Logo
শিরোনাম
টাঙ্গাইলে স্কুলছাত্রীকে অপহরণ

ধর্ষণ ও হত্যা মামলায় তিন জনের মৃত্যুদণ্ডাদেশ

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ০৯ জুন ২০২২ | হালনাগাদ:শনিবার ০২ জুলাই 2০২2 |
Image

টাঙ্গাইলে এক স্কুলছাত্রীকে অপহরণ, ধর্ষণ ও হত্যা মামলায় তিন জনের মৃত্যুদণ্ডাদেশ দিয়েছেন আদালত।

বৃহস্পতিবার (৯ জুন) দুপুরে টাঙ্গাইলের নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের বিচারক খালেদা ইয়াসমিন এ রায় দেন। রায়ে অপরাধ প্রমাণ না হওয়ায় একজনকে খালাস দেয়া হয়। দণ্ডপ্রাপ্তরা হলেন টাঙ্গাইলের গোপালপুর উপজেলার ভেঙ্গুলা গ্রামের মৃত নগেন চন্দ্র দাসের ছেলে কৃষ্ণ চন্দ্র দাস (২৮), ধনবাড়ী উপজেলার ইসপিনজারপুর গ্রামের মোশারফ হোসেনের ছেলে সৌরভ আহম্মেদ ওরফে হৃদয় (২৩) এবং মৃত মজিবর রহমানের ছেলে মিজানুর রহমান (৩৭)। খালাসপ্রাপ্ত হয়েছেন মেহেদী হাসান টিটু ( ২৮)।

মামলার বিবরণ সূত্রে জানা যায়, গোপালপুর উপজেলার জয়নগর গ্রামের এক স্কুলছাত্রীর সাথে মোবাইল ফোনের মাধ্যমে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে উঠে কৃষ্ণ চন্দ্র দাসের সাথে। ২০২১ সালের ২ আগষ্ট বেলা ১১টার দিকে নানীর বাড়ি যাওয়ার কথা বলে ওই স্কুলছাত্রী বাড়ি থেকে বের হয়। টাঙ্গাইলের ভূঞাপুর-তারাকান্দি সড়কে বীরভরুয়া নামকস্থান থেকে গত বছরের (৩ আগস্ট) এক অজ্ঞাত যুবতীর মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। পরিচয় না পেয়ে মরদেহটি বেওয়ারিশ হিসেবে স্থানীয় ভূঞাপুরের ছাব্বিশা গোরস্থানে দাফন করা হয়। ঘটনার গুরুত্ব অনুধাবন করে টাঙ্গাইল পিবিআই স্বপ্রণোদিত হয়ে গত (৫ আগস্ট) মামলাটির দায়িত্ব নেয়। বিভিন্ন সোর্স ও তথ্যপ্রযুক্তি ব্যবহার করে ধনবাড়ী উপজেলার বলিভদ্র ইউনিয়নের ইসপিনজারপুর গ্রামে মৃত মজিবর রহমানের ছেলে মিজানুর রহমানের ভাড়া বাড়িতে যোগাযোগ করে। তদন্ত টিম মিজানুরকে কৌশলে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদকালে তার ঘরে পড়ে থাকা মোবাইল ফোনের পরিত্যক্ত একটি বাক্স কুড়িয়ে পায়। বাক্সটিতে দুটি মোবাইল ফোনের ভাঙা অংশ ছিল। পরে ওই বাক্সের গায়ে লেখা আইএমই নম্বরের সূত্র ধরে অজ্ঞাত ওই স্কুল ছাত্রীর বাবার সন্ধান পান। ছবি ও পড়নের কাপড় দেখে ওই স্কুলছাত্রীর বাবা অজ্ঞাত ওই নারী তার মেয়ে বলে শনাক্ত করেন। পরিচয় নিশ্চিত হওয়ার পর তদন্ত কাজ দ্রুত এগুতে থাকে। তদন্ত টিম তথ্য প্রযুক্তির ব্যবহার করে সোর্সের মাধ্যমে এসএসসি পরীক্ষার্থী স্কুলছাত্রী ধর্ষণ ও হত্যার সাথে জড়িত থাকার অভিযোগে জেলার বিভিন্ন উপজেলায় অভিযান চালিয়ে ঘাতক প্রেমিকসহ চার যুবককে গ্রেপ্তার করেন। ২০২১ সালের ৬ আগষ্ট নিহত ছাত্রীর বাবা বাদী হয়ে হত্যা মামলা দায়ের করেন। তদন্তে হত্যার রহস্য ও আসামিদের নাম বেরিয়ে আসে। মামলার তদন্ত প্রতিবেদনে ধর্ষণের পর হত্যার কথা উল্লেখ করা হয়।

নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের বিশেষ সরকারি কৌশুলী (পিপি) আলী আহমদ বলেন, রাষ্ট্র পক্ষ এই মামলায় আসামিদের বিরুদ্ধে তাদের অপরাধ প্রমাণ করেছে। এই কারণেই আদালত তিনজনকে মৃত্যুদণ্ডাদেশ দিয়েছেন। আরও একজনে খালাস প্রদান করেছেন। এ রায়ে বাদি পক্ষ ও আমরা সন্তুষ্ট।


আরও খবর



বাড়ছে করোনা শনাক্তের হার

প্রকাশিত:শুক্রবার ১৭ জুন ২০২২ | হালনাগাদ:শনিবার ০২ জুলাই 2০২2 |
Image

দেশে করোনাভাইরাসে মৃত্যু লক্ষ করা না গেলেও দৈনিক শনাক্তের হার হু হু করে বাড়ছে। গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে আরও ৩৫৭ জনের শরীরে করোনা ধরা পড়েছে। এর মধ্যে রাজধানীতেই শনাক্ত হয়েছেন ৩২৮ জন। এ নিয়ে এখন পর্যন্ত ১৯ লাখ ৫৪ হাজার ৯৯৪ জন শনাক্ত হলেন।

গত ২৪ ঘণ্টায় কারো মৃত্যু না হওয়ায় মোট মারা যাওয়ার সংখ্যা ২৯ হাজার ১৩১ জন অপরিবর্তিত রয়েছে।

বৃহস্পতিবার স্বাস্থ্য অধিদপ্তর থেকে পাঠানো করোনাবিষয়ক নিয়মিত সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এসব তথ্য জানানো হয়েছে।

এতে বলা হয়, ২৪ ঘণ্টায় ৬ হাজার ২২৩টি নমুনা সংগ্রহ করা হয়। পরীক্ষা করা হয় ৬ হাজার ২০০টি নমুনা। পরীক্ষার বিপরীতে শনাক্তের হার ৫ দশমিক ৭৬ শতাংশ, যা গতকাল ছিল ৩ দশমিক ৮৮ শতাংশ।

গত ২৪ ঘণ্টায় করোনা থেকে সুস্থ হয়েছেন ১১৪ জন। এ পর্যন্ত সুস্থ হয়েছেন ১৯ লাখ ৫ হাজার ৬১৮ জন।

দেশে করোনাভাইরাসের প্রথম সংক্রমণ ধরা পড়েছিল ২০২০ সালের ৮ মার্চ। প্রথম রোগী শনাক্তের ১০ দিন পর ওই বছরের ১৮ মার্চ দেশে প্রথম মৃত্যুর তথ্য নিশ্চিত করে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর। সেই বছর সর্বোচ্চ মৃত্যু হয়েছিল ৬৪ জনের।

ডেল্টা ভ্যারিয়েন্ট ছড়িয়ে পড়ায় গত বছর জুন থেকে রোগীর সংখ্যা হু হু করে বাড়তে থাকে। ২৮ জুলাই একদিনে সর্বোচ্চ ১৬ হাজার ২৩০ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছিল।

২০২১ সালের ৭ জুলাই প্রথমবারের মতো দেশে করোনায় মৃতের সংখ্যা ২০০ ছাড়িয়ে যায়। এর মধ্যে ৫ ও ১০ আগস্ট ২৬৪ জন করে মৃত্যু হয়, যা মহামারির মধ্যে একদিনে সর্বোচ্চ মৃত্যু। এরপর বেশকিছু দিন ২ শতাধিক মৃত্যু হয়।

এরপর গত ১৩ আগস্ট মৃত্যুর সংখ্যা ২০০ এর নিচে নামা শুরু করে। দীর্ঘদিন শতাধিক থাকার পর গত ২৮ আগস্ট মৃত্যু ১০০ এর নিচে নেমে আসে।

গত ২০ এপ্রিল করোনায় মৃত্যুর খবর দিয়েছিল স্বাস্থ্য অধিদপ্তর। এরপর টানা ৩০ দিন করোনায় মৃত্যুশূন্য দিন পার করে বাংলাদেশ। সম্প্রতি করোনায় মৃত্যু না হলেও আক্রান্তের সংখ্যা আগের চেয়ে বেড়েই চলেছে।


আরও খবর

বাড়ছে মৃত্যু, কমেছে শনাক্ত

শনিবার ০২ জুলাই 2০২2




ভারতীয় রুপির মান সর্বকালের সর্বনিম্নে

প্রকাশিত:রবিবার ১২ জুন ২০২২ | হালনাগাদ:শনিবার ০২ জুলাই 2০২2 |
Image

মার্কিন ডলারের বিপরীতে ভারতীয় মুদ্রার (রুপি) মান আরও কমেছে। গতকাল মার্কিন মুদ্রার বিপরীতে রুপির মান সর্বকালের সর্বনিম্ন পর্যায়ে গিয়ে ঠেকেছে। ভারতীয় প্রভাবশালী সংবাদমাধ্যম ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেসের এক প্রতিবেদনে এ খবর পাওয়া গেছে।

কিছুদিন পর মুদ্রাস্ফীতির তথ্য প্রকাশ করবে যুক্তরাষ্ট্র। দেশটির কেন্দ্রীয় ব্যাংক (ফেড) অদূর ভবিষ্যতে সুদহারও কমাতে পারে।

এর আগে দেশি ও আন্তর্জাতিক শেয়ারবাজারে বিনিয়োগে সতর্ক ভারতীয় বিনিয়োগকারীরা। ফলে ভারতে ইক্যুইটি কমেছে। এতে ডলারের বিপরীতে রুপির ব্যাপক দরপতন হয়েছে। এছাড়া নেপথ্যে বিশ্বব্যাপী ক্রমবর্ধমান জ্বালানি তেলের মূল্যবৃদ্ধিও রয়েছে।

আন্তঃব্যাংক বিদেশি বিনিময় বাজারে দিনের শুরুতে প্রতি ডলার বিক্রি হয় ৭৭ দশমিক ৮১ রুপিতে। আর দিনের শেষ ভাগে আন্তর্জাতিক মুদ্রাটি লেনদেন হয় ৭৭ দশমিক ৮৭ রুপিতে। যা ভারতীয় ইতিহাসে সর্বনিম্ন।

এর আগের দিন এক ডলারের বিনিময় হার ছিল ৭৭ দশমিক ৭৬ রুপি। যা ছিল রেকর্ড সর্বনিম্ন। অর্থাৎ একদিনের ব্যবধানেই তা ভেঙে যায়।

উল্লেখ্য, ইক্যুইটি হলো একটি মিউচুয়াল ফান্ড স্কিম, যা প্রধানত কোম্পানিগুলোর শেয়ার/স্টকগুলোতে বিনিয়োগ করে।


আরও খবর

ছোট ও মাঝারি গরুর দাম বেশি

শুক্রবার ০১ জুলাই ২০২২




রাজধানীর কামরাঙ্গীরচর হতে ইয়াবাসহ ০১ মাদক ব্যবসায়ীকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব

প্রকাশিত:বুধবার ২৯ জুন ২০২২ | হালনাগাদ:শনিবার ০২ জুলাই 2০২2 |
Image

র‌্যাব-১০ এর একটি আভিযানিক দল রাজধানী ঢাকার কামরাঙ্গীরচর থানাধীন আমিনবাগ আলী আহমেদ গলি এলাকায় একটি অভিযান পরিচালনা করে আনুমানিক ২৩,৪০,০০০ টাকা মূল্যের ৭,৮০০  পিস ইয়াবা ট্যাবলেটসহ ০১ জন মাদক ব্যবসায়ীকে গ্রেফতার করে। গ্রেফতারকৃত মাদক ব্যবসায়ীর নাম মোসাঃ সোনিয়া বেগম (২৭) বলে জানা যায়।

প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে জানা যায়, গ্রেফতারকৃত মহিলা একজন পেশাদার মাদক ব্যাবসায়ী। সে বেশ কিছুদিন যাবত কামরাঙ্গীরচরসহ ঢাকা শহরের বিভিন্ন এলাকায় ইয়াবাসহ অন্যান্য মাদকদ্রব্য সরবরাহ করে আসছিল বলে জানা যায়।

গ্রেফতারকৃত মহিলার বিরুদ্ধে সংশ্লিষ্ট থানায় নিয়মিত মামলা রুজু করা হয়েছে।


আরও খবর



প্রাথমিক শিক্ষক বদলি বন্ধের আদেশ বাতিল

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ১৪ জুন ২০২২ | হালনাগাদ:শনিবার ০২ জুলাই 2০২2 |
Image

রকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে শিক্ষকদের বদলির জন্য দেওয়া নিষেধাজ্ঞা তুলে নিয়েছে প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তর (ডিপিই)।

সোমবার (১৩ জুন) অধিদপ্তরের পরিচালক (পলিসি অ্যান্ড অপারেশন) মনীষ চাকমার সই করা চিঠি থেকে এ তথ্য জানা গেছে।

দেশে করোনাভাইরাস শনাক্ত হওয়ার পর এক আদেশের মাধ্যমে প্রাথমিকের শিক্ষকদের বদলি বাতিল করা হয়। শিক্ষকরা দীর্ঘদিন বদলি শুরুর দাবি জানিয়ে আসছিলেন।

সম্প্রতি প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের উর্ধ্বতন কর্মকর্তারা জানিয়েছিলেন, জুন মাসে প্রাথমিকে শুরু হবে বদলি কার্যক্রম। তবে বদলি শুধু উপজেলার অভ্যন্তরে সীমাবদ্ধ থাকবে।

এদিকে আজ আরেক আদেশে প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক আলমগীর মুহম্মদ মনসুরুল আলমকে জনপ্রশাসনে বিশেষ ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওএসডি) করা হয়েছে।


আরও খবর



লাইফস্টাইল কী ?

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ০৭ জুন ২০২২ | হালনাগাদ:শনিবার ০২ জুলাই 2০২2 |
Image

বর্তমানে মানুষের জীবনকেন্দ্রিক যে শব্দটি ব্যাপকভাবে উচ্চারিত হচ্ছে তা হচ্ছে ‘লাইফস্টাইল’। লাইফ বলতে আমরা জীবনকে বুঝি। আর স্টাইল বলতে ধরন, প্রকার, ধাঁচ, রকম, পদ্ধতি ইত্যাদি বুঝি। তাই লাইফস্টাইলের সাধারণ বাংলা অর্থ হতে পারে জীবন যাপনের ধরন বা পদ্ধতি। এটাকে আরো সহজ করে বললে বলা যায় জীবনধারা।

এখন এই জীবনধারা তো অনেক ব্যাপক অর্থবোধক একটি শব্দ। এর বহুমাত্রিক অর্থ রয়েছে। জীবনের সার্বিক দিককেই কভার করে এ শব্দটি। এর মধ্যে রয়েছে মানুষের জন্ম থেকে মৃত্যু পর্যন্ত যেভাবে জীবন চালানো হচ্ছে তার পুরোটাই। এর মধ্যে যেমন জীবনকে বাঁচিয়ে রাখতে খাদ্যগ্রহণ ও আনুষঙ্গিক প্রয়োজনগুলো পূরণের বিষয়গুলো রয়েছে, তেমনি রয়েছে মানুষের মনোজগতে বদ্ধমূল হয়ো বিশ্বাস ও সেই বিশ্বাসের আলোকে কর্মের ধরনটিও।

জীবন ধারণের জন্য মানুষের কিছু মৌলিক প্রয়োজন রয়েছে। এই দেহকে বাঁচিয়ে রাখার জন্য জন্মের শুরুতেই তার প্রয়োজন হয় খাবারের। প্রয়োজন হয় পরিচ্ছন্নতার। প্রয়োজন হয় সুন্দর একটি পরিবেশের যেখানে থাকবে কলুষমুক্ত বাতাস। আরো দরকার পরিবেশের বিরূপতা থেকে সুরক্ষার জন্য নিরাপদ স্থান বা গৃহ। একই কারণে প্রয়োজন হয় পরিধেয় বস্ত্র। আলো, তাপ ও শীতের নিয়ন্ত্রিত ব্যবহার। তার ভেতর স্বাভাবিকতা বা সুস্থতার ব্যত্যয় ঘটালে প্রয়োজন হয় চিকিৎসার বা নিরাময়ের।

পৃথিবীতে বেঁচে থাকার অনিবার্য প্রয়োজন বাতাস। শ্বাস-প্রশ্বাস চালু না থাকলে কয়েক মুহূর্তেই জীবন নিভে যায়। মহান স্রষ্টা আল্লাহ প্রকৃতিতে দিয়েছেন অনাবিল বাতাস। সেই বাতাস দেহে টেনে নেয়ার জন্য শরীরের ভেতর দিয়েছেন একটি অতুলনীয় যন্ত্র যার নাম হৃদযন্ত্র। এ বাতাস টেনে নেয়ার শক্তি না থাকলে পৃথিবীর জীবন আর থাকে না।

জীবনকে সতেজ সজীব রাখতে, পরিচ্ছন্ন রাখতে পানির প্রয়োজনও অনিবার্য। বাতাস পানি আর সূর্যের আলোর সমন্বয়ে গয়ে উঠেছে অসাধরণ এক প্রকৃতিজগত। যার মধ্যে জীবন স্বাভাবিক ও সুন্দর।

সার্বিকভাবে জীবনের পরিপার্শ্ব স্বাস্থ্যসম্মত রাখতে প্রয়োজন এই প্রকৃতির উপস্থিতি। উদ্ভিদ, গাছ-পালা, বনবনানী, তরুলতা, পশু-পাখি সমৃদ্ধ; পাহাড়-নদী-সাগর ঝর্ণাধারা বেষ্টিত প্রকৃতির মাঝে মানুষের জীবন থাকলেই সে জীবন স্বাভাবিকভাবে বাঁচে। এই প্রকৃতি বিনষ্ট হলে বা এর সুযোগগুলোর ঘাটতি হলে জীবন বিপন্ন হয়।

তারপর বেঁচে থাকার জন্য মানুষের প্রয়োজন হয় অপর মানুষের সহযোগিতা। এজন্য মানুষ গড়ে তুলেছে সমাজ। গড়েছে সংস্কৃতি, কালচার। এসব গড়তে জ্ঞানের প্রয়োজন হয়েছে। সেই জ্ঞানও মানুষকে চেষ্টা করে অর্জন করতে হয়। সেই অর্জনই হলো শিক্ষা বা জ্ঞান অর্জন। অর্জিত জ্ঞানকে কাজে লাগিয়ে মানুষ দুনিয়ার জীবনকে সুন্দর, নিরাপদ ও উন্নত করতে পারে। তাই শিক্ষাও মানুষের জীবনের একটি অপরিহার্য প্রয়োজন।

এবার জীবিকার প্রয়োজন পূরণের জন্য শিক্ষাগ্রহণে সমৃদ্ধ হয়ে মানুষকে করতে হচ্ছে নানা ধরনের কাজ। প্রয়োজন বা চাহিদাই এর চালিকা শক্তি। এর পেছনে সবাইকে দৌড়াতে হচ্ছে। ঘর বাঁধতে হচ্ছে নারী-পুরুষকে। তাদের মিলিত প্রচেষ্টায় জন্ম নিচ্ছে মানবশিশু। তাদেরকে লালনপালন করে আবার বড় করতে হচ্ছে, গড়ে তুলতে হচ্ছে আরেকটি পূর্ণ মানুষ হিসেবে জীবনের সবরকম দায়িত্ব পালনের উপযোগী করে। এভাবে রূপ লাভ করছে সমাজ-সংস্কৃতি।

মানুষকে তার অর্জিত জ্ঞান ও বুদ্ধি দিয়ে জীবনের সব প্রয়োজনীয় কাজ সমাধা যেমন করতে হচ্ছে, তেমনি যেকোনো ধরনের বাধা, প্রতিবন্ধকতা বিরূপতা দূর করে, বা সমস্যা সংকটের সমাধান করে জীবনকে টেনে নিয়ে যেতে হচ্ছে শেষ প্রান্ত পর্যন্ত।

এভাবে প্রকৃতি ও সমাজ-সংস্কৃতির ভেতর মানুষ যে জীবন যাপন করছে সেটাই তার লাইফস্টাইল বা জীবনধারা।

বর্তমানে মানুষের জীবনের সুস্থতার জন্য সঠিক লাইফস্টাইল তথা জীবনধারার কথা জোরেশোরে উচ্চারিত হচ্ছে। কারণ একটাই, আজ মানুষের স্বাভাবিক জীবনধারা ব্যাহত। প্রকৃতি কলুষিত। জীবন কঠিভাবে সংকটাপন্ন। প্রকৃতিবিরুদ্ধ কাজ ও ভুল জীবন পদ্ধতির কারণে কঠিন কঠিন রোগে আক্রান্ত হচ্ছে মানুষ। দেখা দিচ্ছে শারীরিক-মানসিক বিপর্যয়।

এজন্যই লাইফস্টাইল সঠিক করার জন্য, সংশোধন করার জন্য এতো উচ্চাবাচ্য শুরু হয়েছে। কিন্তু আধুনিক বিজ্ঞানের বদৌলতে জীবনের সাথে এমনসব অনুষঙ্গ যোগ হয়েছে যে, মানুষ সেসব থেকে রেহাই পাচ্ছে না। সেগুলো পরিহার করা সম্ভব হচ্ছে না। ফলে যে জীবনকে মানুষের ভালোবাসার কথা তার প্রতি সুবিচার করতে পারছে না।

ইংলিশ অভিধানে lifestyle তথা জীবনধারার একটি সংজ্ঞা হলো এমন - একটি নির্দিষ্ট ব্যক্তি বা সমষ্টির মনোভাব, অভ্যাস বা সম্পদের মিলনে গড়ে ওঠা একটি সংস্কৃতি।

ইংলিশ অভিধানে লাইফস্টাইল শব্দটির প্রতিশব্দগুলো হচ্ছে - behaviour ব্যবহার বা আচরণ, civilization সভ্যতা-সংস্কৃতি, condition অবস্থা, শর্ত, conduct আচরণ, পরিচালনা, customs রীতি, প্রথা, life · mores রীতিনীতি, চালচলন, position অবস্থান, situation পরিস্থিতি, way of life জীবনপথ বা জীবনপদ্ধতি।

এ থেকেই বোঝা যায়, লাইফস্টাইল বিষয়টি কতো ব্যাপকভাবে জীবনকে সংজ্ঞায়িত করে। জীবনের কতো দিক ও বিভাগকে এটি ধারণ করে। কাজেই সুস্থ-সুন্দর জীবন যাপনের জন্য জীবনের সাথে যুক্ত সব বিষয়েরই সুস্থতা ও সঠিক ব্যবস্থাপনা প্রয়োজন। প্রয়োজন জীবনকে ভালোবাসা। এর মূল্য বোঝা।





আরও খবর