Logo
শিরোনাম

আজাদ-সাহেদের বিচার শুরুর আদেশ দিয়েছেন আদালত

প্রকাশিত:রবিবার ১২ জুন ২০২২ | হালনাগাদ:শনিবার ০২ জুলাই 2০২2 |
Image

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের সাবেক মহাপরিচালক (ডিজি) আবুল কালাম আজাদ এবং রিজেন্ট হাসপাতালের চেয়ারম্যান মোহাম্মদ সাহেদসহ ছয়জনের বিচার শুরুর আদেশ দিয়েছেন আদালত। লাইসেন্সের মেয়াদ না থাকার পরও কোভিডের নমুনা সংগ্রহ ও চিকিৎসার জন্য চুক্তি করে ‘সরকারি অর্থ আত্মসাতের’ মামলায় এ আদেশ দেন আদালত।

রবিবার (১২ জুন) ঢাকার ষষ্ঠ বিশেষ জজ আদালদের বিচারক আল আসাদ মো. আসিফুজ্জামান আসামিদের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করে সাক্ষ্যগ্রহণ শুরুর জন্য ৪ জুলাই দিন ঠিক করে দিয়েছেন।

অভিযোগ গঠনের শুনানিতে আসামিদের অভিযোগ পড়ে শোনানো হলে তারা নিজেদের নির্দোষ দাবি করে ন্যায়বিচার চান। আসামিদের পক্ষে অব্যাহতির আবেদন করা হলেও বিচারক তা নাকচ করে দেন।

আবুল কালাম আজাদ কাঠগড়ায় দাঁড়িয়ে বলেন, আমি তো কোনো দোষ করিনি, তা হলে অভিযোগ গঠন করা হবে কেন?

রাষ্ট্রপক্ষে দুদকের আইনজীবী মাহমুদ হোসেন জাহাঙ্গীর তখন বলেন, এটি আইনের প্রসিডিওর। মামলায় সাক্ষ্য হবে, তার পর রায় হবে।


আরও খবর



নোয়াখালীতে যায়যায়দিন পত্রিকার প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালিত

প্রকাশিত:সোমবার ০৬ জুন ২০২২ | হালনাগাদ:শনিবার ০২ জুলাই 2০২2 |
Image

অনুপ সিংহ,নোয়াখালী প্রতিনিধিঃ

যায়যায়দিন পত্রিকার ১৭তম বর্ষে পদার্পণ উপলক্ষে নোয়াখালীর সোনাইমুড়ীতে কেক কাটা ও আলোচনা সভার মধ্য দিয়ে প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালিত। 

বস্তুনিষ্ঠতা, সাহসিকতা ও নিরপেক্ষতা কে সঙ্গী করে পাঠক নন্দিত দৈনিক যায়যায়দিন পত্রিকার প্রতিষ্ঠা বার্ষিকীতে সোনাইমুড়ী প্রেসক্লাবে সোমবার সকাল ১১টার দিকে দৈনিক যায়যায়দিন প্রতিনিধি ও প্রেসক্লাব সভাপতি খোরশেদ আলম সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন উপজেলা নির্বাহি কর্মকর্তা মোঃ ইসমাইল হোসেন, থানার অফিসার ইনচার্জ হারুন-অর-রশিদ, সোনাইমুড়ী অন্ধ কল্যাণ সমিতির সাধারণ সম্পাদক ও বীর মুক্তিযোদ্ধা গোলাম মোস্তফা ভুইয়া, সোনাইমুড়ী উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি ও বাজার বণিক সমিতির সভাপতি মাহফুজুর রহমান বিপি বাহার, যুবলীগের আহ্বায়ক খলিলুর রহমান, সোনাইমুড়ী থানার এসআই মাইনুদ্দিন।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক ইয়াকুব আল মাহমুদ ,সাবেক সভাপতি সামছুল আরেফিন জাফর, সিনিয়র সহ-সভাপতি বেলাল হোছাইন ভূঁইয়া, সহ-সভাপতি মামুনুর রশিদ, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক জসিম উদ্দিন, ফজলুল হক, সাংগঠনিক সম্পাদক অনুপ সিংহ, সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক এমএবি সিদ্দিক, প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক মোহাম্মদ উল্যাহ ভূঁইয়া, সম্মানিত সদস্য আবুল কাশেম, আমাদের সময় প্রতিনিধি গোলজার হানিফ, এশিয়ান টিভির প্রতিনিধি মাহবুব আলম, 

ভোরের সময় জেলা প্রতিনিধি মোঃ সেলিমসহ সাংবাদিকবৃন্দ।


আরও খবর



নিমতলী ট্র্যাজেডি

নিমতলী স্বজন হারানোর ভয়াল স্মৃতি

প্রকাশিত:শুক্রবার ০৩ জুন ২০২২ | হালনাগাদ:শুক্রবার ০১ জুলাই ২০২২ |
Image

২০১০ সালের ৩ জুন, বৃহস্পতিবার রাত পৌনে নয়টা। হালকা ঝিরি ঝিরি বৃষ্টি পড়ছিল। ৭ বছরের সন্তান বৈশাখকে নিয়ে ফল বিক্রি করছিলাম। হঠাৎ বিকট শব্দে পুরো মহল্লা আলোকিত হয়ে উঠে। ঘুরে তাকাতেই বিশাল আকারের একটি কালো ধোঁয়া এসে গায়ে লাগে। সঙ্গে সঙ্গে শরীরের একপাশের চামড়া-মাংস খসে পড়ে। এরপর জ্ঞান ফিরে নিজেকে হাসপাতালে দেখতে পাই।’ এক যুগ আগে পুরান ঢাকার নিমতলী নবাব কাটারা এলাকায় কেমিক্যাল বিস্ফোরণে ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডে সন্তান হারানো ও শরীরের ক্ষত বয়ে বেড়ানো ফল বিক্রেতা মামুন মিয়া বলছিলেন তার সেই কালরাত্রীর স্মৃতিগুলো।

তিনি বলেন, ‘আমার ছোট সন্তানকে নিয়ে দোকান করছিলাম। হঠাৎ বিস্ফোরণের শব্দের সঙ্গে আগুনের লেলিহান ছড়িয়ে পড়ে চারপাশে। ওই সময় শুধু বৈশাখের (সন্তান) দুটি শব্দ কানে আসে। বাবা, বাবা। আজও সেই স্মৃতি চোখে ভাসে। কেয়ামত এসেছিল আমাদের কাছে।’

এক যুগে আগে এই দিনে কেমিক্যাল বিস্ফোরণে নিমতলী এলাকায় ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডে ১২৪ জনের মৃত্যু হয়। আহত হয়েছিল আরো শতাধিক মানুষ। বেসরকারি সংস্থা বার্ন এডুকেশন অ্যান্ড অ্যাওয়ারনেস মিশন (বিইএএম) এবং বাংলাদেশ সোসাইটি ফর বার্ন ইনজুরি (বিএসবিআই)-এর হিসাব মোতাবেক এ সংখ্যা প্রায় ১৫০। বিস্ফোরণের পর মুহূর্তে ৬-৭টি বাড়িতে আগুন ছড়িয়ে পড়ে। তিনটি বাড়ির সবাই পুড়ে মারা যায়।

একই পরিবারের ১১ সদস্যকে হারানো গুলজার এলাহী বলেন, ‘ভয়াবহ ওই ঘটনায় আমার বাবা-মা, তিন ভাইয়ের স্ত্রী ও ছয় সন্তান মারা যায়। কখনো ভাবিনি এমন ভয়াবহ দৃশ্য দেখতে হবে। এমন পরিস্থিতি যেন কখনো কারো জীবনে না আসে।’

পাশের আরেকটি বাড়িতে শরিফ উদ্দিন দুলালের বাবা-মা, চার সন্তান, তিন ভাইয়ের স্ত্রী ও খালা-খালুও প্রাণ হারান। কান্না ও আবেগজনিত কণ্ঠে দুলাল বলেন, ‘যে কারণে আমাদের পরিবার হারিয়েছি! আজও তার বিচার পাইনি। প্রতিদিনই সেই ভয়াল স্মৃতি আমাদের কাদায়। এমন পরিস্থিতি যেন আর কারো জীবনে না আসে। সেজন্য সরকারের দেওয়া প্রতিশ্রতিগুলো বাস্তবায়ন চাই।’

জুয়েলের বাড়িতে পুড়ে মারা যান বাবা-মা, দুই খালতো বোন, খালা-খালুসহ নয়জন সদস্য। তিনি বলেন, ‘মা-বাবার সঙ্গে কথা বলে মসজিদে নামাজ পড়তে যাই। এরমধ্যে বিকট শব্দ ও মানুষের আহাজারি শুনে দৌড়ে মার কাছে যাওয়ার চেষ্টা করি। রাস্তার মধ্যে আগুনের স্তূপ থাকায় অন্য বাড়ির ওপর দিয়ে বাসায় ঢোকার চেষ্টা করি। বেশ কয়েক ঘণ্টা পর বাসায় ডুকে ধোঁয়ার কাউকে খুঁজে পাইনি। হঠাৎ কোনো কিছু একটা পায়ে বেঁধে পড়ে যাই। পরে মোবাইলের আলোতে দেখি আমার মা পুড়ে মারা গেছে।’


আরও খবর



রাজধানীতে তল্লাশি জোরদার

প্রকাশিত:সোমবার ২০ জুন ২০22 | হালনাগাদ:শুক্রবার ০১ জুলাই ২০২২ |
Image

পদ্মা সেতু উদ্বোধন ও আসন্ন রথযাত্রা ও উল্টো রথযাত্রা উপলক্ষে যে কোনো ধরনের নাশকতা এড়াতে রাজধানীর আবাসিক হোটেল ও মেসগুলোতে তল্লাশি জোরদার করেছে ঢাকা মহানগর পুলিশ (ডিএমপি)।

পুলিশ সদস্যদের উদ্দেশে ডিএমপি কমিশনার মোহা. শফিকুল ইসলাম বলেন, বুদ্ধিমত্তার সঙ্গে কাজ করে জনগণের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে হবে। আগামী ২৫ জুন পদ্মা সেতু উদ্বোধন উপলক্ষে ভিআইপি ও ভিভিআইপিদের সুষ্ঠু গমনাগমন এবং নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে হবে।

ডিএমপির মে মাসের মাসিক অপরাধ পর্যালোচনা সভায় তিনি এ কথা বলেন। এসময় তিনি মে মাসে বড় ধরনের কোনো অঘটন না ঘটায় পুলিশ সদস্যদের ধন্যবাদ জানান।

ডিএমপি কমিশনার বলেন, গরুর হাটকে কেন্দ্র করে কোনো ধরনের চাঁদাবাজিসহ অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনা যেন না ঘটে সেদিকে সংশ্লিষ্ট সবাইকে সতর্ক থাকতে হবে। আসন্ন ঈদুল আজহা উপলক্ষে যেসব এলাকায় গরুর হাট বসবে সেসব স্থানে সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিয়ে দায়িত্ব পালন করতে হবে।

অনুষ্ঠানে ঢাকা মহানগরের আইনশৃঙ্খলা রক্ষা ও জননিরাপত্তা বিধানসহ ভালো কাজের স্বীকৃতি হিসেবে এ মাসিক অপরাধ পর্যালোচনা সভায় শ্রেষ্ঠ পুলিশ কর্মকর্তাদের পুরস্কৃত করেন ডিএমপি কমিশনার।

অপরাধ পর্যালোচনা সভায় ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার (লজিস্টিকস, ফিন্যান্স আ্যন্ড প্রকিউরমেন্ট) ড. এ এফ এম মাসুম রব্বানী, অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার (ক্রাইম অ্যান্ড অপারেশনস্) কৃষ্ণ পদ রায়, অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার (গোয়েন্দা) এ কে এম হাফিজ আক্তার, অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার (ট্রাফিক) মো. মুনিবুর রহমান, অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার (সিটিটিসি) মো. আসাদুজ্জামান, যুগ্ম পুলিশ কমিশনার ও উপ-পুলিশ কমিশনারসহ ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।


আরও খবর



আজ দেশে ফিরছেন ইয়াসির

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ২৩ জুন ২০২২ | হালনাগাদ:শনিবার ০২ জুলাই 2০২2 |
Image

ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফরটাই শেষ হয়ে গেল ইয়াসির আলি রাব্বির। পিঠের ইনজুরিতে পড়ে শুরুতে টেস্ট সিরিজ থেকে ছিটকে পড়েছিলেন তিনি। এবার টি-২০, ওয়ানডে সিরিজেও খেলা হচ্ছে না তার। ব্যথা না কমায় তাকে দেশে ফেরত পাঠানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে বিসিবি।

গতকাল রাতে বিসিবির মিডিয়া বিভাগ থেকে জানা গেছে, ইতিমধ্যে ক্যারিবিয়ান থেকে দেশে ফেরার বিমানে চড়েছেন ইয়াসির। আজ দেশে পৌঁছে যাবেন এ তরুণ মিডল অর্ডার ব্যাটার।

গত ১০ জুন প্রস্ত্ততি ম্যাচের প্রথম দিনে পিঠের পেশিতে টান পড়েছিল ইয়াসিরের। পরে এমআরআইতে ধরা পড়ে তার ডিসকোজেনিক পেইন তথা মেরুদণ্ডে ব্যথা। তারপরও তাকে ক্যারিবিয়ানে রাখা হয়েছিল, সুস্হ হলে যেন সীমিত ওভারের দুই ফরম্যাটে খেলতে পারেন। কিন্তু তার ব্যথার উন্নতি হয়নি। এমনকি রিহ্যাবও শুরু করা যায়নি। দেশে ফেরার পর বিসিবির মেডিক্যাল বিভাগের অধীনে চিকিৎসা চলবে ইয়াসিরের।


আরও খবর



সঞ্চয়পত্রের সুদহার কমছে না

প্রকাশিত:সোমবার ১৩ জুন ২০২২ | হালনাগাদ:শনিবার ০২ জুলাই 2০২2 |
Image

২০২২-২৩ অর্থবছরে সঞ্চয়পত্রের ক্ষুদ্র বিনিয়োগকারীদের সুদহার অপরিবর্তিত রাখার প্রস্তাব করেছেন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল।

গত বৃহস্পতিবার বিকেল ৩টায় জাতীয় সংসদে স্পিকার শিরীন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে এবং প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উপস্থিতিতে ২০২২-২৩ অর্থবছরের বাজেট প্রস্তাব উপস্থাপনকালে অর্থমন্ত্রী এ কথা জানান।

বাজেট বক্তৃতায় অর্থমন্ত্রী বলেন, ‌‌স্বল্প-আয়ের লক্ষ্যভিত্তিক জনগোষ্ঠীর জন্য উচ্চ সুদ হারের সঞ্চয়পত্র ক্রয়ের ব্যবস্থা রাখা হলেও অনেক উচ্চ-আয়ের বিনিয়োগকারীরা এ স্কিমগুলোর সুবিধা নিচ্ছিল বেশি। সে কারণে আমরা ইতোপূর্বে বিক্রয় ব্যবস্থাপনা অটোমেশন করেছিলাম। যার ফলে নির্ধারিত সীমার অতিরিক্ত সঞ্চয়পত্র ক্রয়ের ক্ষমতা সীমিত হয়েছে। এছাড়াও, সঞ্চয়পত্র ক্রয়ের ক্ষেত্রে জাতীয় পরিচয়পত্রের নম্বর ও টিআইএন নম্বর দেওয়া বাধ্যতামূলক করা হয়েছিল।

তিনি বলেন, সংস্কার প্রক্রিয়ার ধারাবাহিকতায় চলতি ২০২১-২২ অর্থবছরে সঞ্চয়পত্র হতে প্রাপ্ত মুনাফার ওপর নির্ভরশীল স্বল্প-আয়ের মানুষের স্বার্থ সমুন্নত রেখে ১৫ লাখ টাকার ঊর্ধ্বে বিনিয়োগের ক্ষেত্রে সীমাভেদে ১ থেকে ২ শতাংশ পর্যন্ত মুনাফার হার কমানো হয়। এতে করে সঞ্চয়পত্র বাবদ সরকারের সুদ ব্যয় কমলেও ক্ষুদ্র সঞ্চয়কারীদের ক্ষেত্রে মুনাফার হার একই থাকবে বলে জানান অর্থমন্ত্রী।

এর আগে গত ২১ সেপ্টেম্বর সঞ্চয়পত্রের মুনাফার হার কমি‌য়ে‌ অর্থ মন্ত্রণালয়ের অভ্যন্তরীণ সম্পদ বিভাগ প্রজ্ঞাপন জারি করে। সঞ্চয়পত্রে ১৫ লাখ টাকার ওপরে বিনিয়োগের মুনাফার হার দুই শতাংশ পর্যন্ত কমানো হয়েছে। তবে ১৫ লাখ টাকার নিচে মুনাফার হার অপরিবর্তিত রাখা হয়েছে।

প্রজ্ঞাপন নির্দেশনা অনুযায়ী, পাঁচ বছর মেয়াদি বাংলাদেশ সঞ্চয়পত্রে বর্তমানে মেয়াদ শেষে ১১ দশমিক ২৮ শতাংশ মুনাফা পাওয়া যায়। নতুন নির্দেশনায় বলা হয়েছে, এখন থেকে যারা সঞ্চয়পত্রে ১৫ লাখ টাকার বেশি বিনিয়োগ করবেন তারা মেয়াদ শেষে মুনাফা পাবেন ১০ দশমিক ৩০ শতাংশ হারে। ৩০ লাখ টাকার বেশি বিনিয়োগ থাকলে মুনাফার হার হবে ৯ দশমিক ৩০ শতাংশ।

তিন মাস অন্তর মুনাফাভিত্তিক তিন বছর মেয়াদি সঞ্চয়পত্রে বর্তমানে মেয়াদ শেষে মুনাফার হার ১১ দশমিক শূন্য ৪ শতাংশ। এখন ১৫ লাখ টাকার বেশি বিনিয়োগের ক্ষেত্রে মুনাফার হার কমিয়ে করা হয়েছে ১০ শতাংশ। সঞ্চয়পত্রে যাদের বিনিয়োগ ৩০ লাখ টাকার বেশি তারা মেয়াদ শেষে মুনাফা পাবেন ৯ শতাংশ হারে।

এখন থেকে যারা সঞ্চয়পত্রে ১৫ লাখ টাকার বেশি বিনিয়োগ করবেন তারা মেয়াদ শেষে মুনাফা পাবেন ১০ দশমিক ৩০ শতাংশ হারে। ৩০ লাখ টাকার বেশি বিনিয়োগ থাকলে মুনাফার হার হবে ৯ দশমিক ৩০ শতাংশ।

পাঁচ বছর মেয়াদি পেনশনার সঞ্চয়পত্রে মেয়াদ শেষে এত দিন ১১ দশমিক ৭৬ শতাংশ হারে মুনাফা দেওয়া হতো। এখন এ সঞ্চয়পত্রে যাদের বিনিয়োগ ১৫ লাখ টাকার বেশি তারা মেয়াদ শেষে মুনাফা পাবেন ১০ দশমিক ৭৫ শতাংশ হারে। ৩০ লাখ টাকার বেশি বিনিয়োগ থাকলে এ হার হবে ৯ দশমিক ৭৫ শতাংশ।

দেশে সবচেয়ে বেশি বিক্রি হয় পরিবার সঞ্চয়পত্র। পাঁচ বছর মেয়াদি এ সঞ্চয়পত্রে মেয়াদ শেষে মুনাফার হার ১১ দশমিক ৫২ শতাংশ। এখন এ সঞ্চয়পত্রে ১৫ লাখ টাকার বেশি বিনিয়োগে মুনাফার হার কমিয়ে করা হয়েছে ১০ দশমিক ৫০ শতাংশ। ৩০ লাখ টাকার বেশি বিনিয়োগের ক্ষেত্রে এ হার ৯ দশমিক ৫০ শতাংশ।

ডাকঘর সঞ্চয় ব্যাংকের সাধারণ হিসাবে বর্তমানে মুনাফার হার সাড়ে ৭ শতাংশ। এতে কোনো পরিবর্তন আনা হয়নি।

ডাকঘর সঞ্চয় ব্যাংকে তিন বছর মেয়াদি হিসাবে বর্তমানে মুনাফার হার ১১ দশমিক ২৮ শতাংশ। এখন ১৫ লাখ টাকার বেশি বিনিয়োগে মুনাফার হার হবে ১০ দশমিক ৩০ শতাংশ। ৩০ লাখ টাকার বেশি বিনিয়োগে হবে ৯ দশমিক ৩০ শতাংশ। ডাকঘর সঞ্চয় ব্যাংকের সাধারণ হিসাবে বর্তমানে মুনাফার হার সাড়ে ৭ শতাংশ। এতে কোনো পরিবর্তন আনা হয়নি।

আসছে ২০২২-২৩ অর্থবছরের বাজেট প্রস্তাবের আকার ধরা হয়েছে ৬ লাখ ৭৮ হাজার ৬৪ কোটি টাকা। বিশাল এ বাজেটের ঘাটতি ধরা হচ্ছে ২ লাখ ৪১ হাজার ৭৯৩ কোটি টাকা। আর অনুদান ছাড়া ঘাটতির পরিমাণ দাঁড়াবে ২ লাখ ৪৫ হাজার ৬৪ কোটি টাকা। যা মোট জিডিপির ৫ দশমিক ৪ শতাংশ। এ ঘাটতি পূরণে সঞ্চয়পত্র থেকে ঋণ ৩৫ হাজার কোটি টাকা নেবে বলে ঠিক করেছে সরকার।

এদিকে চলতি ২০২১-২২ অর্থবছরের বাজেটে সঞ্চয়পত্র থেকে ৩২ হাজার কোটি টাকা ঋণ নেওয়ার লক্ষ্য ধরে রেখেছে সরকার।

জাতীয় সঞ্চয় অধিদফতরের হালনাগাদ তথ্য বলছে, চলতি ২০২১-২২ অর্থবছরের প্রথম ১০ মাসে (জুলাই-এপ্রিল) সঞ্চয়পত্র থেকে সরকারের নিট ঋণ পরিমাণ দাঁড়িয়েছে ১৭ হাজার ৫১৮ কোটি ৭৬ লাখ টাকা।

২০২০-২১ অর্থবছরের জুলাই-এপ্রিল সময়ে এই ঋণের পরিমাণ ছিল ৩৪ হাজার ৭২৮ কোটি ৬৪ লাখ টাকা। অর্থাৎ গত অর্থবছরের তুলনায় এবার ১০ মাসে সঞ্চয়পত্র থেকে সরকারের নিট ঋণ অর্ধেকে নেমে এসেছে।

‘কোভিডের অভিঘাত পেরিয়ে উন্নয়নের ধারাবাহিকতায় প্রত্যাবর্তন’ স্লোগান নিয়ে ২০২২-২৩ অর্থবছরের জন্য ৬ লাখ ৭৮ হাজার ৬৪ কোটি টাকার বাজেট জাতীয় সংসদে পেশ করা হয়েছে। নতুন এ বাজেটে মোট দেশজ উৎপাদনে (জিডিপি) প্রবৃদ্ধি অর্জনের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হচ্ছে ৭ দশমিক ৫ শতাংশ। এতে মূল্যস্ফীতি ৫ দশমিক ৫ শতাংশে রাখার কথা বলা হচ্ছে। প্রস্তাবিত বাজেটের আকার চলতি ২০২১-২২ অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেটের তুলনায় ৭৪ হাজার ৩৮৩ কোটি টাকা বেশি। আর সংশোধিত বাজেটের তুলনায় ৮৪ হাজার ৫৬৪ কোটি টাকা বেশি। নতুন বাজেটে সরকারের আয়ের সম্ভাব্য লক্ষ্যমাত্রা হতে যাচ্ছে ৪ লাখ ৩৬ হাজার ২৭১ কোটি টাকা। অনুদান ছাড়া ঘাটতি ধরা হয়েছে ২ লাখ ৪৫ হাজার ৬৪ কোটি টাকা। আর অনুদানসহ ঘাটতি ২ লাখ ৪১ হাজার ৭৯৩ কোটি টাকা।

আয়ের লক্ষ্যমাত্রা চলতি ২০২১-২০২২ অর্থবছরের তুলনায় ৪৪ হাজার ৭৯ কোটি টাকা বেশি। কর বাবদ ৩ লাখ ৮৮ হাজার কোটি টাকা আয় করার পরিকল্পনা করছে সরকার। এর মধ্যে জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) মাধ্যমে কর আদায়ের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে ৩ লাখ ৭০ হাজার কোটি টাকা। নতুন অর্থবছরে এনবিআরকে আগের বছরের তুলনায় ৪০ হাজার কোটি টাকা বেশি রাজস্ব আদায়ের লক্ষ্যমাত্রা দিচ্ছে সরকার। এনবিআর বহির্ভূত কর থেকে আয় করার লক্ষ্য নির্ধারণ করা হয়েছে ১৮ হাজার কোটি টাকা। আর কর ছাড়া আয় ধরা হয়েছে ৪৫ হাজার কোটি। বৈদেশিক অনুদান থেকে আয় ধরা হয়েছে ৩ হাজার ২৭১ কোটি টাকা।


আরও খবর

ছোট ও মাঝারি গরুর দাম বেশি

শুক্রবার ০১ জুলাই ২০২২