Logo
শিরোনাম

জিলহজের প্রথম ১০ দিনে করণীয়

প্রকাশিত:শনিবার ০২ জুলাই 2০২2 | হালনাগাদ:বুধবার ১০ আগস্ট ২০২২ |
Image

বান্দার প্রতি আল্লাহর বিশেষ অনুগ্রহ একটি যে আল্লাহ তাআলা তাঁর বান্দাকে  মৌসুমভিত্তিক কিছু বিশেষ ইবাদত দিয়েছেন। যাতে বান্দা সে সময় নিজেকে শাণিত করতে পারে। অল্প সময়ে বিশেষ কিছু আমল করে আল্লাহর নৈকট্য অর্জন করতে পারে। আর এই সময়ের মধ্যে অন্যতম বরকতময় সময় হচ্ছে জিলহজ মাসের প্রথম দশক।

 
আল্লাহ তাআলা এই দিনগুলোর গুরুত্ব বোঝাতে কোরআনে এর নামে শপথ করেছেন। ইরশাদ হয়েছে,  ‘শপথ ফজর কালের। এবং ১০ রাতের। ’ (সুরা ফজর, আয়াত : ১, ২)
মুফাসসিরদের মতে, এখানে ফজর বলতে বিশেষভাবে জিলহজের ১০ তারিখের ফজর বোঝানো হয়েছে। আর যে ১০ রাতের শপথ করা হয়েছে, তা হলো জিলহজের প্রথম ১০ রাত। (তাওজিহুল কোরআন)

১০ দিনের শ্রেষ্ঠত্বের কারণ

হজ, কোরবানি, আরাফা দিবস এসব মিলিয়ে এ দিনগুলোর আছে বিশেষ ফজিলত। ইবনে আব্বাস (রা.) বলেন, রাসুলুল্লাহ (সা.) বলেছেন, এমন কোনো দিন নেই যে দিনসমূহের সৎকাজ আল্লাহর কাছে জিলহজ মাসের এই ১০ দিনের সৎকাজ অপেক্ষা বেশি প্রিয়। সাহাবারা বললেন, হে আল্লাহর রাসুল! আল্লাহ তাআলার পথে জিহাদ করাও কি (এত প্রিয়) নয়? রাসুলুল্লাহ (সা.) বললেন, আল্লাহ তাআলার পথে জিহাদও তার চেয়ে বেশি প্রিয় নয়। তবে জীবন ও সম্পদ নিয়ে যদি কোনো ব্যক্তি আল্লাহ তাআলার পথে জিহাদে বের হয় এবং এই দুটির কোনোটিই নিয়ে যদি সে আর ফিরে না আসতে পারে তার কথা (অর্থাৎ সেই শহীদের মর্যাদা) ভিন্ন। (তিরমিজি, হাদিস : ৭৫৭)

আল্লামা হাফেজ ইবনে হাজার আসকালানি (রহ.) বলেন, জিলহজের এই ১০ দিনের বৈশিষ্ট্যের কারণ হলো, এ সময় শরিয়তের মৌলিক কিছু ইবাদতের সম্মিলন ঘটে। শরিয়তের প্রধান ইবাদত হলো নামাজ, রোজা, সদকা ও হজ। এ ধরনের সমাবেশ বছরের অন্য সময় পাওয়া যায় না। (ফাতহুল বারি, আসকালানি : ২/৪৬০)

১০ দিনের বিশেষ কিছু আমল

সামর্থ্যবানদের জন্য হজ ও কোরবানি ছাড়া এ মাসে আছে বিশেষ কিছু আমল। নিম্নে তা উল্লেখ করা হলো—

জিকির করা

এই ১০ দিনে বেশি পরিমাণে আল্লাহর জিকিরে নিজেকে ব্যতিব্যস্ত রাখা। আল্লাহ তাআলা বলেন, ‘আর যাতে তারা তাদের জন্য স্থাপিত কল্যাণ প্রত্যক্ষ করে এবং নির্দিষ্ট দিনে আল্লাহর নাম উচ্চারণ করে সেই সব পশুতে যা তিনি তাদের দিয়েছেন। সুতরাং (হে মুসলিমরা!) সেই পশুগুলো থেকে তোমরা নিজেরাও খাও এবং দুস্থ, অভাবগ্রস্তকেও খাওয়াও। ’ (সুরা হজ, আয়াত : ২৮)

ইবনে আব্বাস (রা.) বলেন, ‘আইয়ামে মালুমাত’ দ্বারা উদ্দেশ্য হলো জিলহজের প্রথম ১০ দিন। (সহিহ বুখারি, হাদিস : ৯৬৯)

ইবনে ওমর ও আবু হুরায়রা (রা.)-এর আমল ছিল, এই ১০ দিন তাকবির বলতে বলতে বাজারের দিকে যেতেন এবং তাঁদের তাকবিরের সঙ্গে অন্যরাও তাকবির বলত। (বুখারি, হাদিস : ৯৬৯)

আবদুল্লাহ ইবনে আব্বাস (রা.) বর্ণনা করেন, রাসুলুল্লাহ (সা.) ইরশাদ করেন, আল্লাহ তাআলার কাছে জিলহজের প্রথম দশকের আমলের চেয়ে বেশি প্রিয় আর কোনো আমল নেই। সুতরাং তোমরা এ সময় বেশি পরিমাণে তাকবির (আল্লাহু আকবার), তাহলিল (লা ইলাহা ইল্লাল্লাহ) এবং তাহমিদ (আলহামদু লিল্লাহ) পাঠ করো। (শুআবুল ঈমান, হাদিস : ৩৭৫৮)

রোজা রাখা

এই সময়ের গুরুত্বপূর্ণ একটি আমাল হচ্ছে, জিলহজের প্রথম ৯ দিন আল্লাহর জন্য রোজা রাখা। আহমদ ইবনে ইয়াহইয়া (রহ.) থেকে বর্ণিত, নবী (সা.)-এর কোনো স্ত্রী থেকে বর্ণিত যে রাসুল (সা.) জিলহজ মাসের ৯ দিন, আশুরার দিন এবং প্রত্যেক মাসের তিন দিন রোজা পালন করতেন। মাসের প্রথম সোমবার ও দুই বৃহস্পতিবার। (সুনানে নাসায়ি, হাদিস : ২৪১৭)

বিশেষ করে আরাফার দিনের রোজা বিশেষ ফজিলত আলাদাভাবে এসেছে। আবু কাতাদা (রা.) থেকে বর্ণিত, রাসুলুল্লাহ (সা.) বলেন, ‘আমি আল্লাহ তাআলার কাছে আরাফাতের দিনের রোজা সম্পর্কে আশা করি যে তিনি এর মাধ্যমে পূর্ববর্তী এক বছর এবং পরবর্তী এক বছরের গুনাহসমূহ ক্ষমা করে দেবেন। ’ (তিরমিজি, হাদিস : ৭৪৯)

নখ চুল না কাটা

এই ১০ দিনের আরেকটি আমল হচ্ছে জিলহজের চাঁদ ওঠার পর নখ, চুল এবং শরীরের অবাঞ্ছিত লোম ইত্যাদি কর্তন না করা। বরং কোরবানি দেওয়ার পর এগুলো পরিষ্কার করবে। এই আমল সবার জন্য প্রযোজ্য। চাই সে কোরবানি করুক বা না করুক। উম্মে সালামাহ (রা.) থেকে বর্ণিত, নবী (সা.) বলেছেন, যখন তোমরা জিলহজ মাসের (নতুন চাঁদ দেখতে পাও) আর তোমাদের কেউ কোরবানি করার ইচ্ছা করে, তবে সে যেন তার চুল না ছাঁটে ও নখ না কাটে। (মুসলিম, হাদিস : ৫০১৩)

এ ছাড়া দান-সদকা, কোরআন তিলাওয়াত, তাওবা-ইস্তেগফার ও বেশি বেশি নফল ইবাদতে এই মহামন্বিত সময়ে নিজেকে নিয়োজিত রাখা। আল্লাহ তাআলা আমাদের তাওফিক দান করুন। আমিন


আরও খবর

আজ পবিত্র আশুরা

মঙ্গলবার ০৯ আগস্ট ২০২২

মাকামে ইব্রাহিম

শুক্রবার ০৫ আগস্ট ২০২২




দেশে অপ্রচলিত নতুন ছয় মাদক জব্দ

প্রকাশিত:বুধবার ০৩ আগস্ট ২০২২ | হালনাগাদ:বুধবার ১০ আগস্ট ২০২২ |
Image

রোকসানা মনোয়ার :  দেশে অপ্রচলিত নতুন ছয় মাদক জব্দ হয়েছে। বিদেশ থেকে পার্সেলের মাধ্যমে আনা হতো এগুলো। এসব মাদক হলো- এক্সট্যাসি, হেম্প, মলি, অ্যাডারল এবং ফেন্টানিল। এ ছাড়া তাপ নিয়ন্ত্রণ গ্রো-টেন্টের মাধ্যমে অভিনব পন্থায় তৈরি মাদক ‘কুশ’ জব্দ করেছে এলিট ফোর্স র‌্যাব। এসব মাদকের কারবার করে আসছিলেন ওনাইসি সাঈদ ওরফে রেয়ার সাঈদ নামের এক উচ্চশিক্ষিত যুবক। তিনি মাদকবিজ্ঞানী হওয়ার পরিকল্পনা করছিলেন। 

র‌্যাব জানিয়েছে, বিভিন্ন অপ্রচলিত ও নতুন মাদক বিক্রি এবং তাপ নিয়ন্ত্রিত পদ্ধতিতে কুশ তৈরি করতেন সাঈদ। রীতিমতো এসব মাদক নিয়ে তিনি গবেষণা শুরু করেন। এ ছাড়া কুশ মাদক দিয়ে তৈরি করতেন বিশেষ সার। ভবিষ্যতে দেশের বাইরেও কুশ রপ্তানির পরিকল্পনা ছিল তার। এজন্য তার বাসায় কুশ প্লান্টের ফার্ম তৈরি করেন। টেস্ট অ্যান্ড ট্রায়াল হিসেবে সাঈদ মোহাম্মদপুরে ফ্ল্যাটের ভেতর তাপ নিয়ন্ত্রণ গ্রো-টেন্ট পদ্ধতিতে চাষ শুরু করেন। তার প্রতিটি মাদকের বোতলে তাপমাত্রা দেওয়া। কোন বোতলে কোন মাত্রা দিতে হবে, সব উল্লেখ করে রেখেছিলেন। তবে ওনাইসি নিজে মাদক সেবন করেন না। কিন্তু আমেরিকায় পড়াশোনা করার সময় নতুন মাদকের প্রতি তার আগ্রহ সৃষ্টি হয়। সেই আগ্রহ থেকেই বিভিন্ন অপ্রচলিত এক্সট্যাসি আনতেন। কখনো নিজে আবার কখনো পার্সেলের মাধ্যমে আমদানি করতেন। আর মাদকের টাকা পাঠাতেন হুন্ডির মাধ্যমে। এসব মাদক রাজধানীর বিভিন্ন পার্টিতে বিশ্বস্ত সার্কেলের মাধ্যমে সরবরাহ করতেন।

র‌্যাবের গোয়েন্দা নজরদারির মাধ্যমে শনিবার রাতে রাজধানীর গুলশান থেকে অপ্রচলিত এই নতুন ছয় মাদকদ্রব্যসহ ওনাইসি সাঈদকে গ্রেপ্তার করে র‌্যাব। তার কাছ থেকে ১০১ গ্রাম কুশ, ৬ গ্রাম হেম্প, ০.০৫ গ্রাম মলি, ১ গ্রাম ফেন্টানল, ১২৩ পিস এক্সট্যাসি, ২৮ পিস অ্যাডারল ট্যাবলেট, ১৮ গ্রাম কোকেন এবং ২ কোটি ৪০ লাখ টাকা ও অর্ধলক্ষাধিক ডলার জব্দ করা হয়। পাশাপাশি কুশ তৈরির সরঞ্জামও জব্দ করা হয়।

খোন্দকার আল মঈন বলেন, সম্প্রতি বাংলাদেশে অপ্রচলিত, তবে বিভিন্ন উন্নত দেশে প্রচলিত এমন কিছু মাদক পার্সেলের মাধ্যমে ঢাকায় এনে বিক্রি করছে। যাতে ধীরে ধীরে যুবসমাজকে মারাত্মক আসক্ত করে তুলছে। এমন গোয়েন্দা নজরদারির পর গুলশান এলাকা থেকে ওনাইসি সাঈদকে গ্রেপ্তার করা হয়। পরে তার দেওয়া তথ্যে মোহাম্মদপুরের একটি ফ্ল্যাট থেকে বাণিজ্যিকভাবে বাজারজাতকরণের উদ্দেশ্যে তাপ নিয়ন্ত্রণ গ্রো-টেন্টের মাধ্যমে অভিনব পন্থায় বিদেশি প্রজাতির কুশ তৈরির প্লান্ট ও সেটআপ জব্দ করা হয়।

নতুন মাদকের আমদানি, প্রক্রিয়াজাতের বিষয়টি তদন্ত করবে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর। এই নতুন মাদকের আমদানি করতে গিয়ে বিদেশে মুদ্রা অবৈধভাবে হুন্ডির মাধ্যমে পাচার করেছেন তিনি। সবমিলে তার বিরুদ্ধে মানি লন্ডারিং, মাদক মামলা, বিশেষ ক্ষমতা আইনে মামলা হয়েছে।

র‌্যাবের এই কর্মকর্তা আরো বলেন, ওনাইসি সাঈদ দেশে একটি স্বনামধন্য ইংলিশ মিডিয়াম স্কুল ও কলেজ থেকে পড়াশোনা শেষ করে আমেরিকায় যান। সেখানে বিবিএ ও মালয়েশিয়ায় গিয়ে এমবিএ সম্পন্ন করেন। ২০১৪ সাল থেকে দেশে অবস্থান করছেন।

থাইল্যান্ডে থাকা অবস্থায় ঢাকার এলিফ্যান্ট রোডের ফয়সাল নামক যুবকের সঙ্গে পরিচয় হয় তার। যার মাধ্যমে সাঈদ নতুন মাদক সম্পর্কে জানতে পারেন।

ওনাইসি সাঈদ প্রায় ৪ বছর ধরে এক্সট্যাসিসহ অন্য উচ্চমূল্যের মাদকের কারবারে জড়িত। দেশে তার ৭-৮ জন সহযোগী আছে।

র‌্যাব আরো জানায়, সাঈদের ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা ছিল নতুন মাদক তৈরি করা। সে অনুযায়ী মাদক প্রসেসিংয়ের মাধ্যমে উন্নত দেশে সরবরাহের লক্ষ্যে কুশ প্লান্টের ফার্ম তৈরি করেছেন। টেস্ট অ্যান্ড ট্রায়াল হিসেবে সাত মাস আগে মোহাম্মদপুরে ভাড়া ফ্ল্যাটের ভেতরে তাপ নিয়ন্ত্রণ গ্রো-টেন্ট পদ্ধতিতে চাষাবাদ শুরু করেন। সেই ফার্ম থেকে একবার হারভেস্ট ও পরে প্রসেস করে কুশ মাদক ?উৎপাদন করেন; যা দেশের বিভিন্ন মাদকাসক্তের কাছে বিক্রি করতেন। নতুন মাদক প্রক্রিয়াজাতের মাধ্যমে দেশে ও বিদেশে বিক্রি করে লাভবান হওয়াই ছিল তার লক্ষ্য।


আরও খবর

আন্তর্জাতিক আদিবাসী দিবস

মঙ্গলবার ০৯ আগস্ট ২০২২




ইটনায় বিদ্যুৎস্পষ্ট হয়ে ৪৩ বছর বয়সী পুরুষের মৃত্যু

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ২৬ জুলাই ২০২২ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ০৯ আগস্ট ২০২২ |
Image

মুজাহিদ সরকারঃ 

কিশোরগঞ্জের ইটনা উপজেলার সদরে পশ্চিমগ্রামের আবাদহাটি গ্রামে

দিনমজুর বাবুল মিয়া(৪৩) ঘরে বিদ্যুৎতের কাজ করতে গিয়ে বিদ্যুৎস্পৃস্ট হয়ে মৃত্যু হয়েছে বলে জানা গেছে। ২৫ জুলাই রোজ সোমবার বিকাল সারে চারটায় বাবুল মিয়ার নিজ বাড়িতে এই ঘটনা ঘটে। স্থানীয়রা জানান, বাবুল মিয়া তার বসতঘরে বিদ্যুতের সুইচবোর্ড থেকে মাল্টিপ্লাগে সংযোগ দিতে গেলে তিনি বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়। 

তার ছেলে হাফেজ আব্দুল্লাহ জানান, গত ২২ জুলাই হৃদরোগ জনিত কারণে সিলেটের উসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ২৪ জুলাই পর্যন্ত চিকিৎসাধীন ছিলেন, ২৪ জুলাই উক্ত হাসপাতাল  থেকে তার বাবাকে রিলিজ দেন, ২৫ তারিখে তাকে নিয়ে বাড়িতে আসা হয়, ঐদিন বিকাল সারে চারটার দিকে নিজ ঘরে বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হলে তাকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। 

কর্তব্যরত চিকিৎসক ডাঃ সিফাত বলেন,  হাসপাতালে নিয়ে আসার আগেই তার মৃত্যু হয়েছে। তার সাথে আসা স্বজনদের কাছে শুনেছি তিনি বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়েছিলেন। 

ইটনা থানার অফিসার ইনচার্জ কামরুল হাসান মোল্লা বলেন, মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করে


আরও খবর



ডেপুটি স্পিকারের মৃত্যুতে রাষ্ট্রপতি-প্রধানমন্ত্রীর শোক

প্রকাশিত:শনিবার ২৩ জুলাই ২০২২ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ০৯ আগস্ট ২০২২ |
Image
জাতীয় সংসদের ডেপুটি স্পিকার এবং গাইবান্ধা-৫ আসনের সংসদ সদস্য মুক্তিযোদ্ধা অ্যাডভোকেট ফজলে রাব্বী মিয়ার মৃত্যুতে গভীর শোক ও দুঃখ প্রকাশ করেছেন রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ এবং প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

শনিবার সকালে এক শোকবার্তায় রাষ্ট্রপতি বলেন, সংসদীয় গণতন্ত্রের চর্চা ও বিকাশে তার অবদান জাতি শ্রদ্ধার সঙ্গে স্মরণ করবে। সংসদ পরিচালনায় ফজলে রাব্বী মিয়ার দক্ষতা ও অভিজ্ঞতা বহুদিন থাকবে। এ সময় ফজলে রাব্বী মিয়ার রুহের মাগফিরাত কামনা করে তার শোকসন্তপ্ত পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা জানান রাষ্ট্রপতি।

এদিকে, এক শোকবার্তায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, ছাত্রজীবন থেকেই ফজলে রাব্বী মিয়া আইয়ুববিরোধী আন্দোলন এবং ’৬২-এর শিক্ষা কমিশনবিরোধী আন্দোলনে জড়িত ছিলেন। মহান মুক্তিযুদ্ধের সময় তিনি ১১নং সেক্টরে যুদ্ধ করেছিলেন। সংসদীয় গণতন্ত্রে অসামান্য ভূমিকার জন্য তিনি স্মরণীয় হয়ে থাকবেন।

এ সময় মরহুমের বিদেহী আত্মার মাগফিরাত কামনা করে তার শোকসন্তপ্ত পরিবারের সদস্যদের প্রতি আন্তরিক সমবেদনা জানান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

শুক্রবার রাত ২টায় (নিউইয়র্কের স্থানীয় সময় বিকেল ৪টা) যুক্তরাষ্ট্রের মাউন্ট সিনাই হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন ডেপুটি স্পিকার ফজলে রাব্বী মিয়া। তিনি দীর্ঘদিন ধরে অসুস্থ ছিলেন।

আরও খবর

আন্তর্জাতিক আদিবাসী দিবস

মঙ্গলবার ০৯ আগস্ট ২০২২




ফুলবাড়িতে আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালিত

প্রকাশিত:শুক্রবার ২৯ জুলাই ২০২২ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ০৯ আগস্ট ২০২২ |
Image

উত্তম কুমার মোহন্ত, ফুলবাড়ী (কুড়িগ্রাম) 

সারাদেশে ন্যায় কুড়িগ্রামের ফুলবাড়ীতে বাংলাদেশ আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগের ২৮তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালিত হয়েছে।

২৭(জুলাই) বুধবার সকাল ১১টায় ফুলবাড়ী উপজেলা আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগের আয়োজনে, পোদ্দার মার্কেটে ফুলবাড়ী উপজেলা আওয়ামীলীগের অস্থায়ী কার্যালয়ে জাতীয় ও দলীয় পতাকা উত্তোলনের মধ্যে দিয়ে প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর সূচনা হয়।পরে সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক অর্পণ করে। পরবর্তিতে নেতাকর্মীরা কাচারী মাঠে জমায়েত হয়ে সার এগারোটায় একটি আনন্দরেলী বের হয়ে শহরের প্রধান প্রধান সড়ক গুলি প্রদক্ষিণ শেষে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে এসে আলোচনা অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়।

আলোচনা অনুষ্ঠানটি ফুলবাড়ী উপজেলা আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগের আহ্বায়ক, আব্দুল খালেক বসুনিয়ার সভাপতিত্বে,যুগ্ন আহবায়ক জাহাঙ্গীর আলমের সঞ্চালনায়,

বক্তব্য রাখেন, উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি, আতাউর রহমান শেখ, ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক নুরুল হুদা দুলাল,সাংগঠনিক সম্পাদক হারুন অর রশিদ হারুন, উপজেলা আওয়ামীলীগের অন্যতম সদস্য আহম্মদ আলী

পোদ্দার রতন, উপজেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক আবুবক্কর সিদ্দিক মিলন, উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি, তৌকির হাসান তমাল, সাংগঠনিক সম্পাদক মেহেদী হাসান প্রমূখ।

আলোচনা অনুষ্ঠান শেষে কেক কেটে বাংলাদেশ

স্বেচ্ছাসেবক লীগের ২৮তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালিত হয়। 


আরও খবর



বিদ্যুৎ চালিত অবৈধ যানবাহন বন্ধ করলে অনেকখানি বিদ্যুৎ সাশ্রয় করা সম্ভব

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ১৯ জুলাই ২০২২ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ০৯ আগস্ট ২০২২ |
Image

মইনুল ইসলাম মিতুল : রাজধানীর মূল সড়কে না চললেও স্থানীয় সড়কগুলোতে বেশ বেপরোয়া ভাবেই চলছে ব্যাটারি চালিত রিক্সা। ২০১৭ সালে রাজধানীতে ব্যাটারিচালিত রিক্সা বন্ধে হাইকোর্টের নির্দেশনা থাকলেও তা উপেক্ষা করে বিভিন্ন অলিতে-গলিতে এখনো চলছে এই ব্যাটারিচালিত রিক্সা। যার ফলে যানজট লোডশেডিংয়ের পাশাপাশি ছোট-বড় দুর্ঘটনাও ঘটছে অহরহ।

 

অলিতে-গলিতে চলাচল থাকলেও শুধু ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনেই এই ধরণের রিক্সার সংখ্যা দুই লাখের বেশি। আর রাজধানী জুড়ে ধরণের ব্যাটারি চালিত রিক্সার সংখ্যা চার লাখেরও বেশি।  এবং সারাদেশে ষাট লাখেরও বেশি। 

চতুর্থ শিল্প বিপ্লবের সঙ্গে তাল মিলিয়ে এগিয়ে যাওয়া বাংলাদেশে যন্ত্রের প্রতি  নির্ভরযোগ্যতা বেড়েছে। কিন্তু টমটম বা পঙ্খিরাজ নামে পরিচিত ধরণের অটোরিক্সা মানুষের জীবনকে সহজ করার বদলে কোন কোন ক্ষেত্রে আরো জটিল সমস্যার সৃষ্টি করছে। নিয়ন্ত্রণহীন গতি এবং চালকদের বেপরোয়া আচরণ এবং হর্নের মাধ্যমে শব্দ দূষণের কারণে বেশ সমালোচিত এই যানবাহনের কদর বেড়েছে দ্রুতযান ভাড়া কম হবার কারণে।

আদালতের নিষেধাজ্ঞা থাকলেও স্থানীয় ক্ষমতাসীন রাজনৈতিক নেতাকর্মী আইন প্রয়োগকারী সংস্থার ছত্র ছায়ায় এখনো চলমান এই রিক্সাগুলোর নিয়ন্ত্রণ মহাজনদের হাতে।

এই সকল রিক্সাগুলো ব্যাটারি চালিত হওয়ায়, এতে বৈদ্যুতিক খরচ বাবদ মাস প্রতি গুনতে হয় ১৫০০-২০০০ টাকা। আর এই সকল বৈদ্যুতিক লাইন অবৈধ হওয়ায় লোডশেডিংয়ে ভুগতে হয় নিয়মিত বিদ্যুৎ বিল প্রদান করা গ্রাহকদের । যার ফলে প্রতি মাসে বিপুল পরিমান বিদ্যুৎ বিল থেকে বঞ্চিত হচ্ছে সরকার  ।

বিদ্যুৎ সরবরাহকারী প্রতিষ্ঠানগুলোর মতে, বর্তমানে চাহিদা অনুসারে বিদ্যুৎ সরবরাহে কোন ঘাটতি ছিলনা। কিন্তু তারপরও মাঝে মধ্যে লোডশেডিং ছিল, যার মূল কারণ অবৈধ সংযোগ। নিয়মিত অভিযান চালিয়ে অবৈধ সংযোগ বন্ধ করা হলেও আবারো তা চালু হয়ে যায়।

ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের মেয়র ব্যারিস্টার শেখ ফজলে নুর তাপস বলেছিলেন ব্যাটারি চালিত কোনো যান আর সড়কে চলবে না। ঢাকা দক্ষিণ সিটির সড়ক গুলোতে এই সকল যান পাওয়া গেলে আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

আইন করা হলেও আইনি ভাবে তেমন পদক্ষেপ না নেয়ার ফলে ঢাকা দক্ষিণ সিটির আওতায় খিলগাঁও, বাসাবো, রামপুরা, বনশ্রী, মাদারটেক, যাত্রাবাড়ী, মান্ডা, ডেমরা, পুড়ান ঢাকা সহ বিভিন্ন এলাকাতে চলছে এই ব্যাটারি চালিত রিক্সা। উত্তর সিটি করপোরেশন ভুক্ত মিরপুরের বেশ কিছু এলাকায়, ভাটারা, আশকোনা উত্তরার কিছু স্থানেও বিনা বাঁধায় চলছে ব্যাটারি চালিত রিক্সা।

প্রাথমিক পর্যায়ে দরিদ্র প্রতিবন্ধীদের আয়ের উৎস হিসাবে এই সকল রিক্সা চলতে দেওয়া হলেও বর্তমানে তা ব্যবহার করছে সকলে। এই যান চালাতে সহজ হওয়ায় অনেক সুস্থ মানুষ প্যাডেল চালিত রিক্সা ছেড়ে বেছে নিচ্ছে এই ব্যাটারি চালিত রিক্সা।

অনেক যাত্রী সময় বাঁচাতে বা সাশ্রয়ী হওয়ায় ব্যাটারি রিক্সা ব্যবহারে আগ্রহী হয়, আবার অনেকে ধরণের রিক্সার বেপরোয়া গতি দেখে অনিচ্ছাও প্রকাশ করে।

অনেকে এদের বলে বিপদজনক। অজস্র দুর্ঘটনার জন্য দায়ী এরা। বেশ গতিমান এবং কাঠ ও লোহার তৈরি দেহের কারণে ভরবেগও এদের মন্দ না। অন্যদিকে এদের গতিনিয়ন্ত্রণের ব্যবস্থা খুবই খারাপ, আধুনিক বাহনের বৈশিষ্ট্য সুলভ অন্যান্য নিরাপত্তা বন্দোবস্ত এই গাড়িগুলোতে নেই বললেই চলে। দেশের বহু অঞ্চলে বাস-ট্রাক-লরিসহ সকল প্রকার পরিবহণ মালিক ও শ্রমিকরা বেশ কয়েকবার ধর্মঘট করেছেন মহাসড়কে এদের চলাচলের বিরুদ্ধে। বহু স্থানে কঠোর পুলিশী বন্দোবস্ত করেও এদের নিয়ন্ত্রণ করা যায়নি। 

 

 

 


আরও খবর

আন্তর্জাতিক আদিবাসী দিবস

মঙ্গলবার ০৯ আগস্ট ২০২২