Logo
শিরোনাম
মেঘনা নদীতে গোসল করার সময় নিখোঁজ ছাত্রের মরদেহ উদ্ধার রাজবাড়ীতে ট্রাকের সাথে সংঘর্ষে মোটর সাইকেল আরোহীর মৃত্যু রাজবাড়ীতে আবৃত্তি ও কথামালায় প্রকাশনা উৎসব নওগাঁয় মোটরসাইকেলের ধাক্কায় স্কুল ছাত্র নিহত-মা ও ছোট বোন আহত মোরেলগঞ্জে শ্রমীকদের মাঝে শীতবস্ত্র বিতরণ করলেন এমপি মিলন লালমনিরহাটে বিদ্যুৎ স্পৃষ্টে মারাগেছে স্কুলছাত্র নওগাঁয় বোরো ধান চাষের শুরুতেই বিদ্যুতের লোড শেডিং, দুঃশ্চিন্তায় কৃষকরা নওগাঁয় ৩৫ কোটি টাকা মূল্যের কষ্টিপাথরের মূর্তি উদ্ধার করেছে পুলিশ কুড়িগ্রামের শীতকাতর অসহায় মানুষের পাশে কেন্দ্রীয় যুবলীগ নেত্রকোনায় বিশ্ব জলাভূমি দিবস উপলক্ষে মানববন্ধন

দিল্লিতে আমাদের নামও পরিবর্তন করতে হয়েছিল' -শেখ রেহানা

প্রকাশিত:Tuesday ১৩ September ২০২২ | হালনাগাদ:Friday ০৩ February ২০২৩ |
Image

সেই সময়ে আমাদের পরিবার...

সকাল বেলায় আব্বা বাইরে থেকে মর্নিং ওয়াক করে আসতেন। আমাদের ৩২ নম্বরের যে বারান্দাটা আমরা ওখানে, আব্বা ইজি চেয়ারে আর সব মোড়ায়। টোস্ট বিস্কুট চা নিয়ে আমরা সবাই খবরের কাগজ পড়ে যার যার স্কুল-কলেজে যেতাম। এই জিনিসটা আমরা ওই যে একটা পরিবেশের মধ্যে বড় হওয়া। ওখান থেকে আর বের হইনি। কামাল ভাইয়ের সবচেয়ে প্রিয় ছিলাম আমি। মায়েরও। শেকড়টা আমরা ভুলব না। আমাদের বাড়ি টুঙ্গিপাড়া। আমি যে একটা গ্রামের মেয়ে সেটি বলতে খুব গর্ববোধ করি।


গণভবন প্রসঙ্গ...

গণভবনটাও আমাদের অনেক স্মৃতির। আমরা থাকিনি এখানে। আমরা কোনো ভাইবোনই সেখানে থাকতে চাইনি। জানি না থাকলে অন্যদিক থেকে ভালো হতো কী খারাপ হতো। মা থাকতে চাননি ৩২ নম্বরের বাড়ি রেখে। কামাল ভাই থাকবে না। আপা থাকবে না। আমি না। জামাল, রাসেল না। আব্বা বলতেন যে, তোমরা থাকবে না। তাহলে আমি কেন শুধু এখানে থাকব?

দাদার নাতবউ...

আমার দাদার খুব শখ ছিল নাতির বউ দেখবে। কামাল ভাই তখন যুদ্ধ থেকে এলেন। আমরা খুকী আপার ভক্ত ছিলাম। মেঝো ভাইয়ের রুমে বিশাল একটা ছবি ছিল স্পোর্টসের। ওরা একসঙ্গে প্র্যাকটিস করত। মাকে বললাম। মা বলল, হ্যাঁ, ঘরের বউ খেলবে লোকে কী বলবে। তো মা চুপচাপ। আমরা কয়েক ভাইবোন তাকে বললাম, মা এত ভালো একটা বউ। তুমি যার কাছ থেকেই নাও, এ মেয়ে কিন্তু পাবে না। মা বলল, কামাল কী বলে। কামাল যদি বলে তাহলে আমি রাজি। বললাম, তবে মা। বিয়ের পর কিন্তু খেলতে দিতে হবে। তখন বলতে পারবে না, ঘরের বউ খেলতে পারবে না। বলছে না, বলব না।

বেলজিয়াম-জার্মানি...


মাকে বললাম- মা, আপা (জার্মানি) যাবে জয় পুতুলকে নিয়ে কষ্ট হবে। আমি গেলে একটু সাহায্য হবে। মা আব্বাকে বলল, ঠিক আছে ও যাক হাসুর সঙ্গে। ক'দিন পর চলে আসবে। এই আমাদের যাওয়া। ১৪ আগস্ট রাতে ক্যান্ডল লাইট ডিনার। ব্রাসেলসে এই বয়সে ক্যান্ডল লাইট ডিনার। মেয়েরা সব আমার বয়সী, আমরা খুব হাসাহাসি গল্প। দুলাভাই এসে আমাদের খুব বকলেন। যে কান্না আছে। এত হাসি। বললাম, আপনি ঘুমাতে পারেন না। উনি যত বকে আমরা তত হাসি। কয়েক ঘণ্টার ব্যবধানে মানুষের যে পরিবর্তন। ক্যান্ডল লাইট ডিনার থেকে আমাদের বের করে দেয় এ রকম অবস্থা।

আপা ভাবছে আমি জানি না। আমি ভাবছি আপা জানে না। জানি তো দু'জনেই। বাংলাদেশে বাঙালিরা আমার বাবাকে মারবে, এটা তো ধারণারও বাইরে ছিল। ৩২ নম্বরে হৈচৈ, একটা পলিটিক্যাল বাড়ি। টুঙ্গিপাড়ায় ওই আমাদের দাদাবাড়ি আর সেখানে ছোট্ট একটা বাসার মধ্যে দুইটি রুম। ওখানে গিয়ে তো দুই বোন একটা কিসের মধ্যে পড়লাম আমরা। কিচ্ছু বুঝি না। কিচ্ছু করি না। কী খাব। কই যাব। আল্লাহর একটা রহম আমাদের ওপর যে, আমাদের পাগল বানিয়ে রাস্তায় ফেলেনি। আপা কান্নাকাটি করে এই পাশে, আমি ওই পাশে। দুটি বাচ্চা জয়-পুতুলই ছিল আমাদের সান্ত্বনা।


দিল্লিতে...


আমরা অবাক হয়ে তাকিয়ে থাকতাম যে, একটা সাইকেলের ওপর চারটা গ্যাস সিলিন্ডার। একটা মোটরসাইকেলের ওপর সামনে একটা বাচ্চা, হাসবেন্ড-ওয়াইফ, আরেকটা বাচ্চা। তারপর ব্রিফকেস একটা। জানালা দিয়ে ওই বসে বসে দেখতাম। আরেকটা কথা কখনও বলিনি। ৪০ বছর হয়ে গেছে, এখন বলা যায়। দিল্লি থাকাকালীন আমাদের নামও পরিবর্তন করতে হয়েছে। মিস্টার তালুকদার, মিসেস তালুকদার, মিস তালুকদার আশপাশে যেন কেউ না জানে। আমি বলি, এটা কী ব্যাপার। দেশ ছাড়া, বাড়ি ছাড়া, বাপ-মা ছাড়া। আবার নামও বদলাব? দরকার নাই আমি থাকব না এখানে। কিন্তু তখন উপায় নাই তো। সবসময় রাগ-অভিমান আর হুট করে কোনোকিছু করা যায় না। মানে দিন কাটে না, রাত কাটে না। আমার খোকা চাচা লন্ডন থেকে চিঠি লিখতেন। চিঠি আসতে লাগত এক সপ্তাহ। আমরা দুটি বোন জানালা দিয়ে তাকিয়ে থাকতাম পোস্টম্যান কখন আসবে। চাচার চিঠিগুলো পড়ব।

আপা লিখতেন বসে বসে। আজকে চিনি অতটুকু, বিস্কুট অতটুকু, সুজি অতটুক। ওপর পাশেই আমার লেখা। আল্লাহ তুমি কেন আমাদের বাঁচিয়ে রেখেছো জানি না। কিন্তু এই খুনিদের ধরব, বিচার করব ইনশাল্লাহ। তারিখ দিয়ে লেখা। তো আপা সেদিন আমাদের দেখালেন। এই দেখো।

মা-আপা...


বাংলাদেশের জনগণ যেখানে যে আছে। নির্যাতিত-নিপীড়িত দুঃখী মানুষ। তারা তো বঙ্গবন্ধুকে, তার অভাবটাকে দেখতে পাচ্ছে। আমরা বাবা হিসেবে পাচ্ছি। আমাদের তার থেকে বেশি ক্ষতি হয়ে গেছে মা চলে যাওয়াতে। আপা (হাসিনা) ইউনিভার্সিটিতে যাবেন, কোন শাড়ি পরবেন- সেটা মা রেডি করে দিত। এসে খাবার ফাঁকি দিয়ে ঘুম। আমি শুধু চিন্তা করি, মাকে যদি বলতে পারতাম যে, মা তোমার হাসু এখন আর আলসেখানায় থাকে না। মাকে না বলা পর্যন্ত আমাদের শান্তি নেই। এখন আমার মনে হয় দৌড় দিয়ে যদি বনানীতে গিয়ে মাকে একটা চিঠি লিখে পাঠাতে পারতাম বা আব্বাকে পাঠাতে পারতাম। এগুলো খুব অনুভব করি।


-শেখ রেহানা

বঙ্গবন্ধুর কনিষ্ঠ কন্যা


আরও খবর



তীব্র শীতে আগুনের তাপনিতে গিয়ে অগ্নিদগ্ধ হয়ে গৃহবধূর মৃত্যু

প্রকাশিত:Wednesday ১১ January ২০২৩ | হালনাগাদ:Friday ০৩ February ২০২৩ |
Image

শহিদুল ইসলাম জি এম মিঠন :


নওগাঁয় তীব্র শীতে আগুনের তাপনিতে গিয়ে অগ্নিদগ্ধ হয়ে এক গৃহবধূর মৃত্যু হয়েছে। 

৬ দিন আগে তীব্র শীতে আগুনের তাপ নেওয়ার সময় শান্তনা রানী সাহা (৪৪) নামের গৃহবধূ অগ্নিদগ্ধ হলে তাকে বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তির পর চিকিৎসাধীন অবস্থায় মঙ্গলবার তার মৃত্যু হয়।

নিহত গৃহবধূ শান্তনা রাণী সাহা নওগাঁর রানীনগর উপজেলার জল-কৈ রায়পুর গুচ্ছগ্রামের বাবলু চন্দ্র সাহার স্ত্রী।

শান্তনা রাণীর ছেলে পুস্কর কুমার সাহা বলেন, 

গত বৃহস্পতিবার সন্ধ্যার দিকে শীত নিবারণের জন্য আমার মা সহ পাড়ার কয়েকজন বাড়ির পাশে খড়ে আগুন লাগিয়ে আগুনের তাপ নিচ্ছিলো।  এক আগুনের তাপ নেওয়ার সময় মায়ের শাড়িতে আগুন লেগে শরীরের বিভিন্ন স্থানে পুরে গিয়ে অগ্নিদগ্ধ হয়। এ সময় সেখানে থাকা স্থানিয় লোকজন সহ পরিবারের লোকজন মাকে গুরুত্বর আহত অবস্থায় উদ্ধার করে বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করান। হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মঙ্গলবার দুপুরের পূর্বে  শান্তনা রাণীর মৃত্যু হয়।

ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে রাণীনগর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) আবুল কালাম আজাদ বলেন, এ ঘটনায় থানায় নিহতের পরিবার বা স্বজনরা কেউ কোন অভিযোগ দায়ের করেনি।


আরও খবর



ইমরানের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি

প্রকাশিত:Wednesday ১১ January ২০২৩ | হালনাগাদ:Friday ০৩ February ২০২৩ |
Image

পাকিস্তানের সাবেক প্রধানমন্ত্রী ও বর্তমান বিরোধী নেতা ইমরান খান ও তার ঘনিষ্ট দুই রাজনৈতিক সহযোগীর বিরুদ্ধে জামিনযোগ্য গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করেছে দেশটির নির্বাচন কমিশন।

ইমরান খান ব্যতীত আরও যাদের বিরুদ্ধে পরোয়ানা জারি করা হয়েছে, তারা হলেন ইমরানের রাজনৈতিক দল পাকিস্তান তেহরিক-ই ইনসাফের (পিটিআই) জেষ্ঠ্য দুই নেতা ফাওয়াদ চৌধুরী ও আসাদ ওমর।

দেশটির বিভিন্ন সংবাদমাধ্যমে প্রকাশিত প্রতিবেদন অনুসারে, নির্বাচন কমিশন ও প্রধান নির্বাচন কমিশনার সিকান্দার সুলতান রাজার বিরুদ্ধে ‘উসকানিমূলক’ ও ‘হিংসাত্মক’ বিবৃতি দেওয়ার অভিযোগে এই পরোয়ানা জারি করা হয়েছে। মঙ্গলবার পাকিস্তানের নির্বাচন কমিশনার নিসার দুররানির নেতৃত্বাধীন ৪ সদস্যের একটি বেঞ্চ এই পরোয়ানা ইস্যু করেছে। 

ক্রিকেট থেকে রাজনীতিতে আসা ইমরান খান সেনাবাহিনীর আশীর্বাদপুষ্ট হয়ে ২০১৯ সালে পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী হন। কিন্তু তার পর থেকেই দেশটির ক্ষমতা কাঠামোর শীর্ষে থাকা সামরিক বাহিনীর সঙ্গে দূরত্ব সৃষ্টি হয় তার।

ক্রিকেট থেকে রাজনীতিতে আসা ইমরান খান সেনাবাহিনীর আশীর্বাদপুষ্ট হয়ে ২০১৮ সালে পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী হন; কিন্তু তার পর থেকেই দেশটির ক্ষমতা কাঠামোর শীর্ষে থাকা সামরিক বাহিনীর সঙ্গে দূরত্ব সৃষ্টি হয় তার। সামরিক বাহিনীর সঙ্গে সম্পর্কের এই অবনতির জেরেই ২০২২ সালের ১০ এপ্রিল পার্লামেন্টে এক অনাস্থা ভোটে প্রধানমন্ত্রীর পদ হারান তিনি।

ক্ষমতা হারানোর পর থেকেই আগাম নির্বাচনের দাবিতে আন্দোলন শুরু করা ইমরান ও তার দল পিটিআইয়ের জেষ্ঠ্য নেতারা নির্বাচন কমিশনের বিরুদ্ধে পক্ষপাতমূলক আচরণের অভিযোগ জানিয়ে আসছিলেন। পিটিআইয়ের বিভিন্ন কর্মসূচিতে ইমরান খান প্রকাশ্যে বলেছিলেন—নির্বাচন কমিশন ও প্রধান নির্বাচন কমিশনার সিকান্দার সুলতান রাজা পাকিস্তানের ক্ষমতাসীন জোট সরকারের ‘আজ্ঞাবহে’ পরিণত হয়েছেন।

প্রধান নির্বাচন কমিশনের পদত্যাগের দাবিতে অবিলম্বে আন্দোলন শুরু করার হুমকিও দিয়েছিলেন পিটিআই চেয়ারম্যান।

ইমরানের ও তার দলের এসব অভিযোগের জবাব চেয়ে গত বছর আগস্ট ও সেপ্টেম্বর মাসে পিটিআই চেয়ারম্যান ও তার দুই সহযোগীর বিরুদ্ধে ২ দফায় নোটিশ জারি করেছিল নির্বাচন কমিশন। সেই নোটিশের শুনানির জন্য বেশ কয়েকবার দিনও ধার্য করা হয়েছিল; কিন্তু ইমরান খান বা তার সহযোগীরা শুনানির জন্য নির্ধারিত দিনগুলোতে কমিশন কার্যালয়ে অনুপস্থিত ছিলেন।


আরও খবর



নেত্রকোনায় ২৮ লাখ টাকার ইলিশের চালান সহ চোর আটক

প্রকাশিত:Friday ২৭ January ২০২৩ | হালনাগাদ:Thursday ০২ February 2০২3 |
Image

মির্জা হৃদয় সাগর, জেলা প্রতিনিধি (নেত্রকোনা) :

নেত্রকোনায় ২৮ লাখ টাকার চোরাই ইলিশসহ এক গাড়ি চালককে আটক করেছে পুলিশ।  বুধবার সকালে জেলার কলমাকান্দার বিষমপুর গ্রামে থেকে ইলিশ মাছের ৫৬ টি ককশিট বক্স জব্দ করে এবং হাসান মিয়া(২৮) নামে এক ব্যক্তিকে আটক করে সিধলী তদন্ত কেন্দ্রের পুলিশ। 

বুধবার বিকেলে জেলা পুলিশের অফিসিয়াল ফেসবুক পেজের মাধ্যমে এই তথ্য নিশ্চিত করে জেলা পুলিশ। 

আটককৃত হাসান মিয়া কিশোরগঞ্জ জেলার হোসেনপুর উপজেলার গনমানপুরুরা গ্রামের আব্দুল মোতালেবের ছেলে। 

পুলিশ সূত্রে জানা যায়, গত সোমবার রাতে চিটাগাং এর একটি মাছের আড়ত থেকে প্রতিবারের মত বাজার জাত করার জন্য ইলিশ মাছের একটি চালান নিয়ে যাত্রাবাড়ীর উদ্দেশ্যে রওনা দেন হাসান মিয়া। পথে হাসানের সহযোগী শান্ত মিয়া, হক মিয়া ও তাহের মিয়ার সাথে মেবাইলে যোগাযোগ করে মাছের চালান চুরির পরিকল্পনা করে। পরিকল্পনা মাফিক মাছের চালান যাত্রাবাড়ীর পরিবর্তে গাজীপুরে এসে গাড়ি পরিবর্তন করে মাছগুলো নিয়ে চলে আসেন সীমান্তবর্তী উপজেলা কলমাকান্দার বিষমপুর গ্রামে তাহের মিয়ার বাড়িতে। লোক চোখ আড়াল করতে রাতের আঁধারে বাড়ির পাশে মাছের বক্সগুলো লুকিয়ে রাখেন হাসান মিয়া। সকালে খবর পেয়ে পুলিশ গিয়ে সেখান থেকে মাছের বক্সগুলো জব্দ করে। জব্দকৃত মাছের বর্তমান বাজার মূল্য প্রায় ২৮ লাখ ৭০ হাজার টাকা বলে জানায় পুলিশ। বুধবার সকালে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে কলমাকান্দার বিষমপুর গ্রামে প্লাস্টিক টেপ পেপারে মোড়ানো বেশকিছু ককশিট বক্সের সন্ধান পায় পুলিশ। পরে ওই গ্রামের হক মিয়ার বাড়িতে অভিযান চালিয়ে পুলিশ বাক্সগুলো জব্দ করে। এ সময় বক্সগুলো খুলে প্রতিটি বক্সেই ইলিশ মাছ পাওয়া যায়। পরে ওই বাড়িতে অবস্থানরত স্থানীয় এক মহিলাকে জিজ্ঞাসাবাদে একপর্যায়ে মাছগুলো হাসান মিয়ার বলে জানান। এদিকে তথ্যপ্রযুক্তির সহায়তায় ঐগ্রাম অভিযান চালিয়ে অভিযুক্ত হাসান মিয়াকে আটক করে সিধলী তদন্ত কেন্দ্রের পুলিশ। 

সিধলী তদন্ত কেন্দ্রের ইনচার্জ মোঃ এনামুল হক জানান, আমরা গোপন সংবাদের ভিত্তিতে বিষমপুর গ্রামে তাহের মিয়ার বাড়ির পিছনে কিছু সন্দেহজনক ককশিটে বক্সের সন্ধান পাই। পরে ওই অভিযান চালিয়ে বাক্স গুলো জব্দ করে, তার ভিতরে ইলিশ মাছে দেখতে পাই। তারপর তথ্য প্রযুক্তির সহায়তায় হাসান মিয়া নামে এক গাড়ি চালককে আটক করা সম্ভব হয়। আটককৃতকে জিজ্ঞাসাবাদের এক পর্যায়ে জানায় মাছগুলো তিনি চট্টগ্রাম থেকে রাজধানীর যাত্রাবাড়ীতে পৌঁছে দেওয়ার কথা থাকলেও মাছের চালান তিনি কলমাকান্দার বিষমপুর গ্রামে নিয়ে আসে। আমরা ইতিমধ্যে মাছের যে প্রকৃত মালিকের সাথে কথা বলেছি। অভিযুক্ত হাসান মিয়া নিয়মিতই মাছের চালান নিয়ে চট্টগ্রাম থেকে রাজধানীর বিভিন্ন এলাকায় যাতায়াত করতেন এরই মাঝে তিনি মাছগুলি চুরির পরিকল্পনা করেন। 

তিনি আরো জানান, আটককৃত হাসান মিয়া আমাদের হেফাজতে রয়েছে। মাছের যে প্রকৃত মালিক তিনি গাজীপুরের কালিয়াকৈর থানায় মাছ চুরির বিষয়ে একটি অভিযোগ করেছে। অভিযোগের ভিত্তিতে ব্যবস্তা নেওয়া হচ্ছে। আমরা আসামি এবং আলামত তাদের কাছে হস্তান্তর করব।


আরও খবর



পাঠান সিনেমায় খলনায়িকা দীপিকা !

প্রকাশিত:Friday ১৩ January ২০২৩ | হালনাগাদ:Friday ০৩ February ২০২৩ |
Image

সবাই জানত ‘পাঠান’ ছবিতে নায়িকা চরিত্রে থাকবেন দীপিকা। এখন শোনা যাচ্ছে, নায়িকা নন বরং খলনায়িকা অর্থাৎ ভিলেন রূপে এই ছবিতে ধরা দেবেন তিনি।

স্পাই-থ্রিলার জনরার মুভিগুলোতে দৃশ্যের বাঁকে বাঁকে টুইস্ট থাকে। ‘পাঠান’ নির্মাতা সিদ্ধার্থ আনন্দ তার আগের ছবি ‘ওয়ার’-এও এরকম টুইস্ট রেখেছিলেন। টাইগার শ্রফের ‘খালিদ’ চরিত্রটিকে তিনি পজিটিভ এবং নেগেটিভ দুই শেডেই দেখিয়েছিলেন। তাই ‘পাঠান’-এও এমনটা ঘটার সম্ভাবনা উড়িয়ে দেওয়া যায় না। অন্তত এমনটাই দাবি করছে নেটপাড়ার একাংশ। তাদের মতে, ‘টাইগার’ সিরিজে ক্যাটরিনা কাইফের চরিত্রের মতো এখানেও দীপিকাকে পাকিস্তানের এজেন্ট দেখানো হতে পারে।

মূলত দীপিকার নেগেটিভ চরিত্রের কথা উঠে এসেছে ফ্যান থিওরি থেকেই। আর সেটা আসছে ছবির ট্রেলার ও গানের কিছু সংলাপ যোগ করে। ভক্ত তত্ত্ব বলছে, জন আব্রাহাম নন পাঠানের আসল ভিলেন দীপিকা। কেন এমন কথা বলছে সেটার কারণও ব্যাখ্যা করেছে তারা। ‘ঝুমে জো পাঠান’ গানে ‘দুশমন গালে লাগ জায়ে’ দিয়ে শত্রু দীপিকার সঙ্গে বন্ধুত্বের বার্তাই দিচ্ছেন শাহরুখ! এরপর ট্রেলারে এক জায়গায় জনকে বলতে শোনা যায়, ‘পাঠান দ্য হান্টার… হান্টেড?’। তারমানে শিকারি শাহরুখ নিজেই এখন শিকারে পরিণত হয়েছে।

অবশ্য সবটাই ভক্তদের কল্পনাপ্রসূত ধারণা। আসলেই দীপিকার চরিত্র কী সেটা বোঝা যাবে আগামী ২৫ জানুয়ারি। ওইদিন হিন্দি, তামিল, তেলেগু ভাষায় মুক্তি পাবে ‘পাঠান’ ছবিটি। এতে ক্যামিও চরিত্রে দেখা যাবে সালমান খানকে। যশরাজ ফিল্মসের ‘স্পাই ইউনিভার্স’র অংশ হিসেবে থাকতে পারেন কবির চরিত্রে হৃতিক রোশনও।


আরও খবর



বিশ্বের ৩৫তম বড় অর্থনীতির দেশ এখন বাংলাদেশ

প্রকাশিত:Thursday ০৫ January ২০২৩ | হালনাগাদ:Friday ০৩ February ২০২৩ |
Image

মইনুল ইসলাম মিতুল : বিশ্ব অর্থনীতির কঠিন চ্যালেঞ্জের বছরেও বাংলাদেশের মোট দেশজ উৎপাদনের (জিডিপি) আকার অনেক বেড়েছে। আর তাতে ভর করে বিশ্বের ৩৫তম বড় অর্থনীতির দেশ এখন বাংলাদেশ।

আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিলের (আইএমএফ) পরিসংখ্যানের ভিত্তিতে তৈরি এই তালিকায় বিশ্বের ৫০টি বৃহত্তম অর্থনীতির দেশের তালিকায় দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোর মধ্যে শুধু ভারত বাংলাদেশ রয়েছে।

৪৬৫ বিলিয়ন ডলার জিডিপি নিয়ে বিদায়ী ২০২২ সালে বিশ্বের সবচেয়ে বড় অর্থনীতির দেশগুলোর মধ্যে বাংলাদেশের অবস্থান ৩৫তম। এর আগের বছরে এই অবস্থান ছিল ৪১, সে সময় বাংলাদেশের জিডিপির আকার ছিল ৩৯৭ বিলিয়ন ডলার।

আইএমএফের পরিসংখ্যানের বরাতে কানাডার অনলাইন প্রকাশনা সংস্থা ভিজ্যুয়াল ক্যাপিটালিস্টে গত ২৯ ডিসেম্বর প্রকাশিত প্রতিবেদনে তথ্য জানানো হয়। দেশগুলোর মোট দেশজ উৎপাদনের (জিডিপি) নিরিখেই তালিকা করা হয়েছে।

একটি দেশের অভ্যন্তরে অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ডের একটি বড় নির্ণায়ক জিডিপি। একটি দেশে, একটি নির্দিষ্ট সময়ে সরকারি বেসরকারি খাতের পুরো অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ডের (পণ্য পরিষেবাসবই) মোট মূল্য উঠে আসে জিডিপিতে।

এর আগে গত বছরের ১২ জুলাই ভিজ্যুয়াল ক্যাপিটালিস্ট বিশ্ব অর্থনীতিতে কোন দেশ কোথায়? শীর্ষক আরেকটি প্রতিবেদনে বলা হয়েছিল, ২০২১ সালে বিশ্বের ৪১তম বড় অর্থনীতি বাংলাদেশ। ওই প্রতিবেদনের তথ্য-উপাত্তও আইএমএফের কাছ থেকে নেয়া হয়েছিল।

দি টপ হেভি গ্লোবাল ইকোনমি শীর্ষক ২৯ ডিসেম্বর প্রকাশিত প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, প্রতিবেশী দেশ ভারত বিশ্ব অর্থনীতিতে পঞ্চম স্থানে চলে এসেছে। জুলাইয়ে প্রকাশিত প্রতিবেদনে ভারতের অবস্থান ছিল ষষ্ঠ।

২০২২ সালে দশমিক ৪৬ ট্রিলিয়ন আমেরিকান ডলার জিডিপি নিয়ে যুক্তরাজ্যকে পেছনে ফেলে পঞ্চম স্থান দখল করে নিয়েছে ভারত।

তালিকায় প্রথম, দ্বিতীয়, তৃতীয় চতুর্থ স্থানে রয়েছে যথাক্রমে যুক্তরাষ্ট্র, চীন, জাপান জার্মানি। দেশ ৪টির জিডিপি যথাক্রমে ২৫ দশমিক শূন্য , ১৮ দশমিক ৩২, দশমিক ৩০ দশমিক শূন্য ট্রিলিয়ন আমেরিকান ডলার।

বিশ্বের ১০টি বৃহত্তম অর্থনীতির দেশের বাকি ৫টি দেশ হচ্ছে যথাক্রমে যুক্তরাজ্য, ফ্রান্স, কানাডা, রাশিয়া এবং ইতালি। দেশ ৫টির জিডিপি যথাক্রমে দশমিক ২০, দশমিক ৭৮, দশমিক ২০, দশমিক ১৩ দশমিক ৯৯ ট্রিলিয়ন আমেরিকান ডলার।

বিদায়ী ২০২২ সালে বিশ্বে দুটি বড় ঘটনা ঘটেছে। প্রথমত-বিশ্বের জনসংখ্যা ৮০০ কোটি পার হয়েছে। দ্বিতীয়ত-বিশ্ব অর্থনীতির আকার ১০০ ট্রিলিয়ন ডলার অতিক্রম করে ১০১ দশমিক ৫৬ ট্রিলিয়ন ডলারে দাঁড়িয়েছে।

বিশ্ব অর্থনীতির আকার এই যে ১০০ ট্রিলিয়ন ডলার ছাড়াল, তাতে ছোট-বড় সব দেশের জিডিপির হিসাব যুক্ত হয়েছে। তবে এর বড় অংশজুড়ে আছে যুক্তরাষ্ট্র, চীন, জাপান, জার্মানি ভারত। বিশ্বের মোট জিডিপির অর্ধেকই কয়েকটি দেশের। আরও পাঁচটি দেশকে যদি এর সঙ্গে যুক্ত করা যায়, তবে ১০ দেশের মিলিত জিডিপি হয় বৈশ্বিক জিডিপির ৬৬ শতাংশ। আর বিশ্বের ২৫টি দেশ বৈশ্বিক জিডিপির ৮৪ ভাগের অংশীদার।

বিশ্বের বাকি ১৬৭টি দেশের জিডিপির পরিমাণ কিন্তু খুবই কম, মাত্র ১৬ শতাংশ। নিম্ন জিডিপির দেশগুলোর বেশির ভাগই ওশেনিয়া অঞ্চলের দ্বীপদেশ।

মোট ১৯১টি দেশ নিয়ে তৈরি আইএমএফের এই তালিকায় সর্বশেষ নামটি হচ্ছে টুভালু। ৬৬ মিলিয়ন ডলার জিডিপি নিয়ে দেশটির ১৯১তম অবস্থানে রয়েছে।

যেখানে দাঁড়িয়ে বাংলাদেশ : প্রতিবেদনে দেখা যায়, বৈশ্বিক জিডিপির তালিকা অনুযায়ী বাংলাদেশের অর্থনীতির অবস্থান ৩৫তম। বাংলাদেশের জিডিপির আকার সময় ছিল ৪৬০ বিলিয়ন ডলার বা ৪৬ হাজার কোটি ডলার। বাংলাদেশের ঠিক আগেই রয়েছে সংযুক্ত আরব আমিরাত, মিসর অস্ট্রিয়ার মতো দেশ। আর ঠিক পরেই আছে মালয়েশিয়া, সিঙ্গাপুর ভিয়েতনাম।

 


আরও খবর