Logo
শিরোনাম

মানুষ মারা গেলেও দাফনের জন্য নিয়ে যাওয়ার রাস্তা নেই, পর্ব-১

প্রকাশিত:শনিবার ০২ জুলাই 2০২2 | হালনাগাদ:বুধবার ১০ আগস্ট ২০২২ |
Image

মুজাহিদ সরকারঃ 

মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর নির্বাচনী ইশতেহার 'গ্রাম হবে শহর' তা যেন এই গ্রামে অপরিচিত এক রূপ কথার গল্প। কিশোরগঞ্জের ইটনা উপজেলা সদর ইউনিয়নের চিপাহাটি গ্রামের ৫ হাজার মানুষের চলাচলের জন্য নাই কোনা রাস্তাঘাট। ইটনা পুরান বাজার থেকে ২০০ মিটারের দূরত্বের অবস্থিত গ্রামের মানুষদের জনদুর্ভোগ দেখার যেন কেউ নেই। বাড়িঘরের ভিতর দিয়ে চলাচলের জন্য যে রাস্তা যা এতটাই সরু যে দুইজন মানুষ আসা-যাওয়া করলে একজনকে দাড়িয়ে থাকতে হয়! মৃত লাশ দাফনের জন্য নিতে হলে পোহাতে হয় সীমাহীন বিরম্বনা। 

গত পহেলা জুলাই (শুক্রবার) চিপাহাটি গ্রামের বাসিন্দা মোঃ কাচু মিয়া বয়সজনিত কারণে মৃত্যু বরণ করলে তার লাশবাহী খাটিয়াধারীরা রাস্তা না পেয়ে পুকুর দিয়ে কোমর পানি ভেঙে লাশটি দাফনের জন্য নিয়ে যাওয়ার একটি ছবি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে মুহুর্তের মধ্যে ভাইরাল হয়। 

স্থানীয় গণমাধ্যম আসল তথ্য অনুসন্ধানে গিয়ে জানতে পারেন, অনেকদিন আগে পুকুরের পাশ দিয়ে একটি রাস্তা তৈরি করা হয়েছিল কিন্তু পুকুরে প্রটেকশন ওয়াল না থাকায় রাস্তাটি ভেঙে পুকুরে পড়ে যায় যা এখন অদৃশ্যমান। 

স্থানীয় গ্রামবাসী অভিযোগ করছে রাস্তার পাশের পুকুরের জন্য রাস্তাটি নষ্ট হয়ে গেছে এবং রাস্তাটি নতুনভাবে করার জন্য চেষ্টা করেও পুকুর মালিককে রাজি করানো যাচ্ছে না। অন্যদিকে পুকুর মালিক শেখ আলমগীর(৪৫) অভিযোগ অস্বীকার করে জানান, তাদের রাস্তার জায়গা বাড়ির মালিকরা দখল করে রাখছেন। তিনি আরো বলেন, যায়গা ম্যাপে যদি উনার পুকুরে রাস্তার যায়গা পাওয়া যায় উনি ছেড়ে দিবেন। 

সদর ইউনিয়নের ৫ নং ওয়ার্ড মেম্বার মোঃ সারোয়ার আলম জানান, রাস্তাটি করার জন্য ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান, উপজেলা চেয়ারম্যানের কাছে গেলও কোন প্রতিকার পাচ্ছি না কারণ পুকুর মালিক রাস্তা ছাড়তে চাচ্ছেনা। 

সদর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মোঃ সোহাগ মিয়া র সাথে মুঠো ফোনে যোগাযোগ করলে তিনি জানান, রাস্তাটি করার জন্য আমরা আগ্রহী কিন্তু বাড়ির মালিক এবং পুকুরের মালিক কেউ ছাড় দিতে রাজি না। তিনি আরো জানান, এই রাস্তার জন্য ইউনিয়ন পরিষদ থেকে বাজেট আনার পরও ফিরিয়ে দিতে হয়েছে। 

ইটনা উপজেলা চেয়ারম্যান চৌধুরী কামরুল হাসানের সাথে মুঠো ফোনে যোগাযোগ করলে,  তিনি জানান আমি নিজেও দুইবার রাস্তাটি দেখার জন্য গিয়েছি বাড়ি মালিক এবং পুকুর মালিকের সাথে কথা বলার চেষ্টা করেছি তারা আমাদের প্রস্তাবে রাজি হতে পারছে না এই জন্য রাস্তাটা আমরা করতে পারছি না। তিনি আরও বলেন, পুকুর মালিক এবং বাড়ির মালিক যদি এক হয়ে রাস্তার যায়গাটা ছেড়ে দেন তাহলে আমি নিজ দায়িত্বে নিজ অর্থায়নে হলেও রাস্তাটা করে দিবো। 

লাশ দাফনের জনদুর্ভোগের বিষয়ের কথা বলার জন্য ইটনা উপজেলা নির্বাহী অফিসার নাফিসা আক্তার এর নিজ কার্যালয়ে গিয়ে না পেয়ে মুঠো ফোনে বার বার যোগাযোগ করার চেষ্টা করলেও তিনি ফোন ধরেন নাই।


আরও খবর



প্রক্সিতে লিখিত পরীক্ষায় পাশ

মৌখিক পরীক্ষায় এসে ধরা খেল পরীক্ষার্থী

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ০৪ আগস্ট ২০২২ | হালনাগাদ:বুধবার ১০ আগস্ট ২০২২ |
Image

পঞ্চগড় প্রতিনিধি ঃ 

পঞ্চগড়ে সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষায় অসদুপায় অবলম্বনের দায়ে স্বপন সেন (২৯) নামে এক পরীক্ষার্থী আটক। 

আজ বৃহস্পতিবার দুপুরে পঞ্চগড় জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে মৌখিক পরিক্ষা দিতে এসে তাকে আটক করে পুলিশের কাছে হস্তান্তর করা হয়। 

আটককৃত পরিক্ষার্থী স্বপন সেন জেলার সদর উপজেলার ধাক্কামারা ইউনিয়নের লাঙলগাও এলাকার কমলা কান্ত সেনের ছেলে। 

পুলিশ ও জেলা প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগ বোর্ড সূত্র জানায়, বৃহস্পতিবার সকাল থেকে জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে প্রাঃ বিদ্যাঃ শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষার জন্য মৌখিক পরীক্ষা নেওয়া শুরু হয়।এসময় লিখিত পরিক্ষায় পক্সির মাধ্যমে উর্ত্তীর্ণ হওয়ার পর স্বপন সেন মৌখিক পরীক্ষা দিতে আসলে তাকে বাংলায় লিখতে বলে নিয়োগ বোর্ড৷ এসময় স্বপ্ননের হাতের লেখার সাথে লিখিত পরীক্ষার হাতের লেখার অমিল পাওয়ায় নিয়োগ বোর্ডের সন্দেহ হয়। এবং পরে তাকে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদ করলে সে স্বীকার করে যে নিয়োগের জন্য লিখিত পরীক্ষা প্রক্সির মাধ্যমে অন্যের দ্বারা পরিক্ষা দিয়োছিল, এবং এজন্য সে মোটা অংকের টাকাও লেনদেন করে বলে স্বীকার করেন, পরে  তাকে আটক করে সদর থানার পুলিশকে হাতে সোপর্দ করা হয়। 

উল্লেখ্য  চলতি প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগের লিখিত পরীক্ষায় ইংরেজী এবং বাংলায় কয়েক লাইন হাতে লেখার কথা বলা হয়। এবং  নিয়োগ পরীক্ষায় প্রক্সি দেওয়াসহ যে কোন অনিয়ম ঠেকাতে লিখিত পরীক্ষায় উত্তীর্নদের কাগজপত্র জমা নেওয়া এবং মৌখিক পরীক্ষাতেও একই ভাবে লেখতে বলা হয়। এই প্রক্রিয়ায় নিয়োগের মৌখিক পরীক্ষায় বোর্ডের চেয়ারম্যান ও জেলা প্রশাসকের কাছে জালিয়াতির ঘটনাটি ধরা পরে। এর আগেও একই অপরাধের দায়ে ৪ পরীক্ষার্থীকে আটক করে৷

এদিকে বিষয়টি নিশ্চিত করে পঞ্চগড় প্রশাসক (ডিসি) মো. জহুরুল ইসলাম বলেন, মৌখিক পরীক্ষা চলাকালে ওই পরীক্ষার্থীকে বাংলায় লিখতে বললে তার লিখিত পরীক্ষার খাতায় লেখার সাথে অমিল পাওয়া যায়। পরে তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করলে সে অন্যের মধ্যামে পরীক্ষা দেয়ার কথা স্বীকার করে৷ 

এবিষয়ে সদর থানার ওসি জানান, নিয়োগ বোর্ডে লিখিত পরীক্ষায় অসদুপায় অবলম্বনের জন্য ওই পরীক্ষার্থীকে নিয়োগ বোর্ড পুলিশের কাছে সোপর্দ করেছে। তার বিরুদ্ধে মামলার প্রক্রিয়া চলছে। 


আরও খবর



বেলা দু’টার পর ’বৈধতা’ নিয়ে প্রেম করবে !!

প্রকাশিত:শুক্রবার ০৫ আগস্ট ২০২২ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ০৯ আগস্ট ২০২২ |
Image

মাজহারুল ইসলাম মাসুম সিনিয়র সাংবাদিক, কলাম লেখক ও গবেষক ঃ

শুনলাম বোটানিক্যাল গার্ডেনে আগামী পহেলা সেপ্টেম্বর থেকে বেলা ২ টা পর্যন্ত ছাত্র-ছাত্রীদের ইউনিফর্ম পরে বাগানো প্রবেশ নিষেধ করে দেয়া হচ্ছে ।  জানতে পারলাম বাগানে ছা্ত্র-ছাত্রীরা ’প্রেম করে’ তাই কর্তৃপক্ষ  এই সিদ্ধান্ত নিয়েছে । কত বড় হাস্যকর যুক্তি !! কত বড় উজবেকিস্তান !! দেশ যখন পুরো ’ডিজিটাল’, বাগান সেখানে এনালগ রাখার চেষ্টা !! ছাত্র-ছাত্রী যদি প্রেম করতে চায়, বাগান-তো-বাগান, সেনা-বাহিনীও কিছু করতে পারবে না । তারা ব্যাগে ভরে অন্য একটি ড্রেস আনবে, সেটি কারও বাসায় পরে সোজা বাগানে চলে আসবে । আমি কোন ভাবে  জানতে পেরেছি  প্রেমিক-প্রেমিকারা ব্যাগে আলাদা ড্রেস রাখে, যাতে করে এসব নিয়ম-কানুনকে ‘কেশ’ দেখানো যায় ! আমি বেশ কয়েকবার বাগানে ঘুরতে গিয়েছি । আমার চোখে আপত্তি করার মত সেরকম কোন কিছু চোখে পড়েনি । তবে, ব্যতিক্রম কিছু ঘটনা অবশ্যই আছে । সেসব ক্ষেত্রে কর্তা-কত্রী দু’জনকে আমার ’এডাল্ট’ মনে হয়েছে । আমরা মূল জায়গায় Intervene না করে, ফালতু সব সিদ্ধান্ত নেই । বাগানে আসা বন্ধ হলে, আমি গ্যারান্টি দিয়ে বলতে পারি, প্রেম বন্ধ হবে না । তারা বেলা দু’টার পর ’বৈধতা’ নিয়ে প্রেম করবে !! বাড়িতে গিয়ে বলবে এক্সট্রা ক্লাস ছিল, ইত্যাদি । আমি আরও খেয়াল করেছি, শহরের ওভারপাস ব্রিজে শত শত ভিজিটিং কার্ড পড়ে আছে । সেখানে লেখা ‘সনি ভাই হোটেল আবাসিক’, ‘অভি ভাই হোটেল আবাসিক’ ইত্যাদি । সেখানে ভাইদের ফোন নম্বরও দেয়া আছে । বাগানে ছা্ত্র-ছাত্রীদের সাময়িক প্রবেশ নিষেধ হলে প্রেমিক-প্রেমিকারা (যদি স্যতিই তাই হয়), ঐসব ভাইদের হোটেলে চলে যেতে পারে । হোটেলে গেলে ঘটনা কোন্ দিকে মোড় নিতে পারে তা একবার ভেবে দেখেন । আমি দেখেছি বাগানের কিছু লোক কিছু বিশেষ জায়গায় সমানে গার্ড দিচ্ছেন । গার্ডিং সময় শেষ হলে দেখতে পাই আড়াল থেকে বের হচ্ছে এক জুটি । গার্ড-বাহিনীর পাহারায় তারা প্রেম করছিল বলে ধরে নেয়া যায় । আমার আরেকটি কথা হলো, বাগান একটি পাবলিক প্লেস । এখানে ছেলেমেয়েদের ওপর কৌশলে নজর-দারি করা সম্ভব, যেটা হোটেলে গিয়ে করা সম্ভব নয় । বাগানে Misdemeanor অথবা Juvenile Delinquency হলে সেটার জন্য নিয়ম-কানুন নিশ্চয়ই আছে । না থাকলে করে নেয়া যেতে পারে । পরের কথাটি বলার একটা প্রেক্ষাপট তৈরি হলো । সেটি হলো, আপনাদের নিশ্চয়ই মনে আছে, আমরা জোর খাটিয়ে, অগ্র-পশ্চাৎ চিন্তা না করে ইংলিশ রোড ও টানবাজার কিভাবে ’পরিষ্কার’ করেছিলাম । তাতে পরবর্তীতে শহরের আনাচে-কানাচে ও বাসা-বাড়িতে Brothel পৌঁছে গেছে । আমরা যদি চাই, আমাদের ছেলে-মেয়েরা প্রেম করবে না, সে ক্ষেত্রে আমাদের প্রথম কাজ হলো তাদেরকে মোটিভেইট করা । তারপর প্রয়োজনে পেশাদার কাউন্সিলরের কাছে যাওয়া যেতে পারে । সর্বশেষ, কথা হলো এই, আমি দেখেছি বেশির ভাগ ক্ষেত্রে এরা ক্লাসমেইট এবং দল বেঁধে বাগানে আসে। এখানে, দু-একটি মাইনরের সাথে এডাল্টকে দেখা গেছে । আমরা কি জানি, আমাদের ছেলে মেয়েদের শারীরিক কোন অভিজ্ঞতা হয়েছে কিনা? হয়ে থাকলে কোন্ বয়সে হয়েছে? আমরা কি এসব বিষয় নিয়ে ছেলে মেয়েদের সাথে কথা বলেছি?


আরও খবর

পরাজয় মানুষকে আপন-পর চেনাতে শেখায়

বৃহস্পতিবার ০৪ আগস্ট ২০২২

ভালোবাসা কাকে বলে?

শনিবার ৩০ জুলাই ২০২২




ইউরোপে গরমে গলে যাচ্ছে রাস্তাঘাট !

প্রকাশিত:সোমবার ২৫ জুলাই ২০২২ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ০৯ আগস্ট ২০২২ |
Image

ইউরোপের অনেক বাড়ি বা পথঘাটই পুরনো প্রযুক্তিতে তৈরি। এগুলি এই ভয়ানক তাপের সঙ্গে লড়তে পারছে না। গলে যাচ্ছে রাস্তাঘাট, বেঁকে যাচ্ছে রেললাইন, ফেটে যাচ্ছে বাড়িঘর।

ইউরোপের আবহাওয়ার ধীরে ধীরে অবনতি ঘটছে। গোটা ইউরোপের তাপপ্রবাহ ক্রমশ নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে যাচ্ছে। স্পেন, জার্মানি, ইংল্যান্ড, পর্তুগালে বাতাসে যেন আগুনের হলকা। যুক্তরাজ্যে এই প্রথম আবহাওয়ার রেড অ্যালার্ট ঘোষিত হল। তাপের জেরে নষ্ট হচ্ছে ভূ-সম্পত্তি, প্রাণিজ সম্পত্তি। যা সংশয়ে ফেলে দিয়েছে অর্থনীতিকেও।

গত কয়েক দিন থেকেই দক্ষিণ ইউরোপের দেশগুলিতে প্রচণ্ড গরম ও দাবানলের পর এখন মধ্য ও উত্তর ইউরোপের দেশগুলিতেও দাবদাহের প্রকোপ ছড়িয়ে পড়েছে। চরমভাবাপন্ন আবহাওয়ায় কয়েকশো ব্যক্তি মারা গেছেন।

জার্মানির একটি পত্রিকা ‘এই গ্রীষ্মে ইউরোপে আগুন’ শীর্ষক এক প্রতিবেদন ছেপেছে। বলেছে, দক্ষিণ ইউরোপে ফ্রান্স, স্পেন, ইতালি, ক্রোয়েশিয়া, পর্তুগাল, গ্রিসের বনভূমিতে দাবানল চলছে। এতে যে পরিমাণ ক্ষতি হচ্ছে তা পুনরুদ্ধার করতে কয়েক বছর সময় লাগবে। দাবানলের জেরে এসব দেশের কৃষিকাজ ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। বনভূমিতে অগ্নিকাণ্ডের কারণে বহু মানুষকে বাড়িঘর ছাড়তে হয়েছে।

খবর : জিনিউজ ডিজিটাল ব্যুরোর।


আরও খবর



আজ কলেরার দ্বিতীয় ডোজের টিকা

প্রকাশিত:বুধবার ০৩ আগস্ট ২০২২ | হালনাগাদ:বুধবার ১০ আগস্ট ২০২২ |
Image

রাজধানীতে দ্বিতীয় ডোজ কলেরার টিকাদান কর্মসূচি শুরু হয়েছে। পাঁচটি এলাকায় আজ থেকে ১০ আগস্ট পর্যন্ত এ কর্মসূচি চলবে। মঙ্গলবার (২ আগস্ট) স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের রোগ নিয়ন্ত্রণ শাখার পরিচালক ও লাইন ডিরেক্টর অধ্যাপক ডা. মোহাম্মদ নাজমুল ইসলাম এ তথ্য জানান।

এ আন্তর্জাতিক উদরাময় গবেষণা কেন্দ্র বাংলাদেশ (আইসিডিডিআর’বি) জানায়, ২৬ জুন থেকে ২ জুলাই পর্যন্ত রাজধানীর মিরপুর, মোহাম্মদপুর, যাত্রাবাড়ী, সবুজবাগ ও দক্ষিণখান এলাকায় কলেরার টিকার প্রথম ডোজ নিয়েছিল ২৩ লাখ ৬৫ হাজার ৫৮৫ জন। তাদের এই দ্বিতীয় ডোজ দেওয়া হবে। প্রথম ডোজ গ্রহীতারা নিজ নিজ টিকাকেন্দ্রে টিকাকার্ড দেখিয়ে দ্বিতীয় ডোজ নিতে পারবেন। ৯ আগস্ট (আশুরা) ছাড়া প্রতিদিন সকাল ৮টা থেকে বিকাল ৫টা পর্যন্ত এ কার্যক্রম চলবে।

নাজমুল ইসলাম বলেন, ঢাকার পাঁচটি এলাকার বাসিন্দাদের থেকে কলেরা টিকাদান কার্যক্রমে অভূতপূর্ব সাড়া পেয়েছি। খুব অল্প সময়ে রেকর্ডসংখ্যক মানুষকে টিকা দিতে পেরেছি। আশা করি, প্রথম ডোজ গ্রহীতারা অবশ্যই দ্বিতীয় ডোজ নিয়ে নিজেদের এ রোগ থেকে সুরক্ষা করবেন।

আইসিডিডিআর’বির সিনিয়র সায়েন্টিস্ট ও ইনফেকশাস ডিজিজেস ডিভিশনের ভারপ্রাপ্ত সিনিয়র ডিরেক্টর ড. ফেরদৌসী কাদরী বলেন, সবার প্রতি অনুরোধ কলেরা টিকা গ্রহণ করার পাশাপাশি নিজেকে ও প্রিয়জনদের অন্যান্য রোগ প্রতিরোধমূলক কার্যক্রম, যেমন নিরাপদ পানির ব্যবহার, নিরাপদ পয়ঃনিষ্কাশন ব্যবস্থা এবং ব্যক্তিগত পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতা নিশ্চিত করতে উৎসাহিত করবেন এবং ডায়রিয়াসহ অন্যান্য সংক্রমক রোগ থেকে সুরক্ষিত থাকবেন।

গর্ভবতী নারী এবং গত ১৪ দিনের মধ্যে অন্য কোনো টিকা নিয়েছেন- এমন ব্যক্তি ছাড়া সবাই কলেরার টিকা নিতে পারবেন। এ টিকা নেওয়ার পরবর্তী ১৪ দিনের মধ্যে অন্য কোনো টিকা নেওয়া যাবে না।


আরও খবর



ঈদযাত্রায় সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ৩৯৮

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ১৯ জুলাই ২০২২ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ০৯ আগস্ট ২০২২ |
Image

মইনুল ইসলাম মিতুল : ঈদযাত্রায় অনেক স্বপ্ন এবার বাড়ি নয়, কবরে গেছে বলে মন্তব্য করেছেন, বাংলাদেশ যাত্রী কল্যাণ সমিতির মহাসচিব মো. মোজাম্মেল হক চৌধুরী।

ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটিতে ঈদযাত্রা নিয়ে আয়োজিত সংস্থাটির প্রতিবেদন প্রকাশ অনুষ্ঠানে তিনি এ মন্তব্য করেন।

সংগঠনটির মহাসচিব মো. মোজাম্মেল হক চৌধুরী বলেন, এবারের ঈদে ১১৩টি মোটরসাইকেল দুর্ঘটনা ঘটেছে। এসব দুর্ঘটনায় ১৩১ জন নিহত হয়েছেন। যা সড়ক দুর্ঘটনায় নিহতের ৩৫ দশমিক ৪২ শতাংশ।

যাত্রী কল্যাণ সমিতির সড়ক দুর্ঘটনা মনিটরিং সেলের সদস্যরা বিভিন্ন জাতীয় দৈনিক, আঞ্চলিক দৈনিক ও অনলাইনে প্রকাশিত সংবাদ মনিটরিং করে দুর্ঘটনার তথ্য নিয়ে এ প্রতিবেদন তৈরি করেছেন।

সংবাদ সম্মেলনে মোজাম্মেল হক চৌধুরী বলেন, করোনা না থাকার কারণে এবারের ঈদে বেশি মানুষের যাতায়াত হয়। রাজধানী থেকে ১ কোটি ২০ লাখ এবং ৪ কোটি মানুষ আন্তঃজেলায় যাতায়াত করেছে। এছাড়া এবারের ঈদে সবচেয়ে বেশি ভাড়া নৈরাজ্য হয়েছে এবং ৪ ঘণ্টার যাত্রা ১৫ থেকে ২০ ঘণ্টা সময় লেগেছে। বাসের পাশাপাশি ঈদযাত্রায় ২৫ লাখ মোটরসাইকেল ও ৪০ লাখ ইজিবাইক রাস্তায় নামে। আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী ও সরকারের বিভিন্ন নিয়ন্ত্রণ সংস্থার উল্লেখযোগ্য তৎপরতার কারণে ঈদযাত্রা কিছুটা স্বস্তিদায়ক হলেও সড়ক দুর্ঘটনা বরাবরের মতো বেড়েছে।

তিনি জানান, সমিতির প্রতিবেদনে উঠে এসেছে ঈদযাত্রা শুরুর দিন ৩ জুলাই থেকে ঈদ শেষে কর্মস্থলে ফেরা ১৭ জুলাই পর্যন্ত ১৫ দিনে ৩১৯টি সড়ক দুর্ঘটনায় ৩৯৮ জন নিহত এবং ৭৭৪ জন আহত হয়েছেন। রেলপথে ২৫টি দুর্ঘটনায় ২৫ জন নিহত ও ২ জন আহত হয়েছেন। নৌ-পথে ১০টি দুর্ঘটনায় ১৭ জন নিহত ও ১৫ জন আহত হয়েছেন এবং ৩ জন নিখোঁজ হওয়ার ঘটনার তথ্য মিলেছে। বিগত ৭ বছরের তুলনা করলে এবারের ঈদে সড়কে দুর্ঘটনা ও প্রাণহানি দুটোই সর্বোচ্চ।


আরও খবর

আন্তর্জাতিক আদিবাসী দিবস

মঙ্গলবার ০৯ আগস্ট ২০২২