Logo
শিরোনাম

নোয়াখালীতে পিতা হত্যার আসামী নিজ সন্তানসহ তিন আসামী গ্রেফতার

প্রকাশিত:বুধবার ১১ মে ২০২২ | হালনাগাদ:সোমবার ১৬ মে ২০২২ | ৬৭জন দেখেছেন
Image

অনুপ সিংহ,নোয়াখালী প্রতিনিধিঃ

নোয়াখালীর কবিরহাট উপজেলার উত্তর সুন্দলপুর গ্রামে জয়গা-জমি ভাগাভাগিকে কেন্দ্র করে মহিন উদ্দিন নামে এক ব্যক্তিকে পিটিয়ে হত্যা মামলার আসামী নিজ মেয়ে, মেয়ের জামাই ও নাতিকে গ্রেফতার প্রসঙ্গে প্রেস ব্রিফিং করেছে জেলা পুলিশ সুপার শহীদুল ইসলাম।

প্রেস ব্রিফিং এ বলা হয়, তথ্য প্রযুক্তির সহায়তায় পুলিশ পলাতক আসামী নিহত মহিন উদ্দিনের মেয়ে শাহিনা আক্তার, মেয়ের জামাই নুরুন্নবী সুমন ও নাতি ইউসুফ শামীমকে গাজীপুর জেলার জয়দেবপুর উপজেলার সালনা এলাকা হতে গ্রেফতার করে। 

এ ঘটনায় ইউসুফ নবী অন্তর নামে আরেক আসামী পলাতক রয়েছে। 

এ ঘটনায় মহিন উদ্দিনের আরেক মেয়ে বিবি কুলসুম লাভলী বাদী হয়ে ৪জনের নাম উল্লেখ করে অজ্ঞাত আরও ৪/৫জনকে আসামী করে কবিরহাট থানার একটি হত্যা মামলা দায়ের করে।


আরও খবর



মি’রাজের পথে নবীজির (সা.) বাহন

প্রকাশিত:শুক্রবার ২৯ এপ্রিল ২০২২ | হালনাগাদ:সোমবার ১৬ মে ২০২২ | ৯৩জন দেখেছেন
Image

‘বুরাক’ এমন একটি প্রাণী যার ওপর রাসূলুল্লাহ (সা.) মি’রাজ রজনীতে আরোহণ করেছিলেন। আরবি ‘বুরাক’ শব্দটি ‘বারক’ শব্দ হতে উদ্ভূত। যার অর্থ বিদ্যুৎ, বিজলি। সে বিদ্যুৎ মেঘের মাঝে পরিদৃষ্ট হয়। যেমন পুলসিরাত অতিক্রমকারীদের ব্যাপারে হাদীসে বর্ণিত হয়েছে যে, তারা বিদ্যুতের গতির ন্যায় পুলসিরাত অতিক্রম করবেন। আবার কেউ দ্রুতগামী বাহনের ন্যায় পার হবেন। আবার কেউ দ্রুতগামী ঘোড়ার মতো পার হয়ে যাবেন। আল-কোরআনে ‘বারক’ শব্দটি পাঁচবার এসেছে।

(ক) সূরা বাকারাহ-এর ১৯ ও ২০ নং আয়াতে, (খ) সূরা রায়াদ-এর ১২ নং আয়াতে, (গ) সূরা রূম-এর ২৪ নং আয়াতে, (ঘ) সূরা নূর-এর ৪৩ নং আয়াতে। সুবহানাল্লাহ! বোরাকে আরোহনণকারী মোহাম্মাদ মোস্তাফা আহমাদ মুজতাবা (সা.)-এর সত্তাবাচক নাম ‘মোহাম্মদ’-এ পাঁচটি বর্ণই রয়েছে। এ নাম মোবারকের মর্যাদার প্রতি লক্ষ্য রেখেই হয়ত আল্লাহ রাব্বুল ইজ্জত ‘বারক; শব্দটি আল কোরআনে পাঁচ বার উল্লেখ করেছেন। এরই প্রতি ইঙ্গিত প্রদান করে সূরা ইনশিরাহে স্পষ্টতঃ ঘোষণা করা হয়েছে : ‘আমি আপনার যিকিরকে সমুন্নত মর্যাদায় অধিষ্ঠিত করেছি’।

বোরাকের আকার-আকৃতি ও গতি প্রকৃতি সম্পর্কে বিজ্ঞ পন্ডিতগণের মধ্যে মতপার্থক্য পরিলক্ষিত হয়। আসলে ইহা কী? বিশুদ্ধ ও সর্বজন গ্রাহ্য মতানুসারে বলা হয়েছে যে, ‘বুরাক’ হলো একটি প্রাণী যা আকারে খচ্চর হতে ছোট। গাধা হতে বড়। শ্বেত রঙের প্রাণী। ইহা এতই দ্রুতগামী যে, তার কদম সেখানেই পড়ে যেখানে তার দৃষ্টি পতিত হয়। একারণে প্রসদ্ধি লাভ করেছে যে, ‘বুরাক আকাশ হতে যমীন পর্যন্ত যে দূরত্ব তা’ মাত্র এক কদমেই অতিক্রম করতে পারে। সুতরাং মী’রাজের প্রাক্কালে বুরাক সাত কদমে সাত আসমান অতিক্রম করেছিল।
কোনো কোনো আলেম ব্যক্তিত্ব বলেন, বুরাক কোনো প্রাণী নয়। প্রথমে তা ছিল অস্তিত্বহীন। শুধুমাত্র মী’রাজ রজনীতেই তা’ অস্তিত্বে আনয়ন করা হয়েছিল। যাতে করে রাসূলুল্লাহ (সা.)-এর মর্যাদাকে বুলন্দ হতে বুলন্দতর করা যায়। ইমাম সুহায়লী (রহ:) বলেন, পিয়ারা নবী মোহাম্মাদুর রাসূলুল্লাহ (সা.) যখন বুরাকে আরোহণ করছিলেন, তখন বুরাক লজ্জায় নড়াচড়া করছিল। তখন জিব্রাঈল (আ.) বুরাককে ডাক দিয়ে বলেছিলেন : ‘হে বুরাক! তুমি এমনভাবে লজ্জাবোধ করছ কেন? আল্লাহ জাল্লা শানুহুর নিকট মুহাম্মাদ মোস্তাফা আহমাদ মুজতাবা (সা.)-এর চাইতে অধিক কোনো মর্যাদাশীল ব্যক্তি আছেন কী? যিনি তোমার ওপর আরোহণ করবেন? এতে ‘বুরাক’ শান্ত ও আজ্ঞাবহ হয়ে গেল।

তবে, বুরাকের সাদৃশ্য বুঝাতে গিয়ে বলা হয়েছে যে, বুরাক হলো এমন প্রাণী যা খচ্চর হতে ছোট, গাধা হতে বড়। এতে স্পষ্টতঃই বুঝা যায় যে, বুরাক খচ্চরও না, গাধাও না। বরং এতদুভয়ের মধ্যবর্তী আকারের একটি প্রাণী যা মীরাজের ঘটনার সাথেই সংশ্লিষ্ট। অন্য কোনো নবী ও রাসূলের সাথে এর কোনো সংশ্লিষ্টতা কল্পনা করা বাতুলতা মাত্র। কারণ, অন্যান্য নবী ও রাসূলগণের জীবনে মীরাজের মতো ঘটনার অবতারণা ঘটেছিল বলে জানা যায় না।

হাদীস শরীফে উক্ত হয়েছে যে, পিয়ারা নবী মোহাম্মাদুর রাসূলুল্লাহ (সা.) মী’রাজের বর্ণনা দিতে গিয়ে বলেছেন : ‘উরিজাবী’ অর্থাৎ আমাকে ঊর্ধ্বমন্ডলে উপনীত করা হলো। লক্ষ করলে দেখা যায় যে, মীরাজ ঘটনাটির এই বিবরণেও পাঁচটি বর্ণই স্থান পেয়েছে। আর এ জন্যই মীরাজের ঘটনাটির আদ্যোপান্ত পাঁচটি স্তরেই আল কোরআন ও আহাদিসে সহীহায় বিবৃত করা হয়েছে। শুধু তাই নয়, আরবি মী’রাজ শব্দেও পাঁচটি বর্ণের সমাহার লক্ষ্য করা যায়। আর এই মীরাজ রজনীতেই পাঁচ ওয়াক্ত নামাজ ফরজ করা হয়েছিল। যা অন্য কোনো নবী ও রাসূলের আমলে ফরজ করা হয়নি। এতে অতি সহজেই অনুভব করা যায় যে, মীরাজ সংঘটনের জন্য যে বুরাকের প্রয়োজন ছিল, তাকে প্রকৃতই ‘বুরাক’ বলে মেনে নেয়া সকল বুদ্ধিমানেরই উচিত।


আরও খবর

গৌতম বুদ্ধের জন্মদিন আজ

রবিবার ১৫ মে ২০২২

হজের নিবন্ধন শুরু সোমবার

শুক্রবার ১৩ মে ২০২২




নোয়াখালীতে সরকারি চালসহ গ্রেফতার ২

প্রকাশিত:শুক্রবার ১৩ মে ২০২২ | হালনাগাদ:সোমবার ১৬ মে ২০২২ | ৩৪জন দেখেছেন
Image

অনুপ সিংহ,নোয়াখালী প্রতিনিধিঃ

নোয়াখালীর কবিরহাটে ২০০ কেজি সরকারি চাল কালোবাজারে বিক্রির করতে নেওয়ার সময় হাতে নাতে আটক করেছে স্থানীয় বাসিন্দারা। এ ঘটনায় পুলিশ অভিযুক্ত ২জনকে গ্রেফতার করেছে।  

গ্রেফতারকৃতরা হলো উপজেলার কাছারিরহাট বাজার এলাকার খাদ্যবান্ধব কর্মসূচির পরিবেশক মো. হাফিজ উল্যাহ (৩২) ও চাল বহনকারী রিকশা চালক দেলোয়ার হোসেন (৩৮)।

শুক্রবার (১৩ মে) সকালে গ্রেফতারকৃত দুই আসামিকে নোয়াখালী চীফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে সোপর্দ করা হবে। এর আগে গতকাল  বৃহস্পতিবার ১২ মে সকাল সাড়ে ছয়টার দিকে উপজেলার কাছারিরহাট এলাকা থেকে ওই চাল জব্দ করা হয়।  

বিষয়টি নিশ্চিত করেন কবিরহাট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রফিকুল ইসলাম। তিনি আরো জানান, সরকারি চাল পাচারের চেষ্টার অভিযোগে কবিরহাট উপজেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক মো. সালাউদ্দিন বৃহস্পতিবার বিকেলে মামলা করেছেন। ওই মামলায় কাছারিরহাট খাদ্যবান্ধব কর্মসূচির পরিবেশক মো. হাফিজ উল্যাহ (৩২) ও চাল বহনকারী রিকশার চালক দেলোয়ার হোসেনকে আসামি করা হয়েছে।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়,বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে ছয়টার দিকে কবিরহাট উপজেলার কাছারিরহাট বাজারে খাদ্যবান্ধব কর্মসূচির পরিবেশক হাফিজ উল্যাহর দোকান থেকে চার বস্তা চাল রিকশায় নিয়ে যাওয়ার পথে স্থানীয়রা রিকশা চালককে আটক করে।  এরপর রিকশাচালক দেলোয়ার কে জিজ্ঞাসা করলে তিনি জানান কাছারিরহাট বাজারের পরিবেশক হাফিজ উল্যাহর দোকান থেকে চালগুলো পাশের ইলিয়াস নামের এক ব্যক্তির বাড়িতে নিয়ে যাচ্ছেন। এ সময় স্থানীয় লোকজন চালের বস্তাগুলোসহ রিকশাচালককে আটক করে থানায় খবর দেন। খবর পেয়ে রিকশাচালক ও চাল জব্দ করে থানায় নিয়ে আসে পুলিশ।

উপজেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক মো. সালাউদ্দিন বলেন, জব্দ করা চালগুলো সরকারি খাদ্যবান্ধব কর্মসূচির চাল বলে প্রাথমিক তদন্তে সত্যতা পাওয়া গেছে।  চালগুলো ডিলারের দোকান থেকে অন্য জায়গায় নেওয়া হচ্ছে।

ওসি জানায়, এ ঘটনায় উপজেলা খাদ্য বিভাগের পক্ষ থেকে থানায় মামলা হয়েছে। শুক্রবার সকালে গ্রেফতারকৃত আসামিদের ওই মামলায় বিচারিক আদালেতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হবে।


আরও খবর



টাঙ্গাইলে পাঁচ হাজর পিস ইয়াবা সহ মাদক কারবারি গ্রেপ্তার

প্রকাশিত:শনিবার ৩০ এপ্রিল ২০২২ | হালনাগাদ:শনিবার ১৪ মে ২০২২ | ৭৪জন দেখেছেন
Image

মোঃ সিরাজ আল মাসুদ, টাঙ্গাইলঃ

টাঙ্গাইলে পাঁচ হাজার পিস ইয়াবাসহ এক মাদক কারবারিকে গ্রেপ্তার করেছে জেলা পুলিশের গোয়েন্দা শাখা (ডিবি-উত্তর)।

গ্রেপ্তারকৃত মাদক কারবারি  মুন্সিগঞ্জ জেলার লৌহজং উপজেলার কাজীপাড়ার আ. ছালাম দেওয়ানের ছেলে মো. রানা আহম্মেদ (৩৮)।

শুক্রবার (২৯ এপ্রিল) দুপুর ১টার দিকে টাঙ্গাইল পৌরসভার পূর্ব আদালত পাড়া এলাকা থেকে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়।

এসময় তার কাছে থাকা  করে পাঁচ হাজার পিস ইয়াবা উদ্ধার করা হয়।

পরে গ্রেপ্তারকৃত মাদক কারবারির বিরুদ্ধে টাঙ্গাইল সদর থানায় একটি মাদক মামলা দায়ের করা হয়েছে।

টাঙ্গাইল জেলা গোয়েন্দা শাখা (ডিবি-উত্তর) এর অফিসার ইনচার্জ মো. হেলাল উদ্দিন ঘটনার সত্যতা স্বীকার করেছেন।


আরও খবর



ইসলামাবাদে তারেক হত্যার খুনীদের গ্রেফতারের দাবীতে মানববন্ধন

প্রকাশিত:শুক্রবার ২২ এপ্রিল 20২২ | হালনাগাদ:সোমবার ১৬ মে ২০২২ | ৮২জন দেখেছেন
Image

ষ্টাফ রিপোর্টার,ঈদগাঁও  

কক্সবাজারের নবঘোষিত ঈদগাঁও উপজেলার ইসলামাবাদে দোকানদার তারেক হত্যার প্রতি বাদে এক বিশাল মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়েছে। 

২২ এপ্রিল বাদে জুমা চট্রগ্রাম-কক্সবাজার মহাসড়কের ইসলামাবাদ ইউনিয়নের ওয়াহেদের পাড়াবাসীর উদ্যোগে মরহুম ছগির আহমদের পূত্র মোহাম্মদ তারেক হত্যার প্রতিবাদে খুনীদের গ্রেফতার ও ফাঁসির দাবীতে দীর্ঘলাইন মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে।  মানববন্ধনে ওয়াহেদের পাড়া থেকে আউলিয়াদ পযন্ত বিপুল সংখ্যক লোকজনের সমাগম ঘটে। 

স্থানীয় মেম্বার আবদু শুক্কুরের সভাপতিত্বে ছাত্রনেতা জাহেদের পরিচালনায় বক্তব্য রাখেন, মুরব্বী এজাহার মিয়া,জসিম উদ্দিন, মাষ্টার আবদুল করিম, মেস্বার ও উপজেলা শ্রমিকলীগের আহবায়ক আবু বক্কর ছিদ্দিক বান্ডি,ঈদগাঁও উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি আবু হেনা বিশাদ, ওয়ার্ড় আ,লীগের সাধারণ সম্পাদক হুমায়ুন কবির,ড্রাইভার নুরুল আজিম,মোবারক,মিজান, আবদুল আজিজ সওদাগর,মসজিদের ইমাম ওসমান গনি, যুবনেতা করিম, সাদ্দাম হোসেন,আনচারুল করিম। এই মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সমাবেশে সর্বস্তরের লোকজন অংশ নেন। 

প্রতিবাদ সমাবেশে বক্তারা তারেক হত্যার খুনী দের দ্রুত গ্রেফতার পূর্বক দৃষ্টান্তমুলক শাস্থির দাবী জানান। 

উল্লেখ্য,বিগত ১১ এপ্রিল ইসলামাবাদের ঢালার দোয়ার নামক স্থানে নিজ ব্যবসায়ীক প্রতিষ্ঠানে  ছুরিকাঘাতে খুন করা হয় তারেক নামের এক তরুনকে।


আরও খবর



সিরাজগঞ্জে ট্রেনে কাটা পড়ে এক ব্যক্তির মৃত্যু

প্রকাশিত:সোমবার ১৮ এপ্রিল ২০২২ | হালনাগাদ:রবিবার ১৫ মে ২০২২ | ৯৭জন দেখেছেন
Image
অদিত্য রাসেলঃ সিরাজগঞ্জ-ঢাকা রেলপথের জামতৈল রেলওয়ে স্টেশনের পাশে ট্রেনে কাটা পড়ে আব্দুল হাকিম (৫৫) নামের এক ব্যক্তির মৃত্যু হয়েছে।
 
সোমবার (১৮ এপ্রিল) সকাল ১০ টার দিকে জামতৈল স্টেশন সংলগ্ন এলাকায় ধূমকেতু এক্সপ্রেসের চাপায় তার মৃত্যু হয়। নিহত মোহাম্মদ আবদুল হাকিম কামারখন্দ উপজেলার জয়েন বড়ধুল গ্রামের আকছেদ আলীর ছেলে।
 
সিরাজগঞ্জ জিআরপি থানার উপ-পরিদর্শক আমিরুল ইসলাম এতথ্য নিশ্চিত করে জানান, আব্দুল হাকিম নামের এক ব্যক্তি রেলপথ পার হচ্ছিলেন। এ সময় ঢাকা থেকে রাজশাহীগামী ধূমকেতু এক্সপ্রেসের নিচে পড়ে কাটা পড়ে। এতে ঘটনাস্থলেই তার মৃত্যু হয়।
 
তিনি আরও জানান, খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌছার আগেই নিহতের মরদেহটি স্বজনেরা নিয়ে যায়। মরদেহটি উদ্ধারের প্রক্রিয়া চলছে বলে তিনি জানান।



আরও খবর