Logo
শিরোনাম

চালু হচ্ছে ভার্চুয়াল বিজনেস প্রেজেন্স প্ল্যাটফর্ম

প্রকাশিত:বুধবার ১১ মে ২০২২ | হালনাগাদ:সোমবার ১৬ মে ২০২২ | ৪৬জন দেখেছেন
Image

বাংলাদেশে ব্যবসা করার সুযোগ সৃষ্টির লক্ষ্যে মেটা ভার্সন কিংবা ভার্চুয়াল বিজনেস প্রেজেন্স প্ল্যাটফর্ম প্রবর্তন করা হচ্ছে বলে জানিয়েছেন তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক।

তিনি বলেন, অনেক ব্যবসায়ীর পক্ষেই সরাসরি গিয়ে ব্যবসা পরিচালনা করা সম্ভব হয় না। সে কারণে এই প্ল্যাটফর্মের মাধ্যমে ব্যবসায়ীরা বাংলাদেশে না গিয়ে বিদেশ থেকেই বাংলাদেশের মাটিতে ব্যবসা বা বিনিয়োগ করতে পারবেন।

প্রতিমন্ত্রী গত সোমবার নিউ ইয়র্কের ট্রাম্প ভবনে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের অধীন বাংলাদেশ হাই-টেক পার্ক কর্তৃপক্ষের উদ্যোগে আয়োজিত ‘ডিজিটাল বাংলাদেশ আইটি ইনভেস্টমেন্ট সামিট’-এ বিশেষ অতিথির বক্তৃতায় এসব কথা বলেন।

সম্মেলনে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক। এছাড়া সংসদ সদস্য অপরাজিতা হক এবং নাহিদ খান, প্রধানমন্ত্রী কার্যালয়ের এসডিজিবিষয়ক মুখ্য সমন্বয়ক জুয়েনা আজিজ এবং বাংলাদেশ ইনভেস্টমেন্ট ডেভেলপমেন্ট অথরিটি’র চেয়ারম্যান সিরাজুল ইসলাম এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত শহিদুল ইসলাম, নিউইয়র্কে কনসাল জেনারেল মনিরুল ইসলাম অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন বাংলাদেশ হাই-টেক পার্ক কর্তৃপক্ষের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ডা. বিকর্ণ কুমার ঘোষ। এতে বাংলাদেশ ও ইউএস এর আইটি/আইটিইএস খাতের ব্যবসায়ীরা অংশ নেন।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, প্রধানমন্ত্রীর আইসিটিবিষয়ক উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ জয়ের দিকনির্দেশনায় ২০২৫ সালের মধ্যে আইটি সেক্টরে ৩০ লক্ষ তরুণ-তরুণীর কর্মসংস্থান সৃষ্টি, শতভাগ ই-সার্ভিস প্রদান, ২০৩১ সালের মধ্যে ২৬তম বৃহত্তম অর্থনীতির দেশ ও ২০৪১ সালের মধ্যে জ্ঞানভিত্তিক, অগ্রসরমান অর্থনীতি, উদ্ভাবনী ও স্মার্ট বাংলাদেশ বিনির্মাণ করা এবং মাথাপিছু ১২ হাজার মার্কিন ডলার আয়ের লক্ষমাত্রা নিয়ে এখন আমরা কাজ করছি।

সম্মেলনে প্রবাসী বাংলাদেশি মি. ববি বাংলাদেশের হাই-টেক পার্কে ১৫ মিলিয়ন ডলার বিনিয়োগ করার ঘোষণা দেন।


বিজ্ঞপ্তি


আরও খবর



ঈদের ৫ নাটকে থাকছে পড়শীর গান

প্রকাশিত:শুক্রবার ২৯ এপ্রিল ২০২২ | হালনাগাদ:সোমবার ১৬ মে ২০২২ | ২৮০জন দেখেছেন
Image

মুসলমানদের সবচেয়ে বড় এই উৎসবকে ঘিরে শোবিজ পাড়া সরগরম। নতুন গান, নাটক, সিনেমা এসব নিয়ে জমজমাট রঙিন বিনোদন জগত। শিল্পীরা পার করছেন চূড়ান্ত ব্যস্ত সময়। ব্যতিক্রম নন কণ্ঠশিল্পী সাবরিনা পড়শীও। তিনি এবারের ঈদে একাধিক ভূমিকায় ভক্তদের সামনে হাজির হচ্ছেন। এর মধ্যে চমকপ্রদ খবর হলো, একটি নাটকে অভিনয় করেছেন তিনি। যেখানে তাকে কলকাতার অভিনেতা ঋষি কৌশিকের সঙ্গে দেখা যাবে।

এবার গায়িকা জানালেন, কেবল অভিনয়ে নয়, গায়িকা হিসেবেও ঈদে থাকছেন তিনি। এই ঈদের পাঁচটি নাটকে গান গেয়েছেন পড়শী। যা ভক্তদের জন্য তার মূল উপহার বলে মনে করছেন তিনি। এক নজরে জেনে নেওয়া যাক, কোন কোন নাটকে পড়শীর গান থাকছে…

নাটকের নাম ‘নসিব’। নির্মাণ করেছেন মহিদুল মহিম। এতে অভিনয় করেছেন মুশফিক আর ফারহান ও কেয়া পায়েল। এতে পড়শী গেয়েছেন ‘একটা গল্প শোন’ শিরোনামের গান। তার সহশিল্পী আভরাল সাহির। এম এ আলম শুভর লেখা গানটির সুর-সংগীত করেছেন আভরাল সাহির। এটি দেখা যাবে ইউটিউবে সুলতান এন্টারটেইনমেন্ট চ্যানেলে। নাটকের নাম ‘হাঙর’। পরিচালনা করেছেন মাহমুদ মাহিন। অভিনয়ে আছেন মুশফিক আর ফারহান ও সামিরা খান মাহি। গানের শিরোনাম ‘আকাশ হবো তোমার’। এটি লেখা, সুর-সংগীতের পাশাপাশি পড়শীর সঙ্গে কণ্ঠও দিয়েছেন আভরাল সাহির। এই নাটকটিও আসবে সুলতান এন্টারটেইনমেন্টে।

নাটকের নাম ‘ওয়েডিং’। জাকারিয়া সৌখিন পরিচালিত এ নাটকে অভিনয় করেছেন মুশফিক আর ফারহান ও তানজিন তিশা। এতে পড়শী ও আভরাল সাহির জুটি হয়ে গেয়েছেন ‘পারব না’ শিরোনামের গান। লিখেছেন রবিউল ইসলাম জীবন। সুর-সংগীতে আভরাল সাহির। নাটকটি দেখা যাবে সিএমভি ইউটিউব চ্যানেলে। নাটকের নাম ‘মারিয়া ওয়ান পিস’। নির্মাণে সাজিন আহমেদ বাবু। অভিনয়ে আছেন পড়শী ও ঋষি কৌশিক। নাটকটিতে ‘এই প্রথম বার’ শীর্ষক গানে কণ্ঠ দিয়েছেন পড়শী। লিখেছেন এম এ আলম শুভ। সুর-সংগীতে আভরাল সাহির। এটি দেখা যাবে আরটিভিতে।
নাটকের নাম ‘প্রিয়জন’। পরিচালনা করেছেন মহিদুল মহিম। অভিনয়ে জিয়াউল ফারুক অপূর্ব ও সাবিলা নূর। পড়শী ও সাগর গেয়েছেন ‘তবে চল বলি এই পৃথিবীটাকে’ শিরোনামের গান। স্নেহাশিস ঘোষের লেখা গানটির সুর করেছেন ইমরান মাহমুদুল। সংগীতায়োজনে তন্ময়। ঈদে সিএমভি ইউটিউব চ্যানেলে প্রচার হবে এটি।


আরও খবর

এবার চলচ্চিত্রে ধোনী

শুক্রবার ১৩ মে ২০২২




মুক্তিযোদ্ধা সন্তান সংসদ কেন্দ্রীয় কমান্ড কাউন্সিলের যুগ্ম মহাসচিব নির্বাচিত হয়েছেন মহিব উল্যাহ

প্রকাশিত:শনিবার ২৩ এপ্রিল ২০২২ | হালনাগাদ:সোমবার ১৬ মে ২০২২ | ৯৬জন দেখেছেন
Image

অনুপ সিংহ,নোয়াখালী প্রতিনিধিঃ বাংলাদেশ মুক্তিযোদ্ধা সন্তান সংসদ কেন্দ্রীয় কমান্ড কাউন্সিলের যুগ্ম মহাসচিব নির্বাচিত হয়েছেন মহিব উল্যাহ নিলয়।

শুক্রবার বাংলাদেশ মুক্তিযোদ্ধা সন্তান সংসদ কেন্দ্রীয় কমান্ড কাউন্সিলের চেয়ারম্যান মোঃ সোলায়মান মিয়া এবং মহাসচিব মোঃ শফিকুল ইসলামের স্বাক্ষরিত এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে তথ্য নিশ্চিত হওয়া যায়। প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে মহিব উল্যাহ নিলয়কে যুগ্ম মহাসচিব পদে মনোনীত করা হয়। পাশাপাশি গঠনতন্ত্রের কলাম ৭ মোতাবেক সকল শর্ত অনুযায়ী সাংগঠনিক কাজ করতে বলা হয়। প্রতি শুক্রবার বিকেলে কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে সভায়  উপস্থিত থাকতে বলা হয়।

মহিব উল্যাহ নিলয় নোয়াখালী জেলার সোনাইমুড়ী উপজেলার আমিশাপাড়া ইউনিয়নের আনিসাপাড়া গ্রামের বীর মুক্তিযোদ্ধা গোলাম মোস্তফার ছেলে। এছাড়াও তিনি সোনাইমুড়ী উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সন্তান সংসদ কমান্ড কাউন্সিলের যুগ্ম আহ্বায়ক ও কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন। বর্তমানে দায়িত্ব পালন করছেন সোনাইমুড়ী উপজেলা ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি হিসেবে। 

মুক্তিযোদ্ধা সন্তান সংসদ কমান্ড কাউন্সিল মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের সমস্যার সমাধান ও তাদের ন্যায্য অধিকার আদায়ে ভূমিকা রাখে। পাশাপাশি অস্বচ্ছল মুক্তিযোদ্ধাদের সার্বিক সহযোগিতা করে থাকে। সামাজিক দ্বায়বদ্ধতার কাজে অংশিদারিত্ব করে থাকে।


আরও খবর



পি কে হালদারের ব্যাপারে আনুষ্ঠানিক তথ্য পেলে ব্যবস্থা

প্রকাশিত:রবিবার ১৫ মে ২০২২ | হালনাগাদ:সোমবার ১৬ মে ২০২২ | ১৩জন দেখেছেন
Image

কুখ্যাত অর্থপাচারকারী পিকে হালদার পশ্চিমবঙ্গে পুলিশের হাতে গ্রেপ্তার হয়েছেন। এর প্রতিক্রিয়ায় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল বলেছেন, পি কে হালদার বাংলাদেশের ওয়ান্টেড ব্যক্তিত্ব। আমরা ইন্টারপোলের মাধ্যমে তাকে অনেকদিন ধরেই চাচ্ছি। সে অ্যারেস্ট হয়েছে। আমাদের কাছে এখনও অফিশিয়ালি দেশে আসেনি। আমাদের যা কাজ তা আইনগতভাবে আমরা করব।

জাতীয় প্রেসক্লাবের তফাজ্জল হোসেন মানিক মিয়া হলে ‘শেখ হাসিনার স্বদেশ প্রত্যাবর্তন: ইতিহাসের পুনর্নির্মাণ শীর্ষক’ এক সেমিনারে তিনি একথা বলেন। ‘বাংলাদেশ প্রগতিশীল কলামিস্ট ফোরাম’ নামে একটি সংগঠন এই সেমিনারের আয়োজন করে।

আসাদুজ্জামান খান কামাল বলেন, প্রধানমন্ত্রী আজকের আধুনিক বাংলাদেশ করে দিয়েছেন। আজ যেখানেই যাই সেখানেই আমাদের প্রথমে জিজ্ঞাসা করে তোমাদের প্রধানমন্ত্রীর কৌশলটা কী? কীভাবে তিনি পরিবর্তনটা আনলেন। আমাদের কাছে শুধু একটি কথাই বলার- তিনি দেশকে ভালোবাসেন, জনগনকে ভালোবাসেন। তিনি একজন দূরদর্শী নেতা।

বঙ্গবন্ধুর দুই কন্যা আজ জীবিত বলেই বাংলাদেশকে এই পর্যায়ে দেখতে পাচ্ছি’ মন্তব্য করে মন্ত্রী বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রীর কথা যখন আসে অনেক কথাই বলতে ইচ্ছে করে। কারণ যেগুলো আমি ব্যক্তিগতভাবে দেখেছি, যেগুলো তার সাথে থেকে আমি জেনেছি। তার যে কঠোর পরিশ্রম তার যে দূরদর্শিতা; এটা কারও সঙ্গে তুলনা হয় না।

বাংলাদেশ প্রগতিশীল কলামিস্ট ফোরামের সভাপতি অধ্যাপক ড. মীজানুর রহমানের সভাপতিত্বে সেমিনারটি আয়োজিত হয়।


আরও খবর



ডিআইজি মিজানের জামিন স্থগিত চেয়ে দুদকের আবেদন

প্রকাশিত:সোমবার ১৮ এপ্রিল ২০২২ | হালনাগাদ:রবিবার ১৫ মে ২০২২ | ৯১জন দেখেছেন
Image

ঘুস লেনদেনের মামলায় তিন বছর দণ্ডিত পুলিশের বরখাস্ত হওয়া উপমহাপরিদর্শক (ডিআইজি) মিজানুর রহমানের জামিন স্থগিত চেয়ে আবেদন করেছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)।

সোমবার আপিল বিভাগের চেম্বার আদালতে এ আবেদন করা হয়েছে। এ তথ্য জানিয়েছেন দুদকের আইনজীবী খুরশিদ আলম খান। গত ১৩ এপ্রিল ঘুস লেনদেনের মামলায় তিন বছরের কারাদণ্ডপ্রাপ্ত মিজানুর রহমানকে দুই মাসের জামিন দেন হাইকোর্ট। বিচারপতি মো. মোস্তাফিজুর রহমানের হাইকোর্ট বেঞ্চ এ আদেশ দেন।

আদালতে মিজানের পক্ষে শুনানি করেন ব্যারিস্টার মাহবুব শফিক। দুদকের পক্ষে ছিলেন আইনজীবী খুরশিদ আলম খান।
এর আগে ৬ এপ্রিল ঘুস লেনদেনের মামলায় তিন বছরের কারাদণ্ডপ্রাপ্ত ডিআইজি মিজানুর রহমানের খালাস চেয়ে আপিল শুনানির জন্য গ্রহণ করেন হাইকোর্ট।

এর আগে গত ৪ এপ্রিল নিম্ন আদালতের রায়ের বিরুদ্ধে হাইকোর্টে আপিল করেন ডিআইজি মিজানুর রহমান। আপিলে তিনি তিন বছরের সাজা থেকে খালাস চেয়েছেন।

গত ২৩ ফেব্রুয়ারি ঘুস নেওয়ার কারণে দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) করা মামলায় দুদকের বরখাস্ত পরিচালক খন্দকার এনামুল বাছিরকে আট বছর ও পুলিশের বরখাস্ত উপমহাপরিদর্শক (ডিআইজি) মিজানুর রহমানকে তিন বছর কারাদণ্ড দেন আদালত।

৪০ লাখ টাকার ঘুস কেলেঙ্কারির অভিযোগে ২০১৯ সালের ১৬ জুলাই দুদকের ঢাকা সমন্বিত জেলা কার্যালয়-১ এ দুদকের পরিচালক শেখ মো. ফানাফিল্লাহ বাদী হয়ে মামলাটি করেছিলেন। ২০২০ সালের ১৯ জানুয়ারি তাদের বিরুদ্ধে আদালতে চার্জশিট দাখিল করেন দুদকের একই কর্মকর্তা।


আরও খবর



ভোগান্তি নিয়েই বাড়ি ছুটছে মানুষ

প্রকাশিত:শুক্রবার ২৯ এপ্রিল ২০২২ | হালনাগাদ:সোমবার ১৬ মে ২০২২ | ৮৩জন দেখেছেন
Image

মাকে মনে পড়তেই ছল ছল জল ভেসে উঠে দু’চোখের কোনায়। সবকিছুই তো আছে ঠিকঠাক, কেবল মা নেই। তাই বাড়ির পথে নাড়ির টান আমায় আর ডাকে না। ভারাক্রান্ত মনে কথাগুলো বলছিলেন সহকর্মী এক সাংবাদিক। বলছিলাম মুন্সিগঞ্জের শিমুলিয়া ঘাটের কথা। নাড়ির টানে আজ এখানে ঘরমুখো মানুষের স্রোত।

ঈদের সময় যত ঘনিয়ে আসছে মুন্সীগঞ্জের শিমুলিয়া ফেরি ঘাটে যানবাহনের চাপও ততই বাড়ছে। দক্ষিণাঞ্চলের ২১ জেলার মানুষের ঘরে ফেরার অপেক্ষা শুরু হয়েছে। রাজধানী থেকে অনেকেই পদ্মা পাড়ি দিতে ঘাটে হাজির হয়েছেন।

শুক্রবার ভোর থেকে লৌহজং উপজেলার শিমুলিয়া-বাংলাবাজার নৌরুটে দেখা গেছে মানুষের উপচেপড়া ভিড়। শিমুলিয়া ঘাট থেকে পদ্মা উত্তর সেতু থানা পর্যন্ত চার কিলোমিটার এলাকাজুড়ে হাজারের বেশি যানবাহন ফেরি পারাপারের অপেক্ষায় রয়েছে। প্রচণ্ড রোদে ঘণ্টার পর ঘণ্টা অপেক্ষা করে ভোগান্তিতে পড়েছে যাত্রীরা।

বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌপরিবহন কর্তৃপক্ষের (বিআইডব্লিউটিসি) শিমুলিয়া ঘাটের ব্যবস্থাপক (বাণিজ্য) মো. ফয়সাল জানান, বর্তমানে মোট ১০টি ফেরি পারাপারে কাজ করছে। বাংলাবাজার নৌরুটে সাতটি ও মাঝিরকান্দা নৌরুটে তিনটি ফেরি চলাচল করছে। ঈদ উপলক্ষে যাত্রী পারাপারের সংখ্যা বেড়েছে।

সরেজমিনে দেখা যায়, ঘাটের পাশের মহাসড়কে গাড়ির দীর্ঘ সারি। শুক্রবার ভোর থেকেই ঢাকা থেকে ঘাটে আসতে শুরু করে যানবাহন। বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে সারির দৈর্ঘ্য লম্বা হতে থাকে।

ফেরি সংকট ও সময় মতো ফেরি না ছাড়ায় ঝুঁকি নিয়ে লঞ্চে ও স্পিডবোট যাতায়াত করতে দেখা যায় যাত্রীদের। এতে তাদের বাড়তি টাকাও গুনতে হচ্ছে। বাস, লেগুনা, ব্যাটারিচালিত অটোরিকশা ও মোটরসাইকেলে করে আসা ঘরমুখো মানুষদের লঞ্চ বা স্পিডবোটে নদী পারাপার হতে দেশি দেখা গেছে।

ব্যক্তিগত গাড়ি নিয়ে যশোর যাবেন আতাহার মোল্লা। তিনি বলেন, মধ্যরাতে আগেভাগে রওনা হয়েছি। ২ ঘণ্টা ধরে ঘাটে অপেক্ষা করছি। কখন ফেরিতে উঠব আর নদী পার হতে পারব জানি না।

কলেজছাত্র আরিফিন মোল্লা জানান, ফেরির অপেক্ষায় থাকলে দিন গড়িয়ে রাত হবে। তাই তাড়াতাড়ি বাড়ি যেতে স্পিডবোটে করে পার হবেন নদী। পরে মোটরসাইকেলে করে যাবেন শিবচরে।

নবদম্পতি নাজমুল ও তার স্ত্রী শরবত রওনা হয়েছে ভোরে রাজধানীর মিরপুর ১০ নম্বর থেকে। বাসে করে এক ঘণ্টা ১০ মিনিটে পদ্মাসেতু উত্তর থানা পর্যন্ত আসতে পারলও বাকি চার কিলোমিটার পথ আসতে লেগেছে দেড় ঘণ্টা। এরপর ঘাটে মোটরসাইকেল আরোহীদের কারণে ঘণ্টাব্যাপী চেষ্টার পরও তারা উঠতে পারেননি ফেরিতে।

জলিল হাওলাদার দুই সন্তান ও স্ত্রী নিয়ে ভোরে রওনা হন। বাসে চড়ে পদ্মাসেতুর উত্তর থানার পর্যন্ত আসেন। এরপর ৪ কিলোমিটার হেঁটে ঘাটে এসে বিড়ম্বনায় পড়তে হয় তাদের। যাত্রীতে ঠাসা ঘাট এলাকা। লঞ্চ, সী-বোট, ফেরি কোথাও তিল ধারণের জায়গা নেই।

জলিল হাওলাদার বলেন, কয়েক কিলোমিটার পথ হেঁটে ঘাটে আইসা দেখি হাজার হাজার মানুস। কখন লঞ্চে উঠমু, বাড়িতে যামু ঠিক নাই। স্পিডবোটে যাওয়ার টাকা নাই।

বিআইডব্লিউটিএ শিমুলিয়া ঘাটের নৌ নিরাপত্তা ও ট্রাফিক ব্যবস্থাপনা বিভাগের সহকারী পরিচালক মো. শাহাদাত হোসেন জানান, লঞ্চ ও স্পিডবোটে যাত্রী পারাপারের সংখ্যা বেড়েছে। ফেরির জন্য দীর্ঘক্ষণ অপেক্ষা না করে মানুষ লঞ্চ ও স্পিডবোটে যাতায়াত করছে। ভোর থেকে ১৫৫টি স্পিডবোট ও ৮৭টি লঞ্চ চলাচল করছে।


আরও খবর