Logo
শিরোনাম

সকালে লেবু পানি পানের স্বাস্থ্য উপকারিতা

প্রকাশিত:শনিবার ১৩ আগস্ট ২০২২ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ০৬ অক্টোবর ২০২২ |
Image

এক গ্লাস পানিতে লেবুর রস মিশিয়ে নিয়মিত পান করলে অনেক ছোট-বড় রোগ থেকে থাকা যায় দূরে। চাইলে মিশিয়ে নিতে পারেন স্বাদ মতো মধু। জেনে নিন লেবু পানি পানের কিছু উপকারিতা সম্পর্কে।

১. হজম ক্ষমতা বাড়ানোর পাশাপাশি শরীর ঝরঝরে করতে জুড়ি নেই লেবু পানির।

২. গরম পানিতে একটি লেবুর রস মিশিয়ে পান করুন রোজ। বাড়তি ওজন ঝরবে দ্রুত।

৩. লেবুতে থাকা ভিটামিন সি ত্বকে বলিরেখা পড়তে দেয় না সহজে। পাশাপাশি ত্বক করে উজ্জ্বল ও সুন্দর।

৪. শরীরের দূষিত বিভিন্ন উপাদান সহজে দূর হয় লেবু পানি নিয়মিত পান করলে।

৫. গবেষণা মতে, লেবু পানি পান করলে কিডনিতে পাথর হওয়ার ঝুঁকি কমে।

তথ্য: হেলথলাইন।


আরও খবর

যোগাসনে ব্যায়াম হবে পুরো শরীরের

সোমবার ১২ সেপ্টেম্বর ২০২২

খালি পেটে কাঁচা রসুন কেন খাবেন

শনিবার ০৩ সেপ্টেম্বর ২০২২




পূজা মণ্ডপে চলছে মহানবমীর আনুষ্ঠানিকতা

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ০৪ অক্টোবর ২০২২ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ০৬ অক্টোবর ২০২২ |
Image

শারদীয় দুর্গোৎসবের মহানবমী আজ। ঢাকেশ্বরীসহ রাজধানীর সব পূজা মণ্ডপে চলছে মহানবমীর সব আনুষ্ঠানিকতা।

সকালে মহানবমী বিহিত পূজায় মুখর মণ্ডপ। পূজা শেষে হবে হোমযজ্ঞ। এর আগে গেল দিন নবমী তিথির লগ্নে সন্ধি পূজায় অসুর বধ করেছেন দেবী। মহানবমীতে হোমযজ্ঞে শান্তির প্রার্থনা করবেন ভক্তরা। আগামীকাল বিসর্জনের মধ্য দিয়ে শেষ হবে পাঁচদিনের এই উৎসব। তাই আজ দেবীকে প্রাণ ভরে দেখার দিন। এদিকে, পূজা উপলক্ষে দেশে সবকটি পূজামণ্ডপে নেয়া হয়েছে কঠোর নিরাপত্তা।


আরও খবর

শিগগিরই বাড়ছে বিদ্যুতের দাম

মঙ্গলবার ০৪ অক্টোবর ২০২২




শিরক থেকে দূরে থাকতে হবে

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ১৫ সেপ্টেম্বর ২০২২ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ০৬ অক্টোবর ২০২২ |
Image

শিরক একটি আরবি শব্দ যার অর্থ অংশ। ইসলামী পরিভাষায় সর্বশক্তিমান আল্লাহতায়ালার সঙ্গে কাউকে শরিক করা, কাউকে তাঁর সমকক্ষ ভাবা কিংবা অংশীদার করাকে শিরক বলে।

এটি একটি জঘন্য অপরাধ এবং কবিরা গুনাহ। মহান সর্বশক্তিমান আল্লাহতায়ালা শিরককে বড় মিথ্যা এবং জুলুম বলে আখ্যায়িত করেছেন। রসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের হাদিসে বলা হয়েছে- আল্লাহ তার বান্দার যে কোনো গুনাহকে ক্ষমা করে দেন। কিন্তু শিরকের গুনাহকে ক্ষমা করেন না। আমাদের সমাজে আল্লাহতায়ালার সঙ্গে বিভিন্নভাবে এবং বিভিন্ন পন্থায় শিরক করা হয়ে থাকে। মানুষ পাথর, অগ্নি, গাছ ও কবর পূজা ইত্যাদির মাধ্যমে শিরক করে। তা ছাড়া ব্যবসা-বাণিজ্য, চাকরি-বাকরি, বিবাহশাদি, রোগ-শোক, আয়-রোজগার ইত্যাদির ক্ষেত্রেও বিভিন্নভাবে এবং বিভিন্ন পন্থায় শিরক করা হয়। শিরক চার ভাগে বিভক্ত করা হয়েছে। ১. আল্লাহর মূল সত্তায় শিরক, ২. আল্লাহর গুণাবলিতে শিরক, ৩. আল্লাহর অধিকারে শিরক, ৪. আল্লাহর এখতিয়ারে শিরক। পবিত্র কোরআনে শিরকের পরিণাম সম্পর্কে সতর্ক করে বলা হয়েছে- এটি একটি ক্ষমাহীন অপরাধ।

ইরশাদ করা হয়েছে, ‘নিশ্চয়ই আল্লাহ তাকে ক্ষমা করেন না, যে তার সঙ্গে কাউকে শরিক করে। এ ছাড়া যাকে ইচ্ছা ক্ষমা করেন এবং কেউ আল্লাহর সঙ্গে শরিক করলে সে ভীষণভাবে পথভ্রষ্ট হয়। তারা তার পরিবর্তে শুধু দেবীরই পূজা করে এবং বিদ্রোহী শয়তানের পূজা করে।’ (৪-সুরা নিসা : ১১৬-১১৭)। যারা আল্লাহ ব্যতীত অন্য কাউকে উপাস্য হিসেবে মানে তারা পথভ্রষ্ট। ইরশাদ করা হয়েছে- স্মরণ কর, যখন ইবরাহিম তার পিতা আজরকে বললেন : ‘তুমি কি প্রতিমাগুলোকে উপাস্য মনে কর? আমি দেখতে পাচ্ছি যে, তুমি ও তোমার সম্প্রদায় প্রকাশ্য পথভ্রষ্ট।’ (৬ সুরা আনয়াম : ৭৪)। আল্লাহ মানুষকে সৃষ্টি করেছেন তার ইবাদতের জন্য। শিরকমুক্ত ইবাদতের মাধ্যমে বান্দা আল্লাহর সন্তুষ্টি বিধান করতে পারে।

সর্বশেষ ও শ্রেষ্ঠ নবী মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের নির্দেশিত পথে আল্লাহর ইবাদত করতে হবে। হজরত আদম (আ.)-এর মাধ্যমে দুনিয়ার বুকে প্রথম নবীর আগমন, মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের আগমনের মাধ্যমে পৃথিবীতে নবী রসুলের আগমন পর্বের সমাপ্তি টানা হয়েছে। মহানবী মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের পর পৃথিবীতে আর কোনো নবী আসবেন না। তিনি হলেন বিশ্ববাসীর জন্য মনোনীত নবী।

কেয়ামত পর্যন্ত যত মানুষ পৃথিবীতে আসবে তারা তার উম্মতের মধ্যেই গণ্য হবে। রসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম আল্লাহর পথে মানুষকে ডাকার এ মহান জিম্মাদারি তার উম্মতের মধ্যে যারা কোরআন হাদিসের জ্ঞানে জ্ঞানী তাদের ওপর দিয়েছেন। মহানবীর আগে যে হাজার হাজার নবী রসুল এসেছেন তাদের বিশেষ সম্প্রদায়ের নবী রসুল হিসেবে পৃথিবীতে পাঠানো হয়েছিল। কিন্তু আখেরি নবীর আগমন ঘটেছে সমগ্র মানবজাতির জন্য। ইরশাদ করা হয়েছে- ‘হে নবী আমি তোমাকে সারা বিশ্বের জন্য রহমত হিসেবে প্রেরণ করেছি।’ (২১ সুরা আম্বিয়া : ১০৭)।


আরও খবর

শারদীয় দুর্গোৎসব কাল শুরু

শুক্রবার ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২২




জনগণের দোরগোড়ায় স্বাস্থ্যসেবা পৌঁছে দিতে হবে.. প্রধানমন্ত্রী

প্রকাশিত:রবিবার ১১ সেপ্টেম্বর ২০২২ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ০৬ অক্টোবর ২০২২ |
Image

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, সরকার এবং সংশ্লিষ্ট অংশীজনদের সম্মিলিত এবং সময়োপযোগী প্রচেষ্টা কোভিড-১৯ মহামারি থেকে বহু জীবন বাঁচিয়ে সম্ভাব্য বিপর্যয় এড়াতে পারে।

সরকারপ্রধান বলেন, ‘বাংলাদেশ সফলভাবে কোভিড-১৯ মহামারি মোকাবিলা করেছে এবং অনেক জীবন বাঁচাতে সক্ষম হয়েছে। জনসংখ্যার ঘনত্ব বিবেচনা করে অনেকেই আশঙ্কা করেছিলেন যে, মহামারির কারণে বিপুলসংখ্যক মানুষ মারা যাবে। তবে সরকার এবং সংশ্লিষ্ট অংশীজনদের সমন্বিত এবং সময়োপযোগী প্রচেষ্টা সম্ভাব্য বিপর্যয় এড়াতে পারে।

এই সম্মেলন সর্বশেষ গবেষণার তথ্য ও কৌশল শেয়ার করার জন্য একটি প্ল্যাটফর্ম প্রদান করবে এবং ব্যথা, ব্যথার ওষুধ, মূল্যায়নের সরঞ্জাম এবং ব্যথা ব্যবস্থাপনার বিভিন্ন ক্ষেত্র থেকে আন্তর্জাতিক গবেষকদের জন্য একটি ফোরাম গঠনে সহায়তা করবে বলে প্রধানমন্ত্রী আশা প্রকাশ করেন।

শেখ হাসিনা এই গুরুত্বপূর্ণ সম্মেলন আয়োজনের জন্য বাংলাদেশ সোসাইটি অব অ্যানেস্থেসিওলজিস্টস ক্রিটিক্যাল কেয়ার অ্যান্ড পেইন ফিজিশিয়ানস-বিএসএ-সিসিপিপিকে অভিনন্দন জানান এবং দেশ-বিদেশের অংশগ্রহণকারীদের স্বাগত জানান।

দেশের স্বাস্থ্য খাতের সার্বিক উন্নয়নে তার সরকারের পদক্ষেপের সংক্ষিপ্ত বিবরণ দিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘সাম্প্রতিক সময়ে বাংলাদেশ স্বাস্থ্য খাতে উল্লেখযোগ্য অগ্রগতি করেছে।’

তিনি বলেন, ‘বর্তমানে দেশে ৫টি মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় এবং ১১৬টি মেডিকেল কলেজ রয়েছে। গত এক দশকে সরকারি হাসপাতালের শয্যা সংখ্যা দ্বিগুণ হয়েছে। বেসরকারি খাতে দেশে প্রচুর সুপার-স্পেশালিটি হাসপাতাল প্রতিষ্ঠিত হয়েছে।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘তার সরকার জনগণের দোরগোড়ায় স্বাস্থ্যসেবা পৌঁছে দিতে সারা দেশে প্রায় সাড়ে ১৮ হাজার কমিউনিটি ক্লিনিক ও ইউনিয়ন স্বাস্থ্যসেবা কেন্দ্র প্রতিষ্ঠা করেছে। দরিদ্র মানুষকে বিনামূল্যে ৩০টি বিভিন্ন ধরনের ওষুধ দেওয়া হচ্ছে।


আরও খবর

শিগগিরই বাড়ছে বিদ্যুতের দাম

মঙ্গলবার ০৪ অক্টোবর ২০২২




হিমাচলে পর্যটকবাহী গাড়ি খাদে পড়ে নিহত ৭

প্রকাশিত:সোমবার ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২২ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ০৪ অক্টোবর ২০২২ |
Image

পর্যটকদের নিয়ে খাদে পড়ে খানখান হয়ে গেল গাড়ি। হিমাচল প্রদেশের কুলু জেলায় রোববার রাতের এই দুর্ঘটনায় মৃত্যু হয়েছে সাত পর্যটকের। আহত হয়েছেন অন্তত ১০ জন।

জানা গেছে, রোববার রাত সাড়ে ৮টা নাগাদ কুলু জেলার বানজার এলাকায় ৩০৫ নম্বর জাতীয় সড়ক ধরে এগোচ্ছিল পর্যটকবাহী ওই গাড়িটি। রাতের অন্ধকারে নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে খাদে পড়ে যায় গাড়িটি। গভীর খাদে পাথরের ওপর আছড়ে পড়ে ছিন্নভিন্ন হয়ে যায় গাড়িটি।

স্থানীয়রাই প্রথমে উদ্ধারকাজ শুরু করেন। আহতদের উদ্ধার করে নিয়ে যাওয়া হয় স্থানীয় হাসপাতালে। সেখানে প্রাথমিক চিকিৎসার পর পাঁচ জনকে কুলু হাসপাতালে স্থানান্তরিত করা হয়। বাকি পাঁচ জনের চিকিৎসা চলছে বানজার হাসপাতালেই। তাদের পরিচয় জানার চেষ্টা করছে পুলিশ।

পুলিশ জানায়, মৃতরা রাজস্থান, মধ্যপ্রদেশ, হরিয়ানা এবং দিল্লির বাসিন্দা। কুলুতে তারা সকলেই ঘুরতে এসেছিলেন।

কুলুর জেলা প্রশাসক আশুতোষ গর্গ জানিয়েছেন, দুর্ঘটনা কবলিত গাড়িটিতে চালক-সহ মোট ১৭ জন ছিলেন। কিন্তু কীভাবে গাড়িটি নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে খাদে পড়ে যায়, তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে।

পাহাড়ি রাস্তায় খাদের ধার দিয়ে গাড়ি চালানোর সময় চালকদের বাড়তি সতর্কতা অবলম্বন করতে বলা হয়। এ ব্যাপারে প্রশাসনের তরফেও গাড়ির মালিক এবং চালকদের সচেতন করা হয়ে থাকে। তবু দুর্ঘটনা এড়ানো যাচ্ছে না কেন, তা নিয়ে প্রশ্ন উঠছে।


সূত্র- এনডিটিভি।


আরও খবর

চিকিৎসাবিজ্ঞানের নোবেল ঘোষণা

মঙ্গলবার ০৪ অক্টোবর ২০২২




বিজয়া দশমী উপলক্ষে রাঙ্গামাটিতে গুর্খা সম্প্রদায়ের টিকা লাগানো উৎসব

প্রকাশিত:বুধবার ০৫ অক্টোবর ২০২২ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ০৬ অক্টোবর ২০২২ |
Image

উচিংছা রাখাইন,রাঙ্গামাটি প্রতিনিধি 

শারদীয় দূর্গাপূজা বিজয়া দশমী উপলক্ষে প্রতিবছরের ন্যায় উৎসাহ উদ্দীপনার মধ্যদিয়ে রাঙ্গামাটিতে বসবাসরত গুর্খা সম্প্রদায়ের বিজয়া দশমীর টিকা লাগাউনে উৎসব (বড়রা ছোটদেরকে আর্শিবাদ দেওয়া) অনুষ্ঠিত হয়েছে।

আজ সকালে শহরের বিভিন্ন পূজা মন্ডপে শারদীয় দূর্গাপূজা দশমীর অঞ্জলী প্রদান শেষে গুর্খা সম্প্রদায়ের বাড়িতে বাড়িতে এই উৎসব চলে।

আর এরই ধারাবাহিকতায় রাঙ্গামাটির জেল রোডস্থ সুর নিকেতন সঙ্গীত শিক্ষালয় ভবনে মোমবাতি প্রজননের মাধ্যমে রাঙ্গামাটিতে বসবাসরত গুর্খা সম্প্রদায়ের টিকা লাগাউনে উৎসব (বড়রা ছোটদেরকে আর্শিবাদ দেওয়া) পালন করা হয়।

এসময় অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, রাঙ্গামাটি প্রেস ক্লাবের সাবেক সভাপতি এ কে এম মকছুদ আহমেদ, রাঙ্গামাটি ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠি সাংস্কৃতিক ইনস্টিটিউটের পরিচালক রণেল চাকমা, রাঙ্গামাটি প্রেস ক্লাবের সভাপতি সাখাওয়াৎ হোসেন রুবেল, রাঙ্গামাটি জেলা শিল্পকলা একাডেমী সাধারণ সম্পাদক মুজিবুল হক বুলবুল,রেস ক্লাবে সদস্য একাত্তর টিভি রাঙ্গামাটি জেলা প্রতিনিধি উচিংছা রাখাইন কায়েস,   নাট্য পরিচালক আশিক সুমনসহ গুর্খা সম্প্রদায়ের অন্যান্য নেতৃবৃন্দ ও সুর নিকেতন সঙ্গীত শিক্ষালয়ের ছাত্র-ছাত্রীরা।

এসময় বক্তারা বলেন, আদিকাল থেকে পার্বত্য চট্টগ্রামে বসবাসরত গুর্খা সম্প্রদায়ের মানুষ শারদীয় দূর্গা উৎসবের দশমীর দিনে এই ‘টিকা লাগাউনে উৎসব’ পালন করে আসছে। এই উৎসবের মাধ্যমে সম্প্রীতি-ভ্রাতৃত্ববোধ ও পারস্পরিক সৌহাদ্য উত্তর উত্তর বৃদ্ধি পাবে বলে তারা আশাবাদ ব্যক্ত করেন।

পরে গুর্খা সম্প্রদায়ের বাড়িতে বাড়িতে কপালে টিকা দিয়ে এবং অতিথি আপায়ন করিয়ে নিজস্ব আচার অনুষ্ঠান পালনের মধ্যদিয়ে টিকা লাগাউনে (বড়রা ছোটদেরকে আর্শিবাদ দেওয়া) উৎসব পালন করা হয়।


আরও খবর