Logo
শিরোনাম
মেদিনীমণ্ডল আনোয়ার চৌধুরী উচ্চ বিদ্যালয়ে

ব্যবস্থাপনা কমিটির নির্বাচন অনুষ্ঠিত

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ৩০ জুন ২০২২ | হালনাগাদ:বুধবার ১০ আগস্ট ২০২২ |
Image

মুন্সীগঞ্জ জেলা প্রতিনিধিঃ

মুন্সীগঞ্জের লৌহজংয়ে মেদিনীমন্ডল আনোয়ার চৌধুরী উচ্চ বিদ্যালয়ে ব্যবস্থাপনা কমিটির নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছে। উৎসবমুখোর পরিবেশে বুধবার সকাল ১০ টা থেকে বিকাল ৪ টা পর্যন্ত এ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। পরে বিকাল ৫ টার দিকে ভোট গণনা করে ফলাফল ঘোষণা করা হয়। এতে ৪ টি অভিভাবক প্রতিনিধি পদের জন্য ৬ জন প্রার্থী নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেছেন। ৫৯৯ জন ভোটারের মধ্যে ৪২৪ জন ভোটার ভোট প্রদান করেন। এতে শিবু দাস ২৭৮ ভোট পেয়ে প্রথম, মো. মহিউদ্দিন মৃধা ২৫৬ ভোট পেয়ে দ্বিতীয়, কুদ্দুস ঢালী ২৪৯ ভোট পেয়ে তৃতীয় ও জিল্লু হাওলাদার ২২৮ ভোট পেয়ে চতুর্থ স্থান দখল করেন বিজয়ী হন।

এদিকে বিনা প্রতিদ্বন্দীয় হাজী বকুল খান দাতা সদস্য, ছালমা বেগম সংরক্ষিত মহিলা অভিভাবক প্রতিনিধি, আব্দুল হালিম, মো. রাসেল শিক্ষক প্রতিনিধি ও সানজিদা সুলতানা সংরক্ষিত মহিলা শিক্ষক প্রতিনিধি হিসেবে জয়ী হন।

প্রিজাইডিং কর্মকর্তা দেওয়ান মো. জাহাঙ্গীর জানান, সকাল থেকে উৎসবমুখোর পরিবেশে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছে। বিভিন্ন পদে ৫ জন বিনা প্রতিদ্বন্দীয় জয়ী হয়েছে। আর অভিভাবক প্রতিনিধি পদে ৬ জন প্রার্থী নির্বাচন করেছেন। মূলত ৪ টি অভিভাবক প্রতিনিধি পদের জন্য এ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছে। সকাল ১০ টা থেকে বিকাল ৪ টা পর্যন্ত ভোট চলমান ছিলো। পরে সকল প্রার্থীদের উপস্থিতিতে ভোট গণনা করা হয়। এবং চারজনকে পর্যায়ক্রমে বেশিভোট পাওয়ায় বিজয়ী ঘোষণা করেন।

তিনি বলেন, বিদ্যালয়ের ২টি ক্লাস রুমে বুথ তৈরি করা হয়। বুথে দুইজন সহকারী প্রিজাইডিং ও দুইজন পুলিং অফিসার নিযুক্ত ছিলেন। নিরাপত্তার জন্য পদ্মা সেতু উত্তর থানা থেকে পুলিশ মোতায়েন করা হয়।

তিনি আরও জানান, আগামী এক সপ্তাহের মধ্যে নির্বাচিত সদস্য ও প্রিজাইডিং কর্মকর্তাকে নিয়ে ব্যবস্থাপনা কমিটির সভাপতি ঘোষণা করা হবে। এতে সাজাপ্রাপ্ত ও মানুষিক ভারসাম্যহীন ছাড়া যেকোন ব্যক্তিকে এই বৈঠকের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী সভাপতি নির্ধারণ করা হবে। তবে বিনা প্রতিদ্বন্দীয় ও নির্বাচনে জয়ীদের বৈঠকে এ সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হবে।

এসময় নির্বাচনে উপস্থিত ছিলেন মেদিনীমণ্ডল ইউপি চেয়ারম্যান আশরাফ হোসেন খান, মেদিনীমণ্ডল আনোয়ার চৌধুরী উচ্চ বিদ্যালয়ের আজীবন দাতা সদস্য মোতালেব চৌধুরী, দাতা সদস্য বকুল খান, প্রধান শিক্ষক নারায়ণ চন্দ্র মন্ডল, লৌহজং প্রেস ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক মো. মানিক মিয়া, শ্রীনগর প্রেস ক্লাবের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক শাহ আলম নিতুল, আমিন মোহাম্মদ গ্রুপের হিসাব রক্ষক মো. জলিলুর রহমানসহ স্কুল শিক্ষক ও নির্বাচনে দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তারা।


আরও খবর



কু‌মিল্লা দে‌বিদ্বার উপজেলা চেয়ারম্যানকে এমপি'র ঘুষির প্রতিবাদে

চান্দিনায় ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়ক অবরোধ বিক্ষোভ

প্রকাশিত:বুধবার ২০ জুলাই ২০22 | হালনাগাদ:বুধবার ১০ আগস্ট ২০২২ |
Image

কু‌মিল্লা  ব্যুরোঃ

কুমিল্লার দেবীদ্বার উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যানকে স্থানীয় সংসদ সদস্য ঘুষি মরার প্রতিবাদে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ করে বিক্ষুব্ধ নেতা-কর্মীরা।

বুধবার (২০ জুলাই) সকাল পৌনে ১১টা থেকে সাড়ে ১১টা পর্যন্ত প্রায় পৌঁনে ১ ঘন্টা মহাসড়কের চান্দিনা উপজেলার মাধাইয়া বাস স্টেশনে অবরোধ করে ওই বিক্ষোভ মিছিল করে তারা।

এসময় তারা মহাসড়কে বিক্ষোভ সমাবেশ করে বক্তৃতা করেন। এতে মহাসড়কের উভয় পাশে দীর্ঘ যানজট সৃষ্টি হয়। পরে সহকারি পুলিশ সুপার (দাউদকান্দি সার্কেল) ফয়েজ ইকবালসহ জেলা ও হাইওয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে এসে বিক্ষুব্ধ নেতা-কর্মীদের মহাসড়ক থেকে সরিয়ে যান চালাচল স্বাভাবিক করেন।  

কুমিল্লা উত্তর জেলা আওয়ামী লীগ সাংগঠনিক সম্পাদক ও দেবীদ্বার উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আবুল কালাম আজাদ এর উপর এমপি’র হামলাকে উদ্দেশ্য প্রণোদিত দাবী করে ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেন উপজেলা চেয়ারম্যান আবুল কালাম আজাদ সমর্থিত আওয়ামী লীগ নেতা-কর্মীরা।

এসময় বিক্ষুব্ধ নেতা-কর্মীরা কুমিল্লা-৪ (দেবীদ্বার) আসনের সংসদ সদস্য রাজী মোহাম্মদ ফখরুল এর বিচারের দাবী জানান। বিক্ষুব্ধ নেতা-কর্মীরা এমপি রাজী’র বিরুদ্ধে বিভিন্ন শ্লোগান দেয় এবং ঝাড়ু প্রদর্শণ করে। প্রায় পৌঁনে ১ ঘন্টার ওই বিক্ষোভ মিছিলে চার লেন মহাসড়কের ঢাকামুখী ছয়ঘড়িয়া থেকে মাধাইয়া ও চট্টগ্রামমুখী মহাসড়কের খাদঘর থেকে মাধাইয়া পর্যন্ত প্রায় ১০ কিলোমিটার যানজট সৃষ্টি হয়।

সুলতানপুর ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান অধ্যাপক হুমায়ূন কবির বলেন, উপজেলা চেয়ারম্যান আবুল কালাম আজাদের ওপর এমপি রাজী ফখরুল এর হামলার ঘটনাটি অত্যন্ত লজ্জা জনক। ওই হামলায় শুধুমাত্র আবুল কালাম আহত হয়নি, আহত হয়েছে পুরো দেবীদ্বারবাসী। ওই ঘটনায় আমরা এমপি রাজী মোহাম্মদ ফখরুলকে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ থেকে বহিস্কারের দাবী জানাচ্ছি।

বিক্ষোভের নেতৃত্ব দেওয়া দেবীদ্বার উপজেলার ভানি ইউনিয়নের চেয়ারম্যান হাজী জালাল উদ্দীন ভূঁইয়া বলেন, সংসদ ভবনের এলডি হলে উপজেলা চেয়ারম্যানের উপর এমপি যে হামলা করেছে সেই ভিডিও ফুটেজ প্রকাশ না করে বাহিরে আহত আবুল কালাম আজাদ এর ক্ষোভ প্রকাশের ভিডিও ভাইরাল করা হয়। আমরা প্রকৃত ঘটনার ভিডিওটি প্রচারের দাবী জানাচ্ছি।

বিক্ষোভ মিছিল ও প্রতিবাদসভায় আরও বক্তৃতা করেন বরকামতা ইউপি চেয়ারম্যান মো. নূরুল ইসলাম, ফতেহাবাদ ইউপি চেয়ারম্যান মো. কামরুজ্জামান মাসুদ, রাজামেহার ইউপি চেয়ারম্যান জসিম উদ্দিন সরকার, ভানী ইউপি আওয়ামী লীগের সভাপতি মো. জহিরুল ইসলাম ভূঁইয়া, সাধারণ সম্পাদক আলী আশরাফ মেম্বার, বরকামতা ইউনিয়ন আ. লীগের সভাপতি মো. শাহ আলম। অন্যরা বক্তব্যে উপজেলা চেয়ারম্যানকে লাঞ্ছিত করার প্রতিবাদ জানান।

প্রসঙ্গত, শনিবার (১৬ জুলাই) বিকেলে দেবীদ্বার উপজেলা আওয়ামী লীগের সম্মেলন বাস্তবায়ন করার লক্ষ্যে জাতীয় সংসদ ভবনের এলডি হলে অনুষ্ঠিত হওয়া বৈঠকে দেবীদ্বার উপজেলা চেয়ারম্যান আবুল কালাম আজাদকে কিল-ঘুষি মারেন সংসদ সদস্য রাজী ফখরুল। এ নিয়ে দেশজুড়ে আলোচনা-সমালোচনার ঝড় ওঠে।


আরও খবর



তাপপ্রবাহ অব্যাহত থাকতে পারে আরও দু’দিন

প্রকাশিত:রবিবার ১৭ জুলাই ২০২২ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ০৯ আগস্ট ২০২২ |
Image

ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন জেলার উপর দিয়ে মাঝারি থেকে মৃদু তাপপ্রবাহ বয়ে যাচ্ছে, তা আরও দু’দিন অব্যাহত থাকতে পারে বলে জানিয়েছে আবহাওয়া অফিস। আগামী সোমবারের (১৮ জুলাই) পর থেকে সারাদেশে তাপমাত্রা কমতে পারে। সে সময় বৃষ্টিপাতের প্রবণতাও বাড়তে পারে।

আবহাওয়াবিদ মো. মনোয়ার হোসেন জানান, চলমান ভ্যাপসা গরম পরিস্থিতি আরও দু’দিন চলতে পারে। এই দু’দিন সারাদেশের তাপমাত্রা প্রায় অপরিবর্তিত থাকতে পারে। চলমান তাপদাহ আগামী সোমবার পর্যন্ত অব্যাহত থাকতে পারে।

তিনি জানান, ঢাকা, টাঙ্গাইল, রাঙ্গামাটি, কুমিল্লা, চাঁদপুর, ফেনী ও চুয়াডাঙ্গা জেলাসহ রংপুর, রাজশাহী ও সিলেট বিভাগের উপর দিয়ে মৃদু থেকে মাঝারি ধরণের তাপপ্রবাহ বয়ে যাচ্ছে এবং তা অব্যাহত থাকতে পারে। এ কারণে এসব অঞ্চলে যে গরম অনুভূত হচ্ছে, তা আরও দু’দিন অব্যাহত থাকতে পারে।


আরও খবর

আন্তর্জাতিক আদিবাসী দিবস

মঙ্গলবার ০৯ আগস্ট ২০২২




নতুন রূপে সেজেছে সাগরকন্যা

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ০২ আগস্ট 2০২2 | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ০৯ আগস্ট ২০২২ |
Image

মইনুল ইসলাম মিতুল :  পর্যটনের অপার সম্ভাবনা সত্বেও যোগাযোগ অবকাঠামোর অভাবে পিছিয়ে ছিল । কিন্তু পদ্মা সেতু উদ্বোধনের পর এই ‘সাগরকন্যা’ সেজেছে নতুন রূপে। বেড়েছে পর্যটকও। তবে অপরিকল্পিত ব্যবস্থাপনায় পর্যাটকদের ভোগান্তি রয়ে গেছে।

পদ্মা সেতু চালুর পর কুয়াকাটার প্রতি পর্যটকদের কাছে আগ্রহ বেড়েছে জানিয়ে রুম্মান ইমতিয়াজ বলেন, এবার চট্টগাম, মানিকগঞ্জ, মুন্সিগঞ্জ, গাজীপুর, ময়মনসিংহ, টাঙ্গাইল, জামালপুর থেকেও পর্যটকর আসছেন। তার যুক্তির বাস্তবতাও পাওয়া গেল। নেত্রকোনা থেকে যাওয়া পর্যটক সোহেল, নাদিম, বিনয় ও বিপ্লব বলেন, ১১ ঘণ্টায় আমরা নেত্রকোনা থেকে এখানে এসেছি। নাদিয়া জানালেন, প্রাইভেটকারে ১০ ঘণ্টার কম সময়ে তারা পরিবারের সদস্যদের নিয়ে এখানে পৌঁছান।

কুয়াকাটা হোটেল-মোটেল ওনার্স অ্যাসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক মোতালেব শরীফ বলেন, কুয়াকাটায় অ্যাসোসিয়েশনভুক্ত হোটেল-মোটেল আছে ৭৪টি। এর বাইরে আছে ৫৬টি হোটেল-মোটেল। প্রথম শ্রেণির হোটেল রয়েছে ১৫টি। এসব হোটেল-মোটেলে সর্বোচ্চ ১৫ হাজারের মতো পর্যটক রাত যাপন করতে পারেন।

মোতালেব শরীফ আরো বলেন, আগে শুধু শীতকালে কুয়াকাটায় বেশি পর্যটক বেড়াতে আসতেন, এখন পদ্মা সেতু চালু হওয়ায় সারা বছরই কুয়াকাটায় পর্যটকেরা আসতে পারবেন। সেভাবেই আমরা সবকিছু ঢেলে সাজাচ্ছি।

এদিকে কুয়াকাটাসহ আশপাশের এলাকা ঘুরে বেড়ানোর জন্য ৩০০-৩৫০ ভাড়ায় চালিত মোটরসাইকেল রয়েছে। এসব মোটরসাইকেলচালক সমিতির সভাপতি আব্বাস কাজী। তিনি বলেন, পর্যটক বেড়ে যাওয়ায় একেকজন মোটরসাইকেলচালক এখন দিনে ১ হাজার ২০০ থেকে দেড় হাজার টাকা পর্যন্ত আয় করছেন। তাতে হিসাব করলে দেখা যায়, ৩৫০ মোটরসাইকেল থেকে দিনে গড়ে ৪ থেকে ৫ লাখ টাকা আয় হচ্ছে।

কুয়াকাটা পর্যটন পুলিশের পরিদর্শক হাসনাইন পারভেজ বলেন, পর্যটকদের নিরাপত্তায় পর্যটন পুলিশের বেশ কয়েকটি দল এ কাজ করছে। সৈকতে যাতে কোনো দুর্ঘটনা না ঘটে, সে জন্যও তৎপর রয়েছে পর্যটন পুলিশ।

সৈকতের পাশেই দেড় শতাধিক একর জমিতে অবস্থিত নারিকেল বাগান যা ‘নারিকেল কুঞ্জ’ নামেই পরিচিত। ১৯৬০ সালে ১৬৭ একর খাস জমি লীজ নিয়ে জনাব ফয়েজ মিয়া ‘ফার্মস এন্ড ফার্মস’ নামে এ বাগান করেন। সৈকতের পূর্ব দিকে রয়েছে মনোরম ঝাউ বাগান। ১৯৯৭/৯৮ অর্থ বছরে বন বিভাগ ১৫ হেক্টর জমিতে সি বিচ সংলগ্ন ঝাউ বাগান গড়ে তোলে। এর পরেই রয়েছে আর এক বিশাল বনাঞ্চল চরগঙ্গামতি। বনের মধ্যে রয়েছে ছৈলা, কেওড়া ও কড়াই বাগান ও একটি নয়নাভিরাম লেক। কুয়াকাটা সমূদ্র সৈকত থেকে ৫ কিলোমিটার পশ্চিমে লেম্বুর চরে বন বিভাগের একটি বাগান আছে। বনে রয়েছে কড়াই, গেওয়া, ছৈলা ও কেওড়া গাছ। বেড়াতে আসা পর্যটকরা এখানে যায়। আন্ধারমানিক নদীর মোহনার পূর্ব দিকে লেম্বুর চর আর পশ্চিম দিকে রয়েছে ফাতরার চরের বিশাল বনাঞ্চল।

ভৌগোলিক ভাবে বরগুনা জেলায় বাগানটির অবস্থান থাকলেও কুয়াকাটায় আগত পর্যটকরা বিনোদনের জন্য সেখানে ট্রলার যোগে যাতায়াত করেন। কুয়াকাটা সৈকতের ৭ কিলোমিটার পশ্চিমে রয়েছে শুটকি পল্লী। সেখানে পর্যটকরা তাজা মাছ কেটে শুটকিজাত করার দৃশ্য দেখতে ভিড় জমান। সরকারিভাবে গঙ্গামতিতে ইকোপার্ক ও বিমানবন্দর করার পরিকল্পনা নেয়া হয়েছে। এ ছাড়াও কুয়াকাটা উন্নয়নের জন্য মাস্টার প্লানের কাজ চলমান।

পর্যটকরা জানিয়েছেন, ভোরে ঢাকা থেকে যাত্রা করে দুপুরের আগেই কুয়াকাটা পৌঁছে দিনভর ঘোরাঘুরি শেষে বিকেলে সূর্যোদয় দেখে রাতে আবার ঢাকায় ফিরতে পেরেছেন তারা। এক সময় ঢাকা থেকে কুয়াকাটা পর্যন্ত ১২ থেকে ১৪টি ফেরি সার্ভিস ছিল। সে কারণে কুয়াকাটায় পৌছাতে ২৪ থেকে ২৪ ঘণ্টা সময় লাগতো। সর্বশেষ ভোগান্তি ছিল মাওয়া-জাজিরা পয়েন্টের ফেরি। পদ্মা সেতু নির্মিত হওয়ায় মাত্র ৫ ঘণ্টায় কুয়াকাটা পৌছতে পেরে আনন্দিত পর্যটকরা।

পদ্মা সেতুর সুফলে এবার চট্টগ্রাম, জামালপুর, টাঙ্গাইল, ময়মনসিংহ, গাজীপুর, মুন্সীগঞ্জ, মানিকগঞ্জ সহ বিভিন্ন জেলার পর্যটকরা আসছেন সাগরকন্যা কুয়াকাটার সৌন্দর্য উপভোগ করতে। ১৩টি দর্শনীয় স্পট দেখতে হাজার হাজার দর্শনার্থীদের উপচেপড়া ভিড় লক্ষ্য করা গেছে। সমুদ্রে ঢেউয়ের তালে তালে দাবড়িয়ে বেড়াচ্ছে তরুণ তরুণীসহ নানান পেশার মানুষ। সমুদ্রে গোসল, ফুটবল খেলাসহ নানা আনন্দ উল্লাসে মেতে আছে পর্যটকরা।

একাধিক পর্যটকরা জানান, আগে কেবল মাত্র ভোগান্তির জন্যই সাগরকন্যায় আসার আনন্দ ধুলোয় মিশে যেতো। সূর্যোদয় কিংবা সূর্যাস্ত কোনোটাই দেখা সম্ভব হতো না। পরিবার-পরিজন নিয়ে কুয়াকাটায় বেড়াতে আসা একাধিক ব্যক্তি জানান, এবার ছুটির মধ্যেই পরিবার নিয়ে সাগরকন্যার সৌন্দর্য উপভোগ করতে পেরেছেন। ঈদ উল আযহার দিন বিকেল থেকেই কুয়াকাটার একাধিক পর্যটন স্পট পর্যটকদের পদচারণায় মুখরিত হয়ে উঠেছে। দীর্ঘ ১৮ কিলোমিটারের সমুদ্র সৈকতে রাখাইনদের ইতিহাস-ঐতিহ্যের সঙ্গে সম্পৃক্ত বিভিন্ন প্রাগৈতিহাসিক স্থাপনা নিদর্শন দেখতে গভীর রাত পর্যন্ত ভিড় পরিলক্ষিত হচ্ছে। পর্যটকদের চাপে এবার শতভাগ হোটেল-মোটেল বুকিং হয়ে যাওয়ায় অনেকেই ৪/৫ কিলোমিটার দূরবর্তী হোটেলে কক্ষ ভাড়া নিচ্ছেন।

বাংলাদেশ ট্যুরিজম বোর্ডের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (অতিরিক্ত দায়িত্ব) আবু তাহের মুহাম্মদ জাবের প্রতিদিনের সংবাদকে বলেন, আমরা সারা দেশে ১ হাজার ১০০ ট্যুরিস্ট অ্যাট্রাকশন পয়েন্ট আইডেন্টিফাই করেছি। এর মধ্যে কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ অ্যাট্রাকশন পয়েন্টের আর্কিটেকচারাল ডিজাইন আমরা করব। আমরা ইনভেস্টমেন্ট প্ল্যানও করব।

মুহাম্মদ জাবের আরো বলেন, দক্ষিণাঞ্চলকে আমরা প্রায়োরিটি দেব, কারণ ওখানে যাওয়াটা আগে কষ্টসাধ্য ছিল। এখন সেটা সহজ হয়েছে। কুয়াকাটা, পিরোজপুরসহ বরিশালের বিভিন্ন অঞ্চলকে আমরা অগ্রাধিকার দেব। এখানে কিছু নতুন ট্যুরিস্ট অ্যাট্রাকশন তৈরির জন্য কাজ করছি। এর মধ্যে আছে সোনাদ্বীপ, আরেকটা সোনারচর। ১০-১৫ দিন আগে আমরা দেখে এসেছি। কীভাবে এগুলো ডেভেলপ করা যায়, সেটা নিয়ে কাজ করছি।

তবে পর্যটন ব্যবসায়ী ও প্যাসিফিক এশিয়া ট্রাভেল অ্যাসোসিয়েশন (পাটা) বাংলাদেশ চ্যাপ্টারের মহাসচিব মো. তৌফিক রহমান মনে করছেন, দক্ষিণাঞ্চলে পর্যটনকেন্দ্রিক সুশৃঙ্খল ব্যবস্থাপনাই এখন সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ। তিনি বলেন, এতদিন মূল সমস্যাটা ছিল যাতায়াত। আরেকটা বড় সমস্যা থাকার ভালো ব্যবস্থাপনা নেই। এটা নিয়ে ভাবতে হবে। ভালো খাবারের জায়গাও নেই। ট্যুরিস্ট অ্যাট্রাকশনের জন্য এসব ক্ষেত্রেই সুশৃঙ্খল ব্যবস্থাপনা থাকতে হবে।


আরও খবর



রিজার্ভ নিয়ে শংকিত নই.. কৃষিমন্ত্রী

প্রকাশিত:রবিবার ০৭ আগস্ট ২০২২ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ০৯ আগস্ট ২০২২ |
Image

‌কু‌মিল্লা ব্যুরো ঃ

কৃষিমন্ত্রী  ও আওয়ামীলী‌গের প্রেসি‌ডিয়াম সদস‌্য ড. মোঃ আবদুর রাজ্জাক বলেছেন, আমরা রিজার্ভ নিয়ে শংকিত নই, কিন্তু ভবিষ্যতে কিছু হতে পারে তাই আমরা সাবধান আছি। চলমান মেগাপ্রকল্প গুলো চলবে, আর যে গুলো খুব জরুরী নয় সেগুলো ধীরগতিতে চলবে।

তিনি রোববার দুপু‌রে কুমিল্লা জেলা শিল্পকলা একাডেমিতে বাংলাদেশ ধান গবেষণা ইন্সটিটিউটের চট্টগ্রাম , সিলেট ও কুমিল্লা অঞ্চলের কৃষি সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের কর্মশালায় সাংবাদিকদের সাথে মতবিনিময় কালে তিনি এসব কথা বলেন।