English Version

যুক্তরাষ্ট্রকে সময় বেঁধে দিলেন কিম

পোস্ট টি ভালো লাগলে আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন

ছবি: অনলাইন

বিডিটুডেস ডেস্ক: যুক্তরাষ্ট্রকে নিজেদের দৃষ্টিভঙ্গি পাল্টাতে এ বছরের শেষ পর্যন্ত সময় বেঁধে দিয়েছে উত্তর কোরিয়া। দেশটির সর্বোচ্চ নেতা কিম জং উন বলেছেন, ‘মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে চলমান আলোচনার বিরতিতে ওয়াশিংটনের সঙ্গে আবারও উত্তেজনা সৃষ্টির ঝুঁকি বৃদ্ধি পেয়েছে। তবে এ বছরের মধ্যে ওয়াশিংটন তাদের দৃষ্টিভঙ্গিতে পরিবর্তন আনলে প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের সঙ্গে আমি আবারও বৈঠকে বসবো।’ শনিবার (১৩ এপ্রিল) উত্তর কোরিয়ার রাষ্ট্রীয় গণমাধ্যম কেসিএনএর বরাতে বার্তা সংস্থা রয়টার্স জানায়, কিম যুক্তরাষ্ট্র সরকারকে চলমান পারমাণবিক ইস্যুসহ নানা বিষয় নিয়ে এ বছরের শেষ পর্যন্ত সময় দিতে চান। উত্তর কোরিয়ার আশা, এর মাধ্যমে যুক্তরাষ্ট্র অবশ্যই আরও নমনীয় হয়ে উঠবে।

গত শুক্রবার কিম বলেছিলেন, ‘ওয়াশিংটনকে অবশ্যই তাদের গতানুগতিক চিন্তাভাবনাকে বন্ধ করতে হবে। কেননা আমাদের কাছে আসতে তাদের আবারও নতুন করে ভাবতে হবে।’ উত্তর কোরিয়ার এ সর্বোচ্চ নেতা আরও বলেছেন, ‘গত বৈঠকে ট্রাম্প সম্পূর্ণ বাস্তবতা বিরোধী পরিকল্পনা নিয়ে এসেছিলেন। মার্কিন কর্মকর্তারা আসলে তখন আমাদের সঙ্গে মুখোমুখি আলোচনার জন্য প্রস্তুত ছিলেন না। তাই এ ধরণের দৃষ্টিভঙ্গি নিয়ে যুক্তরাষ্ট্র হাজার বার বৈঠকে বসলেও তারা আমাদের দিকে একটুও অগ্রসর হতে পারবে না।’

এসবে প্রেক্ষিতে গত বৃহস্পতিবার মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প বলেছিলেন, ‘আমি আবারও কিমকে সাক্ষাৎ করার জন্য প্রস্তাব দিতে ছাই। কারণ আমরা এসব বিষয়ে সব সময়ই উন্মুক্ত। যদিও তার এই বক্তব্যের প্রেক্ষিতে উত্তর কোরিয়ার নেতা বলেছেন, ‘হ্যানয়ির ফলাফল নিয়ে আমি ভীষণ উদ্বিগ্ন। প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প গত বছর আন্তর্জাতিক সম্পর্ক ও মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে আলোচনার কৌশল নিয়ে প্রশ্ন তুলতেই সেই বৈঠকটির আয়োজন করেছিলেন।’ উত্তর কোরিয়ার গোয়েন্দা সূত্রের বরাতে কিম এও বলেছেন, ‘হ্যানয় শীর্ষ সম্মেলন কৌশলগত সিদ্ধান্ত এবং সাহসী রেজুলেশন নিয়ে পদক্ষেপ নেওয়ার ক্ষেত্রে আমরা সঠিক ছিলাম। তখন আমরা একটি শক্তিশালী প্রশ্ন উত্থাপন করেছিলাম যে, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ডিপিআরের সঙ্গে সম্পর্ক উন্নয়নে সত্যিই কতটা ইচ্ছুক।’

তিনি বলেন, ‘এ বিষয়ে যুক্তরাষ্ট্র যদি এভাবেই চিন্তা করে থাকে, তাহলে ডিপিআর কোনো স্বার্থ অর্জন করতে পারবে না। এই একটি বিষয় নিয়ে আলোচনার জন্য ঠিক কতবার বসতে পারে।’ ‘আমরা এ বছরের শেষ পর্যন্ত মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে ধৈর্য সহকারে একটি সাহসী সিদ্ধান্তের জন্য অপেক্ষা করবো। তবে আমি এও মনে করি যে, পূর্ববর্তী শীর্ষ সম্মেলনের মতো এত ভালো সুযোগ পাওয়াটা আমাদের সকলের জন্য অবশ্যই কঠিন হবে।’

উল্লেখ্য, এর আগে গত বছরের গত ১২ জুন সিঙ্গাপুরে এবং চলতি বছরের ২৭-২৮ ফেব্রুয়ারি ভিয়েতনামের হ্যানয়তে ট্রাম ও কিম দুইবার বৈঠকে মিলিত হন। যদিও প্রতিবারই তারা কিন্তু উত্তর কোরিয়া পারমাণবিক ও ক্ষেপণাস্ত্র কর্মসূচিসহ নানা ইস্যুতে চূড়ান্ত চুক্তিতে পৌঁছাতে ব্যর্থ হন।  বিডিটুডেস /ডি আই/ ১৩ এপ্রিল, ২০১৯

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

nineteen − two =