Logo
শিরোনাম
রাজবাড়ীতে ট্রাকের সাথে সংঘর্ষে মোটর সাইকেল আরোহীর মৃত্যু রাজবাড়ীতে আবৃত্তি ও কথামালায় প্রকাশনা উৎসব নওগাঁয় মোটরসাইকেলের ধাক্কায় স্কুল ছাত্র নিহত-মা ও ছোট বোন আহত মোরেলগঞ্জে শ্রমীকদের মাঝে শীতবস্ত্র বিতরণ করলেন এমপি মিলন লালমনিরহাটে বিদ্যুৎ স্পৃষ্টে মারাগেছে স্কুলছাত্র নওগাঁয় বোরো ধান চাষের শুরুতেই বিদ্যুতের লোড শেডিং, দুঃশ্চিন্তায় কৃষকরা নওগাঁয় ৩৫ কোটি টাকা মূল্যের কষ্টিপাথরের মূর্তি উদ্ধার করেছে পুলিশ কুড়িগ্রামের শীতকাতর অসহায় মানুষের পাশে কেন্দ্রীয় যুবলীগ নেত্রকোনায় বিশ্ব জলাভূমি দিবস উপলক্ষে মানববন্ধন মোরেলগঞ্জে প্রাথমিক বিদ্যালয়ের দৈন্যদশা শিক্ষার্থী ৮ শিক্ষক ২

লন্ডনে পিএসভিআই কনফারেন্সে প্রতিমন্ত্রী ইন্দিরা

প্রকাশিত:Tuesday ২৯ November ২০২২ | হালনাগাদ:Friday ০৩ February ২০২৩ |
Image

আলমগীর হোসেন ঃ


আলোড়ন ডেস্ক :- মহিলা ও শিশু বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী ফজিলাতুন নেসা ইন্দিরা বলেছেন, বাংলাদেশ জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা কার্যক্রমে  সর্বোচ্চ সেনাপ্রদাকারী দেশ। এ পর্যন্ত বাংলাদেশ সশস্ত্র বাহিনীর দুই হাজার তিনশত সাতানব্বই জন নারী শান্তিরক্ষা কার্যক্রমে অংশগ্রহণ করেছে এবং বর্তমানে পাঁচশত উনআশি জন নারী বিভিন্ন মিশনে নিয়োজিত আছে। এই বাইরেও দক্ষিণ সুদান ও সোমালিয়ায় জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা মিশনে বাংলাদেশের চারজন নারী বিচারক দায়িত্ব পালন করছে।বাংলাদেশ জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের, “সবার সাথে বন্ধুত্ব এবং কারও সাথে বিদ্বেষ নয়” বৈদেশিক নীতি অনুসরণ করে আসছে এবং মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা কার্যক্রমকে জোরালোভাবে সমর্থন করেন। বাংলাদেশ ১৯৮৮ সালে প্রথম জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা মিশনে এবং নারী শান্তিরক্ষীরা ২০০০ সাল থেকে মিশনে অংশগ্রহণ করে আসছে। 

তিনি বলেন, সংঘাতপূর্ণ অঞ্চলে নারী, শিশু ও সাধারণ মানুষ নিরাপত্তা হুমকির সম্মুখীন হয়ে শান্তিরক্ষী বাহিনীর নিকট থেকে সহায়তা প্রত্যাশা করে। বাংলাদেশ সশস্ত্র বাহিনী সংঘাতপূর্ণ ও অস্থিতিশীল নিরাপত্তা পরিস্থিতিতে নারী শান্তিরক্ষী প্রেরণ করে নারীর ক্ষমতায়ন এবং জেন্ডার সমতা অর্জনে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছে। বাংলাদেশ ২০১৬ সালে আইভরিকোস্টে জাতিসংঘের ইতিহাসে প্রথম দেশ হিসেবে নারী সামরিক কন্টিনজেন্ট কমান্ডার মোতায়েন করে। নারী শান্তিরক্ষীদের উপস্থিতি স্থানীয় জনগণের আস্থা অর্জন জেন্ডার ভায়োলেন্স রোধে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে। তারা বেসামরিক নাগরিকদের সুরক্ষা, নারীর সুরক্ষা, শান্তি ও নিরাপত্তা এবং গণতান্ত্রিক নির্বাচন পরিচালনাসহ আইন-শৃঙ্খলা পুনরুদ্ধারে সুনামের সাথে কাজ করে যাচ্ছে। 

মহিলা ও শিশু বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী ফজিলাতুন নেসা ইন্দিরা ২৮ নভেম্বর লন্ডনে কুইন এলিজাবেথ সেন্টারে যুক্তরাজ্যের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় আয়োজিত দুদিন ব্যাপী “প্রিভেন্টিং সেক্সুয়াল ভায়োলেন্স ইন কনফ্লিক্ট ইনিশিয়েটিভ কনফারেন্স (পিএসভিআই) ২০২২” এ বেস্ট প্রাকটিস ইন ডিফেন্স অন প্রিভেন্টিং এন্ড রেসপন্ডিং টু কনফ্লিক্ট রিলেটেড সেক্সুয়াল ভায়োলেন্স সেশনে এ কথা বলেন। 

যুক্তরাজ্যের আর্মড ফোর্সেস মন্ত্রী জেমস হিয়াপী (James Heappey ) এর সভাপতিত্বে এ সেশনে আলোচক ছিলেন ন্যাটোর মহাসচিবের বিশেষ প্রতিনিধি ইরেন ফেলেন (Irene Fellin) যুক্তরাজ্যের প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের মেজর চারমেইনে গেলডেনহুয়েজ ( Major Charmaine Geldenhuys), জেনেভা সেন্টার ফর সিকিউরিটি সেক্টর গভর্নেন্সের ড. মেগান বাসটিক (Dr. Mrgan Bastick) এবং বিপিএসটি’র জেন্ডার এ্যাডভাইজার ড সেল্লাহ কিং ওরো (Dr. Sellah King’oro).

এসময় উপস্থিত ছিলেন যুক্তরাজ্যে নিযুক্ত বাংলাদেশের হাইকমিশনার সাইদা মুনা তাসনিম এবং মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সচিব মো: হাসানুজ্জামান কল্লোল। এ কনফারেন্সে বিশ্বের সত্তরটির বেশী দেশের প্রতিনিধি, শান্তি রক্ষা মিশনের প্রতিনিধি ও সিভিল সোসাইটির প্রতিনিধি অংশগ্রহণ করছে। প্রথম “প্রিভেন্টিং সেক্সুয়াল ভায়োলেন্স ইন কনফ্লিক্ট ইনিশিয়েটিভ কনফারেন্’ অনুষ্ঠিত হয়ে ২০১২ সালে। দশম বর্ষ পুর্তি হয়েছে এ কনফারেন্সের আয়োজন করছে যুক্তরাজ্য। ‘স্ট্রেনদেনিং গ্লোবাল রেসপন্স টু কনফ্লিক্ট রিলেটেড সেক্সুয়াল ভায়োলেন্স’, ‘প্রিভেন্টিং কনফ্লিক্ট রিলেটেড সেক্সুয়াল ভায়োলেন্স’, ‘স্ট্রেনদেনিং একাউনটেবিলিটি এন্ড জাস্টিস এবং সার্পোটিং সাইভাইভার্স’ এন্ড ‘চিল্ড্রেন বর্ন অব ভায়োলেন্স ইন কনফ্লিক্ট’ চারটি থিমের উপর কনফারেন্স অনুষ্ঠিত হচ্ছে। 

প্রতিমন্ত্রী ইন্দিরা আরো বলেন, শান্তি রক্ষা মিশনে বিপুল সংখ্যক নারীর অংশগ্রহণ জেন্ডার বৈষম্য ও যৌন সহিংসতা প্রতিরোধে সহায়তা করতে পারে। শান্তি রক্ষা মিশনের উচ্চপদে নারীদের পদায়ন, সিদ্ধান্ত গ্রহণ, সমান সুযোগ এবং সংঘাতময় পরিস্থিতি মোকাবেলায় তাদের পর্যাপ্ত প্রশিক্ষণ প্রদান করতে হবে। নারী, শান্তি ও নিরাপত্তা বিষয়ে জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদের রেজুলেশন ১৩২৫ বাস্তবায়ন এবং একটি শান্তিপূর্ণ বিশ্ব গড়ার লক্ষ্যে পরিবার, কমিউনিটি এবং সমাজে সকল  পরিস্থিতিতে নারীর সমান অধিকার নিশ্চিত করতে হবে।


আরও খবর



নওগাঁয় পরেছিলো মৃতদেহ - উদ্ধার করলো পুলিশ

প্রকাশিত:Wednesday ১১ January ২০২৩ | হালনাগাদ:Wednesday ০১ February ২০২৩ |
Image

শহিদুল ইসলাম জি এম মিঠন :


নওগাঁর পত্নীতলা উপজেলার (পত্নীতলা বাজার) এলাকায় একটি ব্রীজের ধারে পরে থাকা অবস্থায় হাবারু ভূইমালী (৬৫) নামের এক ব্যাক্তির মৃতদেহ উদ্ধার করেছে পত্নীতলা থানা পুলিশ। মঙ্গলবার দুপুরের দিকে মৃতদেহটি ঘটনাস্থল থেকে উদ্ধার করে পুলিশ। নিহত হাবারু ভূইমালী পত্নীতলা উপজেলার পাশ্ববর্তী মহাদেবপুর উপজেলার মহিষবাথান (স্কুলপাড়া) গ্রামের মৃত রাজ মোহনের ছেলে।

সরেজমিনে ঘটনাস্থলে গিয়ে জানা যায়, মঙ্গলবার সকাল সারে ৮ টারদিকে ব্রীজের পার্শ্বে হাল্কা কাদায় এক বৃদ্ধকে পরে থাকতে দেখে স্থানীয় লোকজন ও পথচারীরা। পরবর্তীতে ঘটনাটি পুলিশকে জানান স্থানিয়রা। সংবাদ পাওয়ার সাথে সাথেই পত্নীতলা থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌছে মৃতদেহর নাম  পরিচয় শনাক্ত করার চেষ্টার পাশাপাশি প্রাথমিক সুরতহাল রির্পোট অন্তে মৃতদেহ উদ্ধার পূর্বক ময়না তদন্তের জন্য নওগাঁ সদর হাসপাতাল মর্গে প্রেরন করার পক্রিয়া চলছিলো।

মৃতদেহ উদ্ধারের সত্যতা নিশ্চিত করে পত্নীতলা থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) পলাশ চন্দ্র দেব বলেন, স্থানীয়দের মাধ্যমে মৃতদেহ পরে থাকার খবর জানতে পেরে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করা হয়। নিহতের স্বজনদের বরাত দিয়ে ওসি আরো জানান, গতকাল রাতে সে তার ছেলের বাড়ি থেকে মেয়ের বাড়িতে যাচ্ছিলেন। রাতে সে কিভাবে মারা যায় তা জানা যায়নি। এছাড়া নিহতের শরীরে আঘাতের কোন চিহ্ন নেই। ময়না তদন্তের রিপোর্ট আসার পরই মৃত্যুর প্রকৃত কারণ জানা যাবে।


আরও খবর



নেত্রকোনা এতিমখানায় শিশুদের নিয়ে পিঠা উৎসব

প্রকাশিত:Monday ২৩ January 20২৩ | হালনাগাদ:Friday ০৩ February ২০২৩ |
Image

নেত্রকোনা জেলা প্রতিনিধি :পারিবারিক আনন্দ উপলব্ধি করতে ও শীতের পিঠা উপভোগ করতে নেত্রকোনায় সরকারি শিশু পরিবার (বালক) সকল শিশুদের নিয়ে শীতকালীন পিঠা উৎসবের আয়োজন করা হয়। এই প্রতিষ্ঠানের সকল শিশুই এতিম ও দরিদ্র পরিবারের, স্থানীয়দের কাছে সরকারি শিশু পরিবার এতিমখানা নামে পরিচিত। 

রবিবার সন্ধ্যায় জেলার সদর উপজেলার রৌহা ইউনিয়নের কুমড়ি গ্রামে অবস্থিত সরকারি শিশু পরিবার (বালক) কর্তৃপক্ষ এই পিঠা উৎসবের আয়োজন করে। এতে করে এখানে অবস্থানরত একশত শিশু আনন্দে মাতোয়ারা হয়ে পড়ে।


তারা নিজেরাই গান নাচ করে আনন্দ করে। ছোট বড় প্রতিটি শিশু তাদের নিজ পরিবারে থাকার আনন্দ উপলব্ধি করে। নিজেরা হাতে তৈরি করে নেত্রকোনা অঞ্চলের প্রায় ২০ রকমের বাহারী পিঠা। 

একইসাথে হারিয়ে যাওয়া দুধপুলি, পাটি সাপটা, চিতইসহ,পুলি পিঠা নানা ধরনের পিঠার সাথে পরিচিতিও হয় তারা। এই পিঠা গুলো সাথে নেত্রকোনা অঞ্চলের জামাই পিঠা নামে পরিচিত পিঠাও ছিল। 

চতুর্থ শ্রেণীর ছাত্র সিয়াম জানায়, আমি চতুর্থ  শ্রেণিতে পড়ি। আমি বাড়ির চেয়ে এখানে থাকতে বেশি পছন্দ করি। আমি বাড়িতে গেলে তেমন বেশি ভালো লাগে না, এখানে থাকলে আমি আনন্দ করতে পারি সবার সাথে মজা করতে পারি এখানে যারা আছে সকলে আমাদের ভাই। আমরা এখানে প্রতিবছর এ ধরনের অনেক উৎসব পালন করে থাকি। 

অন্য একজন শিশু জানায়, স্যার আমাদের জন্যই শীতকালীন পিঠা উৎসব এর আয়োজন করেছেন। তিনি প্রায় ২০ ধরনের পিঠার ব্যবস্থা করেছেন এর মধ্যে অনেক পিঠারি নাম আমরা জানি না। এই পিঠা উৎসবে, আমরা বাড়ির মতো পিঠা খাওয়ার আনন্দ পাচ্ছি এবং সব ধরনের পিঠার নাম জানতে পারছি। 

অন্যদিকে শিশুদেরকে আনন্দ দিতে এবং পারিবারিক শিক্ষায় বড় করে তুলতে এমন আয়োজন বলে জানিয়েছেন নিবাসের তত্ত্বাবধায়ক। 


আরও খবর



১৩‌ দি‌নেই রহস্য খুল‌লো অটোরিকশা চালক হত‌্যার

প্রকাশিত:Wednesday ০১ February ২০২৩ | হালনাগাদ:Friday ০৩ February ২০২৩ |
Image

কুমিল্লা ব্যুরো :

কুমিল্লার চৌদ্দগ্রামের উজিরপুর ইউনিয়নের শামুকসার গ্রামস্থ বোয়ালজুড়ি খালের পাড় থেকে অটোরিকশা চালক রাসেদ মিয়ার লাশ উদ্ধারের ঘটনায় ১৩ দিনের মধ্যেই ঘাতক খাইরুল ইসলাম শাকিলকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। শাকিল চৌদ্দগ্রামের ঘোলপাশা ইউনিয়নের ধনুসাড়া গ্রামের আবু বক্কর ছিদ্দিকের ছে‌লে। বুধবার দুপুরে চৌদ্দগ্রাম থানায় এক সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে তথ্যটি নিশ্চিত করেছেন কুমিল্লার সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার(চৌদ্দগ্রাম ও নাঙ্গলকোট সার্কেল) জাহিদুল ইসলাম। 

সংবাদ সম্মেলনে সহকারী পুলিশ সুপার(চৌদ্দগ্রাম ও নাঙ্গলকোট সার্কেল) জাহিদুল ইসলাম বলেন, গত ১৮ জানুয়ারি বুধবার বিকেলে মুন্সিরহাট ইউনিয়নের বাসন্ডা গ্রামের আবদুল মালেক মিয়ার ভাড়াটিয়া, লালমনিরহাট জেলার আদিতমারি থানার বারঘরিয়া গ্রামের মশিউর রহমানের ছেলে রাসেদ মিয়া অটোরিকশা নিয়ে ভাড়া বাসা থেকে বের হন। পরদিন বৃহস্পতিবার উজিরপুর ইউনিয়নের শামুকসার গ্রামের জনৈক মামুন চৌধুরীর মুরগির ফার্মের পশ্চিমে বোয়ালজুড়ি খালের পাশে রাজ্জাক মিয়ার জমিতে ভিকটিম রাসেদ মিয়ার নাকে মুখে জমাট বাধা রক্ত, নাভির উপরে ডান পাশে একটি গভীর ক্ষতচিহ্ন এবং বাম পায়ের গোড়ালীর উপরে ক্ষতচিহ্ন যুক্ত লাশ পাওয়া যায়। খবর পেয়ে থানা পুলিশ লাশটি উদ্ধার ও কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ময়নাতদন্ত শেষে স্বজনদের কাছে লাশটি হস্তান্তর করে। ওই রাতেই রাসেদ মিয়ার বাবা মশিউর রহমান বাদি হয়ে অজ্ঞাতনামা ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করে। এ ঘটনায় কুমিল্লার পুলিশ সুপার আব্দুল মান্নান, বিপিএম (বার) এর নির্দেশনায় আধুনিক তথ্য প্রযুক্তি ব্যবহার ও মুন্সিরহাট বাজার হইতে ঘটনাস্থলে গমনাগমনের বিভিন্ন রাস্তা ও বাজারে থাকা সিসি ক্যামেরার ফুটেজ পর্যালোচনা করে ঘাতক খাইরুল আলম শাকিলকে শনাক্ত করা হয়।                          মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা মেহেদী হাসানের নেতৃত্বে পুলিশের একটি বিশেষ টিম মঙ্গলবার অভিযান চালিয়ে খাইরুল আলম শাকিলকে হত্যাকান্ডে ব্যবহৃত একটি চাকুসহ তাঁর নিজ বসত বাড়ি হতে গ্রেপ্তার করে পু‌লিশ।  চৌদ্দগ্রাম থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা শুভ রঞ্জন চাকমা জানান- গ্রেপ্তারকৃত শাকিলকে জিজ্ঞাসাবাদে হত্যার ঘটনা স্বীকার করেছে। পু‌লি‌শের সাম‌নেই ‌গ্রেপ্তার শাকিল জানায়, সে রাশেদ মিয়ার অটো রিক্সায় উঠে। পরবর্তীতে কাদৈর বাজার হয়ে গুটি মার্কেট, এরপর চৌমুহনী বাজার থেকে কাশিনগর বাজার হয়ে অলিপুরের আকাবাকা রাস্তা দিয়ে শামুকসার গ্রামে জনৈক মামুন চৌধুরীর মুরগির ফার্মের নিকট নির্জন স্থানে বস্তা আনার কথা বলে খালের পাড়ে নিয়ে শাকিলের সাথে থাকা চাকু দিয়ে ভয় দেখিয়ে অটোরিকশা চালকের টাকা ছিনিয়ে নেওয়ার চেষ্টা করে। তখন অটোরিকশা চালক টাকা দিতে অপারগতা প্রকাশ করিলে তাঁর সাথে ধস্তাধ্বস্তি হলে একপর্যায়ে শাকিল তাঁর সাথে থাকা সুইচ গিয়ার চাকু দিয়ে চালক রাসেদ মিয়ার পেটে আঘাত করে টাকা নিয়ে পালিয়ে যান। 

 এ চৌদ্দগ্রাম থানার পরিদর্শক তদন্ত রাজিব চক্রবর্তী জানান ,অতিরিক্ত রক্তক্ষরণে নির্জন স্থানে অসহায় অবস্থায় অটোরিকশা চালক রাশেদ মিয়ার মৃত্যু হয়। চৌদ্দগ্রামথানা পু‌লিশ মাত্র ১৩ দিনের মধ্যে ক্লু-লেস  রা‌শেদ হত্যা মামলার রহস্য উদঘাটন ক‌রে।


আরও খবর



যেসব অভ্যাসে মাইগ্রেনের ব্যথা বাড়ে

প্রকাশিত:Sunday ১৫ January ২০২৩ | হালনাগাদ:Thursday ০২ February 2০২3 |
Image

মাইগ্রেনের সমস্যায় ভোগেন অনেকেই। এমন সমস্যা হলে মাথায় যন্ত্রণার পাশাপাশি নানাবিধ শারীরিক সমস্যা হয়। প্রতিদিনের কিছু অভ্যাসে মাইগ্রেনের ব্যথা হতে পারে। তাই এই ব্যথা কমাতেই এসব অভ্যাস পরিত্যাগ করতে হবে।

ঘুমে অনিয়ম

প্রতিদিন অন্তত ৮ ঘণ্টা ঘুমাতেই হবে। যদি তা সম্ভব না হয় তবে ৬ ঘণ্টার কম ঘুমালে মাইগ্রেনের সমস্যা বাড়বেই। রাত জেগে ওয়েব সিরিজ দেখা কিংবা মোবাইল দেখার অভ্যাস নিয়ন্ত্রণে আনুন। সমাধান মিলবে।

চিনি

এমন খাবার এড়িয়ে চলুন যেগুলোতে অতিরিক্ত চিনি আছে। রক্তে সুগার বাড়লে মাইগ্রেনের ব্যথা বাড়ে। তাই পরিমিত বোধ রেখে মিষ্টি খান।

খালি পেট রাখা

দীর্ঘক্ষণ না খেয়ে থাকলে গ্যাস্ট্রিকের প্রকোপ বাড়বে। মাইগ্রেনের ব্যথা বাড়াতে গ্যাস্ট্রিকের জুড়ি মেলা ভার। তাই কখনও খালি পেটে থাকবেন না এবং প্রচণ্ড ব্যস্ততায় তো নয়ই।

কফি খাওয়ার অভ্যাস

যাদের ক্যাফেইন আসক্তি রয়েছে তাদের এই অভ্যাস কমাতে হবে। মাইগ্রেনের সমস্যা বাড়ানোর ক্ষেত্রে কফি একটি কারণ। কফির অভ্যাস সহসাই ছাড়ানো কঠিন। এক্ষেত্রে একজন পুষ্টিবিদের সঙ্গে আলাপ করে নিন। 


আরও খবর



স্মার্ট হবে বিচ্ছিন্ন দ্বীপ ‘রাঙ্গাবালী’-এমপি মহিব

প্রকাশিত:Friday ২০ January ২০23 | হালনাগাদ:Friday ০৩ February ২০২৩ |
Image

কামরুল হাসান,পটুয়াখালী :

উন্নয়নের ধারাবাহিকতা অব্যাহত রাখতে আসন্ন দ্বাদশ সংসদ নির্বাচনে নৌকায় ভোট দেওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন পটুয়াখালী-৪ (কলাপাড়া-রাঙ্গাবালী) আসনের সংসদ সদস্য মহিব্বুর রহমান মহিব। তিনি বলেন, আওয়ামী লীগ উন্নয়নের সরকার। তাই উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখতে আওয়ামী লীগের বিকল্প নেই। বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনার বিকল্প নেই। সরকার ২০৪১ সালের মধ্যে দেশকে ডিজিটাল থেকে ‘স্মার্ট বাংলাদেশে’ রূপান্তর করতে কাজ করে যাচ্ছে।

শুক্রবার দুপুর ২ টায় পটুয়াখালীর রাঙ্গাবালী উপজেলার চালিতাবুনিয়া ইউনিয়ন পরিষদে দুস্থ-অসহায় পরিবারের মাঝে ব্যক্তিগত অর্থায়নে শীতবস্ত্র বিতরণকালে প্রধান অতিথির বক্তব্যে  তিনি এ কথা বলেন। এসময় এমপি আরও বলেন, সরকারের এই উন্নয়ন স্রোতে  এগিয়ে যাচ্ছে দক্ষিণাঞ্চল। এই সরকারের আমলে পটুয়াখালীতে পায়রা সমুদ্র বন্দর, পায়রা তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্র, সাবমেরিন ক্যাবল ল্যান্ডিং স্টেশন, শেরে বাংলা নৌঘাটি, বড় বড় আরও মেঘা প্রকল্পসহ বিভিন্ন উন্নয়ন কর্মযজ্ঞ চলছে।    এসবের কৃতিত্ব বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনার।

এমপি মহিব বলেন, পিছিয়ে নেই বিচ্ছিন্ন জনপদগুলোও। রাঙ্গাবালীকে থানা থেকে উপজেলায় উন্নিত করা হয়েছে। অসম্ভবকে সম্ভব করে সেখানে সাবমেরিন ক্যাবলের মাধ্যমে বিদ্যুৎ দেওয়া হয়েছে।  আদালত অনুমোদন হয়েছে।  সারাদেশের সঙ্গে এই দ্বীপকে সংযুক্ত করতে ফেরি চালুর কাজ চলছে।  হাসপাতালের কাজ শুরু হয়েছে । সোনারচর, চরহেয়ার, জাহাজমারা ও তুফানিয়া নিয়ে পর্যটন জোন করার পরিকল্পনা সরকারের।  এছাড়া অনেক উন্নয়ন কর্মযজ্ঞ হয়েছে এবং হচ্ছে।   আগামীতে সারাদেশের সঙ্গে তালমিলিয়ে বিচ্ছিন্ন এই রাঙ্গাবালীও স্মার্ট রাঙ্গাবালী হিসেবে রূপান্তরিত হবে। সে লক্ষ্যে আমরা কাজ করে যাচ্ছি। তাই নৌকায় ভোট দিয়ে আওয়ামী লীগকে জয়যুক্ত করুন।  

এরআগে ওইদিন সকাল সাড়ে ১০ টায় উপজেলার চরমোন্তাজ লঞ্চঘাট থেকে চরমোন্তাজ পুরাতন বাজারের রাস্তা পাকাকরণ এবং বিকেল ৪ টায় মৌডুবি বাজার থেকে মুখরবান্দা সাইক্লোন সেল্টার পর্যন্ত রাস্তা পাকাকরণ কাজের উদ্বোধন করেন এমপি। পাশাপাশি চরমোন্তাজ, মৌডুবি, বড়বাইশদিয়াসহ ৪ ইউনিয়নে দুস্থ-অসহায় দুই হাজার পরিবারের মাঝে ব্যক্তিগত অর্থায়ণে শীতবস্ত্র হিসেবে কম্বল বিতরণ করেছেন তিনি।

এই কর্মসূচিতে উপস্থিত ছিলেন, উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি দেলোয়ার হোসেন, সাধারণ সম্পাদক রাঙ্গাবালী সদর ইউপি চেয়ারম্যান সাইদুজ্জামান মামুন, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক নুরে আলম ফকু, দপ্তর সম্পাদক সালাউদ্দিন আহমেদ, এমপির ব্যক্তিগত সহকারী তরিকুল ইসলাম মৃধা ও ছোটবাইশদিয়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক কামরুজ্জামান শিবলী প্রমুখ।   


আরও খবর