English Version

আজকের চাকরির খবর লাইভ খেলা দেখুন

প্রতিবন্ধীদের জন্য জঙ্গলে ভরা খেলার মাঠ, কেবল সাইনবোর্ড!

পোস্ট টি ভালো লাগলে আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন

বিডিটুডেস ডেস্ক: মিরপুর রোড দিয়ে যেতে জাতীয় সংসদ ভবনের পশ্চিম পাশে বড় সাইনবোর্ডে লেখা: ‘শুধুমাত্র প্রতিবন্ধী ব্যক্তিদের জন্য উন্মুক্ত খেলার মাঠ’। অথচো মাঠটি আবদ্ধ এবং জঙ্গলে ভরা। কোনোভাবেই খেলার উপযোগী নয়। ফলে সাইনবোর্ডটি দেখে এ পথে চলাচলকারী মানুষের মনে কেবল প্রশ্নের উদ্রেক হয়।

প্রশ্নের জবাব খুঁজতে গিয়ে জানা গেল, প্রতিবন্ধী ব্যক্তিদের খেলাধুলা ও শরীরচর্চার জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ২০১১ সালে একটি উন্মুক্ত খেলার মাঠ করার ঘোষণা দেন। তার ধারাবাহিকতায় চলতি বছরের জানুয়ারিতে সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয়ের অধীনে জাতীয় প্রতিবন্ধী উন্নয়ন ফাউন্ডেশন সংসদ ভবনের সীমানাপ্রাচীরের ভেতর প্রায় চার একর জায়গায় মাঠ তৈরির কাজ শুরু করে। ফাউন্ডেশন মিরপুর রোডের পাশে একটি সাইনবোর্ডও টানিয়ে দেয়। কিন্তু মাঠটি খেলার উপযোগী না হওয়ায় এখনো তা উন্মুক্ত হয়নি। কবে উন্মুক্ত হবে, সে সম্পর্কে সুনির্দিষ্ট কোনো তথ্য পাওয়া যায়নি। তবে কাজ শেষ হলে এটিই হবে শুধু প্রতিবন্ধীদের ব্যবহারের জন্য দেশের প্রথম উন্মুক্ত খেলার মাঠ।

মাঠটি নিয়ে গত ১৬ জানুয়ারি একটি সংবাদ মাধ্যমে ‘প্রতিবন্ধীদের জন্য হচ্ছে উন্মুক্ত খেলার মাঠ’ শিরোনামে একটি প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়। সে সময় সংসদের চিফ হুইপ আ স ম ফিরোজ বলেছিলেন, আগামী ছয় মাসের মধ্যে প্রতিবন্ধী ব্যক্তিরা এই মাঠে খেলার সুযোগ পাবেন। প্রধানমন্ত্রীর ব্যক্তিগত উদ্যোগে স্পিকারের সঙ্গে আলোচনার ভিত্তিতে মাঠের কাজ দ্রুত এগোচ্ছে।

ছয় মাসের জায়গায় ১০ মাস পার হয়েছে। মাঠটি খেলার উপযোগী হয়নি। কারণ জানতে যোগাযোগ করা হয় মাঠটি ব্যবস্থাপনার দায়িত্ব পাওয়া জাতীয় প্রতিবন্ধী উন্নয়ন ফাউন্ডেশনের পরিচালক (প্রশাসন ও অর্থ) মোমিনুর রহমানের সঙ্গে। তিনি বলেন, ‘এটি জাতীয় সংসদ ভবনের জায়গা, সংরক্ষিত এলাকা। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী আমাদের প্রতিবন্ধীদের খেলার জন্য এই জায়গা ব্যবহারের অনুমতি দিয়েছিলেন। তারপর আমরা স্থাপত্য অধিদপ্তরকে জানাই মাঠটি খেলার উপযোগী করতে রেস্ট রুম, ওয়াশ রুমসহ কী কী প্রয়োজন তার একটি নকশা তৈরি করতে। স্থাপত্য অধিদপ্তর জানায়, জায়গাটি যেহেতু জাতীয় সংসদের, তাই এই জায়গায় কিছু করতে হলে স্পিকারের অনুমতির প্রয়োজন। এরপর অনুমতির জন্য স্থাপত্য অধিদপ্তর থেকে স্পিকার বরাবর আবেদন করা হয়েছে। এখনো অনুমতি পাওয়া যায়নি। তাই মাঠের কাজ বন্ধ রয়েছে।’

মাঠের কাজ শুরু হওয়ার পর এই উদ্যোগকে স্বাগত জানিয়ে মানববন্ধন করেছিল ওয়ার্ক ফর এ বেটার বাংলাদেশ (ডব্লিউবিবি) ট্রাস্ট, হিউম্যান রাইটস ডিজঅ্যাবিলিটি ডেভেলপমেন্ট ফাউন্ডেশন, সুর ও সংগীত চক্র, দৃষ্টিপ্রতিবন্ধী উন্নয়ন পরিষদ, ডিজঅ্যাবিলিটি ওয়েলফেয়ার সোসাইটি, সোসাইটি ফর দ্য ওয়েলফেয়ার অব অটিস্টিক চিলড্রেন নামের সংগঠনগুলো।

জানতে চাইলে গতকাল ডব্লিউবিবি ট্রাস্টের পরিচালক গাউস পিয়ারী বলেন, ‘গত অক্টোবরের মধ্যে মাঠটি খেলার উপযোগী হওয়ার কথা ছিল। তবে আমরা এখনো আশাবাদী। সরকারের এই উদ্যোগকে আমরা সাধুবাদ জানাই।’ মাঠটির গুরুত্ব সম্পর্কে তিনি বলেন, প্রতিবন্ধী ব্যক্তিদের কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করতে হলে তাঁদের আগে ঘর থেকে বের করতে হবে। খেলাধুলাই এর উপযুক্ত মাধ্যম। তার জন্য এই মাঠ এত গুরুত্বপূর্ণ।

বিডিটুডেস/ এস আই/ ২২ নভেম্বর, ২০১৭