Logo
শিরোনাম

ইটনা প্রায় ২০০টি ফার্মেসীর মধ্যে ড্রাগ লাইসেন্স আছে মাত্র ০৯টির

প্রকাশিত:শনিবার ৩০ জুলাই ২০২২ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ০৬ অক্টোবর ২০২২ |
Image

মোঃ মুজাহিদ সরকার,কিশোরগঞ্জ:

কিশোরগঞ্জের ইটনা উপজেলার সদর ইউনিয়ন বাজারে ২৩-২৫টা ছাড়াও ০৮টি ইউনিয়নের বিভিন্ন বাজার ও মহল্লায় আনুমানিক দুই শতাধিক ওষুধের দোকান গড়ে উঠেছে। হাতেগোনা কয়েকটি দোকান ছাড়া বেশিরভাগ ওষুধের দোকানে লাইসেন্স, কেমিস্ট ও ফার্মাসিস্ট ছাড়াই চলছে রমরমা ওষুধ ব্যবসা। 

জানা যায়, প্রশাসনের কোন রকম নজরদারি না থাকায় আইনের তোয়াক্কা না করে সরকারি রেজিস্ট্রার্ড চিকিৎসকের প্রেসক্রিপশন ছাড়াই এন্টিবায়েটিক, ঘুমের ঔষুধসহ সব ধরনের ওষুধ বিক্রি করছেন ব্যবসায়ীরা। তাছাড়া অবাধে বিক্রি হচ্ছে যৌন উত্তেজক টেবলেট ও মহিলাদের গর্ভপাতের ওষুধ। আবার অনেক ফার্মেসিতে ওষুধ বিক্রির পাশাপাশি রোগের চিকিৎসাও দেয়া হচ্ছে। 

কিশোরগঞ্জ জেলা থেকে ইটনা উপজেলার অতিরিক্ত দূরত্ব হওয়ায় নিম্ন আয়ের মানুষের চিকিৎসাসেবার অন্যতম মাধ্যম হয়ে উঠেছে লাইসেন্সবিহীন এসব ফার্মেসী। আর এতে করে মারাত্বক স্বাস্থ্য ঝুঁকি মধ্যে পড়ছেন উপজেলার মানুষ। অন্যদিকে লাভবান হচ্ছে একদল ওষুধ ব্যবসায়ী। 

ওষুধ প্রশাসন অধিদপ্তর(কিশোরগঞ্জ) সূত্রে জানা যায়, ইটনা উপজেলায় সরকারিভাবে ড্রাগ লাইসেন্সধারী ফার্মেসী রয়েছে মোট ৭৩টি। এর মধ্যে অ্যালোপ্যাথিক ৬৯টি, হোমিওপ্যাথিক ০২টি এবং ইউনানি ০১টি এবং হোল সেল ১টি ফার্মেসী রয়েছে। উল্লেখ্য যে, ইটনা উপজেলায় এই ৭৩টি এর মধ্যে শুধুমাত্র ০৯টি অ্যালোপ্যাথিক ফার্মেসীর ড্রাগ লাইসেন্স নবায়ন করা হয়েছে। নবায়ন হয়েছে "গীতা ড্রাগ হাউজ,জয়িতা ফার্মেসী,মুসলিম মেডিকেল হল,সাথী ফার্মেসী, ইসলামিয়া ফার্মেসী,জয় মেডিসিন সেন্টার,উর্মি মেডিকেল হল, পুষ্পকলি ওষুধালয় এবং জননী মেডিসিন গার্ডেন। কিছু ফার্মেসী আছে ২০১০-১৪ইং সালের পর আর নবায়ন করা হয় নাই কিন্ত উপর মহল ম্যানেজ করে ওষুধের রমরমা ব্যবসা বাণিজ্য চলছে। 

সঠিক তথ্য নিশ্চিত করার জন্য, ওষুধ ফার্মেসীতে সাজানো রোগী পাঠায় রেজিস্টার্ড চিকিৎসকের ছারপত্র ছাড়াই। আমাদের সাজানো ক্রেতা র চাহিবার মাত্রই এন্টিবাইটিক ওষুধ বিক্রি করেন ফার্মেসীতে দায়িত্বরত লোকজন অথচ তাদের ফার্মাসিস্ট সার্টিফিকেট নাই। একই চিত্র উপজেলার প্রতিটি ইউনিয়নের ফার্মেসীগুলোতেও।

দেখা যায়, আবার অনেক ফার্মেসীতে মানুষের ওষুধের পাশাপাশি গরু-ছাগল, হাঁস মুরগির ওষুধও বিক্রি করতে। এসব ঔষুধ সংরক্ষণও করা হয় যেনতেন ভাবে। 

গত ২৪ শে নভেম্বর ২০২০ইং নীলফামারীতে মডেল ফার্মেসী উদ্বোধনের সময় বাংলাদেশ ঔষধ প্রশাসন অধিদপ্তরের মহাপরিচালক (ডিজি) মেজর জেনারেল মো. মাহবুবুর রহমান বলে ছিলেন, ওষুধ ফার্মেসী স্থাপন করতে হলে ড্রাগ লাইসেন্স ও ফার্মাসিস্ট থাকতে হবে। ড্রাগ লাইসেন্স এবং ফার্মাসিস্ট ছাড়াই যেসব ফার্মেসী স্থাপন করা হয়েছে, তা আইনানুযায়ী অবৈধ। ওই সব অবৈধ ফার্মেসীতে কোনো ওষুধ কোম্পানি ওষুধ সরবরাহ করতে পারবে না। ড্রাগ লাইসেন্স ও ফার্মাসিস্ট ছাড়া যেসব ওষুধের দোকান চালু আছে, তা ক্রমান্বয়ে বন্ধ করে দেওয়া হবে। 

নামপ্রকাশ না করার শর্তে এক ফার্মেসীর মালিক বলেন, আমরা ইটনা সদরের সব থেকে বড় ওষুধের দোকান 'গীতা ড্রাগ হাউজ' থেকে ওষুধ কিনে এনে বিক্রি করি। আমার মতো ড্রাগ লাইসেন্সবিহীন বিভিন্ন ইউনিয়নের ওষুধের দোকানে সব ধরনের ওষুধ বিক্রি করে গীতা ড্রাগ হাউজ কিন্ত গীতা ড্রাগ হাউজের হোলসেল করার অনুমতি নেই। 

গীতা ড্রাগ হাউজের মালিক সনজিত রায় বলেন, আমার এখন থেকে যারা ওষুধ কিনে নেন তাদের বেশিরভাগ-ই গ্রামের মহল্লার ছোট ছোট ওষুধ ব্যবসায়ী। ড্রাগ লাইসেন্স আছে নাকি নাই এগুলো ওষুধ কোম্পানি থেকেও খোঁজ করেন না তবে আমরা ফার্মেসীর মালিকদের সাথে মিটিং করে বার বার বলছি ড্রাগ লাইসেন্স করার জন্য। 

উর্মি মেডিকেল হলের মালিক শাওন চন্দ্র দে বলেন, আমরা সরকারের নির্দেশ মেনে ট্যাক্স দিয়ে ড্রাগ লাইসেন্স নবায়ন করে বৈধ ভাবে ব্যবসা করছি। অনেকে ট্রেড লাইসেন্স ও ড্রাগ লাইসেন্স না থাকার পরও জমজমাট ব্যবসা করে যাচ্ছে। প্রশাসনের উচিত মোবাইল কোর্ট করে জরিমানা দিয়ে ছেড়ে না দিয়ে তাদের ড্রাগ লাইসেন্স গুলো দ্রুত করার জন্য সহযোগিতা করা। 

ইটনা উপজেলা ওষুধ ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি ও ওষুধ ব্যবসায়ী হায়দার আলী বলেন, আমরা সবাই কে বলবো ড্রাগ লাইসেন্স করার জন্য এবং যাদের ড্রাগ লাইসেন্স আছে তাদের নবায়ন করার জন্য। তিনি আরও বলেন, কিছুদিনের মধ্যে ওষুধ ব্যবসায়ীদের কে নিয়ে মিটিং করবো।

ইটনা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডা.প্রসূন সাহা বলেন, চিকিৎসক এর প্রেসক্রিপশন ব্যতীত অপ্রয়োজনীয় এন্টিবায়োটিক, ব্যাথানাশক বড়ি এবং মানহীন ঔষধ মানব শরীরে কিডনি, লিভার সহ অন্যান্য গুরুত্বপূর্ণ অঙ্গের ক্ষতি করে। 

উপজেলা নির্বাহী অফিসার নাফিসা আক্তার জানান, কিছু মাস আগে উপজেলার বাজারে ওষুধের দোকানগুলোতে উপজেলা প্রশাসন মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করেন এবং বেশ কিছু দোকানকে নগত অর্থ জরিমানা করা হয়েছিল। ওষুধ ব্যবসায়ীদের সবাইকে নির্দেশ দেয়া হয়েছিল ড্রাগ লাইসেন্স করার জন্য এবং যাদের ড্রাগ লাইসেন্স আছে কিন্ত নবায়ন করা হয়নি তাদের কে দ্রুত নবায়ন করার জন্য।


আরও খবর



ইরানে বিক্ষোভে নিহত ৩১

প্রকাশিত:শুক্রবার ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২২ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ০৬ অক্টোবর ২০২২ |
Image

ইরানে নৈতিকতা পুলিশের হেফাজতে তরুণী মাশা আমিনির মৃত্যুর প্রতিবাদে বিক্ষোভের ষষ্ঠ দিনেও উত্তাল ইরান। বিক্ষোভ নিয়ন্ত্রণে দেশজুড়ে ইন্টারনেট সেবা বন্ধ রেখেছে দেশটির সরকার। ক্রমবর্ধমান বিক্ষোভে এখনো পর্যন্ত অন্তত ৩১ জনের মৃত্যু হয়েছে বলে দাবি করেছে ইরানের মানবাধিকার সংগঠন ইরান হিউম্যান রাইটস। বার্তা সংস্থা এএফপির এক প্রতিবেদন থেকে এই তথ্য জানা গেছে।

এএফপির প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ইরানের মানবাধিকার সংগঠন ইরান হিউম্যান রাইটসের (আইএইচআর) পরিচালক মোহাম্মদ আমিরি–মোগাদ্দাম স্থানীয় সময় আজ বৃহস্পতিবার এক বিবৃতিতে বলেছেন, ‘ইরানের জনগণ তাদের মৌলিক অধিকার এবং মানবিক মর্যাদার দাবি আদায়ে রাস্তায় নেমে এসেছে এবং সরকার তাদের শান্তিপূর্ণ প্রতিবাদের জবাব দিচ্ছে বুলেট দিয়ে।’

আইএইচআর জানিয়েছে, তাঁরা দেশের অন্তত ৩০টি শহর, একাধিক গ্রামীণ এলাকায় বিক্ষোভ–প্রতিবাদ ছড়িয়ে পড়েছে। একই সঙ্গে বিক্ষোভ দমনে সাধারণ মানুষের পাশাপাশি নাগরিক অধিকারকর্মীদের ব্যাপক হারে গ্রেপ্তার করছে।

আইএইচআর জানিয়েছে, ইরানের নৈতিকতা পুলিশের হেফাজতে মাশা আমিনির মৃত্যুর পর তাঁর জন্মস্থান কুর্দিস্তান থেকেই বিক্ষোভের সূত্রপাত হয়। কিন্তু এখন তা কেবল কুর্দিস্তানে সীমাবদ্ধ নেই, ছড়িয়ে পড়েছে সারা দেশে। প্রতিষ্ঠানটি আরও জানিয়েছে, নিহতদের মধ্যে গত বুধবার রাতেই ১১ জন মারা যান। দেশের উত্তরাঞ্চলের মাজান্দারান প্রদেশের আমল শহরে তাদের মৃত্যু হয়। একই দিনে একই প্রদেশের বাবল শহরে মারা যান আরও ৬ জন।

উল্লেখ্য, গত সপ্তাহে ইরানের নৈতিকতা পুলিশের হাতে গ্রেপ্তার হওয়ার পর তেহরানে মারা যাওয়া ২২ বছরের তরুণী মাশা আমিনির মৃত্যুর পরে দেশটিতে বিক্ষোভ ছড়িয়ে পড়ে। দেশটির কর্মকর্তারা জানিয়েছিলেন, গত সপ্তাহের মঙ্গলবার গ্রেপ্তার হওয়ার পর মাশা আমিনি ‘হৃদ্রোগে’ আক্রান্ত হয়ে কোমায় চলে যান এবং পরে গত শুক্রবার মারা যান। তবে মাশা আমিনির পরিবার বলেছে, তাঁর আগে থেকে হৃদ্রোগ ছিল না।


আরও খবর

চিকিৎসাবিজ্ঞানের নোবেল ঘোষণা

মঙ্গলবার ০৪ অক্টোবর ২০২২




সোনারগাঁয়ে দলিল লিখককে হত্যার অভিযোগ

প্রকাশিত:রবিবার ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২২ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ০৪ অক্টোবর ২০২২ |
Image

প্রতিনিধি, সোনারগাঁ, নারায়ণগঞ্জ: 

নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁ উপজেলার কাচঁপুর চেঙ্গাইন এলাকায় গত শনিবার রাতে মোশাররফ ভূইয়া(৪৫) নামের এক দলিল লিখককে হত্যার অভিযোগ উঠেছে। নিহত মোশাররফ ভূইয়া উপজেলার কাচঁপুর ইউনিয়নের খালপাড় চেঙ্গাইন এলাকার মৃত আঃ কাদির ভূইয়ার ছেলে।

নিহতের স্ত্রী শাহিনুর আক্তার ও মেয়ে মীম আক্তার বলেন, রাতে ৪/৫জনের একটি স্ব সশস্ত্র ডাকাত দল জোরপূর্বক তাদের বাড়িতে প্রবেশ করে অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে মোশাররফ কে পিটিয়ে আহত করে চলে যায়। পরে বাড়ীর লোকদের সহায়তায় স্থানীয় হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। খবর পেয়ে নারায়ণগঞ্জের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার শেখ বিল্লাল হোসেনের নেতৃত্বে একদল পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন। 

এঘটনায় নিহত মোশাররফ হোসেনের স্ত্রী শাহিনুর আক্তার, মেয়ে মিম আক্তার সহ জিজ্ঞাসাবাদের জন্য চারজনকে আটক করা হয়েছে।

সোনারগাঁ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ওসি মোহাম্মদ হাফিজুর রহমান জানান, হত্যাকান্ডের ঘটনাটি তদন্ত চলছে। তবে প্রাথমিক ভাবে ধারণা হচ্ছে এটি কোন ডাকাতির ঘটনা নয় পরিকল্পিত হত্যাকান্ড। মামলার প্রস্তুতি চলছে। 


আরও খবর



ইসলাম একটি পরিপূর্ণ জীবন-বিধান

প্রকাশিত:শুক্রবার ১৬ সেপ্টেম্বর ২০২২ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ০৬ অক্টোবর ২০২২ |
Image

পবিত্র কুরআনে ইরশাদ হচ্ছে, আল্লাহ তায়ালা কোন জাতির অবস্থার পরিবর্তন করেন না, যে পর্যন্ত না তারা নিজেদের অবস্থার পরিবর্তনে এগিয়ে আসে। (সূরা রা’দ : ১১)

নবী করীম (সা) বলেন, আমাকে সচ্চরিত্রের পূর্ণতা সাধনের নিমিত্তেই প্রেরণ করা হয়েছে।

মানব জীবনে আখলাকের গুরুত্ব অপরিসীম। মানুষের বাহ্যিক আচার-আচরণ তার মনের আলোকেই সম্পাদিত হয়। দার্শনিক ঈমাম গাজ্জালীর মতে-যেমন গুণাবলী মানব মনে জাগরুক থাকে তারই প্রতিফলন তার বাহ্যিক কাজ-কর্মে প্রকাশিত হয়। এর আলোকে বলা যায় মানুষের কোনো কাজই তার মূল চিন্তা-চেতনা বহির্ভূত নয়। এ জন্যই যুগে যুগে সংস্কারকরা মানুষের সংশোধন ও পবিত্র জীবন যাপনের পন্থা হিসেবে তাদের আত্মার পরিশুদ্ধি ও মূল্যবোধের জ্ঞান প্রথমেই শিক্ষার প্রতি গুরুত্ব দিতেন। ইসলামের দৃষ্টিতে মানুষের উন্নতি-অবনতি, উত্থান-পতন, মান-সম্মান ইত্যাদি সব কিছুই তাদের মানসিক বিকাশ ও মূল্যবোধ জাগ্রত করার ওপরই নির্ভর করে।

উত্তম চরিত্র ইসলামী শিক্ষার অন্যতম একটি কোর্স হিসেবে পরিগণিত করা হয়। পবিত্র কুরআন ও সুন্নাহতে ব্যক্তি, পরিবার, সমাজ তথা সমগ্র মানব সমাজের চারিত্রিক উন্নয়নে প্রচুর নির্দেশনা বিদ্যমান। মূলত মানুষ ও অন্যান্য প্রাণীর মধ্যে মৌলিক পার্থক্য এ চরিত্রের আলোকেই হয়ে থাকে।

আখলাকের মাধ্যমেই মানুষ মনুষ্যত্বের চূড়ান্ত মানে উন্নীত হতে পারে। ইসলাম একটি পরিপূর্ণ জীবন-বিধান। এ বিধানের পরিপূর্ণতার জন্য তাতে উন্নত চরিত্রের বিধান থাকা আবশ্যক।

তাই ইসলামে আখলাকুল হাসানাহ্ তথা উত্তম চরিত্রের স্থান অনেক ঊর্ধ্বে। পৃথিবীতে আল্লাহর বিধান বাস্তবায়নের নিমিত্তে আল্লাহ যুগে যুগে নবী-রসূলদের প্রেরণ করেছেন। আমাদের প্রিয় নবী (সা) কে প্রেরণের অন্যতম কারণ সচ্চরিত্রের বিকাশ সাধন। একদা জনৈক ব্যক্তি রসূল (সা) কে দ্বীনের সংজ্ঞা জিজ্ঞেস করলে উত্তরে তিনি বলেন, উত্তম চরিত্র। এ কথা দ্বারা বুঝা যায়, সচ্চরিত্রতা বা উত্তম চরিত্র দ্বীনের অন্যতম একটি রুকন, যা ব্যতীত দ্বীনের অস্তিত্বই কল্পনা করা যায় না, যেমন হজ্ব সম্পর্কে রাসূলের বাণী- হজ্বের গুরুত্বপূর্ণ একটি রুকন হচ্ছে আরাফায় অবস্থান করা যা ব্যতীত হজ্ব আদায় হয় না, তেমনি সচ্চরিত্রতা ব্যতীত দ্বীন ও পরিপূর্ণ হয় না।

উত্তম চরিত্র হল পরকালে মুক্তির উপায়, ইসলামের অপরিহার্য ফরজ তথা নামাজ-রোযা পালন করা সত্তে¡ও পরকালে জাহান্নাম থেকে নাজাত ও জান্নাত লাভের জন্য আখলাক তথা উত্তম চরিত্রের কোনো বিকল্প নেই।

জনৈক ব্যক্তি রসূল (সা)-কে উত্তম ঈমানদার সম্পর্কে জিজ্ঞাসা করলে উত্তরে তিনি বলেন, ‘তাদের মধ্যে যে অধিক চরিত্রবান সেই উত্তম’। উত্তম চরিত্র দ্বারা মু’মিনরা কিয়ামতে রাসূল (সা)-এর ভালোবাসা ও নৈকট্য লাভের ক্ষেত্রে সবাই এক রকম হবে না।

এ প্রসঙ্গে রাসূল (সা) বলেন, ‘কিয়ামতের দিবস তোমাদের মধ্যে আমার নিকট বেশি পছন্দনীয় ও অবস্থানের ক্ষেত্রে অধিক নিকটবর্তী হবে তোমাদের মধ্যে যে উত্তম চরিত্রের অধিকারী’। সৎ চরিত্রের অধিকারীর আমলনামাও ভারী হবে।

এ প্রসঙ্গে রসূল বলেন, ‘কিয়ামতের মাঠে হিসেব-নিকাশের সময় ’আ­ল্লাহ ভীতি ও চরিত্রতার গুণ’ মু’মিনের আমলনামাকে ভারী করবে।

রাসূল (সা)-এর উত্তম আখলাক সম্পর্কে দোয়া করতেন, তিনি নিজে গুণাহমুক্ত হয়েও নিজের চরিত্র সুন্দর করার তৌফিক অর্জনের জন্য আল্লাহর নিকট দোয়া করতেন। যেমন তিনি দোয়ায় বলতেন, আল্লাহ তুমি আমার গঠন-আকৃতি সুন্দর করেছ, আমার চরিত্রকেও সুন্দর করে দাও।

আল্লাহ তায়ালা রসূল (সা) এর উত্তম চরিত্রের প্রশংসাও করেছেন, তিনি বলেন, ‘আপনি মহান চরিত্রের ওপর প্রতিষ্ঠিত’। (সুরা কলম : ৪)

আয়াতে মহান আল্লাহ কর্তৃক রসূল (সা)-এর আখলাকের প্রশংসা করেছেন। পবিত্র কুরআনের প্রচুর আয়াতে আখলাকের বিবরণ ও চরিত্রবানদের প্রশংসার বাণী উদ্ধৃত হয়েছে, মাক্কী ও মাদানী উভয় সূরাগুলোতে আখলাকের নির্দেশ বেশি থাকায় এর গুরুত্বেরও আধিক্য বুঝা যায়, যা থেকে কোনো মুসলিমের দূরে থাকা সম্ভব নয়। আল্লাহ তায়ালা আমাদেরকে তার রাসূল (সা)-এর উত্তম চরিতে চরিত্রবান করুন।

আমিন


আরও খবর

শারদীয় দুর্গোৎসব কাল শুরু

শুক্রবার ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২২




লালমনিরহাট সদরে ২৫ কেজি গাঁজাসহ প্রাইভেট কার আটক

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ১৩ সেপ্টেম্বর ২০২২ | হালনাগাদ:বুধবার ০৫ অক্টোবর ২০২২ |
Image

নিজস্ব প্রতিনিধি,লালমনিরহাটঃ

লালমনিরহাট সদর থানার অফিসার ইনচার্জ এর নেতৃত্বে বিশেষ অভিযানে লালমনিরহাট থানাধীন গোকুন্ডা ইউনিয়নের পূর্ব দালালপাড়া মৌজাস্থ তিস্তা টোলপ্লাজা এলাকায় কুড়িগ্রাম টু রংপুর গামী ০১টি পুরাতন ব্যবহৃত খয়েরী রংয়ের প্রাইভেটকার মহাসড়কের উপর আসিলে ডিউটিরত অফিসার প্রাইভেট কারটি সংকেত দিলে ঘটনাস্থলে পুলিশের উপস্থিতি টের পাইয়া পুলিশের দেয়া সংকেত উপেক্ষা করে দ্রুতগতিতে টোল প্লাজা হইতে দক্ষিণ দিকে রংপুরের উদ্দেশ্যে চলে যায়। তখন বাদী সঙ্গীয় ফোর্সসহ সরকারি পিকআপ যোগে উক্ত প্রাইভেটকার টিকে ধাওয়া করিলে প্রাইভেট কারের অজ্ঞাতনামা চালক/মালিক টোলপ্লাজা হইতে অনুমান ৩০০ গজ দক্ষিনে রংপুরগামী পাকা রাস্তার উপর বাম পার্শ্বে   প্রাইভেটকারটি রাখিয়া পালাইয়া যায়। সেখানে উপিস্থিত স্বাক্ষীদের উপস্থিতিতে পলাতক চালক আসামীর ফেলে যাওয়া উক্ত প্রাইভেটকারটি প্রাইভেটকারটির পিছনের ডালার ভিতর হইতে ৬ পোটলা মাদকদ্রব্য গাঁজা, যাহার প্রতিটি পোটলা লাল রংয়ের পলিথিন দ্বারা মোড়ানো সাদা রংয়ের কসটেব পেঁচানো ও পাটের সুতলী দ্বারা বাঁধা অবস্থায়, যাহার প্রতিটি পোটলার ওজন ০৪ কেজি ৪০০ গ্রাম করে, যাহা সর্বমোট (৪.৪০০×৬)=২৬ কেজি ৪০০ গ্রাম (যাহা আমার সাথে থাকা ডিজিটাল পরিমাপ যন্ত্র দ্বারা পরিমাপ করা), যাহার মধ্যে প্রতিটি পোটলায় গাঁজার ওজন (৪.২০০×৬)=২৫ কেজি ২০০ গ্রাম, এবং পলিথিন, কসটেপ ও সুতলির ওজন (২০০×৬)= ০১ কেজি ২০০ গ্রাম, মাদকদ্রব্য গাঁজার মূল্য অনুমান-২,৫২,০০০/- টাকা এবং মাদক পরিবহনে ০১টি পুরাতন ব্যবহৃত খয়েরী রংয়ের প্রাইভেটকার, যাহার রেজিঃ নং-ঢাকা মেট্রো-গ-১৪-৯৯২৮, চেচিস নং-EE111-5017330, ইঞ্জিন নং-4E-FE, যাহার মূল্য অনুমান-২,১০,০০০/- টাকা পাইয়া ইং-১৩/০৯/২০২২ তারিখ ০৮.১০ ঘটিকার সময় ঘটনাস্থলে জব্দ তালিকা মূলে উক্ত মালামাল জব্দ করে। 

এ সংক্রান্তে লালমনিরহাট থানার মামলা নং-২২, তারিখ-১৩/০৯/২০২২ ইং, ধারা-৩৬(১) সারণির ১৯(গ)/৩৮/৪১ মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইন, ২০১৮; রুজু করা হয়।

উদ্ধারকারী অফিসার এসআই মোঃ নজরুল ইসলামসহ সঙ্গীয় অফিসার ও ফোর্স, লালমনিরহাট থানা, লালমনিরহাট।


আরও খবর



যশোরে আট জনের শরীরে এইডস শনাক্ত

প্রকাশিত:বুধবার ০৭ সেপ্টেম্বর ২০২২ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ০৬ অক্টোবর ২০২২ |
Image

মাত্র ৩৫ দিনের মধ্যে যশোরে আট জনের শরীরে এইচআইভি ভাইরাস -এইডস শনাক্ত হয়েছে। এই নিয়ে তিন বছরে যশোর জেনারেল হাসপাতালের পরীক্ষা কেন্দ্রে মোট ১৭ জনের দেহে ভাইরাসটি শনাক্ত হয়। চলতি বছরে শনাক্ত হয়েছে ১০ জন। 

যশোর জেনারেল হাসপাতাল সূত্রে জানা গেছে, চলতি বছরের আগস্ট মাসে যশোর হাসপাতালের পরীক্ষাকেন্দ্রে চার জনের দেহে ভাইরাসটি শনাক্ত হয়। আর সেপ্টেম্বরের প্রথম চার দিনে আরও চার জনের দেহে ভাইরাসটি ধরা পড়ে। এই নিয়ে ৩৫ দিনে আট জন আক্রান্ত হিসেবে শনাক্ত হয়েছেন। হাসপাতালের এইচটিসিতে (এইচআইভি টেস্টিং অ্যান্ড কাউন্সেলিং সেন্টার) ১৬২ জনের রক্ত ও লালা পরীক্ষায় আট জনের শরীরে ভাইরাসের উপস্থিতি পাওয়া গেছে। যার মধ্যে পুরুষ পাঁচ ও নারী তিন জন। তাদের বয়স ২০ থেকে ৫০ বছরের মধ্যে। আক্রান্তরা ভারত ও বাংলাদেশ উভয় দেশেই বসবাস করেন।

২০২০ সালের ফেব্রুয়ারি মাসে যশোর জেনারেল হাসপাতালে এইচটিসি চালু হয়। সে বছর শনাক্ত হয় তিন জন। পরের বছর অর্থাৎ ২০২১ সালে চার ও ২০২২ সালের ৪ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত ১০ জনের শরীরে ভাইরাসটি শনাক্ত হয়।

যশোর ২৫০ শয্যা হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক ডা. মো. আখতারুজ্জামান বলেন, যেভাবে এইডস আক্রান্তের সংখ্যা বৃদ্ধি পাচ্ছে তা আমাদের জন্যে একটি সতর্কবার্তা।

তিনি জানান, সারা দেশে এইচআইভি-এইডস পরীক্ষা-নিরীক্ষায় ২৩ টি সেন্টার ও চিকিৎসাসেবা দেওয়ার জন্য সাতটি সেন্টার রয়েছে। খুব শিগগিরই আরও পাঁচটি কেন্দ্র চালু হবে। যার মধ্যে যশোর জেনারেল হাসপাতালেও হবে।


আরও খবর

শিগগিরই বাড়ছে বিদ্যুতের দাম

মঙ্গলবার ০৪ অক্টোবর ২০২২