English Version

আজকের চাকরির খবর লাইভ খেলা দেখুন

রোহিঙ্গা ইস্যু তে ভারতের দ্বৈত নীতি


ফাইল ছবি : চাকমা উদ্বাস্তু

 

রোহিঙ্গা সমস্যার উত্তাল সময়ের  মধ্যে উত্তর-পূর্ব ভারতে বসবাসকারী চাকমা ও হাজং উদ্বাস্তুদের নাগরিকত্ব দেওয়ার সিদ্ধান্তের কথা জানিয়েছে ভারত সরকার। কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী কিরেণ রিজিজু চাকমা-হাজং গোষ্ঠীকে দেশের নাগরিকের স্বীকৃতি দেওয়ার কথা বলেন। এর আগে, কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী রাজনাথ সিংয়ের নেতৃত্বে এক উচ্চপর্যায়ের বৈঠক হয়। উপস্থিত ছিলেন অরুণাচল প্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী পেমা খাণ্ডু, কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী কিরেণ রিজিজু, জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা অজিত দোভাল। বৈঠকে চাকমা-হাজং শরণার্থীদের ইস্যু নিয়ে বিস্তারিত আলোচনার পর এই সিদ্ধান্ত দেয়া হয়।

তবে এই জনগোষ্ঠীদুটিকে নাগরিকত্ব দেওয়ার বিপক্ষে সওয়াল করেন অরুণাচলের মুখ্যমন্ত্রী।তাঁর মতে, নাগরিকত্ব দিলে জনবিন্যাস বদলে অর্থনীতির ওপর প্রভাব পড়বে। রাজ্যে অশান্তিও হতে পারে।প্রসঙ্গত, রাজ্যের বিভিন্ন রাজনৈতিক দল ও সংগঠনগুলি বরাবরই বহিরাগত চাকমা-হাজংদের নাগরিকত্ব দেওয়ার বিরোধীতা করে আসছে।

২০১৫ সালে ওই দুই সম্প্রদায়কে নাগরিকত্ব দেওয়া ইস্যুতে রায় দেয় সুপ্রিম কোর্ট। রিজিজু বলেন, সুপ্রিম কোর্টের রায়কে সম্মান জানিয়েই কেন্দ্রে এই সিদ্ধান্ত। উল্লেখ্য, ১৯৬৪ সাল নাগাদ আসামের লুসাই পাহাড় হয়ে তারা ভারতে প্রবেশ করেন। অরুণাচল প্রদেশে পাকাপাকিভাবে বসবাস শুরু করেন তাঁরা। পার্বত্য চট্টগ্রাম ছেড়ে আসা এই জনগোষ্ঠীর মোট শরণার্থীসংখ্যা ছিল পাঁচ হাজার। বর্তমানে যার সংখ্যা প্রায় ১ লক্ষ।

এর পাশাপাশি, রিজিজু স্পষ্ট জানিয়েছেন রোহিঙ্গাদের কোনওভাবেই ভারতে ঠাঁই দেওয়া যাবে না। রোহিঙ্গা শরণার্থীরা সীমান্ত পেরিয়ে মণিপুর-মিজোরামে ঢুকে পড়তে পারে বলে আশঙ্কা থাকায়, সীমান্তে নজরদারি কড়া করা হয়েছে। তবে এই ইস্যুর মধ্যেই অরুণাচলে লাখখানেক চাকমা-হাজংকে নাগরিকত্ব দেওয়া হলে কংগ্রেসের পালে হাওয়া লাগতে পারে বলে মনে করছেন রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা।

 

এস এম – বিডিটুডেস


  • 1.5K
    Shares