Logo
শিরোনাম
মেঘনা নদীতে গোসল করার সময় নিখোঁজ ছাত্রের মরদেহ উদ্ধার রাজবাড়ীতে ট্রাকের সাথে সংঘর্ষে মোটর সাইকেল আরোহীর মৃত্যু রাজবাড়ীতে আবৃত্তি ও কথামালায় প্রকাশনা উৎসব নওগাঁয় মোটরসাইকেলের ধাক্কায় স্কুল ছাত্র নিহত-মা ও ছোট বোন আহত মোরেলগঞ্জে শ্রমীকদের মাঝে শীতবস্ত্র বিতরণ করলেন এমপি মিলন লালমনিরহাটে বিদ্যুৎ স্পৃষ্টে মারাগেছে স্কুলছাত্র নওগাঁয় বোরো ধান চাষের শুরুতেই বিদ্যুতের লোড শেডিং, দুঃশ্চিন্তায় কৃষকরা নওগাঁয় ৩৫ কোটি টাকা মূল্যের কষ্টিপাথরের মূর্তি উদ্ধার করেছে পুলিশ কুড়িগ্রামের শীতকাতর অসহায় মানুষের পাশে কেন্দ্রীয় যুবলীগ নেত্রকোনায় বিশ্ব জলাভূমি দিবস উপলক্ষে মানববন্ধন
কথাসাহিত্যিক ইজাজ আহমেদ মিলনের লেখা

ভাওয়াল বীরের জন্মদিনে ‘জীবনালেখ্য’

প্রকাশিত:Wednesday ০৯ November ২০২২ | হালনাগাদ:Friday ০৩ February ২০২৩ |
Image

শ্রমিক নেতা ও গাজীপুর-টঙ্গী-২ আসনের প্রয়াত সংসদ সদস্য বীর মুক্তিযোদ্ধা শহীদ আহসান উল্লাহ মাস্টারের ৭২তম জন্মদিনে তার যাপিত জীবন নিয়ে কথা সাহিত্যিক ইজাজ আহাম্মদ মিলনের লেখা ‘জীবনলেখ্য’ বইটি প্রকাশ হয়েছে।

আজ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গণভবনে বইটির মোরক উন্মোচন করেন।

৯ নভেম্বর ১৯৫০ সালে জন্ম নেওয়া আহসান উল্লাহ মাস্টার ২০০৪ সালের ৭ মে মাত্র ৫৪ বছর বয়সে ঘাতকের বুলেটে নিভে যায় তার জীবন প্রদ্বীপ। 

শিক্ষকতা পেশায় নিয়োজিত ‘ভাওয়াল বীর’ খ্যাত আহসান উল্লাহ মাস্টার ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান থেকে মানুষের ভালোবাসাকে পুঁজি করে ১৯৯৬ ও ২০০১ সালের নির্বাচনে দুবার জাতীয় সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়েছিলেন। সংসদ সদস্য থাকাকালেই ঘাতকরা তাকে প্রকাশ্যে গুলি করে হত্যা করে।

জাতির পিতার আদর্শ বুকে ধারণ করে ’৬৬-এর ৬ দফা, ’৬৯-এর গণঅভ্যুত্থান, ১৯৭০-এর নির্বাচনে ভূমিকা রাখা, ’৭১-এর মহান মুক্তিযুদ্ধে অংশ গ্রহণসহ বাংলাদেশের প্রায় প্রতিটি আন্দোলনেই সরাসরি অংশ নিয়েছেন তিনি। বঙ্গবন্ধুর আশীর্বাদ পাওয়া আহসান উল্লাহ মাস্টার শ্রমিকদের অধিকার রক্ষায় আজীবন আন্দোলন করেছেন। তাদের পক্ষে কথা বলেছেন। মাদকের বিরুদ্ধে আন্দোলন শুরু করেছিলেন ’৯০-এর দশকের গোড়ার দিকেই। তুমুল জনপ্রিয় এক নেতৃত্বে পরিণত হন তিনি।

রাজনীতির মাঠে আহসান উল্লাহ মাস্টারের আলোয় আলোকিত হয়েছিল গাজীপুর। কিন্তু কেমন ছিল আপদমস্তক এ রাজনীতিকের জীবন? গ্রাম থেকে উঠে এসে কীভাবে জাতীয় রাজনীতিতে জায়গা করে নিয়েছিলেন? তার জন্ম, শৈশব, কৈশোর, যুদ্ধের ময়দানে মৃত্যুর খুব কাছ থেকে ফিরে আসা- এমন নানা অজানা অধ্যায় নিয়ে মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক গবেষক সাংবাদিক ও কথাসাহিত্যিক ইজাজ আহমেদ মিলন লিখেছেন ‘আহসান উল্লাহ মাস্টার : জীবনালেখ্য’। এই বইটি তরুণ প্রজন্মের কাছে আহসান উল্লাহ মাস্টারের আদর্শকে তুলে ধরতে সহায়ক হবে মনে করেন লেখক ও সংশ্লিষ্টরা।


আরও খবর



কলমাকান্দা বাকলা নদীতে ব্রীজ নিমার্ণের এলাকাবাসীর প্রাণের দাবী

প্রকাশিত:Sunday ১৫ January ২০২৩ | হালনাগাদ:Friday ০৩ February ২০২৩ |
Image
সোহেল খান দূর্জয় : নেত্রকোনার কলমাকান্দা উপজেলার নাজিরপুর ইউনিয়নের কান্দাপাড়া দাখিল মাদ্রাসা সংলগ্ন উব্দাখালী (বাকলা) নদীর ওপর একটি ব্রীজ নির্মাণের দীর্ঘদিনের প্রাণের দাবী জানিয়ে আসছে সরকারের কাছে এলাকাবাসী। 

এই বাকলা নদীতে ব্রীজটি নির্মিত হলে প্রায় ১০ থেকে ১৫টি গ্রামের জনজীবন যাপনে অনেকটা সুবিধা হবে, খেয়া দূর্ভোগ থেকে মুক্তি পাবে মানুষ। তাছাড়া হাট বাজার, স্কুল মসজিদ মাদ্রাসা এবং উত্তরে পাকা রাস্তার যানজট ও দূর্ঘটনা এড়িয়ে নিরাপদে যাতায়াত করতে পারবে এলাকার ছাত্র-ছাত্রী ও মানুষেরা।

উপজেলার কয়ড়া মোড় থেকে কান্দাপাড়া  দাখিল মাদ্রাসা ও নাজিরপুর পল্লী জাগরণ উচ্চ বিদ্যালয়ে প্রায় প্রতিদিনই ৫ কিঃমিঃ কাঁচা রাস্তা দিয়ে পায়ে হেটে এলাকার মানুষ ও ছাত্র ছাত্রীরা স্কুল মাদ্রাসা হাটে জন প্রতি ১০ টাকায় খেয়া পারাপারে যাতায়াত করে থাকে।
এমতাবস্থায় স্থানীয় বাসিন্দারা কয়েক দফায় সরকারের কাছে আবেদন নিবেদন করলেও কে শুনে কার কথা, ৭৫ ফুট লম্বা ৫০ হাত প্রস্থ এই খেয়া পারাপারেই  তাদের জীবন। 

ওই এলাকার স্থানীয় বাসিন্দা মোঃ আসন আলী ও নোমান মিয়া জানান, স্বাধীনতার পূর্ব থেকেই এই কাঁচা রাস্তা দিয়ে এলাকার ছাত্রছাত্রী ও মানুষেরা পায়ে হেটে খেয়াঘাট পাড়ি দিয়ে কান্দাপাড়া দাখিল মাদ্রাসায় ও নাজিরপুর পল্লী জাগরণ উচ্চ বিদ্যালয় বাজারে যাতায়াত করে থাকে। বর্ষাকালে আমরা আমাদের ছাত্র ছাত্রীদের নিয়ে আতংকে থাকি খেয়াঘাট ও হেমন্তে বাঁশের চাটায়ে পারাপার ভয়ে!

কান্দাপাড়া দাখিল মাদ্রাসার ছাত্রী মহুয়া হাসান জানান, আমরা প্রতিদিনেই এই রাস্তা দিয়ে মাদ্রাসায় আসা যাওয়া করি, যদি এখানে একটি ব্রীজ হতো তাহলে ভালো হতো, নাজিরপুর পল্লী জাগরণ উচ্চ বিদ্যালয়ের ছাত্র হানিফ জানান, বর্ষাকালে দূর্গাপুর সুমেশ্বরীর পাহাড়ী ঢলের মাঝেও এই নদী নৌকায় পাড় হয়ে স্কুলে যেতে হয়,এখানে একটা ব্রীজ হলে ছাত্রছাত্রীদের জন্য সুবিধা হতো। 

বর্তমান নাজিরপুর ইউনিয়ন চেয়ারম্যান আব্দুল আলী বলেন, কতবার শুনেছি চয়েলটেষ্ট হচ্ছে নিজেও কতবার বলেছি কিন্তু কেন যে হচ্ছে না বুঝিনা, এই নদীটির ওপর একটি ব্রীজ জনগুরুত্বপূর্ণ, এলাকাবাসীরও দীর্ঘদিনের প্রাণের দাবী এই বাকলা নদীর ওপর একটি ব্রীজ নির্মাণের জন্য।

আরও খবর



দশমিনায় ইসলামী ছাত্র আন্দোলনের থানা সম্মেলন অনুষ্ঠিত

প্রকাশিত:Monday ২৩ January 20২৩ | হালনাগাদ:Friday ০৩ February ২০২৩ |
Image

মোঃ নাঈম হোসাইন ,দশমিনা(পটুয়াখালী) :

ভারসাম্যপূর্ন অর্থনীতি, কল্যাণমুখি রাজনীতি এবং ইনসাফপূর্ন রাষ্ট্র ব্যবস্থা প্রতিষ্ঠায় নীতির পরিবর্তন চাই স্লোগানে পটুয়াখালীর দশমিনায় ইসলামী ছাত্র আন্দোলন বাংলাদেশ উপজেলা শাখার আয়োজনে থানা সম্মেলন করেছেন। শনিবার বেলা ১১টায় উপজেলা ফায়ার সার্ভিস সংলগ্ন কেন্দ্রীয় কেরাতুল কোরআন মাদ্রাসা অডিটোরিয়ামে-এ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়েছে। উপজেলা ইসলামী ছাত্র আন্দোলন উপজেলা শাখার সভাপতি মুহা. ইমাম হোসেন খান'র সভাপতিত্বে ও সাধারন সম্পাদক মো. আব্দুল কাইয়ুম এর সঞ্চালনায় প্রধান অতিথি ছিলেন ইসলামী ছাত্র আন্দোলন পটুয়াখালী জেলা শাখার সভাপতি মুহাম্মদ ইমাম হোসেন। বিষেশ অতিথি ছিলেন ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ দশমিনা শাখার সভাপতি আলহাজ্ব মুজিবুর রহমান, বাংলাদেশ মুজাহিদ কমিটির  থানা শাখার সভাপতি মুহাম্মাদ কবির আলম, ঢাকা যাত্রাবাড়ি বড় মাদ্রাসার সাবেক সভাপতি মো. রবিউল ইসলাম মাহামুধীসহ আরো অনেকে। 


আরও খবর



অবসরে ‘অযোগ্য’ রেফারি লাহোজ

প্রকাশিত:Saturday ০৭ January ২০২৩ | হালনাগাদ:Friday ০৩ February ২০২৩ |
Image

ইয়াশফি রহমান :বিশ্বকাপে আর্জেন্টিনা-নেদারল্যান্ডসের মধ্যকার কোয়ার্টার ফাইনাল ম্যাচটি শেষে লিওনেল মেসি তাকে রীতিমতো ‘অযোগ্য’ বলে বসেছিলেন। সেই রেফারি ক্যারিয়ারের ইতি টানছেন এবার।

আর্জেন্টিনার সেই ম্যাচে লাহোজ ১৮টি হলুদ কার্ড ও একটি লাল কার্ড দেখিয়েছিলেন। মেসিসহ ওইদিন হলুদ কার্ড দেখেন মার্কোস আকুনইয়া ও গনজালো মন্তিয়েল। যে কারণে দুই ফুলব্যাককে সেমিফাইনালে পায়নি আর্জেন্টিনা।

সেই ম্যাচে ফাউলের বাঁশিও বারবারই বাজিয়েছেন লাহোজ। যে কারণে ম্যাচের গতিতে বাঁধা এসেছে বারবার। সে কারণে মেসি ম্যাচ শেষে কোনো রকম রাখঢাক ছাড়াই তাকে ‘অযোগ্য’ বলে দিয়েছিলেন।

বলেছিলেন, ‘ফিফার এই বিষয়ে ভাবা উচিত। আপনি এমন গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচে এমন রেফারিকে দায়িত্ব দিতে পারেন না। তিনি যোগ্য নন। ম্যাচের আগেই আমরা ভয় পেয়েছিলাম। কারণ আমরা জানতাম, তার স্বভাব কেমন!’

তাকে নিয়ে বিতর্ক সেখানেই থামেনি। সম্প্রতি লা লিগায় বার্সেলোনা খেলতে নেমেছিল এস্পানিয়লের বিরুদ্ধে। মেসির পুরনো ক্লাবের খেলাতেও দেখা গিয়েছিল মাতেউর কার্ডের মেলা। খেলার শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত কার্ড দেখিয়ে গিয়েছিলেন তিনি। হলুদ, লাল কিছুই বাদ যায়নি। এমনকি বাদ যাননি দলের কোচও। বার বার তাঁর সঙ্গে বিতণ্ডায় জড়াতে দেখা গিয়েছিল ফুটবলারদের। বার্সা ও এস্পানিয়ল মিলিয়ে মোট ১২জনকে হলুদ কার্ড দেখিয়েছিলেন মাতেউ। বার্সার জর্ডি আলবা ও এস্প্যানিয়লের ভিনিসিয়াস সুজাকে লাল কার্ড দেখিয়েছিলেন তিনি। এস্পানিয়লের আর এক জন ফুটবলারকে লাল কার্ড দেখিয়েছিলেন মাতেউ। কিন্তু ভারের হস্তক্ষেপে সিদ্ধান্ত বদল করেছিলেন তিনি। বার্সার কোচ জাভি ও রিজার্ভ বেঞ্চের ফুটবলার রাফিনহাকেও হলুদ কার্ড দেখিয়েছিলেন তিনি।

নিজের পরের ম্যাচে কোপা দেল রেতেও দেখা মিলেছে তার কার্ডের মেলার। লিনারেস দেপোর্তিভোর বিপক্ষে সেভিয়ার ম্যাচে দায়িত্বে ছিলেন তিনি। সেই ম্যাচের ১৫ মিনিটেই সেভিয়ার আর্জেন্টাইন কোচ হোর্হে সাম্পাওলিকে লাল কার্ড দেখিয়ে বসেন তিনি।

লাহোজের বিরুদ্ধে অভিযোগটা বার্সা ও এস্প্যানিয়লের ম্যাচ শেষেই এসেছিল। অভিযোগটা করেছিলেন দুই ক্লাবের ফুটবলাররা। তা আমলে নিয়ে লা লিগা ও কোপা দেল রের ম্যাচে তাকে দায়িত্ব না দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেয় স্পেনের ফুটবল অ্যাসোসিয়েশন।

তার পরেই অবসরের সিদ্ধান্ত নিয়েছেন লাহোজ। জানিয়েছেন আর্জেন্টাইন সংবাদ মাধ্যম টিওয়াইসি স্পোর্টসের সাংবাদিক গাস্তন এদুল। 


আরও খবর



নারায়ণগঞ্জে ৩ কোটি ২০ লাখ টাকার হেরোইন উদ্ধার করেছে ডিবি

প্রকাশিত:Monday ১৬ January ২০২৩ | হালনাগাদ:Friday ০৩ February ২০২৩ |
Image

বুলবুল আহমেদ সোহেল  :

আজ দুপুরে পুলিশ সুপারের কার্যালয়ে প্রেস ব্রিফিং পুলিশ সুপার গোলাম মোস্তফা রাসেল জানান, ১৫ জানুয়ারি দিবাগত রাত ২ টা ১০ মিনিটে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে সিদ্ধিরগঞ্জের চিটাগাং রোড এলাকার বন্ধু পরিবহনের বাস কাউন্টারের সামনে পাকা রাস্তার উপর থেকে ১ কেজি ৬’শ গ্রাম হেরোইন উদ্ধার করে জেলা গোয়েন্দা পুলিশ। গ্রেপ্তারকৃত আসামীর নাম মো. মাসুম সরকার। সে কুমিল্লার হোমনা ভবানীপুরের হাসান আলী সরকারের ছেলে। বর্তমানে ঢাকার রামপুরার হাজিপাড়ায় থাকতেন।উদ্ধারকৃত মাদকের পরিমান ১ কেজি ৬’শ গ্রাম। পুলিশ এ ঘটনায় আসামীর বিরুদ্ধে মাদকদ্রব্য আইনে মামলা করেছেন। এ ঘটনায় পুলিশ আসামির বিরুদ্ধে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে মামলা দায়ের করা হয়েছে।

পুলিশ সুপার জানান, এ ঘটনায় আরও কে কে জড়িত, কোথায় যাচ্ছিল বিষয় গুলো নিয়ে অনুসন্ধান চলছে।আসামীকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ৫ দিনের রিমান্ড চাওয়া হবে।


আরও খবর



সবজি ও মাছের দাম চড়া

প্রকাশিত:Saturday ২১ January ২০২৩ | হালনাগাদ:Friday ০৩ February ২০২৩ |
Image

শীত মৌসুমে সারাদেশে সবজির উৎপাদন বাড়ে। একই সময় গ্রামীণ জলাশয়গুলোর পানি কমে যাওয়ায় মাছ শিকার বেশি হয়। ফলে এ সময় সবজি ও মাছের সরবরাহ বেশি থাকায় সাধারণত দাম ক্রেতাদের নাগালেই থাকে। কিন্তু বর্তমান চিত্র ভিন্ন। শীতের এ সময়ও রাজধানীর কাঁচাবাজারে মাছ ও বিভিন্ন ধরনের শাক-সবজির দাম চড়া। এ জন্য ব্যবসায়ীরা শীত আর বিশ্ব ইজতেমাকে অজুহাত হিসেবে দাঁড় করাচ্ছেন। তবে ভোক্তাদের মাঝে চাপা ক্ষোভ লক্ষ্য করা গেছে।

২০ জানুয়ারি ছুটির দিন সকালে রাজধানীর মিরপুরের শেওড়াপাড়ায় বাজারে এসেছেন বেসরকারি চাকরিজীবী আনোয়ার হোসেন। কিন্তু মাছ আর শীতের সবজির দাম বাড়তি দেখে অবাক তিনি। কিছুটা ক্ষোভের সঙ্গে আনোয়ার বলেন, গত সপ্তাহের চেয়ে সব ধরনের মাছের দাম বেড়েছে। একইসঙ্গে সব ধরনের সবজির দামও বাড়তি। যেকোনো সবজিতে কেজি প্রতি আগের চেয়ে অতিরিক্ত ১০ থেকে ২০ টাকা গুনতে হচ্ছে।

ওই বাজারের মাছ বিক্রেতাদের ভাষ্য, মাছের খাবারের দাম বৃদ্ধি পাওয়ায় মাছের দামও বেড়ে গেছে। তাদের বক্তব্য অনুযায়ী, গ্রামাঞ্চলে অতিরিক্ত শীতের কারণে মাছ সরবরাহ কম হচ্ছে। ফলে মাছের দাম গত সপ্তাহের চেয়ে একটু বেশি।

শীতের দোহাই দিয়ে ব্যবসায়ীরা আরও বলছেন, গ্রামাঞ্চলে অতিরিক্ত শীতের কারণে ফসল তুলতে পারছেন না কৃষকরা। এর প্রভাব পড়েছে রাজধানীর কাঁচাবাজারে। গত সপ্তাহে বিশ্ব ইজতেমার প্রথম পর্বের কারণে টঙ্গীতে প্রচুর পরিমাণে সবজির চাহিদা ছিল। তখন সবজির দাম বেড়ে আর কমেনি। আগামী ২২ জানুয়ারি দ্বিতীয় দফায় ইজতেমার সময় পর্যন্ত সবজির দাম চড়া থাকতে পারে। অন্যদিকে গ্রামাঞ্চলে শীত কিছুটা কমে এলে বাড়বে সবজির সরবরাহ। তখন কমতে পারে সবজির দাম।

শুধু শেওড়াপাড়া নয়, শুক্রবার রাজধানীর বিভিন্ন কাঁচাবাজার ঘুরে প্রায় একই চিত্র দেখা গেছে। সব ধরনের মাছের দাম তুলনামূলক বেড়েছে। তবে গরু, খাসি, মুরগি, ব্রয়লার আগের দামেই বিক্রি হচ্ছে।




আরও খবর