Logo
শিরোনাম

লালমনিরহাটে বিজিবি’র সৈনিক পদে এক ভুয়া পরীক্ষার্থী আটক

প্রকাশিত:শুক্রবার ২৯ জুলাই ২০২২ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ০৬ অক্টোবর ২০২২ |
Image

লালমনিরহাট প্রতিনিধি ঃ     

তিনি টাকার বিনিময়ে কাজ করেন, তার রয়েছে বেশ চৌকসয়তা এমন বহুনাটকের পর লালমনিরহাটে বিজিবি’র সৈনিক পদে প্রক্সি দিতে এসে আটক হয়েছেন মিজানুর রহমান মিজান নামে এক ভুয়া পরীক্ষার্থী।

বিজিবি কর্তৃক জানা যায়, ৫০হাজার টাকা চুক্তিতে প্রক্সি দিতে গিয়ে বিজিবির হাতে আটক হন তিনি। বৃহস্পতিবার (২৮ জুলাই) এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন বিজিবি লালমনিরহাটের তিস্তা ৬১ ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক লেফটেন্যান্ট কর্ণেল শাহরীয়ার হাসান।

আটক মিজান ঠাকুরগাঁও সদর উপজেলার সিন্দুরনা গ্রামের খলিফা রহমানের ছেলে। তিনি বিপিএড পরীক্ষার্থী ছিলেন।

লেফটেন্যান্ট কর্ণেল শাহরীয়ার হাসান জানান, বিজিবিতে সৈনিক পদে নিয়োগ চলছে। এর অংশ হিসেবে বুধবার (২৭ জুলাই) গাইবান্ধা জেলার প্রার্থীদের লিখিত পরীক্ষা লালমনিরহাটের হাতীবান্ধা উপজেলার দোয়ানিতে অবস্থিত বিজিবি ৬১ ব্যাটালিয়নের তিস্তা-২ এ অনুষ্ঠিত হয়।

 99GD080896 রোল নম্বরের পরীক্ষার্থীর পরিবর্তে সারোয়ার মণ্ডল সজিবের হয়ে লিখিত পরীক্ষায় অংশ নিতে কেন্দ্রে আসে‌ন মিজান। এ সময় বিষয়টি বুঝতে পেরে ভুয়া পরীক্ষার্থী হিসেবে তাকে আটক করে বিজিবি।

পরে বিজিবির প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে মিজান স্বীকার করেন যে ৫০হাজার টাকা চুক্তিতে অন্যের হয়ে পরীক্ষায় অংশ নেন তিনি। তার সঙ্গে জড়িত দালাল চক্রটির তথ্যও বিজিবিকে দেয় মিজান।

এ ঘটনায় প্রক্সি দেওয়ার অপরাধে মিজান ও দালাল চক্রটির বিরুদ্ধে হাতীবান্ধা থানায় একটি মামলা দায়ের করা হয়েছে। পরে তাকে পুলিশে সোপর্দ করেছে বিজিবি।

হাতীবান্ধা থানার অফিসার ইনচার্জ শাহা আলম এ ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।


আরও খবর



যাত্রাবাড়ীর মারকাজুত তাহফিজ ইন্টারন্যাশনাল মাদরাসায়

শিশু বলাৎকারের অভিযোগে মাদ্রাসা শিক্ষককে গণপিটুনি

প্রকাশিত:সোমবার ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২২ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ০৬ অক্টোবর ২০২২ |
Image

রাজধানীর যাত্রাবাড়ীর মারকাজুত তাহফিজ ইন্টারন্যাশনাল মাদরাসায় দুই ছাত্রকে বলাৎকারের অভিযোগে দুই শিক্ষককে আটক করে গণপিটুনি দিয়েছেন অভিভাবকরা। শিক্ষার্থীদের অভিযোগ, এর আগে একাধিকবার এমন ঘটনা ঘটলেও তারা ভয়ে জানাতে পারেনি।

যাদের বিরুদ্ধে বলাৎকারের অভিযোগ তারা হলেন- ওই মাদরাসার আরবি শিক্ষক আবু বকর ও আল আমীন।

২৩ সেপ্টেম্বর এই ঘটনার পর ওই মাদরাসার সাড়ে ৪০০ বেশি শিক্ষার্থীকে বাড়ি নিয়ে গেছে অভিভাবকরা । 

 নির্যাতনের শিকার ওই ছাত্রদের অভিভাবকরা জানান, সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে চটকদার বিজ্ঞাপন দেখে সন্তানদের হাফেজ বানাতে যাত্রাবাড়ীর মারকাজুত তাহফিজ মাদরাসায় ভর্তি করান। কিন্তু আবাসিক এই মাদরাসায় বছরের পর বছর শিক্ষার্থী বলাৎকারের অভিযোগ ছিলো। হাতে নাতে যার প্রমাণ মেলে শুক্রবার। হেফজ শাখার আট ও দশ বছরের দুই শিক্ষার্থী বহুদিন ধরে বলাৎকারের শিকার হয়ে আসছিল। শুক্রবার তারা বাড়ি গিয়ে পরিবারে ঘটনা জানালে অভিভাবকরা এসে দুই  শিক্ষক আবু বকর ও আল আমীনকে গণপিটুনি দেয়।


এদিকে মাদরাসার বাকি শিক্ষক ও কর্মকর্তারাও বলৎকারের অভিযোগ স্বীকার করেছেন। তবে ঠিক কত দিন ধরে এমন ঘটনা ঘটে আসছে সেই তথ্য দিতে রাজি হয়নি।

মাদরাসাটির শিশুরা জানান, দীর্ঘদিন ধরে ওই শিক্ষকরা বলাৎকার করে আসছিলেন। তারা মাদরাসাটির চতুর্থ ও পঞ্চম তলা নিয়ে শিশুদের বলাৎকার করতেন।

ওই ছাত্র জানায় হুজুর আরও কয়েক ছাত্রকে বলাৎকার করেছেন। বেশ কয়েকটি ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শীও সে। তবে ভয় ও লজ্জায় সবাই চুপ থাকে।

মাদরাসা কর্তৃপক্ষ ও শিক্ষকরা বিষয়টি অর্থের বিনিময়ে ধামাচাপা দেওয়ার চেষ্টা করেন এবং বিভিন্ন হুমকি-ধামকি দিয়ে দিচ্ছেন।

মাদরাসাটির প্রতিষ্ঠাতা হাফেজ নেসার আহমদ আন নাছিরী একজন ধর্মীয় বক্তা। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে তার লাখ লাখ ফলোয়ার। তিনি নিজেও এই ঘটনায় গণপিটুনীর শিকার হয়েছেন । তার বিরুদ্ধে আট ছাত্রকে বলাৎকারের অভিযোগ রয়েছে ।


 ২০০৯ সালে চালু হওয়া এই মাদরাসায় এখন নারী-পুরুষ তিন শাখায় এক হাজারের বেশি  আবাসিক শিক্ষার্থী রয়েছে।

জানা গেছে, মাদরাসাটির খরচও ব্যয়বহুল। ভিআইপি হলে প্রতিমাসে খরচ ২৫ থেকে ৩০ হাজার টাকা। আর সাধারণ হলে ১২ থেকে ১৪ হাজার টাকা। মাদরাসাটির আয় মাসে কয়েক কোটি টাকা ।

তবে ঘটনা জানাজানি হলে অভিভাবকরা বেশিরভাগ শিক্ষার্থীকে বাড়ি নিয়ে গেছে । 

অভিযোগ আছে, স্থানীয় এক মহিলা কাউন্সিলারের ছত্রছায়ায় মাদরাসা মালিক নেছারী এবং   কিছু অসাধু কিছু ব্যক্তির ভয়ভীতির মুখে ভুক্তভোগীরা মামলা করার সাহস পাচ্ছে না।


আরও খবর

শিগগিরই বাড়ছে বিদ্যুতের দাম

মঙ্গলবার ০৪ অক্টোবর ২০২২




ইটনা উপজেলা কৃষকলীগের বর্ধিত সভা অনুষ্ঠিত

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ১৩ সেপ্টেম্বর ২০২২ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ০৬ অক্টোবর ২০২২ |
Image

মোঃ মুজাহিদ সরকার কিশোরগঞ্জঃ

বৃষ্টি ও বৈরি আবহাওয়া উপেক্ষা করে ইটনা উপজেলা কৃষকলীগের বর্ধিত সভাপতি অনুষ্ঠিত হয়েছে। 

১৩ সেপ্টেম্বর (মঙ্গলবার) দুপুরে ইটনা উপজেলা আ.লীগ কার্যালয়ে এ বর্ধিত সভা অনুষ্ঠিত হয়।

এতে প্রধান অতিথি ছিলেন ইটনা উপজেলা আ.লীগের সভাপতি ও উপজেলা চেয়ারম্যান চৌধুরি কামরুল হাসান।ইটনা উপজেলা কৃষকলীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি পরিমল কুমার সাহার সভাপতিত্বে সভায় প্রধান বক্তা ছিলেন জেলা কৃষকলীগের সাধারণ সম্পাদক আনোয়ার হোসেন বাচ্চু। 

ইটনা উপজেলা কৃষকলীগের সাধারণ সম্পাদক বজলু মিয়ার পরিচালনায় আমন্ত্রিত অতিথির বক্তব্য রাখেন ইটনা উপজেলা আ.লীগের সাধারণ সম্পাদক সোহরাব উদ্দিন ঠাকুর (খসরু),শহর কৃষকলীগের সভাপতি আলমগীর হোসেন,জেলা কৃষকলীগের সম্পাদক এস এম আলমগীর,ইটনা উপজেলা কৃষকলীগের সহ-সভাপতি আবু বক্কর,শরিয়ত উল্লা,ইটনা সদর ইউনিয়ন কৃষকলীগের সভাপতি মো:শাহজাহান প্রমুখ।

বর্ধিত সভায় ইটনা উপজেলা কৃষকলীগের সম্মেলনকে সামনে রেখে প্রতিটি ইউনিয়ন সম্মেলনের তারিখ ঘোষণা করা হয়।


আরও খবর

পুলিশের পক্ষে বললেন খামেনি

মঙ্গলবার ০৪ অক্টোবর ২০২২




ফুলবাড়িতে,জন্মপ্রতিবন্ধী মানিক মিয়া পা দিয়ে দিচ্ছেন এসএসসি পরীক্ষা

প্রকাশিত:শুক্রবার ১৬ সেপ্টেম্বর ২০২২ | হালনাগাদ:বুধবার ০৫ অক্টোবর ২০২২ |
Image

উত্তম কুমার মোহন্ত ফুলবাড়ী,কুড়িগ্রামঃ

কুড়িগ্রামের ফুলবাড়ী সদর ইউনিয়নের চন্দ্রখানা গ্রামের মোঃ মিজানুর রহমান এর ছেলে মানিক মিয়া( ৫)দুইহাত বিহীন জন্ম প্রতিবন্ধী। সে পা দিয়ে পিএসসি, জেএসসি পরীক্ষায় মেধা তালিকায  উত্তীর্ণের পর আজ ১৫(সেপ্টেম্বর) বৃহস্পতিবার বরাবরের মতো পা দিয়ে এসএসসি পরীক্ষা দিচ্ছে। পা দিয়ে লিখলেও অন্যান্য শিক্ষার্থীর তুলনায় তার লেখার প্রশংসা না করলে নয়।

মানিকের বাবা মোঃ মিজানুর রহমান পেশায় একজন ঔষধ ব্যবসায়ী,মা মোছাঃ মরিয়ম বেগম একটি স্কুল এন্ড কলেজের অধ্যাপিকা এই দুই দম্পতির বড়ছেলে মানিক মিয়া দুইহাত বিহীন জন্ম প্রতিবন্ধী।দুটি হাত নাকলেও পড়াশোনায় পিছিয়ে নেই সে। মহান সৃষ্টিকর্তা দুহাত বিহীন তাকে এমন মেধাবী করে তৈরি করেছে যে পরীক্ষার হলে অন্যান্য শিক্ষার্থীর চেয়ে পা দিয়ে দ্রুত লিখে সুন্দর ভাবে সকল প্রশ্নের উত্তর দিচ্ছে মানিক।আরো একটি অবাক বিষয় পা দিয়ে মোবাইল ফোন ব্যবহার করে বন্ধু বান্ধব,আত্নীয় স্বজনের সাথে দিব্বি কথা বলতে পারে।

অবাক বিষয় মানিক মিয়া পা দিয়ে কম্পিউটার টাইপ, ইন্টারনেট ব্রাউজার সহ-বিভিন্ন বিষয়ে  পারদর্শী। সে ২০১৬সালে ফুলবাড়ী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় থেকে পিএসসিতে গোল্ডেন এ+প্লাস ২০২০সালে ফুলবাড়ী জছিমিয়া মল্ডেল সরকারি উচ্চ বিদ্যালয় থেকে জেএসসি জিপিএ ৫ পেয়ে মেধা তালিকায় উত্তীর্ণ হয়েছেন।এজন্য মানিকের মা মরিয়ম বেগমের অবদান অনেক বেশি।কারণ একজন শিক্ষিত মা দিতে পারে একটি ভবিষৎত শিক্ষিত জাতি।

বৃহস্পতিবার ১৫(সেপ্টেম্বর)ফুলবাড়ী বালিকা পাইলট উচ্চ বিদ্যালয় এসএসসি পরীক্ষা কেন্দ্রে বাংলা পরীক্ষায় অংশ গ্রহণের সময় মানিকের সাথে কথা বলে জানা যায় ,আমার দুটি হাত না থাকলেও আল্লাহ রহমতে আমি পিএসসিতে গোল্ডেন এ+প্লাসপাই জেএসসিতে জিপিএ ৫ পেয়েছি আপনারা সবাই দোয়া করবেন এসএসসিতেও গোল্ডেন এ+ প্লাস পেয়ে কৃতকার্য হতে পারি।আমার ইচ্ছা ভালো রেজাল্ট করে প্রকৌশলী বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়াশুনা করার।কারণ আমি কম্পিউটার ইঞ্জিনিয়ার হয়ে বাবা মায়ের মুখ উজ্জ্বল করতে চাই।

মানিকের বাবা মিজানুর রহমান মা মরিয়ম বেগম বলেন,আমাদের দুই ছেলে মানিক বড় ছোট ফাহীম ৬ষ্ঠ শ্রেনীতে পরে। মানিকের জন্মথেকে দুটি হাত নেই কিন্তূ আমাদের তা মনে হয় না ছোট থেকেই তাকে আমরা পাদিয়ে লেখার অভ্যাস করিয়েছি। সমাজে অনেক সুস্থ ও স্বাভাবিক ছেলে মেয়েদের পড়াশুনার চেয়ে আমাদের মানিকের মেধা অনেক ভালো। আল্লাহর রহমতে পিএসসি,জেএসসিতে অনেক ভালো রেজাল্ট করেছে এটা আমাদের গর্ব। আপনারা সবাই দোয়া করবেন আমার ছেলেটা যেন সুস্থ সুন্দর ভাবে বেঁচে থাকে এবং পূর্বের ন্যায় এসে এসপি ভালো রেজাল্ট করতে পেরে তার মনের স্বপ্ন গুলো পূরণ করতে পারে।

ফুলবাড়ী জসিমিয়া মডেল সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আবেদ আলী খন্দকার জানান, শারীরিক প্রতিবন্ধকতা থাকলেও মানিক অসাধারণ ছাত্র।সে আমাদের

সম্পদ সে ডান পায়ের বুড়ো আঙ্গুল দিয়ে কলম ধরে লিখে আর বা পায়ের আঙ্গুল দিয়ে প্রশ্ন ও খাতার পাতা উল্টায় এইভাবে লেখে সে বিগত পরীক্ষাগুলোতে ভালো রেজাল্ট করেছে। আমি দোয়া করি এসএসসি তে যেন ভালো রেজাল্ট করতে পারে এজন্য প্রান খুলে দোয়া করি।

ফুলবাড়ী বালিকা পাইলট উচ্চ বিদ্যালয় পরীক্ষা কেন্দ্রে সচিব, মশিউর রহমান বলেন, মানিক প্রতিবন্ধী হলেও অন্যান্য শিক্ষার্থীর তুলনায় তার মেধা অনেক ভালো।তার বিগত পরীক্ষার রেজাল্ট অনেক ভালো,সে ব্রেঞ্চে বসে লিখতে পারেনা সেই জন্য তাকে চৌকিতে বসে পরীক্ষার ব্যবস্থা করে দেওয়া হয়েছে নিয়ম অনুযায়ী তাকে বিশ মিনিট বাড়তি সময় দেওয়া সহ সকল সুবিধা দেওয়া হয়েছে। একটি অবাক বিষয় পা দিয়ে এত সুন্দর লেখা এটা আমার কাছে অদ্ভুত বিষয়। আমি দোয়া করি মানিক যেন পূর্বের ন্যায় ভালো রেজাল্ট করতে পারে বাবা মায়ের মুখ উজ্জ্বল করতে পারে। 


আরও খবর



সীমান্ত অস্থিরতায় মিয়ানমার জান্তা দায়ী

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ২০ সেপ্টেম্বর ২০22 | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ০৬ অক্টোবর ২০২২ |
Image

বাংলাদেশ-মিয়ানমার সীমান্ত অঞ্চলে অস্থিরতার জন্য মিয়ানমারের সামরিক জান্তা সরকারকে দায়ী করে বিবৃতি দিয়েছে দেশটির বিদ্রোহী সশস্ত্র গোষ্ঠী আরাকান আর্মি (এএ)। মিয়ানমারভিত্তিক গণমাধ্যম ও রাখাইনভিত্তিক সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমণ্ডগুলোতে আরাকান আর্মির মূল রাজনৈতিক দল ইউনাইটেড লিগ অব আরাকানের বার্মিজ ভাষায় লেখা একটি বিবৃতি প্রচার করা হয়েছে।

রবিবার মিয়ানমারের ওয়েস্টার্ন নিউজে প্রকাশিত এক প্রতিবেদনে বলা হয়, আরাকান আর্মির ওই বিবৃতিতে বাংলাদেশের বান্দরবানের মর্টারশেল বিস্ফোরণে নিহত রোহিঙ্গা ইকবালের মৃত্যুতে সমবেদনা জানানো হয়েছে।

বিবৃতিতে এ ঘটনার জন্য মিয়ানমারের সামরিক সরকার নিয়ন্ত্রিত বর্ডার গার্ড পুলিশকে দায়ী করে প্রতিবাদ জানিয়েছে আরাকান আর্মি। মিয়ানমারে সামরিক জান্তা সরকার দমন-নিপীড়ন চালাচ্ছে বলে দাবি করে আরাকান আর্মি জানায়, জান্তার এমন আচরণের কারণে দেশটির সীমান্ত অঞ্চলের মানুষদের চরম সংকটের মুখোমুখি হতে হচ্ছে।

এদিকে আরাকান আর্মির এই বিবৃতিকে নাটক বলে দাবি করেছে উখিয়ার রোহিঙ্গা ক্যাম্পে আশ্রিত রোহিঙ্গারা। এ প্রসঙ্গে কুতুপালং রোহিঙ্গা ক্যাম্পের বাসিন্দা রোহিঙ্গা অধিকারকর্মী মোহাম্মদ হাবিব বলেন, অস্থিতিশীল পরিস্থিতির জন্য জান্তা ও আরাকান আর্মি দায়ী। রোহিঙ্গার মৃত্যুতে আরাকান আর্মির দুঃখ প্রকাশ নাটক ছাড়া কিছুই না।

দুই মাস ধরে রাখাইনের সীমান্ত অঞ্চলে মিয়ানমারের সেনাবাহিনী ও দেশটির বিদ্রোহী গোষ্ঠী আরাকান আর্মির মধ্যে সংঘাত চলছে।


আরও খবর

চিকিৎসাবিজ্ঞানের নোবেল ঘোষণা

মঙ্গলবার ০৪ অক্টোবর ২০২২




পূর্ণ নিরাপত্তার সাথে সারাদেশে দুর্গাপূজা হচ্ছে

প্রকাশিত:বুধবার ০৫ অক্টোবর ২০২২ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ০৬ অক্টোবর ২০২২ |
Image

মোঃ মোজাহিদ সরকার, কিশোরগঞ্জ ঃ

কিশোরগঞ্জ হাওর উপজেলা ইটনা উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়নের শারদীয় দুর্গাপুজোর মন্ডপ পরিদর্শন করেছেন উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি ও উপজেলা চেয়ারম্যান চৌধুরী কামরুল হাসান। আরও সফর সঙ্গী ছিলেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সোহরাব উদ্দিন ঠাকুর, বীর মুক্তিযোদ্ধা নজরুল ইসলাম ঠাকুর, উপজেলা আওয়ামী লীগ নেতা মোঃ জিল্লুর রহমান, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান সাখাওয়াত হোসেন, আওয়ামীলীগ নেতা গোলাম মোস্তফা, উপজেলা কৃষকলীগের সাধারণ সম্পাদক মোঃ বজলু মিয়া, পূজা উদযাপন পরিষদ ইটনা উপজেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক কৌশিক দেব নাথ জয়, সাংগঠনিক সম্পাদক অমর সাহা। 

০৪ অক্টোবর সকাল ১১টায় উপজেলা সদর থেকে স্পিডবোডে দলীয় নেতাকর্মীদের নিয়ে জয়সিদ্ধি ইউনিয়নে রওনা হন। তিনি জয়সিদ্ধি ইউনিয়নের করনশী কালি মন্দির, জয়সিদ্ধি কালি মন্দির, সাহাহাটি প্রতিমা সংঘ মন্দির পরিদর্শন এবং সবার সাথে মতবিনিময় করেন। 

বেলা দুইটায় তিনি মৃগা ইউনিয়নের ভাটিরাজিবপুর যুব সংঘ মন্দির, ভাটিরাজিবপুর মরলবাড়ি পূজা মণ্ডপ, জগন্নাথপুর মন্দির পরিদর্শন এবং মতবিনিময় করেন। 

বেলা চারটায় ধনপুর ইউনিয়নের বলরামপুর পূর্জা মন্দির, কাঠইর পূজা মণ্ডপ, বাকসাই পূজা মণ্ডপ, সহিলা রায়বাড়ি পূজা মণ্ডপ, শহিলা ঘোষপাড়া পূজা মণ্ডপে পরিদর্শন করেন এবং খোঁজ খবর নেন। 

উপজেলা চেয়ারম্যান ও আওয়ামীলীগের সভাপতি চৌধুরী কামরুল হাসানের নিজস্ব ফাউন্ড থেকে জয়সিদ্ধি ইউনিয়নের সাহাহাটি গ্রামের ঘাটের জন্য ২ লক্ষ টাকা এবং ২টা টিউবওয়েল, মৃগা ইউনিয়নের জগন্নাথপুর মন্দিরের উন্নয়ন কাজের জন্য ৫০ হাজার টাকা অনুদান ঘোষণা করেন। 

উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও উপজেলা চেয়ারম্যান চৌধুরী কামরুল হাসান বক্তব্যে বলেন, সনাতন ধর্মাবলম্বীদের প্রধান ধর্মীয় উৎসব দুর্গাপূজা। সমাজের অন্যায় অবিচার অশুভ ও অসুরশক্তির দমনের মাধ্যমে শান্তি প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে এ পূজা হয়ে থাকে। তিনি আরও বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের কন্যা দেশরত্ন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সরকারের সহায়তায় নিরাপত্তার সাথে সারাদেশে দুর্গাপূজা হচ্ছে।


আরও খবর