Logo
শিরোনাম

মুদ্রানীতি ঘোষণা করেছে বাংলাদেশ ব্যাংক

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ৩০ জুন ২০২২ | হালনাগাদ:বুধবার ১০ আগস্ট ২০২২ |
Image

২০২২-২০২৩ অর্থবছরে এবার বেসরকারি খাতে ঋণ বাড়ানোর প্রক্ষেপণ করা হয়েছে ১৪ দশমিক ১০ শতাংশ। অর্থাৎ আগের মুদ্রানীতির চেয়ে দশমিক ৭০ শতাংশ কমিয়ে সংকোচনমুখী মুদ্রা নীতি ঘোষণা করেন গভর্নর ফজলে কবির।

বৃহস্পতিবার (৩০ জুন) বাংলাদেশ ব্যাংকের জাহাঙ্গীর আলম কনফারেন্স হলে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ ঘোষণা দেন।

বাংলাদেশ ব্যাংক বলছে, পুরো অর্থবছরে বেসরকারি খাতে ঋণ প্রবৃদ্ধির প্রক্ষেপণ করা হয়েছে ১৪ দশমিক ১০ শতাংশ। আগের মুদ্রানীতিতে লক্ষ্যমাত্রা ছিল ১৪ দশমিক ৮০ শতাংশ। আর আগামী ডিসেম্বর পর্যন্ত বেসরকারি ঋণের প্রবৃদ্ধির লক্ষ্য রাখা হয়েছে ১৩ শতাংশ ৬০ শতাংশ। চলতি জুন পর্যন্ত বেসরকারি খাতে ঋণের প্রবৃদ্ধি হয়েছে মাত্র ১৩ দশমিক ১০ শতাংশ।

ঘোষিত নতুন মুদ্রানীতিতে সরকারের লক্ষ্যমাত্রার আলোকে ঋণ গ্রহণের প্রবৃদ্ধি ৩৬ দশমিক ৩ শতাংশ নির্ধারণ করা হয়েছে। আর মোট অভ্যন্তরীণ ঋণের প্রবৃদ্ধি ধরা হয়েছে ১৮ দশমিক ২০ শতাংশ।

প্রসঙ্গত, ২০২২-২০২৩ অর্থবছরে জিডিপি প্রবৃদ্ধির লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে ৭ দশমিক ৫ শতাংশ। অন্যদিকে মূল্যস্ফীতি ৫ দশমিক ৬ শতাংশে রাখার লক্ষ্য ঠিক করেছে সরকার। এ লক্ষ্য ঠিক রেখে নতুন মুদ্রানীতি ঘোষণা করা হয়েছে।

সংবাদ সম্মেলনে বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নরসহ ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।


আরও খবর

আকাশ ছুঁলো কাঁচা মরিচের দাম

শনিবার ০৬ আগস্ট ২০২২




ডেপুটি স্পিকারের মৃত্যুতে রাষ্ট্রপতি-প্রধানমন্ত্রীর শোক

প্রকাশিত:শনিবার ২৩ জুলাই ২০২২ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ০৯ আগস্ট ২০২২ |
Image
জাতীয় সংসদের ডেপুটি স্পিকার এবং গাইবান্ধা-৫ আসনের সংসদ সদস্য মুক্তিযোদ্ধা অ্যাডভোকেট ফজলে রাব্বী মিয়ার মৃত্যুতে গভীর শোক ও দুঃখ প্রকাশ করেছেন রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ এবং প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

শনিবার সকালে এক শোকবার্তায় রাষ্ট্রপতি বলেন, সংসদীয় গণতন্ত্রের চর্চা ও বিকাশে তার অবদান জাতি শ্রদ্ধার সঙ্গে স্মরণ করবে। সংসদ পরিচালনায় ফজলে রাব্বী মিয়ার দক্ষতা ও অভিজ্ঞতা বহুদিন থাকবে। এ সময় ফজলে রাব্বী মিয়ার রুহের মাগফিরাত কামনা করে তার শোকসন্তপ্ত পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা জানান রাষ্ট্রপতি।

এদিকে, এক শোকবার্তায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, ছাত্রজীবন থেকেই ফজলে রাব্বী মিয়া আইয়ুববিরোধী আন্দোলন এবং ’৬২-এর শিক্ষা কমিশনবিরোধী আন্দোলনে জড়িত ছিলেন। মহান মুক্তিযুদ্ধের সময় তিনি ১১নং সেক্টরে যুদ্ধ করেছিলেন। সংসদীয় গণতন্ত্রে অসামান্য ভূমিকার জন্য তিনি স্মরণীয় হয়ে থাকবেন।

এ সময় মরহুমের বিদেহী আত্মার মাগফিরাত কামনা করে তার শোকসন্তপ্ত পরিবারের সদস্যদের প্রতি আন্তরিক সমবেদনা জানান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

শুক্রবার রাত ২টায় (নিউইয়র্কের স্থানীয় সময় বিকেল ৪টা) যুক্তরাষ্ট্রের মাউন্ট সিনাই হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন ডেপুটি স্পিকার ফজলে রাব্বী মিয়া। তিনি দীর্ঘদিন ধরে অসুস্থ ছিলেন।

আরও খবর

আন্তর্জাতিক আদিবাসী দিবস

মঙ্গলবার ০৯ আগস্ট ২০২২




নারায়ণগঞ্জের সিদ্ধিরগঞ্জে

দুর্ধর্ষ কিশোর গ্যাং “টেনশন গ্রুপের ৭ সদস্যকে গ্রেফতার

প্রকাশিত:রবিবার ০৭ আগস্ট ২০২২ | হালনাগাদ:বুধবার ১০ আগস্ট ২০২২ |
Image

বুলবুল আহমেদ সোহেল; নারায়ণগঞ্জঃ 

নারায়ণগঞ্জ সিদ্ধিরগঞ্জের ত্রাস দুর্ধর্ষ কিশোরগ্যাং নেতাসহ টেনশন গ্রুপের সাত সদস্যকে গ্রেপ্তার করেছে র‌্যাব-১১। তাদের কাছ থেকে উদ্ধার করা হয়েছে একটি গুপ্তি ছোরা, দুইটি গিয়ার সুইচযুক্ত ধাঁরালো চাকু, দুইটি ছোরা ও একটি ষ্টিলের পাইপ। গতকাল রোববার দুপুরে সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এতথ্য জানান র‌্যাবের মিডিয়া অফিসার সহকারী পরিচালক মো: রিজওয়ান সাঈদ জিকু। তার আগে শনিবার দিবাগত রাতে মিজমিজি এলাকা থেকে তাদের গ্রেপ্তার করা হয়।

গ্রেপ্তাররা হলো- মিজমিজি এলাকার মো: শফিকুল ইসলামের ছেলে দলনেতা মোঃ রাইসুল ইসলাম সীমান্ত, মোঃ নজরুল মিয়ার ছেলে মোঃ নাঈম মিয়া, মোঃ আল আমিনের ছেলে মোঃ হাসান, মোঃ ইসলামের ছেলে মোঃ পারভেজ মিয়া, মোঃ আব্দুল হাকিমের ছেলে আবির বিন হাকিম, মোঃ আমান উল্লাহর ছেলে মোঃ রাহাত ও নুরুল ইসলামের ছেলে মোঃ রিয়াদুল ইসলাম। তাদের প্রত্যেকের বয়স ২১ থেকে ২৪ বছরের মধ্যে।

র‌্যাব জানায়, তারা পরিকল্পিতভাবে দলবদ্ধ হয়ে সংঘাত ও অস্ত্র প্রদর্শন করে জনমনে ভয়ভীতি দেখিয়ে এলাকায় ত্রাস সৃষ্টি করে আসছিল। তাদের সাত থেকে দশ জনের গ্রুপ সংঘবদ্ধ হয়ে এলাকায় বিশৃঙ্খলা ও অরাজকতা করে বেড়াত। জিজ্ঞাসাবাদ ও প্রথমিক অনুসন্ধানে জানা গেছে, প্রতিপক্ষ কিশোরগ্যাং সদস্যদের ঘায়েল করতে শক্তি প্রদর্শন করার জন্য ওইসব দেশিয় অস্ত্র নিয়ে তারা একত্রিত হয়েছিল। তাদের বিরুদ্ধে সিদ্ধিরগঞ্জ থানায় আইনানুগ কার্যক্রম প্রক্রিয়াধীন।


আরও খবর



কু‌মিল্লা হোমনায়

বিশা পাগলার ঘরে মিল‌লো প্রায় আড়াই কোটি টাকা

প্রকাশিত:বুধবার ১৩ জুলাই ২০২২ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ০৯ আগস্ট ২০২২ |
Image

 কু‌মিল্লা ব্যুরো ঃ

কুমিল্লার তিতাস উপজেলা বিশা পাগলার নামের এক ব্যক্তির ঘর থেকে নগদ ২ কোটি ৪৫ লাখ টাকা ও বৈদশিক মুদ্রাসহ স্বর্ণালংকার উদ্ধার করে এলাকাবাসী। 

বুধবার সকালে (১৩ জুলাই) জেলার তিতাস উপজেলার বলরাম পুর ইউনিয়ন এর গাজীপুর মাজার এলাকায় বিশা পাগলার ঘর টাকা ও স্বর্ণালংকার সাধারণ মানু‌ষের সাম‌নে কের করা হয়।।বিষয়টি নিশ্চিত করেন তিতাস থানার ওসি সুধীন চন্দ্র দাস।

স্থানীয় জানায়,তিতাসের গাজীপুর গ্রামের মরহুম হাজ্বী  আমির হোসেন (বিশা পাগলা)ঘরে বিপুল পরিমাণ টাকা পাওয়া গেছে এমন খবর পেয়ে বুধবার সকাল থেকে  এলাকার জনপ্রতিনিধি  ও আইন শৃঙ্খলা বাহিনীসহ শত শত নারী পুরুষ মরহুমের বাড়িতে সমবেত হয়।

এমসয় উক্ত টাকা উপস্থিত সকলের সামনে বস্তা বন্দী করে মরহুম বিশা পাগলার বিল্ডিংয়ের একটি রুমে তালা বদ্ধ করে পুলিশ পাহারায় রাখা হয়েছে। 

মৃত আমির হোসেন ওরফে বিশা পাগলার ঘড়ে রোখে যাওয়া স্টিলের আলামারী থেকে  প্রায় ২কোটি ৪৫ লাখ নগদ টাকা, ৫-৬ ভরি স্বর্ণালংকার ও বিদেশি মূদ্রা পাওয়া গেছে।

পু‌লিশ জানায় ,কুমিল্লার তিতাসে এক মৃত ব্যক্তির ঘরের গোপন কক্ষ থেকে দুই কোটি ৪৫ লক্ষ টাকা, ছয় ভরি স্বর্ণ ও এক হাজার ১০০ দেরহাম বিদেশী মুদ্রা উদ্ধার করা হয়েছে। মৃত ঐ ব্যক্তির নাম মোহাম্মদ আমির হোসেন ওরপে বিশা পাগলা। বিশা পাগলা তিতাস উপজেলার বলরামপুর ইউনিয়নের বড় গাজীপুর গ্রামের আবদুল লতিফের ছেলে। আমির হোসেন ওরফে বিশা পাগলার স্ত্রী-সন্তান নেই। তিনি এক ভাগ্নিকে দত্তক নিয়েছেন। মঙ্গলবার (১২ জুলাই) তার গোপন কক্ষ থেকে এসব স্বর্ণালঙ্কার ও টাকা-পয়সা উদ্ধার করে তার দত্তকমেয়ে তাছলিমা আক্তার ও স্থানীয়রা। পরে টাকা দেখেই পুলিশকে খবর দেয় তারা। পুলিশ এসে মঙ্গলবার সন্ধ্যা থেকে সারা রাত সেই বাড়ি নিরাপত্তা বেষ্টনীতে মুড়ে রাখে। পরে বুধবার (১৩ জুলাই) দুপুরে তার পাঁচ ওয়ারিসের হাতে এ টাকা উঠিয়ে দেয় পুলিশ। 

স্থানীয়রা জানায় ৪০ বছর ধরে ভিশা পাগলা নিজ গ্রামের গাজীপুর মাজার শরীফের পাশে একটি বাড়িতে থাকতেন এবং মাজারের খাদেম হিসেবে কাজ করতেন। গত শুক্রবার (৮ জুলাই) বার্ধক্যজনিত কারণে তার মৃত্যু হয়। তার মৃত্যুর পরে তার গোপন কক্ষে থাকা আলমারি ও ওয়ারড্রফ খুলে দেখা যায় টাকার টাকার পাহাড়। ওই আলমারিতে থাকা টাকার বান্ডেল গুলোতে সবচেয়ে বেশি আছে ৫০০ ও ১০০০টাকার নোট। এবং প্রত্যেক বান্ডিলেই টাকার পরিমান এক লক্ষ টাকা।

স্থানীয় আফরোজা নামের একজন জানান, অসুস্থ হলেও তিনি কখনও ডাক্তারের কাছে যেতেন না। নিজে কিছু কিনে খেতেন না। কোথাও গাড়িতে চড়ে যেতেন না। এভাবেই তিনি টাকাগুলো সংরক্ষণ করেছেন। এই মাজারে আসা ভক্তরা তাকে স্বর্ণালঙ্কার বিদেশি মুদ্রা ও নগদ টাকা দিয়ে যেতেন। এছাড়াও তিনি দেশের বিভিন্ন জেলায় ভ্রমণ করতেন। তখন তার ভক্তরা তাকে টাকা পয়সা দিতে সেগুলো নিয়ে বাড়ি ফিরে জমা করতো। 

টাকা গোনার স্থলে উপস্থিত ছিলেন তিতাসের স্থানীয়রা । স্থানীয়রা জানান প্রশাসনের উপস্থিতিতে এই টাকা গুনে তার ওয়ারিশদের পাঁচজনের যৌথ ব্র্যাক ব্যাংকের একটি নতুন একাউন্টে রাখা হয়েছে। 

তিতাস থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সুধীন চন্দ্র দাস বাংলা ট্রিবিউনকে জানান, উনি গাজীপুর মাজারের পাশের থাকতেন। উনার এই টাকা মুলত এই মাজারে ঘুরতে আসা ভক্তরা দিয়েছে। তার ঘরে তিনি জীবিত অবস্থায় কাউকে ঢুকতে দেন নি। তাই কেউ দেখেনি। মারা যাওয়ার পর উনার ওয়ারিশরা এই টাকা দেখে আমাদের জানালে থানা থেকে পুলিশ পাঠিয়ে টাকা গুলো গুনে ব্রাক ব্যাংকে তার পাঁচ আত্মীয়ের নামে খোলা একটি নতুন একাউন্টে রাখার ব্যবস্থা করি।

তিতাস উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা এটিএম মোর্শেদ জানান, আমরা এর আইনি দিকগুলো দেখছি। যাচাই-বাছাই শেষে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

পারিবারের সদস‌্যরা জানায়, তার শেষ ইচ্ছা ছিলো একটি মসজিদ তৈরীর করার।

আমরা আশা করব ওনার রেখে যাওয়া সম্পত্তি দিয়ে একটি সুন্দর মসজিদ তৈরী হবে পাশাপাশি তিতাস উপজেলায় যেহেতু কোন বৃদ্ধাশ্রম নেই প্রয়োজনে একটি বৃদ্ধাশ্রম তৈরী হতে পারে।( উপজেলার নেতৃবৃন্দসহস্থানীয় গন্যমান্য ব্যাক্তি বর্গের উপস্থিতিতে সবকিছু ওনার ওয়ারিশদের নিকট বুঝিয়ে দেওয়া হবে।


আরও খবর



চীনের বাজারে বাংলাদেশ ৯৯ শতাংশ পণ্যের শুল্কমুক্ত

প্রকাশিত:রবিবার ০৭ আগস্ট ২০২২ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ০৯ আগস্ট ২০২২ |
Image

চীনের বাজারে প্রবেশে বাংলাদেশের ৯৮ শতাংশ পণ্য শুল্কমুক্ত সুবিধা পেয়ে আসছে। এখন থেকে আরো এক শতাংশ বাংলাদেশী পণ্যের শুল্কমুক্ত সুবিধা দেয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়েছে চীন। এতে চীনের বাজারে বাংলাদেশ ৯৯ শতাংশ পণ্যের শুল্কমুক্ত রফতানি সুবিধা পাবে।

রোববার চীনের পররাষ্ট্রমন্ত্রী ওয়াং ইর সাথে পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেনের বৈঠকে এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেয়া হয়।

ঘণ্টাব্যাপী দ্বিপক্ষীয় বৈঠকের পর দুই দেশের মধ্যে সহযোগিতা বাড়াতে চারটি চুক্তি ও সমঝোতা সই হয়।

পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী মো: শাহরিয়ার আলম বৈঠকের পর সাংবাদিকদের বলেন, চুক্তির বিস্তারিত পরে গণমাধ্যমে ব্রিফ করা হবে।

এর মধ্যে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা, সাংস্কৃতিক বিনিময় (নবায়ন) এবং সামুদ্রিক বিজ্ঞান বিষয়ক চুক্তি অন্তর্ভুক্ত রয়েছে।

তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশের আর্থ-সামাজিক অগ্রগতি দেখে চীনের পররাষ্ট্রমন্ত্রী খুশি।

দুই দেশের মধ্যে সম্পর্ককে নতুন স্তরে উন্নীত করার লক্ষ্যে বৈঠকে উভয় পক্ষই দ্বিপক্ষীয়, আঞ্চলিক এবং বৈশ্বিক সমস্যা নিয়ে আলোচনা করে।

মন্ত্রী ওয়াং ভবিষ্যতে যৌথ সহযোগিতার ওপর জোর দেন এবং এক-চীন নীতিতে বাংলাদেশের অবস্থানের প্রশংসাকরেন।

সূত্র : ইউএনবি


আরও খবর

আন্তর্জাতিক আদিবাসী দিবস

মঙ্গলবার ০৯ আগস্ট ২০২২




গরমে অতিষ্ঠ জনজীবন, বেড়েছে জ্বর আক্রান্ত রোগী

প্রকাশিত:বুধবার ১৩ জুলাই ২০২২ | হালনাগাদ:সোমবার ০৮ আগস্ট ২০২২ |
Image

মুজাহিদ সরকার কিশোরগঞ্জ ঃ

গত কয়েক দিনের তীব্র গরমে অতিষ্ঠ হয়ে পড়েছে বিভিন্ন জেলার পাশাপাশি কিশোরগঞ্জের হাওরের জনজীবন। প্রখর রোদের পাশাপাশি ভ্যাপসা গরমে স্বস্তি মিলেছে না কোথাও। ফলে বিপাকে পড়েছেন খেটে খাওয়া মানুষ। 

১২ ই জুলাই ঢাকা,কিশোরগঞ্জে এলাকায় তাপমাত্রার পরিমাণ ছিল সকাল ১২ টা থেকে বিকাল ৪ টা পর্যন্ত ২৮ থেকে ২৭ ডিগ্রি সেলসিয়াস। 

এদিকে অতি গরমে স্বাভাবিকভাবে মাছ ধরতে পারছেন না হাওরের জেলেরা। এছাড়া কয়েক দিনের ভ্যাপসা গরমে জ্বর, ঠান্ডা, ডায়রিয়াসহ গরমজনিত নানা রোগে আক্রান্ত রোগীও বেড়েছে। জ্বরে আক্রান্ত হয়ে ওষুধের দোকানে বিড় জমাচ্ছে সাধারণ মানুষ। 

হাওরের বিভিন্ন এলাকায় খুজ নিয়ে জানা গেছে, সকালের দিকে মানুষ কিছুটা স্বস্তিতে থাকলেও দুপুরের প্রখর রোদে অতিষ্ঠ হয়ে পড়ছেন। একটু প্রশান্তির আশায় মানুষকে গাছের ছায়ায় কিংবা শীতল কোনো স্থানে বসে থাকতে দেখা গেছে। গরমে অনেকেই পুকুর কিংবা নদীতে নেমে কিছুটা স্বস্তি অনুভব করছেন।

ইটনা মৃগা ইউনিয়নের আনন্দ বাজারের ২ বছরের শিশু নিয়ে চিকিৎসা নিতে আসা আলী হোসেন বলেন, আমার মেয়ের গত ৩ দিন ধরেই ছেড়ে ছেড়ে জ্বর আসে। সব প্রকারের ওষুধ খাওয়ানোর পরও কিছুতেই জ্বর কমছে না। 

ইটনা সদরের ওষুধ ব্যবসায়ী বিজয় রায় জানান, আমাদের দোকানে কিছুদিন ধরে বেশি রোগীই জ্বরের ওষুধের জন্য আসিতেছে। জ্বরের ওষুধের চাহিদা বেশি। 

আনন্দ বাজারের ওষুধ ব্যবসায়ী আলমগীর ফরিদ বলেন, গত কিছুদিন ধরেই অতি গরমে জ্বর আক্রান্ত রোগীও সংখ্যা বেড়েছে। আমরা রোগীদের বয়স অনুযায়ী জ্বর ছাড়ার ওষুধ দিচ্ছি এবং ঠান্ডা জাতীয় খাবার খাওয়ার পরামর্শ দিচ্ছি। 

ইটনা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা অফিসার ডাঃ অতিশ দাস রাজিব বলেন, কিছুদিন ধরেই হাসপাতালে জ্বর আক্রান্ত রোগী সেবা নিতে আসিতেছে। তিনি আরও বলেন, এটা অতি গরমের জন্য হচ্ছে। গরমে বাহিরে গেলে মাস্ক, ছাতা এবং বেশি বেশি ঠান্ডা জাতীয় কমল পানিও খাওয়ার পরামর্শ দেন। জ্বরে বাচ্চা-বড় মানুষ মোটামুটি সবাই আক্রান্ত হচ্ছে। এটা মৌসুমী রোগ ওষুধ খেলে ভালো হয়ে উঠবে।


আরও খবর