Logo
শিরোনাম
রাজবাড়ীতে ট্রাকের সাথে সংঘর্ষে মোটর সাইকেল আরোহীর মৃত্যু রাজবাড়ীতে আবৃত্তি ও কথামালায় প্রকাশনা উৎসব নওগাঁয় মোটরসাইকেলের ধাক্কায় স্কুল ছাত্র নিহত-মা ও ছোট বোন আহত মোরেলগঞ্জে শ্রমীকদের মাঝে শীতবস্ত্র বিতরণ করলেন এমপি মিলন লালমনিরহাটে বিদ্যুৎ স্পৃষ্টে মারাগেছে স্কুলছাত্র নওগাঁয় বোরো ধান চাষের শুরুতেই বিদ্যুতের লোড শেডিং, দুঃশ্চিন্তায় কৃষকরা নওগাঁয় ৩৫ কোটি টাকা মূল্যের কষ্টিপাথরের মূর্তি উদ্ধার করেছে পুলিশ কুড়িগ্রামের শীতকাতর অসহায় মানুষের পাশে কেন্দ্রীয় যুবলীগ নেত্রকোনায় বিশ্ব জলাভূমি দিবস উপলক্ষে মানববন্ধন মোরেলগঞ্জে প্রাথমিক বিদ্যালয়ের দৈন্যদশা শিক্ষার্থী ৮ শিক্ষক ২

আগামীকাল এসএসসি সমমানের ফল

প্রকাশিত:Sunday ২৭ November ২০২২ | হালনাগাদ:Friday ০৩ February ২০২৩ |
Image

সারাদেশে এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষার ফল আগামীকাল সোমবার প্রকাশ করা হবে। সকালে ফলাফল প্রকাশের কার্যক্রম উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এরপর সচিবালয়ে সংবাদ সম্মেলনে ফলাফলের বিস্তারিত জানানো হবে। আগামীকাল দুপুর ১২টায় এসএসসি পরীক্ষার ফল নিজ নিজ প্রতিষ্ঠান থেকে এবং অনলাইনে একযোগে প্রকাশ করা হবে বলে।

 বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন ঢাকা মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিক শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান এবং আন্তশিক্ষা বোর্ড সমন্বয় সাব-কমিটির সভাপতি তপন কুমার সরকার।

যেভাবে ফল জানা যাবে আনুষ্ঠানিকভাবে ফলাফল প্রকাশের পর শিক্ষার্থীরা শিক্ষা বোর্ডগুলোর ওয়েবসাইট ও এসএমএসের মাধ্যমে ফল জানতে পারবে। নির্ধারিত ওয়েবসাইটে রোল নম্বর, রেজিস্ট্রেশন নম্বর, পরীক্ষার নাম, বছর ও শিক্ষা বোর্ড সিলেক্ট করে সাবমিট বাটনে ক্লিক করে ফল জানা যাবে।

এছাড়া মুঠোফোনে খুদে বার্তার মাধ্যমেও ফলাফল জানা যাবে। মুঠোফোনের মেসেজ অপশনে গিয়ে SSC লিখে স্পেস দিয়ে বোর্ডের নামের প্রথম তিন অক্ষর লিখে স্পেস দিয়ে রোল নম্বর লিখে আবার স্পেস দিয়ে পাসের বছর লিখে পাঠাতে হবে ১৬২২২ নম্বরে। উদাহরণ—SSC DHA 123456 2022 লিখে পাঠাতে হবে ১৬২২২ নম্বরে। ফিরতি এসএমএসে জানা যাবে ফল।

মাদ্রাসা শিক্ষা বোর্ডের জন্য DAKHIL লিখে স্পেস দিয়ে বোর্ডের নামের প্রথম তিন অক্ষর লিখে আবার স্পেস দিয়ে রোল নম্বর লিখে স্পেস দিয়ে পাসের সাল লিখে পাঠাতে হবে ১৬২২২ নম্বরে। উদাহরণ—DAKHIL MAD 123456 2022 লিখে পাঠাতে হবে ১৬২২২ নম্বরে। ফিরতি এসএমএসে জানা যাবে ফল।



আরও খবর



বিস্ফোরক মামলায় নওগাঁয় বিএনপির ৯ নেতা কারাগারে

প্রকাশিত:Wednesday ০৪ January ২০২৩ | হালনাগাদ:Friday ০৩ February ২০২৩ |
Image

শহিদুল ইসলাম জি এম মিঠন, স্টাফ রিপোর্টার :


নওগাঁর বদলগাছী উপজেলায় বিস্ফোরক দ্রব্য আইনে দায়ের করা মামলায় উপজেলা বিএনপির সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক সহ বিএনপি ও এর অঙ্গ-সংগঠনের ৯ জন নেতা-কর্মীকে কারাগারে পাঠিয়েছেন আদালত।

বুধবার ৪ জানুয়ারি দুপুরে নওগাঁর জেলা ও দায়রা জজ আদালতের ঐ ৯ জন উপস্থিত হয়ে জামিনের জন্য আবেদন করেছিলেন। তবে বিজ্ঞ আদালতের বিচারক মোঃ আবু শামীম আজাদ তাদের জামিন আবেদন নামঞ্জুর করে তাদের কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন।

কারাগারে যাওয়া ব্যক্তিরা হলেন, নওগাঁর বদলগাছী উপজেলা বিএনপির সভাপতি ও বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী কৃষকদলের কেন্দ্রীয় কমিটির যুগ্ম সম্পাদক ফজলে হুদা বাবুল, বদলগাছী উপজেলা বিএনপির সহ-সভাপতি জাকির হোসেন চৌধুরী, সাধারণ সম্পাদক আব্দুল হাদি চৌধুরী ও দম্পর সম্পাদক শাহিন হোসেন, উপজেলার কোলা ইউনিয়ন বিএনপির সভাপতি ওমর ফারুক, বালুভরা ইউনিয়ন বিএনপির সাধারণ সম্পাদক বিদ্যুৎ হোসেন, মিঠাপুর ইউনিয়ন বিএনপির সহ-সাধারণ সম্পাদক আনোয়ার হোসেন, মথুরাপুর ইউনিয়ন যুবদলের সহভাপতি রুস্তম আলী এবং  বদলগাছী উপজেলা কৃষক দলের সভাপতি দুলাল মোহরী।

মামলার এজহার সূত্রে জানা যায়, গত ২২ নভেম্বর সন্ধ্যায় বদলগাছী উপজেলা সদরে আওয়ামী লীগের শোক র‌্যালিতে কয়েকটি ককটেল বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটে।  বিএনপি ও এর অঙ্গ-সংগঠেনর নেতা-কর্মীরা

বিস্ফোরণ ঘটিয়েছে এমন অভিযোগে উপজেলা কৃষক লীগের সভাপতি ছানাউল হোসেন বাদী হয়ে বিএনপি ও এর অঙ্গ-সংগঠেনর ১৮ নেতা-কর্মীর নাম উল্লেখ ও অজ্ঞাত ১৫০ জনের বিরুদ্ধে বদলগাছী থানায় মামলা করেন। ঐ দিন রাতেই উপজেলার বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালিয়ে বিএনপির আট নেতাকর্মীকে গ্রেপ্তার করে থানা পুলিশ। ঘটনার পর থেকে মামলায় বাকী আসামিরা পলাতক ছিলেন ।

আজ দুপুরে নওগাঁ জেলা ও দায়রা জজ আবু শামীম আজাদের আদালতে ওই মামলার নয় আসামি হাজির হয়ে জামিনের জন্য আবেদন করেন। শুনানি শেষে বিচারক আসামিদের জামিন নামঞ্জুর করে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন। আসামিপক্ষের আইনজীবী আব্দুর রাজ্জাক এ তথ্য নিশ্চিত করেন।


আরও খবর



নওগাঁয় ১২ দফা দাবিতে ইনসাফের মানববন্ধন

প্রকাশিত:Thursday ১৯ January ২০২৩ | হালনাগাদ:Friday ০৩ February ২০২৩ |
Image

শহিদুল ইসলাম জি এম মিঠন, স্টাফ রিপোর্টার :


নওগাঁয় ইমারত নির্মাণ শ্রমিক ইউনিয়ন বাংলাদেশ (ইনসাফ) এর ১২ দফা দাবিতে মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়েছে। 

বুধবার ১৮ জানুযারি নওগাঁ জেলা শহরের ডিগ্রী মোড়ে ইনসাফ জেলা শাখার আয়োজনে ঘন্টাব্যাপী এ কর্মসূচী পালিত হয়। এসময় সংগঠনের কেন্দ্রীয় যুগ্ম সম্পাদক ও জেলা শাখার সভাপতি মো. মাহবুব আলম এর সভাপতিত্বে বক্তব্য রাখেন, সাধারণ সম্পাদক শহিদুল ইসলাম, সদস্য আতোয়ারুল ইসলাম জুয়েল, আনোয়ার হোসেন ও জহুরুল হক স্বপন এবং পৌর কমিটির সভাপতি ফিরোজ মন্ডল ও সাধারন সম্পাদক খায়রুল বাসার। মানববন্ধনে প্রায় শতাধিক নির্মাণ শ্রমিকের নারী-পুরুষ অংশ নেয়।

মানববন্ধনে বক্তারা বলেন, নির্মাণ শ্রমিকদের দাবি দিবস উপলক্ষে ২০২৩-২৪ অর্থ বছরে বাজেটে অর্থ বরাদ্দ করে মৌলিক অধিকারসহ ১২ দফা দাবী বাস্তবায়ন করা হোক। সেই সাথে সরকারি উদ্যোগে রাজধানী ঢাকা শহরে থানা ও ওয়ার্ড ভিত্তিক এবং সারাদেশে জেলা ও উপজেলা ভিত্তিক নির্মাণ কলোনী স্থাপন করে সুলভ মূল্যে দীর্ঘ  মেয়াদী লীজ প্রদানের মাধ্যমে নির্মাণ শ্রমিকদের বাসস্থান নিশ্চিত করতে হবে। কলোনীতে শ্রমিকদের ছেলে মেয়েদের লেখাপড়ার জন্য স্কুল এবং চিকিৎসা কেন্দ্র স্থাপনে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে। বাংলাদেশ শ্রমিক কল্যাণ ফাউন্ডেশনের বোর্ড সভা প্রতিমাসে একবার এবং তহবিল থেকে নির্মাণ শ্রমিকদের জন্য ব্যাপক কল্যাণমুখী কর্মসূচি গ্রহণ ও সাহায্যের আবেদন ফরমে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা, সিটি কর্পোরেশনের নির্বাহী কর্মকর্তার সুপারিশ বাধ্যতামূলক করা হয়েছে তা প্রত্যাহার করতে হবে। এছাড়াও শ্রমিকদের পূর্ণ অধিকার নিশ্চিত করে রেশনিং ব্যবস্থা, পেনশন স্কীম চালু, দুর্ঘটনায় নিহত এবং আহত বা আজীবন পঙ্গুত্ব বরণকারী শ্রমিকের ক্ষেত্রে বিশেষ গুরুত্ব দিতে হবে বলেও বক্তব্যে দাবি করেন বক্তারা।


আরও খবর



মানবতার আরেক নাম, ডা. ফেরদৌস খন্দকার

প্রকাশিত:Monday ৩০ January ২০২৩ | হালনাগাদ:Friday ০৩ February ২০২৩ |
Image

রোকসানা মনোয়ার :নিউইয়র্কের মাউন্ট সিনাই হাসপাতালের মেডিসিন বিশেষজ্ঞ ডা. ফেরদৌস খন্দকার।নিউ ইয়র্কে করোনাভাইরাস মহামারি আকার ধারণ করলে অনেক চিকিৎসক চেম্বার বন্ধ রাখেন। কিন্তু সেখানে ব্যতিক্রম ছিলেন ডা. ফেরদৌস। দুঃসময়ে প্রবাসী বাংলাদেশিদের পাশে দাঁড়িয়েছিলেন ডা. ফেরদৌস। চেম্বার খোলা রেখে করোনা আক্রান্ত মানুষকে চিকিৎসা সেবা দিয়ে গেছেন। মনস্থির করলেন নিজের মাতৃভূমিতে এসে নিজেকে বিলিয়ে দিবেন দেশের মানুষের স্বার্থে।

শেখ রাসেল ফাউন্ডেশন (ইউএসএ) ইনক'র সভাপতি মানবিক মানুষ ডা. ফেরদৌস খন্দকার , তার মুল লক্ষ্য জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের কনিষ্ঠ সন্তান শেখ রাসেলকে বিশ্ব বাসির কাছে পরিচিত করে দেওয়া এবং স্কুল কলেজ এর ছাত্র, ছাত্রীদের মাঝে তার মূল্যায়ন গড়ে তোলা তিনি বলেন দেশ আজ দুই ভাগে বিভক্ত- একটি পক্ষ স্বাধীনতার পক্ষে আর একটি স্বাধীনতা বিরোধী, তাই এখনই সিদ্ধান্ত নিতে হবে দেশ, জন্মভূমি এবং স্বাধীনতার পক্ষে থাকবে নাকি ভুল সিদ্ধান্ত নিবে। 

শেখ রাসেল ফাউন্ডেশন ইউএসএ শাখার নামে তিনি দেশে বিদেশে নানা রকম মানব কল্যাণ মূলক কাজ করে থাকেন ডাঃ ফেরদৌস খন্দকার ।

নিউইয়র্কে বাংলাদেশিদের মধ্যে একজন সফল চিকিৎসক হিসেবে পরিচিত ডা. ফেরদৌস খন্দকার। জন্মগ্রহণ করেছেন কুমিল্লা জেলার দেবিদ্বারে। বাবা ফয়েজ আহমেদ খন্দকার বিমান বাহিনীর সাবেক কর্মকর্তা। মা আনোয়ারা বেগম খন্দকার গৃহিনী। তিন ভাইবোনের মধ্যে ডা. ফেরদৌস বড়।
ডাক্তার ফেরদৌসের মায়ের পরিবার দেবিদ্বারের পাশের মুরাদনগরের কেষ্টপুর গ্রামের বাসিন্দা। তার নানা সামরিক বাহিনীতে অ্যাকাউন্টস ডিপার্টমেন্টে কাজ করতেন। সহজ-সরল মানুষ। উনার ছয় ছেলে, এক মেয়ে। তার প্রথম ছেলে খুরশিদ আনোয়ার সাহেব, উনি একজন মুক্তিযোদ্ধা। ওই সময় সেই এলাকার মুক্তিযোদ্ধার কমান্ডার ছিলেন তিনি। পরে ফার্মাসিস্ট হয়ে বিদেশে চলে গিয়েছেন। দ্বিতীয় জনও মুক্তিযোদ্ধা, অ্যাকাউন্টেন্ট।
ছোটবেলা থেকেই স্বেচ্ছাসেবী কাজ করতে পছন্দ করতেন ডাক্তার ফেরদৌস। গ্রামে এবং নিজের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে নানা স্বেচ্ছাসেবী কাজের সাথে জড়িত ছিলেন এই মেডিসিন বিশেষজ্ঞ।  তিনি ১৯৯৮ সালে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ থেকে ইন্টার্নিশিপসহ মেডিসিনে স্নাতক সম্পন্ন করেন। তারপর পরিবার সহ পাড়ি জমান যুক্তরাষ্ট্রে। সেখানকার নিউইয়র্ক মেডিকেল কলেজ থেকে প্রশিক্ষণসহ চিকিৎসাশাস্ত্রে উচ্চতর ডিগ্রি অর্জন করেন। ধীরে ধীরে বাংলাদেশিদের কাছে বেশ জনপ্রিয় হয়ে ওঠেন ডাক্তার ফেরদৌস। পাশাপাশি জীবন সংগ্রামে ঝাঁপিয়ে পড়েন এই মেডিসিন বিশেষজ্ঞ। 

 ডাক্তার ফেরদৌস কোন কাজকেই ছোট মনে করেননি। একসময় আমেরিকায় ট্যাক্সি ক্যাব চালিয়েছেন।   এমনও অনেক দিন গেছে টানা ১৯ ঘন্টা তিনি ট্যাক্সি চালিয়েছেন।  দশজন সাধারণ অভিবাসীর মতই তিনি ঘুরেছিলেন এই শহরে ভাগ্যের অন্বষনে। যুক্তরাষ্ট্রে ডাক্তারী পেশার জন্য প্রাকটিস সনদ পরিক্ষার খরচ যুগিয়েছিলেন এবং শেষ দিকে এসে যখন এই ডাক্তারী অফিসটি ভাড়া নিয়েছিলেন, সেটার ভাড়া আর কর্মচারীদের বেতন তুলে চলতেন।


লক্ষ্যে পৌঁছানোর জন্য নিজের পরিশ্রম আর অধ্যবসায়কে বেছে নিয়েছেন ডাক্তার ফেরদৌস। নিজের পরিশ্রম আর অধ্যবসায়ের মাধ্যমে ডাক্তার ফেরদৌস হয়ে উঠলেন সফলদের একজন। 
তিনি জ্যাকসন হাইটসের ব্যস্ততম ৩৭ স্ট্রিটে ওয়েস্টার্ন কেয়ার মেডিকেল কেয়ার পিসি নামে একটি প্রতিষ্ঠান গড়ে তুলেছেন সমমনাদের নিয়ে। সেখানে দেশি বিদেশি ৭ জন বিশেষজ্ঞ ডাক্তার বসেন। নিউইয়র্কে বাংলাদেশিদের মূর্তমান বিশ্বস্ততার প্রতিক হয়ে উঠলেন ডাক্তার ফেরদৌস।

 

একজন মেডিসিন বিশেষজ্ঞ হিসেবে বাংলাদেশী, ভারতীয় এবং পাকিস্থানী নাগরিকদের মধ্যে যথেষ্ট খ্যাতি কুড়িয়েছেন । নিউইয়র্কের অলাভজনক সংস্থা দি অপটিমিস্টের ভাইস চেয়ারম্যান তিনি। রোগিদের আস্থা আর তাদের প্রতি সেবাকে আরো বিস্তৃত করতে নতুন একটি মেডিকেল সেন্টার প্রতিষ্ঠা করেছেন ফেরদৌস খন্দকার। জ্যাকসান হাইটস এর ৭০-৩৮ ব্রডওয়েতে এই চিকিৎসা কেন্দ্রটি অবস্থিত। মানুষজন বিক্ষিপ্তভাবে এদিক সেদিক না গিয়ে যাতে এক ছাদের নিছে সেবা পায় সেজন্যই তার এই প্রচেষ্টা। 

 

ডাক্তার ফেরদৌস খন্দকার চেম্বারে নিয়মিত রোগী দেখার পাশাপাশি, ফেসবুক এবং ইউটিউবে নিয়মিত স্বাস্থ্য সম্পর্কিত নানা পরামর্শ দিয়ে থাকেন। স্যোশাল মিডিয়ার মাধ্যমে মানুষকে রোগ প্রতিরোধ সম্পর্কে সচেতন করাই তার প্রধান লক্ষ্য। তিনি চান মানুষের মধ্যে স্বাস্থ্য বিষয়ক জ্ঞানের পরিধি বিস্তার হোক।
বিদেশে থাকলেও স্বদেশের প্রতি তাঁর দায়বদ্ধতার কথা অকপটে স্বীকার করলেন। মেডিকেলের শিক্ষার্থী হিসেবে সেনাবাহিনীর বৃত্তি পেয়েছিলেন। অর্থ-বিত্তে সাফল্যে পৌঁছার শুরুতেই তিনি সেই বৃত্তি ফেরত দিয়েছেন। নানাভাবে তাঁর দায় পরিশোধের উদ্যোগের কথা জানালেন। নিজের অর্থ ব্যয়ে গ্রামে হাসপাতাল ও বৃদ্ধাশ্রম করছেন। এসব কাজ করতে গিয়ে নানা বাধাবিপত্তির মোকাবিলা করেছেন।

বছরে অন্তত চারবার দেশে আসেন ডা. ফেরদৌস খন্দকার। নিজের এলাকার জন্য, দেশের মানুষের জন্য কিছু করার তাড়না থেকেই আসেন তিনি। অর্থনৈতিকভাবে বেশ সফল হলেও ভ্রমণের সময় বাড়তি ব্যয় করেন না। বেঁচে যাওয়া সেই অর্থ বরং মানুষের কল্যাণে ব্যয় করেন। 


আরও খবর



নওগাঁয় শিক্ষকদের বিষয় ভিত্তিক ৫ দিনের প্রশিক্ষণ শুরু

প্রকাশিত:Saturday ০৭ January ২০২৩ | হালনাগাদ:Thursday ০২ February 2০২3 |
Image

শহিদুল ইসলাম জি এম মিঠন, স্টাফ রিপোর্টার :


জাতীয় শিক্ষাক্রম রূপরেখার আলোকে যষ্ঠ ও সপ্তম শ্রেণির শিখন শেখানো কার্যক্রম প্রণয়নে নওগাঁ জেলায় বিষয় ভিত্তিক শিক্ষকদের ৫ দিনের প্রশিক্ষণ শুরু হয়েছে। শুক্রবার সকাল ৯ টায় নওগাঁর ১১টি উপজেলার ৬ হাজার ২শ ২জন শিক্ষককে নিয়ে ১০টি ভেন্যুতে শুরু হয়েছে এ প্রশিক্ষণ। নওগাঁ জেলায় এ প্রশিক্ষণ কার্যক্রমটি পরিদর্শন করেন নওগাঁর জেলা প্রশাসক খালিদ মেহেদী হাসান ও জেলা শিক্ষা অফিসার লুৎফর রহমান, জেলা সহকারী বিদ্যালয় পরিদর্শক মোঃ নাজমুল হোসেন, সংশ্লিষ্ট উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাসহ অন্যান্য কর্মকর্তাগণ।

নওগাঁর সদর উপজেলার নামাজগড় গাউসুল আযম কামিল মাদ্রাসা ভেন্যুতে ৬শ ২৫ জন, আত্রাই উপজেলার আহসান উল্লাহ মেমোরিয়াল মডেল সরকারি উচ্চ বিদ্যালয় ভেন্যুতে ৬শ ৩০জন, বদলগাছী সরকারি মডেল পাইলট উচ্চ বিদ্যালয় ভেন্যুতে ৫শ ৫৫জন, ধামইরহাটের চকময়রাম সরকারি মডেল উচ্চ বিদ্যালয় ভেন্যুতে ৫শ ৬৭ জন, মান্দার মুক্তিযোদ্ধা মেমোরিয়াল বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় ভেন্যুতে ৬ শ ৪৭জন, মহাদেবপুরের জাহাঙ্গীরপুর সরকারি বালিকা বিদ্যালয় ও কলেজ ভেন্যুতে ৬শ ২৫ জন, নিয়ামতপুর সরকারি বহুমুখী মডেল উচ্চ বিদ্যালয় ভেন্যুতে ৬শ ৫৫ জন, পত্নীতলার নজিপুর সরকারি মডেল উচ্চ বিদ্যালয় ভেন্যুতে ৬শ ৪৫ জন, রাণীনগর সরকারি পাইলট মডেল উচ্চ বিদ্যালয় ভেন্যুতে ৫ শ ৪৪জন ও সাপাহার পাইলট উচ্চ বিদ্যালয় ভেন্যুতে ৬শ ৮১ জন শিক্ষক অংশগ্রহণ করেছেন।

প্রশিক্ষণ নিতে জেলার পোরশা উপজেলা থেকে পত্নীতলা উপজেলা ভেন্যুতে আসা বিষ্ণুপুর দাখিল মাদ্রাসার শিক্ষক মোঃ আঃ সালাম, পত্নীতলা উপজেলার পুইয়া উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষক এস এম গোলাম মোস্তফাসহ অন্যান্য শিক্ষকগণ বলেন, জাতীয় শিক্ষাক্রম রূপরেখা-২০২১ এর আলোকে প্রণীত জাতীয় শিক্ষাক্রম ২০২২ কে বাস্তবায়ন ও প্রণীত এ শিক্ষাক্রমে পাঠ্যপুস্তকের পাশাপাশি প্রয়োজনীয় অন্যান্য শিখন সামগ্রী ব্যবহার করে কিভাবে শ্রেণি কার্যক্রমকে আনন্দময়, ফলপ্রসূ ও শিক্ষার্থী কেন্দ্রিক করা যায় তার উপর সর্বাধিক জোর দেয়া হয়েছে। 

এবিষয়ে মাস্টার ট্রেইনার প্রণব কুমার দাস, আব্দুল্লাহ আল মামুন বলেন, প্রচন্ড শীতকে উপেক্ষা করে প্রশিক্ষণটি যথা সময়ে আমরা শুরু করতে পেরেছি। এই প্রশিক্ষণ শিক্ষকদের জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। এই প্রশিক্ষণে অংশ নেওয়া শিক্ষকগণ আন্তরিকতার সাথে এই প্রশিক্ষণ গ্রহণ করবেন বলে আমরা আশাবাদী।


আরও খবর



নওগাঁয় চাকুরি দেওয়ার নামে টাকা হাতিয়ে নেয়া প্রতারক চক্রের মূলহোতা আটক

প্রকাশিত:Sunday ২৯ January ২০২৩ | হালনাগাদ:Friday ০৩ February ২০২৩ |
Image

শহিদুল ইসলাম জি এম মিঠন, স্টাফ রিপোর্টার :


নওগাঁয় চাকুরি দেওয়ার নামে ১০ লাখ টাকা হাতিয়ে নেয়া প্রতারক চক্রের মূলহোতা কে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব।

শনিবার দুপুরের দিকে নওগাঁর পত্নীতলা উপজেলার নজিপুর বাজার এলাকা হতে প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ভূয়া নিয়োগ পত্র প্রদানের মাধ্যমে ১০ লাখ টাকা হাতিয়ে নেয়া প্রতারক চক্রের মূলহোতা মঞ্জুর আলম (৩৯) কে গ্রেফতার করেন র‍্যাব। গ্রেফতারকৃত মঞ্জুর আলম নওগাঁর পত্নীতলা উপজেলার নজিপুর মাদ্রাসা পাড়ার মৃত আলীম উদ্দীনের ছেলে বলে জানিয়েছেন র‌্যাব।

সত্যতা নিশ্চিত করে র‌্যাব-৫, সিপিসি-৩, জয়পুরহাট কাম্প থেকে প্রতিবেদক কে জানানো হয়, অভিযুক্ত ও গ্রেফতারকৃত মঞ্জুরুল আলম এবং মোঃ রেজাউল করিম উভয়েই একটি প্রতারক সিন্ডিকেট হিসাবে কাজ করছে এবং ২০১৫ ইং সাল থেকে দরিদ্র লোকদের সাথে প্রতারণা মূলক কর্মকান্ড করছে যেখানে মঞ্জুরুল আলম মূলহোতা। মঞ্জুরুলের স্ত্রী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষিকা। সে সুযোগ কে কাজে লাগিয়ে চাকরির প্রলোভন ও মিথ্যা আশ্বাস দিয়ে কখনো বা প্রাথমিক বিদ্যালয়ের চাকরির ভূয়া নিয়োগ পত্র দিয়ে সে প্রার্থীদের কাছ থেকে টাকা হাতিয়ে নিত। মোঃ রেজাউল করিম তার সহকারী হিসেবে কাজ করতেন এবং ভূয়া কাগজ পত্র তৈরির দায়িত্বে ছিলেন। ২০২০ ইং সালে প্রাথমিক বিদ্যালয়ে চাকরি দেওয়ার জন্য মঞ্জুরুল লিপি পারভিন নামে এক ভিকটিম এর কাছ থেকে ১০ লাখ  টাকা নেয়। পরে রেজাউল করিমের মাধ্যমে তাকে ভূয়া নিয়োগরপত্র দেয়। সে নিয়োগ পত্র নিয়ে ঢাকায় ওই চাকরিতে যোগ দিতে গেলে সেটা ভুয়া বলে জানতে পারেন ভিকটিম। পরে ভুক্তভোগী (ভিকটিম) বাদী হয়ে জয়পুরহাট র‌্যাব ক্যাম্পে অভিযোগ করলে, র‌্যাব-৫,  সিপিসি-৩, এর অভিযানিক দল তাকে অনেক ভূয়া নথিপত্র সহ আটক করেন।

এব্যাপারে থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে বলেও নিশ্চিত করেছে র‍্যাব।


আরও খবর