English Version

আজকের চাকরির খবর লাইভ খেলা দেখুন

গোপনীয় এক জটিল রোগ গনোরিয়া, জেনে রাখুন লক্ষণ, চিকিৎসার উপায়!


 

গনরিয়া একটি যৌনবাহিত সংক্রামন  (STI) যা নাইসেরিয়া গনোরিয়া অথবা গনোকক্কাস নামক ব্যাকটেরিয়া থেকে হয়।  এটা “আঘাত” হিসেবে পরিচিত। এই ব্যাকটেরিয়া প্রধানত পুরুষদের  লিঙ্গ এবং মহিলাদের  যোনীর নিঃসরন থেকে হয়।

গনোরিয়া খুব সহজেই মানুষের মধ্যে যেভাবে যেতে পারেঃ

–    অনিরাপদ যোনী , মুখ অথবা পায়ুপথে সেক্স ।

–   কম্পন সৃষ্টিকারী অথবা অন্যান্য সেক্স পুতুল যা ধৌত করা হয়েছে এবং নতুন কনডম দিয়ে ব্যবহার করা হয়েছে।

এই ব্যাকটেরিয়া সারভিক্স বা ডিম্বাশয়ের প্রবেশপথে সংক্রামন করতে পারে, মূত্রনালী (একটি টিউব যা শরীরের মূত্র বহন করে), পায়ুপথ এবং খুব কমভাবে গলা অথবা চোখে সংক্রামন করে। এই সংক্রামন একটি গর্ভবতী মা থেকে তার বাচ্চার কাছে যেতে পারে।

গনোরিয়া চুম্বন, আলিঙ্গন, একসাথে গোসল, একই তোয়ালে, সুইমিং পুল, টয়লেট সিট, অথবা কাপ, প্লেট, এগুলো ভাগ করার মাধ্যমে ছড়ায় না, কারন ব্যাকটেরিয়া মানুষের শরীরের বাহিরে বেশিক্ষন টিকে থাকতে পারেনা।

লক্ষন এবং উপসর্গঃ 

গনোরিয়ার স্বাভাবিক উপসর্গ হল  যোনী অথবা লিঙ্গ থেকে মোটা সবুজ অথবা হলুদ তরল নিঃসরন হওয়া , মূত্রত্যাগের সময় ব্যাথা  এবং মহিলাদের মাসিকের সময় রক্তপাত হওয়া। তবে, ১ থেকে ১০ জন আক্রান্ত মানুষ এবং প্রায় আক্রান্তদের অর্ধেক কোন উপসর্গের অভিজ্ঞতা পায়না।

পরীক্ষা করাঃ

যদি আপনার গনোরিয়ার কোন উপসর্গ থাকে অথবা আপনি যদি চিন্তিত থাকেন আপনি  STI নিতে পারেন , আপনার খুব শীঘ্রই চিকিৎসকের কাছে যাওয়া উচিৎ। গনোরিয়া নিঃসরনের কিছু নমুনা হাতলের সাহায্যে নিয়ে সেটা পরীক্ষা করার মাধ্যমে খুব সহজেই নির্নয় করা যায়। মূত্রের নমুনা পরীক্ষা করেও মানুষের মাঝে এটা নির্নয় করা যায়।এটা যত দ্রুত সম্ভব নির্নয় করা উচিৎ কারন গনোরিয়ার চিকিৎসা যদি না করা হয় তবে তা স্বাস্থ্যে আরো সমস্যার সৃষ্টি করতে পারে, এমনকি মহিলাদের পেলভিক ইনফ্লামেটরী ডিজিজ  (PID) বা বন্ধাত্বও সৃষ্টি করতে পারে।

গনোরিয়ার চিকিৎসাঃ 

গনোরিয়া সাধারনত একটি এন্টিবায়োটিক ইনজেকশন এবং একটি এন্টিবায়োটিক ট্যাবলেট দিয়ে ভাল করা যেতে পারে। কার্যকরী চিকিৎসার সাথে, আপনার বেশীরভাগ উপসর্গ কিছুদিনের মাঝে উন্নতি করা উচিৎ।

সাধারনত এক বা দু সপ্তাহের একটি তত্ত্বাবধানে থেকে চিকিৎসা নেওয়ার পরামর্শ দেওয়া হয়, তাই আপনি যদি সংক্রামনের ব্যাপারে নিশ্চিত থেকে থাকেন তবে অন্য পরীক্ষাও করানো উচিৎ।

আপনার সেক্স উপেক্ষা করা উচিৎ যতক্ষন না পর্যন্ত আপনি সবকিছু সম্পর্কে নিশ্চিত হউন।

কারা আক্রান্ত?

যৌনক্রিয়ায় সক্রিয় যে কেউ গনোরিয়ায় আক্রান্ত হতে পারেন, বিশেষ করে যারা নিয়মিত পার্টনার পরিবর্তন করে থাকেন অথবা জন্মনিয়ন্ত্রনের বাধা হিসেবে সেক্সের সময় কনডম ব্যবহার করেন না। গনোরিয়ার অতীত সফল চিকিৎসা পুনরায় সংক্রামিত হওয়া থেকে আপনাকে বিরত রাখবেনা।

গনরিয়া প্রতিরোধঃ

গনোরিয়া এবং অন্যান্য  STIs সফলভাবে প্রতিরোধ করা করা হয়েছে সঠিক জন্মনিয়ন্ত্রন ব্যবহার এবং অন্যান্য সতর্কতা মেনে যেমনঃ

-আপনার প্রত্যেক যোনী সেক্সে এবং পায়ুপথে সেক্সের সময় কনডম ব্যবহার করা

-যদি আপনি মুখে সেক্স করে থাকেন তবে লিঙ্গকে কনডম দিয়ে ঢেকে দিন

-সেক্স পুতুল ভাগ না করা, অথবা তাদের কে পরিষ্কার করা এবং কেউ ব্যবহার করার আগে তাদের কে কনডম দিয়ে ঢেকে দেওয়া