Logo
শিরোনাম

শিমুলিয়ায় লঞ্চযাত্রীদের চাপ বেশি, পাটুরিয়ায় ফেরির

প্রকাশিত:বুধবার ২৭ এপ্রিল ২০২২ | হালনাগাদ:শনিবার ০২ জুলাই 2০২2 |
Image

ঈদ সামনে রেখে ঘরমুখো মানুষ ও যানবাহনের চাপ বাড়ছে মানিকগঞ্জের পাটুরিয়া ঘাটে। গতকাল আজ সকাল থেকেই ওই ঘাটে প্রাইভেট কার, মাইক্রোবাসসহ ব্যক্তিগত ছোট গাড়ির দীর্ঘ লাইন তৈরি হয়। এর সঙ্গে রয়েছে দূরপাল্লার বাস ও পণ্যবাহী ট্রাক। এবার ঘরমুখো দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের ২১ জেলার মানুষের চাপ পড়বে পাটুরিয়া-দৌলতদিয়া নৌ রুটের ফেরিতে।

ওই রুটে যানবাহন ও যাত্রীদের বাড়তি চাপ সামাল দিতে ২১টি ফেরি চলার কথা রয়েছে। স্বাভাবিক সময়ে চলাচলরত ছোট-বড় ১৯টি ফেরির মধ্যে দুটি ফেরি অচল হয়ে পড়ায় প্রচণ্ড গরমে চরম দুর্ভোগে পড়েন যাত্রী ও চালকরা।

অন্যদিকে লঞ্চ পারাপার যাত্রীদের চাপ বেশি পড়বে মুন্সীগঞ্জের শিমুলিয়া ঘাট থেকে শরীয়তপুরের জাজিরার মাঝিকান্দি ও বাংলাবাজার নৌ রুটে। এ কারণে এই রুটে লঞ্চ চলাচলের সময়সীমা রাত ৮টা থেকে ২৪ ঘণ্টা করা হয়েছে। 

এদিকে মানুষের ঈদ যাত্রা নির্বিঘ্ন করতে ঈদের দিন এবং ঈদের আগে-পরে পাঁচ দিন করে মোট ১১ দিন দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া নৌ রুটে পণ্যবাহী ট্রাক পারাপার বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। তবে এ সময় পচনশীল পণ্য ও কাঁচামালবাহী ট্রাক অগ্রাধিকার ভিত্তিতে পারাপার হবে। গতকাল রবিবার বিকেলে রাজবাড়ী জেলা প্রশাসক আবু কায়সার খান এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। বিগত দিনে ঈদের আগে ও পরে তিন দিন করে পণ্য পারাপার বন্ধ রাখা হয়েছিল।

আজ সকাল থেকে পাটুরিয়া ঘাটে যানবাহনের দীর্ঘ সারি সৃষ্টি হয়। অন্তত পাঁচ শতাধিক ছোট গাড়ি ও দুই শতাধিক যাত্রীবাহী বাস পারের জন্য অপেক্ষমাণ থাকে। পাশাপাশি চার শতাধিক পণ্যবাহী ট্রাক পারের অপেক্ষায় জটলা বেঁধে থাকে। তবে সন্ধ্যার দিকে অপেক্ষমাণ ছোট গাড়ি ও বাসের চাপ কমলেও পণ্যবাহী ট্রাকের চাপ কমেনি। এতে দুই-তিন ঘণ্টা অপেক্ষা করে গাড়িগুলো ফেরি পার হয়।

এদিকে পাটুরিয়া-দৌলতদিয়া নৌরুটে চলমান ১৯টি ফেরির মধ্যে দুটি ফেরি বিকল হয়ে পড়ায় প্রচণ্ড গরমে চরম দুর্ভোগ পোহাতে হয় ঘাটে পার হতে আসা যাত্রী ও চালকদের।

বিআইডাব্লিউটিসির পাটুরিয়া ঘাটের সহকারী ব্যবস্থাপক মহিউদ্দীন রাসেল বলেন, বিকেলের দিকে যাত্রীবাহী যানবাহনের চাপ কিছুটা কমতে শুরু করবে। নৌ রুটে ছোট-বড় ১৯টি ফেরির মধ্যে ১৭টি ফেরি চলাচল করছে। বাকি দুটি ফেরি মেরামতে রয়েছে।

মুন্সীগঞ্জের লৌহজংয়ের শিমুলিয়া ফেরিঘাট থেকে শরীয়তপুরের জাজিরার মাঝিকান্দি ও বাংলাবাজার নৌ রুটে লঞ্চ চলাচলের সময়সীমা বাড়ানো হয়েছে। লঞ্চ মালিক সমিতির আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে আসন্ন ঈদ উপলক্ষে যাত্রীদের নির্বিঘ্নে পার করতে এ সিদ্ধান্ত নিয়েছে বিআইডাব্লিউটিএ। লঞ্চগুলো আজ  থেকে আগামী ২০ দিন রাতের বেলায় ৮টার পরিবর্তে ১০টা পর্যন্ত চলাচল করতে পারবে।

তবে কঠোর হাতে নিয়ন্ত্রণ করতে না পারলে পদ্মায় চলাচলকারী এসব লঞ্চ বিগত দিনের মতোই অবাধে চলতে পারে বলে ঘাটের একাধিক সূত্র মনে করছে। তা ছাড়া বেপরোয়াভাবে অতিরিক্ত যাত্রী পরিবহনের আশঙ্কা করা হচ্ছে। যা থেকে বড় দুর্ঘটনা ঘটতে পারে।



আরও খবর



বন্যাদুর্গত এলাকায় জরুরি টেলিসেবা স্থাপনে বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট

প্রকাশিত:রবিবার ১৯ জুন ২০২২ | হালনাগাদ:শনিবার ০২ জুলাই 2০২2 |
Image

সিলেট ও সুনামগঞ্জসহ কিছু এলাকায় দুর্যোগকালীন জরুরি টেলিযোগাযোগ সেবা স্থাপনে ব্যবহৃত হতে যাচ্ছে বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-১। শনিবার (১৮ জুন) দিবাগত রাতে বাংলাদেশ স্যাটেলাইট কোম্পানি লিমিটেডের (বিএসসিএল) চেয়ারম্যান শাহজাহান মাহমুদ এ তথ্য জানিয়েছেন।

তিনি জানান, দুর্যোগকালীন জরুরি টেলিযোগাযোগ সেবায় এবারই প্রথম বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-১ সেবা দিতে যাচ্ছে, যা এই স্যাটেলাইটের অন্যতম প্রধান উদ্দেশ্য। যদিও টেলিভিশন ও ব্যাংকিংসহ বিভিন্ন সেবায় স্যাটেলাইট সেবা দিয়ে যাচ্ছে। সিলেট ও সুনামগঞ্জের বন্য পরিস্থিতি ভয়াবহ, ১২২ বছরের ইতিহাসে এমন বন্যা হয়নি সেখানে বলে জানিয়েছেন দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী এনামুর রহমান।

বন্যাদুর্গত সিলেট ও সুনামগঞ্জ এলাকায় বিদ্যুৎ সরবরাহ বন্ধ, বন্ধ হয়ে গেছে মোবাইল নেটওয়ার্ক ও ইন্টারনেট সেবাও। বন্যা পরিস্থিতি মোকাবিলায় ও পানিবন্দি মানুষকে উদ্ধারে সিলেট ও সুনামগঞ্জ জেলায় শুক্রবার থেকে সেনাবাহিনী মোতায়েন করেছে সরকার।

বিএসসিএল জানায়, ডাক ও টেলিযোগাযোগ বিভাগের মন্ত্রী ও সচিবের নির্দেশে ও সরাসরি তত্ত্বাবধানে বাংলাদেশ স্যাটেলাইট কোম্পানি লিমিটেড এরই মধ্যে বাংলাদেশ সেনাবাহিনীকে ১২ সেট ভিস্যাট যন্ত্রপাতি দিয়েছে, যার মাধ্যমে জরুরি টেলিযোগাযোগ সেবা স্থাপন করা হবে। এ ছাড়াও বাংলাদেশ স্যাটেলাইট কোম্পানি লিমিটেড সিলেট বিভাগের বিভাগীয় কমিশনারের দপ্তরকেও আরও ২৩ সেট ভিস্যাট যন্ত্রপাতি দেওয়ার কাজ এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছে, যার মাধ্যমে আরো ২৩টি বন্যা উপদ্রুত এলাকায় জরুরি টেলিযোগাযোগ সেবা স্থাপন করা হবে। ‌

বিএসসিএল চেয়ারম্যান শাহজাহান মাহমুদ জানান, বাংলাদেশ স্যাটেলাইট কোম্পানি বন্যা উপদ্রুত এলাকায় নিয়োজিত সামরিক ও বেসামরিক প্রশাসনের প্রয়োজন অনুযায়ী আরও ভিস্যাট যন্ত্রপাতি সরবরাহ করতে সক্ষম, যার মাধ্যমে বন্যাকবলিত আরো এলাকায় জরুরি টেলিযোগাযোগ সেবা স্থাপন করা যাবে। মোবাইল কোম্পানিগুলোর প্রয়োজন অনুযায়ী মোবাইল নেটওয়ার্ক পুনরুজ্জীবিত করার কাজেও বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-১ ব্যবহার করা যেতে পারে।

ভিস্যাট এর মাধ্যমে দুর্যোগকালীন সময়ে নিরবিচ্ছিন্ন টেলিযোগাযোগ সেবা নিশ্চিত করার লক্ষ্যে বিএসসিএল ইতোমধ্যে একটি মনিটরিং সেল গঠন করেছে, যেটি মাঠ প্রশাসনের সঙ্গে সার্বক্ষণিক যোগাযোগ রেখে নিরবিচ্ছিন্ন সেবা নিশ্চিত করবে।

শাহজাহান মাহমুদ জানান, বন্যাকবলিত নীলফামারীতেও কাল ভিস্যাট পাঠানো হবে।

ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার জানিয়েছেন, আমাদের টেলিকম অপারেটরগুলো তিনটি করে টোল ফ্রি নম্বর চালু করেছে বানভাসী মানুষদের জন্য।

প্রয়োজনে কল করুন :

গ্রামীণফোন- 01769177266, 01769177267, 01769177268

রবি- 01852788000, 01852798800, 01852804477

বাংলালিংক- 01987781144, 01993781144, 01995781144

টেলিটক- 01513918096, 01513918097, 01513918098


আরও খবর



শেরপুরে ফের পাহাড়ি ঢল, দু‌র্ভো‌গে মানুষ

প্রকাশিত:শুক্রবার ১৭ জুন ২০২২ | হালনাগাদ:শনিবার ০২ জুলাই 2০২2 |
Image

শেরপুর জেলা প্রতিনিধি ঃ

বৃহস্পতিবার রাত থে‌কে ভারী বর্ষণ  ও উজান থে‌কে নে‌মে আসা পাহাড়ি ঢলের পানিতে দ্বিতীয় দফায় শেরপুরের নদ-নদীর পা‌নি বৃ‌দ্ধি পে‌য়ে‌ছে। এ‌তে ঝিনাইগাতী উপজেলার মহারশী ও সোমেশ্বরী নদীর পানি বৃদ্ধি পেয়ে উপজেলা সদরের বিভিন্ন অফিস, সদর, ধানাশাইল, গৌরীপুর, হাতিবান্দা ও মালিঝিকান্দাসহ ৫ ইউনিয়নের ২০ গ্রামের নিম্নাঞ্চল প্লাবিত হয়েছে। এসব এলাকার রামেরকুড়া, দিঘীর পাড়, চতলের বেড়িবাঁধ ভেঙ্গে উপজেলা সদর এবং আশপাশের বিভিন্ন এলাকায় পানি প্রবাহিত হচ্ছে। 

পানির তো‌ড়ে শুক্রবার রামেরকূড়া গ্রামের বাঁধের সাথে একটি বাড়ি ও মুরগীর খামার ভেসে গেছে। সেই সাথে ওই গ্রামের বেশ কয়েকটি বাড়ির মানুষ পানি বন্দি হয়ে পড়ায় স্থানীয় ফায়ার সার্ভিস বিভাগ উদ্ধারের চেষ্টা করছে। প্রবল পানির স্রোত থাকায় নিজ বা‌ড়ি ছে‌ড়ে অন‌্যত্র চ‌লে গে‌ছে।

এদিকে, চেল্লাখালী ও ভোগাই নদীর পা‌নি বে‌ড়ে‌ছে। এ‌তে নিম্নাঞ্চ‌লের বেশ ক‌য়েক‌টি গ্রাম প্লা‌বিত হ‌য়ে‌ছে।

ঝিনাইগাতী বাকাকুড়া গ্রা‌মের বা‌সিন্দা রমজান আলী ব‌লেন, রাই‌তে এল্লা মেঘ আই‌লো, সহা‌লেই দে‌হি আমার বা‌ড়ি উডা‌নে পা‌নি, প‌রে চুলার ম‌ধ্যে আগুন দিবার পাই‌নি। তাই বিস্কুট খাই‌য়ে আ‌ছি।

একই গ্রা‌মের বা‌সিন্দা আফজাল ব‌লেন, ঢলডা সহা‌লেই আই‌ছে। প‌রে খা‌লি বাড়‌তেই আ‌ছে, মেলা মানুষ ঘর থ‌নে বাই‌রে আবার পাইতা‌ছে না।

রামেরকূড়া গ্রামের বা‌সিন্দ‌া ফ‌কির মিয়া ব‌লেন, হডাত কই‌রি ঢল আই‌লো, আই‌য়ে বাধটা ভা‌ঙ্গি‌য়ে গেল গা। সা‌থে সা‌থে ওইহা‌নে এডা ঘর আ‌ছিল, মুরগীর খামার আ‌ছিল, সব  পা‌নির সা‌থে গে‌ছে গা। 

ঝিনাইগাতী উপ‌জেলা নির্বাহী অ‌ফিসার ফারুক আল মাসুদ ব‌লেন, বৃ‌ষ্টি ও উজা‌নের পানির কার‌ণে কিছু জায়গায় নিম্নাঞ্চল প্লা‌বিত হয়ে‌ছে। উপ‌জেলা প্রশাসন থে‌কে ক্ষ‌তিগ্রস্থ‌দের সহ‌যো‌গিতা করা হচ্ছে। পাশাপা‌শি স্থায়ী বাঁধ নির্মা‌ণে উর্ধ্বতন কর্তৃপ‌ক্ষকে জানা‌নো হ‌য়ে‌ছে। আশা ক‌রি, খুব দ্রুতই স্থায়ী বাঁধ নির্মাণ হ‌বে। আর পা‌নি ক‌মে যাওয়ার পর সংস্কার কাজ শুরু হ‌বে ইনশাআল্লাহ।

জেলা পা‌নি উন্নয়ন বো‌র্ডের উপ-বিভাগীয় প্রকৌশলী মো: শাহজাহান ব‌লেন, গত রাতে জেলা সদরে ৮৫‌ মি‌লি‌মিটার ও না‌লিতাবাড়ী উপ‌জেলায় ১১৫ মি‌লি‌মিটার বৃ‌ষ্টির রেকর্ড করা হ‌য়ে‌ছে। এছাড়া সকা‌লে না‌লিতাবাড়ীর চেল্লাখা‌লি নদীর পা‌নি বিপদসীমার ১৭৬ সে‌ন্টি‌মিটার ওপর দি‌য়ে প্রবা‌হিত হ‌য়ে‌ছে। আমরা এ বিষ‌য়ে উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ‌কে জা‌নি‌য়ে‌ছি। তা‌রা সব সময় নি‌র্দেশনা দি‌চ্ছেন। আশা ক‌রি, খুব দ্রুত সম‌য়ের ম‌ধ্যেই পা‌নি স্বাভা‌বিক হ‌বে, পাশাপা‌শি ঢ‌লে যে ক্ষ‌তি হ‌বে তা বরাদ্দ সা‌পে‌ক্ষে ব‌্যবস্থা নেওয়া হ‌বে।


আরও খবর



লালমনিরহাটে পিতার খুনি পুত্রকে আটক করেছে সিআইডি

প্রকাশিত:শুক্রবার ০৩ জুন ২০২২ | হালনাগাদ:শনিবার ০২ জুলাই 2০২2 |
Image

লালমনিরহাট জেলা প্রতিনিধি ঃ

লালমনিহাট কালীগঞ্জ উপজেলায় বাবার কবিরাজি চিকিৎসার কারণে যৌন ক্ষমতা হারিয়েছে এমন ক্ষোভ থেকে নিজের পিতাকে খুন করেছিলেন জাহাঙ্গীর আলম । দীর্ঘ চার বছেরর তদন্ত শেষে ক্লুলেস এই হত্যা মামলাটির রহস্য উদঘাটন করে খুনিকে গ্রেফতার করেছে লালমনিরহাট সিআইডি।

বৃহস্পতিবার (২ জুন) দুপুরে লালমনিরহাট পুশিশ সুপারের কার্যালয়ের তৃতীয় তলায় জেলা সিআইডির সম্মেলন কক্ষে সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানানো হয়।

সংবাদ সম্মেলনে জেলা (সিআইডির) অতিরিক্ত বিশেষ পুলিশ সুপার মোঃ ইসমাইল পিপিএম (বার) বলেন, ২০১৮ সালের ৩১ জুলাই কালিগঞ্জ উপজেলার নিথক অচিনতলা এলাকায় গভীর রাতে নিজ শয়নকক্ষে খুন হন গোলাম হোসেন(৪০)। তাকে ঘুমন্ত অবস্থায় গলায়, কাধে, ঘাড়ে কুপিয়ে হত্যা করা হয়। নিহতের বড় ছেলের দায়ের করা মামলায় তদন্ত কাজ শুরু করলেও কোন রহস্য খুঁজে পাওয়া যায়না।দীর্ঘ চার বছরে ছয়জন তদন্তকারী কর্মকর্তা ক্লুলেস মামলাটির রহস্য উদঘাটন করতে পারেননি।

চলতি বছরের মার্চে ৭ম তদন্ত কারী কর্মকর্তা হিসেবে দায়িত্ব নেন সিআইডির উপ-পরিদর্শক (এসআই) জায়েদুল ইসলাম জাহিদ।দায়িত্ব নিয়ে এই মামলার আসামী নিহত গোলাম হোসেনের দ্বিতীয় ছেলে জাহাঙ্গীর আলমকে গত ১০ এপ্রিল আটক করে আদালতে সাত দিনের রিমান্ড আবেদন করেন। আদালত দুই দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করলে সুকৌশলী জিজ্ঞাসাবাদে তার পিতাকে হত্যার কথা স্বীকার করেন সে।

জাহাঙ্গীরের স্বীকারোক্তি অনুযায়ী সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, তার বাবা ২০০৯ সালের দিকে কবিরাজি চিকিৎসায় তার যৌন ক্ষমতা নষ্ট করে দেন। পরের বছর বিয়ে করলে বাসর ঘরে তিনি বুঝতে পারেন তার যৌন ক্ষমতা নাই। সেই থেকে স্ত্রীর সাথে এই বিষয়টি নিয়ে মনোমালিন্য শুরু হয়। দীর্ঘ আট বছরের সংসার জীবনে অক্ষমতা নিয়ে স্ত্রীর সাথে কলহ, বিরোধ লেগে থাকলে পিতার প্রতি ক্ষোভ তৈরি হতে থাকে। এক পর্যায়ে তাকে হত্যা করলে যৌন ক্ষমতা ফিরে পাবেন মনে করে পরিকল্পনা করতে থাকেন। ঘটনার দিন স্ত্রী ঢাকায় গার্মেন্টস এ থাকায় এবং হালকা বৃষ্টিতে রান্না ঘর থেকে দা নিয়ে গিয়ে তার বাবাকে কুপিয়ে হত্যা করেন। বাবার লাশ বাড়ির পাশে গর্ত করে লুকিয়ে ফেলার পরিকল্পনা করলেও পিতার গোঙানিতে বড় ভাই ও ভাবি আসলে তিনি আর মরদেহ লুকাতে পারেননি। পরক্ষনে সেখানেই তার মৃত্যু হয়।

এ বিষয়ে আদালতে ১৬৪ ধারায় আদালতে স্বীকারোক্তি মূলক জবানবন্দি দিয়েছেন খুনি বলেও সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়।

সিআইডির এ সংবাদ সম্মেলনে লালমনিরহাট সিআইডির অতিরিক্ত বিশেষ পুলিশ সুপার ইসমাইল (পিপিএম বার) সিআইডি ইন্সপেক্টর মোঃ আজিমুদ্দিন,সাব-ইন্সপেক্টর জাহিদসহ প্রমূখ উপস্থিত ছিলেন।


আরও খবর



পানির নিচে ৭ জেলা, ছড়িয়ে পড়ার আশঙ্কা আরও ১৭টি

প্রকাশিত:শনিবার ১৮ জুন ২০২২ | হালনাগাদ:শনিবার ০২ জুলাই 2০২2 |
Image

রোকসানা মনোয়ার :  ভারতের মেঘালয় ও আসামে ক্রমাগত বৃষ্টি হওয়ায় তা বাংলাদেশে বন্যা পরিস্থিতির আরও অবনতি ঘটাতে পারে বলে সতর্ক করে দিয়েছে বন্যা পূর্বাভাস ও সতর্কীকরণ কেন্দ্র।

এর মধ্যেই সিলেট, সুনামগঞ্জ, মৌলভীবাজার, রংপুর ও কুড়িগ্রামসহ অন্তত সাত জেলা বন্যায় প্লাবিত হয়েছে। এসব জেলার প্রায় ৩৫ লাখ মানুষ বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।

বন্যা পূর্বাভাস কেন্দ্র বলছে, আগামী দুদিনের মধ্যে উত্তরাঞ্চল ও দেশের মধ্যাঞ্চলের আরও ১৭টি জেলা বন্যায় আক্রান্ত হতে পারে। কারণ সেসব এলাকায় বন্যার তীব্রতা বাড়ছে, নদীগুলোর পানি আরও বাড়তে শুরু করেছে।

সেই সঙ্গে সিলেট, সুনামগঞ্জ, নেত্রকোনা, লালমনিরহাট, নীলফামারী, রংপুর ও কুড়িগ্রাম জেলার বন্যা পরিস্থিতির আরও অবনতি হতে পারে।

বন্যা পূর্বাভাস কেন্দ্র সারাদেশের ১০৯টি নদী পর্যবেক্ষণ করছে। এর মধ্যে ৯৫টি নদীর পানি বৃদ্ধি পেয়েছে।

বন্যা পূর্বাভাস ও সতর্কীকরণ কেন্দ্রের নির্বাহী প্রকৌশলী মোহাম্মদ আরিফুজ্জামান ভুঁইয়া বলছেন, সিলেট, সুনাগমঞ্জ এলাকায় আজ শনিবার (১৮ জুন) এবং আগামীকালও বৃষ্টি হবে। ফলে সেসব এলাকার বন্যার পানি আরও বাড়তে পারে বলে আমরা আশঙ্কা করছি। সেই সঙ্গে যমুনা নদীর পানিও বাড়তে শুরু করেছে।

ফলে উত্তরাঞ্চলের আরও কিছু জেলা প্লাবিত হতে পারে। বন্যার এই পানি আবার নিচের দিকে নেমে এলে মধ্যাঞ্চলের কিছু জেলাগুলোও প্লাবিত হওয়ার শঙ্কা রয়েছে।

সড়ক ডুবে যাওয়ায় সুনামগঞ্জের সঙ্গে আগেই সারাদেশের সড়ক যোগাযোগ বন্ধ হয়ে গিয়েছে। মোহনগঞ্জে রেলব্রিজ ভেঙ্গে যাওয়ায় নেত্রকোনার সঙ্গেও রেল যোগাযোগ বন্ধ হয়ে গেছে। সিলেটের সাথে দেশ-বিদেশের বিমান যোগাযোগ বন্ধ রয়েছে শুক্রবার থেকে। অনেক এলাকায় বিদ্যুৎ সংযোগও বিচ্ছিন্ন হয়ে গেছে। সবমিলিয়ে বন্যা কবলিত অঞ্চলের লাখ লাখ মানুষ পানী বদ্ধি অবস্থায়। আশ্রয় ও খাবারের জন্য তারা সরকারি-বেসরকারি সাহায্যের অপেক্ষায় রয়েছে।

যেসব জেলায় বন্যা ছড়িয়ে পড়ার আশঙ্কা বন্যা পূর্বাভাস ও সতর্কীকরণ কেন্দ্রের তথ্য অনুযায়ী, ভারতে বৃষ্টি অব্যাহত থাকায় তা বাংলাদেশের কুড়িগ্রাম, সিলেট ও সুনামগঞ্জ জেলা থেকে প্রবেশ করে আরও এগিয়ে আসছে।

ফলে জামালপুর, বগুড়া, শেরপুর, গাইবান্ধা, সিরাজগঞ্জ, টাঙ্গাইল, মানিকগঞ্জ, লালমনিরহাট, নীলফামারী ও পাবনায় বন্যা ছড়িয়ে পড়তে পারে। এছাড়া নেত্রকোনা, কিশোরগঞ্জ, হবিগঞ্জ ও মৌলভিবাজারে বন্যা ছড়িয়ে পড়তে পারে। বন্যার পানি আরও নিচের দিকে নেমে এলে রাজবাড়ী, ফরিদপুর, শরীয়তপুর অঞ্চলেও বন্যা দেখা দেয়া ও ব্যাপকভাবে নদীভাঙন শুরুর ঝুঁকি রয়েছে।

মেঘালয় ও আসামের বৃষ্টি আশঙ্কা আরও বাড়াচ্ছে ভারতের আবহাওয়া অধিদপ্তর বলছে, আগামী ২৪ ঘণ্টায় চেরাপুঞ্জিতে আরও ৫৫০ মিলিমিটার বৃষ্টি হতে পারে। গত তিন দিনে এখানে প্রায় আড়াই হাজার মিলিমিটার বৃষ্টি হয়েছে। আসামে বৃষ্টি হতে পারে অন্তত ৩০০ মিলিমিটার। এসব এলাকার বৃষ্টির পানি বাংলাদেশের সিলেট ও কুড়িগ্রাম দিয়ে নেমে আসবে।

ভারতের মেঘালয়ের চেরাপুঞ্জিতে গত বৃহস্পতিবার ৯৭২ মিলি মিটার বৃষ্টিপাত রেকর্ড করা হয়েছে, যা ১২২ বছরের মধ্যে রেকর্ড। মেঘালয় ও আসামে বৃষ্টি না কমা পর্যন্ত বন্যা পরিস্থিতির উন্নতির আশা দেখছেন না আবহাওয়াবিদরা।

সিলেট, কানাইঘাট, সুনামগঞ্জ ও দিরাইয়ে সুরমা নদী, কুড়িগ্রামে ধরলা, চিলমারিতে ব্রহ্মপুত্র, লরেরগড়ে জাদুকাটা, কলমাকান্দায় সোমেশ্বরী নদীর পানি, নাকুয়াগাঁওয়ে ভোগাই বিপৎসীমার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে বলে বন্যা সতর্কীকরণ কেন্দ্র জানিয়েছে। ব্রহ্মপুত্র, তিস্তা নদীর পানিও বাড়ছে।

আবহাওয়ার পূর্বাভাসে বলা হয়েছে, আগামী ৭২ ঘণ্টায় বাংলাদেশের উত্তর-পূর্বাঞ্চলসহ, ভারতের আসাম, মেঘালয়ে মাঝারি থেকে ভারী বৃষ্টি হতে পারে। এসব পানি বাংলাদেশের সিলেট, সুনামগঞ্জ, নেত্রকোনা, কুড়িগ্রাম এলাকা থেকে বাংলাদেশের ভেতর দিয়ে সাগরে নামে। ফলে এসব এলাকার নদীর পানি আরও বৃদ্ধি পাওয়ার আশঙ্কা করছে বন্যা সতর্কীকরণ কেন্দ্র।

সুনামগঞ্জ শহরের বাসিন্দা তোফাজ্জল হোসেন সাংবাদিকদের বলেছেন, ‘বন্যায় আমার বাড়ি ডুবে গেছে। পরিবারের সবাইকে নিয়ে একজন প্রতিবেশীর দোতলার ছাদে উঠেছি। আমার মতো গ্রামের আরও অনেকে এখানে আশ্রয় নিয়েছে।

এখনো সেখানে দ্রুত পানি বাড়ছে বলে তিনি জানান।

আক্রান্তদের অনেকে প্রতিবেশীর বাড়ি, নৌকায় আশ্রয় পেলেও গবাদিপশু নিয়ে বিপদে পড়েছেন। সড়ক বা বাঁধগুলো ডুবে যাওয়ায় এসব প্রাণী রাখার জায়গা পাচ্ছেন না।

সাব-স্টেশনে পানি ঢুকে পড়ায় সুনামগঞ্জ এলাকার অনেক এলাকায় বিদ্যুৎ সরবরাহ বন্ধ রেখেছে বিদ্যুৎ বিভাগ। ফলে মোবাইল নেটওয়ার্ক কাজ করছে না। শুক্রবার থেকে বন্যা দুর্গতদের উদ্ধারে বেসামরিক প্রশাসনকে সহায়তা করতে শুরু করেছে সেনাবাহিনীর সদস্যরা।

সুনামগঞ্জের জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ জাহাঙ্গীর হোসেন বলেছেন, আটকে পড়া মানুষকে উদ্ধারের বিষয়কে এখন তারা অগ্রাধিকার দিচ্ছেন। ঢাকাসহ সারাদেশেরর সঙ্গে সুনামগঞ্জের সড়ক যোগাযোগ বন্ধ হয়ে গেছে।

সিলেট জেলাতেও বন্যা পরিস্থিতির আরও অবনতি হয়েছে। রানওয়ের কাছাকাছি পানি চলে আসায় সিলেট এম এ জি ওসমানী আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর শুক্রবার বিকেল থেকে বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। ক্যাম্পাসে বন্যার পানি ঢুকে পড়ায় শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্লাস-পরীক্ষাও স্থগিত করা হয়েছে।

রংপুরের সাইদুল ইসলাম বলছেন, তিনি ১২ বিঘা জমিতে বাদাম চাষ করেছিলেন। বন্যার আগে আগে মাত্র পাঁচ বিঘার ফসল তুলতে পেরেছিলেন। বাকিটা পানির নিচে চলে গেছে।

বন্যা ছড়িয়ে পড়তে পারে মধ্যাঞ্চলেও বন্যা সতর্কীকরণ কেন্দ্রের কর্মকর্তা আরিফুজ্জামান ভূঁইয়া জানিয়েছেন, ভারতের মেঘালয়ের চেরাপুঞ্জিতে গত বৃহস্পতিবার থেকে শুক্রবার পর্যন্ত ৯৭২ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত রেকর্ড করা হয়েছে। ১২২ বছরে এটি রেকর্ড।

আরিফুজ্জামান ভূঁইয়া বলেন, মেঘালয়ের চেরাপুঞ্জির সেই বৃষ্টির পানি খুবই দ্রুত গতিতে সুনামগঞ্জ ও সিলেট অঞ্চলে নেমে এসেছে। এ জন্য বন্যা অল্প সময়ে সিলেট অঞ্চলে ভয়াবহ রূপ নিয়েছে।

তিনি জানিয়েছেন, বৃষ্টি অব্যাহত থাকায় দেশের উত্তরে কুড়িগ্রাম, লালমনিরহাট ও নীলফামারীসহ কয়েকটি জেলাতেও আগামী কয়েকদিন বন্যা পরিস্থিতির অবনতি হতে পারে। এছাড়া উত্তরের জেলাগুলোর পানি নামার সময় সিরাজগঞ্জ টাঙ্গাইলসহ মধ্যাঞ্চলের জেলাগুলোতেও বন্যা হতে পারে।

বন্যা সতর্কীকরণ কেন্দ্রের কর্মকর্তা আরিফুজ্জামান ভূঁইয়া মনে করেন, এ বছর বর্ষা মৌসুমের আগেই এপ্রিল মে মাসে ব্যাপক বৃষ্টি হয়েছে। এ কারণে নদীগুলোতে বিপৎসীমার কাছে পানি ছিল। এখন ভারী বৃষ্টি হওয়ায় অল্প সময়েই সিলেট অঞ্চলসহ বিভিন্ন জায়গা প্লাবিত হয়ে বন্যা পরিস্থিতি বেশি খারাপ হয়েছে। 


আরও খবর



একাই পাঁচ গোল করলেন মেসি

প্রকাশিত:সোমবার ০৬ জুন ২০২২ | হালনাগাদ:শুক্রবার ০১ জুলাই ২০২২ |
Image

একে একে প্রতিপক্ষ এস্তোনিয়ার জালে পাঁচবার বল ঢুকিয়েছেন সাতবারের ব্যালন ডি’অর জয়ী লিওনেল মেসি। ক্লাব ফুটবলে বার্সেলোনার হয়ে এক ম্যাচে পাঁচ গোলের রেকর্ড থাকলেও জাতীয় দলের জার্সিতে এর আগে তিন গোলের বেশি ছিল না। এবার সেই আক্ষেপই যেন দূর করলেন আর্জেন্টাইন তারকা। ক্যারিয়ারের অষ্টম আন্তর্জাতিক হ্যাটট্রিকের দিনে গোল উৎসবই করলেন ক্ষুদে জাদুকর।

রবিবার (৫ জুন) দিবাগত রাতে ওসাসুনার মাঠ আল সদর স্টেডিয়ামে একাই দলের হয়ে পাঁচটি গোল করেন লিওনেল মেসি।

শুরু থেকে প্রায় পুরোটা সময় নিজেদের অর্ধ ও ডি বক্সের আশপাশেই ছিলেন এস্তোনিয়ার খেলোয়াড়। ল্যাতিন পরাশক্তিদের বিপক্ষে নিজেদের প্রথম ম‍্যাচে লড়াইয়ের মানসিকতা দেখাতে পারেনি তারা।

২০১৯ সালের পর আর কোনো ম‍্যাচ না হারা দলটি এগিয়ে যায় অষ্টম মিনিটে মেসির সফল স্পট কিকে। হেরমান পেস্সেইয়াকে এস্তোনিয়ার গোলরক্ষক ফাউল করায় পেনাল্টি পেয়েছিল দুইবারের বিশ্ব চ‍্যাম্পিয়নরা। এ গোলের মধ্যদিয়ে আর্জেন্টিনার জার্সিতে ভিন্ন ভিন্ন ৩০টি দলের বিপক্ষে গোলের রেকর্ড গড়েন মেসি।

এদিন ফিনালিসিমা ম্যাচের একাদশ থেকে আট পরিবর্তন নিয়ে মাঠে নামে আর্জেন্টিনা। এতে বড় পরিবর্তনে খেলার ওপর কোনো প্রভাব পড়েনি আলবিসেলেস্তেদের। প্রথমার্ধে প্রায় ৮৫ শতাংশ সময় বল দখলে রেখে একের পর এক আক্রমণ করে যায় আর্জেন্টিনা।


আরও খবর