Logo
শিরোনাম
রাজধানীর সেতু ভবনে আগুন কমপ্লিট শাটডাউন : ঢাকাসহ সারা দেশে বিজিবি মোতায়েন জয়পুরহাটের পাঁচবিবিতে নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে ইট বোঝায় ট্রাক খাদে কুষ্টিয়ায় আন্দোলনকারী ও ছাত্রলীগের মধ্যে সংঘর্ষ -কয়েকটি মোটর সাইকেলে আগুন পুঠিয়ায় আ’লীগের বিক্ষোভ মিছিল ও প্রতিবাদ সভা লালমনিরহাটে অনুষ্ঠিত হয়েছে তিস্তা সমাবেশ বেনাপোল স্থল বন্দর দিয়ে মিথ্যা ঘোষণায় আমদানি করা হয়েছে ১৮ কোটি টাকার সালফিউরিক এসিড কুমারখালীতে মহাসড়ক অবরোধ করে শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভ, আহত-২ শরণখোলায় নার্সের চিকিৎসার অবহেলায় এক রোগীর মৃত্যুর অভিযোগ শেরপুরে কোটাবিরোধী শিক্ষার্থী-ছাত্রলীগের সংঘর্ষ, সাংবাদিকসহ আহত-২০

ডেঙ্গুতে বাড়ছে আক্রান্ত ও মৃত্যু, স্যালাইন সংকট

প্রকাশিত:বুধবার ০৯ আগস্ট ২০২৩ | হালনাগাদ:রবিবার ২১ জুলাই ২০২৪ |

Image

রোকসানা মনোয়ার : দেশে ভয়াবহ আকার ধারণ করেছে ডেঙ্গু পরিস্থিতি। প্রতিদিন মৃতের সংখ্যাটা বেড়েই চলেছে। আক্রান্তের তালিকাটাও লম্বা হচ্ছে। ডেঙ্গু আক্রান্ত রোগীর পানিশূন্যতা ও রক্তের ঘনত্ব স্বাভাবিক রাখতে তাদের শিরায় স্যালাইন দিতে হয়। আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে যাওয়ায় স্যালাইনের চাহিদা কয়েক গুণ বেড়ে গেছে। এর ফলে ডেঙ্গু চিকিৎসায় ব্যবহৃত পণ্যটির সংকট দেখা দিয়েছে। বিশেষত রাজধানীর ফার্মেসিগুলো থেকে এক প্রকার উধাও হয়ে গেছে স্যালাইন। তবে হাসপাতালে কোনো সংকট নেই বলে জানিয়েছে কর্তৃপক্ষ।

রোগীরা আশঙ্কা করছেন, যেভাবে রোগী বাড়ছে তাতে হাসপাতালে সরকারি খরচে দেওয়া আইভি ফ্লুইড সরবরাহ যেকোনো সময় বন্ধ হয়ে যেতে পারে। এতে ডেঙ্গুর চিকিৎসায় ব্যবহার করা স্যালাইনের সংকট তীব্র হতে পারে।

প্রধানত শিরায় চার ধরনের স্যালাইন দেওয়া হয়। এর মধ্যে রয়েছে সাধারণ পানির ঘাটতি পূরণ, গ্লুকোজ স্যালাইন, হৃদরোগীদের স্যালাইন এবং ডায়রিয়া-কলেরা রোগীদের স্যালাইন। এর মধ্যে প্রথমটি বা সাধারণ স্যালাইন ডেঙ্গু চিকিৎসায় ব্যবহৃত হয়। দেশে যে হারে ডেঙ্গু আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা বাড়ছে তাতে হাসপাতালগুলোতে স্যালাইন সংকটের আশঙ্কা দেখা দিতে পারে। ইতোমধ্যে ওষুধের দোকানে পাওয়া যাচ্ছে না ডেঙ্গুর চিকিৎসায় ব্যবহৃত পণ্যটির।

রাজধানীর শাহবাগ, ঢাকা মেডিকেল কলেজ এলাকা ও মগবাজারের বিভিন্ন ফার্মেসি ঘুরে স্যালাইনের তীব্র সংকটের চিত্র দেখা গেছে। বিক্রেতাদের দাবি, গত দুই সপ্তাহ ধরে তাদের কাছে স্যালাইনের সরবরাহ নেই। তবে বিভিন্ন হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ বলছে, বাজারে স্যালাইনের সংকট থাকলেও হাসপাতালে কোনো সংকট নেই।

রাজধানীর বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের এফ ব্লকের দুতলায় স্থাপিত ডেঙ্গু কর্নারে সরজমিনে ঘুরে দেখা যায়, হাসপাতালে অবস্থান করা প্রায় প্রত্যেক রোগীকে শিরায় দেওয়া স্যালাইন দেওয়া হচ্ছে। বেশিরভাগ রোগীর সরকারি স্যালাইন চললেও অনেকে বাইরে থেকে কেনা স্যালাইন দিচ্ছেন।

মহিলা ওয়ার্ডের ১০ নম্বর বেডে চিকিৎসা নিচ্ছেন কোহিনূর বেগম। আশুলিয়া থেকে আসা পঞ্চাশোর্ধ্ব এই নারী ডেঙ্গু ছাড়াও ডায়াবেটিস ও লিভারজনিত রোগে ভুগছেন। কথা বলার সময় তার শিরায় ৫০০ মিলি লিটারের স্যালাইন চলছিল, যেটি বাইরে থেকে কেনা। ওই সময় পাশের স্ট্যান্ডেই আগে ব্যবহার করা একটি সরকারি স্যালাইনের খালি প্যাকেট ঝুলতে দেখা যায়।

জানতে চাইলে কোহিনূরের এক স্বজন বলেন, সাধারণত হাসপাতাল থেকেই স্যালাইন দেয়। না থাকলে বাইরে থেকে আনতে হয়।

মিরপুর থেকে হাসপাতালটিতে আসা প্রিয়াঙ্কা তালুকদারের মেয়ে বলেন, তার মা গত চারদিন ধরে ডেঙ্গুতে আক্রান্ত। প্রাথমিক অবস্থায় বাসায় থেকে চিকিৎসা নিলেও হঠৎ তার (প্রিয়াঙ্কা তালুকদার) প্রচণ্ড বমি হওয়ায় ডেঙ্গু শনাক্তের তৃতীয় দিনে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। হাসপাতালে আসার পর থেকে মোট দুটি স্যালাইন দেওয়া হয়েছে। হাসপাতালের পক্ষ থেকে ওষুধ দেওয়া হলেও দুটি স্যালাইন বাইরে থেকে কিনতে হয়েছে।

তবে বাইরে থেকে স্যালাইন কিনে আনার তথ্য অসত্য দাবি বলে দাবি করেছেন কর্তব্যরত কয়েকজন নার্স। তাদের দাবি, হাসপাতাল থেকেই স্যালাইনসহ রোগীর সব কিছু দেওয়া হচ্ছে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক নার্সিং কর্মকর্তা বলেন, যত সেবা বা সুযোগ সুবিধাই দেওয়া হোক না কেন, রোগীদের অভিযোগ থাকবেই। রোগীদের কোনো স্যালাইন বাইরে থেকে কিনতে হচ্ছে না। আমাদের স্টকে পর্যপ্ত স্যালাইন আছে।

সরকারি লোগো ছাড়া স্যালাইনের প্রসঙ্গে জানতে চাইলে তিনি বলেন, প্রত্যেকটি স্যালাইনেই সরকারি লোগো আছে। বাইরের যেগুলো দেখেছেন, ভালো করে লক্ষ্য করে দেখবেন সেগুলোর গায়েও সিল দেওয়া আছে। চাহিদা বাড়ায় সরকারি প্রতিষ্ঠানের বাইরেও স্যালাইন কেনা হচ্ছে। ফলে সাধারণ দৃষ্টিতে মনে হতে পারে বাইরের কিন্তু আসলে সেগুলো আমাদেরই দেওয়া।

এছাড়া নতুন ভর্তি হওয়া অনেক রোগীদের নামে বরাদ্দ চালু না হওয়ায় এবং অনেকে অপেক্ষা করতে রাজি না হওয়ায় তারা নিজ উদ্যোগে স্যালাইন কিনে আনছেন বলেও দাবি করে তিনি। বিএসএমএমইউর আশপাশের কোনো ফার্মেসিতে স্যালাইন নেই বলে জানান কর্তব্যরত ওই নার্সিং কর্মকর্তা।

একই চিত্র ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালেও। সেখানে ঘুরে দেখা গেছে, রোগীদের সিংহভাগই স্যালাইন পাচ্ছে হাসপাতাল থেকে। তবে বিশেষ কারণে কয়েকজন রোগীকে স্যালাইন কিনতে হচ্ছে ফার্মেসি থেকে।

ঢামেকে স্যালাইন সংকট নেই জানিয়ে হাসপাতালটির পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল নাজমুল হক বলেন, আমাদের এখন প্রতি মাসে এক লাখ ব্যাগ স্যালাইন লাগে। ডেঙ্গু আসার পর থেকে ৪০-৪৫ হাজার ব্যাগ বেশি লাগছে। অর্থাৎ প্রতিদিন রোগী ভেদে স্যালাইন প্রয়োজন হচ্ছে তিন থেকে সাড়ে তিন হাজার ব্যাগ। এখন পর্যন্ত হাসপাতালে স্যালাইনের কোনো সংকট নেই। রোগীদের প্রয়োজনীয় স্যালাইন হাসপাতাল থেকেই দেওয়া হচ্ছে।

বাজারে নেই স্যালাইন : বিএসএমএমইউর সরেজমিনকালে একজন নার্সিং কর্মকর্তা বলেন, হাসপাতালটির আশপাশের কোনো ফার্মেসিতে শিরায় প্রয়োগ করা সাধারণ স্যালাইন নেই। এটি প্রমাণে তিনি একটি কাগজে ৫০০ মিলির স্যালাইনের চাহিদার কথা লিখে দেন। সেটি নিয়ে হাসপাতালটির আশপাশের আট থেকে দশটি দোকান ঘুরলেও কোথাও স্যালাইন পাওয়া যায়নি। এর মধ্যে বিএসএমএমইউর পাশের মেডিসিন মার্কেটের জনপ্রিয় ফার্মেসিতে ১০০০ মিলির স্যালাইন পাওয়া গেলেও ৫০০ মিলির স্যালাইন পাওয়া যায়নি।

বাজারে স্যালাইন নেই জানিয়ে ব্যবসায়ীরা বলেন, ডেঙ্গুর কারণে চাহিদা বেড়েছে। ফলে গত দুই সপ্তাহ ধরে সরবরাহ নেই। অনেক ক্রেতা কিনতে চাইলেও তারা দিতে পারছেন না।

কারণ হিসেবে শাহবাগের সরকার ফার্মেসির স্বত্ত্বাধিকারি বলেন, ডেঙ্গু রোগীর চাপ বাড়ায় কোম্পানিগুলো ফার্মেসিতে না দিয়ে সরাসরি হাসপাতালকে স্যালাইন দিচ্ছে। ফলে আমাদের সাপ্লাই নাই।

একই চিত্র ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল এলাকার ওষুধের দোকানগুলোতেও। বিক্রেতারা বলছেন, গত এক সপ্তাহের অধিক সময়ে সাপ্লাই নেই। ফলে ক্রেতারা আসলেও আমরা দিতে পারছি না। মূলত হাসপাতালে চাহিদা বাড়ায় কোম্পানিগুলো তাদের সরবরাহ করছে।

যা বলছে কর্তৃপক্ষ : দেশের বিভিন্ন মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল, সরকারি হাসপাতালগুলোতে ওষুধ ও স্যালাইন সরবরাহ করে এসেনশিয়াল ড্রাগস কোম্পানি লিমিটেড (ইডিসিএল)। তবে প্রতিষ্ঠানটির স্যালাইনের নিজস্ব উৎপাদন না থাকায় বিভিন্ন বেসরকারি কোম্পানি থেকে তা কিনে হাসপাতালগুলোতে সরবরাহ করে।

এ বিষয়ে ইডিসিএল ব্যবস্থাপনা পরিচালক অধ্যাপক ডা. এহসানুল কবির বলেন, গত বছর ৬০ লাখ ব্যাগ স্যালাইনের চাহিদা ছিল। এখন স্বাভাবিক সময়ের তুলনায় চাহিদা ১০ গুণের বেশি বেড়েছে। এ চাহিদা পূরণ করেছে বেক্সিমকো, স্কয়ার, একমি, পপুলার, ওরিয়ন, লিব্রা ও অপসোনিন। রেশনিং প্রক্রিয়ায় হাসপাতালগুলোকে স্যালাইন সরবরাহ করা হচ্ছে।

সরকারি-বেসরকারি হাসপাতালগুলোতে যেন স্যালাইন সংকট না হয়, সেজন্য স্বাস্থ্য অধিদফতর ইতোমধ্যেই ব্যবস্থা নিয়েছে বলে জানিয়েছেন অধিদফতরের এমআইএস শাখার পরিচালক অধ্যাপক ডা. মো. শাহাদাত হোসেন।

গত ৬ আগস্ট এক সংবাদ সম্মেলনে শাহাদাত হোসেন বলেন, এই সংকটের দায় স্বাস্থ্য অধিদফতরের একার নয়। এ বিষয়ে ড্রাগ অ্যাডমিনিস্ট্রেশনকে জানানো হয়েছে। কেন সংকট ও কোথায় দাম বেশি রাখা হচ্ছে এ বিষয়ে স্বাস্থ্য অধিদফতর তদারকি করছে।

 


আরও খবর



স্পেনের বার্সেলোনায় শাকিবের 'তুফান' দেখল একজন দর্শক

প্রকাশিত:রবিবার ৩০ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ১৮ জুলাই ২০২৪ |

Image



বিনোদন ডেস্ক:


দেশে দারুণ সাফল্যের পরে বিশ্বের ১৫টি দেশে মুক্তি পেয়েছে শাকিব খানের নতুন ছবি ‘তুফান’। তবে রায়হান রাফী পরিচালিত এই সিনেমাটি বিভিন্ন দেশে সিনেমাটি দর্শকমহলে বেশ সাড়া ফেললেও ভিন্ন চিত্র দেখা গেল স্পেন-এর বার্সেলোনার একটি থিয়েটারে। 



বার্সেলোনার একটি থিয়েটারে শতাধিক আসনের থিয়েটারে মাত্র একজন দর্শক এই সিনেমা দেখেছেন। শনিবার বিকেলে ফারিয়া আক্তার আনিতা নামের এক তরুণীর সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে দেওয়া এক পোস্টে এমন একটি চিত্রের দেখা মিলেছে।



ভিডিওতে ওই তরুণীকে বলতে শোনা যায়, আমি শাকিব খানের বড় একজন ভক্ত। এই মুহূর্তে তার ‘তুফান’ দেখছি বার্সেলোনা। আই লাভ মুভি। আমি ‘তুফান-২’-এর অপেক্ষায় আছি। পুরো থিয়েটারে আমি একাই কিন্তু, আমি কিছু মনে করছি না (হাহাহা)।


ভিডিওতে, আনিতা বাদে কাউকে থিয়েটারে দেখা যায়নি। তবে তিনি বেশ উপভোগ করেছেন সিনেমাটি সেটাও জানিয়েছেন।



আনিতা আরও লেখেন, ‘এটা সত্যিই ভালো মুভি, মানুষের দেখা উচিত। এই মুহূর্তে শাকিবের অভিনয় দক্ষতা এখন বলিউড অভিনেতাদের চেয়েও ভালো।’




আমেরিকা, কানাডা, অস্ট্রেলিয়া, যুক্তরাজ্য, ফ্রান্স, বেলজিয়াম, সুইডেন, জার্মানি, নেদারল্যান্ডস, স্পেন, পর্তুগাল, আবুধাবি, বাহরাইন, কাতার, ওমানের শতাধিক থিয়েটারে মুক্তি পেয়েছে ‘তুফান’।


আরও খবর



শাশুড়িকেও বিলাসবহুল ডুপ্লেক্স বাড়ি উপহার দেন এনবিআর কর্মকর্তা মতিউর

প্রকাশিত:রবিবার ২৩ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:রবিবার ২১ জুলাই ২০২৪ |

Image


বিডি টুডেস ডেস্ক:


১৫ লাখ টাকায় একটি ছাগল কিনতে গিয়ে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ভাইরাল হওয়া মুশফিকুর রহমান ইফাত জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) সদস্য মতিউর রহমানেরই ছেলে। এতে কোন সন্দেহ নেই।



 ইফাতের দুই মামা ও একাধিক নিকটাত্মীয় বিষয়টি ইতিমধ্যে নিশ্চিত করেছেন। সেই ছেলে ও স্ত্রী শাম্মী আখতার শিবুর অনুরোধে শ্বশুর বাড়িতে শাশুড়িকে ১০ বছর আগে একটি বিলাসবহুল ডুপ্লেক্স বাড়ি বানিয়ে উপহার দেন মতিউর রহমান। 



মতিউর রহমানের শ্বশুর বাড়ি সোনাগাজী উপজেলার আমিরাবাদ ইউনিয়নের সোনাপুর এলাকায়। তবে স্থানীয়রা বাড়িটিকে মিয়া বাড়ি হিসেবে চিনেন।


যদিও মতিউর রহমান গণমাধ্যমে দাবি করেছেন, ইফাত তার ছেলে নয়। এ বিষয়ে পরিবারটির ঘনিষ্ঠজনেরা বলছেন, ব্যাপক আলোচনা-সমালোচনার কারণে মতিউর রহমান ছেলেকে অস্বীকার করছেন। কারণ, ১৫ লাখের ছাগলকে কেন্দ্র করে ভাইরাল হওয়ার পর ইফাতের দামি ব্র্যান্ডের ঘড়ি, গাড়ি, আলিশান জীবনযাপনের নানা বিবরণ সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে প্রকাশ পাচ্ছে। 



সরকারি চাকরজীবী বাবার বেতনের টাকা দিয়ে ছেলে কীভাবে এমন ব্যয়বহুল জীবনযাপন করতে পারে, তা নিয়েও নানা প্রশ্ন উঠতে থাকে। এ অবস্থায় পরিস্থিতি সামাল দিতে তিনি তাৎক্ষণিকভাবে ছেলের পরিচয় এড়িয়ে যাওয়ার চেষ্টা করেছেন।


মতিউরের বানিয়ে দেওয়া বিলাসবহুল বাড়িটি জসিম উদ্দিন নামে স্থানীয় একব্যক্তি দেখাশোনা করেন। তিনি বলেন, দীর্ঘ ১০-১২ বছর ধরে তিনি এই বাড়িতে থেকে বাড়ি দেখাশোনা করছেন। 



সর্বশেষ গত দুই মাস আগেও এনবিআর কর্মকর্তা মতিউর রহমান স্ত্রী, শাম্মী আখতার শিবু, ছেলে মুশফিকুর রহমান ইফাত ও শাশুড়িকে নিয়ে বাড়িতে এসেছিলেন। দু-একদিন থাকার পর আবার ঢাকায় ফিরে যান। 


মতিউর রহমানের শাশুড়ি বর্তমানে ঢাকায় মেয়েদের বাসায় ও বাড়িতে আসা-যাওয়ার ওপর থাকেন। তিনি এর বেশি কিছু বলতে রাজি হননি।


নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিক ব্যক্তি বলেন, গত বছর কোরবানির ঈদে মতিউরের ছেলে ইফাত কোটি টাকা ব্যয় করে ১৪টি গরু-ছাগল কিনেছিলেন। এর মধ্যে আটটি গরু ও দুটি ছাগল ঢাকায় কোরবানি দিয়েছেন। বাকি চারটি গরু নানার বাড়িতে নিজে এসে জবাই করে আত্মীয়-স্বজন ও গরীবদের মধ্যে বিতরণ করেছেন।


স্থানীয়রা জানায়, মতিউর রহমান ও তার শ্যালক নবিকের নামে ফেনী ও সোনাগাজীতেও বেশ কিছু জমিজমা রয়েছে। যা মতিউরের স্ত্রী শাম্মী আখতারের জেঠাতো ভাই মো. আরিফুর রহমান তাদেরকে কিনে দিয়েছেন। তিনি এই সম্পত্তির দেখাশোনা করেন।


মতিউরের স্ত্রী শাম্মী আখতারের জেঠাতো ভাই মো. আরিফুর রহমান বলেন, এনবিআর কর্মকর্তা মতিউর রহমান তার চাচাতো বোনের স্বামী। মুশফিকুর রহমান ইফাত তাদের একমাত্র সন্তান। শাম্মী আখতারের এক বোন ও এক ভাই রয়েছে। ২৫ বছর আগে মতিউরের সঙ্গে শাম্মী আখতারের বিয়ে হয়। 



বিয়ের এক বছর পর শাম্মী আখতারের বাবা অবসর প্রাপ্ত ব্যাংক কর্মকর্তা মিল্লাত মিয়া মারা যান। এরপর শাম্মীর অনুরোধে মতিউর শাশুড়ি, শালিকা লাভলী আক্তার ও শ্যালক মো. নকিবকে ঢাকায় নিয়ে যান। সেখানে লাভলীকে পড়ালেখা শেষে বিয়ে দেন। 



আর শ্যালক মো. নবিককে বাসায় রেখে লেখাপড়া করান। সম্প্রতি নবিক চীন থেকে ফ্যাশন ডিজাইনের ওপর লেখাপড়া শেষ করে দেশে ফিরে এসে ব্যবসা ও চাকরি শুরু করেন। বর্তমানে তারা রাজধানীর ধানমন্ডি এলাকায় নিজস্ব বাসায় থাকেন। 



তবে স্থানীয়রা বলছে, শ্যালক নকিব ঢাকাসহ বিদেশে মতিউরের ব্যবসা-বাণিজ্যসহ আনুষাঙ্গিক কাজকর্ম দেখাশোনা করেন।


তিনি বলেন, মতিউর হঠাৎ করে একটি ঝামেলায় জড়িয়ে পড়ায় তিনি নিজেকে নির্দোষ ও আড়াল করতে স্ত্রী-সন্তানদের অস্বীকার করছেন। তবে এটা অচিরেই সমাধান হয়ে যাবে। অন্যথায় ডিএনএ পরীক্ষা করলে ইফাতের পিতৃপরিচয় সম্পর্কে পরিস্কার হয়ে যাবে।


 এছাড়া ফেনী ও সোনাগাজীতে মতিউর ও নকিবের পৈত্রিক ছাড়া আর কোন জমিজমা নেই। তিনি তাদেরকে কোন জমিজমা কিনে দেননি বলেও জানান।


শুক্রবার (২১ জুন) সকালে উপজেলার সোনাপুর এলাকায় মিয়া বাড়িতে গিয়ে দেখা যায়, দৃষ্টিনন্দন ডুপ্লেক্স বাড়িটির দরজা বন্ধ। ঘরে কেউ নেই।


এমন সময় দেখা হয় মতিউর রহমানের দ্বিতীয় স্ত্রী শাম্মী আখতার শিবুর জেঠাতো ভাই ও আমিরাবাদ ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান ও উপজেলা যুবলীগের সভাপতি আজিজুল হক হিরনের। 


তিনি বলেন, এনবিআরের সদস্য মতিউর রহমান তার চাচাতো বোনের স্বামী। ইফাত তাদের সন্তান। শাম্মী আখতারের ছোট ভাই ঢাকাতে ব্যবসা করেন। বিভিন্ন সময়ে মতিউর স্ত্রী-সন্তানদের নিয়ে ফেনীর সোনাগাজীতে শ্বশুর বাড়িতে বেড়াতে আসতেন বলেও জানিয়েছেন।


তবে শাশুড়িকে মতিউরের বিলাসবহুল বাড়ি উপহারের বিষয়ে তিনি কোন মন্তব্য করতে রাজি হননি।


আরও খবর



কানে গুলি লেগেছে ট্রাম্পের হামলাকারী শনাক্ত

প্রকাশিত:রবিবার ১৪ জুলাই ২০২৪ | হালনাগাদ:রবিবার ২১ জুলাই ২০২৪ |

Image

যুক্তরাষ্ট্রের সাবেক প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের সমাবেশে হামলার ঘটনা ঘটেছে। এতে সাবেক এই রিপাবলিকান প্রেসিডেন্ট কানে গুলিবিদ্ধ হয়েছেন বলে জানিয়েছেন। খবর বিবিসির।

সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ট্রুথ সোশ্যালে এক পোস্টে ট্রাম্প বলেন, গুলিতে তার ডান কানের ওপরের অংশ ফুটো হয়ে গেছে। তিনি জানান, হঠাৎ আমি শব্দ শুনি, সঙ্গে সঙ্গে বুঝতে পারি অঘটন ঘটেছে। আর তখনই অনুভব করি গুলি আমার চামড়া ফুটো করে দিয়েছে। অনেক রক্ত পড়তে থাকে, আমি তখন বুঝতে পারি কী ঘটেছে।

পোস্টে ট্রাম্প আরো লেখেন, আমি সমাবেশে নিহত ব্যক্তির পরিবারের প্রতি এবং গুরুতর আহত ব্যক্তিদের পরিবারের প্রতি সমবেদনা জানাতে চাই। আমাদের দেশে এমন ঘটনা ঘটতে পারে, তা অবিশ্বাস্য।

হামলার পর দেওয়া প্রথম বক্তব্যে আমেরিকার গোয়েন্দা সংস্থা সিক্রেট সার্ভিস ও অন্য আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেছেন ট্রাম্প। তিনি বলেছেন, দ্রুত প্রতিক্রিয়া দেখানোর জন্য তাদের ধন্যবাদ।

স্থানীয় সময় শনিবার সন্ধ্যা সোয়া ৬টার দিকে আমেরিকার পেনসিলভানিয়ায় নির্বাচনী সমাবেশে ট্রাম্পের ওপর বন্দুক হামলা চালানো হয়। এরই মধ্যে চিকিৎসা নিয়ে হাসপাতাল ছেড়েছেন তিনি।

সন্দেহভাজন এক ব্যক্তি একটি এআর-স্টাইলের রাইফেল দিয়ে ২০০ ফুট থেকে ৩০০ ফুট দূরত্ব থেকে গুলি চালিয়েছিল বলে একাধিক আইন প্রয়োগকারী কর্মকর্তা বিবিসির মার্কিন অংশীদার সিবিএসকে বলেছেন। পুলিশের গুলিতে হামলাকারী নিহত হয়েছেন।

ডোনাল্ড ট্রাম্পের ওপর হামলার ঘটনায় হামলাকারীর পরিচয় শনাক্ত করেছে মার্কিন গোয়েন্দা সংস্থা এফবিআই। বিবিসির লাইভ প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

মার্কিন গোয়েন্দা সংস্থা এক বিবৃতিতে বলেছে, পেনসিলভানিয়ায় ট্রাম্পের জনসভায় হামলাকারীর নাম থমাস ম্যাথু ক্রুকস। ২০ বছর বয়সি থমাস পেনসিলভানিয়ার বেথাল পার্কের বাসিন্দা।

এফবিআই আরো জানিয়েছে, ট্রাম্পকে হত্যার উদ্দেশ্যেই এ হামলা চালানো হয়েছে বলে প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে। তবে এখনো হামলার কারণ জানা যায়নি। তদন্ত চলমান বলে মার্কিন গোয়েন্দা সংস্থার পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে।


আরও খবর



সব বাড়ির মালিককে করের আওতায় আনতে নতুন পরিকল্পনা

প্রকাশিত:শনিবার ২২ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ১৮ জুলাই ২০২৪ |

Image

বিডি টুডে রিপোর্ট:

সিটি করপোরেশনের অধীনে বাড়ির মালিকদের বেশির ভাগেরই নেই করদাতা শনাক্তকরণ নম্বর (টিআইএন)।

 অভিযোগ আছে, করযোগ্য আয় থাকার পরও আয়কর রিটার্ন জমা দেন না তারা। এতে কয়েক হাজার কোটি টাকার রাজস্ব হারাচ্ছে সরকার। এখন তাদের কর ফাঁকি রোধ ও করযোগ্য ব্যক্তি-প্রতিষ্ঠানকে করের আওতায় আনতে নতুন পরিকল্পনা নিয়েছে জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর)। 

জানা গেছে, এনবিআরের পরিকল্পনার অংশ হিসেবে সরকারি-বেসরকারি অন্তত ১৬টি প্রতিষ্ঠানের সিস্টেমে আন্তঃসংযোগ স্থাপনের উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। ২০২৫ সালের মধ্যে ২৫ শতাংশ, ২০৩১ সালের মধ্যে ৫০ শতাংশ এবং ২০৪১ সালের মধ্যে শতভাগ আন্তঃসংযোগ স্থাপনের পরিকল্পনা নেওয়া হয়েছে।

তথ্য বলছে, ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন ও নারায়ণগঞ্জ শহর এলাকায় বিদ্যুত্ সরবরাহকারী প্রতিষ্ঠান ঢাকা পাওয়ার ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানি লিমিটেডের (ডিপিডিসি) বর্তমান গ্রাহক সংখ্যা ১০ লাখ ২১ হাজার। এর মধ্যে মাত্র ৩ লাখ ৬৫ হাজার ব্যক্তির টিআইএন রয়েছে।

 ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন এলাকায় বিদ্যুৎ সরবরাহকারী প্রতিষ্ঠান ঢাকা ইলেকট্রিক সাপ্লাই কম্পানি লিমিটেডের (ডেসকো) বর্তমান গ্রাহকসংখ্যা ১২ লাখ ৪০ হাজার। তাদের আয়করের বিষয়ে সঠিক তথ্য পাওয়া না গেলেও সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা মনে করেন, করজালের বাইরে আছেন অন্তত ৬০-৭০ শতাংশ গ্রাহক। 

এসব এলাকায় বিদ্যুতের গ্রাহক মানেই তারা সবাই বাড়ি বা ফ্ল্যাটের মালিক। অর্থাত্ বাড়ির মালিক হওয়া সত্ত্বেও আয়কর রিটার্ন বা আয়কর দেন না তারা। এটা মাঠ পর্যায়ে সেবা প্রদানকারী মাত্র দুটি সংস্থার চিত্র। সরকারি-বেসরকারি পর্যায়ে গ্রাহকসেবা দিচ্ছে এমন ডজনখানেক সংস্থা। আয়কর কর্মকর্তাদের দাবি, এসব গ্রাহক প্রতি বছর হাজার হাজার কোটি টাকার কর ফাঁকি দিচ্ছেন।

এই রাজস্ব ফাঁকি রোধে এনবিআর তাদের সব সিস্টেমের সঙ্গে তৃতীয় পক্ষ হিসেবে বিদ্যুত্ সরবরাহকারী প্রতিষ্ঠান ডিপিডিসি ও ডেসকো, বিআরটিএ, প্রধান আমদানি ও রপ্তানি নিয়ন্ত্রকের দপ্তর (সিসিআইঅ্যান্ডই), ন্যাশনাল টেলিকমিউনিকেশন মনিটরিং সেন্টার (এনটিএমসি), বিডা, বেপজা, বেজা, বিজিএমইএ, বিকেএমইএ, বাংলাদেশ ব্যাংক, আইবাস, বিভিন্ন তফসিলি ব্যাংক, সিটি করপোরেশন, ভূমি মন্ত্রণালয় ও বিটিআরসিকে যুক্ত করার পরিকল্পনা রয়েছে।

এ প্রসঙ্গে এনবিআরের ঊর্ধ্বতন একজন কর্মকর্তা বলেন, সেবাগ্রহীতাদের প্রযুক্তিনির্ভর সেবা, নির্ভুল তথ্য আদান-প্রদানের মাধ্যমে রাজস্ব ফাঁকি প্রতিরোধ ও রাজস্ব লক্ষ্যমাত্রার হার কয়েক গুণ বৃদ্ধির পরিকল্পনা রয়েছে। এ জন্য সরকারি ও বেসরকারি ১৬টি সংস্থার সিস্টেমে আন্তঃসংযোগ স্থাপন করা হবে। 

এই পরিকল্পনা বাস্তবায়ন করা গেলে করজাল আরো বড় হবে এবং রাজস্ব আদায় বহুগুণ বৃদ্ধি পাবে। বর্তমান ১ কোটি টিআইএন খুব দ্রুত সময়ের মধ্যে দুই থেকে তিন গুণ হয়ে যাবে। বাংলাদেশ সরকার ও বিশ্বব্যাংকের সহায়তায় দ্রুতই এ কার্যক্রম শুরু হবে। শুধু বিদ্যুত্, গ্যাস আর সিটি করপোরেশনের ডাটাবেইসের সঙ্গে আন্তঃসংযোগ করতে পারলেই অন্তত ২ কোটি করদাতা বেরিয়ে আসবেন বলে ধারাণা করছে এনবিআর।

 মূলত আয়কর, ভ্যাট, আমদানি-রপ্তানি ও আবগারি শুল্ক আহরণের কার্যক্রম প্রযুক্তিনির্ভর পরিবীক্ষণ, মূল্যায়ন ও নিয়ন্ত্রণ করতেই এমন পরিকল্পনার পথে হাঁটছে এনবিআর।

করের আওতা বাড়াতে গত কয়েক বছরে বিপুলসংখ্যক ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানকে টিআইএনের আওতায় এনেছে এনবিআর। এ জন্য সরকারি-বেসরকারি ৪৪টি সেবার বিপরীতে রিটার্ন বাধ্যতামূলক করা হয়েছে। যার ইতিবাচক প্রভাব হিসেবে বর্তমানে টিআইএনধারীর সংখ্যা কোটি ছাড়িয়েছে। পাশাপাশি করের আওতা বাড়াতে ও কর ফাঁকি বন্ধ করতে মোটরযান ও নৌযান নিবন্ধন, সব ধরনের ট্রেড লাইসেন্স এবং ঠিকাদার তালিকাভুক্তি কিংবা নবায়নে আয়কর রিটার্ন বাধ্যতামূলক করতে সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয়, নৌপরিবহন এবং বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ মন্ত্রণালয়ের সঙ্গে ২০২২ সাল থেকে চিঠি চালাচালি করে আসছে এনবিআর।

আয়কর আইন-২০২৩ অনুযায়ী ই-টিআইএন থাকলে রিটার্ন দাখিল বাধ্যতামূলক। অর্থাৎ দাখিল না করার সুযোগ নেই। কিন্তু অনেকেই আয় গোপন ও কর পরিহারের উদ্দেশ্যে রিটার্ন দাখিল থেকে বিরত থাকছেন। সর্বশেষ তথ্যানুসারে দেশে টিআইএনধারীর সংখ্যা ১ কোটি ছাড়িয়েছে। যার মধ্যে আয়কর রিটার্ন দাখিল করেছেন ৪১ লাখ ৪৫ হাজার ব্যক্তি।


আরও খবর

রাজধানীর সেতু ভবনে আগুন

বৃহস্পতিবার ১৮ জুলাই ২০২৪




গাজা সিটি ছাড়ার নির্দেশ ইসরাইলি বাহিনীর

প্রকাশিত:বুধবার ১০ জুলাই ২০২৪ | হালনাগাদ:শনিবার ২০ জুলাই ২০24 |

Image

এবার গাজা সিটি ছাড়ার নির্দেশ দিয়েছে ইসরাইলের সামরিক বাহিনী (আইডিএফ)। বুধবার (১০ জুলাই) সকালে লিফলেট ফেলে ওই নির্দেশ দেয়া হয়।

টাইমস অফ ইসরাইলের খবরে বলা হয়, আইডিএফ জানিয়েছে, আজ বুধবার সকালে লিফলেট ফেলে নির্দেশ দেয়া হয়েছে, যেন গাজা সিটির বেসামরিক নাগরিকরা অন্যত্র চলে যায়। এক্ষেত্রে মধ্য গাজার দেইর আল বালাহ শরণার্থী শিবিরকে প্রাধান্য দেয়া যেতে পারে।

নির্দেশনাতে বলা হয়, বেসামরিক নাগরিকরা যেন উপকূলীয় কোনো সড়ক বা সালাহ উদ্দিন সড়ক ব্যবহার করে অন্যত্র যায়। এ সড়কগুলো নিরাপদ থাকবে।

লিফলেটে গাজা সিটিকে বিপজ্জনক যুদ্ধ অঞ্চল হবে বলে সতর্কও করা হয়।

সম্প্রতি আইডিএফ গাজা শহরের বেশ কয়েকটি এলাকায় সরে যাওয়ার সতর্কতা জারি করেছে। কারণ সৈন্যরা এর পশ্চিম এবং দক্ষিণ পার্শ্ববর্তী এলাকাগুলোর পাশাপাশি পূর্ব শেজাইয়া পাড়ায় অভিযান চালাচ্ছে।

উল্লেখ্য, এর আগেও বিভিন্ন শহর খালি করার জন্য আইডিএফ এভাবে লিফলেট ফেলে নির্দেশ দিয়েছিল।


আরও খবর