Logo
শিরোনাম

কুসিক দায়িত্বে থাকবেন প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা

প্রকাশিত:রবিবার ১৫ মে ২০২২ | হালনাগাদ:শনিবার ০২ জুলাই 2০২2 |
Image

 নিজস্ব প্রতি‌বেদক,কুমিল্লা 

 কুমিল্লা সিটি কর্পোরেশনের মেয়রের মেয়াদ শেষ হবে আগামী ১৬‌মে। তারপর থেকে সিটি কর্পোরেশনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা কুমিল্লা সিটি কর্পোরেশনের প্রশাসনিক ও আর্থিক ক্ষমতার দায়িত্ব পালন করবেন।

১১ মে স্থানীয় সরকার বিভাগের উপসচিব মোহাম্মদ শামছুল আলম স্বাক্ষরিত এক চিঠিতে কুমিল্লা সিটি কর্পোরেশনের প্রধান নির্বাহীকে দায়িত্ব গ্রহণের অফিস আদেশ দেয়া হয়।

অফিস আদেশে জানানো হয়, স্থানীয় সরকার (সিটি কর্পোরেশন) আইন ২০০৯ এর ৬ ধারা অনুযায়ী, কুমিল্লা সিটি কর্পোরেশনের মেয়াদ আগামী ১৬ মে ২০২২ তারিখ উত্তীর্ণ হবে। বাংলাদেশ নির্বাচন কমিশন ইতোমধ্যে উক্ত সিটি কর্পোরেশনের নির্বাচনী তফসিল ঘোষণা করা হয়েছে।

স্থানীয় সরকার (সিটি কর্পোরেশন) সংশোধন আইন ২০১১ এবং ২০১২ এর ধারা ২৫ অনুযায়ী, নির্বাচিত নতুন মেয়র দায়িত্ব গ্রহণের আগ পর্যন্ত কুমিল্লা সিটির সব প্রশাসনিক ও আর্থিক ক্ষমতা এই করপোরেশনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তাকে দেয়া হয়েছে।

শনিবার অফিস আদেশ প্রাপ্তির বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন কুমিল্লা সিটি কর্পোরেশনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা ড. সফিকুল ইসলাম।

তিনি জানান, ১১ মে তিনি অফিস আদেশ পেয়েছেন। সেই আদেশ বাস্তবায়নে কাজ চলছে।


আরও খবর



দুর্নীতির অভিযোগ মাথায় নিয়ে

পদত্যাগ করেছেন বীমা নিয়ন্ত্রণ কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান

প্রকাশিত:শুক্রবার ১৭ জুন ২০২২ | হালনাগাদ:শুক্রবার ০১ জুলাই ২০২২ |
Image

ঘুষ নেওয়া ও অবৈধভাবে শেয়ার ব্যবসার সঙ্গে জড়িত থাকাসহ দুর্নীতির অভিযোগ মাথায় নিয়ে পদত্যাগ করেছেন বীমা উন্নয়ন ও নিয়ন্ত্রণ কর্তৃপক্ষের (আইডিআরএ) চেয়ারম্যান ড. এম মোশাররফ হোসেন।

মঙ্গলবার (১৪ জুন) অর্থমন্ত্রীর কাছে তিনি পদত্যাগপত্র জমা দিয়েছেন বলে বুধবার (১৫ জুন) মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে।

ড. মোশাররফ হোসেন ২০২০ সালের সেপ্টেম্বরে আইডিআর-এর চেয়ারম্যান হিসেবে দায়িত্ব গ্রহণ করেন। দুই বছর পার হতে না হতেই দুর্নীতির অভিযোগে পদ ছাড়তে বাধ্য হলেন তিনি।

একাধিক লাইফ বীমা কোম্পানিতে মুখ্য নির্বাহী কর্মকর্তা এবং অন্যান্য গুরুত্বপূর্ণ পদে দায়িত্ব পালন করেছেন ড. এম মোশাররফ হোসেন। তিনি একাধিক আর্থিক প্রতিষ্ঠানের স্বাধীন পরিচালক ও বোর্ড অডিট কমিটির চেয়ারম্যানের দায়িত্বও পালন করেছেন। বাংলাদেশ মার্চেন্ট ব্যাংকার্স অ্যাসোসিয়েশনের (বিএমবিএ) সহ-সভাপতির দায়িত্বও পালন করেছেন এম মোশাররফ হোসেন।

বাংলাদেশ ইন্স্যুরেন্স একাডেমি থেকে ডিপ্লোমাসহ বিমা বিষয়ে এমবিএ ডিগ্রি করেছেন মোশাররফ হোসেন। পরে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বাংলাদেশের বিমা শিল্প ও বিনিয়োগ বিষয়ে গবেষণা কার্য সম্পাদন করে ২০০৬ সালে পিএইচডি ডিগ্রি অর্জন করেন।


আরও খবর

ছোট ও মাঝারি গরুর দাম বেশি

শুক্রবার ০১ জুলাই ২০২২




সড়ক সংস্কারে ব্যাপক অনিয়ম ১দিনেই উঠে যাচ্ছে কার্পেটিং

প্রকাশিত:রবিবার ১২ জুন ২০২২ | হালনাগাদ:শনিবার ০২ জুলাই 2০২2 |
Image

অনুপ সিংহ,নোয়াখালী প্রতিনিধিঃ

নোয়াখালীর সুবর্ণচর উপজেলায় স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তরের (এলজিইডি) আওতায় বেশ কয়েকটি পুরনো সড়ক সংস্কার কাজে শিডিউলবহির্ভূতভাবে ব্যাপক অনিয়মের অভিযোগ উঠেছে।

পাঁচটি রাস্তা নির্মাণে নিম্নমানের ইটের খোয়া,ইট-বালু ব্যবহার করা হয়েছে। একটি সড়কের পিচ ঢালাইয়ে পুরাতন পাথর,বজুরি ও নিম্নমানের বিটুমিন ব্যবহার করা হয়েছে। সড়ক গুলো হলো, ১ কোটি ৬৮ লাখ টাকা প্রাক্কলিত ব্যয়ে উপজেলার পরিষ্কার বাজার থেকে ছিদ্দিক মেম্বারের দোকান পর্যন্ত ৪হাজার মিটার সড়ক। কাজটি পেয়েছে ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান মোস্তফা এন্ড সন্স। মাঠ পর্যায়ে কাজটি করছে কামরুল ইসলাম নামে এক ঠিকাদার। ১ কোটি ৬৮ লাখ টাকা প্রাক্কলিত ব্যয়ে আটকপালিয়া বাজার থেকে পরিষ্কার বাজার পর্যন্ত ২৩০০ মিটার সড়ক। এ কাজটি পেয়েছে ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান মেসার্স মা এন্টার প্রাইজ। ঠিকাদার মো.গিয়াস উদ্দিন নিজেই কাজটি করছেন। ৮নং মোহাম্মদপুর ইউনিয়নের আক্তার মিয়ার বাজার থেকে বেড়ি পর্যন্ত ১হাজার ৯শত ২২মিটার মিটার সড়ক। কাজটি সম্পন্ন করেছেন নান্টু নামে এক ঠিকাদার। উপজেলার চরক্লার্ক ইউনিয়নের জনতা বাজার থেকে বাংলা বাজার পর্যন্ত ১ কোটি ৪৫ লক্ষ টাকা ব্যয়ে ৩হাজার ৫শত মিটার সড়ক। কাজটি পেয়েছে ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান মোস্তফা এন্ড সন্স। মাঠ পর্যায়ে কাজটি করছে ঠিকাদার কামরুল ইসলাম । উপজেলার ভূঞার হাট থেকে জোবায়ের মিয়ার বাজার কৃষি ইনস্টিটিউট পর্যন্ত ১ কোটি ২৮ লক্ষ টাকা ব্যয়ে ২হাজার ২৯মিটার। কাজটি পেয়েছে ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান মিজান এন্টার প্রাইজ। ঠিকাদার নিজেই কাজটি করছে।

সরকারের জিওবি মেইনটেনেন্স প্রকল্পের আওতায় এলজিইডি সুবর্ণচর উপজেলা কার্যালয়ের তত্ত্বাবধানে চলছে এইসব নির্মাণকাজ।

স্থানীয়দের অভিযোগ,পরিষ্কার বাজার টু ছিদ্দিক মেম্বারের দোকান পর্যন্ত সড়ক সংস্কারের শুরুতেই নিম্নমানের ইটের খোয়া,বালু, ও এজেন্টে নিম্নমানের ইট ব্যবহার করা হয়। এরপর পিচ ঢালাইয়ে নিম্নমানের পুরাতন পাথর, বিটুমিন,বজুরি ব্যবহার করে রাত ১টার দিকে বৃষ্টির মধ্যে পিচ ঢালাইয়ের কাজ চালানো হয়। এ সময় স্থানীয়রা বাঁধা দিলে পরের দিন কাজ বন্ধ রাখে ঠিকাদার। পিচ ঢালাইয়ের শেষে সড়কের বেশ কয়েকটি স্থান থেকে স্থানীয়রা হাত দিয়ে টেনে নতুন কার্পেটিং তুলছে। এমন একটি ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হয়। আটকপালিয়া বাজার থেকে পরিষ্কার বাজার সড়ক সংস্কারে কাজের শুরুতেই ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান এজেন্টে নিম্নমানের ইট,ইটের খোয়া ও বালু ব্যবহার করে পিচ ঢালাইয়ের জন্য প্রস্তুত করে। স্থানীয় সাংবাদিকরা নিম্নমানের কাজের বিষয়ে সংশ্লিষ্ট তদারকি প্রতিষ্ঠানকে অবহিত করে কোন প্রতিকার পান নি। বীরদর্পে সিডিউল বহির্ভূত ভাবে কাজ চালিয়েছে ঠিকাদার। উপজেলার ৮নং মোহাম্মদপুর ইউনিয়নের আক্তার মিয়ার বাজার থেকে বেড়ি পর্যন্ত সড়ক সংস্কারের শুরুতেই নিম্নমানের ইট,ইটের খোয়া,বালু ব্যবহার করা হয়। নিম্নমানের কাজ নিয়ে ফেসবুক লাইভে এসে ক্ষুদ্ধ প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেন স্থানীয় ইউপি সদস্য খলিল। এতে করেও তিনি কোন প্রতিকার পান নি বলে অভিযোগ করে বলেন,সর্বশেষ ঠিকাদার নিম্নমানের সামগ্রী দিয়ে পিচ ঢালাইয়ের কাজ শেষ করে।

জনতা বাজার থেকে বাংলা বাজার এবং ভূঞারহাট থেকে কৃষি ইনস্টিটিউট সড়কের সংষ্কারের শুরুতেই নিম্নমানের ইট,ইটের খোয়া ব্যবহার করা হয়। জনতা বাজার থেকে বাংলা বাজার সড়কে নিম্নমানের সামগ্রী দিয়ে ড্যাম্পিং শেষে পিচ ঢালাই চলছে। ভূঞারহাট থেকে কৃষি ইনস্টিটিউট সড়কের নিম্নমানের কাজ চলছে।

এলাকাবাসীর অভিযোগ, শিডিউলের তোয়াক্কা না করে ইচ্ছেমতো পাঁচটি সড়কে নিম্নমানের কাজ করছেন ঠিকাদার। কাজের শুরু থেকেই তদারকি প্রতিষ্ঠানের যোগসাজশে ঠিকাদার প্রতিষ্ঠান তড়িঘড়ি করে এসব অনিয়ম করে চলছে। এজেন্টে নিম্নমানের ইট,ইটের খোয়া, নিম্নমানের বালু ব্যবহার করা হয়েছে। এতে একাধিক স্থানে এলাকাবাসী ক্ষিপ্ত হয়ে সড়কের কাজে বাধা দেন। তারপর এলাকাবাসী সুবর্ণচর উপজেলা প্রকৌশলী বিভাগকে মৌখিকভাবে জানিয়েও ফল পাননি। এরপর নিম্নমানের পাথর ও বজুরি দিয়ে ৩টি সড়কে কাপের্টিং করা হয়েছে। বর্তমানে ২টি সড়ক পিচ ঢালাইয়ের জন্য প্রস্তুত করা হয়েছে। বিক্ষুব্ধ এলাকাবাসী বলছেন, নির্মাণের একদিন পর হাত দিয়ে টানলে পিচ ঢালাই উঠে যাচ্ছে। সামনে বর্ষায় সব উঠে যাবে। এত খারাপ রাস্তা করার কী দরকার? স্থানীয়দের অভিযোগ উপজেলা প্রকৌশলী মো.জালাল ও সহকারী প্রকৌশলী সাজেদুল বারীর যোগসাজশে সুবর্ণচর উপজেলায় বেজায় নিম্নমানের কাজ হচ্ছে। স্থানীয়রা নিম্নমানের কাজের প্রতিবাদ করলে ঠিকাদাররা চাঁদাবাজির মামলার ভয় দেখান।

সরজমিন দেখা গেছে, সড়কে নিম্নমানের ইটের খোয়া দিয়ে যেনতেন ভাবে কাজ করা হয়েছে। অপরদিকে শ্রমিকরা বলছেন, ঠিকাদার যে রকম ইট-বালু দিচ্ছেন, তা দিয়েই তাদের রাস্তা নির্মাণ করতে হচ্ছে। একাধিক শ্রমিক নিম্নমানের ইট ও ইটের খোয়া ব্যবহারের বিষয়টি স্বীকারও করেন। এ সময় স্থানীয়রা তদারকি প্রতিষ্ঠানের ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের কাছে দাবি করেন, উচ্চপর্যায় থেকে সুবর্ণচর উপজেলার সব ইউনিয়নে স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তরের (এলজিইডি) নোয়াখালীর আওতায় বাস্তবায়িত কাজগুলো সঠিকভাবে অন্তত একবার তদন্ত করা হোক। তাহলে অনেক অনিয়ম-দুর্নীতির তথ্য বেরিয়ে আসবে। কারণ তদারকি প্রতিষ্ঠানের জেলা ও উপজেলা পর্যায়ের কর্মকর্তারা সরকারি শিডিউল অনুযায়ী উন্নয়ন কাজের মান নিয়ন্ত্রণ করতে ব্যর্থ। এটা অনেকটা ওপেন সিক্রেট। কারণ এর ঘাটে ঘাটে অনেক অনিয়মের গান আছে। এ চারটি সড়কের বিষয়ে গণমাধ্যমকর্মীকে তথ্য দিতে তালবাহানা করে সংশ্লিষ্ট তদারকি প্রতিষ্ঠান।

নিম্নমানের কাজের বিষয়ে জানতে চাইলে ঠিকাদার কামরুল ইসলাম,শিফটন,নান্টু,গিয়াস উদ্দিন অভিযোগ নাকচ করে দাবি করেন তারা সিডিউল অনুযায়ী কাজ করেছে। ঠিকাদার কামরুল ইসলাম বলেন,আমার কাজে কিছুর খারাপ পাথর গিয়েছে। অফিস বলছে এসব পাথর দিয়ে কাজ করা যাবে না। এর বাহিরে কোন অনিয়ম হয়নি তিনি দাবি করেন। ঠিকাদার শিফটন বলেন, তিনি খারাপ কাজ করার মত ঠিকাদার নয়।

সুবর্ণচর উপজেলা প্রকৌশলী মো.শাহজালাল নিম্নমানের কাজে তদারকি প্রতিষ্ঠানের কর্মক


আরও খবর



পিকআপে করে পদ্মা সেতু পার হচ্ছে মোটরসাইকেল

প্রকাশিত:সোমবার ২৭ জুন ২০২২ | হালনাগাদ:শনিবার ০২ জুলাই 2০২2 |
Image

পদ্মা সেতুতে মোটরসাইকেল চলাচল নিষিদ্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। সরকারের এ নিষেধাজ্ঞার পরও মোটরসাইকেল পদ্মা সেতু পার হচ্ছে। তবে মোটরসাইকেল চালিয়ে নয়, পিকআপে তুলে নিয়ে।

সোমবার (২৭ জুন) সকালে দেখা যায়, পিকআপ ভাড়া করে তাতে মোটরসাইকেল তুলে নিয়ে কয়েকজন চালক পদ্মা সেতু পার হচ্ছেন।

এক মোটরসাইকেল চালক বলেন, সেতুর ওপারে কাজ আছে। সরকার সেতুতে মোটরসাইকেল চলাচল নিষিদ্ধ করেছে। কিন্তু সেতু তো পার হওয়া দরকার। এ কারণে পিকআপে করে এই কায়দায় পার হচ্ছি।

পিকআপ ভাড়ার বিষয়ে তিনি বলেন, মোটরসাইকেল প্রতি ৪০০ টাকা করে ভাড়া দিতে হচ্ছে।

গত শনিবার পদ্মা সেতু উদ্বোধনের পর রবিবার থেকে গাড়ি চলাচলের জন্য উন্মুক্ত করে দেওয়া হয়। এরপর অনেকে পদ্মা সেতু দেখতে যাচ্ছেন। কেউ কেউ নির্দেশনা অমান্য করে গাড়ি থেকে নেমে সেতুতে ছবি তোলেন। যানবাহনের বড় অংশ ছিল মোটরসাইকেল।

গতকাল রাতেই সরকারের এক তথ্য বিবরণীতে জানানো হয়, আজ ভোর ৬টা থেকে অনির্দিষ্টকালের জন্য পদ্মা সেতু দিয়ে মোটরসাইকেল চলাচল বন্ধ থাকবে।


আরও খবর



রাঙ্গামাটি রাজস্থলীতে আঞ্চলিক সংগঠনের দুই পক্ষের গোলাগুলি, নিহত ১

প্রকাশিত:রবিবার ২৬ জুন ২০২২ | হালনাগাদ:শনিবার ০২ জুলাই 2০২2 |
Image

উচিংছা রাখাইন,রাঙ্গামাটি প্রতিনিধি

রাঙ্গামাটির রাজস্থলীতে আঞ্চলিক সংগঠনের দুই গ্রুপের গোলাগুলিতে পার্বত্য চট্টগ্রাম জনসংহতি সমিতি (জেএসএস)এর পোষাক পরিহিত  একজন নিহত হয়েছেন।শুক্রবার দিবাগত রাত আনুমানিক ১০ ঘঠিকার সময় উপজেলার গাইন্দ্যা ইউনিয়নের ওগারীপাড়া এলাকায় এ ঘটনা ঘটে বলে জানিয়েছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সুত্রে জানা গেছে।

রাজস্থলী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) জাকির হোসাইন জানান, উপজেলা সদর থেকে ৭ কিলোমিটার দূরে দুর্গম পাহাড়ি এলাকায় গোলাগুলির ঘটনা ঘটেছে। সকালে ঘটনাস্থল থেকে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় পোশাক পরিহিত একজনের লাশ উদ্ধার করা হয়। নিহত ব্যক্তি আঞ্চলিক সংগঠন চট্টগ্রাম জনসংহতি সমিতি (জেএসএস)এর সদস্য বলে ধারণা করা যাচ্ছে  বলে জানিয়েছেন ওসি। লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য রাঙ্গামাটি জেনারেল হাসপাতালে পাঠানো হচ্ছে বলে জানান। রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত গোলাগুলিতে নিহত ব্যক্তির পরিচয় এখনো জানা যায়নি।


আরও খবর



বাংলাদেশ দক্ষিণ এশিয়ার চতুর্থ শান্তিপূর্ণ দেশ

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ১৬ জুন ২০২২ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ৩০ জুন ২০২২ |
Image

মইনুল ইসলাম মিতুল: বৈশ্বিক শান্তি সূচকে ‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌‌(জিপিআই) ২০২২ সালে বাংলাদেশের অবস্থান ৯৬তম। অস্ট্রেলিয়ার সিডনিভিত্তিক আন্তর্জাতিক গবেষণা প্রতিষ্ঠান ইনস্টিটিউট ফর ইকোনমিকস অ্যান্ড পিস (আইইপি) বিশ্ব শান্তি সূচকের এই তথ্য প্রকাশ করেছে।

বুধবার (১৫ জুন) অস্ট্রেলিয়ার এই গবেষণা প্রতিষ্ঠান বৈশ্বিক শান্তি সূচক-২০২২ প্রকাশ করে। সূচকে দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোর মধ্যে শান্তিতে বাংলাদেশের অবস্থান চতুর্থ।

গত বছর অবশ্য একই সূচকে ৯৭তম অবস্থান থেকে সাত ধাপ এগিয়ে ৯১তম অবস্থানে উঠে এসেছিল বাংলাদেশ।

সংবাদমাধ্যম বলছে, সবশেষ প্রকাশিত সূচকের ১৬তম সংস্করণে শান্তির দিক থেকে বাংলাদেশকে মধ্যম বিভাগে রাখা হয়েছে। সূচকে বাংলাদেশ বৈশ্বিকভাবে তার অবস্থানের উন্নতি করলেও দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোর মধ্যে এর অবস্থানের অবনতি হয়েছে।

বাংলাদেশ এখন দক্ষিণ এশিয়ার চতুর্থ শান্তিপূর্ণ দেশ। শান্তির সূচকে ভারত, পাকিস্তান ও আফগানিস্তানের চেয়ে ভালো অবস্থানে রয়েছে বাংলাদেশ। তবে আঞ্চলিক র‌্যাংকিংসে সবচেয়ে ভালো অবস্থানে ভুটান। এরপরে নেপাল ও শ্রীলঙ্কা রয়েছে বাংলাদেশের চেয়ে ভালো অবস্থানে। আরও স্পষ্ট করে বললে গত বছর বাংলাদেশের দখলে থাকা স্থানটিতে চলতি বছর জায়গা পেয়েছে শ্রীলঙ্কা।

অস্ট্রেলিয়ার ওই গবেষণা প্রতিষ্ঠানের প্রতিবেদনে তুলে ধরা হয়েছে যে, দক্ষিণ এশিয়ায় গত এক বছরে সব অঞ্চলের মধ্যে শান্তিতে সবচেয়ে বেশি উন্নতি হয়েছে। তবে এরপরও এটি সামগ্রিকভাবে দ্বিতীয় সর্বনিম্ন শান্তিপূর্ণ অঞ্চল রয়ে গেছে।

দক্ষিণ এশিয়ার সাতটি দেশের মধ্যে সবচেয়ে শান্তিপূর্ণ দেশ হিসেবে নাম রয়েছে ভুটানের। বৈশ্বিকভাবে এই দেশটির অবস্থান ১৯তম। এছাড়া দেশটি ইউরোপ, এশিয়া-প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চল এবং উত্তর আমেরিকার বাইরে জিপিআই-তে সর্বোচ্চ র‌্যাংকযুক্ত দেশ।

অন্যদিকে চলতি বছর বাংলাদেশের জায়গায় এসেছে শ্রীলঙ্কা। জিপিআইয়ের জন্য প্রয়োজনীয় পরিসংখ্যান বিবেচনায় নেওয়ার কাট-অফ তারিখের পর শ্রীলঙ্কায় অর্থনৈতিক সংকট ও রাজনৈতিক সংঘাত ঘটেছে। তবে এর আগেই সামগ্রিক স্কোরে ৩.৬ শতাংশ উন্নতি করে ৯০তম অবস্থানে চলে আসে শ্রীলঙ্কা।

এ ছাড়া দক্ষিণ এশিয়ার অন্য দেশগুলোর মধ্যে বৈশ্বিক শান্তি সূচকে নেপাল ৭৩তম অবস্থানে, ভারত ১৩৫তম অবস্থানে এবং পাকিস্তান রয়েছে ১৪৭তম অবস্থানে।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ইনস্টিটিউট ফর ইকোনমিকস অ্যান্ড পিসের (আইইপি) তৈরি বিশ্ব শান্তির সূচকে বাংলাদেশ ২০২২ সালে ২.০৬৭ স্কোর করেছে। অন্যদিকে গত বছর এই স্কোর ছিল ২.০৬৮। মূলত কোনো দেশের স্কোর যত কম হয়, সেই দেশ তত শান্তিময়।

বুধবার প্রকাশিত সূচকের ১৬তম সংস্করণে ১৬৩টি স্বাধীন রাষ্ট্র ও অঞ্চলকে তাদের শান্তির স্তর অনুসারে পরিমাপ করে তালিকায় স্থান দিয়েছে অস্ট্রেলিয়ার এই গবেষণা প্রতিষ্ঠান।

চলতি বছর আইসল্যান্ড আবারও বিশ্বের সবচেয়ে শান্তিপূর্ণ দেশ হিসাবে তালিকায় শীর্ষে স্থান পেয়েছে। ২০০৮ সাল থেকে শীর্ষ অবস্থান ধরে রেখেছে দেশটি। এরপরই তালিকায় রয়েছে নিউজিল্যান্ড, আয়ারল্যান্ড, ডেনমার্ক ও অস্ট্রিয়া।

অন্যদিকে টানা পঞ্চম বছরের মতো বিশ্বের সবচেয়ে কম শান্তিপূর্ণ দেশ হিসেবে তালিকায় স্থান পেয়েছে আফগানিস্তান। এর আগের চারটি দেশ হচ্ছে ইয়েমেন, সিরিয়া, রাশিয়া ও দক্ষিণ সুদান।


আরও খবর