English Version

সরকারের সু-দৃষ্টির আড়ালে বাংলাদেশ ডাক বিভাগের বিও কর্মচারী

পোস্ট টি ভালো লাগলে আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন

এসডি আর রিপন মাহমুদ, পিরোজপুর: দেশের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ও নিরাপদ সরকারী প্রতিষ্ঠান বাংলাদেশ ডাক বিভাগ। সরকারী ও বে-সরকারী চিঠিপত্র থেকে শুরু করে ভারী মালামাল আদান-প্রদান করা হয় এর মাধ্যমে। নতুন নতুন ডিজিটাল সেবা চালু করা হয়েছে শহর থেকে গ্রামেও। দেশের উন্নয়ণের সাথে সাথে উন্নত হচ্ছে বাংলাদেশ ডাক বিভাগ। এই বিভাগের উন্নয়নে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে আসছে ব্রাঞ্চ অফিস (বিও) কর্মচারীগন। আর এই গুরুত্বপূর্ণ কর্মচারীদেরকে রাখা হয়েছে সরকারের সু-দৃষ্টির আড়ালে। এদের প্রতি নজর নেই ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্য প্রযুক্তি মন্ত্রনালয় কর্তৃপক্ষের। বর্তমান সরকার দেশের প্রতিটি ইউনিয়ন পরিদষের গ্রামপুলিশদের বেতন ভাতা বৃদ্ধি করেছে অনেক হারে। সে তুলনায় অর্ধেকেরও কম বেতন ভাতায় কাজ করছে বিও অফিসের কর্মচারীরা।

পিরোজপুর প্রধান ডাকঘরের আওতায় একটি বিও অফিসের ইডিএ (পোষ্ট মাষ্টার) নাম প্রকাশ না করে বলেন, একজন ইডিএ কর্মচারীকে পোষ্ট মাষ্টার হিসেবে পদমর্যাদা দেওয়া হলেও সরকার এদেরকে গ্রামপুলিশদের চেয়েও নি¤œ শ্রেনীর মনে করছেন। বর্তমান গ্রামপুলিশের শিক্ষাগত যোগ্যতা ৫ শ্রেনী বা তার কম। কিন্তু বিও অফিসের কর্মচারীদের শিক্ষাগত যোগ্যতা নূন্যতম এসএসসি পাশ অথবা তারও বেশী। তাহলে এখানে শিক্ষাকেও তেমন একটা মর্যাদা দেওয়া হচ্ছে না। গ্রামপুলিশের বেতনের চেয়ে বিও কর্মচারীদের বেতন অর্ধেকেরও কম। কিন্তু গ্রামপুলিশ (মহল্লাদার) দের চেয়ে বাংলাদেশ ডাক বিভাগের বিও কর্মচারীদের দায়িত্ব ও পরিশ্রম অনেকাংশে বেশী। এমনকি এদের নেই কোন ভবিষ্যৎ।

জানাযায়, বিও কর্মচারীদের বেতন-ভাতা বৃদ্ধির দাবিতে বহুবার আন্দোলন করা হয়েছে। সরকারের পক্ষ থেকে বিষয়টি বিবেচনা পূর্বক ব্যবস্থা নেওয়ার আশ্বাসও দিয়েছে এই মন্ত্রনালয়। কিন্তু এখনো কোন ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয় নাই। তবে কি দেশের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ সরকারী প্রতিষ্ঠান ডাক বিভাগের বিও কর্মচারীগন এমনই অবহেলা পেয়ে কাজ করে যাবে নিঃস্বার্থ ভাবে ? বিষয়টি উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের দৃষ্টিতে আসুক এমন আশা ব্যক্ত করছেন বিও কর্মচারীগন। বিডিটুডেস/আরএ/১৯ অক্টোবর, ২০১৮

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

6 + two =