Logo
শিরোনাম

রবীন্দ্র তীর্থস্থানে এক বিকেল

প্রকাশিত:বুধবার ১৯ এপ্রিল ২০২৩ | হালনাগাদ:শনিবার ১৩ এপ্রিল ২০২৪ |

Image

এম এইচ শিহাব, কলকাতা থেকে :পশ্চিমবঙ্গের কলকাতা শহরের কাছেই বিশ্ববাংলা মোড়। এখানে গড়ে তোলা হয়েছে রবীন্দ্র তীর্থস্থান। ২০১১ সালে পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি এর উদ্বোধন করেন।

বিশ্ববাংলা মোড়ে রবীন্দ্র তীর্থস্থানে গত শনিবার (১৫ এপ্রিল) বিকেলে ঢুঁ মেরেছিলাম। এদিন পশ্চিমবঙ্গসহ ভারতে পহেলা বৈশাখ পালিত হচ্ছিল। ইচ্ছে ছিল, কাছেই নজরুল তীর্থস্থানেও ঘুরে আসব। কিন্তু সময়ের কারণে ওইদিন আর সেই সুযোগ হয়নি।

কৌতূহলী মনোভাব নিয়েই রবীন্দ্র তীর্থস্থানে প্রবেশ। যদিও জানার সেই তৃষ্ণা অতৃপ্ত রয়ে গেছে নানা কারণে।

গেটের ভেতর টিকিট কাউন্টার। সেখান থেকে ২০ রুপি দিয়ে প্রবেশ টিকিট কিনলাম। ঢুকে হাতের ডান দিকে ফটো গ্যালারি ঘর। তীর্থস্থানের নিরাপত্তাকর্মী সেদিকে যাওয়ার জন্য পথ দেখিয়ে দিলেন। মৃদু সুরে রবীন্দ্রসংগীত বাজছে, তীর্থস্থান জুড়ে।

দুই কক্ষের ঘরটি। প্রথম কক্ষটিতে বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথের ব্যক্তিগত ও পারিবারিকসহ বিভিন্ন ধরনের ছবি এবং তার সংক্ষিপ্ত ইতিহাস শোভা পাচ্ছে। সেই সঙ্গে আছে রবীন্দ্রনাথের ব্যবহারের কিছু তৈজসপত্র।

একজন নারী নিরাপত্তাকর্মী ভেতরে বসে আছেন। সিসিটিভিতেও সার্বক্ষণিক মনিটরিং করা হচ্ছে শীততাপনিয়ন্ত্রিত কক্ষটি। এখানে ছবি তোলা নিষেধ। আমি ছাড়া আরো দুজন তরুণ-তরুণী একসঙ্গে এসেছেন। তারাও ঘুরে ঘুরে দেখছেন রবীন্দ্রনাথের ঐতিহাসিক সেই ছবি এবং জানার চেষ্টা করছেন তার সংক্ষিপ্ত ইতিহাস।

পাশের কক্ষটিতে শোভা পাচ্ছে রবীন্দ্রসংগীত শিল্পীদের ছবিসহ সংক্ষিপ্ত পরিচিতি, বিশ্বকবির আঁকা কিছু আলোকচিত্র ও তার হাতে লেখা কয়েকটি কবিতার বায়োগ্রাফি এবং কবির আরো কিছু ছবি। এখানে ছবি তোলার কোনো বিধিনিষেধ না থাকায় মোবাইলে দুটো ছবি নিলাম।

রবীন্দ্র ফটোগ্যালারি থেকে বের হয়ে ডান দিকের পথ ধরে সামনে একটু এগোতেই হাতের বামে লাল শাপলার একটি পুকুর, যার মাঝখানে শোভা পাচ্ছে বিশ্বকবির একটি বিশাল ভাস্কর্য। এর একটু সামনে এগিয়ে গেলে তীর্থস্থানে ঢোকার দ্বিতীয় প্রবেশপথ। সেখানে একটি ঘরের সামনে কবির স্মারক বিক্রির সাইনবোর্ড থাকলেও সেটি এখন ইলেকট্রিশিয়ানদের নিয়ন্ত্রণপক্ষ হিসেবে ব্যবহার হচ্ছে।

এরপর ধারাবাহিকভাবে রয়েছে বেশ কিছু ডরমেটরি। যেগুলো তালাবদ্ধ। আর লাল শাপলা পুকুরের পাশে একটি অডিটোরিয়াম রয়েছে। এর পাশে আছে একটি মিলি সিনেমা হল। কিন্তু সবগুলোই তালাবদ্ধ। দর্শনার্থীও আর চোখে পড়েনি।

স্মারক বিক্রি কক্ষের সামনে কথা হয় ইলেকট্রিশিয়ান আসাদুলের সঙ্গে (৩৮)। তিনি জানান, ২০১১ সালে এটি উদ্বোধন হওয়ার পর থেকে সাড়ে ১১ বছর ধরে এখানে চাকরি করছেন তিনি। আসাদুল বলেন, উদ্বোধনের সময় কক্ষটি বই বিক্রির জন্য করা হলেও পরে তা বন্ধ হয়ে যায়। এখন আর এখানে রবীন্দ্রনাথের কোনো বই কিনতে পাওয়া যায় না।

আসাদুল আরো জানান, ডরমেটরিগুলো প্রতিদিন আড়াই লাখ রুপিতে ভাড়া হয়। বিভিন্ন সংগঠন এগুলো ভাড়া নিয়ে অনুষ্ঠান করে এবং লোকজন থাকে। অন্য সময় এগুলো তালাবদ্ধ থাকে। দর্শনার্থী খুব একটা আসে না।

নিজের প্রসঙ্গে আসাদুল জানান, দুই মেয়েসহ চারজনের সংসার। কাছেই লস্কর আটি গ্রামের পাশের গ্রামে তার বাড়ি। চুক্তিভিত্তিক এই চাকরিতে মাসে ১১ হাজার টাকা মাইনে (বেতন) পান। তা দিয়ে চলে চারজনের সংসার। তার বড় মেয়ে স্কুলে যায়। বেসরকারি স্কুলে দ্বিতীয় শ্রেণিতে পড়ে। ভারতের সরকারি স্কুলগুলোতে দুপুরে শিক্ষার্থীদের জন্য বিনা মূল্যে খাবারের ব্যবস্থা থাকলেও বেসরকারি স্কুলে শিক্ষার্থীরা খাবার পায় না।

আসাদুলের বক্তব্য অনুযায়ী, সরকারি স্কুলগুলোর চেয়ে বেসরকারিতে পড়ালেখার মান ভালো। তাই দুপুরে খাবার না থাকলেও মেয়েকে বেসরকারি স্কুলে ভর্তি করেছেন। তবে বছর শেষে কেন্দ্রীয় সরকারের দেওয়া শিক্ষাবৃত্তি বাংলাদেশের মতো সবাই পায়।

 


আরও খবর

একজন শুভ্রদেব ও একুশে পদক প্রাপ্তি

মঙ্গলবার ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪




মাভাবিপ্রবিতে মহান স্বাধীনতা দিবস পালিত

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ২৬ মার্চ ২০২৪ | হালনাগাদ:শুক্রবার ১২ এপ্রিল ২০২৪ |

Image

মো: হ্নদয় হোসাইন মাভাবিপ্রবি প্রতিনিধি :

টাঙ্গাইলের মাওলানা ভাসানী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে মহান স্বাধীনতা দিবস (২০২৪) উপলক্ষে বিভিন্ন কর্মসূচি  পালন করা হয়েছে। 

আজ ২৬ মার্চ ২০২৪, সূর্যোদয়ের সাথে সাথে প্রশাসনিক ভবনের সামনে ভাইস-চ্যান্সলর প্রফেসর ড. মোঃ ফরহাদ হোসেন, প্রো ভাইস-চ্যান্সেলর প্রফেসর ড. এ আর এম সোলাইমান ও কোষাধ্যক্ষ প্রফেসর ড. মো. সিরাজুল ইসলামকে নিয়ে  জাতীয় পতাকা ও বিশ্ববিদ্যালয় পতাকা উত্তোলনের মধ্য দিয়ে দিবসের কর্মসূচি শুরু করেন । এর পর বিশ্বিবদ্যালয়ের পক্ষ থেকে  ক্যাম্পাসস্থ মুক্তিযুদ্ধ ও স্বাধীনতা ভাষ্কর্য পত্যয়'৭১ ও বঙ্গবন্ধু ম্যুরালে পুষ্পস্তবক অর্পণ করা হয়। 

এছাড়াও অফিসার্স অ্যাসোয়েশন, তৃতীয় ও চতুর্থ শ্রেণী কর্মচারি সমিতি, বঙ্গবন্ধু শিক্ষক পরিষদ, ভাসানী পরিষদ, বাংলাদেশ ছাত্রলীগ, বাঁধন এবং বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসস্থ বিভিন্ন সংগঠনের পক্ষ থেকেও  প্রত্যয়'৭১ এর পাদদেশে পুষ্পস্তবক অর্পণ করা হয়। এর পর বিশ্বিবদ্যালয়ের ভাইস-চ্যান্সেলর অফিসার্স অ্যাসোসিয়েশনের ওয়েবসাইট উদ্বোধন করেন।  

এছাড়া বাদ যোহর বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় মসজিদে শহীদ মুক্তিযোদ্ধাদের আত্মার মাগফিরাত কামনা করে মিলাদ ও  দোয়া মাহফিল ও এবং ক্যাম্পাসস্থ মন্দিরে প্রার্থনার আয়োজন করা হয়।  সকল কর্মসূচিতে বিভিন্ন অনুষদের ডিন, রেজিস্ট্রার, চেয়ারম্যান, হল প্রভোস্টসহ বিভিন্ন অফিস প্রধান,  শিক্ষক-শিক্ষার্থী,  ও কর্মকর্তা-কর্মচারিবৃন্দ অংশগ্রহন করেন।


আরও খবর



চাকরি পেলেন ১৮১ তরুণ-তরুণী, প্রশংসায় ভাসছেন নওগাঁর ডিসি ও এসপি

প্রকাশিত:শনিবার ২৩ মার্চ ২০২৪ | হালনাগাদ:শনিবার ১৩ এপ্রিল ২০২৪ |

Image

শহিদুল ইসলাম জি এম মিঠন, সিনিয়র রিপোর্টার :

সরকারি চাকরি নামক সোনার হরিণ পেতে গেলে গুনতে হবে লাখ লাখ টাকা।এছাড়া লাগবে সরকারি গুরুত্বপূর্ণ পদে কর্মরত মামা-খালু বা আত্মীয়-স্বজনের সুপারিশ। সহায় সম্বল বিক্রি কিংবা সংসারের জমানো অর্থ দিয়ে কর্তা ব্যক্তিদের করতে হবে ম্যানেজ। কিন্তু এবার নওগাঁর লোকজনের মন থেকে পাল্টেছে এমন সব ধারনা। সম্প্রতি মেধা ও যোগ্যতার ভিত্তিতে নওগাঁ জেলার রাজস্ব প্রশাসনে ১শ' ১৬ জন এবং পুলিশ কনস্টেবল পদে নিয়োগ পেয়েছেন ৬৫ জন তরুণ ও তরুণী। কাজে আসেনি কোনোই যোগাযোগ বা কারো তদবির। হয়নি অর্থের লেনদেনও। আরো স্বচ্ছতার সাথে এসব নিয়োগ প্রক্রিয়া সম্পন্ন করে নওগাঁ জেলা জুড়ে প্রশংসায় ভাসছেন নওগাঁর জেলা প্রশাসক গোলাম মওলা এবং নওগাঁ জেলা পুলিশ সুপার মুহাম্মদ রাশিদুল হক। নিয়োগে সুপারিশ প্রাপ্ত হয়েছেন অনেক দরিদ্র পরিবারের স্বপ্নবাজ ছেলে-মেয়েরা। এসব নিয়োগে এমনিতেই নানা অনিয়মের খবর মুখরোচক হিসেবে সমাজে প্রচলিত রয়েছে। তবে স্বচ্ছতার সাথে নিয়োগ হবে তা ছিলো কল্পনাতীত।

নওগাঁ জেলা প্রশাসনের তথ্যমতে, জেলার রাজস্ব প্রশাসনে ১৫ ও ১৬ তম গ্রেডে ৯টি ক্যাটাগরিতে ড্রাফটসম্যান, নাজির কাম-ক্যাশিয়ার, অফিস সহকারী কাম কম্পিউটার মুদ্রাক্ষরিক, সার্টিফিকেট পেশকার, সার্টিফিকেট সহকারী, ক্রেডিট চেকিং কাম সায়রাত সহকারী, মিউটেশন কাম সার্টিফিকেট সহকারী, ট্রেসার ও কার্যসহকারী পদে মোট ৩৭টি শূণ্য পদে বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করে কর্তৃপক্ষ। এতে ৬ হাজার ৭শ' ৭২ জন চাকরি প্রার্থী আবেদন করেন। এরমধ্যে লিখিত পরীক্ষায় ৩ হাজার ৪২ জন অংশ গ্রহণ করে বিভিন্ন ক্যাটাগরিতে উত্তীর্ণ হন ১শ' ৬ জন।

এরপর ব্যবহারিক পরীক্ষা শেষে গত ১২ ও ১৩ মার্চ রাজশাহী বিভাগীয় কমিশনারের কার্যালয়ে মৌখিক পরীক্ষায় চূড়ান্তভাবে মোট ৩৩ জনকে সাতটি ক্যাটাগরিতে নিয়োগের জন্য সুপারিশ করা হয়। সরকারি নিয়ম-নীতি মেনে দ্রুত সুপারিশ প্রাপ্তদের পদায়ন করা হবে। এতে ট্রেসার ও কার্যসহকারী পদে যোগ্য প্রার্থী না থাকায় ৩টি পদে কাউকে সুপারিশ করা হয়নি। এছাড়াও ২০ তম গ্রেডে তিনটি ক্যাটাগরিতে অফিস সহায়ক, নিরাপত্তা প্রহরী ও পরিচ্ছন্নতাকর্মীর মোট ৮৩টি পদে লিখিত ও মৌখিক পরীক্ষা শেষে নিয়োগের জন্য ৮৩ জনকে চূড়ান্তভাবে সুপারিশ করে সংশ্লিষ্টরা। সুপারিশ প্রাপ্ত ব্যক্তিদের সম্প্রতি জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের সংশ্লিষ্ট শাখা, উপজেলা ভূমি অফিস ও ইউনিয়ন ভূমি অফিসে পদায়ন করা হয়েছে। এদিকে, জেলার রাজস্ব প্রশাসনে নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশের পর গত ৫ ফেব্রূয়ারি জেলা প্রশাসনের ভেরিফাইড ফেসবুক পেজে শতভাগ স্বচ্ছতার সাথে মেধার ভিত্তিতে নিয়োগ প্রক্রিয়া সম্পন্ন করার বিষয়ে পোস্ট করেন নওগাঁ জেলা প্রশাসক। মুহূর্তের মধ্যেই পোস্টটি সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ভাইরাল হয়। সেখানে মন্তব্যের ঘরে জেলা প্রশাসনের প্রশংসায় মেতে ওঠেন অনেকেই। স্বচ্ছতার ভিত্তিতে নিয়োগের এ ধারা অব্যাহত রাখার প্রত্যাশা নওগাঁবাসির। অপরদিকে, নওগাঁর পুলিশ সুপারের কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, গত ১৬ ফেব্রুয়ারি থেকে শুরু হওয়া পুলিশ কনস্টেবল নিয়োগ প্রক্রিয়ায় অংশ নেয় দু' হাজার ২শ' ৩১ জন প্রার্থী। প্রথম ধাপে শারীরিক, দ্বিতীয় ধাপে দৌঁড়, পুশআপ, লং ও হাই জাম্প এবং তৃতীয় ধাপে দৌঁড়, ড্রাগিং ও রোপ ক্লাইম্বিং পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়। এতে উর্ত্তীন হন ৫শ' ৪৫। গত ৬ মার্চ চর্তুথ ধাপে লিখিত পরীক্ষায় ২শ' ২০ জন উর্ত্তীণ হয়। যেখানে চূড়ান্ত ভাবে মৌখিক পরীক্ষায় ৬৫ জন নিয়োগের জন্য সুপারিশ প্রাপ্ত হয়।


নওগাঁ সদর উপজেলার হাঁপানিয়া ইউনিয়নের চকতাতারু গ্রামের চা বিক্রেতার মেয়ে শ্রাবন্তী বানু তার অনুভূতি ব্যক্ত করে সাংবাদিকদের বলেন, ছোট থেকেই স্বপ্ন ছিলো পুলিশে চাকরি করার। বান্ধবিদের কথায় পুলিশের নিয়োগে ১২০ টাকা খরচ করে আবেদন করেছিলাম। যে দোকান থেকে আবেদন করেছিলাম, অনেকেই বলেছিল এসব নিয়োগে অনেক টাকা লাগে। এতে মন ভেঙে পড়েছিল। কিন্তু তারপরও মনোবল হারাইনি। অবশেষে সব পরীক্ষায় সফলতার সাথে উর্ত্তীণ হয়ে চূড়ান্ত সুপারিশ প্রাপ্ত হয়েছি। না কারো সুপারিশের দরকার হয়েছে, না কোনো টাকা লেগেছে। শ্রাবন্তীর মতো অনেক দরিদ্র পরিবারের স্বপ্নবাজ ছেলে-মেয়ের নাম পুলিশ ও জেলার রাজস্ব প্রশাসনে নিয়োগ প্রক্রিয়ার চূড়ান্ত তালিকায় স্থান পেয়েছে। যারা আসলে কল্পনা করতে পারেনি এতো সহজে নিয়োগ হবে। সরকারি নিয়োগে এমনিতেই নানা অনিয়মের খবর মুখরোচক হিসেবে সমাজে প্রচলিত রয়েছে। তবে স্বচ্ছতার সাথে নিয়োগ হবে তা ছিলো কল্পনাতীত। অনেকের কাছে এ নিয়োগ প্রক্রিয়া স্বপ্নের মতো।

পুলিশ সুপার মুহাম্মদ রাশিদুল হক বলেন, নিয়োগে কিছু কিছু বিতর্ক থাকায় অনেক বড় চ্যালেঞ্জিং ছিল। যারা নিয়োগ পেয়েছেন তারা সবাই নিজেদের যোগ্যতা ও মেধায় উত্তীর্ণ হয়েছে। সে জায়গা থেকে স্বচ্ছতার সহিত আমরা নিয়োগ প্রক্রিয়া সম্পন্ন করতে পেরেছি। এখানে কোনো যোগাযোগ ও অর্থের লেনদেন হয়নি। জানতে চাইলে নওগাঁর জেলা প্রশাসক গোলাম মওলা বলেন, নিয়োগের বিজ্ঞপ্তি দেয়ার পর থেকেই আমি প্রচার করেছি, শতভাগ স্বচ্ছতার সাথে নিয়োগ দেওয়া হবে। কেউ যেনো প্রতারণার শিকার না হয়। অযথা তদবিরের পেছনে না ছুটে, সবাইকে লেখাপড়া করার পরামর্শ দিয়েছিলাম। আমি আমার কথা রেখেছি। কোনো অনিয়ম হতে দেইনি। কারও তদবির শুনিনাই। শতভাগ মেধার ভিত্তিতে নিয়োগ দেওয়া হয়েছে। সামনে আরও একটা নিয়োগ আছে। সেটাও একইভাবে শতভাগ মেধার ভিত্তিতে দেওয়া হবে বলে ও নিশ্চিত করেন তিনি।


আরও খবর



মোরেলগঞ্জে প্রকাশ্যে ফিল্মি স্টাইলে গৃহিনীকে রাস্তায় ফেলে মারপিট: ইমাম আটক

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ২৮ মার্চ ২০২৪ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ১১ এপ্রিল ২০২৪ |

Image

এম.পলাশ শরীফ,নিজস্ব প্রতিবেদক:

বাগেরহাটের মোরেলগঞ্জের পঞ্চকরনে গৃহিনীকে (৫০) প্রকাশ্যে ফিল্মি স্টাইলে রাস্তায় ফেলে মারধরের ঘটনায় আবুল

আইচ(৫৫) নামে এক ইমামকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। মোরেলগঞ্জ থানার মামলা নং ২৩, তারিখ-২৮.৩.২০২৪।

কুমারিয়াজোলা গ্রামের সবুর শেখের ছেলে আবুলাইচ শেখ মহিশচরণী আফতাব আলী খানের বাড়ির জামে মসজিদের ঈমাম ও মহিষচরণী জেন্নাতিয়া হাফেজিয়া মাদরাসার শিক্ষক। বৃহস্পতিবার ভোর ৬ টার দিকে পুলিশ তাকে গ্রেফতার করে।

  এর আগে, বুধবার বিকেলে মেয়ের বিয়ে ভেঙ্গে দেওয়ার অভিযোগে ঈমাম আবুল আইচ তার প্রতিবেশি ওই নারীকে পঞ্চকরন ইউনিয়নের কুমারিয়াজোলা গ্রামের পাঁচগাও বাজার ব্রীজ সংলগ্ন এলাকায় লোকজনের সামনেই ঘাড় ধাক্কা দিয়ে রাস্তায় ফেলে স্বজোরে খাড়া লাথি দিয়ে গুরুতর আহত করে।

তাৎক্ষনিক ঘটনাটি নিকটস্থ ফাড়ি পুলিশকে জানিয়েছেন এবং আহত ওই নারীকে চিকিৎসার জন্য ওই গৃহিনীকে বাগেরহাট সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। ঘটনাটি গোপনে স্থানীয় এক যুবক মোবাইলে ধারণ করলে পরে সেটি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ছড়িয়ে গেলে পুলিশ তাকে গ্রেফতার করে।

বিজলী আক্তার নিজেকে মুক্তিযোদ্ধা সন্তান দাবী করে বলেন, অপরাধে প্রকাশ্যে ঘাড়ধরে ধাক্কা  মেরে রাস্তায় ফেলে আমার মাথায়, চোখে ও শরীরের বিভিন্ন স্থানে লাঠি দিয়ে বেধড়ক মারপিট করে। লাথি মেরে তলপেটে গুরুতর আঘাতে রক্তাক্ত জখম করে। আমি একজন মুক্তিযোদ্ধার সন্তান হিসেবে প্রশাসনের কাছে আমার ওপরে এ হামলাকারীদের গ্রেফতার পূর্বক দৃষ্টান্তমূলক বিচার চাই।

 এ বিষয়ে পঞ্চকরন ইউপি চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুর রাজ্জাক মজুমদার বলেন, বিজলি একজন মুক্তিযোদ্ধার সন্তান, তার ওপরে এ ধরনের হামলার ঘটনা দূঃখজনক। হামলাকারীদের আইনের আওতায় দৃষ্টান্তমূলক বিচারের দাবী করেন তিনি।

এ বিষয়ে  মোরেলগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোহাম্মদ সামসুদ্দীন বলেন, মধ্য বয়সী এক নারীকে প্রকাশ্যে মারধরের ঘটনায় মামলা দায়ের হয়েছে। একমাত্র আসামি আবুল আইচকে গ্রেফতার করা হয়েছে।


আরও খবর



মে মাসে গাজায় দুর্ভিক্ষের আশঙ্কা

প্রকাশিত:সোমবার ১৮ মার্চ ২০২৪ | হালনাগাদ:শুক্রবার ১২ এপ্রিল ২০২৪ |

Image

গাজায় ইসরায়েলি আগ্রাসন শুরুর পর অবরুদ্ধ উপত্যকার বেশিরভাগ মানুষ বাস্তুচ্যুত হয়েছেন। গাজার উত্তরাঞ্চলে চলমান সংঘাতের মধ্যে আটকা পড়েছেন প্রায় ৩ লাখ মানুষ। জাতিসংঘ সমর্থিত এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, গাজা উপত্যকার উত্তরে মে মাসের মধ্যে দুর্ভিক্ষ শুরু হতে পারে।

সোমবার (১৮ মার্চ) ইন্টিগ্রেটেড ফুড সিকিউরিটি ফেজ ক্লাসিফিকিশেন (আইপিসি) এক প্রতিবেদনে এই আশঙ্কার কথা জানিয়েছে। ব্রিটিশ বার্তা সংস্থা রয়টার্স এ খবর জানিয়েছে।

আইপিসির প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, গাজা উপত্যকাজুড়ে অনাহারে থাকা মানুষের সংখ্যা বেড়ে ১১ লাখ হয়েছে। যা গাজার মোট জনসংখ্যার অর্ধেক।

প্রতিবেদনে আরও বলা হয়েছে, উত্তর গাজায় দুর্ভিক্ষ আসন্ন বলে পূর্বাভাস রয়েছে। মার্চ থেকে মে মাসের মধ্যে এই দুর্ভিক্ষ পরিস্থিতি দেখা দিতে পারে।

এদিকে, গাজায় দুর্ভিক্ষ ঘনিয়ে আসার জন্য ইসরায়েলকে দায়ী করেছেন ইউরোপীয় ইউনিয়ন (ইইউ)-এর পররাষ্ট্রনীতি বিষয়ক প্রধান জোসেপ বোরেল। একইসঙ্গে তিনি দেশটির বিরুদ্ধে অনাহারকে যুদ্ধের অস্ত্র হিসেবে ব্যবহার করার অভিযোগ করেছেন। তবে এমন অভিযোগ অস্বীকার করেছেন ইসরায়েলি পররাষ্ট্রমন্ত্রী।

ব্রাসেলসে গাজায় মানবিক সহায়তা সংক্রান্ত একটি সম্মেলনের উদ্বোধনের সময় বোরেল বলেছিলেন, গাজায় আমরা আর দুর্ভিক্ষের দ্বারপ্রান্তে নেই। আমরা এখন দুর্ভিক্ষের মধ্যে রয়েছি যা হাজার হাজার মানুষকে প্রভাবিত করছে।

৭ অক্টোবর হামাস যোদ্ধারা ইসরায়েলের দক্ষিণাঞ্চলে হামলা চালালে গাজায় দীর্ঘ যুদ্ধের সূত্রপাত হয়। ইসরায়েলের পরিসংখ্যান অনুযায়ী, হামাসের ওইদিনের হামলায় প্রায় ১২০০ জন ইসরায়েলি নিহত হয়েছেন। এসময় আরও ২৫৩ জনকে জিম্মি করে গাজায় নিয়ে যায় সশস্ত্র যোদ্ধারা। ওই হামলার জবাবে গাজায় ওইদিনই পাল্টা হামলা শুরু করে ইসরায়েল।

গাজার স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের তথ্য অনুসারে, ইসরায়েলি আগ্রাসনে এ পর্যন্ত অন্তত ৩১ হাজার ৭২৬ জন নিহত হয়েছে। আহত হয়েছেন আরও অন্তত ৭৩ হাজার ৬৭৬ জন।

 


আরও খবর



ঘরমুখী মানুষের চাপ বেড়েছে কমলাপুরে

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ০৯ এপ্রিল ২০২৪ | হালনাগাদ:শুক্রবার ১২ এপ্রিল ২০২৪ |

Image

পবিত্র ঈদুল ফিতর উপলক্ষে ফাঁকা হচ্ছে ঢাকা। নাড়ির টানে বাড়ির পথে মানুষ। এতে বাস, লঞ্চ টার্মিনালের মতো কমলাপুর রেলস্টেশনেও বেড়েছে চাপ। এদিকে শেষ মুহূর্তের দিন ট্রেন যাত্রায় ভেঙে পড়েছে রেলের নিয়মশৃঙ্খলা। ঈদে ঘরমুখো যাত্রীদের সামাল দিতে হিমশিম খাচ্ছে কমলাপুর রেলওয়ে স্টেশন কর্তৃপক্ষ। মঙ্গলবার (৯ এপ্রিল) ভোর থেকেই রাজধানীর কমলাপুর রেলস্টেশন থেকে ছাদ ভর্তি যাত্রী নিয়েই রওয়ানা করছে ট্রেন।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা গেছে, ঈদে বাড়ি ফেরার তাগিদে সকাল থেকে স্টেশন ভিড় করছেন যাত্রীরা। অনেকের ট্রেনের সময় হয়নি কিন্তু আগেই চলে এসেছেন। অনেকে টিকিট পাননি কিন্তু এসেছেন, কোনোভাবে যাওয়া যায় কিনা। টিকিট কাউন্টারের সামনেও কিছু লোকের জটলা চোখে পড়েছে। প্ল্যাটফর্মে তো মানুষে মানুষে ভরপুর।

এছাড়া ভোর থেকে কমলাপুর থেকে ছেড়ে যাওয়া ময়মনসিংহ-জামালপুর আর উত্তরবঙ্গের সব ট্রেনেই ছিল উপচে পড়া ভিড়। ট্রেনের ভেতর গাদাগাদি করেই উঠছে ঘরে ফেরা মানুষেরা। বাড়ি ফিরতে মরিয়া যাত্রীরা ট্রেনের সিট না পেয়ে উঠেছেন ছাদে। তীব্র গরমেও ভোগান্তি বেড়েছে কয়েকগুন। তবে স্বস্তির খবর প্রতিটি ট্রেন কমলাপুর থেকে শিডিউল মেনে সঠিক সময়ে ছাড়ছে। ভোগান্তি থাকলেও যথাসময়ে ট্রেন যাত্রা করায় স্বস্তির কথা জানিয়েছে কেউ কেউ।

রংপুর এক্সপ্রেসের যাত্রী মারিয়া বলেন, নিদির্ষ্ট সময়ে ট্রেন পাওয়া ঈদের আগে যেন বাড়তি আনন্দ। সময়মতোই পরিবারের কাছে যেতে পারবো, এই ভেবে বাকি কষ্ট, কষ্টই মনে হচ্ছে না।

সুন্দরবন এক্সপ্রেসের যাত্রী আজাদ হোসেন বলেন, অনলাইনে টিকিট কাটায় কোন ভোগান্তি হয়নি। আর এখানে এসে মানুষের চাপের কারণে কিছুটা কষ্ট হচ্ছে। তবে এটি ঈদে স্বাভাবিক পরিস্থিতি। আমরা এতে অভ্যস্থ।

কমলাপুর স্টেশন ম্যানেজার মোহাম্মদ মাসুদ সারওয়ার বলেন, সকাল সাড়ে ৯টা পর্যন্ত ১৭টি ট্রেন দেশের বিভিন্ন গন্তব্যের উদ্দেশ্যে কমলাপুর ছেড়েছে। আজ সকাল থেকে যাত্রীদের চাপ বাড়লেও সবগুলো ট্রেন যথাসময়ে স্টেশন ছেড়ে গেছে। যাত্রী সাধারণের কোন অভিযোগ-আপত্তি নেই। দিনের বাকি সময়ও নিরাপদ যাত্রা হবে বলে আশা করছি।


আরও খবর