Logo
শিরোনাম
মেঘনা নদীতে গোসল করার সময় নিখোঁজ ছাত্রের মরদেহ উদ্ধার রাজবাড়ীতে ট্রাকের সাথে সংঘর্ষে মোটর সাইকেল আরোহীর মৃত্যু রাজবাড়ীতে আবৃত্তি ও কথামালায় প্রকাশনা উৎসব নওগাঁয় মোটরসাইকেলের ধাক্কায় স্কুল ছাত্র নিহত-মা ও ছোট বোন আহত মোরেলগঞ্জে শ্রমীকদের মাঝে শীতবস্ত্র বিতরণ করলেন এমপি মিলন লালমনিরহাটে বিদ্যুৎ স্পৃষ্টে মারাগেছে স্কুলছাত্র নওগাঁয় বোরো ধান চাষের শুরুতেই বিদ্যুতের লোড শেডিং, দুঃশ্চিন্তায় কৃষকরা নওগাঁয় ৩৫ কোটি টাকা মূল্যের কষ্টিপাথরের মূর্তি উদ্ধার করেছে পুলিশ কুড়িগ্রামের শীতকাতর অসহায় মানুষের পাশে কেন্দ্রীয় যুবলীগ নেত্রকোনায় বিশ্ব জলাভূমি দিবস উপলক্ষে মানববন্ধন

বিজিবি সদস্যর গুলিবিদ্ধ মৃতদেহ উদ্ধার

প্রকাশিত:Friday ১৮ November ২০২২ | হালনাগাদ:Friday ০৩ February ২০২৩ |
Image

শহিদুল ইসলাম জি এম মিঠন, স্টাফ রিপোর্টারঃ


বিজিবি'র এক সদস্যর গুলিবিদ্ধ মৃতদেহ উদ্ধার।

জয়পুরহাটে এক বিজিবি সদস্যের ‘গুলিবিদ্ধ’ হয়ে মারা গেছেন বলে খবর পাওয়া গেছে। এ ঘটনায় বিজিবি’র পক্ষ থেকে কোনো বক্তব্য পাওয়া যায়নি।  

নিহত বিজিবি সদস্য নেপাল দাস (৩৫), জয়পুরহাট ২০ বিজিবির সিপাহী। সে ফরিদপুর জেলার মধুখালি মেঘচামী এলাকার নারায়ণ দাসের ছেলে।

জেলার গোয়েন্দা বিভাগ সূত্র জানায়, হত বৃহস্পতিবার ১৭ নভেম্বর রাতে বিজিবি জয়পুরহাট ব্যাটালিয়নের অধিনস্থ পাঁচবিবি বিশেষ ক্যাম্পে দায়িত্বরত সদস্য নেপাল দাস গুলিবিদ্ধ হয়ে মাটিতে পড়ে থাকতে দেখেন বিজিবি’র অন্যান্য সদস্যরা। পরে তাকে জয়পুরহাট আধুনিক হাসপাতালে নিয়ে গেলে দায়িত্বরত চিকিৎসক সিপাহী নেপালকে মৃত ঘোষণা করেন। 

শুক্রবার ১৮ নভেম্বর সকালে জয়পুরহাট জেলা আধুনিক হাসপাতালের তত্বাবধায়ক ডাঃ সরদার রাশেদ মোবারক সাংবাদিকদের জানান, নেপাল দাসের ময়না তদন্ত সম্পন্ন করা হয়েছে। মৃতদেহের ডান পিঠ ও হাতে গুলির চিহ্ন পাওয়া গেছে। 

এবিষয়ে জয়পুরহাট ২০ বিজিবি অধিনায়ক লেফটেন্যান্ট কর্নেল মোঃ রফিকুল ইসলামের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলেও তার কোনো বক্তব্য পাওয়া যায়নি।

জয়পুরহাট থানার ওসি সিরাজুল ইসলাম জানান, ময়না তদন্ত শেষে বিজিবি’র পাহাড়ায় নেপালের মৃতদেহ রাতেই ফরিদপুরে তার গ্রামের বাড়িতে নেওয়া হয়। 

এর বেশী কোন তথ্যই দিতে নারাজ বিজিবি বা পুলিশ প্রশাসন। তার শরীরে জখমের চিহ্ন পাওয়া গেছে। এ ব্যাপারে সদর থানায় একটি অস্বাভাবিক মৃত্যু (ইউডি) মামলা করা হয়েছে বলেও পুলিশ সুত্র জানায়।


আরও খবর



করোনা মধ্যেও ১২ লাখ বাংলাদেশীকে ভিসা দিয়েছে ভারত

প্রকাশিত:Wednesday ০১ February ২০২৩ | হালনাগাদ:Friday ০৩ February ২০২৩ |
Image

শহিদুল ইসলাম জি এম মিঠন, স্টাফ রিপোর্টার :

করোনা মহামারির মধ্যেও ১২ লাখ বাংলাদেশীকে ভিসা দিয়েছে ভারত। এ সময়ের মধ্যে বাংলাদেশের ১২ লাখ নাগরিদেরকে উন্নত চিকিৎসা এবং ট্যুরিস্ট ভিসা দেয়। ভারতে উন্নত চিকিৎসা সেবা নেয়ায় ও ট্যুরিস্ট ভিসাতে ভারত ভ্রমণ করছেন উল্লেখযোগ্য সংখ্যক বাংলাদেশী ।

ভারতীয় হাইকমিশনের অফিস তথ্য মতে, ২০২২ইং সালের মার্চের শেষ সপ্তাহ থেকে গত বছরের নভেম্বর পর্যন্ত ৮ মাসে ভারতের ভিসা নিয়েছেন ১০ লাখ বাংলাদেশি।

করোনা মহামারির বিরতির পর, ভারতের সীমান্ত খুলে দিলে ২০২২ইং সালের মার্চের শেষ সপ্তাহ থেকে গত বছরের নভেম্বর পর্যন্ত মাত্র ৮ মাসে ভারতের ভিসা নিয়েছেন ১০ লাখ বাংলাদেশি। যার মধ্যে ২ লাখ ৭৩ হাজার রয়েছে মেডিকেল ভিসা।

এছাড়া ট্যুরিস্ট, ব্যবসায়ী এবং অন্যান্য ভিসা'র আবেদন বেড়েছে। মাত্র ৮ মাসে বাংলাদেশ থেকে ভারত ভ্রমণের ভিসা নেয়ার এই পরিসংখ্যান অন্য যেকোন দেশের তুলনায় অনেক বেশি বলে জানায় বাংলাদেশে নিযুক্ত ভারতীয় হাইকমিশনের একটি সুত্র।

তাদের তথ্য মতে, করোনার আগে ২০১৯ সালে সর্বোচ্চ সংখ্যক ১৬ লাখের বেশি বাংলাদেশি ভারতের ভিসা নেন। ২০২১ সালে করোনাকালীন প্রতিকূল সময়ের মাঝেও অন্যান্য দেশের প্রতি ভারত সরকার কঠোর থাকলেও বন্ধুরাষ্ট্র বাংলাদেশের জন্যে লকডাউন সত্বেও প্রায় ২ লাখ ৩০ হাজার ভিসা ইস্যু করে ভারত, যার মধ্যে ১ লাখ ৯৬ হাজার ছিল মেডিকেল ভিসা।

করোনার প্রকোপ কমার পর প্রাথমিকভাবে বেনাপোল ও আখাউড়া স্থলবন্দরের ইমিগ্রেশন দিয়ে টুরিস্ট ভিসাধারীদের প্রবেশের অনুমতি দেয় ভারত সরকার যদিও তখন করোনা নেগেটিভ সনদ বাধ্যতামূলক করেছিল তারা।

পরবর্তীতে ধীরে ধীরে বর্তমানে বাংলাবান্ধা ফুলবাড়ি স্থলবন্দরের মতো ২/১টি বর্ডার ছাড়া বাংলাদেশিরা সর্বোচ্চ যে বন্দরগুলো ভারত প্রবেশের জন্যে ব্যবহার করে তা সচল রেখেছে ভারত সরকার যেখান দিয়ে প্রতিদিন শত শত বাংলাদেশি ভারতে যাচ্ছেন।

ভারতীয় ভিসা আবেদন কেন্দ্র ঢাকার ডেপুটি চিফ অপারেটিং অফিসার কিংশুক মিত্র জানান, একমাত্র বাংলাদেশেই ভারতীয় ভিসা প্রাপ্তির সবচেয়ে বৃহত্তম অপারেটিং নেটওয়ার্ক রয়েছে এবং ঢাকার যমুনা ফিউচার পার্কের যে ভিসা এ্যাপ্লিকেশন সেন্টার (আইভ্যাক) রয়েছে তা সারাবিশ্বে ভারতের যত ভিসা সেন্টার আছে তাদের তুলনায় সবচেয়ে বড় ও আধুনিক।

ঢাকা ছাড়াও সারাদেশে আরো ১৪ টি জেলায় রয়েছে তাদের সেন্টার সেগুলো হলো, রাজশাহী, বগুড়া, সিলেট, খুলনা, যশোর, চট্টগ্রাম, সাতক্ষীরা, ময়মনসিংহ, বরিশাল, রংপুর, ঠাকুরগাঁও, নোয়াখালী, কুমিল্লা এবং ব্রাহ্মণবাড়িয়া যাদের সবগুলো মিলে বিশ্বের বৃহত্তম ভিসা অপারেশন নেটওয়ার্ক তৈরি হয়েছে বাংলাদেশে। তিনি জানান, ২০২২ সালের শেষ দিকে ঢাকায় তাদের সেন্টার সহ সকল আইভ্যাকে ভারতীয় ভিসার চাহিদা ছিল সবচেয়ে বেশি। অতিরিক্ত চাপে অধিকাংশ সময়ে তাদের জন্যে সময়মতো ভিসা দিতেও হিমশিম খেতে হয়েছে তারপরেও তারা বাংলাদেশিদের তাদের দেশে ভ্রমনে সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিয়েছেন।

জানা যায়, ভিসা ব্যবস্থাকে সর্বজনীন করতে ভারত ও বাংলাদেশের মধ্যে সংশোধিত ভ্রমণ চুক্তি ২০০১ সালের মে মাস থেকে চালু রয়েছে। এটি সর্বশেষ ২০১৮ সালের জুলাই মাসে সংশোধন করা হয় এবং দুই দেশই তাতে স্বাক্ষর করে। বন্ধুপ্রতীম রাষ্ট্র হিসেবে বাংলাদেশি নাগরিকদের জন্য বিনামূল্যে ভিসা প্রদান করে ভারত। শুধুমাত্র ভিসা আবেদন জমা দেওয়ার সুবিধার্থে ভারতীয় ভিসা অ্যাপ্লিকেশন সেন্টার (আইভ্যাক) প্রতিটি আবেদনের জন্য (প্রসেসিং ফি) বাবদ নামমাত্র (প্রায় ৮শ') টাকা দিতে হয়।

কোভিড পরবর্তী গত বছর ও চলতি বছর বাংলাদেশিদের ভারতের ভিসা প্রাপ্তির পরিসংখ্যান অন্যান্য যে কোন সময়কে ছাড়িয়ে যাবে মর্মে জানান ভারতীয় হাইকমিশনের কর্মকর্তারা।


আরও খবর



বিএনপি অসুস্থ হয়ে গেছে : ওবায়দুল কাদের

প্রকাশিত:Monday ১৬ January ২০২৩ | হালনাগাদ:Friday ০৩ February ২০২৩ |
Image

রোকসানা মনোয়ার :নেতিবাচক, ধ্বংস, ষড়যন্ত্র ও দুর্নীতির রাজনীতি করে বিএনপি অসুস্থ হয়ে পড়েছে বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের।

সোমবার রাজধানীর বঙ্গবন্ধু এভিনিউস্থ আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে বিএনপি-জামায়াতের সন্ত্রাস ও নৈরাজ্যর প্রতিবাদে ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগ আয়োজিত সমাবেশে এমন মন্তব্য করেন তিনি।

 

ওবায়দুল কাদের বলেন, বিএনপি বিশৃঙ্খলা সৃষ্টির জন্য বিক্ষোভ সমাবেশ করছে। কেউ অশান্তির সৃষ্টি করলে, রাস্তা বন্ধ করে জনগণকে দুর্ভোগে ফেলার চেষ্টা করলে আমরা জনগণের জানমাল রক্ষার্থে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেব।

সেতুমন্ত্রী বলেন, বিএনপি নেতারা অসুস্থ হলে হাসপাতালে যাবেন। এ নিয়ে কটাক্ষ নয়। তবে অসুস্থ রাজনীতি করে অসুস্থ হলে সেই অসুস্থ বিএনপিকেও হাসপাতালে নিতে হবে। তাদের হাসপাতালে পাঠানোর ব্যবস্থা করতে হবে। নেতিবাচক, ধ্বংস, ষড়যন্ত্র ও দুর্নীতির রাজনীতি করে বিএনপি অসুস্থ হয়ে গেছে। তাদেরও হাসপাতলে যাওয়া দরকার।

 

কাদের বলেন, আওয়ামী লীগ এ দেশে ভেসে আসেনি। বিএনপি সরকার পতন করবে আর বাংলার মানুষ চুপ করে বসে থাকবে, সেটা ভাবার প্রয়োজন নেই। সত্য কথা বলার সাহস নেই মির্জা ফখরুলের। তারা কথায় কথায় মিথ্যাচার করে। বিএনপি চোখে সরিষা ফুল দেখছে। মানুষের জানমাল নিয়ে খেললে, খেলা হবে। যে কোনো নৈরাজ্যের বিরুদ্ধে মাঠে থাকবে আওয়ামী লীগ। সরকার হটাতে গিয়ে তারাই হটে যাবে।

 

বিশৃঙ্খলা সৃষ্টির জন্য বিএনপির বিক্ষোব-সমাবেশ মন্তব্য করে ওবায়দুল কাদের বলেন, আমরা সরকারে আছি। আমাদের দায়িত্ব হচ্ছে, জনসাধারণের জানমালের নিরাপত্তা দেয়া। এটা আমাদের নৈতিক দায়িত্ব। আগুন নিয়ে সন্ত্রাস, লাঠি নিয়ে খেলা, রাস্তা অবরোধ করে অশান্তি সৃষ্টি করাসহ এ ধরনের কাজ করলে জনগণের জানমাল রক্ষায় আমরা জনগণের পাশে আছি। সেজন্যই আজকের এই শান্তি সমাবেশ।

 

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, ফখরুল সাহেব নাকি আমার কথার উত্তর দিতে চান না। আমি বলতে চাই, আমার কথার উত্তর দেয়ার মতো সামর্থ্য ও সাহস ফখরুলের নেই। আমি সত্য কথা বলি আর ফখরুলরা মিথ্যাচার করেন। কথায় কথায় তারা মিথ্যাচার করেন। এটাই হচ্ছে বিএনপির রাজনীতি।

 


আরও খবর



নেত্রকোনায় সড়ক দুর্ঘটনায় যুবক নিহত

প্রকাশিত:Monday ২৩ January 20২৩ | হালনাগাদ:Wednesday ০১ February ২০২৩ |
Image

নেত্রকোনা প্রতিনিধি :

সোমবার সকালে জেলা সদরে তেরী এলাকায় বাসকে সাইড দিতে গিয়ে মোটরসাইকেল আরোহী শাকিল আহমেদ নামের এক যুবক নিহত হন। 

বড় ভাইকে বাসে তুলে দিয়ে বাড়ি ফেরার পথে ছোট বাজার এলাকায় বাসকে সাইড দিতে গিয়ে বিদ্যুতের পিলারের সাথে ধাক্কা লেগে ঘটনাটি ঘটেছে।

দুপুরে খবর পেয়ে নেত্রকোনা মডেল থানার পুলিশ লাশ উদ্ধার করে আইনি প্রক্রিয়া শেষে স্বজনদের কাছে মরদেহ হস্তান্তর করে।

পুলিশ ও প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা গেছে, সকালে নেত্রকোনা পৌর শহরের আন্তঃজেলা বাস টার্মিনালে মোটরসাইকেল যোগে বাংলা এলাকা থেকে বড় ভাইকে নিয়ে আসেন শাকিল। 

ভাইকে বিদায় দিয়ে নিজের মোটরসাইকেল যোগে বাড়ি ফিরছিলেন। 

এসময় ঢাকাগামী বিপরীত দিক থেকে আসা একটি যাত্রীবাহী বাসকে সাইড দিতে গিয়ে সড়কের পাশে থাকা বিদ্যুৎ এর খুঁটিতে ধাক্কা খেয়ে পড়ে যান শাকিল। 

স্থানীয়রা দ্রুত এসে উদ্ধার করে নেত্রকোনা জেলা সদর হাসপাতাল নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।  

নেত্রকোনা মডেল থানার পুলিশ খবর পেয়ে আইনগত প্রক্রিয়া শেষে লাশ স্বজনদের কাছে দিয়ে দেয়। 

মামলার তদন্ত অফিসার এস আই মো. আশরাফুজ্জামান সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, নিহত শাকিল আহমেদ সদর উপজেলার বাংলা গ্রামের আবেদ আলীর ছেলে।


আরও খবর



ধাপে ধাপে বাড়বে বিদ্যুতের দাম !

প্রকাশিত:Monday ৩০ January ২০২৩ | হালনাগাদ:Friday ০৩ February ২০২৩ |
Image

মইনুল ইসলাম মিতুল :একবারে দাম না বাড়িয়ে ধাপে ধাপে বিদ্যুতের মূল্যবৃদ্ধির চিন্তা করছে সরকার। এনার্জি রেগুলেটরি কমিশন একবারেই গ্রাহকপর্যায়ে দাম ১৫ ভাগ বাড়ানোর চিন্তা করছিল। কিন্তু বিদ্যুৎ বিভাগের নির্বাহী আদেশে মূল্যবৃদ্ধির আগে মানুষের ওপর এর কতটা চাপ পড়বে সেই বিবেচনা করার কথা বলা হয়।

মন্ত্রণালয়ের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা বলেন, বিদ্যুতের দাম একবারে ১৫ থেকে ২০ ভাগ বাড়লে বাজারে পণ্যের দাম অনেকটা বেড়ে যায়। এজন্য সরকারের যদি কিছুটা লোকসানও হয় তাহলেও ধাপে ধাপে দাম বাড়ালে মানুষের ওপর পণ্যের দাম বৃদ্ধির প্রভাব খুব একটা পড়ে না ।

বিদ্যুৎ বিভাগ বলছে, আগামী দুই মাসে আবার পাঁচ ভাগ হারে গ্রাহকপর্যায়ে বিদ্যুতের দাম বৃদ্ধি করা হবে। গ্রাহকপর্যায়ে বিদ্যুতের দাম বৃদ্ধির পরে বিষয়টি সমন্বয় করে দেখা হবে। যদি মনে করা হয় পাইকারি বিদ্যুতের দাম বাড়ানো প্রয়োজন, তাহলেই তা বাড়ানো হবে। যদিও পিডিবি গ্যাসের দাম বৃদ্ধির ফলে সাড়ে সাত হাজার কোটি টাকার আর্থিক ক্ষতি হবে উল্লেখ করে। এরই মধ্যেই ইউনিটপ্রতি ৫০ পয়সা করে পাইকারি বিদ্যুতের দাম বাড়ানোর প্রস্তাব দিয়েছে। তবে এ বিষয়ে বিদ্যুৎ বিভাগ এখনই কোনো সিদ্ধান্ত নেয়নি।

বিদ্যুৎ বিভাগের এক কর্মকর্তা বলেন, পিডিবি হয়তো শুধু নিজেদের কথা চিন্তা করছে। কিন্তু সরকার সামগ্রিক ভর্তুকির কথা চিন্তা করছে।

গত বছর বিদ্যুৎ সরবরাহ দিতে পিডিবিকে ২৯ হাজার কোটি টাকা ভর্তুকি দিতে হয়েছে। চলতি বছর এর পরিমাণ ৪০ হাজার কোটি টাকা পিডিবির জন্য ভর্তুকি প্রয়োজন হবে বলে মনে করা হচ্ছে। এত বেশি পরিমাণ ভর্তুকি দেওয়া সরকারের একার পক্ষে সম্ভব না হওয়ায় সরকার বিদ্যুৎ এবং জ্বালানির মূল্য সমন্বয় করছে।

বিদ্যুৎ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ বলেন, আমরা প্রতি মাসে অল্প অল্প করে বিদ্যুতের দাম বাড়াব। এতে মানুষের ওপর চাপ কম পড়বে। সরকার ১২ জানুয়ারি নির্বাহী আদেশে গ্রাহকপর্যায়ে বিদ্যুতের দাম ৫ ভাগ দাম বাড়ায়। এর আগে ১৯ ভাগ পাইকারি বিদ্যুতের দাম বৃদ্ধির ঘোষণা দেয় বিইআরসি।

এদিকে, গ্যাসের মূল্যবৃদ্ধির ফলে ইনপুট খরচ বেড়ে যাওয়ায় চলতি অর্থবছরে রাষ্ট্রায়ত্ত বাংলাদেশ বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ডের (পিডিবি) আর্থিক ক্ষতি ৫৪ হাজার কোটি টাকা ছাড়িয়ে যাওয়ার আশঙ্কা দেখা দিয়েছে। ২০২১-২২ অর্থবছরে সংস্থাটির লোকসান ছিল ২৯ হাজার ৯১৫ কোটি টাকা।

পিডিবির একজন শীর্ষ কর্মকর্তা বলেন, সম্প্রতি গ্যাসের দাম বৃদ্ধির পর গ্যাস বিল পরিশোধ করতে আমাদের ১০ হাজার কোটি টাকা অতিরিক্ত গুনতে হবে।

সরকার গত ১৮ জানুয়ারি সরকারি, বেসরকারি ও ক্যাপটিভ পাওয়ার প্লান্ট এবং শিল্প ও বাণিজ্যিক ব্যবহারকারীদের জন্য খুচরা গ্যাসের দাম বাড়িয়েছে। নতুন এই দাম ১ ফেব্রুয়ারি থেকে কার্যকর হবে। তবে বাসাবাড়ি, সিএনজিচালিত মোটরযান ও চা-বাগানের ব্যবহারের জন্য এই দাম অপরিবর্তিত রাখা হয়েছে।

পিডিবির সর্বশেষ হিসাব অনুযায়ী, ২০২১-২২ অর্থবছরে তাদের লোকসান ২৯ হাজার ৯১৫ কোটি এবং ২০২২-২৩ অর্থবছরে ৪৮ হাজার কোটি টাকা অতিক্রম করার কথা ছিল। কিন্তু পাইকারি বিদ্যুতের দাম বৃদ্ধির পর লোকসান প্রায় ৪ হাজার টাকা কমে ৪৪ হাজার কোটি টাকায় নেমে আসে। এখন ফেব্রুয়ারি থেকে গ্যাসের দাম বৃদ্ধির কারণে এখন লোকসান ১০ হাজার কোটি টাকা বেড়ে যাবে।


আরও খবর



র‍্যাবের অভিযানে কষ্টি পাথরের মূর্তি উদ্ধারসহ ৩ জন আটক

প্রকাশিত:Monday ১৬ January ২০২৩ | হালনাগাদ:Friday ০৩ February ২০২৩ |
Image

শহিদুল ইসলাম জি এম মিঠন, স্টাফ রিপোর্টার :

র‍্যাবের অভিযানে ১টি কষ্টি পাথরের বিষ্ণু মূর্তি উদ্ধার সহ জড়ীত ৩ জন প্রতারক কে গ্রেফতার।

জয়পুরহাট জেলা সদর উপজেলার বানিয়াপাড়া এলাকায় অভিযান পরিচালনা করে ৪০ কেজি ওজনের একটি বিষ্ণু মূর্তি উদ্ধার সহ আব্দুল আলীম (৩২), জহুরুল ইসলাম (৪৪) ও মেহেদী হাসান (৩২) নামের সংঘবদ্ধ প্রতারক চক্রের ৩ জন সদস্যকে গ্রেফতার করেছে র‍্যাব।

সত্যতা নিশ্চিত করে র‌্যাব-৫, সিপিসি-৩, জয়পুরহাট কাম্প থেকে জানানো হয়, র‌্যাব-৫, সিপিসি-৩, জয়পুরহাট ক্যাম্পের কোম্পানী কমান্ডার মেজর মোঃ মোস্তফা জামানের নেতৃত্বে রবিবার বেলা পৌনে ৩ টার দিকে জেলার কালাই থানার আকন্দপাড়া গ্রামের মফিজুল প্রামাণিকের ছেলে ও প্রতারক চক্রের মূলহোতা মোঃ আব্দুল আলীম, একই থানার কালাই পূর্বপাড়া গ্রামের মৃত আলতাব মোল্লার ছেলে মোঃ জহুরুল ইসলাম ও ক্ষেতলাল থানার ভাসিলা থানার মৃত আব্দুল জলিলের ছেলে মোঃ মেহেদী হাসানকে হাতেনাতে গ্রেফতার করা হয়।

র‍্যাব আরো জানায় যে, গ্রেফতারকৃত মোঃ আব্দুল আলিম সংঘবদ্ধ একটি প্রতারক চক্রের মূলহোতা এবং অন্য দু' জন সেই চক্রের সক্রিয় সদস্য। তারা পরস্পর যোগসাজশে দেশের বিভিন্ন এলাকার লোকজনকে কষ্টিপাথরের বিষ্ণু মূর্তির মিথ্যা প্রলোভন দেখিয়ে তাদের নিকট হইতে প্রতারণার মাধ্যমে লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নিত। 

পরবর্তীতে তাদের বিরুদ্ধে থানায় বিশেষ ক্ষমতা আইন-১৯৭৪ অনুসারে মামলা দায়ের পূর্বক সোমবার জেল হাজতে প্রেরণ করা হয়েছে।


আরও খবর