Logo
শিরোনাম
গুরুতর আহত জীবন মেডিকেলে চিকিৎসাধীন

আদিতমারীতে স্কুলে বহিরাগতদের হামলা

প্রকাশিত:শনিবার ১১ জুন ২০২২ | হালনাগাদ:রবিবার ০৩ জুলাই ২০২২ |
Image

 নিজস্ব প্রতিনিধি , লালমনিরহাট: 

লালমনিরহাট আদিতমারীতে পাঁচপাড়া সরকারি প্রাথমিক স্কুলে শ্রেণিকক্ষে ঢুকে বহিরাগত ব্যবসায়ী গুলবাহার মিয়া ও তার মা  গোলাপী বেগমের হামলায় গুরুতর আহত চতুর্থ শ্রেণীর ছাত্র জীবন  কুমার রংপুর মেডিকেল কলেজে চিকিৎসাধীন রয়েছে। এ বিষয়ে আদিতমারী  থানায় দুই জনকে অভিযুক্ত করে অভিযোগ দায়ের করেছে মুমূর্ষ আহত জীবন কুমারের অভিভাবক অতুল চন্দ্র রায়। 

অভিযোগ দায়েরের তিন দিন পার হলেও রহস্যজনক কারণে আদিতমারী থানা ইনচার্জ অভিযো পত্রটি নথিভূক্ত না করারও অভিযোগ আছে।

এ বিষয়ে আদিতমারী থানার ওসি মোক্তারুলের সঙ্গে মোবাইল ফোনে  কথা বলার চেষ্টা করা হলে তিনি মিটিংয়ে আছেন মর্মে মোবাইল ফোনে বলে কেটে দেন। 

এদিকে জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার গোলাম নবী জানান, বিষয়টি তিনি খতিয়ে দেখছেন তবে স্কুল চলাকালীন সময়ে সকল শিক্ষার্থীর নিরাপত্তা দেয়ার দায়িত্ব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে উপস্থিত সকল শিক্ষক কর্মচারীর । 

অভিযোগ সূত্রে আরো জানা গেছে দুই ছাত্র মধ্যে কথা কাটাকাটির জেরে অপর ছাত্র খলিলুর রহমানের অভিভাবক স্কুল চলাকালীন সময়ে গোলাপী বেগম ও গুলবাহার মিয়া শ্রেণীকক্ষে প্রবেশ করে এলোপাতাড়ি মারধর করলে গুরুতর আহত হন জীবন কুমার। পরে তাকে উদ্ধার করে প্রথমে আদিতমারি স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের চিকিৎসার জন্য ভর্তি করালে তার অবস্থার উন্নতি না হওয়ায় তাকে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে উন্নত চিকিৎসার জন্য প্রেরণ করেছেন কর্তব্যরত চিকিৎসক। জীবন বর্তমানে রংপুর মেডিকেল কলেজের চারতলার 13 নম্বর কেবিনে  চিকিৎসাধীন রয়েছেন। জীবনের অভিভাবক সূত্র আরও জানান আহত জীবনকে দেখবার জন্য বা কোন প্রকার খোঁজখবর নেননি  ওই স্কুলের প্রধান শিক্ষক কৃষ্ণ কমল সহ সকল শিক্ষক এর সকল শিক্ষকের  বিরুদ্ধে। 

এদিকে উক্ত ছাত্র নির্যাতনের ঘটনাটিকে ধামাচাপা দেয়ার চেষ্টা করছে স্থানীয় মাতবর ও খপ্পর বাজরা ।

এ ঘটনায় উক্ত স্কুলের প্রধান শিক্ষক কৃষ্ণ কমল রায় ও সহকারী শিক্ষক হরিপদ রায়ের  উক্ত বিদ্যালয় থেকে অপসারণ চান ওই স্কুলের শিক্ষার্থীদের বেশিরভাগ অভিভাবক গণ ।


আরও খবর



পদ্মা সেতুতে মোটরসাইকেল চলবে কি না, যা জানালেন প্রতিমন্ত্রী

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ২৮ জুন ২০২২ | হালনাগাদ:শনিবার ০২ জুলাই 2০২2 |
Image

গত শনিবার (২৫ জুন) উদ্বোধনের পরদিন সকাল ৬টায় খুলে দেওয়া হয় দেশের সবচেয়ে বড় অবকাঠামো স্বপ্নের পদ্মা সেতু। ৬.১৫ কিলোমিটার দৈর্ঘ্যের এই সেতুতে উঠতে রীতিমতো পাল্লা দেওয়া শুরু হয় বাইকারদের। ১০০ টাকা টোল দিয়ে সেতুতে উঠে বাইকারদের অনেকেই নিয়ম না মেনে হুল্লোড়ে মাতেন। বেপোরোয়া গতিতে বাইক চালাতে শুরু করেন অনেক।

ওইদিন সন্ধ্যায় সেতুতে মোটরসাইকেলে চড়ে মোবাইলে ভিডিও করার সময় দুর্ঘটনার শিকার হয়ে প্রাণ হারান দুই তরুণ। এই দুর্ঘটনার পরই সেতুতে মোটরসাইকেল ওঠা নিষিদ্ধ করে সেতু বিভাগ। চালুর একদিন পরই এই সিদ্ধান্তে দুর্ভোগে পড়েন বাইকাররা।

এ প্রেক্ষাপটে মঙ্গলবার সচিবালয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে নৌপরিবহণ প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী জানিয়েছেন, পদ্মা সেতুতে স্পিডগান ও সিসি ক্যামেরা বসানোর পর মোটরসাইকেল চলাচলের বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।

পদ্মা সেতুতে মোটরসাইকেল চলাচলে নিষেধাজ্ঞার বিষয়ে প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘এটা যে অনির্দিষ্টকালীন সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে, ব্যাপারটা তা নয়। এটা এখন বন্ধ আছে, এটা একটা নিশ্চয়ই....মোটরবাইকের সম্পর্কে যেটা বলা হয়েছে সেখানে এখন স্পিডগান, সিসিটিভি বসানো হবে। সেগুলো স্থাপনের পর পরবর্তী সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।’

সিসি ক্যামেরায় নির্দিষ্ট স্থানের ভিডিও ধারণের পাশাপাশি রাডার স্পিডগান যন্ত্রের মাধ্যমে চলন্ত গাড়ির গতি কত- সেটি পরিমাপ করা যায়। স্পিডগান যন্ত্রটি বিভিন্ন দেশে সড়কে শৃঙ্খলা বজায় রাখতে ব্যবহার করা হচ্ছে।


আরও খবর



টাঙ্গাইলে স্কুলছাত্রীকে অপহরণ

ধর্ষণ ও হত্যা মামলায় তিন জনের মৃত্যুদণ্ডাদেশ

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ০৯ জুন ২০২২ | হালনাগাদ:শনিবার ০২ জুলাই 2০২2 |
Image

টাঙ্গাইলে এক স্কুলছাত্রীকে অপহরণ, ধর্ষণ ও হত্যা মামলায় তিন জনের মৃত্যুদণ্ডাদেশ দিয়েছেন আদালত।

বৃহস্পতিবার (৯ জুন) দুপুরে টাঙ্গাইলের নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের বিচারক খালেদা ইয়াসমিন এ রায় দেন। রায়ে অপরাধ প্রমাণ না হওয়ায় একজনকে খালাস দেয়া হয়। দণ্ডপ্রাপ্তরা হলেন টাঙ্গাইলের গোপালপুর উপজেলার ভেঙ্গুলা গ্রামের মৃত নগেন চন্দ্র দাসের ছেলে কৃষ্ণ চন্দ্র দাস (২৮), ধনবাড়ী উপজেলার ইসপিনজারপুর গ্রামের মোশারফ হোসেনের ছেলে সৌরভ আহম্মেদ ওরফে হৃদয় (২৩) এবং মৃত মজিবর রহমানের ছেলে মিজানুর রহমান (৩৭)। খালাসপ্রাপ্ত হয়েছেন মেহেদী হাসান টিটু ( ২৮)।

মামলার বিবরণ সূত্রে জানা যায়, গোপালপুর উপজেলার জয়নগর গ্রামের এক স্কুলছাত্রীর সাথে মোবাইল ফোনের মাধ্যমে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে উঠে কৃষ্ণ চন্দ্র দাসের সাথে। ২০২১ সালের ২ আগষ্ট বেলা ১১টার দিকে নানীর বাড়ি যাওয়ার কথা বলে ওই স্কুলছাত্রী বাড়ি থেকে বের হয়। টাঙ্গাইলের ভূঞাপুর-তারাকান্দি সড়কে বীরভরুয়া নামকস্থান থেকে গত বছরের (৩ আগস্ট) এক অজ্ঞাত যুবতীর মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। পরিচয় না পেয়ে মরদেহটি বেওয়ারিশ হিসেবে স্থানীয় ভূঞাপুরের ছাব্বিশা গোরস্থানে দাফন করা হয়। ঘটনার গুরুত্ব অনুধাবন করে টাঙ্গাইল পিবিআই স্বপ্রণোদিত হয়ে গত (৫ আগস্ট) মামলাটির দায়িত্ব নেয়। বিভিন্ন সোর্স ও তথ্যপ্রযুক্তি ব্যবহার করে ধনবাড়ী উপজেলার বলিভদ্র ইউনিয়নের ইসপিনজারপুর গ্রামে মৃত মজিবর রহমানের ছেলে মিজানুর রহমানের ভাড়া বাড়িতে যোগাযোগ করে। তদন্ত টিম মিজানুরকে কৌশলে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদকালে তার ঘরে পড়ে থাকা মোবাইল ফোনের পরিত্যক্ত একটি বাক্স কুড়িয়ে পায়। বাক্সটিতে দুটি মোবাইল ফোনের ভাঙা অংশ ছিল। পরে ওই বাক্সের গায়ে লেখা আইএমই নম্বরের সূত্র ধরে অজ্ঞাত ওই স্কুল ছাত্রীর বাবার সন্ধান পান। ছবি ও পড়নের কাপড় দেখে ওই স্কুলছাত্রীর বাবা অজ্ঞাত ওই নারী তার মেয়ে বলে শনাক্ত করেন। পরিচয় নিশ্চিত হওয়ার পর তদন্ত কাজ দ্রুত এগুতে থাকে। তদন্ত টিম তথ্য প্রযুক্তির ব্যবহার করে সোর্সের মাধ্যমে এসএসসি পরীক্ষার্থী স্কুলছাত্রী ধর্ষণ ও হত্যার সাথে জড়িত থাকার অভিযোগে জেলার বিভিন্ন উপজেলায় অভিযান চালিয়ে ঘাতক প্রেমিকসহ চার যুবককে গ্রেপ্তার করেন। ২০২১ সালের ৬ আগষ্ট নিহত ছাত্রীর বাবা বাদী হয়ে হত্যা মামলা দায়ের করেন। তদন্তে হত্যার রহস্য ও আসামিদের নাম বেরিয়ে আসে। মামলার তদন্ত প্রতিবেদনে ধর্ষণের পর হত্যার কথা উল্লেখ করা হয়।

নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের বিশেষ সরকারি কৌশুলী (পিপি) আলী আহমদ বলেন, রাষ্ট্র পক্ষ এই মামলায় আসামিদের বিরুদ্ধে তাদের অপরাধ প্রমাণ করেছে। এই কারণেই আদালত তিনজনকে মৃত্যুদণ্ডাদেশ দিয়েছেন। আরও একজনে খালাস প্রদান করেছেন। এ রায়ে বাদি পক্ষ ও আমরা সন্তুষ্ট।


আরও খবর



৬৪ বছর পর বিশ্বকাপে ওয়েলস,স্বপ্নভঙ্গ ইউক্রেনের

প্রকাশিত:সোমবার ০৬ জুন ২০২২ | হালনাগাদ:শুক্রবার ০১ জুলাই ২০২২ |
Image

এক-দুই বছর নয়, দীর্ঘ ৬৪ বছর লাগলো আবারও বিশ্বকাপ ফুটবলে খেলার যোগ্যতা অর্জন করতে। তাইতো গতরাতে কার্ডিফ সিটি স্টেডিয়ামে শেষ বাঁশি বাজার পর পরই বুনো উদ্‌যাপনে মেতে ওঠে ওয়েলসের খেলোয়াড়রা। গ্যালারিতে সমর্থকদের উল্লাস ছিল আরও দেখার মতো। এ যেন বিশ্বকাপ জয়!

এতো গেল বিজয়ী দলের চিত্র। অন্যদিকে, পরাজিত দল ইউক্রেনের খেলোয়াড়দের মন ভারী হয়ে ওঠে। সর্বশেষ ২০০৬ সালে বিশ্বকাপ খেলেছিল তারা। ওয়েলসের মতো এত দীর্ঘ সময় অপেক্ষা করতে হয়নি এখনো। তবে মন খারাপ অন্যকারণে। রাশিয়ার হামলায় দেশটি এখন যুদ্ধবিধ্বস্ত। বিশ্বকাপ খেলার সুযোগ পেলে পূর্ব ইউরোপের দেশটির মানুষের মনে কিছুটা হলেও শান্তি ফিরে আসতো। সেটি এনে দিতে ব্যর্থ হওয়াতে ইউক্রেনের খেলোয়াড়দের চোখে অশ্রু ছিল।

৮২ মিনিটের দিকে দলের সেরা তারকা গ্যারেথ বেলকে উঠিয়ে নেন ওয়েলসের কোচ। রেফারি যখন শেষ বাঁশি বাজান তখন বেঞ্চ থেকে লাফিয়ে উঠলেন রিয়াল মাদ্রিদের সাবেক এই তারকা। ওয়েলসের উদ্‌যাপনের শুরুটাও তাকে ঘিরে। বেঞ্চে বসে থাকা সতীর্থরা জড়িয়ে ধরলেন। মাঠ থেকে বাকিরাও ছুটে এসে বেলকে জড়িয়ে ধরলেন।

গতরাতে ইউরোপিয়ান অঞ্চলের প্লে-অফের ফাইনালে ইউক্রেনকে ১-০ গোলে হারিয়েছে ওয়েলস। তারা এখন বিশ্বকাপের বি গ্রুপে খেলবে। গ্রুপের বাকি তিনটি দল ইংল্যান্ড, যুক্তরাষ্ট্র ও ইরান।


আরও খবর



বাড়ছে কোরবানির পশুর দাম

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ৩০ জুন ২০২২ | হালনাগাদ:শনিবার ০২ জুলাই 2০২2 |
Image

মইনুল ইসলাম মিতুল :  সারাদেশের হাটগুলোতে পশু পরিবহন শুরু হবে দু’একদিনের মধ্যেই। পথে পথে চাঁদাবাজি চিরচেনা দৃশ্য। হাটে অতিরিক্ত মাশুল আদায়, বন্যা ও পশু খাদ্যের মূল্য বৃদ্ধি কারণে এবার কোরবানির ঈদে পশুর দাম ব্যাপকভাবে বেড়ে যাওয়ার আশঙ্কা রয়েছে।

সম্প্রতি একটি গোয়েন্দা সংস্থা বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিবের কাছে দেওয়া প্রতিবেদনে এসব কথা উল্লেখ করেছে। দ্রুত এ ব্যাপারে পদক্ষেপ নেওয়া না হলে জনগণকে অতিরিক্ত দামে কোরবানির পশু কিনতে হবে বলে সতর্ক করা হয়েছে। খবর ডয়চে ভেলে।

গোয়েন্দা প্রতিবেদন পাওয়ার কথা স্বীকার করে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব তপন কান্তি ঘোষ বলেছেন, ওই প্রতিবেদনের ভিত্তিতে আমরা দ্রুতই একটা বৈঠক করব। একজন উপসচিব রিপোর্টটির পর্যালোচনা করছেন। তবে এবার পশু সংকট হবে না, সেটা মৎস ও প্রাণীসম্পদ মন্ত্রণালয় থেকে তো আগেই বলা হয়েছে। অন্যগুলো কিভাবে ব্যবস্থাপনা হবে সেগুলো আমরা দেখছি। পাশাপাশি চাঁদাবাজিসহ অন্য বিষয়গুলো স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় দেখবে। ওই গোয়েন্দা প্রতিবেদনে চামড়ার কথাও বলা হয়েছে। চমড়া সংরক্ষণে যাতে সংকট না হয় সে জন্য আমরা শিল্প মন্ত্রণালয়কে দেড় লাখ টন লবন আমদানির অনুমতি দিয়েছি। চমড়া পরিবহনেও যাতে সংকট না হয় সেটাও আমরা দেখব।

গত ২৩ জুন বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ে পাঠানো ওই গোয়েন্দা প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, গত পাঁচ মাসে বাজারে সব ধরনের পশু ও পোলট্রি খাদ্যের দাম ৩০ থেকে ৪০ শতাংশ পর্যন্ত বেড়েছে। ফলে পশু পালনে খামারিদের ব্যয় অনেক বেড়েছে। এতে আসন্ন ঈদুল আযহার কোরবানির পশুর দাম বাড়তে পারে। এতে কোরবানির পশুর বাজারে অস্থিরতা দেখা দিতে পারে। বাজার তদারকির মাধ্যমে পশুখাদ্যের জোগান নিশ্চিত করা এবং দাম সহনীয় পর্যায়ে রাখা না গেলে কোরবানির বাজারে পশুর অপ্রতুলতা দেখা দিতে পারে। একই সঙ্গে বলা হয়েছে, কোরবানির পশু পরিবহনে বিভিন্ন স্থানে চাঁদাবাজি হয়, স্থায়ী ও অস্থায়ী হাটের মালিকেরা অযৌক্তিক হাসিল আদায় করে। এসব বন্ধেও সুপারিশ করা হয়েছে।

‘গত এক বছরে পশুখাদ্যের দাম প্রায় ৪০ শতাংশ বৃদ্ধি পেয়েছে, যার কারণে এবার গরুর দাম ১০ থেকে ১৫ শতাংশ এমনিতেই বাড়বে বলে প্রতিবেদনে বলা হয়েছে’

সংশ্লিষ্টরা বলছেন, করোনা মহামারি, বিভিন্ন দেশে পশুখাদ্যের কাঁচামালের উৎপাদন কমে যাওয়া এবং রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধের কারণে সরবরাহ বাধাগ্রস্থ হওয়ার কারণে সামগ্রিকভাবে পশুখাদ্যের দাম বেড়েছে। পশুখাদ্যের অন্যতম উপাদান হচ্ছে গম, ভুট্টা, ধানের কুড়া, সয়ামিল, সরিষার খৈল, আটা-ময়দা প্রভৃতি। এর মধ্যে বাংলাদেশের পশুখাদ্য উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠানগুলো গম, ভুট্টা ও সয়ামিল বিশ্বের বিভিন্ন দেশ থেকে আমদানি করে। রাশিয়া ও ইউক্রেন থেকে বেশি ভুট্টা আমদানি করেন বাংলাদেশের ব্যবসায়ীরা। আবার গম আমদানিতেও এ দুটি দেশের ওপর নির্ভরতা রয়েছে বাংলাদেশের। কিন্তু যুদ্ধের কারণে গত ফেব্রুয়ারির পরে দেশ দু'টি থেকে আমদানি এক প্রকার বন্ধ রয়েছে। ফলে এক বছরের বেশি সময় ধরে এসব পণ্যের দাম বাড়ছে। বেড়েছে পরিবহন খরচও। যে কারণে পশুখাদ্য উৎপাদন খরচও বেড়েছে।

প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তরের মহাপরিচালক ডা. মনজুর মোহাম্মদ শাহজাদা বলেন, এ বছর কোরবানিযোগ্য এক কোটি ২১ লাখ ২৪ হাজারের বেশি গবাদি পশু প্রস্তুত রয়েছে। গত বছর এক কোটি ১৯ লাখ গবাদি পশু প্রস্তুত ছিল, তার মধ্যে প্রায় ৯১ লাখ গবাদি পশু কোরবানি হয়েছে। এ বছর চলাচলে কোনো বিধি-নিষেধ না থাকায় গত বছরের চেয়ে কোরবানি বেশি হবে বলে আমরা আশা করছি। এবার কোরবানিযোগ্য পশুর মধ্যে গরু-মহিষ রয়েছে ৪৬ লাখ, ছাগল-ভেড়া রয়েছে ৭৫ লাখ এবং অন্যান্য পশু রয়েছে ১৪ হাজার। ফলে পশুর সংকট হবে না।

চাঁদাবাজিসহ হাটগুলোতে অতিরিক্ত মাশুল নেওয়ার বিষয়ে কী পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে? জানতে চাইলে ডা. শাহজাদা বলেন, আমরা সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে একাধিকার বৈঠক করেছি। পশুবাহী পরিবহন যাতে দ্রুত চলাচল করতে পরে সে পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে।

বাংলাদেশ ডেইরি ফার্মারস অ্যাসোসিয়েশনের (বিডিএফএ) সাধারণ সম্পাদক শাহ ইমরান বলেন, কয়েকদিন আগে আমরা প্রাণীসম্পদ অধিদপ্তরে বৈঠক করেছি। সেখানে মন্ত্রীও উপস্থিত ছিলেন। আমি সুনির্দিষ্ট কিছু প্রস্তাব সেখানে দিয়েছি। তার মধ্যে পশুবাহি ট্রাক দ্রুত চলাচলের ব্যবস্থা করতে হবে। এসব ট্রাক থেকে যাতে চাঁদাবাজি না হয় সে উদ্যোগ নিতে হবে। কোন খামার থেকে যদি কেউ পশু কেনেন তাদের কাছ থেকে কোন মাশুল আদায় করা যাবে না। আমরা যে হাটে পশু নিতে চাইব সেখানে নেওয়ার সুযোগ দিতে হবে। অনেক ইজারাদার জোর করে তাদের হাটে খামারিদের ট্রাক নিয়ে যান। দাম নিয়ন্ত্রণে রাখতে পশুবাহী ট্রাকগুলো টোলমুক্ত করার প্রস্তাবও আমি দিয়েছি।

এবার দাম বৃদ্ধির যে আশঙ্কা করা হচ্ছে, সেটা কেন? জবাবে জনাব ইমরান বলেন, দাম তো বাড়বেই। গত এক বছরে পশুখাদ্যের দাম প্রায় ৪০ শতাংশ বৃদ্ধি পেয়েছে, যার কারণে এবার গরুর দাম ১০ থেকে ১৫ শতাংশ এমনিতেই বাড়বে যদি পরিস্থিতি স্বাভাবিক থাকে। আর চাঁদাবাজিসহ অন্যান্য খরচ বাড়লে তো পশুর দাম আরও বেড়ে যাবে।

এদিকে সিলেট, সুনামগঞ্জসহ দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে সাম্প্রতিক বন্যায় গবাদি পশুর খাবারের বেশ সংকট হয়। দাম বেড়ে যায় গোখাদ্যের। এর প্রভাব কোরবানির পশুর হাটে পড়তে পারে। দেশের অন্যতম গোচারণভূমির এলাকা সিরাজগঞ্জ। সেখানেও এবার বন্যা হয়েছে।


আরও খবর



হজ ইসলামের অন্যতম স্তম্ভ

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ১৬ জুন ২০২২ | হালনাগাদ:শনিবার ০২ জুলাই 2০২2 |
Image

হজ ইসলামের পঞ্চম রুকন বা স্তম্ভ। হজ শব্দের অর্থ কোনো পবিত্র স্থান দর্শনের সংকল্প করা। ইসলামী পরিভাষায় হজ অর্থ আল্লাহ রব্বুল আলামিনের সন্তুষ্টিলাভের উদ্দেশ্যে নির্দিষ্ট স্থানগুলো এবং খানায়ে কাবা তাওয়াফ, ৯ জিলহজ আরাফাতের ময়দানে উপস্থিত থাকা এবং অন্য কয়েকটি স্থানে আল্লাহ ও রসুলের নির্দেশিত অনুষ্ঠান পালন। আল্লাহ রব্বুল আলামিন ইরশাদ করছেন, ‘আর তোমরা আল্লাহর উদ্দেশ্যে হজ ও ওমরাহ পরিপূর্ণভাবে পালন কর।’ (সুরা বাকারা আয়াত ১৯৬)

অন্যত্র ইরশাদ কচ্ছে, ‘আর প্রত্যেক মানুষের ওপর ফরজ এ ঘরের হজ করা, যে এ ঘর পর্যন্ত যাতায়াতের (দৈহিক ও আর্থিক) সামর্থ্য রাখে। আর যে ব্যক্তি তা অস্বীকার করে তবে আল্লাহ সমগ্র সৃষ্টিজগতের মুখাপেক্ষী নন।’ (সুরা আলে ইমরান, আয়াত ৯৭)

আবদুল্লাহ ইবনে ওমর (রা.) থেকে বর্ণিত। রসুলুল্লাহ (সা.) বলেছেন, ‘পাঁচটি বিষয়ের প্রতি ইসলামের ভিত্তি স্থাপন করা হয়েছে- এ কথার সাক্ষ্য দেওয়া যে আল্লাহ ছাড়া আর কোনো উপাস্য নেই এবং মুহাম্মদ আল্লাহর রসুল, নামাজ কায়েম, জাকাত আদায়, বায়তুল্লাহর হজ ও রমজানের রোজা রাখা।’ (বুখারি, মুসলিম)

হজ সম্পর্কে বিপুলসংখ্যক হাদিস রয়েছে। আবু হুরায়রা (রা.) বলেন, ‘নবী আমাদের উপস্থিতিতে বললেন, হে লোকেরা! আল্লাহ তোমাদের ওপর হজ ফরজ করেছেন। কাজেই তোমরা হজ কর। উপস্থিত জনৈক ব্যক্তি জিজ্ঞাসা করলেন, হে আল্লাহর রসুল! প্রতি বছরই কি হজ? তিনি নিরুত্তর রইলেন। অগত্যা ওই ব্যক্তি এ প্রশ্নটি পরপর তিনবার করলেন। তখন রসুলুল্লাহ বললেন, উত্তরে যদি আমি হ্যাঁ বলতাম, তাহলে তোমাদের ওপর প্রতি বছর হজ ফরজ হয়ে যেত, অথচ তা পালন করার সামর্থ্য তোমাদের থাকত না। এরপর তিনি বললেন, যতক্ষণ আমি তোমাদের ছেড়ে দিই, তোমরাও আমাকে ছেড়ে রেখ। কারণ, তোমাদের পূর্ববর্তী যারা ছিল তারা অতিরিক্ত প্রশ্ন করার ও নিজেদের নবীদের ব্যাপারে মতবিরোধের কারণে ধ্বংস হয়ে গেছে। কাজেই যখন আমি তোমাদের কোনো কিছুর হুকুম দিই, তোমাদের সামর্থ্য অনুযায়ী পালন কর। আর যখন কোনো কাজ থেকে বারণ করি, তা থেকে বিরত থেক।’ (মুসলিম) করোনাভাইরাসের কারণে এ বছর হজ পালন সীমিত করা হয়েছে। আমরা আল্লাহর দরবারে মিনতি জানাব, এ মুসিবত থেকে তিনি যেন আমাদের সবাইকে মাফ করেন। আল্লাহ আমাদের সবাইকে হজ পালনের তৌফিক দান করুন।


আরও খবর

১০ জুলাই পবিত্র ঈদুল আযহা

শুক্রবার ০১ জুলাই ২০২২