংশিক অনুবাদ যা মালাধর বসু কর্তৃক রচিত এবং কৃত্তিবাসের রামায়ণ যা কৃত্তিবাস ওঝা দ্বারা রচিত হয়েছে।

 

 

শ্রীকৃষ্ণ কীর্তন
বসন্ত রঞ্জন রায় বিদ্যতভল্লব আধুনিক দিনের পশ্চিমবঙ্গের বাঁকুড়া জেলার কাকিন্লা গ্রামে দেবেন্দ্রনাথ চট্টোপাধ্যায়ের গোয়াল ঘর থেকে শ্রীকৃষ্ণ কীর্তনের ছিন্নপত্রের পাণ্ডুলিপি আবিষ্কার করেছিলেন। চতুর্দশ শতাব্দীর শেষার্ধে শ্রীকৃষ্ণ কীর্তন বড়ু চণ্ডীদাস কর্তৃক লিখিত হয়েছিল। চর্যাপদের পরে এটি বাংলা সাহিত্যের দ্বিতীয় প্রাচীনতম কাজ বলে বিবেচিত হয়।

 

আরো পড়ুন:- ডায়াবেটিস একটি দুরারোগ্য ব্যাধি, ডায়াবেটিস হৃদরোগের ঝুঁকি বাড়ায় ।

 

বিদ্যাপতি ও চণ্ডীদাসের বৈষ্ণব গান
পঞ্চদশ শতকে বৈষ্ণব গদ্য কবিতার বা বাংলা পদাবলির উত্থান হয়েছিল। মিথিলার মহান কবি বিদ্যাপতির কবিতা যদিও তা বাংলা ভাষায় লিখিত হয়নি তথাপি এটি বাংলা সাহিত্যকে এতটাই প্রভাবিত করেছিল যে এটি তাকে মধ্য-বাংলা সাহিত্যের একটি গুরুত্বপূর্ণ অংশ করে তোলে। চতুর্দশ শতাব্দীতে তিনি ভারতের বিহারের আধুনিক ডারবঙ্গ জেলায় সমৃদ্ধ হয়েছিলেন। তাঁর বৈষ্ণব গান বাংলার জনগণের মধ্যে জনপ্রিয় হয়ে ওঠেছিল। চণ্ডীদাস ছিলেন প্রথম প্রধান বাঙালি কবি যিনি বৈষ্ণব গান লিখেছিলেন , যিনি আধুনিক দিনের বীরভূম জেলার (বা অন্য মতামত অনুযায়ী, বাঁকুড়া জেলার) পঞ্চম শতাব্দীতে পশ্চিমবঙ্গের অধিবাসী ছিলেন । চণ্ডীদাস তাঁর মানবতার ঘোষণার জন্য সুপরিচিত- “সবার উপরে মানুষ সত্য তাহার উপরে নাই ..”)।

 

বিস্তারিত দেখুন ভিডিওতে:- যারা হাঁটু ব্যাথায় ভুগছেন ভাল হচ্ছে না , তারা এই ভিডিও টা দেখেন।

 

মালাধর বসু এবং কৃত্তিবাস ওঝা
দুটি বিখ্যাত সংস্কৃত গ্রন্থ ভাগবত পুরাণ এবং রামায়ণ মধ্য বাংলা সাহিত্যের উন্নয়নে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছিল । মালাধর বসুর শ্রীকৃষ্ণ বিজয় (শ্রীকৃষ্ণ বিজয়, লর্ড কৃষ্ণের বিজয়), যা মূলত ভাগবত পুরাণের দশম এবং একাদশ পাঠের অনুবাদ, এটি একটি পূর্বতন বাংলা কাহিনী যার মাধ্যমে একটি নির্দিষ্ট তারিখ নির্ধারণ করা যায়। পঞ্চদশ শতকে পশ্চিমবঙ্গের বর্ধমান জেলার অন্তর্গত পঞ্চিমবঙ্গে মালাধর বসু সমৃদ্ধ হয়ে ওঠেছিলেন। ১৪৭৩ খ্রিস্টাব্দ থেকে ১৪৮০ খ্রিস্টাব্দে রচিত শ্রীকৃষ্ণ বিজয় ছিল কৃষ্ণের কিংবদন্তীর প্রাচীনতম বাংলা বণর্নামূলক কবিতা।

রামায়ণ শ্রী রাম পাঁচালী শিরোনামের অধীনে যা কৃত্তিবাসী রামায়ণ নামেও পরিচিত কৃত্তিবাস ওঝা দ্বারা অনুবাদিত হয়েছিল, যিনি আজাদ নদীয়া জেলার অন্তর্গত পশ্চিমবঙ্গের অধিবাসী ছিলেন। তিনিও মালাধর বসুর মতো পঞ্চদশ শতকেরও বেশি সময় ধরে অগ্রসর হয়েছিলেন।

 

 

চৈতন্যোত্তর বৈষ্ণব সাহিত্য
চৈতন্যোত্তর বা বৈষ্ণব পরবর্তী সাহিত্য চৈতন্য মহাপ্রভুর সময় পরবর্তীকালের সাহিত্যের সূচনা করেছিল । এর মধ্যে রয়েছে, চৈতন্যের জীবনের উপর ভিত্তি করে এবং পরে বৈষ্ণব পদাবলী গৌড়ীয় বৈষ্ণব পণ্ডিত বা কবিদের দ্বারা রচিত হয়েছিল। বৈষ্ণব পরবর্তী সাহিত্যের প্রধান পদকর্তা ছিলেন কৃষ্ণদাস কবিরাজ, বৃন্দাবন দাস ঠাকুর, জয়ানন্দ, গোবিন্দদাস, বলরাম দাস প্রমুখ।

 

বিস্তারিত দেখুন:- কোমর ব্যাথা দূর করার উপায় জেনে নিন ছোট কয়েকটি টিপস ফলো করে/ BACK PAIN TIPS

 

আধুনিক যুগ
মূলত বাংলা সাহিত্যে আধুনিক যুগ নিয়ে মত পার্থক্য থাকলেও,মোটামুটি ভাবে ১৭৬০ খ্রীষ্টাব্দ ভারত চন্দ্রের মৃত্যুর পর থেকেই বাংলা সাহিত্যের আধুনিক যুগের সূত্রপাত বলে নানা সমালোচক মতপ্রকাশ করেছেন। কালের দিক থেকে আধুনিক যুগকে কয়েক টি ধাপে ভাগ করা যায়- ১৭৬০-১৭৯৯খ্রিঃ(আধুনিক যুগের প্রথম পর্ব) ১৮০০-১৮৫৮খ্রিঃ(আধুনিক যুগের দ্বিতীয় পর্ব) ১৮৫৯-১৯০০খ্রিঃ(আধুনিক যুগের তৃতীয় পর্ব) ১৯০১-১৯৪৭খ্রিঃ(আধুনিক যুগের চতুর্থ পর্ব) ১৯৪৮-২০০০খ্রিঃ(আধুনিক যুগের পঞ্চম পর্ব) ২০০১খ্রিঃ- বর্তমানকাল(আধুনিক যুগের ষষ্ঠ পর্ব)

(চলবে…)

 

সূত্র: ডব্লিউ পি

বিডিটুডেস/০৭ ডিসেম্বর, ২০১৭