English Version

নাটকীয় আউট নিয়ে পাকিস্তানে রসিকতা!!

পোস্ট টি ভালো লাগলে আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন

বিডিটুডেস ডেস্ক: আজহার আলির হাস্যকর রানআউট নিয়ে পুরো ক্রিকেট বিশ্বেই চলছে হাসি-ঠাট্টা, ব্যঙ্গ-বিদ্রুপ, রসিতকা। হচ্ছে তির্যক কথা-বার্তাও। যারা সচোক্ষে আউট হতে দেখেছেন, যারা সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমে ভাইরাল হওয়া ভিডিও দেখেছেন, এমনকি যারা পত্রপত্রিকা, টেলিভিশনের সুবাদে আউটের বিবরণ শুনেছেন, সবাই বিস্ময়ে হতবাক। হতভম্ব হয়ে সবাই রসিতকা করে বলছে, এভাবে কেউ আউট হয়! আজহারের ভাগ্য অতি ভালো যে, তার শিশুসূলভ আউট নিয়ে সমালোচনার চেয়ে রসিকতাই হচ্ছে বেশি। এমনকি তার আউট নিয়ে রসিকতা, হাসি-ঠাট্টা চলছে পাকিস্তানের ড্রেসিংরুমেও। দলের অবস্থা খারাপ হলে নিশ্চিতভাবেই এমন অমার্জনীয় ভুলের জন্য তির্যক বাক্যবাণে আজহারের চামড়া তুলে ফেলত নিন্দুকেরা। কিন্তু আজহারের ওই আউটের পরও আবুধাবি টেস্টের চালকের আসনে পাকিস্তান। ৯ উইকেটে ৪০০ রান করে দ্বিতীয় ইনিংস ঘোষণা করেছে পাকিস্তান। ফলে প্রথম ইনিংসের ১৩৭ রানের লিড মিলিয়ে অস্ট্রেলিয়াকে ছুড়ে দিয়েছে ৫৩৮ রানের অসম্ভব চ্যালেঞ্জ।

যেখানে দাঁড়িয়ে একমাত্র জয়ের ছবিই আঁকতে পারছে পাকিস্তান। আর দলের এই রমরমা অবস্থার কারণেই বেঁচে গেছেন আজহার। সমালোচনার পরিবর্তে তার আউট নিয়ে মজা করছেন সবাই। মজা করছেন পাকিস্তান দলের তার সতীর্থ এবয়ং কোচিং স্টাফের সদস্যরাও। আর পাকিস্তানের ড্রেসিংরুমের হাসি-ঠাট্টার সেই চিত্রটা গণমাধ্যমের কাছে ফাঁস করেছেন আজহার নিজেই। গতকাল বৃহস্পতিবার তৃতীয় দিনের খেলা শেষে সংবাদ সম্মেলনে আসেন সকালে অমার্জনীয় ভুল করা সেই আজহার! অন্য সময় হলে পালিয়ে বেড়ানোর পথ খুঁজে পেতেন না। কিন্তু জ্বলজ্বলে স্কোরকার্ড কাল তাকে টেনে নিয়ে আসে গণমাধ্যরেম সামনে। সংবাদ সম্লেনে এসে যা বললেন, তাতে সতীর্থদের রসিকতা দেখে তিনি নিজেও মজা পাচ্ছেন! নিজের ভুল স্বীকার করে আজহার বলেছেন, ‘এমন রানআউট নিয়ে আসলে কোনো অজুহাত চলে না। আমিও কোনো অজুহাত দেব না। আমরা দুজনেই বলের উপর চোখ রাখিনি। স্বাভাবিকভাবেই এমন আউট হওয়ায় খুশি হওয়ার কোনো কারণ নেই। তবে দিনটা ভালোভাবে শেষ হওয়ায় এ নিয়ে সতীর্থদের সঙ্গে মজাও হয়েছে।’
ঘটনাটা বৃহস্পতিবার আবুধাবি টেস্টের তৃতীয় দিনের। দারুণ ব্যাট করছিলেন আহজার। যে বলটাতে রানআউট হয়েছেন, সেই বলটিও দারুণ শট খেলেছিলেন। অস্ট্রেলিয়ান পেসার পিটার সিডলের বলটি ঠেলে দিয়েছিলেন থার্ডম্যানের দিকে। থার্ডম্যানে কোনো ফিল্ডার ছিল না। তাই আজহার এবং তার জুটি সঙ্গী আসাদ শফিক নিশ্চিত হয়ে যান বল ৪ হবে।

কিন্তু বল সত্যিই সীমানা দড়ি পেরোলো কিনা, তা চেয়ে দেখারও প্রয়োজন দেখাননি তারা। দুজনে বরং পিচের মাঝখানে দাঁড়িয়ে খোশ-গল্পে মত্ত হয়ে উঠেন! নিজেদের মধ্যে কথা-বার্তায় এতোই মত্ত ছিলেন যে, বল সীমানা দড়ির কাছে গিয়ে থেমে যাওয়া, স্লিপ থেকে দৌড়ে গিয়ে মিচেল স্টার্কের বুল কুড়িয়ে থ্রু করা, কোনো কিছুর দিকেই তাদের খেয়াল ছিল না! মজার ব্যাপার হলো, যখন সর্বনাশের আচ করলেন, তখনো দৌড়ে বিপদ এড়ানোর তাড়না দেখালেন না দুজনের কেউই! কিছু একটা ঘটতে যাচ্ছে বুঝেই দুজনে ঠাঁয় দাঁড়িয়ে রইলেন উইকেটের মাঝখানে। স্টার্কের থ্রু ধরে অস্ট্রেলিয়ার উইকেটকিপার টিম পেইন অনায়াসেই ভেঙে দিলেন স্টাম্প। ৬৪ ফল, রান করার পরও আহজার মাঠ ছাড়লেন মাথা নিচু করে। তার এই আউট দেখে ক্রিকেটবোদ্ধাদের একটাই রায়-একমাত্র পাকিস্তানিদের পক্ষেই এভাবে আউট হওয়া সম্ভব! ঠাট্ট-রসিকতার পর্বে এই প্রশ্নও উঠছে, উইকেটের মাঝখানে এতোটা মশগুল হয়ে কি এমন কথা বলছিলেন যে, এতো কিছু ঘটে যাওয়ার পরও তারা তা খেয়াল করলেন না? হাস্যকরভাবে আউট হওয়াটাকে ‘মজার’ আখ্যায়িত করে আজহার উত্তরটা দিয়েছেন এভাবে, ‘আমরা আসলে বলের লেট সুইং নিয়ে কথা বলছিলাম। আমরা দুজনেই ভাবিনি, এমন কিছু ঘটতে পারে। এমনকি স্টার্ক বল থ্রু করার পরও মাথায় আসেনি কিছু একটা ঘটতে যাচ্ছে। তবে বল উইকেটকিপারের হাতে আসার পর বুঝতে পারি মজার কিছু ঘটতে যাচ্ছে!’

এভাবে আউট করাটা ক্রিকেটের চেতনা বিরোধী কিনা সেই বিষয়েও আলোচনা হচ্ছে। ২০১১ সালে ঠিক এভাবেই ইংল্যান্ডের ইয়ান বেলকে আউট করেছিল ভারত! তবে আউট করার পর ভারতের তৎকালীন অধিনায়ক মহেন্দ্র সিং ধোনি বেলকে ‘নটআউট’ ঘোষণা করে আবার ব্যাটিং করার সুযোগ দিয়েছিলেন! কিন্তু অস্ট্রেলিয়ানরা সেই সৌজন্যতা দেখায়নি। আজহারকে প্যাভিলিয়নে পাঠিয়ে তারা বরং মেতে উঠে উইকেট প্রাপ্তির উল্লাসে। দায়টা নিজের কাঁধে নিয়ে আজহার এ নিয়ে অস্ট্রেলিয়ানদের পক্ষেই ব্যাট করলেন, ‘আমার মনে হয় না এটা ক্রীড়াসূলভ মানসিকতার বাজে উদহারণ। অস্ট্রেলিয়ানরা ঠিক কাজটাই করেছে। সব দায় আসলে আমার। ভুলটা ছিল আমারই।’ আহজার মানছেন এই আউট নিয়ে সারাজীবনই তাকে টিপ্পনি সইতে হবে। তবে বাইরের লোকদের নয়, আজহার ভয় পাচ্ছেন নিজের ছেলে ইবতিশামকে নিয়ে। বলেছেন, ‘আমার ছেলে হএ নিয়ে অনেক সময়ই রসিকতা করবে। ওকে ক্রিকেট নিয়ে কিছু বলতে গেলে নিশ্চিতভাবেই সে এই প্রসঙ্গটা টেনে আনবে।’ বিডিটুডেস/আরএ/১৯ অক্টোবর, ২০১৮

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

ten − 5 =