English Version

পরমাণু যুদ্ধে কোন অবস্থায় পাকিস্তান এবং ভারতের!

বিডিটুডেস আন্তর্জাতিক :পাকিস্তান চলতি মাসের ৯ তারিখে প্রথমবারের মতো সাবমেরিন থেকে ক্রুজ ক্ষেপণাস্ত্র ছোঁড়া বা এসএলসিএমের সফল পরীক্ষা চালিয়েছে। পরমাণু অস্ত্র বহনে সক্ষম এসএলসিএম বাবর-৩ নামের ৪৫০ কিলোমিটার পাল্লার ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষার মধ্যদিয়ে দেশটি ‘দ্বিতীয় হামলা’ চালানোর বিশ্বাসযোগ্য সক্ষমতা অর্জন করেছে বলে পাক সামরিক বাহিনী এক বিবৃতিতে জানিয়েছে। এতে, চিরপ্রতিদ্বন্দ্ধি ভারতের বিরুদ্ধে পাকিস্তানের পরমাণু প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা জোরদারের দাবি করা হয়।

পাকিস্তানের এ দাবি সত্ত্বেও ‘দ্বিতীয় হামলা’র সক্ষমতা দিক থেকে ভারত অনেক এগিয়ে রয়েছে বলে প্রতিরক্ষা বিষয়ক অন্যান্য খবর থেকে জানা গেছে।

যুদ্ধের সময় শত্রুর হামলায় স্থলভাগের পরমাণু স্থাপনা ধ্বংস হয়ে গেলেও সাগরে থাকা সাবমেরিন থেকে চালানো পাল্টা পরমাণু আক্রমণকে ‘সেকেন্ড স্ট্রাইক’ বা ‘দ্বিতীয় হামলা’ হিসেবে অভিহিত করা হয়।

দেশীয়ভাবে এসএলসিএম বাবর-৩ তৈরি করা হয়েছে বলে পাকিস্তান দাবি করেছে। ক্ষেপণাস্ত্রটি পানির তলের ডুবোজাহাজ থেকে ছোঁড়ার পর নির্ভুলভাবে লক্ষ্যবস্তুতে আঘাত হেনেছে বলে জানিয়েছেন পাক সেনাবাহিনীর জনসংযোগ বিভাগ আন্তঃবাহিনী জনসংযোগ পরিদপ্তর। ভারত মহাসাগর থেকে এ ক্ষেপণাস্ত্র ছোঁড়া হয়েছে বলে জানানো হলেও উৎক্ষেপণের সুনির্দিষ্ট স্থান জানানো হয় নি।

এ ছাড়া, এসএলসিএম পরীক্ষার জন্য কি ধরণের ডুবোজাহাজ পাকিস্তান ব্যবহার করেছে তাও প্রকাশ করা হয় নি।কিন্তু ভারতীয় বিশেষজ্ঞরা ধারণা করছেন, পাক নৌবাহিনীতে খালিদ শ্রেণি নামে পরিচিত আগোস্টা ৯০বি ক্লাস শ্রেণিকে এ পরীক্ষায় ব্যবহার হয়েছে।

এ ছাড়া, বাবর-৩ ছোঁড়ার উপযোগী করার জন্য খালিদ শ্রেণির ডুবোজাহাজের বড় ধরণের সংস্কার করতে হয়েছে।

পাকিস্তানের বাবর-২ নামের ভূমি থেকে নিক্ষেপ যোগ্য ক্রুজ-ক্ষেপণাস্ত্র বা এলএলসিএম ব্যবস্থাকে সংস্কার করে ডুবোজাহাজ থেকে ছোঁড়ার উপযোগী বাবর-৩ নির্মাণ করা হয়। উন্নত সংস্করণের বাবর-২’য়ের পরীক্ষা গত ডিসেম্বরের মাঝামাঝি চালানো হয়েছে।

এ দিকে, গত আগস্টে ভারতের পরমাণু শক্তিচালিত ডুবোজাহাজ আইএনএস অরিহন্ত থেকে কে-৪ এসএলবিএম’য়ের পরীক্ষা করা হয়েছে। এ পরীক্ষা প্রায় নীরবে সম্পন্ন করেছে ভারত। কে-৪ পরমাণু ক্ষেপণাস্ত্রের পাল্লা সাড়ে তিন হাজার কিলোমিটার বলে জানানো হয়েছে।

এ ছাড়া, ভারতের প্রতিরক্ষা এবং উপগ্রহ সংক্রান্ত বিশ্লেষকের বরাত দিয়ে বাবর-৩’য়ের পরীক্ষা নিয়ে একটি প্রশ্ন তুলেছে ভারতীয় নিউজ চ্যানেল টাইমস। এতে দাবি করা হয়েছে, বাবর-৩ পরীক্ষার ভিডিও প্রকাশের ক্ষেত্রে চালাকির আশ্রয় নিয়েছে পাকিস্তান। ক্ষেপণাস্ত্রের যাত্রাপথের প্রকৃত ভিডিও ফুটেজ প্রকাশের বদলে এতে কম্পিউটার গ্রাফিকস যোগ করা হয়েছে বলে খবরে দাবি করা হয়।-সংবাদমাধ্যম

বিডিটুডেস/জেডএইচ/১২জানুয়ারি’১৭

Shares