English Version

এই গ্রহে বসেই এ বার ভিন গ্রহ খুঁজবেন বিজ্ঞানীরা!

এ বার ঈশ্বরের রাজ্যে বসেই ঈশ্বরের অপার রহস্যের জাল কাটবেন বিজ্ঞানীরা!

নৈনিতালের প্রায় ৬০ কিলোমিটার উত্তর-পূর্বে, পাহাড়চুড়োয় ‘ইশ্বরের নাকের ডগা’য়, দেবস্থলে! এই অতলান্ত ব্রহ্মাণ্ডের অসীম গভীরতার কোন আঁধারে ঢাকা রয়েছে অজানা কোন ভিন গ্রহের ‘আলো’, এই প্রথম ভারতে বসেই তার হাল-হদিশ জানতে পারবেন জ্যোতির্বিজ্ঞানীরা। জানতে পারবেন কী ভাবে রাসায়নিক বিবর্তন ঘটেছিল এই ব্রহ্মাণ্ডে ‘আমাদের পাড়া’ মিল্কি ওয়ে গ্যালাক্সিতে। জানতে পারবেন আমাদের এই আকাশগঙ্গায় (মিল্কি ওয়ে) কী ভাবে তৈরি হয়েছিল সূর্যের মতো আরও লক্ষ কোটি তারা। জানার চেষ্টা করবেন আমাদের আশপাশের ‘অন্যান্য পাড়া’য় (অন্য গ্যালাক্সিগুলিতে) তারা বা নক্ষত্রদের শরীর গড়ে উঠেছিল কী ভাবে। জানতে পারবেন সেই তারারা কী ভাবে চলে বা ছোটে আমাদের আকাশগঙ্গা বা তার আশপাশের গ্যালাক্সিগুলিতে। ভারতে বসেই, এই প্রথম!

নৈনিতালের উত্তর-পূর্বে দেবস্থলের আড়াই হাজার মিটার (এভারেস্টের উচ্চতার এক-তৃতীয়াংশের কিছু বেশি) বসে ‘দেবস্থল অপটিক্যাল টেলিস্কোপে’র (ডিওটি) ব্রহ্মাণ্ডে ‘নজরদারি’ শুরু হবে খুব শিগগিরই। নোট বাতিলের সিদ্ধান্তের খেসারত দিতে গিয়ে মার্চে যখন প্রধানমন্ত্রী সত্যি-সত্যিই উপলব্ধি করতে শুরু করবেন, জিডিপি’টা কেন প্রত্যাশামাফিক ৭.৬ শতাংশ না হয়ে ৭.১ শতাংশে আটকে থাকল, তার আগেই দেবস্থলে শিব মন্দিরের সামনে বসে মহাকাশে ‘ঈশ্বরের অপার রহস্যে’র জাল কাটতে শুরু করে দেবেন ভারতীয় জ্যোতির্বিজ্ঞানীরা।

 

পুণের ইন্টার-ইউনিভার্সিটি সেন্টার ফর অ্যাস্ট্রোনমি অ্যান্ড অ্যাস্ত্রোফিজিক্সের (আয়ুকা) অধ্যাপক ও ভারতের গর্বের উপগ্রহ ‘অ্যাস্ট্রোস্যাট’-এর সায়েন্টিফিক অপারেশনের প্রধান জ্যোতির্বিজ্ঞানী দীপঙ্কর ভট্টাচার্য এই খবর দিয়ে বলেছেন, ‘‘২০০ কোটি টাকার ওই প্রকল্পে দেশের বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রকের সঙ্গে হাত মিলিয়েছে বেলজিয়াম সরকার। বেলজিয়াম এই প্রকল্পে দিয়েছে ২০ লক্ষ ইউরো। গোটা এশিয়া মহাদেশে এই ‘দেবস্থল অপটিক্যাল টেলিস্কোপ’টিই হবে বৃহত্তম অপটিক্যাল টেলিস্কোপ। যার লেন্সের ব্যাস হবে ৩.৬ মিটার।

তার মানে, মহাকাশে বসানো ‘হাব্‌ল স্পেস টেলিস্কোপের লেন্সের ব্যাসের (২.৪ মিটার) চেয়েও বেশ কিছুটা বড় হবে দেবস্থলের টেলিস্কোপের লেন্স। ফলে এই ব্রহ্মাণ্ডের প্রায় সূদূরতম প্রান্তে লুকিয়ে থাকা বহু মহাজাগতিক বস্তুর ক্ষীণতম ‘সিগন্যাল’ বিশ্লেষণের ক্ষেত্রে একেবারে সচিন তেন্ডুলকরের মতো ব্যাটসম্যান হয়ে উঠতে পারে দেবস্থলের এই টেলিস্কোপ। ওই টেলিস্কোপটি দেখভালের দায়িত্ব থাকবে নৈনিতালের ‘আর্যভট্ট রিসার্চ ইনস্টিটিউট অফ অবজারভেশনাল সায়েন্সেস’ (‘এরিজ’)-এর হাতে। যেখানে ওই টেলিস্কোপটি বসানো হয়েছে, তা ‘এরিজ’-এর ক্যাম্পাসের মধ্যেই পড়ে। যার প্রোজেক্ট ম্যানেজার ‘এরিজ’-এর অ্যাসোসিয়েট প্রফেসর ব্রিজেশ কুমার।’’

Shares