English Version

নাঙ্গলকোটের গোহারুয়া ২০ শয্যা হাসপাতালে রোগী আছে ডাক্তার নেই!


নাঙ্গলকোট (কুমিল্লা) থেকে মো. রেজাউল করিম রাজু: কুমিল্লার নাঙ্গলকোট উপজেলার জোড্ডা ইউপির গোহারুয়া ২০ শষ্যা হাসপাতালে রোগী আছে একজন ডাক্তারও না থাকায় রোগীদের দূর্ভোগ চরমে।
গতকাল মঙ্গলবার সরেজমিনে গিয়ে সকাল ৯ টা থেকে দুপুর দেড়টা পর্যন্ত একজন ডাক্তারকেও পাওয়া যায়নি। ডাক্তার দেখাতে আসা এ্যাজমা রোগী নিশ্চন্তপুর গ্রামের মৃত. কেরামত আলীর ছেলে মধু মিয়া (৫০), গোহারুয়া গ্রামের সাইদুল হকের ছেলে জামাল (৪৫) নাকের চিকিৎসার জন্য, নিশ্চন্তপুর গ্রামের রুহুল আমিনের ছেলে মামুন (৩২) সহ প্রায় শতাধিক রোগী ডাক্তার দেখানোর জন্য বর্হিবিভাগে অপেক্ষা করেন। এ সময় স্থানীয়রা অভিযোগ করে বলেন, ডাক্তার দেখানোর জন্য প্রতিদিন এখানে রোগী আসে। মাঝে মধ্যে একজন ডাক্তার হঠাৎ করে আসে আবার চলে যায়।
গত ১৭ অক্টোবর ২০০৬ সালে এই হাসপাতালটির উদ্ধোধন করা হয়। এর পর থেকে ৬টি ইউপির মানুষেরা চিকিৎসা সেবার জন্য আলোর মুখ দেখলেও কিন্তু চিকিৎসা সেবা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে তারা। একজন ডাক্তার না থাকায় পাশ্ববর্তী নোয়াখালী- লাকসাম- কুমিল্লা গিয়ে মোটা অংকের অর্থের বিনিময় চিকিৎসা সেবা নিতে বাধ্য হচ্ছেন। দূরত্বের কারণে অনেক রোগী পথের মধ্যে মারা যায়। প্রায় দেড় লক্ষ মানুষের চিকিৎসা সেবার একমাত্র এই হাসপাতালটি। রাতের বেলায় নিরাপত্তা-রক্ষী না থাকায় শিয়াল কুকুর বৃদ্ধি পায়। দিনের বেলায় রাখালেরা হাসপাতালের মাঠে গরু চরান। হাসপাতালে দায়িত্বে থাকা ওয়ার্ড বয় রাকিবুল হাছানকে পাওয়া যায়, ডাক্তারের বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি জানান, প্রায় সময় একজন ডাক্তার এসে রোগী দেখেন। রোগীরা এসে ডাক্তার না পাওয়ায় তার সাথে রোগীদের তর্ক-বিতর্ক হয়।
এ ব্যাপারে উপজেলা স্বাস্থ বিষয়ক কর্মকর্তা ডা: মাহবুবুল আলম বলেন, ঐ খানের ডাক্তাররা বদলি হয়ে চলে গেছেন।