ঢাকা, বাংলাদেশ, ২৭°সে | আজ |
ইংরেজী ভার্সন English Version

নাঙ্গলকোটে এক রাতে দুই ডাকাতি

পোস্ট টি ভালো লাগলে আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন

মো. রেজাউল করিম রাজু, নাঙ্গলকোটে (কুমিল্লা):  কুমিল্লার নাঙ্গলকোটে এক রাতে দুই বাড়ীতে দুর্ধর্ষ ডাকাতির ঘটনা ঘটেছে। গত শুক্রবার গভীর রাতে উপজেলার মক্রবপুর ইউপির সাহেদাপুর গ্রামে ও মৌকরা ইউপির ভাসরলংকা গ্রামে এসব ডাকাতির ঘটনা ঘটে।

মেডিকেল বিডি

গতকাল শনিবার সরেজমিনে গিয়ে জানা যায়, মক্রবপুর ইউপির সাহেদাপুর গ্রামের প্রবাসী ইউছুপ হোসেন লিটনের বাড়ীতে রাত ১টা ৪০ মিনিটের সময় ১৪-১৫ জনের একদল মুখোশধারী ডাকাতদল তার পরিবারের সদস্যদের অস্ত্রেরের মুখে জিম্মি করে স্বর্ণ ৪ ভরি, ৩টি মোবাইল, নগদ ১০ হাজার ৪শ টাকা ও মূল্যবান জিনিসপত্র লুট করে নিয়ে যায়।

আরো জনা যায়, লিটনের ফুফু আইনজুবের নেছা (৮০) তাকে গলাটিপে ধরে বেধমভাবে মারধর করে। একপর্যায়ে সে মাটিতে লুটে পড়ে যায়। ওই ডাকাত দলেরা ২মাস পর আবার হানা দিবে বলে হুমকি দেয়।

অপর দিকে মৌকরা ইউপির ভাসরলংকা গ্রামের অহিদুর রহমান জানান, গভীর রাতে গেইটের দরজা ভাঙ্গার আওয়াজ পেয়ে তাৎক্ষনিক তিনি তার চাচাত ভাইকে ফোন করে বলার সাথে সাথে দরজা ভেঙ্গে তাকে অস্ত্র দিয়ে আঘাত ও তার পরিবারের সাবাইকে হাত পা বেধে অস্ত্রেরের মুখে জিম্মি করে ৩ ভরি স্বর্ণ, নগদ ১০ হাজার টাকা, মোবাইল ৩টি ও টর্চ লাইট নিয়ে যায়। এ সময় এলাকাবাসী মসজিদের মাইকে ডাকাতির কথা ঘোষনা শুনে এবং

পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে ডাকাতরা দ্রুত পালিয়ে যায়। ইউপি আ.লীগের আহবায়ক এমএ আব্দুল মতিন ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন।
এ বিষয়ে নাঙ্গলকোট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. আইয়ুব জানান, খবর পেয়ে তাৎক্ষনিক পুলিশ ঘটনাস্থলে যাওয়ার ফলে ভাসরলংকা গ্রামে ডাকাতি সংঘটিত হতে পারে নাই। এ ছাড়া সাহেদাপুর গ্রামে ডাকাতির ঘটনার বিষয় খতিয়ে দেখা হচ্ছে।