Logo
শিরোনাম

রেমিট্যান্স সংগ্রহ করবে ১০৮ টাকা দরে

প্রকাশিত:সোমবার ১২ সেপ্টেম্বর ২০২২ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ০৬ অক্টোবর ২০২২ |
Image

রোকসানা মনোয়ার : দেশের বাণিজ্যিক ব্যাংকগুলো এখন থেকে প্রতি ডলার সর্বোচ্চ ১০৮ টাকা হিসেবে প্রবাসী আয় সংগ্রহ করবে। রফতানি বিল নগদায়ন হবে প্রতি ডলার ৯৯ টাকায়। অর্থাৎ রেমিট্যান্স আহরণ ও রফতানি বিল নগদায়নে ব্যাংকগুলোর গড় খরচ হবে ১০৩ টাকা ৫০ পয়সা। এর সঙ্গে এক টাকা যোগ করে আমদানিকারকের কাছে ডলার বিক্রি করবে ব্যাংকগুলো। এর ফলে এলসি সেটেলমেন্টের জন্য ডলার বিক্রি হবে ১০৪ টাকা ৫০ পয়সায়। 

সোনালী ব্যাংকের বোর্ড রুমে অ্যাসোসিয়েশন অব ব্যাংকার্স বাংলাদেশ (এবিবি) এবং বাংলাদেশ ফরেন এক্সচেঞ্জ ডিলারস অ্যাসোসিয়েশনের (বাফেদা) বৈঠকে এমন সিদ্ধান্ত হয়। সোমবার (১২ সেপ্টেম্বর) থেকে এ সিদ্ধান্ত বাস্তবায়ন হবে।

বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন বাফেদার চেয়ারম্যান এবং সোনালী ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) আফজাল করিম, এবিবির চেয়ারম্যান সেলিম আর এফ হোসেনসহ বিভিন্ন ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালকরা।

এর আগে গত বৃহস্পতিবার বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর আবদুর রউফ তালুকদারের সভাপতিত্বে এক বৈঠকে এ দুটি সংগঠনের হাতে ক্ষমতা দেওয়া হয়।

বর্তমানে ব্যাংকগুলো রফতানি আয় এনক্যাশমেন্ট করছে ৯৯ টাকা থেকে শুরু করে ১০২ টাকায়। এছাড়া ব্যাংকগুলো রেমিট্যান্স সংগ্রহ করছে ১০৮ টাকা থেকে ১১০ টাকায়। এদিকে এক্সচেঞ্জ হাউজগুলো থেকে রেমিট্যান্সের ডলার কিনতে ব্যাংকগুলোকে সর্বোচ্চ ১১৪ টাকা রেট দিতে হয়েছে।


আরও খবর

লিটারে ১৪ টাকা কমল সয়াবিন তেলের দাম

মঙ্গলবার ০৪ অক্টোবর ২০২২




বঙ্গোপসাগরে নিম্নচাপ আরো দুদিন থাকবে

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ১৩ সেপ্টেম্বর ২০২২ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ০৬ অক্টোবর ২০২২ |
Image

 বঙ্গোপসাগরে সৃষ্ট নিম্নচাপ আরো দু'দিন থাকবে বলে জানিয়েছে আবহাওয়া অফিস।ভারতের দক্ষিণ মধ্য প্রদেশ এলাকায় অবস্থিত স্থল নিম্নচাপের প্রভাবে উত্তর বঙ্গোপসাগর ও দেশের উপকূলীয় এলাকায় ঝড়ো হাওয়া বয়ে যেতে পারে। দেশের চার সমুদ্রবন্দরকে তিন নম্বর স্থানীয় সতর্ক সংকেত দেয়া হয়েছে ।

আবহাওয়া অফিস জানায়, উপকূলের নিম্নাঞ্চল ২ ফুট পর্যন্ত জলোচ্ছ্বাসে প্লাবিত হতে পারে। এ অবস্থায় গভীর সমুদ্রে থাকা মাছ ধরার নৌকা ও ট্রলারকে উপকূলের কাছাকাছি থাকতে নির্দেশ দেয়া হয়েছে। এদিকে নিম্নচাপের প্রভাবে পটুয়াখালীতে সর্বোচ্চ ৭১ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত হয়েছে। ঢাকায় হয়েছে ১৩ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত। 


আরও খবর



রাঙ্গামাটি মিনিট্রাক ও পিকআপ শ্রমিক ইউনিয়নের সাধারণ সভা

প্রকাশিত:শুক্রবার ০৯ সেপ্টেম্বর ২০২২ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ০৪ অক্টোবর ২০২২ |
Image

উচিংছা রাখাইন কায়েস, রাঙ্গামাটি ঃ

রাঙ্গামাটি জেলা মিনিট্রাক ও পিকআপ শ্রমিক ইউনিয়নকে বাংলাদেশ ট্রাক চালক শ্রমিক ফেডারেশনের সদস্য পাওয়া হচ্ছে শুধু সময়ের ব্যাপার বলে মন্তব্য করেছেন বাংলাদেশ ট্রাক চালক শ্রমিক ফেডারেশনের জেনারেল সেক্রেটারী ওয়াজিউল্লাহ ভাই। তিনি বলেন আইনেই আছে তারা ট্রাক শ্রমিক ফেডারেশনের সদস্য হবে শুধু তাদের গঠণতন্ত্রের কয়েকটি ধারা শুধু সংশোধন করা হলেই কিছু দিনের মধ্যে তাদের সদস্য পদ দেয়ার সমস্ত ব্যবস্থা করা হবে।

আজ রাঙ্গামাটি জেলা মিনিট্রাক ও পিকআপ শ্রমিক ইউনিয়নের বিশেষ সাধারণ সভায় উদ্বোধনী বক্তব্যে কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক এই কথা বলেন। 

রাঙ্গামাটি জেলা মিনিট্রাক ও পিকআপ শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি মোঃ এ, টি,এম হাসমতউল্লাহর সভাপতিত্বে সভায় বক্তব্য প্রধান অতিথি ছিলেন রাঙ্গামাটি জেলা শ্রমিকলীগের সাধারণ সম্পাদক মোঃ শামসুল আলম, রাঙ্গামাটি শ্রমিক ইউনিয়নের সাবেক উপদষ্ঠা মোঃ আবুল হাসেম, রাঙ্গামাটি জেলা মিনিট্রাক ও পিকআপ শ্রমিক ইউনিয়নের সাবেক সভাপতি কিশোর চৌধুরী, বিশিষ্ট শ্রমিক নেতা ও এ্যাডভোকেট মোঃ জাহিদুল ইসলাম (জাহিদ), সাবেক যুগ্ম সম্পাদক আবু সহ সংগঠনের অন্যান্য নেতৃবৃন্দ বক্তব্য রাখেন। 

সভায় স্বাগত বক্তব্য রাখেন রাঙ্গামাটি জেলা মিনিট্রাক ও পিকআপ শ্রমিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক মোঃ সিরাজুল ইসলাম সিরাজ। 

উদ্বোধক আরো বলেন, শ্রমিক সংগঠনের অনেক গুলো নিয়ম রয়েছে যে নিয়ম গুলোর মধ্যে যে কোন সংগঠন তাদের দায়িত্বকতব্য পালন করবে তারই এই সংগঠনের সদস্য পদ পাবে। তিনি বলেন, জেলায় কখনো শাখা সংগঠন থাকতে পারে না। জেলা থাকবে জেলা সংগঠন। উপজেলায় বা ইউনিয়নে শাখা সংগঠন থাকবে বলে তিনি উল্লেখ করেন। 

প্রধান অতিথির বক্তব্যে জেলা শ্রমিকলীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, পার্বত্য অঞ্চলের শ্রমিকদের উন্নয়নে রাঙ্গামাটি জেলা শ্রমিকলীগ সব সময় কাজ করে যাচ্ছে। গতো করোনার সময় প্রতিটি শ্রমিকের ঘরে ঘরে দীপংকর তালুকদারের নির্দেশে খাবার পৌছে দেয়া হয়েছে। তিনি বলেন, সরকারী দলের নাম ভাঙ্গিয়ে কেউ যদি শ্রমিক সংগঠনের নামে চাঁদা বাজী করে তাহলে শ্রমিকলীগ তা কখনোই মেনে নেবে না। শ্রমিক সংগঠনের আইনে যা আছে তাই দিয়েই একটি শ্রমিক সংগঠন চলবে। রাঙ্গামাটি জেলা মিনিট্রাক ও পিকআপ শ্রমিক ইউনিয়ন যাতে ট্রাক শ্রমিক সংগঠনে রূপান্তর হয়ে তাদের ন্যায্য অধিকার ফিরে পায় তার জন্য দীপংকর তালুকদারের সুপারিশ লাগলে তাও ব্যবস্থা করে দেয়া হবে বলে তিনি সভায় উল্লেখ করেন।

সভায় বক্তারা রাঙ্গামাটি জেলা মিনি ট্রাক ও পিকআপ শ্রমিক ইউনিয়নের সংবিধান সংশোধনের বিভিন্ন ধারা ও জারি কৃত প্রজ্ঞাপন অনুযায়ী ইউনিয়নের নামের পরিবর্তন ও সংবিধানের ৩০ ধারা মোতাবেক ইউনিয়নকে বাংলাদেশ  ট্রাক চালক শ্রমিক ফেডারেশন এর সদস্য হিসেবে অন্তর্ভুক্ত  করার দাবি জানায়।


আরও খবর



কুমিল্লায় এসএসসি পরীক্ষার্থী ১ লাখ ৮৯ হাজার ৬৬৪ জন

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ১৫ সেপ্টেম্বর ২০২২ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ০৬ অক্টোবর ২০২২ |
Image

কু‌মিল্লা ব্যুরো ঃ

কুমিল্লা শিক্ষা বোর্ডের অধীনে ৬ জেলায় মোট পরীক্ষার্থীর সংখ্যা ১ লাখ ৮৯ হাজার ৬৬৪ জন। এর মধ্যে মেয়ে পরীক্ষার্থীর সংখ্যা ১ লাখ ৮ হাজার ১৪৫ জন এবং ছেলে পরীক্ষার্থীর সংখ্যা ৮১ হাজার ৫২৯ জন। নোয়াখালী, ফেণী, লক্ষ্মীপুর, চাঁদপুর, কুমিল্লা ও ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ২৭৪ টি কেন্দ্রে পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে। এই ৬ জেলার ১ হাজার ৭৬৭টি প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা পরীক্ষায় অংশ নিচ্ছেন। এবছর এসএসসি’র জন্য ২ লাখ ২০ হাজার ২৮৮ জন রেজিষ্ট্রেশন করলেও পরীক্ষার জন্য ফরম পূরণ করেছেন ১ লাখ ৮৩ হাজার ৩৪৩ জন শিক্ষার্থী। ২০২১ সালে এসএসসি পরীক্ষার্থীর সংখ্যা ছিলো ২ লাখ ১৯ হাজার ৭০৪ জন।

কুমিল্লা শিক্ষা বোর্ড সূত্রে জানা গেছে,   কুমিল্লা বোর্ডে সবচেয়ে বেশি শিক্ষার্থী কুমিল্লা জেলায়- ৬৫ হাজার ১৫৪ জন। এছাড়া নোয়াখালী জেলায় পরীক্ষার্থীর সংখ্যা ৩২ হাজার ৮১৭ জন, ফেণী জেলায় ১৮ হাজার ৫৩৯ জন, লক্ষ্মীপুর জেলায় ১৬ হাজার ৭৫৮ জন, চাঁদপুর জেলায় ২৮ হাজার ১৮৫ জন এবং ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলায় ২৮ হাজার ২১১ জন।

কুমিল্লা শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান প্রফেসর মোঃ আবদুস ছালাম জানান, কুমিল্লা বোর্ডের এসএসসির সকল পরীক্ষা সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন করার লক্ষ্যে সকল প্রস্তুতি নেয়া হয়েছে। শিক্ষার্থীরা সবাই যথা সময়ে পরীক্ষায় আসবেন বলেই আশা করছি।

এদিকে ২০২২ সালের কুমিল্লা শিক্ষা বোর্ডের অধীনে ৬ জেলায় এসএসসির জন্য রেজিষ্ট্রেশনকারী শিক্ষার্থীর সংখ্যা ছিলো ২ লাখ ২০ হাজার ২৮৮ জন, এর মধ্যে পরীক্ষার জন্য ফরম পূরণ করেছেন ১ লাখ ৮৩ হাজার ৩৪৩ জন। রেজিষ্ট্রেশন করলেও পরীক্ষায় বসছে না প্রায় ৩৭ হাজার শিক্ষার্থী। এর মধ্যে মেয়ে শিক্ষার্থীর সংখ্যা ২৫ হাজারেরও বেশি। পরীক্ষায় না বসা বেশির ভাগ শিক্ষার্থীই ঝরে গেছেন শিক্ষা জীবন থেকে। বোর্ডের পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক ও স্কুল প্রধানরা বলছেন, মেয়ে শিক্ষার্থীদের ঝরে পড়ার মূল কারণ বাল্য বিবাহ, আর ছেলেরা ঝুঁকছে উপার্জনে। আর প্রত্যন্ত এলাকায় এই ঝরে পড়ার হার বেশি। ১৫ সেপ্টেম্ব থেকে শুরু হচ্ছে এবছরের এসএসসি পরীক্ষা।

কুমিল্লা শিক্ষা বোর্ডের পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক ড. মোঃ আসাদুজ্জামান জানান,  পরীক্ষার জন্য ফম পূরণ না করা শিক্ষার্থীদের মধ্যে সবাই শিক্ষা জীবন থেকে ঝরে পড়েছে এমন নয়, এর মধ্যে এক জায়গা থেকে অন্য জায়গায় স্থানান্তরিত শিক্ষার্থীও রয়েছে। তবে বেশির ভাগই পড়াশুনা ছেড়ে দিয়েছেন এমন।

তিনি আরো বলেন, করোনা মহামারির পর যে বিষয়টি লক্ষ্যনীয় অর্থনৈতিক সংকটের কারণে অনেক শিক্ষার্থীকেই দেখা যাচ্ছে অষ্টম শ্রেণী পাশের সনদ দিয়ে কোন না কোন চাকরি খুজছেন। যে কারণে অনেকে রেজিষ্ট্রেশন করলেও পরীক্ষায় বসছে না।  আর মেয়ে শিক্ষার্থীদের ঝরে পড়ার মূল কারণ বাল্য বিবাহ।

১২ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত শিক্ষাবোর্ড থেকে প্রাপ্ত তথ্য সূত্রে জানা গেছে, কুমিল্লা মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা বোর্ডের অধীনে. কুমিল্লা ফেণী, নোয়াখালী, চাঁদপুর, ব্রাহ্মণবাড়িয়া এবং লক্ষীপুর জেলায় এসএসসির জন্য মোট রেজিষ্ট্রেশনকারীর সংখ্যা ২ লাখ ২০ হাজার ২৮৮ জন। কিন্তু পরীক্ষার জন্য ফরম পূরণ করেছেন ১ লাখ ৮৩ হাজার ৩৪৩ জন। রেজিষ্ট্রেশন করলেও পরীক্ষায় বসছে না ৩৬ হাজার ৯৪৫ জন পরীক্ষার্থী। রেজিষ্ট্রেশন করা ৮৯ হাজার ৫৮১ জন ছাত্রের মধ্যে ফরম পূরণ করেছেন ৭৮ হাজার ৩৯৬ জন; ঝরে পড়েছে ১১ হাজার ১৮৫ জন। অপরদিকে রেজিষ্ট্রেশন করা ১ লাখ ৩০ হাজার ৭০৭ জন ছাত্রীর মধ্যে ফরম পূরণ করেছেন ১ লাখ ৪ হাজার ৯৪৭ জন; এর মধ্যে ঝরে পড়েছে ২৫ হাজার ৭৬০ জন। পরিসংখ্যান বলছে, ছেলে শিক্ষার্থীদের চেয়ে মেয়ে শিক্ষার্থীদের ঝরে পড়ার সংখ্যা বেশি। ঝরে পড়া মেয়ে শিক্ষার্থীর হার ১৯ দশমিক ৭ শতাংশ এবং ছেলে শিক্ষার্থী ঝরে পড়ার হার ১২ দশমিক ৪ শতাংশ।     

এদিকে ২০২১ সালের তুলনায় ২০২২ সালে এসএসসি পরীক্ষার্থীর সংখ্যাও কমেছে ৩০ হাজার, যদিও বোর্ড কর্তৃপক্ষ বলছে- অনিয়মিত পরীক্ষার্থী না থাকায় কমে এসেছে মোট পরীক্ষার্থীর সংখ্যা।

কুমিল্লা শিক্ষা বোর্ডের পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক ড. মো: আসাদুজ্জামান বলেন, ২০২১ সালের পরীক্ষা পদ্ধতিতে পাশের হার প্রায় শতভাগ থাকায় অকৃতকার্যের সংখ্যা নেই, যে কারনে এবছর অনিয়মিত হিসেবে পরীক্ষার্থী নেই।


আরও খবর

১১০০ শিক্ষকের সনদ জাল

শনিবার ০১ অক্টোবর ২০২২




নারায়ণনারায়ণগঞ্জে সাজা প্রাপ্ত আসামীর বদলে ভিন্নব্যাক্তির কারাভোগ ;

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২২ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ০৬ অক্টোবর ২০২২ |
Image

 বুলবুল আহমেদ সোহেল :

নারায়ণগঞ্জে মাদক কারবারি জাকিরের বদলে অন্য একজন সাজা খাটতে গিয়ে কারাগারে শনাক্ত হওয়ার মতো চাঞ্চল্যকর ঘটনা ঘটেছে।  বুধবার বিকেলে শুনানী শেষে আসামী জাকির ও ভূয়া আাসমী জুয়েলের বিরুদ্ধে প্রতারণার অভিযোগে মামলার নির্দেশ দিয়েছে আদালত । 

নারায়ণগঞ্জ আদালত পুলিশের পরিদর্শক আসাদুজ্জামান জানান, নারায়ণনারায়ণগঞ্জ বন্দর থানার ২০১৭ সালের একটি মাদক মামলায় ৬ মাসের সাজা হয় আসামী জাকিরের। ইয়াবাসহ গ্রেপ্তারের পর চলতি বছরের ১০ আগষ্ট তার বিরুদ্ধে আদালত ৬ মাসের কারাদণ্ডাদেশ দেন। রায় ঘোষণার আগে জামিনে মুক্ত হয়ে পলাতক থাকে জাকির। রায় ঘোষনার পর আদালত তার বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করে। এ প্রেক্ষিতে চলতি বছরের ১২ সেপ্টেম্বর জুয়েল নামের ব্যাক্তি নিজেকে জাকির দাবি করে  আদালতে আত্মসমর্পণ করে আইনজীবীর মাধ্যমে। আত্মসমর্পণের পর আসামীর পক্ষ জামিনের আবেদন করলে আদালত জামিন না মঞ্জুর করে তাকে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেয়। মূল আসামী জাকিরের পরিবর্তে জুয়েল কারাগারে রয়েছে জানতে পেরে কারা কর্তৃপক্ষ আদালতেকে ব্যাপারটি অবগত করেন। 

মাদক মামলার সাজাপ্রাপ্ত আসামী হলো, জাকির ওরফে সোহেল ওরফে গাজী । সে বন্দর উপজেলার নূরবাগ এলাকার সামেদ মিয়ার ছেলে। তার পরিবর্ততে আসামী হয়ে কারাভোগ করতে যায় জুয়েল। সে উপজেলার নবীগঞ্জের আলাউদ্দিনের ছেলে।স্থানীয়দের দাবি, জাকির ও জুয়েল পূর্ব পরিচিত। জুয়েল বিভিন্ন মামলায় এর আগে একাধিবার জেল খেটেছেন। অর্থের বিনিময়ে এমনটা করেছে সে।  

বুধবার বিকেলে সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মোহাম্মদ শামছুর রহমানের আদালত শুনানি শেষে, তাদের বিরুদ্ধে যোগসাজসে প্রতারণা ও মিথ্যে সাক্ষী দেয়ার অপরাধে দুইজনের বিরুদ্ধে ফতুল্লা থানায় মামলা করার নির্দেশ দেন সহকারী ব্যাঞ্চকে। তবে মাদক মামলায় জুয়েলকে অব্যহতি দেয়া হয়েছে।

অন্যের মাদক মামলায় আত্মসমর্পণ ও  জুয়েলের জামিন আবেদন করেছিলেন আইনজীবীর রোকেয়া সুলতানা। বুধবারের শুনানিতে স্বশরীরে হাজির হয়ে তিনি ব্যাখা প্রদান করেন ও যাচাই না করে আসামীর পক্ষ নেয়ায় আদালতে ক্ষমা প্রার্থনা করেন। আদালতে তাকে মামলার বিষয়ে শর্তক থাকার নির্দেশ দিয়েছে। তবে এ বিষয়ে ক্যামেরার সামনে কথা বলতে রাজী হননি তিনি।


আরও খবর



১০ দিন যাবৎ গ্যাস নেই শনির আখড়ায়

প্রকাশিত:সোমবার ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২২ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ০৬ অক্টোবর ২০২২ |
Image

অন্যান্য বছর শীতে গ্যাস সঙ্কট তীব্র হলেও এবার শীতের আগেই রাজধানীতে গ্যাস সঙ্কট তীব্র হচ্ছে। রান্নার জন্য গভীর রাত পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হচ্ছে অনেক এলাকায়।

গত কয়েকদিন ধরেই রাজধানীর মিরপুরের ১১, ১২ কালশী, লালমাটিয়া; যাত্রবাড়ি, শনির আখড়া, বনশ্রী, মান্ডা, মোহাম্মদপুর বেড়ীবাধ ও বসুন্ধরা আবাসিক এলাকায় সংকট তীব্র হচ্ছে। শিল্প কারখানায় গ্যাসের অভাবে উৎপাদন কমছে। গ্যাসের চাপ না থাকায় সিএনজি স্টেশনেও দীর্ঘ সময় অপেক্ষা করতে হয় বিভিন্ন পরিবহনকে। এমন পরিস্থিতিতে গ্যাস বিতরণ কোম্পানিগুলো বলছে, সঞ্চালন কোম্পানি গ্যাস কম দিতে পারায় সরবরাহও কমেছে। এছাড়া পুরোনো লাইনের কারণেও বিভিন্ন এলাকায় সরবরাহ কমেছে।


আরও খবর

শিগগিরই বাড়ছে বিদ্যুতের দাম

মঙ্গলবার ০৪ অক্টোবর ২০২২