Logo
শিরোনাম
মেঘনা নদীতে গোসল করার সময় নিখোঁজ ছাত্রের মরদেহ উদ্ধার রাজবাড়ীতে ট্রাকের সাথে সংঘর্ষে মোটর সাইকেল আরোহীর মৃত্যু রাজবাড়ীতে আবৃত্তি ও কথামালায় প্রকাশনা উৎসব নওগাঁয় মোটরসাইকেলের ধাক্কায় স্কুল ছাত্র নিহত-মা ও ছোট বোন আহত মোরেলগঞ্জে শ্রমীকদের মাঝে শীতবস্ত্র বিতরণ করলেন এমপি মিলন লালমনিরহাটে বিদ্যুৎ স্পৃষ্টে মারাগেছে স্কুলছাত্র নওগাঁয় বোরো ধান চাষের শুরুতেই বিদ্যুতের লোড শেডিং, দুঃশ্চিন্তায় কৃষকরা নওগাঁয় ৩৫ কোটি টাকা মূল্যের কষ্টিপাথরের মূর্তি উদ্ধার করেছে পুলিশ কুড়িগ্রামের শীতকাতর অসহায় মানুষের পাশে কেন্দ্রীয় যুবলীগ নেত্রকোনায় বিশ্ব জলাভূমি দিবস উপলক্ষে মানববন্ধন

হাতিবান্ধা সীমান্তে বাংলাদেশীকে পিটিয়ে হত্যা

প্রকাশিত:Sunday ২৭ November ২০২২ | হালনাগাদ:Friday ০৩ February ২০২৩ |
Image

নিজস্ব প্রতিনিধি : 

লালমনিরহাটের হাতীবান্ধা সীমান্তে মোঃ শরিফুল ইসলাম সাদ্দাম (২৮) নামে এক বাংলাদেশীকে বিএসএফের বন্দুকের বাট দিয়ে পিটিয়ে হত্যার  অভিযোগ উঠেছে।

রোববার (২৭ নভেম্বর) সকালে সীমান্ত এলাকা থেকে আহত অবস্থায় তাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নেয়ার পথে সে নিহত হয়। এর আগে ওই দিন ভোরবেলা উপজেলার গেন্দুকরি সীমান্ত থেকে বিএসএফ তাকে ধরে নিয়ে যায়। পরে তাকে তাদের ক্যাম্পে নিয়ে বন্দুকের বাট ও লাঠি দিয়ে পিটুনি দিলে সে গুরুতর আহত হয়।

নিহত শরিফুল ইসলাম সাদ্দাম গোতামারী এলাকার আছিম উদ্দিনের ছেলে।

স্থানীয়রা জানান, প্রকৃতির ডাকে শনিবার ভোরবেলা শরিফুল বাংলাদেশের অভ্যন্তরের ৯০১ নম্বর পিলারের কাছে গেলে বিএসএফ সদস্যরা তাকে চোর সন্দেহে ক্যাম্পে ধরে নিয়ে যায়। পরে ক্যাম্পের সদস্যরা তাকে লাঠি ও বন্দুকের বাট দিয়ে দিয়ে বেধড়ক পিটিয়ে আহত করে। এতে শরিফুল অসুস্থ হয়ে পড়লে বিএসএফ সদস্যরা তাকে বাংলাদেশের গোতামারী ইউনিয়নের ভুটিয়ামঙ্গল নামক সীমান্ত এলাকায় তাকে ফেলে দিয়ে যায়। পরে সেখান থেকে রবিবার সকালে শরিফুলের পরিবারের লোকজন তাকে গুরুতর আহত অবস্থায় উদ্ধার করে হাসপাতালে নেওয়ার পথে সে মারা যায়।

হাতীবান্ধা থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) শাহা আলম জানান, সীমান্ত এলাকা থেকে আহত অবস্থায় শরিফুলকে উদ্ধার করা হলেও বিএসএফ’র প্রহারে তার মৃত্যু হয়েছে কি না তিনি নিশ্চিত নন। তবে মরদেহের ময়না তদন্ত সম্পন্ন হলেই মৃত্যুর কারন জানা যাবে।


আরও খবর



র‌্যাবের অভিযান-ফেন্সিডিল সহ এক যুবক আটক

প্রকাশিত:Wednesday ০১ February ২০২৩ | হালনাগাদ:Friday ০৩ February ২০২৩ |
Image

শহিদুল ইসলাম জি এম মিঠন :

র‌্যাব-৫, সিপিসি-৩, জয়পুরহাট কাম্পের মাদক বিরোধী অভিযানে ৩০২ বোতল ফেন্সিডিল সহ মাদক কারবারি এক যুবক হাতেনাতে আটক।

সত্যতা নিশ্চিত করে র‌্যাব কাম্প থেকে প্রতিবেদক কে জানানো হয়, র‌্যাব-৫, সিপিসি-৩, জয়পুরহাট ক্যাম্পের একটি চৌকশ অপারেশনাল দল কোম্পানি অধিনায়ক মেজর মোঃ মোস্তফা জামান এর নেতৃত্বে মঙ্গলবার রাত পনে ৩ টারদিকে দিনাজপুর জেলার হাকিমপুর থানাধীন রিকাবি চকচকা এলাকায় অভিযান পরিচালনা করে ৩০২ বোতল ফেন্সিডিল সহ মাহফুজার রহমান ওরফে সাবু (৩৭) নামের এক মাদক কারবারী যুবককে হাতেনাতে আটক করা হয়।

আটককৃত মাদক কারবারী যুবক হলেন, দিনাজপুর জেলার হাকিমপুর উপজেলার রিকাবি চকচকা গ্রামের মোঃ মতিয়ার রহমানের ছেলে মাহফুজার রহমান ওরফে সাবু।

র‌্যাব আরো জানায়, আটককৃত মাদক কারবারী জলেন (রিকাবী চকচোকা) এলাকার একজন বড় মাদক ব্যবসায়ী। ঘটনার সময় সে পার্বতীপুর সীমান্ত এলাকা থেকে ফেন্সিডিলের বড় চালান আনছে এবং ভোরে সেই মাদক ফেন্সিডিল খুচড়া পাটিদের মাঝে বিক্রি করা হবে এমন গোপন সংবাদের ভিত্তিতে র‌্যাব-৫, সিপিসি-৩ (জয়পুরহাট) এর একটি চৌকশ অপারেশন দল ওই এলাকায় অভিযান চালিয়ে তাকে ফেন্সিডিল সহ গ্রেফতার করেন।

এব্যাপারে নিকটস্থ থানায় মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইন-২০১৮ অনুসারে মামলা দায়ের করা হয়েছে বলেও নিশ্চিত করেছে র‌্যাব।


আরও খবর



চার বছরের ভাতিজিকে ধর্ষণের অভিযোগে চাচার বিরুদ্ধে মামলা

প্রকাশিত:Tuesday ১০ January ২০২৩ | হালনাগাদ:Wednesday ০১ February ২০২৩ |
Image

অনুপ সিংহ,নোয়াখালী প্রতিনিধি :


নোয়াখালীর কবিরহাটে চার বছর বয়সী এক শিশুকে ধর্ষণের অভিযোগে দূর সম্পর্কের চাচার বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে। 

অভিযুক্ত আবদুল আউয়াল ওরফে সাজু (২৫) উপজেলার নরোত্তমপুর ইউনিয়নের ৫নম্বর ওয়ার্ডের মির্জানগর গ্রামের আবুল কালাম ওরফে বাশার আমিনের ছেলে।   

গতকাল রোববার (৮ জানুয়ারি) রাত ১০টার ভুক্তভোগী শিশুর বাবা বাদী হয়ে নারীও শিশু নির্যাতন দমন আইনে এই মামলা দায়ের করেন।  এর আগে, গত ১৯ ডিসেম্বর বেলা ১১টার দিকে উপজেলার নরোত্তমপুর ইউনিয়নে এই ঘটনা ঘটে।  

পুলিশ ও মামলা সূত্রে জানা যায়, গত ১৯ ডিসেম্বর বেলা ১১টার দিকে অভিযুক্ত যুবক সাজু ভিকটিম শিশুকে ২টি সিভিট ট্যাবলেট দিয়ে তার ঘরে নিয়ে যায়। একপর্যায়ে আরো সিভিট দেওয়ার লোভ দেখিয়ে সেখানে ভিকটিমকে ধর্ষণ করে সাজু। ভুক্তভোগী শিশু বিষয়টি তার মাকে জানালে অভিযুক্ত সাজু দৌড়ে পালিয়ে যায়। পরে সেখান থেকে নির্যাতিত শিশুকে ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসা দেওয়া হয়।    

 জানতে চাইলে কবিরহাট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো.রফিকুল ইসলাম ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেন। তিনি বলেন, এই ঘটনায় ভিকটিমের বাবা বাদী হয়ে নারী শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলা দায়ের করেছেন। পুলিশ  অভিযুক্ত আসামিকে গ্রেফতারে চেষ্টা চালাচ্ছে।


আরও খবর



ভুট্টা ক্ষেতের ভেতরে শিশুকে বলাৎকারের চেষ্টা, দুই কিশোর আটক

প্রকাশিত:Friday ২০ January ২০23 | হালনাগাদ:Thursday ০২ February 2০২3 |
Image

হিদুল ইসলাম জি এম মিঠন, স্টাফ রিপোর্টার :

নওগাঁয় বরই খাওয়ানোর লোভ দেখিয়ে ৬ বছর বয়সী এক শিশুকে ভুট্টার ক্ষেতের ভিতরে নিয়ে বলাৎকারের চেষ্টা করায় ঘটনায় অভিযুক্ত দুই কিশোর আটক পরেছে পুলিশ। মামলা দায়ের করার পর থানা পুলিশ অভিযুক্ত দুই কিশোরকে আটক পূর্বক বুধবার বিজ্ঞা আদালতে প্রেরণ করেছেন।

সম্পতি ঘটনাটি ঘটে নওগাঁর রাণীনগর উপজেলার মিরাট ইউনিয়ন এর তিন নম্বর সুইচগেট এলাকায়। এঘটনায় মঙ্গলবার রাতে ভিকটিম শিশুর বাবা বাদি হয়ে দুই কিশোর এর বিরুদ্ধে রাণীনগর থানায় মামলা দায়ের করেন। 

মামলার প্রেক্ষিতে থানা পুলিশ অভিযুক্ত ১২ ও ১৪ বছর বয়সী দুই কিশোরকে আটক করেন। আটককৃত দুই কিশোর হলেন, রানীনগর উপজেলার হামিদপুর তিন নম্বর সুইচগেট এলাকার বাসিন্দা।

এব্যাপারে রাণীনগর থানার (ওসি) আবুল কালাম আজাদ বলেন, সোমবার বিকেলে ঐ শিশু বাড়ি থেকে বেরিয়ে সুইচগেট এলাকায় তার এক সহপাঠীর সাথে খেলাধুলা করছিলো। এ সময় বরই খাওয়ানোর লোভ দেখিয়ে খেলার সহপাঠীকে কৌশলে পুকুরের পাশে বসে রেখে ৬ বছর বয়সী শিশুটিকে ভুট্টাখেতে নিয়ে যায় একই গ্রামের দুই কিশোর এবং শিশুটিকে বলাৎকারের চেষ্টা চালায়।এসময় শিশুর চিৎকারে তার খেলার সহপাঠী গিয়ে ঘটনাটি দেখে ফেলে। এসময় ঘটনাটি কাউকে না বলতে শিশু ও তার খেলার সহপাঠীকে হুমকি দিয়ে অভিযুক্ত দুই কিশোর সেখান থেকে পালিয়ে যায়।

ঘটনার পর বাড়ি ফিরে ঐ শিশু তার পরিবারকে বিষয়টি জানালে শিশুর বাবা বাদি হয়ে মঙ্গলবার রাতে রাণীনগর থানায় মামলা দায়ের করেন।

মামলার প্রেক্ষিতে অভিযুক্ত দুই কিশোরকে আটক করে বুধবার বিজ্ঞ আদালতে প্রেরণ করা হয়েছে বলেও জানিয়েছেন তিনি।


আরও খবর



সুলতান আলাউদ-দীন হোসাইন শাহের কবর ফলক স্থানান্তর

প্রকাশিত:Monday ২৩ January 20২৩ | হালনাগাদ:Friday ০৩ February ২০২৩ |
Image

শহিদুল ইসলাম জি এম মিঠন :

নওগাঁর মান্দায় ঐতিহাসিক কুসুম্বা মসজিদে যাতায়াতের রাস্তার ধারে থাকা সাংস্কৃতিক অঙ্গনের কালো পাথরের প্রাচীন নিদর্শনটি ''সুলতান আলাউদ-দীন হোসাইন শাহের কবর ফলক বা শিরোনা'' স্থানান্তর করা হয়েছে। প্রত্নতত্ত্ব অধিদপ্তরের উদ্যোগ ও স্থানীয় প্রশাসনের সহায়তায় শনিবার ২১ জানুয়ারী দুপুরে কুসুম্বা মসজিদের উত্তর পাশে তেঁতুলতলায় এটি সরিয়ে নেওয়া হয়।

এসময় প্রত্নতত্ত্ব অধিদপ্তর রাজশাহী ও রংপুর অঞ্চলের আঞ্চলিক পরিচালক ড. নাহিদ সুলতানা, প্রত্নতাত্ত্বিক যাদুঘর মহাস্থানগড়ের কাষ্টোডিয়ান রাজিয়া সুলতানা, প্রত্নতাত্ত্বিক যাদুঘর পাহাড়পুরের কাষ্টোডিয়ান ফজলুল করিম, প্রত্নতত্ত্ব অধিদপ্তর রাজশাহী ও রংপুর অঞ্চলের গবেষনা সহকারী হাসানাত বিন ইসলাম, মান্দা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) আবু বাক্কার সিদ্দিক, উপজেলা প্রকৌশলী শাইদুল ইসলাম মিয়া, কুসুম্বা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান নওফেল আলী মণ্ডল, কুসুম্বা শাহী মসজিদের সাধারণ সম্পাদক শরিফুল ইসলাম প্রমূখ উপস্থিত ছিলেন।

এ প্রসঙ্গে প্রত্নতত্ত্ব অধিদপ্তর রাজশাহী ও রংপুর অঞ্চলের আঞ্চলিক পরিচালক ড. নাহিদ সুলতানা বলেন, কালো পাথরের খণ্ডটি সাংস্কৃতিক অঙ্গনের প্রাচীন একটি নিদর্শন। এটি সুলতান আলাউদ-দীন হোসাইন শাহের কবর ফলক বা শিরোনা কিনা বলা যাচ্ছে না। লিপিটার পাঠোদ্ধার হলেই বিস্তারিত জানা যাবে বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

জনশ্রুতি আছে সুলতান আলাউদ-দীন হোসাইন শাহের স্ত্রী কুসুম বিবি সেই সময় মান্দার কুসুম্বা গ্রামে অবস্থান করতেন। সেই সুবাদে শেষ বয়সে সুলতান কুসুম্বা গ্রামে স্ত্রীর কাছে অবস্থান করাও বিচিত্র নয়। যেহেতু সুলতান আলাউদ-দীন হোসাইন শাহ মৃত্যুর সময় কোথায় অবস্থান করছিলেন প্রচলিত গ্রন্থে তার উল্লেখ না থাকায় ধরে নেওয়া যায় তিনি কুসুম্বাতে সমাহিত রয়েছেন। প্রাচীন এ নিদর্শন সম্পর্কে ইতিহাসবিদ অধ্যাপক ইমরুল কায়েস চৌধুরী ‘কালান্তরে নওগাঁ’ গ্রন্থে উল্লেখ করেন লিপিযুক্ত প্রস্তর খণ্ডটি সুলতান আলাউদ-দীন হোসাইন শাহ্রে কবর ফলক বা শিরোনা।


আরও খবর



নেত্রকোনায় বিশ্ব জলাভূমি দিবস উপলক্ষে মানববন্ধন

প্রকাশিত:Thursday ০২ February 2০২3 | হালনাগাদ:Friday ০৩ February ২০২৩ |
Image

জেলা প্রতিনিধি, নেত্রকোনা :

নেত্রকোনায় বিশ্ব জলাভূমি দিবস ২০২৩ উপলক্ষে জলাভূমি রক্ষার দাবী জানিয়ে মানববন্ধন হয়েছে। 

আজ বৃহস্পতিবার সকাল ১০ টায় শহরের মোক্তারপাড়া পৌরসভার সামনের সড়কে বিভিন্ন প্লে কার্ড নিয়ে বিক্ষোভ করেছে শিক্ষা সংস্কৃতি পরিবেশ ও বৈচিত্র্য রক্ষা কমিটি এবং সম্মিলিত যুব সমাজ।  

বিক্ষোভে প্রাণ প্রকৃতি বাঁচাতে নেত্রকোনার হাওড়, নদী, বিল, পুকুরসহ সকল প্রকার জলাভূমি সংরক্ষণের দাবী জানানো হয়। পাশাপাশি এই হাওরাঞ্চলের জন্য আলাদা বাংলা গঠনের দাবি জানান। 

বক্তারা এসময় বলেন, জলাভূমি প্রকৃতির ফুসফুস তাই ফুসফুসের যত্ন নেয়া আগে প্রয়োজন।  

এসব স্লোগানকে সাধুবাদ জানিয়ে পরিবেশ নিয়ে কাজ করা সকল সংগঠনের নেতৃবৃন্দ এতে অংশ নেয়। 

উপস্থিত ভক্তদের মধ্যে শ্যামলেন্দু পাল বলেন, পরিবেশ রক্ষায় সরকারি জরুরি উদ্যোগ নেওয়া প্রয়োজন। বর্তমান যে নদী গুলো আছে এই নদীর রক্ষা এবং খনন করা উচিত। এই নদীর পানি দিয়ে কৃষি বর্তমানের মধ্যে স্তর নিচে নেমে যাচ্ছে এবং পানি কমে যাচ্ছে। এতে করে অচিরেই নেত্রকোনার সকল নদী তার নাবতা হারাবে।

অধ্যাপক কামরুল ইসলাম জানান, আমাদের নেত্রকোনা হাওর বেষ্টিত জেলা এ জেলার সবকিছুই হাওড়া উপর নির্ভরশীল, হাওর গুলো সঠিক পরিচয়টা না করায় প্রতিবছর এই অঞ্চলে বন্যা ফসল ক্ষতির মুখে পড়ে। দেখা যায় বিভিন্ন নদীতে  অবৈধভাবে ড্রেজার দিয়ে বালু উত্তোলন হচ্ছে। যার ফলে বর্ষায় নদী ভাঙ্গন দেখা দেয় এবং নদীর পাড়ের ফসল বিলীন হয়ে যায়। 

উপস্থিতিদের মধ্যে আরো বক্তব্য রাখেন সামাজিক পরিবেশ রক্ষা কমিটির সদস্যরা এবং সাবাদিকরা।


আরও খবর