Logo
শিরোনাম
নারায়ণগঞ্জে নদী দূষণকারি চারটি শিল্প প্রতিষ্ঠানের

বিদ্যুৎ ও গ্যাস সংযোগ বিচ্ছিন্ন করেছে পরিবেশ অধিদপ্তর

প্রকাশিত:বুধবার ২১ সেপ্টেম্বর ২০২২ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ০৬ অক্টোবর ২০২২ |
Image

বুলবুল আহমেদ সোহেল ঃ

নারায়ণগঞ্জে নদী দূষণের অভিযোগে চারটি শিল্প প্রািতষ্ঠানের বিদ্যুৎ ও গ্যাস সংযোগ বিচ্ছিন্ন করেছে পরিবেশ অধিদপ্তরের ভ্রাম্যমান আদালত। সংস্থাটির জেলা কার্যালয়ের নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট কাজী তামজীদ আহমেদ এর নেতৃত্বে বুধবার দুপুরে সদর উপজেলার সিদ্ধিরগঞ্জ থানার বিভিন্ন এলাকায় এই অভিযান পরিচালিত হয়। এসময় শীতলক্ষ্যা নদীর তীরে অবস্থিত গোদনাইল এলাকার ইব্রাহীম নীট কম্পোজিট, হাজীগঞ্জ এলাকার ওয়েস্ট নীট ওয়্যার লিমিটেড, সাইলো রোড এলাকার রানস্ এ্যাপারেলস লিমিটেড ও জালকুঁড়ি এলাকার শাকিল নীটেক্স লিমিটেড এর বিরুদ্ধে নদী দূষণের প্রমান পাওয়া গেলে এই চার প্রতিষ্ঠানের বিদ্যুৎ ও গ্যাস সংযোগ বিচ্ছিন্ন করে ভ্রাম্যমান আদালত। পুলিশ প্রশাসনের সহায়তায় পরিচালিত এই অভিযানে উপস্থিত ছিলেন পরিবেশ অধিদপ্তরের জেলা উপ-পরিচালক মুহাম্মদ আবদুল্লাহ আল মামুনসহ বিদ্যুৎ বিভাগ ও তিতাস গ্যাস কার্যালয়ের উর্ধতন কর্মকর্তারা। 

পরিবেশ অধিদপ্তরের জেলা উপ-পরিচালক জানান, এই প্রতিষ্ঠানগুলো পরিবেশ অধিদপ্তরে ছাড়পত্র গ্রহণ না করে অবৈধভাবে কারখানা পরিচালনা করে আসছে। পাশাপাশি তরল বর্জ্য পরিশোধনাগার বা ইটিপি প্লান্ট ছাড়াই উৎপাদন কাজ চালিয়ে আসছে। যে কারণে এই প্রতিষ্ঠানগুলোর তরলে বর্জ্য নদীতে সরাসরি মিশে নদী দূষণ করে আসছে। নদী দূষণ রোধ করতে দূষণকারি সকল শিল্প প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে পরিবেশ অধিদপ্তরের অভিযান অব্যাহত থাকবে বলেও জানান তিনি।


আরও খবর



পঁচা মহিষের মাংস হোটেল-রেস্তোরাঁয়

প্রকাশিত:শনিবার ০১ অক্টোবর ২০২২ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ০৬ অক্টোবর ২০২২ |
Image

রোকসানা মনোয়ার :  রাজধানীর বিভিন্ন হোটেল-রেস্তোরাঁয় গরুর মাংসের নামে খাওয়ানো হচ্ছে ভারত থেকে আনা মানহীন ও পঁচা মহিষের মাংস। খাবার অযোগ্য এসব মাংস মানবস্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর। কম দামে তা পাওয়ায় ভোক্তাদের সঙ্গে প্রতারণা করে আসছেন হোটেল- রেস্তোরাঁর মালিকরা। রাজধানীর কারওয়ান বাজার, নিউ মার্কেট, হাজারীবাগ, লালবাগ, নবাবগঞ্জ, জুরাইন, মোহাম্মদপুর, কামরাঙ্গীরচরসহ বিভিন্ন এলাকায় এসব মাংস বিক্রি হচ্ছে দেদারসে।

রাজধানীর নিউ মার্কেট মাংসের বাজারের বেশ কয়েকটি দোকানেও এসব মাংস বিক্রি হতে দেখা যায়। এ বাজারের এক ব্যবসায়ী পরিচয় গোপন রেখে বলেন, সাধারণত জবাই করা গরুর মাংস পিস পিস করে কেটে দোকানে ঝুলিয়ে রাখা হয়। কিন্তু ভারত থেকে আনা এসব মহিষের মাংস ঝুলিয়ে বিক্রি করা হয় না। প্যাকেট খুলে এরপর টুকরো করে কেটে বিভিন্ন হোটেলে-রেস্তোরাঁয় সরবরাহ করা হয়।

দামের বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, আগে ৪০০ থেকে ৪৫০ টাকা কেজি ছিল। এখন তা ৫০০ থেকে ৬০০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। চাহিদা বেড়ে যাওয়ায় দামও বেড়েছে। দেশের শতকরা ৭০ ভাগ হোটেল-রেস্তোরাঁয় এখন ভারতীয় মহিষের মাংস বিক্রি হচ্ছে। ফ্রিজিং অবস্থায় মাংসগুলো আনা হয়।

রাজধানীর শনির আখড়ার সুর্য্যবানু রেস্তোরাঁয় শেফ বলেন, বাজারে গরু ও মহিষের তাজা মাংসের দাম অনেক বেশি। সে তুলনায় ভারত থেকে আনা মহিষের মাংসের দাম বেশ কম। মাংস কম টাকা দিয়ে কিনতে পারলে লাভ বেশি। এজন্য আমদানি করা মহিষের মাংস কেনা হয়। মানহীন হলেও ভালোভাবে মসলা দিয়ে রান্না করলে বুঝা যায় না এটা গরু নাকি মহিষের।

অনুসন্ধানে জানা যায়, রাজধানীর তেজগাঁওয়ে রয়েছে ফ্রিজিং করা ভারতীয় মহিষের মাংসের ডিপো। ডিপো থেকে ফ্রিজিং ভ্যানের মাধ্যমে মাংসগুলো চলে যায় জুরাইন, নিউ মার্কেটসহ রাজধানীর বিভিন্ন স্থানে তাদের এজেন্টদের কাছে।

প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তরের তথ্য অনুযায়ী, দেশে বছরে ৭.৪ মিলিয়ন টন মাংসের চাহিদার বিপরীতে ৮.৪৪ মিলিয়ন টন মাংস উৎপাদন হয়। অর্থাৎ চাহিদার চেয়ে উৎপাদন বেশি। এজন্য বৈধ অথবা অবৈধভাবে মাংস আনার বিপক্ষে খাত-সংশ্লিষ্টরা। তারা বলছেন, বিদেশ থেকে মাংস আসলে প্রান্তিক খামারিরা তাদের উৎপাদিত পশুর দাম পাবেন না। এতে গ্রামীণ অর্থনীতিতে ধস নামার পাশাপাশি দীর্ঘ মেয়াদে বাংলাদেশ আমদানিনির্ভর হয়ে পড়বে।

সরকারি হিসেবে দেশে চাহিদার চেয়ে গরু-ছাগল বেশি আছে। সেক্ষেত্রে মাংস আমদানি করা হলে খামারিরা ক্ষতির মুখে পড়বেন। এছাড়া অবৈধভাবে আমদানি করাও অপরাধ।


আরও খবর

শিগগিরই বাড়ছে বিদ্যুতের দাম

মঙ্গলবার ০৪ অক্টোবর ২০২২




কমিটি গঠন সভাপতি পারভেজ, সম্পাদক ইমরান"

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ১৩ সেপ্টেম্বর ২০২২ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ০৪ অক্টোবর ২০২২ |
Image

স্টাফ রিপোর্টার : বাংলাদেশ মফস্বল সাংবাদিক ফোরাম (বিএমএসএফ) যাত্রাবাড়ি থানা শাখার আহ্বায়ক কমিটি গঠন করা হয়েছে । ১২ ই সেপ্টেম্বর সোমবার বিকেল ৪.০০ ঘটিকায় ডেমরা স্টাফ কোয়ার্টারের মাঠে অনুষ্ঠিত সাধারণ সভায় ১১ সদস্য বিশিষ্ট এ আহ্বায়ক কমিটি গঠন করা হয়। সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন এশিয়ান গ্রুপের কর্নধার আলহাজ্ব হারুন অর রশীদ সিআইপি।

সভায় উদ্বোধক ছিলেন বাংলাদেশ মফস্বল সাংবাদিক ফোরাম এর ট্রাস্টি বোর্ডের চেয়ারম্যান আহমেদ আবু জাফর সে সময় তিনি সরকারকে সাংবাদিক সুরক্ষা আইন প্রনয়ণসহ ১৪ দফা বাস্তবায়ন করতে জোড়ালো আহবান জানান এবং দেশে অহরহ সাংবাদিক নির্যাতন যেনো থামছেই না সাংবাদিক সুরক্ষা আইন না থাকায় এমন পরিস্থিতির সৃস্টি হচ্ছে বলে মন্তব্য করেছেন। উদ্বোধনী বক্তব্য রাখেন অনুষ্ঠান উদযাপন কমিটির আহ্বায়ক মো. শফিকুল ইসলাম সাদ্দাম যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক, বাংলাদেশ মফস্বল সাংবাদিক ফোরাম, কেন্দ্রীয় কমিটি। সদস্য সচিব সেলিম নিজামির সভাপতিত্বে,

সভায় উপস্থিত সকল সাংবাদিকদের সর্বসম্মতিক্রমে দৈনিক দিন প্রতিদিন এর সহকারী সম্পাদক  মোহাম্মদ সাইফুল ইসলাম পারভেজ সভাপতি,দৈনিক বর্তমান দেশ বাংলার সম্পাদক মোহাম্মদ হেলাল সহ-সভাপতি,  চ্যানেল ২৩ এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক মুন্সি মো: আল ইমরান সাধারণ সম্পাদক, সাপ্তাহিক তথ্য বানী এর সিনিয়র স্টাফ রিপোর্টার মোঃ শরিফুল হক যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক, দৈনিক আলোর দিগন্ত এর স্টাফ রিপোর্টার মোঃআকাশ সিকদার অর্থ সম্পাদক ,বিডি লাইভ ২৪ এর চেয়ারম্যান মোঘল হোসেন সম্রাট সাংগঠনিক সম্পাদক,দৈনিক দিন প্রতিদিন এর রিপোর্টার মুন্নি আক্তার তিশা দপ্তর সম্পাদক,  এশিয়ান টিভি এর স্টাফ রিপোর্টার অমর রঞ্জন মজুমদার প্রচার সম্পাদক ,রুপান্তর টিভি এর চীফ ক্রাইম রিপোর্টার খাদিজা আক্তার আনিকা নারী বিষয়ক সম্পাদিকা ,চ্যানেল ২৩ এর প্রতিনিধি তানিয়া সুলতানা রিভা সাংস্কৃতিক বিষয়ক সম্পাদক,বর্তমান দেশ বাংলা এর মোঃ শিপন নির্বাহী সদস্য।


আরও খবর



সাম্প্রদায়িকতার বিষবাষ্প ছড়িয়ে পরতে পারবেনা..আইজিপি

প্রকাশিত:বুধবার ০৫ অক্টোবর ২০২২ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ০৬ অক্টোবর ২০২২ |
Image

বুলবুল আহমেদ সোহেল ঃ

পুলিশের মহাপরিদর্শক আইজিপি চৌধুরী আবদুল্লাহ আল মামুন বলেছেন, সাম্প্রদায়িকতার বিষবাষ্প ছড়িয়ে পড়তে যেন না পারে এজন্য আইনশৃঙ্খলা বাহিনী সবাই সচেতন আছে। বাংলাদেশে জঙ্গিবাদ প্রধানমন্ত্রীর নেতৃত্বে জঙ্গিবাদ সন্ত্রাসবাদের প্রতি জিরো টলারেন্সের যেই নীতি, এই নীতিতে অবিচল থেকে সকল আইনশৃঙ্খলা বাহিনী প্রশাসন সহ সকলে মিলে একসাথে দায়িত্ব পালন করছে।  এই দায়িত্ব পালনের কারণে জঙ্গিবাদ এবং সন্ত্রাসবাদ দমনে বিশ্বের কাছে রোল মডেল হিসেবে প্রতিষ্ঠিত হয়েছে বলে জানান এই পুলিশের প্রধান। 

মঙ্গলবার রাতে নারায়ণগঞ্জের আমলাপাড়া পূজা মন্ডপ পরিদর্শন শেষে সাংবাদিকদের তিনি এসব কথা বলেন, এ সময় আর উপস্থিত ছিলেন এডিশনাল ডিআইজি সৈয়দ নুরুল ইসলাম, অ্যাডিশনাল ডিআইজি সাইদুর রহমান, জেলা প্রশাসক মনজুরুল হাফিজ, জেলা পুলিশ সুপার গোলাম মোস্তফা রাসেল, আমলাপাড়া পূজা মন্ডপের সভাপতি বাবু প্রবীর কুমার সাহা সহ অনেকেই।

পুলিশ প্রধান অভিযোগ করে বলেন, কিছু সংখ্যক দুষ্কৃতিকারী যখনই সুযোগ পায়  অপকর্ম করতে লিপ্ত থাকে। যাতে করে হিন্দু মুসলিম বৌদ্ধ খ্রিষ্টান সকলে মিলে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বন্ধন এবং ঐতিহ্য নষ্ট করতে চায়।

তিনি আরো জানান আজ রাত ১২ টা থেকে আগামীকাল সকাল ছয়টা পর্যন্ত প্রতিটি মন্ডপে মন যোগে নিরাপত্তা কর্মী রাখতে আহ্বান জানান।


আরও খবর

শিগগিরই বাড়ছে বিদ্যুতের দাম

মঙ্গলবার ০৪ অক্টোবর ২০২২

ভয়াবহ হচ্ছে ডেঙ্গু

মঙ্গলবার ০৪ অক্টোবর ২০২২




সুনামগঞ্জের বিশ্বম্ভরপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে

চিকিৎসাধীন অবস্থায় অজ্ঞাত ব্যক্তির মৃত্যু

প্রকাশিত:সোমবার ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২২ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ০৬ অক্টোবর ২০২২ |
Image

শফিউল আলম, স্টাফ রিপোর্টার:

সুনামগঞ্জের বিশ্বম্ভরপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে অজ্ঞাত ব্যক্তির(৫০) মৃত্যু হয়েছে।১৯ সেপ্টেম্বর সকালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার ইন্তেকাল হয়।স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, প্রায় ১থেকে দেড় বছর যাবত এই অজ্ঞাত(৫০)ব্যক্তি শক্তিয়ারখলা বাজারে থাকতো।বাদাঘাট দক্ষিণ ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান এডভোকেট মোহাম্মদ ছবাব মিয়া জানান,১৭ সেপ্টেম্বর রাতে পরিষদের সামন থেকে অত্যন্ত অসুস্থ অবস্থায় গ্রামপুলিশের মাধ্যমে বিশ্বম্ভরপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে তাকে ভর্তি করেন।উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাঃ তানভীর আহমদ জানান, ১৯ সেপ্টেম্বর(সোমবার)সকালে  চিকিৎসাধীন অবস্থায় অজ্ঞাত ব্যক্তিরমৃত্যু হয়। সেইসাথে অজ্ঞাত ব্যক্তির মরদেহ পুলিশের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে বলেও জানান তিনি।অজ্ঞাত  ব্যক্তির লাশ হস্তান্তর বিষয়ে সত্যতা জানিয়ে বিশ্বম্ভরপুর থানার এস আই আলিম উদ্দীন  জানান,অজ্ঞাত ব্যক্তির লাশ সুনামগঞ্জ জেলা সদর হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে।


আরও খবর



তেল-চিনির দাম কিছুটা কমেছে

প্রকাশিত:শনিবার ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২২ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ০৬ অক্টোবর ২০২২ |
Image

বেশ কয়েক দিন থেকে বাড়তে থাকা চিনির দাম কমিয়ে তিন স্তরে নতুন মূল্য নির্ধারণ করে দিয়েছে সরকার। একইভাবে কমানো হয়েছে পাম সুপার তেলের দরও। এতে এ দুটি পণ্যের দাম কিছুটা কমে এসেছে। বেঁধে দেওয়া নতুন দর অনুযায়ী, খুচরায় চিনির দাম কেজিতে ৬ এবং পাম তেলের দাম লিটারে ১২ টাকার মতো কমেছে। 

নতুন মূল্য তালিকা অনুযায়ী, পাম সুপার তেল প্রতি লিটার খুচরায় সর্বোচ্চ ১৩৩ টাকায় বিক্রি হবে, যা এতদিন ১৪৫ টাকায় নির্ধারিত ছিল। মিল গেটে পাম তেল প্রতি লিটার ১২৮ এবং পরিবেশক পর্যায়ে ১৩০ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে।

একইভাবে পরিশোধিত খোলা চিনি প্রতি কেজি ৮৪ এবং প্যাকেট চিনি প্রতি কেজি সর্বোচ্চ ৮৯ টাকায় নির্ধারণ করা হয়েছে। বাজারে বর্তমানে খোলা চিনি ৯০ এবং প্যাকেট চিনি ৯৫ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

মিল গেটে খোলা চিনি প্রতি কেজি ৭৯ এবং পরিবেশক পর্যায়ে ৮১ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে। একইভাবে প্যাকেটজাত চিনি মিল গেটে ৮২ এবং পরিবেশক পর্যায়ে ৮৪ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে।

বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, বাংলাদেশ ট্রেড অ্যান্ড ট্যারিফ কমিশনের সুপারিশ অনুযায়ী সরকার ‘দ্য কন্ট্রোল অব অ্যাসেনসিয়াল কমোডিটিস অ্যাক্ট-১৯৫৬’-এর ক্ষমতাবলে মিল গেট, পরিবেশক ও সর্বোচ্চ পর্যায়ে তেল-চিনির দাম নির্ধারণ করল। এর আগে বিভিন্ন সময় তেল ও চিনির দাম নির্ধারণ করে দেয় বাণিজ্য মন্ত্রণালয়। সবশেষ বাজার বিশ্লেষণ করে চিনি ও পাম তেলের দাম কমিয়ে ঠিক করে দেওয়া হলো।

চাল, লবণসহ অত্যাবশ্যকীয় অন্তত ৯টি পণ্যের দাম বেঁধে দেওয়া হবে বলে চলতি মাসের শুরুতে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে ঘোষণা করা হয়েছিল। তবে আইনি জটিলতার কারণে অনেক পণ্যের দাম বেঁধে দেওয়া কঠিন বলে সম্প্রতি বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি জানিয়েছেন।

এদিকে, চিনি-তেলে সুখবর থাকলেও সবজিতে অস্বস্তি এখনো কাটেনি। প্রতিটি সবজিই কেজিতে দাম বেড়েছে ১০ থেকে ২০ টাকা। শসা প্রতি কেজি বিক্রি হচ্ছে ৯০ টাকায়। লম্বা বেগুনের কেজি বিক্রি হচ্ছে ৮০ টাকা। গোল বেগুন বিক্রি হচ্ছে ৯০ থেকে ১০০ টাকা কেজি। টমেটো বিক্রি হচ্ছে ১৩০ টাকা। বাজারে সিমের কেজি ২৪০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। করলা ৮০, চালকুমড়া পিস ৬০, প্রতি পিস লাউ আকারভেদে বিক্রি হচ্ছে ৬০ থেকে ৭০, মিষ্টিকুমড়ার কেজি ৫০, চিচিঙ্গা ৬০, পটোল ৬০, ঢ্যাঁড়শ ৭০, কচুর লতি ৮০, পেঁপের কেজি ৪০, বরবটির কেজি ৮০, ধুন্দুলের কেজি ৬০ টাকা।

এসব বাজারে দেশি মসুরের ডালের কেজি ১৩০ টাকা। ইন্ডিয়ান মসুরের ডালের কেজি ১০০ টাকায়। লবণের কেজি বিক্রি হচ্ছে ৩৮ থেকে ৪০ টাকা। বাজারে ভোজ্য তেল সয়াবিন বিক্রি হচ্ছে ১৯৫ টাকায়।

তবে আগের দামে বিক্রি হচ্ছে ডিম। ফার্মের মুরগির লাল ডিমের ডজন বিক্রি হচ্ছে ১৪০ থেকে ১৪৫ টাকা। বাজারে হাঁসের ডিমের ডজন বিক্রি হচ্ছে ১৯০ থেকে ২১০ টাকা। দেশি মুরগির ডিমের ডজন ২১০ টাকা।

বাজারে গরুর মাংসের কেজি ৬৬০ থেকে ৬৮০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। খাসির মাংসের কেজি বিক্রি হচ্ছে ৯০০ টাকায়।

বাজারে ব্রয়লার মুরগির দাম বেড়েছে। ব্রয়লারের কেজি বিক্রি হচ্ছে ১৭০ থেকে ১৮০ টাকা। সোনালি মুরগির কেজি বিক্রি হচ্ছে ৩০০ থেকে ৩২০ টাকায়। লেয়ার মুরগির কেজি বিক্রি হচ্ছে ২৭০ থেকে ২৮০ টাকায়।


আরও খবর

লিটারে ১৪ টাকা কমল সয়াবিন তেলের দাম

মঙ্গলবার ০৪ অক্টোবর ২০২২