Logo
শিরোনাম

যাচ্ছেন দোরাইস্বামী, আসছেন সুধাকর

প্রকাশিত:শনিবার ০২ জুলাই 2০২2 | হালনাগাদ:বুধবার ১০ আগস্ট ২০২২ |
Image

ভারতীয় হাই কমিশনার বিক্রম দোরাইস্বামী বাংলাদেশ চ্যাপ্টার শেষ করে এবার যুক্তরাজ্য মিশনের দায়িত্ব নিতে যাচ্ছেন। আর তার স্থলে ঢাকায় নতুন হাই কমিশনার হয়ে আসতে পারেন সুধাকর ডালেলা।

ভারতের সংবাদপত্র হিন্দুস্থান টাইমস শনিবার (২ জুলাই) এই খবর দিয়েছে।

রীভা গাঙ্গুলী দাশের উত্তরসূরি হয়ে দুই বছর আগে ঢাকায় ভারতীয় হাই কমিশনার হয়ে আসেন দোরাইস্বামী। হিন্দুস্থান টাইমসের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, লন্ডনে গায়ত্রী ইশার কুমারের উত্তরসূরি হতে দোরাইস্বামীর যাওয়া ঠিক হয়ে গেছে।

পেশাদার কূটনীতিক দোরাইস্বামী বাংলাদেশে আসার আগে দক্ষিণ কোরিয়া ও উজবেকিস্তানে ভারতের রাষ্ট্রদূত ছিলেন।

দিল্লি ইউনিভার্সিটির ইতিহাসের ছাত্র দোরাইস্বামী ১৯৯২ সালে ভারতের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে যোগ দেওয়ার আগে কিছুদিন সাংবাদিকতাও করেছিলেন।

দোরাইস্বামীর জায়গায় যে সুধাকর ডালেলার আসার ইঙ্গিত দিয়েছে হিন্দুস্থান টাইমস, তিনি ১৯৯৩ সালে ভারতের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে যোগ দেন। বর্তমানে তিনি যুক্তরাষ্ট্রে ভারতীয় মিশনের উপ-প্রধানের দায়িত্বে রয়েছেন।

কূটনীতিক হিসেবে সুধাকরের কাজ শুরু হয় ইসরায়েলে, পরে তিনি ব্রাজিল, সুইজারল্যান্ডেও কাজ করেছেন। ওয়াশিংটনে ভারতীয় দূতাবাসে রাজনীতি বিষয়ক মিনিস্টারের পদেও ছিলেন তিনি।

কর্মজীবনে ঢাকায় ভারতীয় হাই কমিশনেও কাজ করে গেছেন সুধাকর। তিনি দেশটির প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের পরিচালকের দায়িত্বও সামলে এসেছেন, তখন তার দায়িত্ব ছিল দক্ষিণ এশিয়া, চীন, প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলের দেশগুলোতে ভারতের স্বার্থ দেখা। সুধাকর বিশ্ব বাণিজ্য সংস্থায় ভারতের স্থায়ী প্রতিনিধি হিসেবেও দায়িত্ব পালন করেন।


আরও খবর



দায়িত্ব অবহেলায় বিমানের সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ০৪ আগস্ট ২০২২ | হালনাগাদ:বুধবার ১০ আগস্ট ২০২২ |
Image

মইনুল ইসলাম মিতুল ঃ

যার দায়িত্ব সে দায়িত্ব পালন না করে অন্যকে দিয়ে সেই কাজ করানোর কারণে হ্যাঙ্গার ও পার্কিং বেতে বাংলাদেশ বিমানের সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে।  বলে জানিয়েছেন বিমানের ব্যবস্থাপনা পরিচালক।  

নতুন ব্যবস্থাপনা পরিচালক দায়িত্ব নেয়ার পর আনুষ্ঠানিক সংবাদ সম্মেলনে জানান, তদন্তে বেরিয়ে এসেছে বিমানকে পার্কিং বে তে নিয়ে আসার জন্য পুশাকটের নির্দেশনা একজন সুইপার করছিলেন। যারা দায়িত্ব পালন করেননি তাদের সবাইকে বরখাস্ত করা হয়েছে। 

নতুন ব্যবস্থাপনা পরিচালক জানান, তার লক্ষ্য বিমানের বার্ষিক আয় ৭০০ মিলিয়ন থেকে ১ বিলিয়ন ডলারে উন্নিত করা।

দায়িত্বরত কর্মকর্তাদের গাফিলতিতেই একের পর এক এয়ারক্রাফটে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে বিমানবন্দরে। স্বীকার করলেন খোদ বিমান এমডি ই। বলাকায় সংবাদ সম্মেলনে তিনি দাবি করেন, এখন পর্যন্ত যে কটি ঘটনা ঘটেছে সবগুলোতেই দোষী সবাইকেই বরখাস্ত করা হয়েছে। এসময় বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠান হিসেবে বিমানের লাভ করা উচিত ছিলো জানিয়ে বিমান এমডি বলেন, চলতি বছর স্বাধীনতার পর সবচেয়ে বেশি লাভের মুখ দেখবে সংস্থাটি।

কখনো হ্যাঙ্গারে, কখনো থেমে থাকা এয়ারক্রাফটে, শেষ ৫ মাসে ৫টি দুর্ঘটনা ঘটেছে শাহজালাল বিমানবন্দরে। সবশেষ গত ৩ জুলাই রাতে বিমানবন্দরের হ্যাঙ্গারে সংঘর্ষ ঘটে দুটি বোয়িং বিমানের মধ্যে। ফলে প্রশ্ন উঠেছে, বার বার এমন ঘটনা কি নিছক ই দুর্ঘটনা নাকি ইচ্ছাকৃত অবহেলা, তা নিয়ে।

এবার এই ইস্যুতে বেশ খোলামেলা বিমানের নতুন এমডি। বলাকায় সংবাদ সম্মেলনে তিনি সরাসরি দায়ী করলেন, দুর্ঘটনার সময় দায়িত্বরত কর্মকর্তাদের। দোষী সবাইকেই বহিস্কার করা হয়েছে জানিয়ে তিনি বলেন, দক্ষ জনবলের অভাবে ভুগছে বিমান।

সংবাদ সম্মেলনে বিমানবন্দরের লাগেজ ব্যবস্থাপনায় দুর্বলতা, সেবার নিম্ন মান, আর ধারাবাহিক লোকসানের অভিযোগ স্বীকার করেন বিমান এমডি। এসময় বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠান হিসেবে লাভের মুখ দেখতে না পারার ব্যর্থতা মেনে নিয়ে সংস্থাটির দাবি, চলতি বছর রেকর্ড পরিমাণ অর্থ উপার্জন করবে বিমান।

বিমানে যার যে কাজ করার কথা, এর আগে কেউ তা করেনি। পরিচালনায় নিয়োজিত কর্মকর্তাদের ব্যর্থতা ছিলো বলেও সংবাদ সম্মেলনে জানায় সংস্থাটি।


আরও খবর

আন্তর্জাতিক আদিবাসী দিবস

মঙ্গলবার ০৯ আগস্ট ২০২২




আরও ৭৩ ডেঙ্গু রোগী হাসপাতালে

প্রকাশিত:বুধবার ১৩ জুলাই ২০২২ | হালনাগাদ:সোমবার ০৮ আগস্ট ২০২২ |
Image

সারাদেশে ২৪ ঘণ্টায় আরও ৭৩ জন ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন। এর আগে সোমবার (১১ জুলাই) ৭ জন রোগী হাসপাতালে ভর্তি হয়েছিলেন। সবমিলিয়ে হাসপাতালে ভর্তি হওয়া ডেঙ্গু রোগীর সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১৪১ জনে।

মঙ্গলবার (১২ জুলাই) স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের হেলথ ইমার্জেন্সি অপারেশন সেন্টার ও কন্ট্রোল রুমের নিয়মিত ডেঙ্গু বিষয়ক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়ে নতুন হাসপাতালে ভর্তি হওয়াদের মধ্যে ৪২ জনই ঢাকার বাসিন্দা। এই সময়ে ঢাকার বাইরে হাসপাতালে ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়ে নতুন করে ৩১ জন রোগী ভর্তি হয়েছেন।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, নতুন ৭৩ জনসহ বর্তমানে দেশের বিভিন্ন সরকারি ও বেসরকারি হাসপাতালে সর্বমোট ভর্তি থাকা ডেঙ্গু রোগীর সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১৪১ জনে। তাদের মধ্যে ১০৭ জনই ঢাকার বিভিন্ন সরকারি ও বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি আছেন। আর ঢাকার বাইরে রয়েছেন সর্বমোট ৩৪ জন রোগী।

চলতি বছরের ১ জানুয়ারি থেকে মঙ্গলবার পর্যন্ত হাসপাতালে সর্বমোট রোগী ভর্তি হয়েছেন এক হাজার ৪৭৭ জন। তাদের মধ্যে সুস্থ হয়ে হাসপাতাল ছেড়েছেন এক হাজার ৩৩৫ জন। 


আরও খবর

আজ কলেরার দ্বিতীয় ডোজের টিকা

বুধবার ০৩ আগস্ট ২০২২




ভয়াবহ যুদ্ধ মহড়া চালিয়ে যাচ্ছে চীন

প্রকাশিত:শুক্রবার ০৫ আগস্ট ২০২২ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ০৯ আগস্ট ২০২২ |
Image

তাইওয়ান ইস্যুকে কেন্দ্র করে দ্বিতীয় দিনের মতো ভয়াবহ যুদ্ধ মহড়া চালিয়ে যাচ্ছে চীন। তবে মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী আন্টনি ব্লিংকেন মনে করেন, সহসাই বিশ্বে নতুন সংকট তৈরি করবে না চীন। এদিকে মহড়ার জেরে তাইওয়ান প্রণালীর গুরুত্ব পূর্ণ নৌপথগুলো বন্ধ থাকায় হুমকিতে বিশ্ববাণিজ্য। তাইওয়ানের ২০ কিলোমিটারের মধ্যে চলছে এই মহড়া। মিসাইল ছোঁড়া হয়েছে জাপানের সমুদ্রেও।

মার্কিন কংগ্রেস স্পিকার নেন্সি পেলোসির বিতর্কিত তাইওয়ান সফরের জেরে উত্তপ্ত গোটা তাইওয়ান প্রণালী। চীনা সামরিক মহড়ায় ক্ষেপণাস্ত্র ব্যবহার উত্তেজনার পারদ বাড়িয়েছে কয়েক গুণ।

তাইওয়ান উপকূলে ক্ষেপণাস্ত্র ছোড়ায় চীন উত্তর কোরিয়াকে অনুকরণ করছে বলে মন্তব্য করেছে তাইওয়ান। এদিকে চীনের ছোড়া ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্রের পাঁচটি জাপানের বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চলে পড়ায় কূটনৈতিকভাবে প্রতিবাদ জানিয়েছে টোকিও। পাশাপাশি এই সব বন্ধে চীনকে আহ্বান জানিয়েছে দেশটি।

এদিকে মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী আন্টনি ব্লিংকেন মনে করেন বিশ্বের জন্য নতুন কোন সংকট তৈরি করবে না চীন। তবে চীনের এই কর্মকা-ের পূর্ণ সমর্থন দিয়েছে বন্ধু দেশ রাশিয়া। ক্রেমলিনের মুখপাত্র দিমিত্রি পেসকভ জানান, তাইওয়ান প্রণালীতে সামরিক মহড়া চীনের সার্বভৌম অধিকার। এ সময় অকারণে তাইওয়ান সফর করায় পেলোসির সমালোচনাও করেন তিনি।

এদিকে চীনের এই মহড়ায় চরম হুমকিতে পড়েছে বিশ্ববাণিজ্য। তাইওয়ান প্রণালীর এমন সব জায়গায় মহড়া চলছে যা বিশ্বের ব্যস্ততম সমুদ্রপথ। বিশ্বের প্রায় অর্ধেক কন্টেইনারবাহী জাহাজ এই পথে চলাচল হয়। এছাড়া বড় জাহাজগুলোর ৮৮ শতাংশই তাইওয়ান প্রণালী ব্যবহার করে।


আরও খবর



আজ রামগতির বড় খেরী ইউপিসহ তিন ইউপিতে নির্বাচন

প্রকাশিত:বুধবার ২৭ জুলাই ২০২২ | হালনাগাদ:বুধবার ১০ আগস্ট ২০২২ |
Image

নিজস্ব সংবাদদাতা লক্ষ্মীপুর ঃ

লক্ষ্মীপুর জেলার রামগতি উপজেলার বড়খেরী ইউপিতে নির্বাচন আজ।এই নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে প্রতিদ্বন্ধিতা করছেন আওয়ামী লীগ মনোনিত নৌকার প্রার্থী মোঃ হাসান মাকসুদ মিজান। স্বতন্ত্র অপর প্রার্থী হিসেবে চশমা প্রতীক নিয়ে সাবেক এমপি মোঃ আব্দুল্লাহ্ আল মামুনের ছোট ভাইয়ের মেয়ের স্বামী মোঃ আবদুল খালেক মাসুদ প্রতিদ্ব›দ্বীতা করছেন নৌকার বিরুদ্ধে চশমা প্রতিক নিয়ে।এর আগে ২০২০ সালে এ ইউনিয়নে উপ-নির্বাচনে লক্ষ্মীপুর-৪ আসনের সাবেক এমপি মোঃ আব্দুল্লাহ্ আল মামুনের ছোট ভাইয়ের ছেলে (ভাতিজা) মোঃ মিরাজ হোসেন। তিনি আনারস মার্কায় ভোটে প্রার্থী হয়ে পরে পরাজয়ের পর এবারের এবার ২৭ জুলাই নির্বাচনে ভোটে নৌকাকে হারিয়ে জয় নিশ্চিতে ভাতিজীর স্বামী মোঃ আবদুল খালেক মাসুদের পক্ষে কাজ করার অভিযোগ রয়েছে। 

এছাড়া সাবেক সাংসদ নৌকার বিরুদ্ধে অবস্থান নেওয়ায় আওয়ামী লীগ ও তার অঙ্গসংগঠনের নেতাকর্মীদের মাঝে ক্ষোভ ও অসন্তোষ দেখা দিয়েছে। এ দিকে নৌকার প্রার্থী মোঃ হাসান মাকসুদ মিজান বলেন,সাবেক সাংসদ মোঃ আব্দুল্লাহ্ আল মামুন এর আগে তিনি নৌকা প্রতীক নিয়ে লক্ষ্মীপুর-৪ আসনে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হলেও পরবর্তী সংসদ নির্বাচনে তিনি মনোনয়ন না পেয়ে নৌকা বিরুদ্ধে অবস্থান নেন। এর আগে বড়খেরী ইউপি উপ নির্বাচনে তার ভাতিজা মোঃ মিরাজকে নৌকার বিরুদ্ধে প্রার্থী দিয়ে ভোটে জানান দেন।ওই নির্বাচনে ভাতিজা হেরে যান। কিন্তু বর্তমানে পুনঃরায় একই ইউনিয়নের নির্বাচনে ভাতিজী জামাইকে চেয়ারম্যান পদে প্রার্থী দিয়ে সহযোগিতা করে আসছে। দলীয়ভাবে এ বিচার দাবী জানিয়েছেন তিনি। 

অপরদিকে সাবেক এমপি আব্দুল্লাহ্ আল মামুন এ অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন নির্বাচন কালীন সময়ে তিনি এলাকায় ছিলেন না। 

জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মিয়া মোঃ গোলাম ফারুক পিংকু জানান, এর আগে কমলনগর উপজেলা নির্বাচনে লক্ষ্মীপুর -৪ আসনের সাবেক সংসদ সদস্য মোঃ আব্দুল্লাহ্ আল মামুন নৌকার বিরুদ্ধে ভোট করেছেন। এর পর ইউপি নির্বাচনে নৌকার বিরুদ্ধে ভাতিজাকে প্রার্থী দেওয়া ও তার পক্ষে কাজ করায় বিষয়টি জেলা আওয়ামী লীগ লিখিতভাবে কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগকে অবগত করেছেন। এখন আবার তিনি তার ভাতিজী জামাইকে নৌকার বিরুদ্ধে প্রার্থী দিয়ে সহযোগিতার অভিযোগ উঠেছে। তবে তার দলীয় কোন পদপদবী না থাকায় জেলা আওয়ামী লীগ তার বিরুদ্ধে সাংগঠনিক ব্যবস্থা নিতে পারছেন না। 

দলীয় সূত্র ও নির্বাচন অফিস সূত্রে জানাগেছে, একই উপজেলার বড়খেরী ইউনিয়নে একটি অস্থায়ী ভোট কেন্দ্রসহ ৯ টি ভোট কেন্দ্রে ভোটার সংখ্যা ১১ হাজার ৩৬১ জন রয়েছেন। এরমধ্যে পুরুষ ৫ হাজার ৮৫৯ এবং নারী ভোটার ৫ হাজার ৫০২ জন। এ বড় খেরী ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে প্রার্থী হয়েছেন ২ জন।

লক্ষ্মীপুর জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মুহাম্মদ নাজিম উদ্দিন বলেন, রামগতি উপজেলার বড়খেরী ইউনিয়নে ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিন (ইভিএম) এর মাধ্যমে এবং চর আবদুল্লাহ ইউনিয়নে ব্যালট পেপারের মাধ্যমে ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে। বুধবার সুষ্টুভাবে ভোট গ্রহনের লক্ষে সকল প্রকার প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রণহন করা হয়েছে। 

কেন্দ্রগুলোতে পৌঁছানো হচ্ছে ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিন (ইভিএম) ও ব্যালট পেপারসহ প্রয়োজনীয় সরঞ্জামাদি। এছাড়া আইনশৃঙ্খলা রক্ষার্থে বিপুল পরিমান আইনশৃঙ্খলা বাহিনী জোরদার করা হয়েছে।নির্বাচন অবাধ সুষ্টু ও নিরপেক্ষ অনুষ্টিত হবে।


আরও খবর



ইউক্রেনকে আরও ২৭ কোটি ডলারের অস্ত্র দিচ্ছে যুক্তরাষ্ট্র

প্রকাশিত:শনিবার ২৩ জুলাই ২০২২ | হালনাগাদ:সোমবার ০৮ আগস্ট ২০২২ |
Image

ইউক্রেনকে আরও ২৭ কোটি ডলারের বাড়তি অস্ত্র দেওয়ার ঘোষণা দিয়েছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র। এর আওতায় থাকবে মধ্যম পাল্লার রকেট সিস্টেম এবং ট্যাক্টিক্যাল ড্রোন অন্তর্ভুক্ত থাকবে।

ইউক্রেনে পাঠানো আমেরিকার হাই মবিলিটি আর্টিলারি রকেট সিস্টেম বা এইচআইএমএআরএস-এর চারটি ইউনিট ধ্বংস করার পর শুক্রবার এ ধরনের আরও ক্ষেপণাস্ত্র ব্যবস্থা সরবরাহের প্রতিশ্রুতি ব্যক্ত করল ওয়াশিংটন।

নতুন এই সামরিক সহায়তা প্যাকেজে চারটি এইচআইএমএআরএস লঞ্চার এবং ৫৮০টি ফিনিক্স ঘোস্ট ড্রোন থাকছে বলে জানিয়েছেন হোয়াইট হাউজের জাতীয় নিরাপত্তা পরিষদের মুখপাত্র জন কিরবি। এছাড়া ৩৬ হাজার রাউন্ড কামান বা রকেটের গোলা এবং এইচআইএমএআরএস-এ ব্যবহারযোগ্য ক্ষেপণাস্ত থাকবে।

ইউক্রেনকে নতুন এই সামরিক সহযোগিতা প্যাকেজ পাঠালে এ পর্যন্ত আমেরিকার পক্ষ থেকে দেশটিতে ৮২০ কোটি ডলারের অস্ত্রশস্ত্র পাঠানো হবে। প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের প্রশাসন ইউক্রেনের জন্য সম্প্রতি চার হাজার কোটি ডলারের অর্থনৈতিক এবং নিরাপত্তা সহায়তা প্যাকেজ ঘোষণা করে। তবে রাশিয়া বলেছে, আমেরিকা এবং পশ্চিমা যেসব দেশ ইউক্রেনে অস্ত্রশস্ত্র পাঠাবে সেগুলো রাশিয়ার সেনাদের জন্য বৈধ লক্ষ্যবস্তু হিসেবে গণ্য হবে। মস্কো এও বলেছে, পশ্চিমা অস্ত্রের চালান হবে তাদের প্রধান লক্ষ্যবস্তু। সূত্র: ওয়াশিংটন পোস্ট, ফ্রান্স২৪


আরও খবর