English Version

আলু চাষে কৃষকদের করণীয়

পোস্ট টি ভালো লাগলে আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন

বিডিটুডেস ডেস্ক: বাংলাদশে প্রায় ১ লক্ষ ৫৩ হাজার হেক্টর জমিতে আলু চাষ হয় এবং প্রায় ১৭ লক্ষ টন আলু উৎপাদিত হয়। হেক্টর প্রতি আলুর গড় ফলন প্রায় ১২.৪ টন। বাংলাদেশে বছরে জন প্রতি ১৩.৩০ কেজি আলু সবজি হিসেবে ব্যবহৃত হয়। আলু পুষ্টির দিক দিয়ে ভাত ও গমের সাথে তুল্য। আলু চাষের জন্য বেলে দোঁআশ ও দোঁআশ ধরনের মাটি সবচেয়ে উপযোগী।

আলুর চাষ করতে কৃষকদের বেশ কিছু সমস্যা সম্মুখীন হতে হয়। যেমন- পোকা, রোগ ও খাদ্য উৎপাদনের ঘাটতি। কাটুই পোকা আলুর গাছ কেটে দেয় এতে কৃষক ক্ষতির সম্মুখীন হয়। আলু লাগানোর পর থেকে অর্থাৎ ৪০ দিন পর্যন্ত এই পোকার আক্রমণ হয়ে থাকে। তাই সময় কৃষকদের সতর্ক থাকতে হবে এবং কাটুই পোকার কীড়া দমন করতে হবে। কাটুই পোকার কীড়া দমনে ১০ লি. পানিতে ২০ মিলি হারে অ্যালকো ৫৫০ ইসি ব্যবহার করা যেতে পারে।

দ্বিতীয়ত জাব পোকা রস চুষে খেয়ে গাছকে দুর্বল করে দেয় এবং ভাইরাসের বাহক হিসাবে কাজ করে। জাব পোকা দমনে ১০ লিটার পানিতে ৮ মিলি হারে মুক্তি ২০০ এম এল ব্যবহার করা যেতে পারে।
আবার আবহাওয়ার তারতম্যের উপর ভিক্তি করে জমিতে রোগের প্রার্দুভাব দেখা দিতে পারে এ সময় কৃষক ভাইদের সতর্ক থাকতে হবে এবং প্রতিদিন সকালে আলুর জমি ভিজিট করতে হবে, তা না হলে ব্যাপক ক্ষতির সম্মুখীন হতে হবে।

আরো পড়ুন: সুদ আর দাদন ব্যবসায় জেলেদের মুখে হাসি নেই

আলুর মড়ক বা লেইট ব্রাইট রোগঃ  ফাইটোপথোরা ইনফেসটান্স নামক ছত্রাকের আক্রমণে এ রোগ হয়ে থাকে। প্রথমে পাতা, ডগা ও কান্ডে ছোট ভেজা দাগ পড়ে। ক্রমে দাগ বড় হয় ও সমগ্র পাতা, ডগা ও কান্ডে ছড়িয়ে পড়ে। বাতাসের আপেক্ষিক আদ্রতা বেশি থাকলে ২-৩ দিনের মধ্যে জমির অধিকাংশ ফসল আক্রান্ত হয়ে পড়ে ভোরের দিগে আক্রান্ত পাতার নিচে সাদা পাউডারের মত ছত্রাক চোখে পড়ে। আক্রান্ত ক্ষেতে পোড়া পাতা পাওয়া যায় এবং মনে হয় যেন জমির ফসল পুড়ে গেছে।

আলুর আগাম ধসা বা আর্লি ব্লাইট রোগঃ অলটারনারিয়া সোলানাই নামক ছত্রাকের আক্রমনে এ রোগ হয়ে থাকে। পাতার নীচে ছোট ছোট বাদামী রংয়ের অল্প বসে-যাওয়া বা কৌনিক দাগ পড়ে। আক্রান্ত অংশে সামান্য বাদামী এলাকার সাথে পর্যায় ক্রমে কালচে রংয়ের চক্রাকার দাগ পড়ে। পাতার বোটা ও কান্ডের দাগ অপেক্ষাকৃত লম্বা ধরনের হয়।

গাছ হলদে হওয়া, পাতা ঝরে পড়া এবং অকালে গাছ মরে যাওয়া এ রোগের লক্ষনীয় উপসর্গ। আক্রান্ত টিউবারের গায়ে গাঢ় বাদামি থেকে কালচে বসে যাওয়া দাগ পড়ে। লেটব্রাইট ও আর্লি ব্রাইট রোগ দমনে প্রতি লিটার পানিতে ৫ গ্রাম ইজেব ও ০.৫ গ্রাম টিমসেন একত্রে মিশিয়ে ভাল ভাবে গাছ ভিজিয়ে স্প্রে করতে হবে। আবহাওয়া বেশি খারাপ হলে কারিশমা প্রতি লিটার পানিতে ১ মিলি হাড়ে ভালভাবে গাছ ভিজিয়ে স্প্রে করতে হবে। বিডিটুডেস/আরএ/০৩ অক্টোবর, ২০১৮

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

two + 9 =