English Version

সৌরজগতের এই রহস্যময় অতিথি আসলে কি?

পোস্ট টি ভালো লাগলে আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন


বিডিটুডেস ডেস্ক: এমন বলছেন কেউ কেউ, পৃথিবীকে আক্রমণ করার আগে নজরদারি করতেই নাকি এই বস্তুটিকে পাঠানো হয়েছে! গত বছরের অক্টোবর মাস। হাওয়াই দ্বীপপুঞ্জের জ্যোতির্বিজ্ঞানী রবার্ট ওয়েরিকের টেলিস্কোপে ধরা পড়ে এক আশ্চর্য মহাজাগতিক বস্তু। সৌরজগতের বাইরে থেকে আসা বস্তুটির মধ্যে ধুমকেতু ও উল্কাপিণ্ড— দুইয়েরই চিহ্ন বর্তমান থাকায় স্বাভাবিক ভাবেই চমকে উঠেছিলেন জ্যোতির্বিজ্ঞানীরা। নানা আলোচনা সেই থেকে হয়ে এসেছে এই কৃষ্ণ লাল রঙের রহস্যময় বস্তু নিয়ে। এবার সামনে এল এই বস্তু নিয়ে এক আশ্চর্য দাবি।

আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যম ‘মিরর’-এ প্রকাশিত প্রতিবেদন থেকে জানা যাচ্ছে, গত বৃহস্পতিবার হার্ভার্ড স্মিথসোনিয়ান সেন্টার ফর অ্যাস্ট্রোফিজিক্স একটি গবেষণাপত্র প্রকাশিত হয়েছে। সেখানে দাবি করা হয়েছে, ওউমুয়ামুয়া হয়তো কোনও কৃত্রিম আলোকযান, যা হয়তো প্রাণের সন্ধানে এসে পড়েছিল আমাদের সৌরজগতে। কিন্তু কেন এমন মনে হচ্ছে বিজ্ঞানীদের? ওই গবেষণাপত্রে জানানো হয়েছে, তার পিছনে রয়েছে ওই বস্তুটির রহস্যময় চলন। প্রথম যখন ওই বস্তুটিকে দেখা গিয়েছিল, তখন তার যা গতি ছিল, পরে সৌরজগতের মাঝামাঝি তার গতি অপ্রত্যাশিত ভাবে বেড়ে গিয়েছিল!

তা ছাড়া যেহেতু ওই বস্তুটির সঙ্গে ধুমকেতু ও উল্কাপিণ্ড— দুইয়েরই মিল থাকটাও ভাবিয়েছে বিজ্ঞানীদের। সব মিলিয়ে গবেষণার পরে তাঁদের ধারণা, হয়তো সৌর বিকিরণকে কাজে লাগিয়েই হয়তো এগোচ্ছিল ওই বস্তুটি। এই দাবির সঙ্গে সঙ্গে ভিনগ্রহীদের পাঠানো রহস্যময় দূত বলেই ভাবা শুরু হয়ে গিয়েছে ওউমুয়ামুয়াকে। কন্সপিরেসি থিয়োরির প্রবক্তারা বলতে শুরু করে দিয়েছেন, ওউমুয়ামুয়ার আগমন আসলে সতর্কবার্তা। পৃথিবীকে আক্রমণ করার আগে নজরদারি করতেই নাকি এই বস্তুটিকে পাঠানো হয়েছে! গত বছর থেকেই তাকে ঘিরে রহস্য তুঙ্গে। এবার তাতে নতুন মাত্রা যোগ করল এই গবেষণা। বিডিটুডেস/আরএ/০৪ নভেম্বর, ২০১৮

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

sixteen + 6 =