Logo
শিরোনাম

বিদ্যুৎ সরবরাহ স্বাভাবিক হয়ে আসছে

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ২৮ মার্চ ২০২৩ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২১ জুন ২০২৪ |

Image

রোকসানা মনোয়ার : মার্চ মাস প্রায় শেষ, আসছে এপ্রিল, বাড়বে তাপমাত্রা। গরমে অতিষ্ঠ হবে জীবন। তাই গরমে বিদ্যুৎ সরবরাহ স্বাভাবিক রাখতে বিভিন্ন উদ্যোগ নিয়েছে সরকার। এ কারণে এলএনজি আমদানি বাড়ানো হচ্ছে। বিদ্যুৎ উৎপাদনে গ্যাস সরবরাহ বাড়ানো হয়েছে।

এখন পর্যন্ত রাজধানীসহ সারাদেশে বিদ্যুৎ পরিস্থিতি স্বাভাবিক আছে বলে মনে করছে বিদ্যুৎ বিভাগ। এপ্রিলে তাপমাত্রা বৃদ্ধি ও কৃষিকাজে সেচ পুরোদমে চালু হলে বিদ্যুৎ চাহিদা আরও বাড়াবে। সেক্ষেত্রে বিদ্যুতের যোগান বা সরবরাহ স্বাভাবিক রাখাই চ্যালেঞ্জ বলে মনে করছেন বিদ্যুৎ খাত-সংশ্লিষ্টরা।

সূত্র জানায়, গ্রীষ্মে বিদ্যুৎ সরবরাহ স্বাভাবিক রাখতে প্রয়োজনীয় সব উদ্যোগ নিয়েছে সরকার। আন্তর্জাতিক বাজারে জ্বালানির দাম নতুন করে না বাড়লে বিদ্যুৎ উৎপাদন, সরবরাহ ও দাম স্বাভাবিক থাকবে।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে এক বিদুৎ কর্মকতা প্রতিদিনের সংবাদকে বলেন, চৈত্র মাস চলছে, লোডশেডিং নেই বললেই চলে। সামনে বৈশাখ; ঝড়-বৃষ্টি শুরু হয়ে যাবে। চিন্তার কিছু নেই। এ দেশে মৌসুম বিবেচনায় নিয়েই বিদ্যুৎ উৎপাদন বাড়ানোর-কমানোর পরিকল্পনা করা হয়। সামনে কৃষিজমিতে সেচের জন্য বিদ্যু চাহিদা কিছুটা বাড়বে। বিদ্যুৎ উৎপাদন বাড়ানোর প্রস্তুতিও আছে। এরমধ্যে ভারতের গোড্ডা থেকে আদানির বিদ্যুৎ এবং বাগেরহাট থেকে রামপালের বিদ্যুৎ গ্রিডে যুক্ত হওয়ায় পরিস্থিতি আরও অনুকূলে চলে এসেছে। স্পট মার্কেটে এলএনজির দামও কমে এসেছে। সমস্যা হবে না।

এ বিষয়ে বিদ্যুৎ বিভাগের ঐ কর্মকর্তা আরা বলেন, রমজান ও গ্রীষ্মে বিদ্যুৎ চাহিদা বেড়ে যাবে, এটি বিবেচনায় নিয়েই সরকার স্পট মার্কেট থেকে এলএনজি আমদানি বাড়ানোর সিদ্ধান্ত নেয়। ওই এলএনজির কারণেই গ্যাসের যোগান বেড়েছে। কয়েকটি খাতে রেশনিং করে বিদ্যুৎকেন্দ্রগুলোতে গ্যাস সরবরাহ বাড়ানো হয়েছে।

তিনি বলেন, চৈত্র মাস চলছে, লোডশেডিং নেই বললেই চলে। সামনে বৈশাখ; ঝড়-বৃষ্টি শুরু হয়ে যাবে। চিন্তার কিছু নেই। এ দেশে মৌসুম বিবেচনায় নিয়েই বিদ্যুৎ উৎপাদন বাড়ানোর-কমানোর পরিকল্পনা করা হয়। সামনে সেচে চাহিদা কিছুটা বাড়বে। বিদ্যুৎ উৎপাদন বাড়ানোর প্রস্তুতিও আছে। এরমধ্যে ভারতের গোড্ডা থেকে আদানির বিদ্যুৎ এবং বাগেরহাট থেকে রামপালের বিদ্যুৎ গ্রিডে যুক্ত হওয়ায় পরিস্থিতি আরও অনুকূলে চলে এসেছে। স্পট মার্কেটে এলএনজির দামও কমে এসেছে। সমস্যা হবে না।

বিদ্যুৎ, সার কারখানা, ক্যাপটিভ, যানবাহন (সিএনজি), আবাসিকে রান্না, বাণিজ্যিকসহ নানা খাতে দেশে বর্তমানে দৈনিক গড়ে গ্যাসের চাহিদা প্রায় চার হাজার এমএমসিএফ (মিলিয়ন ঘনফুট)। রাষ্ট্রীয় খনি থেকে দেশি-বিদেশি কোম্পানির মাধ্যমে গ্যাস উৎপাদন এবং তরলীকৃত প্রাকৃতিক গ্যাস (এলএনজি) আমদানি- এই দুইয়ে মিলে সর্বোচ্চ সরবরাহ হয় তিন হাজার এমএমসিএফ। রমজান মাসে ইফতার, তারাবি ও সেহরির সময় বিদ্যুতের চাহিদা বেড়ে যায়। তাই এ সময় বিদ্যুৎ উৎপাদনে গ্যাস সরবরাহ বাড়িয়ে দেয়া হয় বলে জানিয়েছে পেট্রোবাংলা।

বিশ্ববাজারে এলএনজির দাম কমে এসেছে জানিয়ে পেট্রোবাংলার চেয়ারম্যান জনেন্দ্রনাথ সরকার বলেন, এখন প্রতি এমএমবিটিইউ (মিলিয়ন মেট্রিক ব্রিটিশ থার্মাল ইউনিট) এলএনজি খোলা বাজার থেকে ১২ থেকে ১৩ মার্কিন ডলারে কিনছে পেট্রোবাংলা।

পেট্রোবাংলার চেয়ারম্যান জানান, এলএনজি আমদানির দীর্ঘমেয়াদি চুক্তির আওতায় সব মিলিয়ে ৫৬টি জাহাজে এলএনজি আসবে। অন্যদিকে স্পট মার্কেট (দীর্ঘমেয়াদি চুক্তি না করে খোলা বাজার থেকে যে জ্বালানি কেনা হয়) থেকে জুন পর্যন্ত ১২ কার্গো এলএনজি আসবে। এলএনজি সরবরাহ স্বাভাবিক থাকলে বিদ্যুৎ উৎপাদনও স্বাভাবিক থাকবে বলে আশাপ্রকাশ করেন তিনি।

পেট্রোবাংলার সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা যায়, এখন দৈনিক গ্যাস সরবরাহ করা হচ্ছে গড়ে প্রায় ২৯০০ মিলিয়ন ঘনফুট। এরমধ্যে এলএনজি সরবরাহ করা হচ্ছে ৭২০ মিলিয়ন ঘনফুট এবং গ্যাস সরবরাহ করা হচ্ছে দুই হাজার ১৮০ মিলিয়ন ঘনফুট।

জ্বালানি ও খনিজসম্পদ বিভাগ সূত্রে জানা যায়, চলতি মার্চ থেকে আগামী জুন পর্যন্ত পর্যায়ক্রমে স্পট মার্কেট থেকে এলএনজি আমদানি বাড়ানোর পরিকল্পনা নিয়ে এগুচ্ছে সরকার। সে অনুযায়ী, আগামী জুনে স্পট মার্কেট থেকে সর্বোচ্চ এলএনজি আমদানি করা হবে।

জ্বালানি ও খনিজসম্পদ বিভাগের সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা যায়, দীর্ঘমেয়াদি চুক্তি আওতায় এলএনজি আসা অব্যাহত থাকলেও জানুয়ারি মাসে স্পট মার্কেট থেকে কোন এলএনজি আমদানি হয়নি। দেশীয় গ্যাসক্ষেত্র থেকে উৎপাদন এবং দীর্ঘমেয়াদি চুক্তির আওতায় আমদানির মাধ্যমে জানুয়ারিজুড়ে গড়ে ২৬শ থেকে ২৭শ মিলিয়ন ঘনফুট গ্যাস সরবরাহ করা হয়েছে।

ফেব্রুয়ারিতে প্রতিদিন গড়ে ১০০ মিলিয়ন ঘনফুট স্পট মার্কেটের এলএনজি যুক্ত হয়েছে। ফেব্রুয়ারিতেও প্রতিদিন গড়ে ২৬শ থেকে ২৭শ মিলিয়ন ঘনফুট গ্যাস সরবরাহ করা হয়েছে। তবে মার্চ থেকে এলএনজির সরবরাহ বেড়েছে। ২৩শ মিলিয়ন ঘনফুট দেশীয় গ্যাসের সঙ্গে ৭৫৫ মিলিয়ন ঘনফুট এলএনজি সরবরাহ করে গড়ে প্রতিদিন তিন হাজার ৫৫ মিলিয়ন ঘনফুট গ্যাস সরবরাহ করা হচ্ছে। জুন পর্যন্ত প্রতিদিন গড়ে তিন হাজার মিলিয়ন ঘনফুট গ্যাস সরবরাহে কাজ করছে পেট্রোবাংলা।

পেট্রেবাংলার তথ্য অনুযায়ী, এপ্রিল, মে, জুন মাসে দীর্ঘমেয়াদি চুক্তির আওতায় এলএনজি আমদানি কমবে। তবে এ সময় স্পট মার্কেট থেকে এলএনজি আমদানি বাড়বে।

গরম ও সেচ- দুই কারণে প্রতিবছর ফেব্রুয়ারি থেকে জুন পর্যন্ত দেশে বিদ্যুৎ ও জ্বালানির চাহিদা থাকে সর্বোচ্চ। ফলে এ সময় ঘিরে বিদ্যুৎ উৎপাদন বাড়াতে বিশেষ নজর দেয় সরকার। এ বছর গ্রীষ্মকালে বিদ্যুতের সর্বোচ্চ চাহিদা হতে পারে ১৫ হাজার মেগাওয়াট। নিরবচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ উৎপাদন অব্যাহত রাখতে বিদ্যুৎ খাতে এক হাজার পাঁচশ মিলিয়ন ঘনফুট গ্যাস প্রয়োজন হবে।

তবে বিদ্যুৎ মন্ত্রণালয়ের একটি সূত্র বলছে, এবার গ্রীষ্মে বিদ্যুৎ উৎপাদনে সর্বোচ্চ গ্যাসের চাহিদা নির্ধারণ করা হয়েছে এক হাজার ২০০ মিলিয়ন ঘনফুট। বর্তমানে পেট্রোবাংলা দৈনিক এক হাজার ৩০ মিলিয়ন ঘনফুট গ্যাস সরবরাহ করছে।

পেট্রোবাংলা বলছে, দুটি এলএনজি টার্মিনালের দৈনিক গ্যাস সরবরাহ ক্ষমতা এক হাজার মিলিয়ন ঘনফুট। কিন্তু সাধারণত ৮৫০ মিলিয়ন ঘনফুট পর্যন্ত গ্যাস সরবরাহ করে থাকে। পেট্রোবাংলা যদি সর্বোচ্চ বিদ্যুতের চাহিদার সময় গ্যাস সরবরাহ বৃদ্ধি করতে চায় তাহলে এলএনজির সরবরাহ আরও ১৭০ মিলিয়ন ঘনফুট বাড়াতে হবে।

গরম ও সেচে বিদ্যুৎ সরবরাহ স্বাভাবিক রাখতে বিদ্যুৎ বিভাগ ইতোমধ্যে একটি বৈঠক করে জ্বালানি আমদানি স্বাভাবিক রাখার নির্দেশ দিয়েছে। পায়রা এবং রামপাল বিদ্যুৎকেন্দ্রের কয়লা আমদানি যাতে ডলার সংকট যাতে প্রতিবন্ধক না হয়, সেজন্য বাংলাদেশ ব্যাংকের সঙ্গেও যোগাযোগ রাখা হচ্ছে।

রমজানে রাজধানীর বিদ্যুৎ পরিস্থিতি সম্পর্কে জানতে চাইলে ঢাকা পাওয়ার ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানির লিমিটেডের (ডিপিডিসি) ব্যবস্থাপনা পরিচালক প্রকৌশলী বিকাশ দেওয়ান বলেন, বিদ্যুৎতের সমস্যা যাতে না হয় সেজন্য সাবস্টেশন, ট্রান্সফরমার মেনটেইনেন্স চলমান আছে। কোন সমস্যা হলে প্রত্যেকটি উপকেন্দ্রকে দ্রুত সমাধানের নির্দেশনা দেওয়া আছে।

এ বিষয়ে বিদ্যুৎ ও জ্বালানি প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ বলেন, জ্বালানির আন্তর্জাতিক বাজার আবারও ঊর্ধ্বমুখী হলে বিদ্যুৎ ও গ্যাস সরবরাহ স্বাভাবিক রাখা চ্যালেঞ্জিং হতে পারে। তারপরও আমরা চেষ্টা করছি গরমে মানুষের যেন াবদ্যুৎ প্রাপপ্তির সমস্যা না হয়।

 


আরও খবর

শেখ হাসিনার প্রশংসায় জয়শঙ্কর

শুক্রবার ২১ জুন ২০২৪




কোচিং সেন্টার বন্ধ থাকবে ৪৪ দিন

প্রকাশিত:বুধবার ০৫ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২১ জুন ২০২৪ |

Image



নিজস্ব প্রতিবেদক:


২০২৪ সালের উচ্চমাধ্যমিক সার্টিফিকেট (এইচএসসি) ও সমমানের পরীক্ষা উপলক্ষে দেশের সব কোচিং সেন্টার আগামী ২৯ জুন থেকে ১১ আগস্ট পর্যন্ত (৪৪ দিন) বন্ধ থাকবে। 


৩০ জুন অনুষ্ঠিতব্য এইচএসসি ও সমমান পরীক্ষার প্রশ্নফাঁসের চেষ্টা ও প্রশ্ন ফাঁস ঠেকাতে এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। 



আজ বুধবার (৫ জুন) সচিবালয়ে মন্ত্রণালয়ের সম্মেলন কক্ষে এ বিষয়ে জাতীয় মনিটরিং ও আইনশৃঙ্খলা কমিটির সভা শেষে আয়োজিত প্রেস ব্রিফিংয়ে এ তথ্য জানান শিক্ষামন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী।  



শিক্ষামন্ত্রী বলেন, ‘আসন্ন এইচএসসি ও সমমান পরীক্ষা প্রশ্নফাঁস এবং গুজব ও নকলমুক্ত পরিবেশে সুষ্ঠু ও সুন্দরভাবে সম্পন্ন করার লক্ষ্যে আগামী ২৯ জুন থেকে ১১ আগস্ট পর্যন্ত সব কোচিং বন্ধ থাকবে।


শিক্ষা বোর্ডগুলোর পরীক্ষা নিয়ন্ত্রণ কক্ষের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট পরীক্ষাকেন্দ্রগুলো অনলাইনে সার্বক্ষণিক তথ্য আদান-প্রদান করবে।’



মন্ত্রী আরও বলেন, ‘আমরা দৃঢ়ভাবে বিশ্বাস করি, এইচএসসি ও সমমান পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে শান্তিপূর্ণ ও উৎসবমুখর পরিবেশে। ছাত্র-শিক্ষক ও অভিভাবকদের কাছে আমাদের নেওয়া ব্যবস্থা সন্তোষজনক হবে।’ 


এবার দেশের ১১টি বোর্ডের অধীনে পরীক্ষায় বসছেন ১৪ লাখ ৫০ হাজার ৭৯০ শিক্ষার্থী। এর মধ্যে ছাত্র ৭ লাখ ৫০ হাজার ২৮১ জন এবং ছাত্রী ৭ লাখ ৫০৯ জন। এই পরীক্ষার্থীরা ৯ হাজার ৪৬৩টি প্রতষ্ঠান থেকে ২ হাজার ৭২৫টি কেন্দ্র পরীক্ষায় অংশ নেবেন।



আরও খবর



উখিয়ায় রোহিঙ্গা ক্যাম্পে পাহাড় ধসে ৯ জনের মৃত্যু

প্রকাশিত:বুধবার ১৯ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২১ জুন ২০২৪ |

Image



বিডি টুডে রিপোর্ট:


উখিয়ায় রোহিঙ্গা ক্যাম্পে পাহাড় ধসে ৯ জনের মৃত্যু

কক্সবাজারের উখিয়ায় পৃথক রোহিঙ্গা ক্যাম্পে পাহাড় ধসে ৯ জনের মৃত্যুর খবর পাওয়া গেছে। 


বুধবার (১৯ জুন) সকালে পাহাড় ধসের এ ঘটনা ঘটেছে বলে জানা যায়।


উখিয়া থানার ওসি মো. শামীম হোসেন বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। তিনি প্রাথমিকভাবে দুর্ঘটনায় মারা যাওয়াদের নাম পরিচয় জানাতে পারেননি। 


তবে ৯ জনের মধ্যে চার বছরের এক শিশু, ১২ বছরের এক কিশোর ও কয়েকজন নারী রয়েছেন বলে জানিয়েছেন তিনি।



ফায়ার সার্ভিস সূত্রে জানা গেছে, মৃতদের মধ্যে দুই জন বাংলাদেশি এবং সাত জন রোহিঙ্গা। 



আরও খবর



টানা তৃতীয়বার ক্ষমতায় ফিরছেন নরেন্দ্র মোদি

প্রকাশিত:রবিবার ০২ জুন 2০২4 | হালনাগাদ:শুক্রবার ২১ জুন ২০২৪ |

Image

বিডি টু ডে ডিজিটাল ডেস্ক:

টানা তৃতীয়বার ক্ষমতায় ফিরছেন নরেন্দ্র মোদি।
ভারতে লোকসভা নির্বাচেনে ভোটগ্রহণ শেষ হয়েছে। শনিবার (০১ জুন) সপ্তম ধাপে ভোটগ্রহণের মধ্য দিয়ে এ নির্বাচন সমাপ্ত হয়েছে।

আগামী ৪ জুন নির্বাচনের ফলাফল ঘোষণা করবে দেশটির নির্বাচন কমিশন। তবে এরইমধ্যে বুথফেরত ফলাফল ঘোষণা করেছে ভারতের বিভিন্ন সংবাদমাধ্যম। এতে বলা হয়েছে, এবার হ্যাটট্রিক করতে চলেছেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি।

নির্বাচনে দেশটির বড় দুটি জোটের মধ্যে তুমুল প্রতিদ্বন্দ্বিতা হয়েছে। এ দুটি হলো ভারতের ক্ষমতাসীন দল ভারতীয় জনতা পার্টির (বিজেপি) নেতৃত্বাধীন জোট এনডিএ এবং কংগ্রেসের নেতৃত্বাধীন ইন্ডিয়া জোট।


বিজেপি নেতৃত্বাধীন এনডিএ জোট এবার ভোটের ৩৫৩ থেকে ৩৮৩ আসন পেতে পারে। একই সঙ্গে কংগ্রেস নেতৃত্বাধীন ইন্ডিয়া জোট পেতে পারে ১৫২ আসন থেকে ১৮২ আসন। ভারতের কেন্দ্রে সরকার গঠন করতে প্রয়োজন ২৭২ আসন।

তাই ম্যাজিক সংখ্যা থেকেও বিজেপির আসন প্রাপ্তির সম্ভাবনা অনেকটাই বেশি বলে আভাস দিচ্ছে একাধিক সমীক্ষা।

ভারতের শীর্ষস্থানীয় সমীক্ষক সংস্থা সি ভোটার, এবিপি আনন্দের যৌথ বুথ ফেরত মত বলছে, বিজেপি এবার এককভাবে ৩১৫ আসন পাবে। আর কংগ্রেস পাবে ৭৪টি আসন।

শনিবার (১ জুন) সাত দফার ভোট গ্রহণের শেষ দফা ভোট পর্ব শেষ হতেই এক এক করে দেশটির গণমাধ্যম গুলো বুথ ফেরত ফলাফল প্রকাশ করতে শুরু করে। আর সেখানে এমন আভাস পেয়ে কার্যত খুশি মোদির দল।

তবে এটাও সত্যি যে, দেশটির প্রধানমন্ত্রী-স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর ৪০০ আসনের বেশি আসন পেয়ে বিজেপি সরকার গড়বে বলে যে দাবি করেছিলেন- সেই দাবি কিন্তু বুথ ফেরত সমীক্ষার আভাস পুরোপুরে খারিজ করে দিয়েছে।


দেশটির অধিকাংশ সমীক্ষক সংস্থার আভাস বলছে, উত্তরপ্রদেশ, বিহার, মধ্যপ্রদেশ, মহারাষ্ট্র, রাজস্থানে বিজেপি তাদের অবস্থান ধরে রাখবে। অন্যদিকে দক্ষিণ ভারতের কেরালাও বিজেপি এবার খাতা খুলতে পারে। একই সঙ্গে মমতার রাজ্যে পশ্চিমবঙ্গেও তৃণমূলের চেয়ে বেশি আসন প্রাপ্তির সম্ভাবনাও দেখাচ্ছে সমীক্ষা।

দেশটির তিনটি বড় সমীক্ষক সংস্থা সি ভোটার, অ্যাক্সিস মাই ইন্ডিয়া, টুডেজ টানক্য-এর সমীক্ষার গড় হিসেব করলে মমতার রাজ্যে মোদির দল এবার ২৫টিরও বেশি আসন পেতে পারে।

আর তৃণমূলের ঝুলিতে যেতে পারে ১৫টি আসন। ৪২ আসনের পশ্চিমবঙ্গে বিজেপি গেলবার ১৮টি আসন, তৃণমূল ২২ টি আর কংগ্রেস ২টা আসন পেয়েছিল। সে হিসেবে তৃণমূল এবার ৭টি আসন হারাতে চলেছে।


আরও খবর

যুদ্ধে জড়িয়ে পড়তে পারে ইইউ

বৃহস্পতিবার ২০ জুন ২০24




৪৫ মাস পর সর্বোচ্চ প্রবাসী আয়ের রেকর্ড স্পর্শ করলো বাংলাদেশ

প্রকাশিত:সোমবার ০৩ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২১ জুন ২০২৪ |

Image



জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক:


মেমাসের দেশে প্রবাসী আয় বা রেমিট্যান্সে এসেছে ২২৫ কোটি মার্কিন ডলার, যা ৪৬ মাসের মধ্যে সর্বোচ্চ। গত বছরের একই সময়ে এসেছিল ১৫৫ কোটি ডলার।


 সেই হিসাবে এক বছরের ব্যবধানে প্রবাসী আয় বেড়েছে ৪৫ দশমিক ১৬ শতাংশ। এর আগে এক মাসে সর্বোচ্চ রেমিট্যান্স এসেছিল ২০২০ সালের জুলাই মাসে ২৬০ কোটি ডলার। বাংলাদেশ ব্যাংকসূত্রে এসব তথ্য পাওয়া গেছে। 



তথ্য অনুযায়ী, চলতি বছরের প্রথম মাস জানুয়ারিতে দেশে রেমিট্যান্স এসেছিল ২১১ কোটি ৩১ লাখ ৫০ হাজার ডলার। ফেব্রুয়ারিতে আসে ২১৬ কো‌টি ৪৫ লাখ ৬০ হাজার ডলার এবং মার্চে ১৯৯ কো‌টি ৭০ লাখ ৭০ হাজার ডলার এসেছে। 


আগের বছরের ডিসেম্বরে রেমিট্যান্স এসেছিল ১৯৯ কোটি ১২ লাখ ৬০ হাজার ডলার, নভেম্বরে ১৯৩ কোটি ৪০ হাজার ডলার, অক্টোবরে ১৯৭ কোটি ১৪ লাখ ৩০ হাজার ডলার, সেপ্টেম্বরে ১৩৩ কোটি ৪৩ লাখ ৫০ হাজার ডলার, আগস্টে ১৫৯ কোটি ৯৪ লাখ ৫০ হাজার ডলার, জুলাইয়ে ১৯৭ কোটি ৩১ লাখ ৫০ হাজার ডলার, জুনে ২১৯ কোটি ৯০ লাখ ৮০ হাজার ডলার।


 মে মাসে ১৬৯ কোটি ১৬ লাখ ৬০ হাজার ডলার, এপ্রিলে ১৬৮ কোটি ৪৯ লাখ ১০ হাজার ডলার, মার্চে ২০২ কোটি ২৪ লাখ ৭০ হাজার ডলার, ফেব্রুয়ারিতে ১৫৬ কোটি চার লাখ ৮০ হাজার ডলার এবং জানুয়ারিতে ১৯৫ কোটি ৮৮ লাখ ৭০ হাজার ডলার রেমিট্যান্স এসেছে।


আরও খবর

বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ বাড়ল

শুক্রবার ২১ জুন ২০২৪




আজকের বাজেটে বাড়তে পারে সিগারেটের দাম

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ০৬ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ২০ জুন ২০24 |

Image

বিডি টু ডে ডিজিটাল ডেস্ক:



দ্বাদশ জাতীয় সংসদের প্রথম বাজেট উপস্থাপন করা হবে আজ বৃহস্পতিবার। অর্থমন্ত্রী আবুল হাসান মাহমুদ আলী প্রস্তাবিত বাজেট উপস্থাপন করবেন। সেই সঙ্গে এটি হবে দেশের ইতিহাসে সবচেয়ে বড় বাজেট।



প্রতি বছরই তামাকজাত পণ্যের ব্যবহার কমানো এবং এ খাত থেকে রাজস্ব আয় বাড়ানোর লক্ষ্যে সম্পূরক শুল্ক বাড়ানো হয়। করে বেড়ে যায় সিগারেট, জর্দা ও গুলের দাম। এবারও সিগারেটের দাম বাড়ছে বলে জানা গেছে।



অর্থ মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে, এবার বাজেটে তামাকজাত পণ্য, পানির ফিল্টার, এলইডি বাল্ব, কম্পিউটারের দাম বাড়তে পারে। কমতে পারে গুঁড়া দুধ, ল্যাপটপের দাম।


জানা গেছে, প্রস্তাবিত বাজেটে সিগারেটের উৎপাদন পর্যায়ে সম্পূরক শুল্ক ও মূল্যস্তর বাড়ানো হতে পারে। তিন স্তরের সিগারেটে সম্পূরক শুল্ক ৬৫ দশমিক ৫ শতাংশ নির্ধারণের প্রস্তাব করা হতে পারে। এতে বাড়তে পারে সব ধরনের সিগারেটের দাম।



আয়-ব্যয়ের হিসাব মেলাতে এবার বাজেটে খরচের লাগাম টানা হচ্ছে। প্রতি বছর গড়ে ১২ থেকে ১৫ শতাংশ আকার বাড়ানো হলেও এবার মাত্র সাড়ে ৪ শতাংশ বাড়িয়ে বাজেট উপস্থাপন করতে যাচ্ছেন অর্থমন্ত্রী আবুল হাসান মাহমুদ আলী। টাকার অঙ্কে যার পরিমাণ ৭ লাখ ৯৭ হাজার কোটি টাকা।


গত জুনে চলতি অর্থবছরের জন্য যে বাজেট উপস্থাপন করা হয়েছিল তার থেকে এই বাজেট মাত্র ৪ দশমিক ৬ শতাংশ বেশি। আগামী বাজেটে রাজস্ব আয়ের লক্ষ্যমাত্রা থাকছে ৫ লাখ ৪১ হাজার কোটি টাকা। বাকি ২ লাখ ৫৬ হাজার কোটি টাকা ঘাটতি পূরণে অভ্যন্তরীণ ব্যাংকিং ব্যবস্থা থেকে ঋণের অঙ্ক বাড়ানো হচ্ছে।


অর্থ মন্ত্রণালয়ের হিসাব বলছে, আয়-ব্যয়ের যে হিসাব বাজেটে দেওয়া হয় তার কোনোটাই লক্ষ্য পূরণ হয় না। প্রতি অর্থবছর শুরুতে যে বাজেট দেওয়া হয়, ৯ মাস শেষে একবার সংশোধন করা হয়। কিন্তু অর্থবছর শেষে দেখা যায়, বাস্তবায়নের হার আরও কম। 


গত তিন বছর ধরে ঘোষিত বাজেটের চেয়ে প্রায় ১ লাখ কোটি টাকা কম ব্যয় হচ্ছে। অর্থ বিভাগের গত এক দশকের তথ্য-উপাত্ত অনুযায়ী, প্রতি বারই বাজেট বাস্তবায়ন হচ্ছে গড়ে ৮০ থেকে ৮৫ শতাংশ।


আরও খবর

শেখ হাসিনার প্রশংসায় জয়শঙ্কর

শুক্রবার ২১ জুন ২০২৪