Logo
শিরোনাম

রূপগঞ্জে কিশোর সজল হত্যাকাণ্ডের প্রধান আসামিসহ গ্রেফতার ৭

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ২১ জুন ২০২২ | হালনাগাদ:শনিবার ০২ জুলাই 2০২2 |
Image

বুলবুল আহমেদ সোহেল ; নারায়ণগঞ্জঃ

নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জে কিশোর সজল হত্যার ঘটনায় প্রধান আসামি জয়নাল ওরফে পঁচা জয়নালসহ সাত আসামিকে গ্রেফতার করেছে র‍্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‍্যাব)।  মঙ্গলবার নারায়ণগঞ্জের সিদ্ধিরগঞ্জের আদমজীতে সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানান র‍্যাব- ১১ এর অধিনায়ক লে. কর্নেল তানভীর মাহমুদ পাশা।

গত ১৭ জুন রূপগঞ্জে চনপাড়া পুনর্বাসন কেন্দ্রে আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে দুই গ্রুপের মধ্যে সংঘর্ষে আহত হয়ে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় কিশোর সজল (১৫) এর মৃত্যু হয়। নিহত সজল চনপাড়া ৯নং ওয়ার্ডের ৮নং প্লটের বুলু মিয়ার ছেলে। এ ঘটনায় নিহতের মা বাদী হয়ে রূপগঞ্জ থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন।  

২১ জুন রাতে অভিযান চালিয়ে ঢাকা জেলার দোহার এলাকা হতে মামলার প্রধান আসামি রূপগঞ্জের চনপাড়ার মৃত মান্নানের ছেলে জয়নাল ওরফে পঁচা জয়নাল , মৃত মালেকের ছেলে শাকিল , আনোয়ারের ছেলে দারোয়ান বাবু ,সালামের ছেলে দারোয়ান সোহেল , আমির হোসেনের ছেলে শাহাদাত , আজহার মোল্লার ছেলে মাসুদ ও কামাল হোসেনের ছেলে সিফাতকে গ্রেফতার করা হয় ।  

মামলার এজাহার সূত্রে জানা যায়, গত ১৭ জুন সন্ধ্যায় চনপাড়া পুনর্বাসন কেন্দ্রে আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে জয়নাল গ্রুপের সঙ্গে রাজা ও শাহিন গ্রুপের সংঘর্ষ হয়। এ ঘটনায় ১০ জন গুলিবিদ্ধসহ ২৫ জন আহত হয়। ওই সংঘর্ষে ইটের আঘাতে সজল আহত হয় এবং পরে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যায়।  

আসামিদের বিরুদ্ধে এ মামলা ছাড়াও আরও একাধিক মামলা রয়েছে। জয়নাল গ্রুপের প্রধান জয়নালের বিরুদ্ধে তিনটি হত্যা মামলা ও তিনটি অস্ত্র মামলাসহ ১৭টি মামলা রয়েছে। মামলার ৩নং আসামি শাকিলের নামে নয়টি, বাবুর নামে চারটি, সোহেলের নামে একটি মামলা রয়েছে।


আরও খবর



পানি বেড়ে ডুবছে গ্রাম ও শহর

প্রকাশিত:শুক্রবার ১৭ জুন ২০২২ | হালনাগাদ:শনিবার ০২ জুলাই 2০২2 |
Image

মইনুল ইসলাম মিতুল:  অতিবৃষ্টি ও উজানের ঢলে চতুর্থ দফায় নদণ্ডনদীর পানি বাড়ছে দেশের উত্তর ও উত্তর-পূর্বাঞ্চলে। সুরমা কুশিয়ারা ও সারি নদীর পানি বেড়ে সিলেটের বন্যা পরিস্থিতির আরো অবনতি হয়েছে। নদীর পাড় উপচে শহরে পানি ঢুকে পড়ায় বিভিন্ন এলাকার বাসবাড়ি তলিয়ে গেছে। সুনামগঞ্জের অসংখ্য রাস্তাঘাট, ঘরবাড়ি, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান প্লাবিত হয়েছে। পানিতে তলিয়ে গেছে কুড়িগ্রামের রৌমারী স্থলবন্দর এলাকা; বন্ধ রয়েছে আমদানি-রপ্তানি বাণিজ্যও। এতে বেকার হয়ে পড়েছেন বন্দরের প্রায় ৬০০০ শ্রমিক ও ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী। আর ১৫ গ্রাম ও চরের তিন সহস্রাধিক পরিবার বন্যাকবলিত হয়ে পড়েছে নীলফামারীতে। এমন অবস্থায় এসব জেলার বন্যাকবলিত পরিববারগুলো দীর্ঘস্থায়ী দুর্ভোগের শঙ্কা করছেন।

বন্যার্তরা জানিয়েছেন, দ্বিতীয় দফায় আবার বন্যা দেখা দেওয়ায় তারা চরম ভোগান্তিতে পড়েছেন। অধিকাংশ এলাকায় বাসাবাড়িতে পানি ঢুকে পড়ছে। রাস্তাঘাট ডুবে যাওয়ায় অনেকে যোগাযোগবিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছেন। খবর প্রতিদিনের সংবাদ প্রতিনিধিদের।

সিলেট : পানি উন্নয়ন বোর্ড (পাউবো) সিলেট কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, জেলার প্রধান দুই নদী সুরমা কুশিয়ারা ও সারি নদীর বিভিন্ন পয়েন্টে পানি বেড়েছে। সুরমা নদীর কানাইঘাট পয়েন্টে পানি বিপৎসীমার শূন্য দশমিক ৯৩ সেন্টিমিটার ও সিলেট পয়েন্টে পানি বিপৎসীমার শূন্য দশমিক ৩২ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। এ ছাড়া কুশিয়ারা নদীর ফেঞ্চুগঞ্জ পয়েন্টে পানি বিপৎসীমার শূন্য দশমিক ৩৩ সেন্টিমিটার এবং সারি নদের সারিঘাট পয়েন্টে পানি বিপৎসীমার শূন্য দশমিক ৪৫ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। এ ছাড়া জেলার অন্য নদণ্ডনদীর পানিও ক্রমশ বাড়ছে।

স্থানীয় প্রশাসন জানিয়েছে, জেলার কোম্পানীগঞ্জ, গোয়াইনঘাট, জৈন্তাপুর, কানাইঘাট ও সদর উপজেলার অন্তত ৫০০ গ্রাম বন্যার পানিতে প্লাবিত হয়েছে। এসব এলাকার একাধিক শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান ও সরকারি-বেসরকারি কার্যালয়ের ভেতরে পানি ঢুকে পড়ায় স্বাভাবিক কার্যক্রম বিঘ্নিত হয়েছে। এর বাইরে সিলেট নগরের অন্তত ৮ থেকে ১০টি এলাকা পানিতে তলিয়ে যাওয়ার খবর পাওয়া গেছে।

এদিকে কোম্পানীগঞ্জ ও গোয়াইনঘাট উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়ন ও গ্রামের সংযোগসড়ক পানিতে তলিয়ে আছে। এসব রাস্তা দিয়ে যানবাহনের বদলে মানুষজন নৌকায় চলাচল করছেন। বিকাল পর্যন্ত নগর ও পাঁচটি উপজেলায় অন্তত চার থেকে সাড়ে চার লাখ মানুষ পানিবন্দি অবস্থায় আছেন।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা গেছে, সিলেট নগরের তালতলা, জামতলা, সোবহানীঘাট, তেরোরতন, উপশহর, কালীঘাটসহ বেশ কয়েকটি এলাকায় সুরমার পাড় উপচে পানি ঢুকে পড়ায় আকস্মিক বন্যার সৃষ্টি হয়েছে। এসব এলাকার রাস্তাঘাট পানিতে তলিয়ে যাওয়ায় মানুষজন ভোগান্তি পোহাচ্ছেন। অনেক বাসাবাড়ি ও দোকানে পানি উঠেছে। কোথাও কোথাও হাঁটুপানি দেখা গেছে। ঘরের ভেতরে পানি ওঠায় অনেকে আত্মীয়ে বাড়ি সরে যাচ্ছেন। সিলেটের জ্যেষ্ঠ আবহাওয়াবিদ সাঈদ আহমদ চৌধুরী বলেন, ২৪ ঘণ্টায় সিলেটে সর্বোচ্চ ১৪৩ মিলিমিটার বৃষ্টি রেকর্ড করা হয়েছে। চলতি সপ্তাহে কমণ্ডবেশি বৃষ্টিপাত হবে। তবে ১৯ ও ২০ জুন বেশি বৃষ্টিপাতের সম্ভাবনা রয়েছে।

সিলেটের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মো. আনোয়ার সাদাত জানান, প্রয়োজনীয় স্থানে আশ্রয়কেন্দ্র চালুর জন্য সংশ্লিষ্ট উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাদের নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। স্থানীয় প্রশাসন বন্যা পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করছেন।

সুনামগঞ্জ : সুনামগঞ্জ জেলায় বন্যা পরিস্থিতির আরো অবনতি হয়েছে। জেলার প্রায় সব উপজেলা বন্যাকবলিত হয়ে পড়েছে। অসংখ্য রাস্তাঘাট, ঘরবাড়ি, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান প্লাবিত হয়েছে। জেলা সদরের সঙ্গে পাঁচটি উপজেলার সরাসরি সড়ক যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে গেছে। জেলায় পানিবন্দি হয়ে পড়েছেন লক্ষাধিক মানুষ।

সুনামগঞ্জ পানি উন্নয়ন বোর্ডের তথ্য অনুযায়ী, সুরমার পানি দিরাইয়ের পুরাতন এলাকার পয়েন্টে বিপৎসীমার ২৯ সেন্টিমিটার, ছাতক পয়েন্টে ২ দশমিক ১৩ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। এ ছাড়া তাহিরপুর এলাকায় জাদুকাটা নদীর পানি প্রবাহিত হচ্ছে বিপৎসীমার ৬৮ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে।

পানি উন্নয়ন বোর্ডের সুনামগঞ্জ কার্যালয়ের নির্বাহী প্রকৌশলী মো. জহুরুল ইসলাম বলেন, নদণ্ডনদীর পানি দ্রুত বেড়ে যাচ্ছে। তবে বৃষ্টি কমলে পরিস্থিতির উন্নতি হতে পারে।

জেলা প্রশাসক মো. জাহাঙ্গীর হোসেন বলেন, পানি বাড়ছে, আর পরিস্থিতির অবনতি হচ্ছে। জেলার লক্ষাধিক মানুষ এখন পানিবন্দি। প্রশাসনের পক্ষ থেকে সার্বিক পরিস্থিতি মোকাবিলায় প্রস্তুতি নেওয়া হয়েছে।

রংপুর : ভারী বর্ষণ এবং উজানের ঢলে তিস্তার পানি বিপৎসীমা ছুঁয়েছে। পানি উন্নয়ন বোর্ডের কন্ট্রোল রুম সূত্রে জানা গেছে বৃহস্পতিবার সকাল ৬টার দিকে তিস্তা ব্যারেজ পয়েন্টে নদীর পানি বিপৎসীমার দশমিক ৬৩ সেন্টিমিটার নিচ দিয়ে প্রবাহিত হয়। তবে সকাল ৯টায় তা বেড়ে বিপৎসীমা ছুঁয়েছে।

এদিকে গঙ্গাচড়ার ছয় ইউনিয়ন ও নদী তীরের বিভিন্ন এলাকা প্লাবিত হয়েছে। এরই মধ্যে ৩০ গ্রামের ২৫ হাজার মানুষ পানিবন্দি হয়ে পড়েছেন।

গঙ্গাচড়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার (ইউএনও) কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, তিস্তার পানি বাড়ায় লক্ষ্মীটারি, কোলকোন্দ, মর্নেয়া নোহালী ও আলম বিদিতর ইউনিয়নের ৩০ গ্রাম প্লাবিত হয়েছে। সবচেয়ে খারাপ অবস্থা লক্ষ্মীটারি ইউনিয়নের। এ ইউনিয়নের বিনার চর, শংকরদাহসহ বেশ কয়েকটি দুর্গম চরাঞ্চলের মানুষ পানিবন্দি হয়ে পড়েছেন।

এদিকে তিস্তা নদীর পানি বাড়ার কারণে চরাঞ্চলের শত শত হেক্টর জমির বাদাম নষ্ট হওয়ার আশঙ্কা দেখা দিয়েছে।

লক্ষ্মীটারি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আবদুল্লাহ আল হাদী বলেন, অসময়ে তিস্তা নদীর পানি বাড়ায় ইউনিয়নের অনেক মানুষ পানিবন্দি হয়ে পড়েছে। এছাড়া বাদামসহ বেশ কিছু ফসলের ক্ষতি হয়েছে।

গঙ্গাচড়ার ইউএনও এরশাদ উদ্দিন বলেন, পানি বেড়ে যাওয়ায় নদী তীরবর্তী ও দুর্গম চরাঞ্চলের মানুষকে সতর্ক থাকার জন্য পরামর্শ দেওয়া হয়েছে। এছাড়া বিভিন্ন এলাকায় সহায়তা পৌঁছাতে কাজ চলছে।

নীলফামারী : তিস্তা নদীর পানি বাড়ায় ডিমলা উপজেলার তিস্তাবেষ্টিত পূর্ব ছাতনাই, টেপাখড়িবাড়ি, খগাখড়িবাড়ি, খালিশাচাপানী, ঝুনাগাছ চাপানী ও গয়াবাড়ি ইউনিয়নের প্রায় ১৫টি গ্রাম ও চরের তিন সহস্রাধিক পরিবার বন্যাকবলিত হয়ে পড়েছে।

উপজেলার পূর্ব ছাতনাই ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান আবদুল লতিফ খান বলেন, সকাল থেকে তিস্তার পানি বাড়তে শুরু করে। এতে ইউনিয়নের ঝাড়সিংহেরস্বর, পূর্ব ছাতনাই ও খোকার চরের পাঁচ শতাধিক পরিবার বন্যাকবলিত হয়ে পড়ে। দুপুর সাড়ে ১২টা পর্যন্ত পানি বৃদ্ধি অব্যাহত থাকে।

টেপাখাড়িবাড়ির ইউপি চেয়ারম্যান মো. ময়নুল হক বলেন, ইউনিয়নের প্রায় এক হাজার পরিবারের বাড়িঘরে বন্যার পানি ঢুকে পড়েছে। সকালে স্বপন বাঁধের প্রায় ৫০ মিটার অংশ ভেঙে মসজিদ পাড়ার ১৪০টি পরিবারের বাড়িঘর বন্যাকবলিত হয়।

পানি উন্নয়ন বোর্ড ডালিয়া ডিভিশনের নির্বাহী প্রকৌশলী মো. আসফাউদ্দৌলা বলেন, তিস্তার পানি বৃহস্পতিবার বিপৎসীমা ছুঁয়ে প্রবাহিত হচ্ছিল। এ কারণে ব্যারাজের সব কটি (৪৪টি) জলকপাট খুলে রাখা হয়েছে। বর্তমানে পানিপ্রবাহ স্বাভাবিক রয়েছে।

কুড়িগ্রাম : রৌমারী স্থলবন্দর এলাকার রাস্তার দুই পাশে জমে আছে পানি। পানির মধ্যে থরে থরে সাজানো রয়েছে বিভিন্ন আকারের পাথর ও বালু। ডিপোগুলোতে পাথর আছে, পাথর ভাঙার মেশিন আছে, কিন্তু নেই শ্রমিক। নেই কর্মচাঞ্চল্য, নেই মানুষের কোলাহল।

বন্দরের রাজস্ব কর্মকর্তা সৈয়দ আরিফুর রহমান বলেন, বন্দরে যাতায়াতের সড়ক তলিয়ে যাওয়ায় বাণিজ্যিক কার্যক্রম বন্ধ হয়ে গেছে। এ কারণে ছয় হাজার শ্রমিক বেকার হয়ে পড়েছে। এছাড়া এ কাজের সঙ্গে জড়িত অন্যরাও ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছেন। আর সরকার হারাচ্ছে রাজস্ব। দীর্ঘদিন কর্মহীন থাকায় শ্রমিকদের পরিবারে দেখা দিয়েছে অভাব। অনেকে মাছ ধরে জীবিকা নির্বাহের চেষ্টা করছেন।

রৌমারী উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান শেখ আবদুুল্লাহ বলেন, বন্দর অচল হওয়ায় ছয় হাজার শ্রমিক অত্যন্ত অসহায় ও মানবেতর জীবন যাপন করছেন। তাদের দ্রুত সহযোগিতা করা দরকার।


আরও খবর



ওমর সানী-জায়েদ খানের দ্বন্দ্ব নিয়ে যা বললেন ইলিয়াস কাঞ্চন

প্রকাশিত:বুধবার ১৫ জুন ২০২২ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ৩০ জুন ২০২২ |
Image

বাংলাদেশ চলচ্চিত্রশিল্পী সমিতির সভাপতি ও চিত্রনায়ক ইলিয়াস কাঞ্চন চলচ্চিত্রকর্মী ও শিল্পীদের সংযত হওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন। 

মঙ্গলবার রাতে রাজধানীর একটি হোটেলে ‘তালাশ’ সিনেমার মুক্তি উপলক্ষ্যে আয়োজিত অনুষ্ঠানে অতিথি হিসেবে হাজির হয়ে তিনি এই আহ্বান জানান। অনুষ্ঠান শেষে মৌসুমীকে নিয়ে ওমর সানী ও জায়েদ খানের চলমান দ্বন্দ্ব নিয়ে প্রশ্ন করা হলে ইলিয়াস কাঞ্চন এ নিয়ে কোনো মন্তব্য করেননি। 

তবে এ সময় তিনি বলেন, এ বিষয় আমি কিছু বলতে চাইছি না। শুধু একটা কথাই বলব— সব চলচ্চিত্রকর্মী ও শিল্পীর কাছে আমার অনুরোধ, চলাফেরা, কথাবার্তা ও আচার-আচরণে আপনারা সংযত হবেন। 

এর আগে রবিবার ওমর সানী বাংলাদেশ চলচ্চিত্রশিল্পী সমিতিতে জায়েদ খানের বিরুদ্ধে লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন। এ প্রসঙ্গে ইলিয়াস কাঞ্চন বলেন, অভিযোগ জমা পড়েছে। শিল্পী সমিতির পরবর্তী সভায় এ নিয়ে আমরা আলোচনা করব। এর পর কোনো সিদ্ধান্ত এলে সেটি জানানো হবে।


আরও খবর

শিশুদের সিনেমায় মিথিলা

শুক্রবার ০১ জুলাই ২০২২




পদ্মা সেতু উদ্বোধন উৎসবের জন্য প্রস্তুত

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ১৪ জুন ২০২২ | হালনাগাদ:শনিবার ০২ জুলাই 2০২2 |
Image

মইনুল ইসলাম মিতুল:  প্রমত্তা পদ্মার বুকে এখন স্বগর্বে দাঁড়িয়ে বাংলাদেশের ইতিহাসের দীর্ঘতম সেতু- স্বপ্নের পদ্মা সেতু। দেশ-জাতির সক্ষমতার প্রতীক পদ্মা সেতু এখন উদ্বোধনের পালা। আর মাত্র ১০ দিন পরই খুলে দেওয়া হবে রাজধানী ঢাকার সঙ্গে দক্ষিণ বাংলাকে এক সুতোয় গেঁথে দেওয়া এই সেতুটি। পদ্মা সেতুর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানকে উৎসবে রূপ দিতেই এখন সব ব্যস্ততা। সেতুর দুই পাড়েই শুধু নয়, উৎসব ছড়িয়ে দেওয়া হবে দেশজুড়ে। তাই প্রতিদিনই সরকারের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা সেতু এলাকা পরিদর্শনে যাচ্ছেন। উদ্বোধনী অনুষ্ঠান সফল করতে কার কী দায়িত্ব তা বুঝিয়ে দেওয়া হচ্ছে। টুকটাক যেসব কাজ বাকি আছে, তাও আগামীকালের মধ্যে শেষ হবে বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্টরা। গতকাল সোমবার মাওয়া প্রান্তে গিয়ে সরেজমিনে দেখা গেছে, পদ্মা সেতুকে সাজিয়ে-গুছিয়ে নিতে শেষ মুহূর্তের কর্মযজ্ঞ। অন্য দিকে দেখা গেছে পদ্মা সেতু দেখতে আসা উৎসুক মানুষের ভিড়।

দুর্নীতিচেষ্টার ভিত্তিহীন অভিযোগ এনে বিশ্বব্যাংকের মুখ ফিরিয়ে নেওয়া, রাজনৈতিক বাদানুবাদ, গুজব, প্রাকৃতিক প্রতিকূলতাসহ নানা বাধা জয় করে বাংলাদেশের নিজস্ব অর্থায়নে নির্মিত পদ্মা সেতু এখন ঐতিহাসিক বাস্তবতা।

৬ দশমিক ১৫ কিলোমিটার দীর্ঘ এই পদ্মা সেতু নির্মাণ করে বিশ্বকে নিজের সক্ষমতা জানান দিয়েছে বাংলাদেশ। আগামী ২৫ জুন সেতু উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সেতুর দুই পাড়ে তিনি নানা আনুষ্ঠানিকতায় অংশ নেবেন। পরে মাদারীপুরের শিবচরে রাজনৈতিক সমাবেশে অংশ নেবেন প্রধানমন্ত্রী।

সরেজমিনে দেখা গেছে, উদ্বোধন অনুষ্ঠানের জন্য প্রস্তুত করা হচ্ছে সেতুকে। শেষ মুহূর্তের কাজ চলছে জোরেশোরেই। মূল সেতুর লাইট লাগানোর কাজ শেষ পর্যায়ে। কিছু কিছু জায়গায় ধোয়া-মোছার কাজ চলছে। নিরাপত্তা ব্যবস্থাও খতিয়ে দেখছেন সংশ্লিষ্টরা। সেতু উদ্বোধন ঘিরে দুই পাড়ের মানুষের মধ্যে দেখা গেছে বিপুল উৎসাহ ও উদ্দীপনা। এতে উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে উৎসুক মানুষের ঢল সামাল দেওয়া নিয়েও আলোচনা চলছে সংশ্লিষ্টদের মধ্যে।

সেতু বিভাগ সূত্র জানায়, মাওয়ায় সুধী সমাবেশের স্থান, দুই প্রান্তের ম্যুরাল ও ফলক উন্মোচনের স্থানসহ উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যেসব স্থানে যাবেন, এর সবকটি ঘুরে দেখছেন সরকারের উচ্চপর্যায়ের কর্মকর্তারা।

সেতু বিভাগের কর্মকর্তারা জানান, উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের দিন দুই পাড়ে অ্যাম্বুলেন্সের ব্যবস্থা থাকবে। জরুরি স্বাস্থ্যসেবার প্রয়োজন হলে দুই পাড়েই পদ্মা সেতু প্রকল্পের অধীন পুনর্বাসন এলাকার পাঁচটি স্বাস্থ্যকেন্দ্র ব্যবহার করা হবে।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, উদ্বোধনী অনুষ্ঠান উপলক্ষে সেতু বিভাগ ১৮টি উপকমিটি করেছে। এসব কমিটি প্রতিদিনই নিজেদের মধ্যে বৈঠক করছে। এর মধ্যে আমন্ত্রণ জানানোর জন্য এরই মধ্যে প্রায় তিন হাজার অতিথির তালিকা তৈরি করা হয়েছে। তাদের প্রত্যেকের জন্য দাওয়াতপত্র তৈরির কাজ চলছে।

পদ্মা সেতু প্রকল্পের পরিচালক মো. শফিকুল ইসলাম বলেন, পদ্মা সেতু উদ্বোধনের জন্য প্রস্তুত। এখন সবকিছু ঠিকঠাক আছে কি না তা পর্যবেক্ষণ করা হচ্ছে। কোনো সমস্যা থাকলে তা সমাধান করা হচ্ছে।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, পদ্মা সেতু উদ্বোধনকে ঘিরে বর্ণাঢ্য আয়োজন করতে যাচ্ছে সরকার ও ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগ। দলের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর কর্মসূচিতে পদ্মা সেতু যুক্ত করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে আওয়ামী লীগ। সারা দেশে ২৩ জুন প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী এবং ২৫ জুন পদ্মা সেতুর উদ্বোধন যুগপৎভাবে পালন করবে দলটি।

পদ্মা সেতুর উদ্বোধনী অনুষ্ঠান হবে খুবই জমকালো। মূল উদ্বোধনী অনুষ্ঠান ৬৪টি জেলাতেও দেখানোর ব্যবস্থা থাকবে। অর্থাৎ দেশজুড়ে উৎসব পালন করা হবে। ২৫ জুন সকাল ১০টায় মুন্সীগঞ্জের মাওয়া প্রান্তে পদ্মা সেতু উদ্বোধনের পর সেতু পেরিয়ে জাজিরা প্রান্তে যাবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এ প্রান্তের টোল প্লাজার সামনে উদ্বোধনী ফলক উন্মোচনের পর তিনি যোগ দেবেন দলীয় জনসভায়। মাদারীপুরের শিবচরের কাঁঠালবাড়ীতে উদ্বোধনী জনসভার মঞ্চটি করা হচ্ছে পদ্মা সেতুর আদলে। এরই মধ্যে ঢাকা ও পদ্মার দুই পাড়ের জেলাগুলোর আওয়ামী লীগের নেতাকর্মী সার্বিক প্রস্তুতি গ্রহণ করেছেন। জনসভায় ১৫ থেকে ২০ লক্ষাধিক লোকের উপস্থিতি প্রত্যাশা করছে আওয়ামী লীগ।

দলীয় সূত্র মতে, প্রথমে নৌকার আদলে জনসভার মঞ্চ করার পরিকল্পনা ছিল। কিন্তু আওয়ামী লীগ সভানেত্রী ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পদ্মা সেতুর আদলে মঞ্চ তৈরির নির্দেশনা দিয়েছেন। ফলে শুধু পদ্মা সেতু উদ্বোধনই নয়, মঞ্চেও চমক থাকবে পদ্মার।

মঞ্চের সামনে থেকে দেখে মনে হবে অবিকল পদ্মা সেতুর ওপর মূল জনসভা করা হচ্ছে। পদ্মা সেতু যে বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনার সাহসের প্রতীক তা প্রমাণ করতেই এ উদ্যোগ বলে মনে করছেন আওয়ামী লীগের শীর্ষ নেতারা। জনসভার পর ফানুস উড়ানো থেকে শুরু করে জমকালো সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হবে। সেতুর পাশাপাশি সাজানো হচ্ছে দুই পাড়ের পুরো এলাকা। এ দিন নদীতেও থাকবে সুসজ্জিত নৌকা। ক্ষমতাসীনদের প্রত্যাশা, শুধু পদ্মা সেতুর দুই পাড়ের মানুষই নয়, উদ্বোধনের দিন সারা দেশের মানুষ এই আনন্দ উৎসবে অংশ নেবে। কেউ সমাবেশস্থলে এসে, আবার কেউ টেলিভিশনের মাধ্যমে, আবার কেউ সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে উৎসবে মেতে উঠবেন। পাশাপাশি দেশের প্রতিটি জেলা-উপজেলা, ইউনিয়ন পর্যন্ত আনন্দ মিছিল, শোভাযাত্রা, আতশবাজিসহ বিভিন্ন অনুষ্ঠানের মাধ্যমে আনন্দ উৎসব করা হবে।

উদ্বোধনের আগে সেনাবাহিনী মূল সেতু এলাকায় কাউকে প্রবেশ করতে দেওয়া হচ্ছে না। ঢাকা থেকে পদ্মা সেতু দেখতে আসা মাইমুনা আক্তার বলেন, ‘পদ্মা সেতু হয়ে গেছে শুনে দেখতে আসলাম। কিন্তু নৌকাতেও সেতুর নিচে যেতে দিচ্ছে না। দূর থেকে দেখা যাচ্ছে। তাও অনেক ভালো লাগছে। গর্বে বুকটা ভরে যাচ্ছে। আমি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে ধন্যবাদ জানাই।’

পদ্মা সেতু সর্বশেষ অবস্থা জানাতে রবিবার সেতু এলাকাসহ বিভিন্ন কর্মকাণ্ড সরেজমিনে পরিদর্শন করেন সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের, নৌ-পরিবহন প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী, জাতীয় সংসদের চিফ হুইপ নুর-ই-আলম চৌধুরী, পানিসম্পদ উপমন্ত্রী এনামুল হক শামীমসহ একটি প্রতিনিধি দল।

সেতুর সর্বশেষ পরিস্থিতি জানিয়ে সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেন, বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনা এই সেতু নির্মাণ করে বিশ্বকে জানিয়ে দিয়েছেন বঙ্গবন্ধুর বাংলাদেশ দুর্নীতি করে না। তিনি বলেন, এই সেতু আমাদের সামর্থ্য ও সক্ষমতার সেতু। এই সেতু এক দিকে সম্মান ও মর্যাদার প্রতীক, অন্য দিকে তথাকথিত দুুর্নীতির কথা বলে যে অপমান করা হয়েছে, সেই প্রতিশোধের সেতু।

তিনি জানান, পদ্মা সেতু উদ্বোধন উপলক্ষে ২৫ জুন সকাল ১০টায় মাওয়া প্রান্তে কূটনৈতিকসহ বিভিন্ন শ্রেণিপেশার মানুষদের নিয়ে সুধী সমাবেশ করা হবে। এখানে পদ্মা সেতুর ফলক উন্মোচন করা হবে। বেলা ১১টার পর শেখ হাসিনা পদ্মা সেতু পাড়ি দিয়ে ওপারে আরেকটি ফলক উন্মোচন করবেন। তারপর কাঁঠালবাড়ীতে লাখ লাখ মানুষের সমাবেশে দেশবাসীর সামনে কথা বলবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।


আরও খবর



বজ্রসহ বৃষ্টিপাতের পূর্বাভাস

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ১৬ জুন ২০২২ | হালনাগাদ:শনিবার ০২ জুলাই 2০২2 |
Image

ঢাকাসহ দেশের কোথাও কোথাও হাওয়াসহ হালকা থেকে মাঝারি ধরণের বৃষ্টি অথবা বজ্রসহ বৃষ্টি হতে পারে।

বৃহস্পতিবার (১৬ জুন) সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত আবহাওয়ায় পূর্বাভাসে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

আবহাওয়া অফিস জানিয়েছে, লঘুচাপের বর্ধিতাংশ বিহার থেকে গাঙ্গেয় পশ্চিমবঙ্গ পর্যন্ত বিস্তৃত রয়েছে। মৌসুমি বায়ু বাংলাদেশের উত্তরাঞ্চলের ওপর সক্রিয় এবং দেশের অন্যত্র মোটামুটি সক্রিয়। মৌসুমি বায়ু উত্তর বঙ্গোপসাগরে মাঝারি অবস্থায় রয়েছে।

এ অবস্থায় শুক্রবার সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত সিলেট, রংপুর ও ময়মনসিংহ বিভাগের অধিকাংশ জায়গায় ঢাকা, রাজশাহী ও চট্টগ্রাম বিভাগের অনেক জায়গায় এবং খুলনা ও বরিশাল বিভাগের কিছু কিছু জায়গায় অস্থায়ীভাবে দমকা হাওয়াসহ হালকা থেকে মাঝারি ধরনের বৃষ্টি অথবা বজ্রসহ বৃষ্টি হতে পারে। সেইসঙ্গে রংপুর, ময়মনসিংহ, চট্টগ্রাম ও সিলেট বিভাগের কোথাও কোথাও মাঝারি ধরনের ভারী থেকে অতি ভারী বর্ষণ হতে পারে।



আরও খবর



যুক্তরাষ্ট্রে আবারও বন্দুক হামলা, নিহত ২

প্রকাশিত:শুক্রবার ১৭ জুন ২০২২ | হালনাগাদ:শনিবার ০২ জুলাই 2০২2 |
Image

যুক্তরাষ্ট্রের আলাবামা অঙ্গরাজ্যের একটি চার্চে বন্দুকধারীর গুলিতে দুজন নিহত ও একজন আহত হয়েছেন। স্থানীয় সময় বৃহস্পতিবার (১৬ জুন) এ হামলার ঘটনা ঘটে। খবর এএফপি ও এনডিটিভির।

নগরির পুলিশ ডিপার্টমেন্ট ফেসবুক পোস্টে জানিয়েছে, এটি ভেস্তাভিয়া হিলস শহরের সেন্ট স্টিফেন এপিস্কোপাল চার্চে ঘটেছে। হামলার ঘটনায় সন্দেহভাজন হিসাবে একজনকে পুলিশ হেফাজতে নেওয়া হয়েছে।

এদিকে, চার্চের ওয়েবসাইটে বলা হয়েছে, একটি নৈশভোজের আয়োজন করা হয়েছিল। সেখানেই এ হামলার ঘটনা ঘটে।

পুলিশ ক্যাপ্টেন শেন ওয়্যার সাংবাদিকদের বলেন, হামলাকারী একাই চার্চে ঢুকে গুলি করা শুরু করে। এতে দুজন নিহত হন। আহত আরও একজনকে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে।

যুক্তরাষ্ট্রে সম্প্রতি মহামারির মতো অবস্থা তৈরি করেছে বন্দুক হামলা। গত ২৪ মে ছিল সম্প্রতি ঘটে যাওয়া ঘটনাগুলোর মধ্যে অন্যতম ঘটনা। সেটি হচ্ছে, টেক্সাসে একটি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে গুলিবর্ষণে ১৯ জন শিশু ও দুজন শিক্ষক নিহত হন।


আরও খবর