Logo
শিরোনাম

শ্রীনগরে প্রস্তুতি কালে ৪ ডাকাত গ্রেফতার

প্রকাশিত:বুধবার ২৭ এপ্রিল ২০২২ | হালনাগাদ:সোমবার ১৬ মে ২০২২ | ৪৯৪জন দেখেছেন
Image

শ্রীনগর সংবাদদাতাঃ

মুন্সীগঞ্জের শ্রীনগরে প্রস্তুতি কালে ৪ ডাকাতকে গ্রেফতার করেছে থানা পুলিশ। বুধবার ভোর ৪ টার দিকে উপজেলার তন্তর ইউনিয়ন থেকে তাদের গ্রেফতার করা হয়। গ্রেপ্তারকৃতরা হলেন, ব্রাহ্মনবাড়ীয়া জেলার নাসিরনগর থানার চিটাচুনী গ্রামের নায়েব আলীর ছেলে মোশারফ হোসেন (৩৮), কসবা থানার মাহফুজ মিয়ার ছেলে ফারুক (৩৪), নারায়ণগঞ্জ জেলার আড়াইহাজার থানার রোশন আলীর ছেলে এরদোয়েন (৩১), দক্ষিণ কেরাণীগঞ্জ থানার আব্দুর রশিদের ছেলে দুলাল (৩২)।

পুলিশ সূত্রে জানাযায়, রাত দেড়টার দিকে উপজেলার  কল্লিগাঁও ব্রীজের উপর শ্রীনগড় থানা পুলিশ ডিউটিরত অবস্থা গোপন সূত্রে সংবাদ পায়  তন্তুর ইউনিয়নের  কুমারবাড়ী ব্রীজের পশ্চিম পাশে টাওয়ারের সামনে কতিপয় ডাকাতদল সিএনজি যোগে দেশীয় তৈরী অস্ত্রশস্ত্র নিয়া ডাকাতি করার প্রস্তুতি নিচ্ছে। সেই খবর পেয়ে রাত  ২টার দিকে  ঘটনাস্থলে  পুলিশের গাড়ি নিয়ে উপস্থিত হলে

ডাকাতরা রাস্তার উপর থাকা তাদের ঢাকা মেট্রোর খ-১১-৮১০৯ সবুজ রংয়ের সিএনজি যোগে পালানোর চেষ্টা করে। তখন পুলিশের গাড়ী দিয়া সিএনজিটিকে রাস্তায় বেরিকেট সৃষ্টি করলে ডাকাতরা সিএনজি থেকে নেমে পালানোর চেষ্টাকালে ৪জনকে গ্রেফতার করা হয়। এসময় তাদের সঙ্গে থাকা ৮টি দেশীয় অস্ত্র  উদ্ধার করা হয়। 

 শ্রীনগর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আমিনুল ইসলাম বলেন, রাতেই ৪জন ডাকাতে গ্রেফতার  করা হয়। আজ সকালে তাদের বিজ্ঞ আদালতে প্রেরণ করা হয়েছে। এছাড়া তাদের ব্যবহৃত সিএনজি, চাপাতি, গ্রিল কাটারসহ তাদের সাথে থাকা সকল দেশীয় অস্ত্র জব্দ করা হয়েছে।


আরও খবর



রাজধানীতে সকাল এল বজ্রসহ শিলাবৃষ্টি নিয়ে

প্রকাশিত:বুধবার ২০ এপ্রিল ২০22 | হালনাগাদ:রবিবার ১৫ মে ২০২২ | ১০০জন দেখেছেন
Image

ভোরের আলো ফোটার পর সকাল সাড়ে ৬টার দিকে মেঘাচ্ছন্ন হয়ে আসে ঢাকার আকাশ। পৌনে ৭টার দিকে ঝড়ো বাতাসের সঙ্গে শুরু হয় বজ্রপাত, এরপর শিলাবৃষ্টি।

দেশের কয়েকটি এলাকায় মৃদু তাপপ্রবাহ বয়ে যাচ্ছে গত কয়েক দিন ধরে, ঢাকাতেও ছিল প্রচণ্ড গরম। সকালের বৃষ্টিতে রাজধানীতে স্বস্তি এনেছে খানিকটা। তবে বাতাস আর বৃষ্টির দাপট ঘণ্টাখানেকের বেশি স্থায়ী হয়নি।

আবহাওয়া অধিদপ্তরের আবহাওয়াবিদ ওমর ফারুক জানিয়েছেন, আজ ভোরে ঢাকায় প্রায় আধা ঘণ্টার মতো ৪৪ মিলিমিটার বৃষ্টি হয়েছে।

এমন বৃষ্টি অব্যাহত থাকবে কি না, এ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, কালবৈশাখী ধারবাহিকভাবে হয় না। এটা মৌসুমে একাধিকবার হতে পারে। সে মৌসুম এখনো শেষ হয়নি।

এদিকে বছরের প্রথম কালবৈশাখী ঝড়ে রাজধানীর অনেক সড়কে ভেঙে পড়েছে গাছপালা। ভেঙে পড়া গাছপালা সরাতে ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা কাজ শুরু করেছেন। তবে বড় ধরনের ক্ষয়ক্ষতির কোনো খবর পাওয়া যায়নি।

গতকাল সন্ধ্যায় আবহাওয়া অধিদপ্তর জানিয়েছিল, আজ রংপুর, ময়মনসিংহ ও সিলেট বিভাগের কিছু কিছু জায়গায় এবং রাজশাহী, ঢাকা ও খুলনা বিভাগের দুয়েক জায়গায় অস্থায়ীভাবে দমকা বা ঝোড়ো হাওয়ার সাথে প্রবল বিজলি চমকানোসহ বৃষ্টি বা বজ্রসহ বৃষ্টি হতে পারে। সেইসাথে দেশের কোথাও কোথাও বিক্ষিপ্তভাবে শিলাবৃষ্টি হতে পারে।


আরও খবর



অশনির প্রভাবে উপকূলীয় রাঙ্গাবালীতে বৃষ্টি, সাগর উত্তাল

প্রকাশিত:সোমবার ০৯ মে ২০২২ | হালনাগাদ:সোমবার ১৬ মে ২০২২ | ৫৮জন দেখেছেন
Image

পটুয়াখালী জেলা প্রতিনিধিঃ

ঘূর্ণিঝড় অশনির প্রভাবে উপকূলীয় সাগরপাড়ের দ্বীপ রাঙ্গাবালীতে বৈরী আবহাওয়া বিরাজ করছে। সোমবার ভোর থেকে দিনভর কয়েক দফায় কখনো মুষলধারে, আবার কখনো মাঝারি বৃষ্টি হয়েছে। উত্তাল হয়ে উঠেছে বঙ্গোপসাগর। মাছ ধরার ট্রলারগুলো নিরাপদে আশ্রয় নিতে শুরু করেছে। 

অশনির আতঙ্ক দেখা দিয়েছে উপকূলবাসীর।  উপজেলার কলাগাছিয়া, চরকাশেম ও চরনজিরসহ কয়েকটি বেড়িবাঁধহীন এলাকা রয়েছে। ঝড়-বন্যায় দুর্যোগ ঝুঁকিতে থাকে সেখানকার কয়েক হাজার মানুষ। অন্যদিকে, চালিতাবুনিয়া ইউনিয়নের গোলবুনিয়া ও চরলতা এলাকার বন্যা নিয়ন্ত্রণ বেড়িবাঁধ এখনও ভাঙা রয়েছে।  অরক্ষিত ওইসব এলাকায় অশনির প্রভাবে  জোয়ারের পানি বাড়লে ঝুঁকিও বাড়বে। 

প্রশাসন বলছে, উপজেলার ৫৭টি আশ্রয় কেন্দ্র প্রস্তুত রাখা হয়েছে। সতর্ক সংকেত বাড়লেই ঝুঁকিপূর্ণ এলাকার লোকজনদের নিরাপদ স্থানে সরিয়ে আনা হবে।  

উল্লেখ্য, আবহাওয়ার সর্বশেষ বুলেটিন অনুযায়ী ঘূর্ণিঝড়টি পায়রা সমুদ্র বন্দর থেকে ৯৯৫ কি.মি দক্ষিণ-দক্ষিণপশ্চিমে অবস্থান করছিল। তাই পায়রা সমুদ্র বন্দরে দুই নম্বর দূরবর্তী হুশিয়ারি সংকেত বহাল রাখা হয়েছে। 


আরও খবর



কাশিমপুর কারাগারে শিশু ও মহিলা হাজতিরা পেলেন ঈদ উপহার

প্রকাশিত:শনিবার ৩০ এপ্রিল ২০২২ | হালনাগাদ:সোমবার ১৬ মে ২০২২ | ১৩৭জন দেখেছেন
Image

সদরুল আইন, গাজীপুর জেলা প্রতিনিধিঃ

গাজীপুরের কাশিমপুর মহিলা কেন্দ্রীয় কারাগারে বন্দিদের সাথে থাকা শিশু ও নারী হাজতিদের ঈদ উপহার হিসেবে নতুন পোশাক দিয়েছেন গাজীপুরের জেলা প্রশাসক আনিসুর রহমান।

শুক্রবার (২৯ এপ্রিল) কারাগারের ভেতরে গিয়ে আটক থাকা নারী ও শিশুদের হাতে ঈদের নতুন ওই পোশাক তুলে দেন তিনি।

গাজীপুর জেলা প্রশাসন সূত্রে জানা গেছে, কাশিমপুর কেন্দ্রীয় মহিলা কারাগারে নারী হাজতিদের সঙ্গে ৮৪ জন শিশু রয়েছে। 

পবিত্র ঈদ-উল-ফিতর উপলক্ষে নারী হাজতিদের শাড়ি এবং শিশুদের জন্য নতুন পোশাক উপহার হিসেবে দেওয়া হয়। 

ঈদের নতুন পোশাক পেয়ে কারাগারে বন্দি সকলের মধ্যে আনন্দ ছড়িয়ে পড়ে।

এছাড়াও কাশিমপুর হাই সিকিউরিটি কারাগার ও কাশিমপুর কেন্দ্রীয় কারাগার-২ এর বন্দিদের পবিত্র ঈদের পোশাক পৌছে দেওয়া হয়।

এসময় জেলা প্রশাসকের সঙ্গে আরও উপস্থিত ছিলেন অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) আবুল কালাম, কাশিমপুর মহিলা কেন্দ্রীয় মহিলা কারাগারের সিনিয়র জেল সুপার হালিমা খাতুন প্রমুখ।


আরও খবর



গজারিয়ায় উপজেলা প্রশাসনের ইফতার ও দোয়ার মাহফিল

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ২৬ এপ্রিল ২০২২ | হালনাগাদ:সোমবার ১৬ মে ২০২২ | ৮৪জন দেখেছেন
Image

শাহাদাত হোসেন সায়মনঃ


গজারিয়ায় উপজেলা  পরিষদের উদ্যোগে ইফতার ও উপজেলা চেয়ারম্যান  আমিরুল ইসলামের রোগ মুক্তি কামনায় দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত। 

 মঙ্গলবার উপজেলা পরিষদ অডিটোরিয়াম হলরুমে ইফতার ও দোয়ার মাহফিলে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন মুন্সীগঞ্জ-৩আসনের সংসদ সদস্য ও বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ এর কেন্দ্রীয় মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক সম্পাদক এড্যাঃমৃণাল কান্তি দাস,উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃজিয়াউল ইসলাম চৌধুরীর সভাপতিত্বে অন্যান্যদের মাঝে উপস্থিত ছিলেন সহকারী কমিশনার (ভুমি) সৈয়দা ইয়াসমিন সুলতানা,বাংলাদেশ উম্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয় এর সাবেক পরিচালক মোঃহাফিজ আহম্মেদ, সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান রেফায়েত উল্লাহ খাঁন তোতা(সি,আই,পি),উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান আতাউর রহমান নেকী,মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান খাদিজা আক্তার আঁখি,গজারিয়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি হাজী মোঃমহসিন চৌধুরী,গজারিয়া থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ রইছ উদ্দীন,গজারিয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযুদ্ধো শফিউল্লাহ শফি,ইমামপুর ইউনিয়ন চেয়ারম্যান হাফিজুজ্জামান খান জিতু,ভবেরচর ইউঃপি চেয়ারম্যান ইঞ্জিঃসাঈদ মোঃলিটন, হোসেন্দী  ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান হাজী আক্তার হোসেনসহ উপজেলা প্রশাসনের বিভিন্ন দপ্তরের প্রধান গণ।

ইফতার পূর্ব দোয়ার মাহফিলে দেশ,জাতি ও উপজেলা চেয়ারম্যান আমিরুল ইসলামের রোগ মুক্তি কামনায় দোয়া করা হয়।


আরও খবর



কাবুলে মসজিদে বিস্ফোরণ, নিহত ৬৬

প্রকাশিত:শনিবার ৩০ এপ্রিল ২০২২ | হালনাগাদ:সোমবার ১৬ মে ২০২২ | ১০৭জন দেখেছেন
Image

আফগানিস্তানের রাজধানী কাবুলের খলিফা সাহিব মসজিদে শুক্রবারের বোমা বিস্ফোরণে নিহতের সংখ্যা বেড়ে পৌঁছেছে ৬৬ জনে এবং আহতের হালনাগাদ সংখ্যা ৭৮ জন। দেশটির স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে বলে শনিবার এক প্রতিবেদেনে জানিয়েছে রয়টার্স। মসজিদটির ইমাম সৈয়দ ফাজল আগাও নিশ্চিত করেছেন বোমা হামলায় অর্ধশতাধিক ব্যক্তি নিহতের তথ্য। পাশাপাশি তিনি দাবি করেছেন, হামলাটি ছিল আত্মঘাতী। -রয়টার্স

রমজান মাসের শেষ শুক্রবার উপলক্ষে শুক্রবার জুমার নামাজের পর জিকির চলছিল রাজধানী কাবুলের দক্ষিণাংশে অবস্থিত খলিফা সাহিব মসজিদে। এ সময় দুপুর ২ টার দিকে আকস্মিকভাবে মসজিদের ভেতরে শক্তিশালী বোমার বিস্ফোরণ ঘটে। সৈয়দ ফাজল আগা বলেন, আমাদের বিশ্বাস, হামলাটি ছিল আত্মঘাতী এবং হামলাকারী সাধারণ মুসলিমের বেশে জুমার নামাজের সময় থেকেই মসজিদে উপস্থিত ছিল। নামাজ শেষে জিকির অনুষ্ঠান শুরু হওয়ার পর সে নিজের দেহে থাকা বোমার বিস্ফোরণ ঘটায়।

তিনি আরও জানান, সৌভাগ্যক্রমে তিনি বেঁচে গেলেও বোমার আঘাতে তার ভাতিজা ঘটনাস্থলেই মারা গেছেন। ‘(বিস্ফোণের পর) কালো ধোঁয়ায় ঢেকে গিয়েছিল চারদিক, সব জায়গায় ছড়িয়ে ছিটিয়ে ছিল মৃতদেহ। আমি নিজে বেঁচে গেছি, কিন্তু হারিয়েছি আমার সন্তানসম ভাতিজাকে।’ হামলার সময় মসজিদে উপস্থিত এক ব্যক্তির জানিয়েছেন, বিস্ফোরণের তেজে মসজিদের ছাদ ও দেওয়ালের কিছু অংশ উড়ে গেছে। তার নিজের হাত ও পা পুড়ে গেছে বলেও জানার ওই ব্যক্তি। খলিফা সাহিব মসজিদটির নিকটবর্তী একটি ভবনের বাসিন্দা মোহাম্মদ সাবির জানান, বিস্ফোরণের পর বেশ মসজিদের ভেতর থেকে বেশ কয়েকজন আহত মানুষকে অ্যাম্বুলেন্সে তুলতে দেখেছেন তিনি। রয়টার্সকে সাবির বলেন, প্রচণ্ড শব্দ হয়েছিল বিস্ফোরণের সময়। আমি আশঙ্কা করছিলাম, আমার কানের পর্দা ফেটে গেছে। খলিফা সাহিব মসজিদে হামলার দায় এখনও কোনো ব্যক্তি বা গোষ্ঠী স্বীকার করেনি, তবে আফগানিস্তানের নিরাপত্তা কর্মকর্তাদের বিশ্বাস, আন্তর্জাতিক জঙ্গিগোষ্ঠী ইসলামিক স্টেটের (আইএস) আফগানিস্তান শাখা ইসলামিক স্টেট-খোরাসান (আইএস-কে) এই হামলার জন্য দায়ী।

গত কয়েক সপ্তাহে আফগানিস্তানের অঞ্চলে কয়েক দফা বোমা হামলা হয়েছে। এসব হামলায় শতাধিক বেসামরিক আফগান নিহত হয়েছেন, আহত হয়েছেন আরও বহু। অধিকাংশ ক্ষেত্রেই এসব হামলা ঘটেছে আফগানিস্তানের ধর্মীয় সংখ্যালঘু শিয়া মুসলিমদের মসজিদে। তবে হামলাকারীদের কবল থেকে দেশটির সংখ্যাগুরু সুন্নি সম্প্রদায়ের লোকজনও যে মুক্ত নন, তার সর্বশেষ উদাহারণ কাবুলের খলিফা সাহিব মসজিদ। এর আগে গত ২৩ এপ্রিল আফগানিস্তানের উত্তরাঞ্চলীয় শহর কুন্দুজের একটি সুন্নি মসজিদে বোমা হামলা হয়েছিল, তাতে নিহত হয়েছিলেন ৩৩ জন। আফগানিস্তানের ক্ষমতাসীন তালেবান সরকারের অন্যতম মুখপাত্র জাবিহুল্লাহ মুজাহিদ এই হামলার কঠোর নিন্দা জানিয়ে বলেছেন, অবিলম্বে হামলাকারীকে শনাক্ত ও বিচারের আওতায় আনা হবে। হামলার নিন্দা জানিয়েছে জাতিসংঘও। জাতিসংঘের মহাসচিবের বিশেষ প্রতিনিথি মেট নুডডেন এক বার্তায় বলেন, ‘ঘৃণ্য এই ঘটনার নিন্দা জানানোর জন্য কোনো শব্দই যথেষ্ট নয়।


আরও খবর