Logo
শিরোনাম

হিজড়া এবং ইন্টারসেক্স বিষয়ক আলাপে ঢুকার আগে একটা জিনিস ক্লিয়ার করি

প্রকাশিত:বুধবার ২৪ জানুয়ারী 20২৪ | হালনাগাদ:শনিবার ২২ জুন ২০২৪ |

Image

আজহার উদ্দিন অনিক, শিক্ষার্থী, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় :

আমি জানি আপনাদের অনেকেই মনে করেন হিজড়া মানে হার্মাফ্রোডাইট/ইন্টারসেক্স/যাদের মেল/ফিমেল দুইধরণেরই জেনিটালিয়া/বৈশিষ্ট্য আছে।

কিন্তু হিজড়া মানে ইন্টারসেক্স না, হিজড়া বলতে মোটাদাগে বাংলাদেশের একটা কমিউনিটিকে বুঝানো হয়, যার মধ্যে ইন্টারসেক্স এবং ট্রান্স দুই ধরণের মানুষই থাকে। হিজড়া শব্দটা একটা কালচারাল আমব্রেলা টার্ম একটা কম্যুনিটির জন্য, শুধুমাত্র ফিজিকালি ইন্টারসেক্স বুঝায় না এটা দিয়ে।  

তবে তর্কের খাতিরে এই লেখায় আমি আপাতত ধরে নিচ্ছি ইন্টারসেক্স = হিজড়া।

একইসাথে আপাতত তর্কের খাতিরে আমি ধরে নিচ্ছি ট্রান্স বলে কিছু নাই। ( আই রিপিট, আপাতত, যাতে আমরা একটু ঠান্ডা মাথায় ইন্টারসেক্স কী জিনিস সেইটা বুঝতে পারি)

  

ইন্টারসেক্স কী?

  

ইন্টারসেক্স হচ্ছে একটা গ্রুপ অফ কন্ডিশন্স, যেইখানে কমন থিম হচ্ছে এই যে একটা মানুষের ফিজিকালি বাইরের দিকে, অর্থাৎ বডির বাইরের দিকে যেই জেনিটালিয়া (যৌনাঙ্গ) থাকে, বডির ভিতরে, ইন্টার্নালি একই যৌনাংগ থাকে না। অর্থাৎ "ছেলেদের" ক্ষেত্রে যেরকম টেস্টিস আর "মেয়েদের" ক্ষেত্রে ওভারি থাকে, এমনটা হয় না। 

(এইগুলা মেডিকাল টার্ম, আমার ইনভেন্ট করা না)

  

আগে এই কন্ডিশনগুলাকে হার্মাফ্রোডাইট বলা হইত। এখন সাধারণত এই টার্ম ব্যবহার করা হয় না। এই কন্ডিশনগুলাকে বলা হয় ডিজঅর্ডারস অফ সেক্স ডেভেলপমেন্ট (DSDs)

  

এই কন্ডিশনগুলার ক্যাটাগরি ৪টা। (এখানে একটু লম্বা এবং বোরিং আলোচনা আছে, চাইলে সামনে স্কিপ করে যাইতে পারেন একটু)

  

১- 46 XX Intersex - এই কন্ডিশনে একজন ব্যক্তির XX ক্রোমোসম থাকে (নারীদের মত) কিন্তু তাদের বাইরের দিকে জেনিটালিয়ার এপিয়ারেন্স থাকে ছেলেদের মত। হরমোনাল ইম্ব্যালেন্সের কারণে এমন হইতে পারে। বেশিরভাগ ক্ষেত্রে এই ব্যক্তিদের নরমাল জরায়ু আর ফেলোপিয়ান টিউব থাকে, অর্থাৎ আদতে শারীরিকভাবে তিনি নারী, তার ছেলেদের মত দেখতে জেনিটালিয়া থাকলেও। 

এই কন্ডিশন হওয়ার বেশ কিছু কারণ আছে, এর মধ্যে হরমোনাল ইম্ব্যালেন্স এবং এরোমাটোজ ডেফিশিয়েন্সি প্রধান। (টার্ম দুইটা মাথায় রাখেন, পরে আমরা ফেরত আসবো এইখানে)

 

২- 46, XY Intersex - এইক্ষেত্রে জাস্ট আগের কেসের উলটো ঘটনা ঘটে। ছেলের ক্রোমোসম থাকলেও শরীরের বাইরের দিকে যেই জেনিটালিয়া থাকে তা থাকে মেয়েদের জেনিটালিয়ার মত দেখতে। শরীরের ভিতরের দিকে টেস্টিস থাকতেও পারে বা নাও থাকতে পারে। এইরকম হওয়ার পিছনেও অনেক কারণ আছে, তার মধ্যে হরমোনাল ইম্ব্যালেন্স, এন্ড্রোজেন ইন্সেন্সিটিভিটি সিন্ড্রোম (এই ডিফেক্টের ১৫০+ ধরণ আছে)। আবারো বলি, টার্মগুলা মাথায় রাখেন, পরে ফেরত আসবো এখানে।

  

৩- True Gonadal Intersex - এদের ওভারিয়ান এবং টেস্টিকুলার টিস্যু দুইটাই থাকে। এই কন্ডিশনটাকে শুধুমাত্র হার্মাফ্রোডাইটের কাছাকাছি বলা যায়, দুই ধরণেরই টিস্যু থাকার কারণে। এই কন্ডিশনের এক্সাক্ট কারণ আমি খুজে পাই নাই।

  

৪- Complex or undetermined intersex - 46 XX বা XY এর বাইরেও কিছু ক্রোমোসম কনফিগারেশন হইতে পারে, যেমন 45 XO, 47 XXY, 47 XXX। এই ধরণের ক্ষেত্রে হয় সেক্স ক্রোমোজম (যেইটা আপনার লিংগ নির্ধারণ করে) সেইটা হয় একটা কম থাকে নাইলে একোটা বেশি থাকে। এই ধরণের কেইসে জেনিটালিয়ার পরিবর্তন না হইলেও হরমোনাল বযালেন্স আর ডেভেলপমেন্টের সমস্যা হয়।

  

বাংলাদেশের পার্স্পেক্টিভে আসার আগে বিশ্বে আগে কী হইত মেডিকালি সেই বিষয়ে একটু ব্রিফ করি।

আগে যদি কোন বাচ্চা ইন্টারসেক্স এইটা ডিটেক্ট করা যাইত, তাহলে ডাক্তাররা এডভাইস করত যে বাইরের দিক থেকে যেই ধরণের জেনিটালিয়া আছে সেই জেনিটালিয়ার সাথে ম্যাচিং জেন্ডারে শিফট করার জন্য নেসেসারি সার্জারি করতে। এইটা করা হইত বাইরে থেকে জেনিটালিয়ার চেহারা দেখে, ক্রোমোসম কনফিগারেশন কী সেইটা দেখে না। (উপরে যেইখানে মেনশন করলাম যে জেনিটালিয়া ছেলের মত হইলেই ক্রোমোসম ছেলেদের এইটা ইন্টারসেক্সদের ক্ষেত্রে ফ্যাক্ট না)। এই সার্জারির ক্ষেত্রে যেকোন এক জেন্ডারের জেনিটালিয়া/টিস্যু অপারেশন করে রিমুভ করা হইত।

   

মেল জেনিটালিয়া রিকন্সট্রাক্ট (অপারেশন করে তৈরী করা) কঠিন দেখে সাধারণত জেনিটালিয়া ক্লিয়ার না হলে ফিমেল জেনিটালিয়া তৈরী করে দেয়ার জণ্য অপারেশন করা হইত, কারণ এইটা সহজ বেশি। 

  

পরে দেখা গেসে জাস্ট ইন্টারসেক্স মানুষদের ক্ষেত্রে ফিজিকাল জেনিটালিয়া দেখতে কেমন সেইটা দেখেই অপারেশন করে দিলেই সব সমস্যার সমাধান হয়ে যায় বিষয়টা এমন না। কারণ আগেই বলেছি, এইসব ক্ষেত্রে ক্রোমোসমের ইমব্যালেন্স থাকে, এবং কারো ক্রোমোজোম ছেলের হইলে অর্থাৎ জেনেটিকালি সে ছেলে হইলে, তার জেনিটালিয়া মেয়েদের মত দেখতে হওয়ার কারণে আপনি যতই অপারেশন করে তাকে কমপ্লিটলি মেয়ে বানায়ে দেয়ার চেষ্টা করেন কেন, এইটা পুরোপুরি ঠিকমত কাজ করবে না। সাইকোলজিকাল, নিউরাল, ক্রোমোজোমাল, বিহেভরিয়াল অনেক ইস্যু থেকেই যায় যেইগুলা ইনফ্লুয়েন্স করবে এই মানুষটাকে আসলে কোন জেন্ডার আইডেন্টিটিতে সুইচ করা উচিত।

  

(এই কারণে এখন ইন্টারসেক্স চিলড্রেনদের ক্ষেত্রে ডাক্তাররা সাথে সাথে অপারেশন না করে কিছুটা বড় হওয়া পর্যন্ত অপেক্ষা করার সাজেশন দেন, যাতে অন্য ফ্যাক্টরগুলো ক্লিয়ার হয়। কারণ কারো কন্ডিশনই হয়ত এক্সাক্টলি সেম না, এবং একেকজনের ক্ষেত্রে হয়ত একেক ট্রিটমেন্ট বেটার কাজে দিবে।)

  

যাই হোক, এই গেল বাইরের বিশ্বের অবস্থা। অবভিয়াসলি বাংলাদেশ এমন না। বাংলাদেশে হিজড়াদের অধিকার নিশ্চিত করা হইসেই মাত্র ১০ বছর আগে ২০১৩ সালে। 

  

বাংলাদেশে তাহলে হিজড়াদের (ইন্টারসেক্স) কী হয়?

  

এই আলাপে ঢুকার আগে একটা প্রশ্ন করি, বুকে হাত দিয়ে আপনি নিজেকে প্রশ্ন করেন, গত ১০ বছরে কি আপনি কোন না কোন সময় হিজড়া শব্দটা গালি/মক করার জন্য কখনো ব্যবহার করেছেন?

আপনি সাক্ষাৎ ফেরেশতা হয়ে না থাকলে, আপনার উত্তর হ্যা হওয়ার কথা।

হিজড়া শব্দটা তাইলে একটা গালি কেন? হিজড়ারা বাজেভাবে টাকা চায় রাস্তাঘাটে এই কারণে এইটা একটা গালি?

নাকি এইটা একটা গালি হওয়ার কারণেই হিজড়াদের রাস্তায় রাস্তায় ঘুরে টাকা চাইতে হয়?

আমি আমার নিজের অভিজ্ঞতায় জানি কোন ছেলে বাচ্চা দেখতে একটু মেয়েলি হইলে বা কোন মেয়ে বাচ্চা দেখতে একটু ছেলেদের মত হইলে তাদেরকে কি পরিমাণ রিডিকিউল করা হয়, ঢাকার সবচাইতে এলিট স্কুল/কলেজ/বিশ্ববিদ্যালয়েও। 

আমি এমনও দেখসি একটা ছেলের স্বাস্থ্য একটু বেশি হওয়ার কারণে তার বুকে একটু চর্বি বেশি জমে যাওয়ার কারণে ছেলেরা জোর করে তার বুকে হাত দিয়ে তাকে হ্যারাজ করতেসে বা মজা নিচ্ছে যে ঐ ছেলের বুক তো মেয়েদের মত। 

আপনার কি ধারণা ঢাকার বাইরে বা অন্যন্য ইকোনমিক ক্লাসে এই সিচুয়েশনটা বেটার?

একটা ছেলের চেহারা মেয়েলি হওয়ার জন্যে বা একটা মেয়ের চেহারা একটু ছেলেদের মত হওয়ার জন্য যদি তার জীবন দুর্বিষহ হয়ে যায়, তাইলে ইন্টারসেক্স বাচ্চাদের কী হাল হয়? 

  

বাকি আলোচনায় যাওয়ার আগে একটা জিনিস মেনে নেই সবাই, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বা সমাজে হিজড়া (ইন্টারসেক্স) মানুষদের ফাংশন করা কঠিন। 

আপনি তাদেরকে আপনার বাচ্চার সাথে সেম স্কুলে চাইবেন না, আপনি তাদের চাকরি দিতে চাইবেন না, আপনি তাদের সাথে আপনার পরিচিত কারো বিয়ে হোক এইটাও চাইবেন না। সহজ ভাষায় হিজড়ারা ভয়ানকভাবে মার্জিনালাইজড।

  

এইটা আমার আপনার মত সদ্য জন্ম নেয়া কোন ইন্টারসেক্স শিশুর বাবা মাও জানে। এই কারণে অনেকক্ষেত্রে এমন হইত (এখনো হয় কিনা জানি না), বাচ্চা ইন্টারসেক্স (হিজড়া) হলে সেই বাচ্চাকে বড় করতে যেই ঝামেলা হবে সেই ঝামেলার ভয়ে বাবা মা শিশুকে দিয়ে দিতেন হিজড়া কমিউনিটির কাছে। সেখানেই এই শিশুরা বেড়ে উঠে, স্কুল কলেজের বাইরে। 

(হিজড়া কমিউনিটিতে সবার অরিজিন এমন তা না, এইটা একটা উদাহরণ, ইন্টারসেক্স মানুষদের সোশাল স্ট্যান্ডিং বুঝাতে)।

     

যে শিক্ষা পায় নাই, যারে সমাজ মেনে নিবে না, চাকরি দিবে না, তার রাস্তায় রাস্তায় ঘুরে টাকা চাওয়া বাদে বেচে থাকার আর কোন উপায় আছে?

  

আমি ধরে নিচ্ছি আমার মত আপনারা সবাইও চান, ইন্টারসেক্স মানুষজন একটা ভাল ফিউচার পাক, তাদের বিরুদ্ধে কোন বৈষম্য না হোক। সেইটা নিশিচত করতে গেলে কী করা লাগবে?

  

১- তাদের সমাজে স্ট্যান্ডিং ইম্প্রুভ করা।

২- তাদের যেসব ফ্যাসিলিটিজ দরকার সেগুলোর ব্যবস্থা করা।

  

এইবার মেইন আলাপে আসি।

  

পুরো ঝামেলাটা শুরু হইসে এক লাইন নিয়েই, শরীফা নামের এক ব্যক্তির শরীর ছেলেদের মত, কিন্তু তার নিজেকে মনে হয় মেয়ে।

  

এইটা নিয়ে আপনাদের যত প্রতিবাদ, যে এইটা শুধু ট্রান্স ব্যক্তিদের ক্ষেত্রেই খাটে, হিজড়ারা (ইন্টারসেক্স) শরীরের দিক থেকে ছেলে/মেয়ে আর মনের দিক থেকে আরেকরকম হইতেই পারে না। 

  

আচ্ছা। ফলো করেন এই জায়গাটা একটু কষ্ট করে। আমি জানি লেখা অনেক লম্বা হয়ে যাইতেসে, তাও একটু ফোকাস করেন।

  

বাংলাদেশে হেলথকেয়ার কেমন সেইটা তো আপনারা জানেন, রাইট?

ধরে নিচ্ছি জানেন।

  

কোন বাচ্চা ইন্টারসেক্স নাকি ইন্টারসেক্স না, এইটা কিছুক্ষেত্রে জন্মের সময়েই বুঝা যায়, এটেন্ডিং ডাক্তার/স্পেশালিস্ট যদি এটা ধরতে পারে।

সেইটা বেস্ট কেস সিনারিও, যত তাড়াতাড়ি সম্ভব এই বিষয়টা বুঝে যাওয়া।

  

কিন্তু বাস্তবতায় নেমে আসেন। আপনার কি মনে হয় এই ২০+ কোটি মানুষের দেশে প্রত্যেক কোনায় ডাক্তার আছে? প্রত্যেক শিশুর জন্মের সময় প্রেজেন্ট থাকা ডাক্তাররাই এই স্পেসিফিক ফিল্ডে এত এক্সপার্ট যে তারা ধরতে পারে কোন বাচ্চা ইন্টারসেক্স?

অনেক বাচ্চার যে হাসপাতালের বাইরে নরমাল ডেলিভারি হয় বা হইত দেশের অনেক জায়গায়, সেইটার কথাও ভাবেন। সেইক্ষেত্রে কেমনে কেউ ডিটেক্ট করবে বাচ্চার এই ধরণের কোন সমস্যা আছে কিনা?

  

এইগুলা গেল সেসব কেস যেগুলায় ক্লিয়ারলি বুঝা যায় যে একটা বাচ্চা ইন্টারসেক্স। 

কিছুক্ষেত্রে একটা বাচ্চা ইন্টারসেক্স কিনা এইটা বুঝা যাওয়া সম্ভব কিছু টেস্ট করে, ক্রোমোজম এনালাইসিস, হরমোনাল লেভেলস, এন্ডোস্কোপিক টেস্ট, এমআরআই ইত্যাদির মাধ্যমে। বলা বাহুল্য, এই টেস্টগুলা সস্তা না, এবং বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই বাংলাদেশে কোন পরিবারের এত টাকা থাকবেনা এইসব টেস্ট করানোর।

ইন্টারসেক্স বাচ্চাদের ক্ষেত্রে এমন কেসও থাকে যেইসব ক্ষেত্রে সেই বাচ্চা বয়ঃসন্ধিকালে পৌছানোর আগ পর্যন্ত বুঝা যাবে না তার ইন্টারসেক্স কন্ডিশন, শুধুমাত্র পিউবার্টি বা বয়ঃসন্ধিকালেই ধীরে ধীরে বুঝা যায় যে সেই বাচ্চাটা ইন্টারসেক্স।

  

তাইলে আমরা আপাতত ধরে নিতে পারি যে এমন একটা সিনারিও থাকতেই পারে যে বয়ঃসন্ধিকালে এসে একটা বাচ্চা বুঝা শুরু করতে পারে যে সে হয়ত ছেলে/মেয়ে না, সে হয়ত ইন্টারসেক্স।

  

এখন তাকে যদি ছোটবেলা থেকে তার আউটার জেনিটালিয়ার উপর বেজ করে তাকে এসাইন করা হয় যে সে ছেলে, কিন্তু জেনেটিকালি সে মেয়ে, বয়ঃসন্ধিকালে এসে যখন তার মনে হবে সে মেয়ে, তখন তার কি মনে হবে?

  

তার মনে হবে না যে সে ছেলে, দেখতেও ছেলের মত, কিন্তু মনে মনে সে মেয়ে?

   

অন্য দিকটাও বলি, ধরেন একজন জেনেটিকালি ছেলে, আর আউটার জেনিটালিয়ার দিক থেকে মেয়ে। বয়ঃসন্ধিকালে এসে যদি সে টের পাওয়া শুরু করে যে তারে ছোটবেলা থেকে মেয়ে বলা হইলেও তার নিজেকে ছেলে মনে হচ্ছে, বা মেয়ে হইলেও তার মাসিক হচ্ছে না, তাইলে সে এইটাকে কীভাবে এক্সপ্রেস করবে?

  

তার মনে হবে না যে সে মেয়ে, দেখতেও মেয়েদের মত, কিন্তু মনে মনে সে ছেলে?

  

উপরে ইন্টারসেক্সের কন্ডিশনগুলা নিয়ে আলোচনার সময় কিছু কন্ডিশনের নাম মনে রাখতে বলসিলাম। সেইগুলা এখন আলোচনায় নিয়ে আসি, ব্রিফলি।

  

জেনেটিকালি মেয়ে কিন্তু ফিজিকালি ছেলের মতঃ 

  

১- কঞ্জেনিটাল এড্রেনাল হাইপারপ্লেসিয়া (Congenital adrenal hyperplasia)ঃ বেসিকালি জেনেটিকালি ছেলে/মেয়ে হইলেও একটা স্পেসিফিক এনজাইম না থাকার কারণে মেল সেক্স হরমোন এন্ড্রোজেন অনেক বেশি বেড়ে যায়।

ফলে জেনেটিকালি একটা মেয়ের জেনিটালিয়া ছেলেদের মত দেখতে হইতে পারে, আর এই কন্ডিশন অনেক সেভিয়ার না হইলে বাচ্চার বয়স বৃদ্ধির আগে ডিটেক্ট করা কঠিন।

  

২- মায়ের শরীরে যদি কোন কারণে টেস্টোস্টেরন যায় বা মায়ের শরীরের যদি টেস্টোস্টেরণ তৈরী করে এমন টিউমার থাকে (সাধারণত ওভারিতে হয়), সেইক্ষেত্রেও জেনেটিকালি মেয়ে কিন্তু ফিজিকাল এপিয়ারেন্স ছেলেদের মত এমন হইতে পারে।

  

৩- এরোমাটোজ হচ্ছে এমন এনজাইন যেইটা মেল সেক্স হরমোন কনভার্ট করে এস্ট্রোজেন (ফিমেল সেক্স হরমোন) তৈরী করে। যদি কারো মধ্যে এইটা কম থাকে বা একেবারেই না থাকে, তাহলে সে জেনেটিকালি মেয়ে হইলেও বাইরের দিকে ফিজিকাল এট্রিবিউট তৈরী হবে ছেলেদের মত, কারণ তাদের মেল সেক্স হরমোনই বেশি।  

জেনেটিকালি ছেলে কিন্তু ফিজিকালি মেয়ের মতঃ  

১- টেস্টিস ডেভেলপমেন্টে সমস্যা। যেহেতু টেস্টিস মেল হরমোন তৈরী করে, টেস্টিসের সমস্যা হইলে এমন হইতে পারে যে কেউ জেনেটিকালি ছেলে কিন্তু তার জেনিটালিয়া ছেলেদের মত করে ফর্ম করে নাই। (গonadal dysgenesis)

২- টেস্টোস্টেরন তৈরী করার জন্য দরকারি এনজাইমে ঘাটতি থাকলেও এমন হইতে পারে 

৩- এন্ড্রোজেন ইন্সেন্সিটিভিটি সিনড্রোম- এইক্ষেত্রে কেউ জেনেটিকালি ছেলে হইলেও, X ক্রোমোজমে একটা ডিফেক্টের কারণে বডি এই ছেলেদের মত এপিয়ারেন্স তৈরী করার যেই হরমোনগুলো থাকে, সেগুলোতে রেস্পন্ডই করতে পারে না। ফলে এমন হইতে পারে যে একটা মানুষ ফিজিকালি বাইরের দিক এবং ভিতরের দিক থেকে প্রায় পুরোপুরিই মেয়ে, জাস্ট জেনেটিকালি সে ছেলে।

       

(বিশেষ দ্রষ্টব্যঃ একটা কমন মিসকন্সেপশন হচ্ছে ইন্টারসেক্স মানুষরা বাচ্চা নিতে পারে না। এইটা পুরোপুরি সত্য না। ইন্টারসেক্স কন্ডিশনের অনেকের পক্ষেই বাচ্চা নেয়া সম্ভব, অর্থাৎ স্পার্ম প্রডিউস করা অথবা প্রেগন্যান্ট হওয়া। সবার ডিজঅর্ডার অফ সেক্স ডেভেলপমেন্ট একই ধরণের বা একই পর্যায়ে না।) 


আরো বেশ কিছু সিনারিও আছে, বাট মূল কথা এইটাই, ইন্টারসেক্স কন্ডিশন সবসময় চাইল্ডবার্থের সময় ডিটেক্ট করা যায় না, আর বাংলাদেশের পার্স্পেক্টিভে সেই প্রবাবলিটি কিছু সিনারিওতে আরো কম। সংক্ষেপে বলতে গেলে, বাংলাদেশের কিছুটা কঞ্জারভেটিভ সমাজে, যেখানে এইসব নিয়ে কথাবার্তা বলা ট্যাবু, সেইখানে বাবা-মা যদি জানতেও পারেন যে সন্তানের ইন্টারসেক্স কন্ডিশন আছে, তা সমাজের ভয়ে চেপে যাওয়া স্বাভাবিক, অথবা ইন্টারসেক্স কন্ডিশন যে বাচ্চার আছে এইটাই বুঝতে না পারাটা স্বাভাবিক। 

(কারণ আমাদের জেনারেশনই জানে না ঠিকমত ইন্টারসেক্স কী জিনিস বা ইন্টারসেক্সের সিম্পটম কী কী, তাইলে প্যারেন্টস কীভাবে জানবে?)

তাইলে এই বাচ্চাগুলা কি স্কুলে গিয়ে তাদের বয়ঃসন্ধিকালে গিয়েই বুঝবে না যে সামথিং ইজ নট রাইট?   

এই সময়েই কি বাচ্চাগুলার মনে হবে না যে হয়ত তাকে এতদিন যেই জেন্ডার হিসেবে বড় করা হইসে, আসলে হয়ত সে সেই জেন্ডারের না?

যেহেতু এই বাচ্চাদের কেউই জেন্ডার স্পেশালিস্ট না, আপনার কোন রোগ হইলে যেমন আমি কোন রোগ এইটা না বুঝলেও কিছু সিম্পটম বা ফিলিংস থেকে বুঝতে পারেন যে সামথিং ইজ রঙ, পিউবার্টি বা আরো পরে যদি একটা মানুষ ইন্টারসেক্স কন্ডিশনের সিম্পটমস প্রথম টের পাওয়া শুরু করে, তখন তারও মনে হবে সামথিং ইজ রঙ, সে ছেলে/মেয়ের ফিজিকাল এপিয়ারেন্সের ব্যাপারে যা জানে, সেইটার বেসিসে সে ছেলে/মেয়ে হইলেও তার নিজেকে ঐ জেন্ডারের মনে হচ্ছে না।

   

এখন আপনি যদি শিশুদের এই বেসিক আন্ডারস্ট্যান্ডিংটা না দেন যে অন্য কোন একটা মানুষ দেখতে ছেলেদের বা মেয়েদের মত হইলেও সে ইন্টারসেক্স হইতে পারে এবং এমন কন্ডিশনের কারণে সে স্কুলে পড়ার মত একটা বয়সে আবিষ্কার করতে পারে যে তার জেনেটিক জেন্ডার হয়ত ডিফারেন্ট (যখন পিউবার্টির হরমোনাল এক্টিভিটির কারণে কিছু সিম্পটম ইন্টেন্স হয়), তাইলে সে কীভাবে বুঝবে যে তার কোন বন্ধু/বান্ধবী যদি এমন কিছুর মধ্য দিয়ে যায়, তাকে মক করা বা তাকে অচ্ছুৎ করে দেয়া উচিত না?

  

বা, ঐ বাচ্চা নিজেও বা কীভাবে বুঝবে যে তার ইন্টারসেক্স কন্ডিশনের কারণে ঐ বয়সে এসে যে তার এরকম ডিফারেন্ট মনে হচ্ছে নিজেকে, এইটা নরমাল একটা জিনিস এবং সে চাইলে মেডিকাল হেল্প সিক করতে পারে বা বাবা-মাকে জানাতে পারে?

  

আপনি যদি বাচ্চাকে এগুলা নাই বুঝান, আপনি যদি মানুষজনকে এইটা নাই বুঝান, তাইলে আল্টিমেটলি হয় প্যারেন্টস ইগ্নোরেন্ট থেকে গিয়ে বাচ্চার কন্ডিশন ইগ্নোর করে যাবে অথবা, নাহয় বাচ্চা লজ্জার কারণেই কখনো তার এই সমস্যার কথা মুখ ফুটে বলবে না, নীরবে সাফার করে যাবে। 

এত লম্বা লেখার পিছনে ইন্সেন্টিভ কয়েকটা।

১- এই পয়েন্টটা ক্লিয়ার করা যে ইন্টারসেক্স একটা বাচ্চার ক্ষেত্রে এমন হইতেই পারে যে কিছুটা বড় হওয়ার পরেই সে আবিষ্কার করবে যে তার এই কন্ডিশন আছে (বিভিন্ন সিম্পটমের মাধ্যমে), তখন এইটা খুব ভালভাবেই সম্ভব যে এতদিন ফিজিকালি দেখতে তাকে মেয়ে মনে হইলেও জেনেটিকালি সে ছেলে বা ভাইস ভার্সা।  

২- ইন্টারসেক্স কন্ডিশন ডিটেক্ট করা এত সহজ না, এবং সহজে সবার জন্য এফোর্ডেবল না রিয়েলিস্টিকালি। দেশে এখনো হস্পিটালের বিল দিতে না পারার কারণে বাচ্চা বিক্রি করে দেয়ার মত ঘটনাও ঘটে। আপনার কি মনে হয় এইসব পরিবার লাখ টাকা খরচ করে এমআরআই বা ক্রোমোজোম এনালাইসিস করাইতে পারবে বাচ্চা ইন্টারসেক্স কিনা এইটা ডিটেক্ট করার জন্য চাইলেই?

      

পোস্টের শুরুতে একটা কথা বলে নিসিলাম, আমরা আপাতত ধরে নিচ্ছি যে ট্রান্স বলে কিছু নাই। সেই এজাম্পশন রেখে আপনি যদি এই পুরো জিনিসটা দেখেন, তাইলে আপনার কাছে এইটা ক্লিয়ার হওয়ার কথা যে ঐ বইয়ে যেই জিনিসটা লেখা, সেইটা দিয়ে যে শুধু ট্রান্সই বুঝাইতে পারে, ইন্টারসেক্স কন্ডিশন বুঝানো সম্ভব না- এইটা একটা ভুল কন্সেপশন। 

  

আপনি যদি চান যে যেই ইন্টারসেক্স মানুষদেরকে ২০১৩ সালে আইন করে স্বীকৃতি দেয়া হইসে তাদের ব্যাপারে এক্সেপ্টেন্স বাড়ুক সমাজে, তাইলে আপনার পাঠ্যবইয়ে তাদের ইঙ্কলুশন মেনে নিতে হবে।

  

আপনাকে এইটাও মেনে নিতে হবে যে জন্ম থেকেই কাউরে হিজড়া হিসেবে আইডেন্টিফাই করা হয় না, এবং অনেক ক্ষেত্রে এই হিজড়া(ইন্টারসেক্স) কমিউনিটির মানুষরা এমন মানুষ যারা হয়ত তাদের ইন্টারসেক্স কন্ডিশন ডায়াগনোজ করার টেস্টের টাকা অথবা যেই সার্জারি দরকার তাদের কোন একটা জেন্ডারে শিফট করানোর জন্য সেইটার টাকা এফোর্ট করতে পারে না দেখেই তারা হিজড়া থেকে গেছে। সেধে সেধে কেউ মার্জিনালাইজড হইতে চায় না।

আপনি যদি চান যে পরের জেনারেশন থেকে ইন্টারসেক্স মানুষেরা মার্জিনালাইজড না হোক, তারা সমান রাইট পাক, তাইলে আপনাকে এইটা নিশ্চিত করা লাগবে যে যেই বয়সে তারা আবিষ্কার করবেন যে তাদের ইন্টারসেক্স কন্ডিশন আছে, (সেইটা শৈশব, কৈশোর বা আরো বড় বয়সেও হইতে পারে, আমরা এস্টাব্লিশ করেছি ইন্টারসেক্স কন্ডিশন সবসময় জন্মের সময় ধরা পড়ে না), সেই বয়সে যাতে তাদের এই আবিষ্কার করা, এবং দরকারি জেন্ডার চেঞ্জের যেই প্রসেস/সার্জারি, এই ট্রান্সফরমেশনের সময় যাতে তাদেরকে রিডিকিউল করা না হয়, তাদেরকে অচ্ছুৎ বানায়ে দেয়া না হয়। যদি তাদের এক্সেপ্টেন্স না থাকে, তাহলে তারা হয় কখনো প্রয়োজনীয় ট্রিটমেন্ট বা প্রসিডিউর নেয়ার সাহসই পাবেন না, আর নাহয় তাদেরকে সাধারণ সমাজ থেকে দূরে সরে গিয়ে হিজড়া কমিউনিটিতে চলে যাইতে হবে।

(আবারো মনে করাই, এখানে ট্রান্সজেন্ডারদের কথা বলা হচ্ছে না, বলা হচ্ছে ইন্টারসেক্স কন্ডিশনে ভোগা ব্যক্তিদের কথা)।

  

এত বিশাল লেখার শেষে এসে যদি কারো আমাকে মাইর দিতে ইচ্ছা না করে, তাইলে আমি আশা করি আপনার হয়ত ইন্টারসেক্স কন্ডিশন, এই কন্ডিশনের কারণে কীভাবে ডায়াগনোসিস বা নেসেসারি ট্রিটমেন্ট/সার্জারি/ট্রান্সফরমেশন কীভাবে ডিলেইড হইতে পারে, কীভাবে দেখতে ছেলে মনে হইলেও জেনেটিকালি একজন নারী বা দেখতে মেয়ের মত হইলেও জেনেটিকালি কেউ ছেলে হইতে পারে সেই বিষয়ে আন্ডারস্ট্যান্ডিং বাড়বে। 

(ভাংগা রেকর্ডের মত আবার বলি, ট্রান্সজেন্ডারের কথা এখানে হচ্ছে না। যে জেনেটিকালি ফিজিকাল এপিয়ারেন্স থেকে ডিফারেন্ট জেন্ডারের সে তার এই কন্ডিশনটা কিছুটা বড় হয়ে আবিষ্কার করার প্রসেসের কথা বলা হচ্ছে।)

  

আশা করি আপনাদের কাছে পরিষ্কার হইসে কীভাবে ফিজিকালি ছেলের মত দেখতে মনে হইলেও একজনের অরিজিনালি/জেনেটিকালি মেয়ে হওয়ার বা নিজেকে মেয়ে মনে হুয়ার মত সিনারিও ঘটতে পারে ইন্টারসেক্স কন্ডিশনের মানুষদের, এবং কেন এই জিনিসটা শিশুদের বুঝানোর মাধ্যমে ইন্টারসেক্স কন্ডিশনের ব্যক্তি বা শিশুদের সমাজে/স্কুলে এক্সেপ্টেন্স তৈরী করাটা জরুরি। 

যদি এক্সেপ্টেন্স না থাকে, তাইলে সে সমাজে ফাংশন করতে পারবে না।

হয় সে ডায়াগনসিস বা ট্রিটমেন্টের অভাবে সারা জীবন সাফার করে কাটায়ে দিবে,

আর নাইলে বাধ্য হয়ে হিজড়া কমিউনিটিতে যোগ দিয়ে বেসিকালি ভিক্ষাবৃত্তিতে যোগ দিতে বাধ্য হবে পেটের ভাত যোগাইতে।


আরও খবর



আদিতমারিতে পাওনা টাকা নিয়ে স্কুল ছাত্রকে কুপিয়ে হত্যা

প্রকাশিত:শুক্রবার ০৭ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২১ জুন ২০২৪ |

Image

নিজস্ব প্রতিনিধি,লালমনিরহাট :

লালমনিরহাট জেলার আদিতমারী উপজেলায় বন্ধুর কাছে পাওনা টাকা নিয়ে বিরোধের জেরে এক স্কুলছাত্রকে কুপিয়ে হত্যার অভিযোগে মধু চন্দ্রকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

অভিযুক্ত মধুসুধন  চন্দ্র ভাদাই ইউনিয়নের রুহানীনগর এলাকার মৃত সুবাস চন্দ্রের ছেলে।

বৃহস্পতিবার (৬ জুন) দুপুরে উপজেলার ভাদাই ইউনিয়নের রুহানী নগরে সতিনদীতে থেকে স্কুলছাত্র ফরহাদ আলীর (১৬) বস্তাবন্দি মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ।

 মৃত স্কুলছাত্র ফরহাদ একই ইউনিয়নের শীববাড়ি এলাকার গরু ব্যবসায়ী শাহাজান আলীর ছেলে।

সে আদিতমারী উপজেলার সারপুকুর উচ্চ বিদ্যালয়ের দশম শ্রেণির ছাত্র।

 ঘটনা স্থলে পরিদর্শনে আসা পুলিশ সুপার জানায়,‌ মধু একটি মোটরসাইকেল কিনে পাশের গ্রামের শীববাড়ির ফরহাদের কাছে বিক্রি করেন। সেই মোটরসাইকেলের টাকা লেনদেন নিয়ে তাদের মধ্যে ঝগড়া বিবাদ  হয়। মঙ্গলবার সন্ধ্যায় মোটরসাইকেল নিয়ে ফরহাদ বাড়ি থেকে বের হয়, আর ফেরেনি স্কুলছাত্র ফরহাদ। ছেলের সন্ধান না পেয়ে আদিতমারী থানায় সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করেন ফরহাদের বাবা। সেই জিডির সূত্র ধরে অনুসন্ধানে নামে পুলিশ। প্রথমদিকে ফরহাদের ব্যবহৃত মোবাইল ফোনটি মধু কাছে পাওয়া যায়। এসময় তাকে আটক করা হয়। বৃহস্পতিবার দুপুরে মধুর দেওয়া তথ্যমতে তার বাড়ি থেকে অস্ত্র ও পাশের ভেটশ্বর নদী থেকে ফরহাদের বস্তাবন্দি মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ।  

আদিতমারী থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি, তদন্ত) রফিকুল ইসলাম জানান, মরদেহ ময়নাতদন্তের জন্য লালমনিরহাট সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে। এঘটনায় গ্রেফতারকৃত আসামির বিরুদ্ধে হত্যা মামলা দায়ের করা হবে। 

পুলিশ সুপার মোহাম্মদ সাইফুল ইসলাম আরও জানান, যদি এই হত্যা কান্ডের সাথে আরও কেউ জড়িত থাকে তাদেরকেও আইনের আওতায় আনা হবে।  

পরিদর্শন শেষে ফেরার সময় রাস্তায় নিহত ফরহাদের স্বজনরা অবরোধ করে ন্যায় বিচারের আশায়।


আরও খবর



কোচিং সেন্টার বন্ধ থাকবে ৪৪ দিন

প্রকাশিত:বুধবার ০৫ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২১ জুন ২০২৪ |

Image



নিজস্ব প্রতিবেদক:


২০২৪ সালের উচ্চমাধ্যমিক সার্টিফিকেট (এইচএসসি) ও সমমানের পরীক্ষা উপলক্ষে দেশের সব কোচিং সেন্টার আগামী ২৯ জুন থেকে ১১ আগস্ট পর্যন্ত (৪৪ দিন) বন্ধ থাকবে। 


৩০ জুন অনুষ্ঠিতব্য এইচএসসি ও সমমান পরীক্ষার প্রশ্নফাঁসের চেষ্টা ও প্রশ্ন ফাঁস ঠেকাতে এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। 



আজ বুধবার (৫ জুন) সচিবালয়ে মন্ত্রণালয়ের সম্মেলন কক্ষে এ বিষয়ে জাতীয় মনিটরিং ও আইনশৃঙ্খলা কমিটির সভা শেষে আয়োজিত প্রেস ব্রিফিংয়ে এ তথ্য জানান শিক্ষামন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী।  



শিক্ষামন্ত্রী বলেন, ‘আসন্ন এইচএসসি ও সমমান পরীক্ষা প্রশ্নফাঁস এবং গুজব ও নকলমুক্ত পরিবেশে সুষ্ঠু ও সুন্দরভাবে সম্পন্ন করার লক্ষ্যে আগামী ২৯ জুন থেকে ১১ আগস্ট পর্যন্ত সব কোচিং বন্ধ থাকবে।


শিক্ষা বোর্ডগুলোর পরীক্ষা নিয়ন্ত্রণ কক্ষের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট পরীক্ষাকেন্দ্রগুলো অনলাইনে সার্বক্ষণিক তথ্য আদান-প্রদান করবে।’



মন্ত্রী আরও বলেন, ‘আমরা দৃঢ়ভাবে বিশ্বাস করি, এইচএসসি ও সমমান পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে শান্তিপূর্ণ ও উৎসবমুখর পরিবেশে। ছাত্র-শিক্ষক ও অভিভাবকদের কাছে আমাদের নেওয়া ব্যবস্থা সন্তোষজনক হবে।’ 


এবার দেশের ১১টি বোর্ডের অধীনে পরীক্ষায় বসছেন ১৪ লাখ ৫০ হাজার ৭৯০ শিক্ষার্থী। এর মধ্যে ছাত্র ৭ লাখ ৫০ হাজার ২৮১ জন এবং ছাত্রী ৭ লাখ ৫০৯ জন। এই পরীক্ষার্থীরা ৯ হাজার ৪৬৩টি প্রতষ্ঠান থেকে ২ হাজার ৭২৫টি কেন্দ্র পরীক্ষায় অংশ নেবেন।



আরও খবর



সাফ চ্যাম্পিয়ন নারী ফুটবলার কৃষ্ণা রাণী সরকার বিপাকে

প্রকাশিত:শনিবার ০১ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ২০ জুন ২০24 |

Image

বিডি টু ডে ডেস্ক:


সাফ চ্যাম্পিয়ন বাংলাদেশ নারী ফুটবল দলের খেলোয়াড় কৃষ্ণা রাণী সরকার অনেক দিন ধরে ইনজুরিতে পড়ে ছিলেন। 


জাতীয় দলের হয়ে মাঠে নামতে না পারলেও ক্লাব লিগে খেলেছেন নাসরিন স্পোর্টস একাডেমির হয়ে। তার পায়ের পাতায় সমস্যা। ঢাকায় ডাক্তার দেখানোর পরও পুরোপুরি পূর্ণসুস্থ হচ্ছিলেন না তিনি। 


পায়ের আঙ্গুল শুকিয়ে আসছিল। এর মধ্যে লিগেও খেলেছেন, চ্যাম্পিয়ন হয়েছেন। গোল করেছিলেন তিনি। 


কিন্তু সম্প্রতি কৃষ্ণা তার ফেসবুকে একটি পোষ্ট দিয়ে, অভিযোগ তুলেছিলেন যে, বাফুফের কাছ থেকে বিদেশে চিকিৎসায় সহায়তা পাচ্ছিলেন না। তার এই হতাশার কথা প্রকাশ করে বিপদে রয়েছেন কৃষ্ণা। 


তার যে সমস্যা সেটি নিরাময়ের জন্য উন্নত দেশে চিকিৎসা দরকার, একথা নাকি বিসিবির ডাক্তার দেবাশীষ চৌধুরী জানিয়েছিলেন। 


পায়ের চিকিৎসক দেখানোর পরামর্শ দিয়েছিলেন তিনি। অন্তত পক্ষে ভারতে গিয়েও ডাক্তার দেখানো হলেও ভালো হতো। কিন্তু সেটিও নাকি পাননি কৃষ্ণা। তাকে বিদেশে চিকিৎসা করাতে যেতে হলে অর্থের প্রয়োজন।


 সেটি কে দেবে। বাফুফের নারী ফুটবল কমিটির দায়িত্ব এটি। কিন্তু সেটি করা হয়নি। কৃষ্ণা রাণী যখন তার সমস্যার কথা ফেসবুকে লিখেছেন তা দেখে চটে গেছে বাফুফে। 


দ্রুতই কৃষ্ণার জন্য ব্যাপারে উদ্যোগ নেওয়া হবে বাফুফের সাধারণ সম্পাদক ইমরান হোসেন তুষার সংবাদ মধ্যমকে জানিয়েছেন এবং কৃষ্ণা কেন অভিযোগ করেছেন তার জবাব চাইবে বাফুফে। বিপাকেই পড়েছেন কৃষ্ণা। 


আরও খবর



আজ সেরা আটে যাওয়ার লড়াইয়ে নামছে বাংলাদেশ

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ১৩ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২১ জুন ২০২৪ |

Image



স্পোর্টস রিপোর্টার:


যুক্তরাষ্ট্র পর্ব শেষ করে বাংলাদেশ ক্রিকেট দল এখন ওয়েস্ট ইন্ডিজে। দেশটির সেন্ট ভিনসেন্টে অবস্থিত আর্নোস ভ্যালে গ্রাউন্ডে আজ রাত সাড়ে ৮টায় নেদারল্যান্ডসের মুখোমুখি হবে বাংলাদেশ।



 এটি নাজমুল হোসেন শান্তদের তিন নম্বর ম্যাচ। এর আগে শ্রীলঙ্কা ও দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে খেলে এসেছেন তারা। মার্কিন মুলুকে লঙ্কানদের হারাতে পারলেও প্রোটিয়াদের বিপক্ষে পরাস্ত হয়েছে টাইগার বাহিনী। তাতে সেরা আটে যাওয়ার জন্য আজকের ম্যাচটি বাংলাদেশের কাছে গুরুত্বপূর্ণ। 


এই ম্যাচে জয় তুলে নিতে পারলে ‘ডি’ গ্রুপ থেকে পরের পর্বের জন্য অনেকটাই এগিয়ে থাকবেন শান্তরা। সেজন্য ডাচ বাধা কাটাতে মরিয়া বাংলাদেশ।


টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের গেল আসরে নেদারল্যান্ডসকে হারানোর সুখস্মৃতি রয়েছে বাংলাদেশের। সাকিব আল হাসানরা এই দলকে হারিয়েই সেবার বিশ্বকাপ মিশন শুরু করেছিলেন। তারপর আরও একটি জয় পেয়েছিল বাংলাদেশ, কিন্তু দ্বিতীয় পর্বে যাওয়া হয়নি। 


কিন্তু এবার সেরা আট হাতছানি দিচ্ছে লাল-সবুজের প্রতিনিধিদের। এখন পর্যন্ত চার বার টি-টোয়েন্টি ম্যাচে মুখোমুখি হয়েছে বাংলাদেশ ও নেদারল্যান্ডস। এর মধ্যে তিন বার জয় তুলে নিয়েছে টাইগার বাহিনী। 



২০১৬ বিশ্বকাপের পর ২০২২ বিশ্বকাপেও জয় এসেছে। ২০১২ সালে তিন জাতি সিরিজে ১ উইকেটে হেরেছিল বাংলাদেশ। তবে সেই পরিসংখ্যান বাদ দিলে বিশ্বকাপের মঞ্চে দাঁড়িয়ে অনেকটাই এগিয়ে থাকবেন শান্তরা।



গত প্রায় ১০ বছর ধরে আর্নোস ভ্যালেতে আন্তর্জাতিক ম্যাচ হচ্ছে না। এবার সেখানেই নামবে বাংলাদেশ। আশা করা হচ্ছে, নিউ ইয়র্কের নাসাউ কাউন্টির মতো ভরাডুবি হবে না। তবে দীর্ঘদিন ম্যাচ না হওয়ায় উইন্ডিজের এই উইকেট সম্পর্কেও ধারণা পাওয়া যাচ্ছে না। 



এই ম্যাচটি ‘ডি’ গ্রুপের অঘোষিত ফাইনাল হিসেবে সামনে এসেছে। দ. আফ্রিকা সেরা আট নিশ্চিত করার কারণে আজকের ম্যাচে যারাই জয় তুলে নিতে পারবে, দ্বিতীয় দল হিসেবে সেই দৌড়ে তারাই এগিয়ে থাকবে।


 আপাতত সেই লড়াই মাঠে গড়ানোর অপেক্ষায়। 


আরও খবর



রোহিঙ্গা ক্যাম্পে দুই গ্রুপের পাল্টাপাল্টি হামলা, নিহত-৩

প্রকাশিত:সোমবার ১০ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২১ জুন ২০২৪ |

Image



নিজস্ব প্রতিবেদক:


কক্সবাজারে রোহিঙ্গা ক্যাম্পে আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে সন্ত্রাসীদের গুলিতে তিনজন রোহিঙ্গা নিহত হয়েছে। এসময় আহত হয়েছে আরও তিনজন। তাদের উদ্ধার করে কক্সবাজার সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।



সোমবার (১০ জুন) ভোরে জেলার উখিয়া উপজেলার চার নম্বর (এক্সটেনশন) রোহিঙ্গা ক্যাম্পের এফ ব্লকে এ ঘটনা ঘটে।


নিহতরা হলেন, ওই ক্যাম্পের এফ ব্লকের জাফর আহম্মদের ছেলে মো. ইলিয়াছ (৩১), মৃত আব্দুর রকিমের ছেলে মো. ইছহাক (৫৪) ও ক্যাম্প-৩-এর ই ব্লকের মো. ইসমাইলের ছেলে ফিরোজ খান (১৮)।


আহতরা হলেন- ক্যাম্পের এফ ব্লকের হাছানের ছেলে আব্দুল হক (৩২), নজির আহাম্মদের ছেলে আব্দুস শুক্কুর (৫৫) ও মৃত ওমর মিয়ার ছেলে আব্দুল মোনাফ (৬০)।



সূত্র জানিয়েছে, ভোর পৌনে চারটার দিকে রোহিঙ্গা মো. ইলিয়াছকে মিয়ানমারের বিচ্ছিন্নতাবাদী সন্ত্রাসী সংগঠন রোহিঙ্গা সলিডারিটি অর্গানাইজেশনের (আরএসও) সদস্যরা গুলি করে ও ধারালো অস্ত্র দিয়ে হাতে, পায়ে, তলপেটে কুপিয়ে মারাত্মকভাবে জখম করে। পরে অতিরিক্ত রক্তক্ষরণ হয়ে ঘটনাস্থলে সে মারা যায়।


এরপরে, ভোর সোয়া চারটার দিকে মিয়ানমারের সশস্ত্র গোষ্ঠী আরাকান স্যালভেশন আর্মির (আরসা) সদস্যরা ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে আরএসও সমর্থক মো. ইছহাক, ফিরোজ খান, আব্দুল হক, আব্দুস শুক্কুর ও আব্দুল মোনাফকে শরীরের বিভিন্ন স্থানে গুলি করে ও ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে মারাত্মকভাবে জখম করে।


ঘটনার সূত্রপাত সম্পর্কে প্রাথমিকভাবে জানা গেছে, প্রথমে নিহত রোহিঙ্গা ইলিয়াছ আরসার সোর্স হিসেবে কাজ করতো। আরসা সম্পর্কে তথ্য দিতে রাজি না হওয়ায় আরএসও সদস্যরা প্রথমে তাকে হত্যা করে। পরে ঘটনার খবর পেয়ে আরসা সদস্যরা এসে কয়েকজন আরএসও সমর্থকের ওপর এলোপাতাড়ি হামলা চালায়।


ঘটনার পরে আহত রোহিঙ্গাদের চিকিৎসার জন্য উখিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেওয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মো. ইছহাক ও ফিরোজ খানকে মৃত ঘোষণা করেন। বাকিদের উন্নত চিকিৎসার জন্য কক্সবাজার সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়।


উখিয়া থানার অফিসার ইনচার্জ শামীম হোসেন জানান, নিহতদের মরদেহ মর্গে পাঠানো হয়েছে। এ ব্যাপারে আইনি ব্যবস্থা প্রক্রিয়াধীন।


রোহিঙ্গা ক্যাম্পে নিয়োজিত আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী ১৪ আর্মড পুলিশ ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক মো. ইকবাল বলেন, একজন ঘটনাস্থলে মারা যায়। দুজন আহত অবস্থায় হাসপাতালে মারা যায়। বর্তমানে রোহিঙ্গা ক্যাম্পের পরিস্থিতি স্বাভাবিক রয়েছে।


আরও খবর