Logo
শিরোনাম

গাজীপুর জেলা আ.লীগের সম্মেলণে শীর্ষ দু'পদ নিয়ে নানা গুঞ্জণ

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ১২ মে ২০২২ | হালনাগাদ:সোমবার ১৬ মে ২০২২ | ৮৫জন দেখেছেন
Image

সদরুল আইন,গাজীপুর জেলা প্রতিনিধিঃ

        গাজীপুর জেলা আ.লীগের বহুল আলোচিত  ত্রি-বার্ষিক সম্মেলণ ১৯ শে মে অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে।

রাজধানীর সন্নিকটে গুরুত্বপূর্ণ এ শিল্প জেলার সম্মেলণ ঘিরে এখানকার রাজনীতি এখন টালমাতাল।হিসেব নিকেশের ঝুলি খুলে বসেছেন অনেকেই।অনেকেই আগামি দিনের মধুর স্বপ্নেও বিভোর।

গাজীপুর জেলা আ.লীগের সম্মেলণে কে আসছেন শীর্ষ দু'পদে তা নিয়ে চলছে সমগ্র জেলায় চুলচেরা বিশ্লেষণ।একপক্ষ বলছেন, যেহেতু গাজীপুরের রাজনীতিতে বর্তমান কমিটির হাত ধরে এখানকার আ.লীগ রাজনীতি স্বর্ণযুগে প্রবেশ করেছে সে কারনে বর্তমান কমিটি বহাল রাখা যথার্থ হবে।

অন্য একটি পক্ষ পরিবর্তনের ব্যাপারে অতি উৎসাহী আশাবাদ ব্যক্ত করে সম্মেলণ পরবর্তি নানা কর্মসূচি নিয়ে জনসমুখে কথা বলছেন।তারা বলছেন, শীর্ষ দুটি পদে পরিবর্তন সময়ের ব্যাপার মাত্র।রাজনৈতিক অঙ্গণে তাদের অতি উৎসাহের পেছনের কারন নিয়ে ব্যাপক গুঞ্জণ রয়েছে।

কে বা কারা আসছেন জেলা আ.লীগের কান্ডারি হয়ে তা নিয়ে জেলার মানুষের আগ্রহের কমতি নেই।ইতিমধ্যেই বিভিন্ন সংস্থা ও দলটির বিভিন্ন পর্যায় থেকে একাধিক জরিপ সম্পন্ন হয়েছে।

এসব জরিপে সম্ভাব্য প্রার্থিদের তালিকা, নেতা কর্মি ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় সমৃদ্ধ মানুষের মতামত নেওয়া হয়েছে অতি গোপনে।প্রার্থিদের অতীত, বর্তমান, নৌকা বিরোধী কর্মকান্ডে লিপ্ত কি না,জনপ্রিয়তাসহ তাদের ব্যক্তিগত ও রাজনৈতিক আমলনামা সংগ্রহ এবং সেসব নেতা সম্পর্কে জনগনের ধারনা ও মন্তব্যসমুহ রেকর্ড করা হয়েছে।

সূত্রমতে প্রার্থিদের গোপন আমলনামা বর্তমান ও অতীত কর্মকান্ডের রেকর্ডের পর্যালোচনার ভিত্তিতে এবার পদায়ন করা হবে।এছাড়া সম্মেলণ পরবর্তি যাতে গ্রুপিং রাজনীতি ও অভ্যন্তরিক কোন্দলের  জন্ম না হয় সে লক্ষ্যে সমন্বয় করে এবারের কমিটি গঠন করা হতে পারে বিভিন্ন সূত্র থেকে বলে জানা গেছে।

এদিকে ১৯ শে মে'র সম্মেলণটির প্রথম পর্ব রাজবাড়ি মাঠে জনাকীর্ণ পরিবেশে অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে।এ লক্ষ্যে থানা, পৌরসভা,  ইউনিয়ন ও গ্রাম কমিটিসমুহের বিশেষ বর্ধিত সভা চলমান রয়েছে।

গাজীপুর জেলা আ.লীগের সম্মেলণটি উদ্বোধন করবেন লেঃ কর্ণেল (অবঃ) ফারুক খান এমপি, প্রধান অতিথি হয়ে আসবেন দলটির সাধারন সম্পাদক ও সড়ক ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের এমপি।

গাজীপুর-৩ আসনের সাংসদ ও জেলা আ.লীগের সাধারন সম্পাদক ইকবাল হোসেন সবুজ এর সঞ্চালণায় এবং মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী ও গাজীপুর জেলা আ.লীগের সভাপতি আ,ক,ম মোজাম্মেল হকের সভাপতিত্বে প্রধান বক্তা হিসেবে দলটির সাংগঠনিক সম্পাদক মির্জা আজম এমপি উপস্থিত থাকবেন বলে জানা গেছে।

এছাড়া বিশেষ অতিথি হিসেবে শিক্ষামন্ত্রী ডা,দীপু মনি,মেহের আফরোজ চুমকি এমপি,শিল্প ও বানিজ্য বিষয়ক সম্পাদক সিদ্দিকুর রহমান,কেন্দ্রিয় কমিটির সদস্য মোঃ আনোয়ার হোসেন,মোঃ সাহাবুদ্দিন ফরাজী,ইকবাল হোসেন অপু এমপি,ঢাকা দক্ষিণের সাবেক মেয়র সাঈদ খোকন এবং বঙ্গতাজ কন্যা সিমিন হোসেন রিমি এমপি'র উপস্থিত থাকার কথা রয়েছে।


আরও খবর



পাটুরিয়ায় ঈদযাত্রা নিরাপদ করতে সমন্বিত মতবিনিময়

প্রকাশিত:রবিবার ২৪ এপ্রিল ২০২২ | হালনাগাদ:রবিবার ১৫ মে ২০২২ | ৮৯জন দেখেছেন
Image

মানিকগঞ্জ প্রতিনিধি

ঈদুল ফিতর উপলক্ষে মানিকগঞ্জে নিরাপদে যাত্রী পারাপার ও নিরাপত্তা বিষয়ক মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে।

রবিবার (২৪ এপ্রিল) দুপুরে জেলা প্রশাসনের আয়োজনে শিবালয় উপজেলার পাটুরিয়া ঘাট সংলগ্ন পদ্মা রিভার ভিউ মিলনায়তনে এ সভা অনুষ্ঠিত হয়।

সভায় উন্মুক্ত আলোচনায় সংশ্লিষ্ট প্রশাসনের প্রতিনিধিরা পাটুরিয়া ঘাট এবং মহাসড়কের বিভিন্ন সমস্যা এবং করনীয় নিয়ে আলোচনা করেন। 

আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে পুলিশ, র্যাব এবং আনসার সদস্যরা কাজ করবে। পাশাপাশি নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটের একাধিক ভ্রাম্যমান আদালত পর্যবেক্ষণে দায়িত্বে থাকবে বলে জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে নিশ্চিত করা হয়েছে।

সভায় পুলিশ সুপার গোলাম আজাদ খান বলেন, বিশৃঙ্খলা এবং যাত্রী হয়রানি ঠেকাতে রাজধানী থেকে মানিকগঞ্জ ঢোকার দুটি প্রবেশদ্বার এবং পাটুরিয়া ঘাট এলাকায় আট শতাধিক পুলিশ সদস্যনিয়োজিত থাকবে। যাত্রী ভোগান্তি এবং যাত্রীদের কাছ থেকে অতিরিক্ত ভাড়া আদায়ের ঘটনা ঘটলে দ্রুত ব্যবস্থা নেয়া হবে বলেও হুঁশিয়ারি জানান তিনি।

সরকারি সিদ্ধান্ত অনুযায়ী ঈদের আগে ও পরে দশ দিন পন্যবাহী যানবাহন চলাচল বন্ধ থাকবে ঘাট এলাকায় শুধুমাত্র যাত্রীবাহী পরিবহন চলাচল করবে। ফলে চাপ মোকাবেলা করা সম্ভব হবে বলে জানিয়েছেন বিআইডব্লিউটিসি'র উপ-মহাব্যবস্থাপক শাহ মোহাম্মদ খালেদ নেওয়াজ।

মহাসড়কের উন্নয়ন কাজ, লোকাল গাড়ি ও থ্রি হুইলার ঈদযাত্রায় ভোগান্তি বাড়াবে এমনটা মনে করেন অনেকেই। ঢাকা-আরিচা মহাসড়কের চলমান উন্নয়ন কাজের প্রসঙ্গ টেনে সড়ক ও জনপথ বিভাগের উপ-বিভাগীয় প্রকৌশলী আনিসুর রহমান বলেন, ইতিমধ্যে আমাদের সড়ক উন্নয়ন কাজ শেষ হয়েছে। বিভিন্ন স্টপেজ এলাকায় ডিভাইডার বসানো হয়েছে। ফলে আগের মত দূরপাল্লার বাসগুলোকে আর স্টপেজ এলাকাগুলোতে ধীর গতিতে চলতে হবে না। 

সভায় জেলা প্রশাসক মুহাম্মদ আব্দুল লতিফের সভাপতিত্বে পুলিশ সুপার মোহাম্মদ গোলাম আজাদ খান, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (অপরাধ ও প্রশাসন) হাফিজুর রহমান, অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট জহুরা রহমান, শিবালয় সার্কেলের পুলিশ সুপার নুরজাহান লাবনী, র্যাব -৪ মানিকগঞ্জের কোম্পানি কমান্ডার আরিফ হোসেন, শিবালয় উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা জাহিদুর রহমান, উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান রেজাউল করিম জানু, সড়ক ও জনপথের উপ-বিভাগীয় প্রকৌশলী আনিসুর রহমান, ফায়ার সার্ভিসের উপ-সহকারী পরিচালক মো. শরিফুল ইসলাম, শিবালয় থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. সাহিন, বিআইডব্লিউটিসি'র উপ-মহাব্যবস্থাপক শাহ মোহাম্মদ খালেদ নেওয়াজ, বাস মালিক সমিতির সভাপতি জাহিদুল ইসলাম, মানিকগঞ্জ প্রেসক্লাবের সভাপতি গোলাম ছারোয়ার ছানু প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।


আরও খবর



গাজীপুরে হেরোইনসহ মাদককারবারি লাইলী গ্রেপ্তার

প্রকাশিত:শনিবার ২৩ এপ্রিল ২০২২ | হালনাগাদ:সোমবার ১৬ মে ২০২২ | ৯৩জন দেখেছেন
Image

সদরুল আইন,গাজীপুর প্রতিনিধিঃগাজীপুরের টঙ্গীতে হেরোইনসহ লাইলী (৩৪) নামে এক নারী মাদক কারবারিকে গ্রেফতার করেছে পশ্চিম থানা পুলিশ। 

এ সময় তার কাছ থেকে হেরোইন, মোবাইল ফোন ও নগদ টাকা উদ্ধার করা হয়। টঙ্গীর হাজির মাজারবস্তি এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। আজ শনিবার দুপুরে তাকে গাজীপুর আদালতে পাঠানো হয়।

পুলিশ জানায়, শুক্রবার দিবাগত রাতে হাজির মাজারবস্তি এলাকার পিংকি গার্মেন্ট কারখানার সামনে একদল মাদক কারবারি নেশাজাতীয় দ্রব্য হেরোইন ক্রয়-বিক্রয় করছে। 

এমন গোপন সংবাদের ভিত্তিতে পশ্চিম থানা পুলিশের উপ-পরিদর্শক এসএম মেহেদী হাসানসহ একদল পুলিশ ওই এলাকায় অভিযান পরিচালনা করে লাইলীকে গ্রেফতার করে। 

এ সময় তার হাতে থাকা ভ্যানিটি ব্যাগে তল্লাশি চালিয়ে ২৬০টি পুরিয়া হেরোইন, দুটি মুঠোফোন, মাদক বিক্রির ২৭ হাজার টাকা উদ্ধার করে।পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে আরিফ নামের অপর মাদক কারবারি সটকে পড়ে।  উদ্ধারকৃত হেরোইনের দাম ২ লাখ ৮ হাজার টাকা বলে পুলিশ জানিয়েছে। 

এ বিষয়ে টঙ্গী পশ্চিম থানার অফিসার ইনচার্জ মো. শাহ আলম গণমাধ্যমকে বলেন, এ ঘটনায় থানায় সংশ্লিষ্ট আইনে একটি মামলা হয়েছে।  গ্রেফতার ব্যক্তিকে গাজীপুর বিজ্ঞ আদালতে পাঠানো হয়েছে।


আরও খবর



প্রায় তিন বছর পর নিজ এলাকায় আসছে ওবায়দুল কাদের

প্রকাশিত:বুধবার ০৪ মে ২০২২ | হালনাগাদ:সোমবার ১৬ মে ২০২২ | ৬৯জন দেখেছেন
Image

অনুপ সিংহ,নোয়াখালী প্রতিনিধিঃ

৩৩ মাস পর নিজ নির্বচানী এলাকায় আসছেন বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহনও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। তাঁর আগমণকে ঘিরে উপজেলা আওয়ামীলীগের বিবদমান দুটি গ্রুপের মধ্যে টানটান উত্তেজনা বিরাজ করছে।

অসুস্থতা ও করোনা সংক্রমণের কারণে গত ৩৩ মাস তিনি নিজ নির্বাচনী এলাকা নোয়াখালী-৫ (কোম্পানীগঞ্জ-কবিরহাট উপজেলা) আসতে পারেনি। এর আগে তিনি সর্বশেষ ২০১৯ সালের ১৩ আগস্ট ঈদুল আজহা উদযাপন করতে বাড়িতে আসেন।

আগামীকাল বৃহস্পতিবার (৫এপ্রিল) বেলা সাড়ে ১১টার দিকে কোম্পানীগঞ্জের বড় রাজাপুর গ্রামের নিজ বাড়িতে একটি অনুষ্ঠানে যোগ দিবেন তিনি। ওই অনুষ্ঠানের আয়োজন করে তাঁরই ছোট ভাই বসুরহাট পৌরসভার মেয়র আব্দুল কাদের মির্জা।

অপরদিকে দুপুর ৩টার দিকে কাদের মির্জার প্রতিপক্ষ কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা আওয়ামীলীগের নেতৃবৃন্দের সাথে উপজেলা ডাক বাংলোয় ঈদুল ফিতরের শুভেচ্ছা বিনিময় করার কথা রয়েছে সেতুমন্ত্রীর। এছাড়াও কবিরহাট উপজেলার ও জেলা আওয়ামীলীগের নেতাকর্মিদের সাথেও তিনি ঈদুল ফিতরের শুভেচ্ছা বিনিময় করবেন।

কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা আওয়ামীলীগের বিবদমান দুটি গ্রুপই মন্ত্রীকে বরণ করে নিতে পুরোপুরি প্রস্তুত। এ উপলক্ষে নেই আগের মত সাজসাজ রব। গত দেড় বছরে কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা আওয়ামীলীগে অনেক চড়াই-উৎরাই পেরিয়ে গেছে। তবে তাঁর এ সফরকে বিশেষ তাৎপর্যপূর্ণ মনে করছেন জেলার রাজনৈতিক সচেতন মহল। তবে দেখার বিষয় কোম্পানীগঞ্জ উপজেলার বিবর্ণ রাজনীতিতে এবার কি হবে?

কাদের মির্জা ঘোষিত কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি ইস্কান্দার হায়দার চৌধুরী বাবুল বলেন,কয়েক বছর পর নেতার কোম্পানীগঞ্জে আগমণকে ঘিরে তৃণমূলের নেতাকর্মিদের মাঝে প্রাণের সঞ্চার ঘটেছে।

সেতুমন্ত্রীর ভাগনে ফখরুল ইসলাম রাহাত বলেন, কোম্পানীগঞ্জের রাজনীতিতে বর্তমানে নানা রকম প্রেক্ষাপটে মন্ত্রীর উপস্থিতির প্রয়োজনীয়তা ভালোমতো অনুভূত হচ্ছে। মন্ত্রীর আগমণে নেতাকর্মিদের মাঝে আশার সঞ্চার হয়েছে। স্থানীয় লোকজন আশা করছে কোম্পানীগঞ্জের যে রাজনৈতিক সমস্যা, তা সমাধান হবে।

নোয়াখালীর পুলিশ সুপার (এসপি) মো.শহীদুল ইসলাম বলেন, সেতুমন্ত্রীর আগমণ উপলক্ষে বাড়ির সামনে গার্ড অব অনার মঞ্চ তৈরী করা হয়েছে। পুলিশ মঞ্চস্থল পরিদর্শন করেছে। এলাকায় অতিরিক্ত নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করা হয়েছে।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, গত কয়েক বছর নানা ঘটনায় সমালোচনায় পড়তে হয় কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা আওয়ামীলীগ নেতৃবৃন্দকে। আলোচনার সমালোচনার কেন্দ্র বিন্দুতে ছিলেন সেতুমন্ত্রীর ছোট ভাই বসুরহাট পৌরসভার মেয়র আব্দুল কাদের মির্জা। কাদের মির্জার বিরুদ্ধে নানা অনিয়মের অভিযোগ উঠছে সংগঠনের ভেতর থেকেই। বিতর্কিত কর্মকান্ডের কারণে বার বার খারাপ সংবাদের শিরোনাম হয়েছে। সংগঠন পড়েছে নাজুক অবস্থায়। স্থানীয় রাজনীতিতে তার বিরোধী অংশের নেতৃত্ব দিচ্ছেন সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান মিজানুর রহমান বাদল। তাঁর মূলত খুঁটি হচ্ছে কাদের মির্জার আপন তিন ভাগনে। বাদল ও ভাগনেদের বিরুদ্ধেও কাদের মির্জা মোটা দাগে নানা অভিযোগ তুলেন। একপর্যায়ে দুই গ্রুপের এ দ্বন্দ্ব সংঘাতে কাদের মির্জার প্রধান প্রতিপক্ষ হয়ে দাঁড়ায় তারই আপন তিন ভাগনে। তারা হলেন, উপজেলা আওয়ামী লীগের মুখপাত্র মাহবুবুর রশীদ মঞ্জু, ফখরুল ইসলাম রাহাত ও সিরাজিস সালেকিন রিমন। তিন ভাগনে কাদের মির্জার ৪৮ বছরের রাজনীতির ক্যারিয়ারকে টেক্কা দিয়ে শক্ত হাতে নেতৃত্ব দেয় তার প্রতিপক্ষ গ্রুপকে। এক পর্যায়ে কাদের মির্জার প্রতিপক্ষ শিবিরের আশ্রয়স্থল হয়ে দাঁড়ায় তারা।

উল্লেখ্য,বসুরহাট পৌরসভার মেয়র আবদুল কাদের মির্জা এর আগে নির্বাচনী ব্যবস্থা, দুর্নীতি এবং নোয়াখালী অঞ্চলের আওয়ামী লীগের দ্বন্দ্ব-অসংগতি নিয়ে বক্তব্য দেয় প্রায় এক বছর।  

নির্বাচনের আগে প্রচারণায় আবদুল কাদের মির্জার যে বক্তব্য সামাজিক মাধ্যমে ভাইরাল হয়, তিনি তাতে বলেছিলেন, সুষ্ঠু নির্বাচন হলে তিন-চারটি আসন বাদে তাদের অন্য এমপিরা পালানোর পথ খুঁজে পাবে না। নির্বাচনে বিজয়ী হওয়ার পরও তিনি অনেক খোলামেলা বক্তব্য দেন দীর্ঘ সময়। কাদের মির্জার বক্তব্য নিয়ে দেশজুড়ে আলোচনার সৃষ্টি করে।

আব্দুল কাদের মির্জার সমর্থক এবং তার বিরোধী গ্রুপ মিজানুর রহমান বাদলের নেতৃত্বাধীন অংশের মধ্যে সংঘর্ষের পর দু'পক্ষই ঘটনার জন্য একে অপরকে ধুষেন।  

মূলত কাদের মির্জার পারিবারিক ভুল বুঝাবুঝি সূত্র ধরে এ দ্বন্দ্বের সূত্রপাত। এরপর উপজেলা আওয়ামী লীগের নেতাদের মধ্যেই এই বিরোধের ছড়িয়ে পড়ে। একপর্যায়ে জেলা আওয়ামীলীগের রাজনীতে এ অভ্যন্তরীণ বিরোধ ছড়িয়ে যায়। সেই বিরোধের জের ধরে গত কয়েকমাসে উভয় পক্ষের সমর্থকদের মধ্যে একাধিক সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। এসব সংঘর্ষে একজন সাংবাদিকসহ দুই জন নিহত হয়। আহত হয় প্রায় এক হাজার নেতাকর্মি। পাল্টাপাল্টি ৭২টি মামলা হয়। এতে আসামি হয় উভয় পক্ষের প্রায় সাত হাজার তৃণমূলের নেতাকর্মি। এখনো বাড়ি ছাড়া রয়েছে হাজার হাজার নেতাকর্মি। ঈদুল ফিতর উদযাপন করতে অনেকে বাড়ি আসতে পারেনি। তৃণমূলের কর্মিরা আশা করছে এ কোন্দল নিরসন হলে তারা আগের মতো চলাফেরা করতে পারেব।


আরও খবর



আশার বাণী দেখিয়ে শিশু ধর্ষণ, গ্রেফতার ১

প্রকাশিত:শনিবার ৩০ এপ্রিল ২০২২ | হালনাগাদ:সোমবার ১৬ মে ২০২২ | ৮৭জন দেখেছেন
Image

অনুপ সিংহ,নোয়াখালী প্রতিনিধিঃ

নোয়াখালীর চাটখিল উপজেলায় (৭) বছর বয়সী এক শিশুকে ধর্ষণের অভিযোগে উঠেছে।

শনিবার (৩০এপ্রিল) সকালে এ ঘটনায় শিশুটির মা বাদী হয়ে নারীও শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলা দায়ের করেছেন। এর আগে মৌখিক অভিযোগের ভিত্তিত্বে শুক্রবার রাতে অভিযুক্ত আসামিকে উপজেলার পশ্চিম বদলকোট গ্রাম থেকে গ্রেফতার করে পুলিশ।

গ্রেফতারকৃত যুবকের নাম মো.সুমন (২৫) সে উপজেলার পশ্চিম বদলকোট গ্রামের শেখ বাড়ির আব্দুল কুদ্দুছের ছেলে।

চাটখিল থানার পরিদর্শক (তদন্ত) হুমায়ন কবির বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, গতকাল শুক্রবার ২৯ এপ্রিল সকালের দিকে নির্যাতিত শিশুটির মা বাড়ির পাশে একটি বাসায় ঝিয়ের কাজ করতে যায়। তখন তাঁর সাত বছর বয়সী মেয়েটি মায়ের সঙ্গে ছিল। একপর্যায়ে দুপুরের দিকে শিশুটি মাকে বলে বাড়ির উদ্দেশ্যে রওয়ানা দেয়। বাড়ি ফেরার পথে শিশুটি নির্জন রাস্তায় দাঁড়িয়ে ছিল। ওই সময় তাকে বাড়িতে নিয়ে যাওয়ার কথা বলে পাড়ার আত্মীয় সুমন পার্শ্ববতী জঙ্গলে নিয়ে ধর্ষণ করে। বিষয়টি জানাজানি হলে শুক্রবার সন্ধ্যায় ভুক্তভোগী শিশুর মায়ের মৌখিক অভিযোগের ভিত্তিত্বে তাৎক্ষণিক অভিযান চালিয়ে অভিযুক্ত যুবককে গ্রেফতার করে পুলিশ।

পরিদর্শক তদন্ত আরো জানায়,ভিকটিমকে ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালে পাঠানো হচ্ছে। শিশুটির মায়ের দায়ের করা মামলায় গ্রেফতার দেখিয়ে আসামিকে নোয়াখালী চীফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে সোপর্দ করা হয়েছে।


আরও খবর



আজ থেকে ট্রেনের টিকিট বিক্রি শুরু

প্রকাশিত:শনিবার ২৩ এপ্রিল ২০২২ | হালনাগাদ:রবিবার ১৫ মে ২০২২ | ৭৩জন দেখেছেন
Image

আসন্ন ঈদ-উল-ফিতর উপলক্ষে ঘরমুখো যাত্রীদের জন্য ট্রেনের টিকিট বিক্রি শুরু হবে আজ শনিবার সকাল ৮টা থেকে। চলবে ২৭ এপ্রিল পর্যন্ত। প্রতিদিন সকাল ৮টা থেকে বিকাল ৪টা পর্যন্ত ট্রেনের অগ্রীম টিকিট বিক্রি করা হবে। ইন্টারনেটেও ই-টিকিটিংয়ের মাধ্যমে অগ্রিম টিকিট বিক্রি সকাল ৮টা থেকে শুরু হবে।

‘টিকিট যার ভ্রমণ তার’ নিশ্চিত করতে যাত্রীদের এনআইডি বা জন্ম নিবন্ধন সনদের ফটোকপি কাউন্টারে প্রদর্শন করে টিকিট কিনতে হবে। একজন যাত্রী একসঙ্গে সর্বোচ্চ চারটি টিকিট কিনতে পারবেন। ঈদের অগ্রিম বিক্রিত টিকিট ফেরৎ নেওয়া হবে না।

যাত্রীর চাপ কমানোর লক্ষ্যে ঢাকা শহরের ৫টি কেন্দ্র টিকিট বিক্রি করা হবে। স্থানগুলো হলো- কমলাপুর, ঢাকা বিমানবন্দর, তেজগাঁও, ঢাকা ক্যান্টনমেন্ট ও ফুলবাড়িয়া (পুরাতন রেলওয়ে স্টেশন)।

এর আগে গত ১৩ এপ্রিল সংবাদ সম্মেলনে রেলমন্ত্রী মো. নূরুল ইসলাম সুজন জানিয়েছিলেন, প্রতিটি টিকিট বিক্রয় কেন্দ্রে মহিলা ও প্রতিবন্ধীদের জন্য একটি করে কাউন্টার থাকবে। প্রতিটি আন্তঃনগর ট্রেনে শুধুমাত্র মহিলা ও প্রতিবন্ধী যাত্রীদের জন্য একটি করে স্বতন্ত্র কোচ সংযোজন করা হবে।

তিনি বলেন, ঢাকা হতে বর্হিগামী ট্রেনে প্রতিদিন মোট আসন সংখ্যা হবে ২৬ হাজার ৬৬৩টি, যার অর্ধেক টিকিট কাউন্টারে এবং অর্ধেক টিকিট অনলাইনে বিক্রি করা হবে। ঢাকা হতে ২টি ঈদ স্পেশাল ট্রেনের আরও ১৫০০ আসনের টিকিট কাউন্টারে বিক্রি হবে।

ভ্রমণের সুবিধার্থে ছয় জোড়া বিশেষ ট্রেন পরিচালনার সিদ্ধান্ত নিয়েছে রেলপথ মন্ত্রণালয়। পবিত্র ঈদ-উল-ফিতরের সাত দিন পূর্বে ২৫ এপ্রিল থেকে ঈদের পূর্ব দিন পর্যন্ত আন্তঃনগর ট্রেনসমূহের অফ-ডে থাকবে না এবং ঈদ পরবর্তীতে যথারীতি অফ-ডে কার্যকর করা হবে। অফ-ডে প্রত্যাহারের ফলে অতিরিক্ত ৯২টি আন্তঃনগর ট্রেন বিশেষ টিপ হিসেবে পরিচালিত হবে। ঈদুল ফিতরের দিন কোনো আন্তঃনগর ট্রেন চলাচল করবে না।

ঈদ পরবর্তী টিকিট বিক্রি শুরু হবে ১ মে, চলবে ৪ মে পর্যন্ত। ২, ৩ ও ৪ মে এর অগ্রিম টিকিট বিক্রি চাঁদ দেখার ওপর নির্ধারণ করা হবে। ঈদ উপলক্ষে অতিরিক্ত চাহিদা মেটানোর জন্য মোট ৯২টি যাত্রীবাহী কোচ সার্ভিসে অন্তর্ভুক্ত করা এবং ২১৮টি লোকোমোটিভ যাত্রীবাহী ট্রেনে ব্যবহারের পরিকল্পনা গ্রহণ করা হয়েছে। টিকিট কালোবাজারি প্রতিরোধে পুলিশ এবং র‌্যাব সার্বক্ষণিক পাহারায় থাকেবে। এছাড়া জেলা প্রশাসকদের সহায়তায় ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করা হবে।


আরও খবর