Logo
শিরোনাম

মেট্রো ওয়াশিংটন আওয়ামীলীগের ত্রি-বার্ষিক সন্মেলন অনুষ্ঠিত

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ০৭ জুন ২০২২ | হালনাগাদ:বুধবার ১০ আগস্ট ২০২২ |
Image

গত ২রা জুন ভার্জিনিয়ার স্প্রীংফিল্ড হলিডে ইন্ এক্সপ্রেস হোটেলের বলরুমে যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামীলীগের সন্মানিত সভাপতি ড.সিদ্দিকুর রহমান,ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক আব্দুস সামাদ আজাদ ,প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক হাজী মোহান্মদ এনাম মিয়া দুলালের উপস্হিতিতে প্রথম বারের মত প্রকাশ্যে মেট্রো ওয়াশিংটন আওয়ামীলীগের ত্রি-বার্ষিক সন্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। সন্মেলনে মেট্রো ওয়াশিংটন

আওয়ামীলীগ,যুবলীগ,মহিলা আওয়ামীলীগ,ছাত্রলীগের প্রায় শতাধিক নেতাকর্মী স্বতঃস্ফূর্ততার সঙ্গে অংশ গ্রহন করে। এছাড়া এলাকার বেশ কিছু বয়োজেষ্ঠ্য আওয়ামী সমর্থকের উপস্হিতি সন্মেলনের শ্রীবৃদ্ধি করে। 

শুরুতেই সন্মেলনকে কেন্দ্র করে আলাপ আলোচনার জন্য সভা শুরু হয় এবং সভায় সভাপতিত্ব করেন মেট্রো ওয়াশিংটন আঃলীগের উপদেস্টা জনাব মোহান্মদ আলমগীর,প্রধান অতিথি যুক্তরাষ্ট্র আঃলীগ সভাপতি ড.সিদ্দিকুর রহমান,প্রধান বক্তা ভারপ্রাপ্ত সাঃসম্পাদক আব্দুস সামাদ আজাদ, বিশেষ অতিথি প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক হাজী এনাম মিয়া দুলাল, জনাব মোহান্মদ মুজিবুল হক,জনাব গোলাম মোস্তফা মন্চে আসন গ্রহন করেন। 

যথারীতি জাতীয় সংগীত,কোরআন তেলওয়াত,গীতা ও বাইবেল পাঠ করা হয়।

আলোচনার প্রাভাম্বে সভাপতি সিদ্দিকুর রহমান সূচনা বক্তব্য রাখেন, এছাড়া ভারপ্রাপ্ত সাঃ সম্পাদক আব্দুস সামাদ আজাদ, প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক হাজী মোহান্মদ এনাম দুলাল যুক্তরাষ্ট্র যুবলীগ নেতা সেবুল মিয়া, যুবলীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি সাইফুল ইসলাম, মহিলা আঃলীগ নেত্রী মহসিনা জান্নাত রিমি,মেট্রো ওয়াশিংটন আওয়ামীলীগের ফরিদুল ইসলাম, ছাত্রলীগ সভাপতি আবু মুসা মৃধা বক্তব্য রাখেন। এই পর্বটি এম নবী বাকী পরিচালনা করেন। 

এরপর দ্বিতীয় পর্বে সন্মেলনের মূল কার্যক্রম শুরু হয়। পরিচালনা করেন ভারপ্রাপ্ত সাঃসম্পাদক আব্দুস সামাদ আজাদ, তিনি এক গুচ্ছ বেলুন উড়িয়ে পর্বটি শুরু করেন। সভাপতিত্ব করেন সভাপতি ড.সিদ্দিকুর রহমান,তিনি শুরুতেই ২০১২ সালে গঠিত মেট্রো ওয়াশিংটন আওয়ামী লীগ কমিটি বিলুপ্ত ঘোষণা করেন। প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক হাজী মোহান্মদ এনাম দুলাল সমন্বয়কারী হিসেবে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখেন। উপস্হিত সকলের মাঝে থেকে চল্লিশ জনকে কাউন্সিলার করা হয় এবং তারা সবাই নির্দিষ্ট ফি দিয়ে ফর্ম পূরণ করে 

কাউন্সিলার হোন। কাউন্সিলারদের মধ্যে থেকে একজনের নাম সভাপতি হিসেবে প্রস্তাব করা হয় এবং তিনজনের নাম আসে 

সাধারণ সম্পাদক হিসেবে। পরবর্তীতে পরিপূর্ণ সমঝোতা এবং কন্ঠ ভোটের মাধ্যমে সভাপতি হিসেবে মাহমুদুন নবী বাকী এবং সাধারণ সম্পাদক হিসেবে মোহান্মদ শফিকুল আযম আজাদের নাম ঘোষণা করা হয়। এছাড়া প্রথম সহসভাপতি হিসেবে মোহান্মদ মুজিবুল হক এবং অপর সহসভাপতি হিসেবে দস্তগীর জাহাঙ্গীরকে অন্তর্ভূক্ত করা হয় এবং সঙ্গে সঙ্গেই যুক্তরাষ্ট্র আঃলীগের সার্টিফাইড প্যাডে সভাপতি এবং ভারপ্রাপ্ত সাঃসম্পাদকের স্বাক্ষরে প্রেস রিলিজের মাধ্যমে মেট্রো ওয়াশিংটন আওয়ামীলীগের নতুন সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের নাম ঘোষণা করা হয়। 

সন্মেলনে অন্যান্যের মধ্যে আরো উপস্হিত ছিলেন মেট্রো ওয়াশিংটন আঃলীগের শাহরিয়ার আলমগীর,জাহাঙ্গীর আলম,রিমন সর্দার,মাসুদ তালুকদার,শহিদুল ইসলাম,

মোহান্মদ ফাহিম,যুবলীগের সর্বজিৎ দাস তুর্য,ইমরান আহমেদ,আজহার উদ্দিন আজিম,কামরুল হাসান,শাফায়েত জামিল,রাশেদ জামান, রোকন,মহিলা আওয়ামীলীগের মহসিনা জান্নাত রিমি, ছাত্রলীগের আবু মুসা মৃধা,সুলতান আহমেদ সিয়াম,মোঃআব্দুল কাইয়ূম,মোঃ

আসিফ আহমেদ,খালিদ বিন আইয়ূব,রনক হোসাইন তালুকদার। 

শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত একটি উৎসব মুখর পরিবেশে সন্মেলনের সকল কার্যক্রম পরিচালিত হয় এবং এই সন্মেলনের মাধ্যমে মেট্রো ওয়াশিংটন এলাকার আওয়ামী নেতাকর্মীদের বহু দিনের চাহিদা পূরণ হয়। যুক্তরাষ্ট্র আঃলীগ নেতৃবৃন্দ তিন সপ্তাহের মধ্যে ৫১সদস্য বিশিস্ট একটি পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠন করতে নির্দেশ দেন।


আরও খবর

মালয়েশিয়ায় কর্মী যাওয়া শুরু

মঙ্গলবার ০৯ আগস্ট ২০২২




আফ্রিকায় সোনাইমুড়ীর ২ যুবককে প্রকাশ্যে গুলি করে হত্যা

প্রকাশিত:রবিবার ২৪ জুলাই ২০২২ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ০৯ আগস্ট ২০২২ |
Image

অনুপ সিংহ, নোয়াখালীঃ

দক্ষিণ আফ্রিকায় প্রকাশ্যে নোয়াখালী সোনাইমুড়ীর প্রবাসী ২ যুবক কে গুলি করে হত্যা করেছে সন্ত্রাসীরা। এ ঘটনায় আহত হয়েছে আরও দুজন। 

নিহত আরিফ হোসেন (২২) সোনাইমুড়ীর বজরা ইউনিয়নের দক্ষিণ পশ্চিম বদরপুর গ্রামের আবদুর রশিদ মিয়ার বাড়ির মহিন উদ্দিনের ছেলে, মো.শুভ (২৪) উপজেলার পোরকরা গ্রামের আবদুল লতিফের ছেলে।

রোববার (২৪ জুলাই) বিকেলের দিকে বিষয়টি নিশ্চিত করেন দক্ষিণ আফ্রিকা প্রবাসী শামসুল আলম রবিন। এর আগে,গতকাল গতকাল শনিবার (২৩ জুলাই) স্থানীয় সময় রাত সাড়ে ৮টার দিকে ব্রাকফান শহরের এ ঘটনা ঘটে।   

দক্ষিণ আফ্রিকা প্রবাসী শামসুল আলম রবিন জানান, নিহত দুই যুবক আফ্রিকার ব্রাকফান শহরের একটি বাংলাদেশীর দোকানে কাজ করে। গতকাল শনিবার রাত সাড়ে ৮টার দিকে দুজন কৃষ্ণাঙ্গ সন্ত্রাসী তাদের দোকানে প্রবেশ করে। একপর্যায়ে  সন্ত্রাসীরা শুভকে গুলি করে।  আরিফ, হাসানসহ তিনজনকে কুপিয়ে গুরুত্বর আহত করে। পরে স্থানীয় লোকজন তাদের উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক শুভ ও আরিফকে মৃত ঘোষণা করেন।  

আফ্রিকা প্রবাসী শামসুল আলম রবিন আরো জানান, সন্ত্রাসীদের চাঁদা না দেওয়ায় তাদের গুলি করে এবং কুপিয়ে মৃত্যু নিশ্চিত করে মালামাল নিয়ে পালিয়ে যায় সশস্ত্র সন্ত্রাসীরা।


আরও খবর

মালয়েশিয়ায় কর্মী যাওয়া শুরু

মঙ্গলবার ০৯ আগস্ট ২০২২




এবার কোরবানি বেড়েছে সাড়ে ৮ লাখ পশু

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ১২ জুলাই ২০২২ | হালনাগাদ:বুধবার ১০ আগস্ট ২০২২ |
Image

সারাদেশে পবিত্র ঈদুল আজহাতে মোট ৯৯ লাখ ৫০ হাজার ৭৬৩টি গবাদিপশু কোরবানি দেয়া হয়েছে বলে জানায় মৎস ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়।

গত বছর সারাদেশে মোট ৯০ লাখ ৯৩ হাজার ২৪২টি গবাদিপশু কোরবানি হয়। যা চলতি বছরের তুলনায় কম। এ বছর ৮ লাখ ৫৭ হাজার ৫২১টি গবাদিপশু বেশি কোরবানি হয়েছে।

সোমবার (১১ জুলাই) এ তথ্য জানান মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয় জনসংযোগ কর্মকর্তা মো. ইফতেখার হোসেন। এবার কোরবানি যোগ্য পশুর সংখ্যা ছিল এক কোটি ২১ লাখ ২৪ হাজার ৩৮৯টি। এ বছর ঢাকা বিভাগে ১১ লাখ ৬৭ হাজার ৮১০টি গরু-মহিষ, ১৩ লাখ ২৩ হাজার ৭১১টি ছাগল-ভেড়া ও অন্যান্য ২৪৭টিসহ মোট ২৪ লাখ ৯১ হাজার ৭৬৮টি গবাদিপশু কুরবানি হয়েছে।

এছাড়া চট্টগ্রাম বিভাগে ১৩ লাখ ১৩ হাজার ৬৭৮টি গরু-মহিষ, ৮ লাখ ১৪ হাজার ৬৮৫টি ছাগল-ভেড়া ও অন্যান্য ৯৬টিসহ মোট ২১ লাখ ২৮ হাজার ৪৫৯টি গবাদিপশু কোরবানি হয়েছে।

রাজশাহী বিভাগে ৭ লাখ ৯ হাজার ২৪৩টি গরু-মহিষ ও এক লাখ ২৮ হাজার ৮৮৫টি ছাগল-ভেড়াসহ মোট ১৯ লাখ ৯৮ হাজার ১২৮টি গবাদিপশু কোরবানি হয়েছে।

খুলনা বিভাগে দুই লাখ ৫৮ হাজার ২৬৪টি গরু-মহিষ, ৬ লাখ ৬৭ হাজার ৯৩০টি ছাগল-ভেড়া ও অন্যান্য ১৫টিসহ মোট ৯ লাখ ২৬ হাজার ২০৯ টি গবাদিপশু কোরবানি হয়েছে।

বরিশাল বিভাগে ২ লাখ ৬৭ হাজার ৬১৪টি গরু-মহিষ ও দুই লাখ ৩১ হাজার ৩২৩টি ছাগল-ভেড়াসহ মোট চার লাখ ৯৮ হাজার ৯৩৭টি গবাদিপশু কোরবানি হয়েছে।

এছাড়াও সিলেট বিভাগে ২ লাখ ১ হাজার ১৮৬টি গরু-মহিষ ও এক লাখ ৯১ হাজার ৩৯৭টি ছাগল-ভেড়াসহ মোট তিন লাখ ৯২ হাজার ৫৮৩টি গবাদিপশু কোরবানি হয়েছে।

রংপুর বিভাগে ৫ লাখ ৩১ হাজার ৯৩টি গরু-মহিষ ও ৬ লাখ ৭ হাজার ৮০৩টি ছাগল-ভেড়াসহ মোট ১১ লাখ ৩৮ হাজার ৮৯৬ টি গবাদিপশু কুরবানি হয়েছে।

ময়মনসিংহ বিভাগে ১ লাখ ৮০ হাজার ৫৪৮টি গরু-মহিষ, এক লাখ ৯৫ হাজার ১৮৬টি ছাগল-ভেড়া ও অন্যান্য ৪৯টিসহ মোট তিন লাখ ৭৫ হাজার ৭৮৩টি গবাদিপশু কুরবানি হয়েছে।


আরও খবর

আকাশ ছুঁলো কাঁচা মরিচের দাম

শনিবার ০৬ আগস্ট ২০২২




আগামী নির্বাচনে বিএনপির ইমাম কে - জনগণ জানতে চায়

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ০৪ আগস্ট ২০২২ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ০৯ আগস্ট ২০২২ |
Image

রোকসানা মনোয়ার ঃ

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বিএনপি নেতাদের কাছে জানতে চেয়েছেন আগামী নির্বাচনে আপনাদের ইমাম কে,  জনগণ তা জানতে চায়। 

তিনি আজ সকালে সচিবালয়ে তাঁর দপ্তরে ব্রিফিংকালে ২০১৮ সালে গণফোরাম প্রধান ডক্টর কামালকে ইমাম মেনে ভুল করেছেন, বিএনপি নেতাদের এমন বক্তব্যের জবাবে  একথা বলেন।

আগামী নির্বাচন জয়ী হলে জাতীয় সরকার গঠন করবেন বিএনপি, - বিএনপি এবং তার সহযোগীরা এ বিষয়ে নাকি একমত হয়েছেন,  আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এই প্রসঙ্গে বলেন স্বপ্নতো তারা বারবার দেখেন,গত নির্বাচনেও ঐক্যফ্রন্ট গঠন করেছিলেন, তাদের স্বপ্নে দেখা জাতীয় সরকার এবারও জাতির সাথে জাতীয় তামাশা কিনা তা দেখা যাবে।

ওবায়দুল কাদের বলেন আগে বিএনপি নির্বাচনে আসুক, জনগণ চাইলে জয়লাভ করুক।

বিএনপি তো নির্বাচন প্রক্রিয়াই বিশ্বাস করে না, তারা চায় চক্রান্ত করে যে কোন উপায়ে ক্ষমতায় যেতে উল্লেখ করে ওবায়দুল কাদের বলেন বিএনপি এখন সরকার গঠনের দিবাস্বপ্নে জনসম্পৃক্ততাহীন কিছু নেতাদের নিয়ে ঐক্য করছে।কথিত এ ঐক্য ভোটের মাঠে কোন প্রভাব ফেলবে বলে জনগণ মনে করে না। 

তিনি বলেন ঐক্যের নামে বিএনপি এবং তার দোসররা মূলত শেখ হাসিনা সরকারকে হটানোর জন্য দেশ-বিদেশে চক্রান্ত করছে,  তাদের এ চক্রান্ত প্রতিরোধ এবং প্রতিহত করতে আওয়ামী লীগ প্রস্তুত।

বর্তমান সরকারকে ক্ষমতায় থাকতে দেওয়া হবে না, - বিএনপি নেতাদের এমন কাল্পনিক বক্তব্যের জবাবে ওবায়দুল কাদের পাল্টা প্রশ্ন রেখে বলেন ক্ষমতায় থাকতে দেওয়া না দেওয়ার বিএনপি কে? ক্ষমতার উৎস এ দেশের জনগণ এবং ক্ষমতা দেওয়ার মালিক মহান আল্লাহ। 

  জনগণের ভালোবাসা নিয়ে আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় এসেছে এবং আছে, জনগণ যতদিন চাইবে ততদিনে আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় থাকবে এমন উল্লেখ করে ওবায়দুল কাদের বলেন বিএনপির চাওয়া না চাওয়ায় কোন কিছু আসে যায় না।

এর আগে সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরের সঙ্গে সচিবালয়ে তাঁর দপ্তরে সৌজন্য সাক্ষাৎ করেন ডেমোক্রেসি ইন্টারন্যাশনালের প্রতিনিধি ডানা এল ওল্ডস।


আরও খবর



বঙ্গবন্ধু রেল জাদুঘরের যাত্রা শুরু

প্রকাশিত:রবিবার ৩১ জুলাই ২০২২ | হালনাগাদ:বুধবার ১০ আগস্ট ২০২২ |
Image

রোকসানা মনোয়ার :  জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আদর্শ, অধিকার আদায়ে আন্দোলন, সংগ্রাম এবং তার অসামান্য কর্মজীবন প্রত্যন্ত অঞ্চলের মানুষের কাছে পৌঁছে দিতে দেশে প্রথমবারের মতো প্রতিষ্ঠা হলো ‘বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব ভ্রাম্যমাণ রেল জাদুঘর।

বাংলাদেশ রেলওয়ের উদ্যোগে একটি মিটারগেজ ও একটি ব্রডগেজ রেল কোচের ভেতরে গড়ে তোলা ভ্রাম্যমাণ জাদুঘরটি গত ২৭ এপ্রিল উদ্বোধন করেন বঙ্গবন্ধু কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। যা এখন চালুর অপেক্ষায়। সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, এরই মধ্যে ঢাকা থেকে জয়দেবপুর পর্যন্ত রেল জাদুঘরটি ট্রায়াল সম্পন্ন করা হয়েছে। আগামীকাল ১ আগস্ট থেকে এটি আনুষ্ঠানিকভাবে চালু হচ্ছে।

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী এবং স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উপলক্ষ্যে রেলের বগিতে ভ্রাম্যমাণ জাদুঘরটি নির্মাণ করেছে রেলপথ মন্ত্রণালয়। একটি মিটারগেজ ও একটি ব্রডগেজ কোচে একই জাদুঘর গড়ে তোলা হয়েছে। জাদুঘর দুইটিতে বঙ্গবন্ধুর জীবনের ওপর নির্মিত তথ্যবহুল ও মনোমুগ্ধকর বারোটি চিত্র ও দুর্লভ আলোকচিত্রের সমন্বয়ে সাজানো হয়েছে।

কোচের একপাশের দেয়ালের ছয়টি ভাগে রাখা হয়েছে কিংবদন্তির প্রথম প্রহর, ধ্রুব তারার প্রথম কিরণ, নক্ষত্র হওয়ার পথে, বাংলার মাটি ও ভাষার বঙ্গবন্ধু, ধূমকেতু থেকে নক্ষত্র, মুক্তির স্বপ্নের সূচনা শিরোনামে বঙ্গবন্ধুর জীবনচরিত। এখানে তুলে ধরা হয়েছে বঙ্গবন্ধুর শৈশব থেকে পর্যায়ক্রমে তার ছাত্রজীবন, রাজনীতিতে হাতেখড়ি, মানুষের অধিকার আদায়ের সংগ্রামে নিজের জীবনকে উৎসর্গ করার মাধ্যমে গণমানুষের প্রাণের নেতা হয়ে ওঠার ইতিহাস।

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব ভ্রাম্যমাণ রেল জাদুঘরে আরও রয়েছে, বায়ান্নর ভাষা আন্দোলনের অন্যতম সংগঠক, অধিকার আদায়ের সংগ্রামে অবর্ননীয় নির্যাতন, চুয়ান্নর যুক্তফ্রন্ট, মিথ্যা মামলা ও কারাভোগ, স্বাধীন বাংলাদেশের স্বপ্নদ্রষ্টা হিসেবে তৎকালীন পাকিস্তান সরকারের বিরুদ্ধে আপসহীন সংগ্রামের ইতিহাস। আরেক পাশের দেয়ালে থাকা ছয় ভাগে রয়েছে, দুর্বার পথচলা, নিপীড়িতদের কান্ডারি, এক নতুন স্বাধীন বাংলাদেশের স্বপ্ন, মুক্তি, সংগ্রাম ও স্বাধীনতার কথা, স্বপ্নগড়ার দিনগুলো, যে আলো নেভেনি আজও এমন শিরোনামে শিল্প প্রদর্শনী। এতে বাঙালি জাতির মুক্তির সনদ ৬৬ এর ঐতিহাসিক ছয় দফা, ঊনসত্তরের গণঅভ্যুত্থান ও জাতির গৌরবোজ্জ্বল, একাত্তরে মহান মুক্তিযুদ্ধের মাধ্যমে কাঙ্ক্ষিত স্বাধীনতা অজনের প্রধান নায়ক হিসেবে বঙ্গবন্ধুর অবদান দর্শকদের চোখের সামনে জীবন্ত হয়ে উঠবে। দেখার সঙ্গে সঙ্গে যেন দর্শকরা ভালোভাবে শুনতে পারেন সেজন্য রাখা হয়েছে হেডফোনের ব্যবস্থা। কোচের এক প্রান্তে রাখা একটি বড় এলইডিতে রাখা হয়েছে বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন দেশে দেওয়া বঙ্গবন্ধুর বক্তব্য ও সাত মার্চের ঐতিহাসিক ভাষণ।

শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত জাদুঘরটিতে আরও রাখা হয়েছে জয়বাংলা স্লোগানের আদলে তৈরি করা একটি বুক শেলফ। সেখানে প্রায় একশ বই রয়েছে। বইগুলোর মধ্যে শিশুদের জন্য বঙ্গবন্ধুর রচিত বিভিন্ন শিশুতোষ বই। ‘যাদু মনি’ সম্বোধন করে মেয়ে হাসুকে নিয়ে লেখা বঙ্গবন্ধুর চিঠিসহ মোট ছয়টি চিঠি রাখা হয়েছে। যা বঙ্গবন্ধুকে আরও গভীরভাবে বুঝতে সাহায্য করবে দর্শনার্থীদের। দর্শকদের নজর কাড়ার জন্য ভেতরেই তৈরি করা হয়েছে কৃত্রিম ফুলের বাগান। আরও রয়েছে জাতির পিতার ব্যবহৃত পোশাক ও জিনিষপত্রের প্রতিকৃতি। রয়েছে বঙ্গবন্ধুর সমাধিস্থল, স্মৃতিসৌধ, তার হাতে লেখা চিঠি। জাদুঘরটি রয়েছে একটি ডিসপ্লে, যেখানে বঙ্গবন্ধুর জীবনের নানা সময়ের ভিডিও চিত্র প্রদর্শিত হচ্ছে। এর পেছনে বেজে চলে ‘তুমি ইতিহাস জুড়ে সর্বশ্রেষ্ঠ মহানায়ক এই বাংলার তুমি শোষকের যম শোষিতের দম স্রষ্টা স্বাধীনতার।

রেলওয়ে কর্মকর্তা মো. মঞ্জুর উল আলম চৌধুরীর লেখা গানটি জাদুঘরে থিম সং হিসেবে ব্যবহার করা হয়েছে। আর কোচ দুটির বাইরের অংশে বায়ান্নর ভাষা আন্দোলন থেকে একাত্তরের মুক্তিযুদ্ধ পর্যন্ত ধারাবাহিক সংগ্রামের ওপর শিল্পীর আঁকা রঙিন ম্যুরাল চিত্র। গত ২৭ এপ্রিল বঙ্গবন্ধু কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এই ভ্রাম্যমাণ রেল জাদুঘরের উদ্বোধন করেন। এখন আসছে ১ আগস্ট থেকে সাধারণ জনগণের জন্য খুলে দেওয়া হবে বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা।



আরও খবর

আন্তর্জাতিক আদিবাসী দিবস

মঙ্গলবার ০৯ আগস্ট ২০২২




শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান সপ্তাহে ৩ দিন বন্ধের সিদ্ধান্ত আসছে

প্রকাশিত:বুধবার ২৭ জুলাই ২০২২ | হালনাগাদ:রবিবার ০৭ আগস্ট ২০২২ |
Image

মইনুল ইসলাম মিতুল : জ্বালানি সাশ্রয়ে নানা পদক্ষেপের অংশ হিসেবে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান সপ্তাহে তিন দিন বন্ধ রাখার চিন্তা-ভাবনা করছে সরকার। সংশ্লিষ্টরা মনে করেন, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান সপ্তাহে তিন দিন বন্ধ রাখলে গাড়িতে জ্বালানি তেলের ব্যবহারও কম হবে। অন্য দিকে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধের কারণে সুনির্দিষ্ট পরিমাণ বিদ্যুতের সাশ্রয় হবে। এছাড়া শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে শিক্ষার্থীদের আসা-যাওয়ায় ব্যক্তিগত গাড়ির সর্বোচ্চ ব্যবহারও নিশ্চিত করতে চায় সরকার।

কোভিডের কারণে দীর্ঘ সময় শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ ছিল। এর মধ্যে আবার বন্ধ রাখলে শিক্ষার্থীদের পড়াশোনার ক্ষতি হতে পারে কি না- এমন প্রশ্নের জবাবে জ্বালানি বিভাগের এক কর্মকর্তা বলেন, ‘আমরা শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান সপ্তাহে তিন দিন বন্ধের এ সুপারিশ করব। বাকিটা শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সিদ্ধান্তের বিষয়। তারা চাইলে এটা করতে পারে। তিনি আরো বলেন, ‘সপ্তাহে তিন দিন বাসায় থেকেও শিক্ষার্থীরা পড়াশোনা করতে পারবে। শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান সপ্তাহে তিন দিন বন্ধ রাখলে অনেক বিদ্যুৎ সাশ্রয় হবে।

জ্বালানি সাশ্রয়ে আরো কিছু পদক্ষেপ নিতে যাচ্ছে সরকার। এতে ‘কার হলিডে’ করার মতো পদক্ষেপও আছে। বিদেশের আদলে কার হলিডে দেওয়া অর্থাৎ সপ্তাহে এক দিন গাড়ি বন্ধ রাখা।

এছাড়া রাজধানীসহ সারা দেশে বড় বড় শপিংমল পালাক্রমে (বেঁধে দেওয়া সময় অনুযায়ী) বন্ধ রাখার কথাও চিন্তা করছে সরকার। বর্তমানে রাত ৮টা পর্যন্ত মার্কেট খোলা রাখার অনুমতি দিয়েছে সরকার।

এদিকে অকটেন-পেট্রলের দাম আবার বাড়ানোর কথাও ভাবা হচ্ছে। আগামী সপ্তাহেই এ ব্যাপারে সরকারি ঘোষণা আসতে পারে। এর মাধ্যমে জ্বালানি সাশ্রয়ের পাশাপাশি ভর্তুকি কমিয়ে আনতে চায় সরকার।

জ্বালানি বিভাগ সূত্রে জানা যায়, তেলভিত্তিক বিদ্যুৎকেন্দ্রগুলো বন্ধ রাখার মাধ্যমে সরকারের প্রত্যাশিত সাশ্রয় হচ্ছে না। বিপিসি থেকে জ্বালানি বিভাগকে জানানো হয়েছে, তেলভিত্তিক বিদ্যুৎকেন্দ্রগুলো সাশ্রয়ের মাধ্যমে মোট জ্বালানি তেল ব্যবহারের মাত্র ৭-৮ শতাংশ জ্বালানি সাশ্রয় হয়। দেশে যে পরিমাণ জ্বালানি তেল ব্যবহার হয়, বিশেষ করে ডিজেল ব্যবহার হয়, তার ৯০ শতাংশই ব্যবহার হয় পরিবহন খাতে। ফলে সরকার পরিবহন খাতে ব্যবহৃত জ্বালানি তেল কমিয়ে আনার জন্য বেশ কিছু কঠিন পদক্ষেপ গ্রহণ করতে যাচ্ছে।

জ্বালানি বিভাগের এক কর্মকর্তা বলেন, সরকার আপাতত অকটেন এবং পেট্রলের দাম একটু বেশি পরিমাণে বাড়াতে চায়। অর্থাৎ বাংলাদেশ পেট্রোলিয়াম করপোরেশন (বিপিসি) বিদেশ থেকে যে দামে অকটেন আমদানি করে, দেশের বাজারে তার কাছাকাছি মূল্য নির্ধারণ করতে চায় সরকার। এতে ভর্তুকির পরিমাণ কমে আসবে।

তিনি বলেন, অকটেন মূলত ধনীরা ব্যবহার করে। ব্যক্তিগত গাড়ি, মোটরসাইকেলসহ দামি গাড়িতেও অকটেন ব্যবহার হয়। ফলে অকটেন এবং পেট্রলের দাম বাড়ানো হতে পারে আগামী এক সপ্তাহের মধ্যে। এছাড়া সরকারের বিভিন্ন মন্ত্রণালয় ও বিভাগের গাড়িতে ২০ শতাংশ জ্বালানির ব্যবহার কমানোর নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। তিনি বলেন, ডিজেল যেহেতু কৃষি সেচ কাজ এবং সাধারণ মানুষ বেশি ব্যবহার করে, ফলে আপাতত ডিজেলের দাম নাও বাড়তে পারে। তবে ডিজেলের দামও বাড়বে আরো কিছুদিন আন্তর্জাতিক বাজার বিশ্লেষণের পর।

বিপিসি চেয়ারম্যান বলেন, ‘মোট কথা যেকোনোভাবেই হোক জ্বালানি সাশ্রয় করতে হবে। মানুষের কাছে আমার আহ্বান থাকবে নিজ থেকে যতটা পারেন সাশ্রয়ী হোন। এখন একটা সংকটকালীন সময়। সারা বিশ্বে সেটার প্রভাব পড়ছে। বাংলাদেশেও নেতিবাচক প্রভাব পড়েছে। ফলে আমরা সবাই যদি সাশ্রয়ী হই তবে লক্ষ্যমাত্রা অনুযায়ী জ্বালানি তেলের ব্যবহার কমিয়ে আনতে পারব।


আরও খবর