English Version

আজকের চাকরির খবর লাইভ খেলা দেখুন

নবজাতকের ভুতুরে রুপ, কি করল বাবা মা!


সন্তানের জন্ম সবচেয়ে সুখের মুহূর্ত। নয় মাস ধরে এই মুহূর্তটির জন্যই অপেক্ষা করে থাকেন মা-বাবা দু’জনেই। কিন্তু আলিগড়ের করিশ্মা-আরশাদের জীবনে যখন এই বহু আকাঙ্খিত সময়টি এসেছিল, নিজের চোখকেই বিশ্বাস করতে পারছিলেন না তাঁরা। সুস্থ সন্তানই জন্ম নিয়েছে। বলেছিলেন ডাক্তাররা। কিন্তু তাঁর রূপ ভিন্ন। তা যে এতটা ভিন্ন হবে কল্পনা করতে পারেননি দম্পতি।

ঠিকরে বেরিয়ে এসেছে চোখ দু’টি। লাল টকটকে। নেই কান। নাকের স্থানে কেবল শ্বাস-প্রশ্বাস নেওয়ার জন্য দু’টি ছিদ্র রয়েছে। সন্তানের এমন চেহারা দেখে প্রথমে চমকে গিয়েছিলেন করিশ্মা-আরশাদ। কিন্তু ডাক্তার তাঁদের আশ্বস্ত করেন দেখতে ভিন্ন হলেও সন্তানের শারীরিক অবস্থা স্থিতিশীল। একটু সাবধানে রাখলে সুস্থভাবেই বাঁচতে পারবে সে। দেখতে যেমনই হোক তাঁরই তো শরীরের অঙ্গ। তাই মুখ ফিরিয়ে বেশিক্ষণ থাকতে পারেননি করিশমা। প্রাথমিক বিহ্বলতা কাটিয়ে কোলে তুলে নেন তাঁকে। অল্প কিছুক্ষণে মন গলে যায় আরশাদেরও।

সন্তানকে বাড়ি নিয়ে আসেন দু’জনে। কিন্তু বাড়িতে এসে শুরু হয় নয়া বিপত্তি। কৌতূহলী প্রতিবেশীর ভিড় লেগে যায়। তারপর শুরু হয় কটাক্ষের পালা। অনেকেই করিশ্মা-আরশাদের ছেলেকে ‘এলিয়েন’ আখ্যা দিয়ে বসেন। কেউ কেউ আবার পাপের ফল বলেও খোঁটা দেন। কিন্তু সমাজের এই কটাক্ষে কান দিতে রাজি নন আলিগড়ের দম্পতি। আড়াই বছরের একটি শিশুকন্যাও রয়েছে তাঁদের। তার মতোই স্বাভাবিকভাবে এই সন্তানকেও মানুষ করতে চান তাঁরা। এমন শিক্ষাই দিতে চান, যাতে জীবনের সমস্ত প্রতিকূলতা কাটিয়ে সে এগিয়ে যেতে পারে।

জে এল/বিডিটুডেস