Logo
শিরোনাম

যুক্তরাষ্ট্রে আবারও বন্দুক হামলা, নিহত ২

প্রকাশিত:শুক্রবার ১৭ জুন ২০২২ | হালনাগাদ:বুধবার ১০ আগস্ট ২০২২ |
Image

যুক্তরাষ্ট্রের আলাবামা অঙ্গরাজ্যের একটি চার্চে বন্দুকধারীর গুলিতে দুজন নিহত ও একজন আহত হয়েছেন। স্থানীয় সময় বৃহস্পতিবার (১৬ জুন) এ হামলার ঘটনা ঘটে। খবর এএফপি ও এনডিটিভির।

নগরির পুলিশ ডিপার্টমেন্ট ফেসবুক পোস্টে জানিয়েছে, এটি ভেস্তাভিয়া হিলস শহরের সেন্ট স্টিফেন এপিস্কোপাল চার্চে ঘটেছে। হামলার ঘটনায় সন্দেহভাজন হিসাবে একজনকে পুলিশ হেফাজতে নেওয়া হয়েছে।

এদিকে, চার্চের ওয়েবসাইটে বলা হয়েছে, একটি নৈশভোজের আয়োজন করা হয়েছিল। সেখানেই এ হামলার ঘটনা ঘটে।

পুলিশ ক্যাপ্টেন শেন ওয়্যার সাংবাদিকদের বলেন, হামলাকারী একাই চার্চে ঢুকে গুলি করা শুরু করে। এতে দুজন নিহত হন। আহত আরও একজনকে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে।

যুক্তরাষ্ট্রে সম্প্রতি মহামারির মতো অবস্থা তৈরি করেছে বন্দুক হামলা। গত ২৪ মে ছিল সম্প্রতি ঘটে যাওয়া ঘটনাগুলোর মধ্যে অন্যতম ঘটনা। সেটি হচ্ছে, টেক্সাসে একটি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে গুলিবর্ষণে ১৯ জন শিশু ও দুজন শিক্ষক নিহত হন।


আরও খবর



মির্জাগঞ্জে মৎস্য কর্মকর্তার বিরুদ্ধে

জেলেদের কাছ থেকে মাসোহারা নেয়ার অভিযোগ

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ২৮ জুলাই ২০২২ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ০৯ আগস্ট ২০২২ |
Image

কামরুজ্জামান বাঁধন,মির্জাগঞ্জ সংবাদদাতা,পটুয়াখালীঃ

পটুয়াখালীর মির্জাগঞ্জে জেলেদের কাজ থেকে মাসোহারা নিয়ে পায়রা নদীতে অবৈধ বেহুন্দি জাল দিয়ে মাছ শিকার করার সুযোগ দেয়ার অভিযোগ উঠেছে উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা মো. মোসলেম উদ্দিনের বিরুদ্ধে। উপজেলার কাকড়াবুনিয়া ইউনিয়নের কাকড়াবুনিয়া বাজার সংলগ্ন পায়রা নদী এবং এর আশে পাশে অবৈধ বেহুন্দি জাল দিয়ে ডিমওয়ালা ও ছোট-বড় বিভিন্ন প্রজাতির মাছ নিধনের অভিযোগ রয়েছে। এদিকে মাসোহারার টাকা নিয়ে গত মঙ্গলবার ২৬ জুলাই উপজেলার কাকড়াবুনিয়া বাজারে জেলেদের সাথে বাকবিতন্ডার ঘটনা ঘটেছে ভারপ্রাপ্ত মৎস্য কর্মকর্তার সাথে। 

সূত্রে জানা যায়, উপজেলার কাকড়াবুনিয়া এলাকার প্রায় ২০-২৫ জন জেলের কাছ থেকে মাসিক হারে জন প্রতি ৩ হাজার টাকা করে এ অর্থ উত্তোলন করা হচ্ছে এমন অভিযোগ স্থানীয় অন্য জেলেদের। মাসোহারা দেয়া জেলেদেরকে অবৈধ বেহুন্দি জাল দিয়ে পায়রা নদীতে অবাধে মাছ শিকারের সুযোগ করে দিয়েছেন মৎস্য কর্মকর্তা। মাসিক টাকা উত্তোলনের সহযোগীতা করছেন স্থানীয় বেহুন্দির জালা পাতা আরেক জেলে মো. করিম। মাস শেষে তিনি বেহুন্দি জাল দিয়ে মাছ ধরা জেলেদের কাছ থেকে টাকা উত্তোলন করেন। অবৈধ জাল ফেলে ডিমওয়ালা মাছসহ ছোট-বড় মাছ সহ বিভিন্ন প্রজাতির মাছ নিধন করছেন জেলেরা। কাকড়াবুনিয়া বাজারের সাহেব আলী নামে এক জেলে বলেন, করিম নামে এক জেলে টাকা উঠিয়ে অফিসে দেন। আমি দুই হাজার টাকা দেওয়াতে টাকা ছুড়ে ফেলে দিয়েছে। পরে মৎস্য অফিসের লোকজন এনে আমার জালটা ধরিয়ে দিয়েছে। কিন্তু যারা ৩ হাজার করে টাকা দিছে তাদের জাল ধরে নাই। মৎস্য অফিসার অভিযানে গেলে পুলিশের কোন লোকজন তার সাথে রাখেন না। এ ছাড়াও স্থাণীয় জেলে সালাম মোল্লাসহ একাধিক জেলে টাকা দেওয়ার কথা স্বীকার করে বলেন, আমরা মাস শেষে কেউ ৩ হাজার বা কেউ ৩ হাজার ২শত করে টাকা দিলে নদীতে বেহন্দি জাল ফেলে মাছ শিকার করতে পারি।

এছাড়াও মাসুদ মৃধা ও আব্বাস আলী সিকদারসহ স্থানীয়রা বলেন, মৎস্য অফিসার এসে ঘোরাঘুরি করে চলে যায় কিন্তু অবৈধ জাল দেখেও কিছু বলেনা। যারা টাকা দিতে না পারে তাদের জাল নিয়ে যায়। অবৈধ জালের বিষয়ে অভিযোগ দিলেও তিনি কোন ব্যবস্থা নেন না। জেলেদের কাছ থেকে শুনেছি মাসে তাদের কাছ থেকে টাকা নেন মৎস্য অফিসার।

কাকড়াবুনিয়া ইউনিয়নের ইউপি সদস্য মোঃ মাসকুর রহমান বলেন, অবৈধ জাল দিয়ে পায়রা নদীতে অবাধে মাছ শিকার করছে জেলেরা। কোন রকম আইনি ব্যবস্থা গ্রহন করছে না মির্জাগঞ্জের মৎস্য বিভাগ। টাকা দিলে কোন বাঁধা ছাড়াই নদীতে বেহুন্দি জাল ফেলা যায় বলে তিনি জানান। টাকা উত্তোলনকারী জেলে করিমের সাথে কথা বললে তিনি অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, আমি কোন জেলের কাছ থেকে টাকা উত্তোলন করিনি। আমার নামে স্থানীয় কিছু জেলে মিথ্যা কথা ছড়াচ্ছে।

এ বিষয়ে উপজেলা সিনিয়র মৎস্য কর্মকর্তা (ভারপ্রাপ্ত) মোঃ মোসলেম উদ্দিন বলেন, আমি কোন টাকা পয়সা নেইনি। তবে জেলেদের মধ্যে কিছু ফাঁক-জোঁক আছে। কোন ভাবে পায়রা নদীতে অবৈধ জাল দিয়ে মাছ শিকার করতে দেওয়া হবে না। এজন্য অভিযান অব্যাহত রয়েছে।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মোসাঃ তানিয়া ফেরদৌস বলেন, এ বিষয়ে লিখিত অভিযোগ পেলে তদন্ত সাপেক্ষে জেলা মৎস্য কর্মকর্তার সাথে আলাপ করে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।


আরও খবর



মনকে সব সময় খোলামেলা ও বিজ্ঞান নির্ভর রাখতে হবে

প্রকাশিত:শনিবার ১৬ জুলাই ২০২২ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ০৯ আগস্ট ২০২২ |
Image

গোবিন্দ শীল, সিনিয়র সাংবাদিক ও কলাম লেখক ঃ

লক্ষ লক্ষ বছর আগে প্রাকৃতিক পরিবেশে বেঁচে থাকার জন্য মানব মস্তিষ্ক বেশ কয়েক ধরণের শর্টকাট ব্যবহার করতো । এই যুগে মনোবিজ্ঞানীরা সেসব শর্টকাট কে মনের পক্ষপাতিত্ব বা ঝোঁক বলছেন এবং সেই সাথে এসব প্রবণতা থেকে বের হবার উপদেশ দিচ্ছেন । এসব পক্ষপাতিত্বের মূল্য সে সময় অনেক বেশি ছিল কারণ সেখানে জীবণ-মরণের প্রশ্ন জড়িত ছিল এবং সেগুলো আমাদের অবচেতন  মনের অংশ হয়ে আছে । যেমন, কোন হিংস্র পশু দেখলে সাথে সাথে তাকে আক্রমণ করা অথবা পালিয়ে যাওয়া । পরবর্তীতে যে কোন তথ্য বিশ্লেষণের ক্ষেত্রে মস্তিষ্ক পূর্ববর্তী ঐ সব অভিজ্ঞতার সহায়তা নেয়া শুরু করে । সমস্যাটা শুরু এখান থেকে ।  এখন রাস্তায় সন্ধার অন্ধকারে কাউকে দেখলে মন সাথে সাথে বোঝার চেষ্টা করে লোকটি ক্ষতিকর কিনা, অথবা সুন্দর পোষাক পরিহিত কাউকে দেখলে মন ভাবতে পারে লোকটির মননও নিশ্চয় সুন্দর । এসব পক্ষপাতিত্বের মূল কথা হলো ব্যক্তিমাত্রই নিজের সিদ্ধান্তকে সঠিক মনে করে, যদিও অনেক সময় সেটি ভুলও হতে পারে । আমাদের মনের কয়েকটি পক্ষপাতিত্ব হলোঃ Confirmation Bias, Self-serving Bias (নিজের স্বার্থের অনুকূলে পক্ষপাতিত্ব), Anchoring Bias, survivorship bias, actor-observer bias ইত্যাদি । এরমধ্যে Self-serving Bias হলো আমাদের ইগো মনের পক্ষ নেয়া । এটি আমরা সবাই করে থাকি । যে কোন পরিস্থিতিতে আমরা নিজেদের পক্ষে কথা বলি, যদিও অনেক সময় সেটি বিজ্ঞান নির্ভর হয় না ।  Survivorship Bias হলো আমরা কারও সফলতাকে অনুসরণ করার চেষ্টা করি । যেমন, কেউ চিংড়ী মাছ চাষ করে সফল হলে আরেকজন আরেকটি চিংড়ী ঘের করার চেষ্টা করে । Actor-Observer Bias হলো আমরা নিজেদের ব্যর্থতার জন্য অন্যদেরকে দায়ী করি আর অন্যদের ব্যর্থতাকে তাদের নিজেদের কারণে হয়েছে বলে মনে করি । মানব মস্তিষ্ক খুব অল্প সময়ের মধ্যে গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত নিতে গিয়ে অর্থবহ একটি ছাঁচ  (Meaningful pattern) খোঁজে । পরবর্তীতে এটি অবচেতন মনের অংশ হয়ে যায় এবং মন সেখান থেকে সিদ্ধান্ত দিতে থাকে । মানব মনের আরেকটি অবৈজ্ঞানিক বিষয় হলো, তার সমুদয় স্মৃতিটাই পক্ষপাতে দুষ্ট । অর্থাৎ, আমরা আমাদের বিশ্বাসের পক্ষ নিয়ে তথ্য অনুসন্ধান করি । অতীতে করিম একটি বোমা ফুটিয়ে থাকলে, কোন বোমা ফুটলেই আমরা ধরে নেই করিমই এটি ফুটিয়েছে  (confirmation bias) । এটি আন্তর্জাতিক রাজনীতির ক্ষেত্রে বিশেষত মধ্যপ্রাচ্য ও পাশ্চাত্য রাজনীতিতে খুব সাধারণ একটি বিষয় ।  একই ভাবে পাশ্চাত্যে ও প্রাচ্যের রাজনীতিবিদেরা Anchoring Bias কে তাঁদের পক্ষে ব্যবহারের চেষ্টা করেন ।  এটি হলো, ধরুন যুদ্ধে ২,০০০ লোক মারা গেছেন। সরকার বিষয়টি সবচেয়ে আগে জানবেন সেটিই  স্বাভাবিক । তাই সরকার জনগণের দৃষ্টি ফেরানোর জন্য আগেই ঘোষণা দিয়ে দেন : এ পর্যন্ত যুদ্ধে ২০০ জন নিহত হয়েছেন । আমরাও ব্যক্তিগত জীবনে, চাকুরির ক্ষেত্রে কোন সমস্যা হলো বসকে আগে রিপোর্ট করতে চাই । যে আগে রিপোর্ট করে সে কিছুটা ভাল অবস্থানে থাকে, যদিও দোষটা হয়তো তারই । আমাদের দেশেও সরকারেরা এই এঙ্করিং বায়াসকে কাজে লাগায় । পোষাক কারখানায় বড় ধরণের ঘটনাকে সরকার ছোট করে দেখানোর চেষ্টা করে । আমাদের মনের ছাঁচ/পক্ষপাতকে ব্যবহার করে আমরা অন্যের সহানুভূতি পাবার চেষ্টা করি  অথবা পাল্টাপাল্টি আক্রমণকে বৈধতা দেই । প্যালেষ্টাইন সামান্য ঘটনা ঘটালে ইজ্রায়েল অনেক বড় আকারে প্রতিশোধ নেয়, এটি আমরা প্রায়ই দেখে থাকি ।  আমাদের মনের আরও অনেক ধরণের পক্ষপাত আছে । ধর্ম, জাতি,দেশ নিয়ে আলোচনা করার সময় আমরা আমাদের মনের পক্ষপাতকে গুরুত্ব দেই । মনোবিজ্ঞানীরা বলছেন মনকে সব সময় খোলামেলা ও বিজ্ঞান নির্ভর রাখতে হবে । তবেই একটি সমাজ অগ্রসর হতে পারবে ।


আরও খবর

পরাজয় মানুষকে আপন-পর চেনাতে শেখায়

বৃহস্পতিবার ০৪ আগস্ট ২০২২




মহেশপুরে মৎস্য ব্যবসায়ীকে অপহরণ

নারী দিয়ে ছবি তুলে চাঁদা দাবির ঘটনায় দু’জন আটক।

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ১৯ জুলাই ২০২২ | হালনাগাদ:বুধবার ১০ আগস্ট ২০২২ |
Image

সুমন হোসেনঃ সন্ধ্যা রাতে বাড়ীর পাশ থেকে মৎস্য ব্যবসায়ী শাহাজাহান আলীকে (৬৭) অপহরণ করে পাট ক্ষেতে নিয়ে এক নারীর সাথে অশালীন ছবি তুলে ৫ লাখ টাকা চাঁদা আদায়ের ঘটনায় পুলিশ আলামিন (২১) ও মমিনুর রহমানকে (২৩) আটক করেছে। ঘটনার পর থেকে নারীসহ তিন জন পলাতক রয়েছে।

এ ঘটনাটি ঘটেছে সোমবার সন্ধ্যা রাতে ঝিনাইদহের মহেশপুর পৌর এলাকার পাতিবিলা গ্রামের বিলপাড়ায়।মামলার বাদী শাহাজাহান আলী জানান,পাতিবিলা গ্রামের মৎস্য ব্যবসায়ী শাহাজাহান আলীকে সোমবার সন্ধ্যা রাতে পাতিবিলা গ্রামের জহিরুল ইসলাম,মমিনুর রহমান,আলামিন,কাওছার আলী অপহরণ করে পাতিবিলা পাড়ার একটি পাট ক্ষেতে নিয়ে যায়। সেখানে আগে থেকে নিয়ে রাখা এক নারীকে দিয়ে উলুঙ্গ ছবি তুলে ও ভিডিও ধারণ করে। পরে শাহাজাহান আলীর কাছে ৫ লাখ টাকা চাঁদা দাবি করে। আমি এক টাকা দিতে রাজি না হওয়ার কথা বললে তারা শেষে ৪ লাখ দাবি করে।

মহেশপুর থানার অফিসার ইনর্চাজ (ওসি) সেলিম মিয়া জানান, পাতিবিলা গ্রামের মৎস্য ব্যবসায়ী শাহাজাহান আলীকে সোমবার সন্ধ্যা রাতে পাতিবিলা গ্রামের জহিরুল ইসলাম,মমিনুর রহমান,আলামিন,কাওছার আলী অপহরণ করে পাতিবিলা পাড়ার একটি পাট ক্ষেতে নিয়ে যায়। সেখানে আগে থেকে নিয়ে রাখা এক নারীকে দিয়ে উলুঙ্গ ছবি তুলে ও ভিডিও ধারণ করে। এঘটনায় আলামিন ও মমিনুর রহমানকে আটক করা হয়েছে। বাকিদের আটকের চেষ্টা চলছে।

আটক কৃতদেরকে ঝিনাইদহ আদালতে প্রেরণ করা হয়েছে। এঘটনায় মহেশপুর থানায় মামলা হয়েছে।


আরও খবর



কাস্টিং কাউচের শিকার হয়েছিলেন রূপালি

প্রকাশিত:রবিবার ২৪ জুলাই ২০২২ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ০৯ আগস্ট ২০২২ |
Image

ভারতের টিভি জগতের জনপ্রিয় মুখ রূপালি গাঙ্গুলি। তার অভিনীত সিরিয়াল থাকে জনপ্রিয়তার প্রথম সারিতে। তবে ক্যারিয়ারের শুরুটা করেছিলেন সিনেমার মাধ্যমে। তবুও সেই জগতে টিকতে পারেননি। কারণ কাস্টিং কাউচের শিকার হয়েছিলেন রূপালি।

অভিনেতা অনিল গাঙ্গুলির মেয়ে রূপালি। ইন্ডাস্ট্রির সঙ্গে আগে থেকেই টুকটাক পরিচয় ছিল। তাই বলে মোটেও সহজ ছিল না রূপালির পথচলা। বলিউডে আত্মপ্রকাশ করেও ছিটকে পড়তে হয় তাকে। কারণ প্রযোজকের লালসার ডাকে সাড়া দেননি।

এক সাক্ষাৎকারে রূপালি জানান, তাকে শয্যাসঙ্গী হওয়ার প্রস্তাব দিয়েছিলেন নির্মাতা, প্রযোজকরা। কিন্তু সম্মান নষ্ট করে কাজ পাওয়ায় বিশ্বাসী ছিলেন না তিনি। সব প্রস্তাব ও সম্ভাবনা চরম ঘৃণায় প্রত্যাখ্যান করেন। নিজেকে গুটিয়ে নেন মুম্বাই সিনেপাড়া থেকে।

এরপর থেকেই টিভি জগতকে আপন করে নেন রূপালি। সেখানেই নিজেকে মেলে ধরেন। রূপালির ভাষ্য, বাবাকে কথা দিয়েছিলাম, আমি কখনও আমার মর্যাদা হারাব না। সেই শর্তেই তিনি আমায় অভিনয় জগতে আসতে দিয়েছিলেন। কিন্তু ইন্ডাস্ট্রি আমার সঙ্গে যা করেছে, তারপর আমি আর এখানে থাকতে পারিনি। কাস্টিং কাউচের মোকাবিলা আমি কখনওই করতে পারতাম না।

রূপালি জনপ্রিয়তা পেয়েছেন ২০১৭ সালের সিরিয়াল ‘সারাভাই ভার্সেস সারাভাই’ দিয়ে। বর্তমানে তাকে দেখা যায় ‘অনুপমা’ সিরিয়ালে। হিন্দি টিভি জগতে এই সিরিয়ালের জনপ্রিয়তা দারুণ।


আরও খবর

বিয়ে করছেন রিচা-ফজল

মঙ্গলবার ০৯ আগস্ট ২০২২

গুঞ্জন উড়িয়ে দিলেন আলিয়া!

বুধবার ০৩ আগস্ট ২০২২




লক্ষ্মীপুরে যাত্রীবাহী বাস দুর্ঘটনায় নিহত ১, আহত ১০

প্রকাশিত:বুধবার ০৩ আগস্ট ২০২২ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ০৯ আগস্ট ২০২২ |
Image

লক্ষ্মীপুর প্রতিনিধি  ঃ

লক্ষ্মীপুরের বটতলীতে যাত্রীবাহী বাস উল্টে নিহত হয়েছেন বাসের সুপারভাইজার বাদশা মিয়া। তিনি রামগতি আলেকজান্ডার এলাকার আব্দুল মালেকের ছেলে। দুর্ঘটনায় বাসের যাত্রীসহ অন্তত ১০ জন আহত হয়েছেন বলে জানা গেছে। 

আজ  বুধবার ভোর ৬টায় রামগতি থেকে লক্ষ্মীপুর হয়ে ঢাকা যাওয়ার পথে লক্ষ্মীপুরের বটতলীতে সিএনজিচালিত অটোরিকশাকে সাইড দিতে গিয়ে এ দুর্ঘটনা ঘটে। 

স্থানীয়রা আহতদের উদ্ধার করে লক্ষ্মীপুর সদর হাসপাতালে নিয়েছেন। আহতদের মধ্যে মফিজ, রহিমুল, রাজন, মাহামুল হাসান, দেলোয়ার ও চার বছরের শিশু আদিবের নাম জানা গেছে। বিস্তারিত পরিচয় এখনো জানা যায়নি। নিহতের মরদেহও সদর হাসপাতালে নেওয়া হয়েছে।  

হাসপাতালে চিকিৎসাধীন বাসের আহত হেলপার জানান, ভোর ৬টায় রামগতি থেকে যাত্রী নিয়ে হিমাচল পরিবহনের (ঢাকা মেট্রো ব ১৯-২৪২৪) একটি বাস লক্ষ্মীপুর হয়ে ঢাকা যাওয়ার পথে লক্ষ্মীপুর-চৌমুহনী সড়কের বটতলী এলাকায় পৌঁছালে শাখা সড়ক থেকে হঠাৎ মূল সড়কে একটি সিএনজিচালিত অটোরিকশা উঠে আসে। তাকে পাশ কাটাতে গিয়ে সামনে থেকে আসা একটি কাভার্ডভ্যানের মুখোমুখি হয়ে পড়ে হিমাচল বাস। এ সময় মুখোমুখি সংঘর্ষ এড়াতে গেলে সড়কের পাশের কাদায় পিছলে বাসটি রাস্তার পাশে খাঁদে পড়ে যায়।


আরও খবর