Logo
শিরোনাম
নওগাঁয় ট্রাকের চাপায় পিষ্ট হয়ে মোটরসাইকেল আরোহী নিহত উপজেলা নির্বাচন: তৃতীয় ধাপে কোটিপতি রয়েছেন ১০৬ জন ১০ ফুট পানির নিচে সুন্দরবন, প্রাণীদের নিয়ে দুশ্চিন্তায় বনবিভাগ ঘূর্ণিঝড়ে ক্ষতিগ্রস্তদের পাশে দাঁড়াতে প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশ উপজেলা পরিষদ নির্বাচন : ২১৭ নেতাকে বহিষ্কার করেছে বিএনপি লালমনিরহাটে নবনির্বাচিত জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান শ্যামলকে সংবর্ধনা সাঁতার প্রতিযোগিতায় রেকর্ড সৃষ্টিকরলেন গজারিয়ার মেয়ে মাইশা মাভাবিপ্রবিতে টোটাল কোয়ালিটি মেনেজমেন্ট (টিকিউএম) সেমিনার অনুষ্ঠিত মধ্যরাতে জারি হতে পারে মহাবিপদসংকেত নোয়াখালীতে যৌন হেনস্তার শিকার নোবিপ্রবির এক ছাত্রী

বিশ্ব পরিবেশ দিবসে ঢাকাবাসীর ভাবনা

প্রকাশিত:সোমবার ০৫ জুন ২০২৩ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ২৮ মে ২০২৪ |

Image

মুহাম্মদ মাসুম খান :

বৈশ্বিক জলবায়ু সমস্যায়  পৃথিবীর বিভিন্ন স্থানে অস্বাভাবিক হারে দাবানল হইতেছে। আমরা  অস্বাভাবিক প্রচন্ড  তাপদাহে ভুগতেছি । ঠিক সেই মুহুর্তে ৫ জুন প্রতিবছরের ন্যায়  বিশ্ব পরিবেশ দিবস ফিরে এসেছে।  এবার অন্যান্য বছরের তুলনায় এই বছর দিবসটি অধিক গুরুত্বসহ পালন করা হইতেছে।

এক সময় ঢাকায় জালের মতো ছড়াইয়া ছিল আকঁবাঁকা খাল, বিল ও ঝিল।এই খালগুলি সংরক্ষন করিয়া যদি ঢাকা শহর সম্প্রসারন সম্ভব হইত তাহা হইলে পৃথিবীর অন্যতম দৃষ্ঠিনন্দন শহর হইত  ঢাকা। কিন্তু সেই সুযোগ আমরা হেলায় হারাইয়াছি। ঢাকা শহর খাল ও জলাধারশূন্য নাহলে এতো সহজে শহর উত্তপ্ত হইয়া  যেতো না। 

২০২০ সালে রিভার এন্ড ডেলটা রিসার্চ সেন্টারের ২০২০ জরিপ অনুসারে ঢাকা শহরে মোট খাল আছে ৭৩ টি যদিও ঢাকা জেলা প্রশাসনের জরিপে খাল আছে ৫৮ টি। উল্লেখিত খালের মধ্যে ৩৭ টিই দখল হইয়া আছে। 

সম্প্রিতি ঢাকার দুই সিটি কর্পোরেশন দখলকৃত খাল উদ্ধারে অত্যন্ত সক্রিয় ভূমিকা পালন করছে। 

ঢাকা মহানগর হতো পৃথিবীর সবচেয়ে নান্দনিক প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের শহর যদি ঢাকার খালগুলি ধ্বংস না হতো।

গত ২৮ বছরে রাজধানী ঢাকা থেকে ২৪ বর্গ কি:মি: আয়তনের জলাধার উধাও হয়ে গেছে। এই সময় ১০ বর্গ কি:মি; সবুজের মৃত্য হয়েছে। ১৯৯৫ সালে রাজধানীর জলাধার এবং জলাভূমি ছিল ৩০.২৫ বর্গ কি:মি:। ২০২৩ সালে সেটা মাত্র ৪.২৮ কিলোমিটারের এসে দাঁড়িয়েছে। বর্তমানে রাজধানীতে মাত্র ২দশমিক ৯১ শতাংশ জলাধার ও ৭ দশমিক ০৯ শতাংশ সবুজ রয়েছে। অথচ একটি আদর্শ শহরে ১২ শতাংশ জলাধার এবং ১৫ শতাংশ সবুজ থাকা প্রয়োজন। বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অফ প্ল্যানার্স এবং নগর উন্নয়ন সাংবাদিক ফোরামের এক গবেষণা প্রতিবেদনে এসব তথ্য উল্লেখ করা হয়।প্রতিবেদনে আরো বলা হয় গত ২৮ বছরে উন্মুক্ত স্থান,খেলার মাঠ,পতিত জমি সবই ব্যাপক হারে কমিয়াছে।


বর্তমানে ঢাকা শহর বসবাসের অনুপযোগী শহরগুলির অন্যতম এক নগর। এখনো যদি আমরা ঢাকা শহরে খাল,জলাধার,উন্মুক্ত স্থান,খেলার মাঠ, সবুজকে রক্ষা করতে সবাই সচেস্ট না হই তাহলে ঢাকা শহরে বাস করা একেবারেই অস্বাস্থ্যকর, অস্বস্তিকর এবং বিপদজনক হয়ে যাবে। বিশেষকরে ঢাকা দক্ষিন এবং ঢাকা  উত্তরের সাথে নতুন যুক্ত হওয়া ওয়ার্ড গুলিতে এখনো অনেক খাল,জলাধার,উন্মুক্ত সবুজ স্থান রয়েছে। সেগুলিকে  দ্রুত দখল এবং দূষনমুক্ত রাখতে সর্বস্তরের মানুষকে নিয়ে সামাজিক আন্দোলন গড়ে তুলতে হবে।স্থানীয় জনপ্রতিনিধি এবং প্রশাসনকে নদী-খাল,জলাধার, খেলার মাঠ রক্ষায় জবাবদিহিতার আনতে হবে। বিরাজমান আইনের যথাযথ প্রয়োগ করতে হবে। মহল্লায় মহল্লায়,ওয়ার্ডে পরিবেশ রক্ষায় এক্যবদ্ধ হতে হবে। সরকারকে পরিবেশ রক্ষার আরো তৎপর হতে হবে।


মুহাম্মদ মাসুম খান,সাধারণ সম্পাদক 

নদী -খাল ও পরিবেশ রক্ষা কমিটি 


আরও খবর

ভালো থাকুক পৃথিবীর সব মা

রবিবার ১২ মে ২০২৪




ঢাকায় আসছেন ডোনাল্ড লু

প্রকাশিত:সোমবার ১৩ মে ২০২৪ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ২৮ মে ২০২৪ |

Image

মার্কিন স্টেট ডিপার্টমেন্টের দক্ষিণ এশিয়ার দায়িত্বপ্রাপ্ত সহকারী পররাষ্ট্রমন্ত্রী ডোনাল্ড লু আবারও বাংলাদেশ সফরে আসছেন। আগামীকাল মঙ্গলবার (১৪ মে) দুই দিনের সফরে ঢাকায় আসছেন তিনি। ৭ জানুয়ারির নির্বাচনের পর মার্কিন পররাষ্ট্র দপ্তরের উচ্চপর্যায়ের কোনো কর্মকর্তার প্রথম সফর এটি। লুর এই সফরকে ঘিরে কয়েকদিন ধরেই আলোচনা চলছে দেশের রাজনৈতিক ও কূটনৈতিক অঙ্গনে। এই অঞ্চলে বিশেষ করে বাংলাদেশ, ভারত ও পাকিস্তানের সঙ্গে যুক্তরাষ্ট্রের সম্পর্কের বিষয়ে দেখভালকারী ডোনাল্ড লু বেশ আলোচিত।

দক্ষিণ ও মধ্য এশিয়াবিষয়ক সহকারী পররাষ্ট্রমন্ত্রীর দায়িত্ব পাওয়ার পর চারবার বাংলাদেশ সফর করেছেন লু। এর আগে গত জুলাইতে তিনি সর্বশেষ বাংলাদেশ সফর করেন। সে সময় তিনি যুক্তরাষ্ট্রের বেসামরিক নিরাপত্তা, গণতন্ত্র ও মানবাধিকারবিষয়ক আন্ডার সেক্রেটারি আজরা জেয়ার সঙ্গী হয়ে ঢাকায় আসেন। বাংলাদেশের নির্বাচন নিয়ে এবং মার্কিন ভিসানীতিসহ নানামুখী তৎপরতার মধ্য দিয়ে সেই সফরটি আলোচিত ছিল।

এই সফরকে ঘিরে আবারও সরগরম রাজনৈতিক অঙ্গন। আওয়ামী লীগ বলছে, দুই দেশের সম্পর্ক নতুন উচ্চতায় নিতে এ সফর গুরুত্বপূর্ণ। অন্যদিকে ডোনাল্ড লুর এই সফর নিয়ে কোনো আগ্রহই নেই, এমন দাবি বিএনপির।

তবে তার এবারের সফর যতটা না রাজনৈতিক তার চেয়েও বেশি কূটনৈতিক বলে জানিয়েছে মার্কিন পররাষ্ট্র দপ্তর। আলোচনা হবে জলবায়ু সংকট ও দ্বিপক্ষীয় অর্থনৈতিক সম্পর্ক জোরদারের বিষয়ে। এছাড়া সরকারের বিভিন্ন পর্যায়ের কর্মকর্তাদের সঙ্গেও বৈঠক করবেন তিনি।

এ বিষয়ে আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেন, বাংলাদেশের রাজনীতি আর পেছনে ফিরে যাবে না। নিষেধাজ্ঞার পুরোনো শঙ্কা উড়িয়ে দেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক।

তিনি বলেন, আমরা কোনো উত্তাপ ছড়াতে যাইনি। যেহেতু সামনে আর কিছু নেই, তাই ডোনাল্ড লু এসে সরকার হঠানোর অভিসন্ধি আছে কি না- তা বিএনপি ভালো বলতে পারবে।

অন্যদিকে ডোনাল্ড লুর এই সফর একেবারেই আমলে নিচ্ছে না বিএনপি। দলটির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, কে এলো আর কে গেল তা নিয়ে মাথা ঘামানোর সময় নেই। তিনি বলেন, তার দলের প্রধান শক্তি হলো জনগণ।

এদিকে পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ আজ সোমবার (১৩ মে) সাংবাদিকদের বলেন, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে আমাদের সম্পর্ক অত্যন্ত চমৎকার। প্রধানমন্ত্রী চতুর্থবার নির্বাচিত হওয়ার পর মার্কিন প্রেসিডেন্ট চিঠি লিখে সম্পর্ক এগিয়ে নিতে এবং নতুন উচ্চতায় নেওয়ার অভিপ্রায় ব্যক্ত করেছেন। মার্কিন প্রশাসন থেকে যারাই বাংলাদেশে সফর করুক না কেন, আমাদের সম্পর্ককে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার লক্ষ্যে আমরা একসঙ্গে কাজ করব। সেখানে অর্থনৈতিক সম্পর্ক আছে, আমাদের নানা ক্ষেত্রে সহযোগিতা আছে সেগুলো নিয়ে আলোচনা হবে।

ঢাকা সফরের সময় ডোনাল্ড লু পররাষ্ট্র সচিব মাসুদ বিন মোমেনের সঙ্গে বৈঠক করবেন। এর পাশাপাশি পররাষ্ট্রমন্ত্রী হাছান মাহমুদ, প্রধানমন্ত্রীর বেসরকারি শিল্প ও বিনিয়োগ উপদেষ্টা সালমান এফ রহমানের সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাৎ করবেন। এছাড়া নাগরিক সমাজের প্রতিনিধিদের সঙ্গে মতবিনিময়ের কথা রয়েছে লুর।

 


আরও খবর

কাল ৯০ উপজেলায় ভোট

মঙ্গলবার ২৮ মে ২০২৪




প্রার্থী হওয়ায় ছোট ভাইকে ‘কুলাঙ্গার’ বললেন কাদের মির্জা

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ১৬ মে ২০২৪ | হালনাগাদ:রবিবার ২৬ মে ২০২৪ |

Image

ডিজিটাল ডেস্ক:

কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে প্রার্থী হওয়ায় আপন ছোট ভাই শাহদাত হোসেনকে ‘কুলাঙ্গার’ বললেন নোয়াখালীর কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আবদুল কাদের মির্জা।

কাদের মির্জা একইসঙ্গে বসুরহাট পৌরসভার মেয়রও।

মঙ্গলবার (১৪ মে) সন্ধ্যায় বসুরহাট পৌরসভার সরকারি মিলনায়তনে চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী গোলাম শরীফ চৌধুরী পিপুলের সমর্থনে ব্যবসায়ীদের সঙ্গে মতবিনিময়ের সময় এ কথা বলেন।


তার ছোট ভাই শাহদাত হোসেন উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে প্রার্থী হয়েছেন। তারা দুজনই আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরের ছোট ভাই।

‘কুলাঙ্গার’ ছাড়াও শাহদাত হোসেন তার ভাই নন বলে তিনি মন্তব্য করেন কাদের মির্জা। তার বক্তব্যটি স্থানীয় একাধিক সাংবাদিক ফেসবুকে লাইভে প্রচার করেন। ভাইয়ের বিরুদ্ধে প্রকাশ্যে দেওয়া কাদের মির্জার ওই বক্তব্য নিয়ে নানা আলোচনা-সমালোচনা চলছে।


শাহদাত হোসেন কোম্পানীগঞ্জ উপজেলার চেয়ারম্যান পদে প্রার্থী হওয়ার পর হলফনামায় মামলার তথ্য না দেওয়ায় এবং আয়-ব্যয়ের বিবরণী না থাকায় প্রথমে যাচাই-বাছাইয়ে পরবর্তী সময়ে জেলা ম্যাজিস্ট্রেটের কাছে আপিলে তার প্রার্থিতা বাতিল হয়।

এরপর তিনি হাইকোর্টে রিট আবেদন করে প্রার্থিতা ফিরে পেলেও এখনো প্রতীক বরাদ্দ পাননি। তৃতীয় ধাপে ২৯ মে কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা পরিষদের নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে।

উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আবদুল কাদের মির্জা বলেন, আজ ওবায়দুল কাদের ঘুমাতে পারেন না একটা ছেলের জন্য। সে আমার ভাই নয়, ওবায়দুল কাদেরের ভাই নয়। ওবায়দুল কাদের সাহেব স্টেটমেন্ট দিয়ে বলেছেন, কোনো মন্ত্রী-এমপির আত্মীয়-স্বজন নির্বাচনে দাঁড়াতে পারবে না।

আমাদের ভাই নয় এই কুলাঙ্গার শাহদাত। তার কারণে আজ ওবায়দুল কাদের অসহায়, সাংবাদিকদের সামনে গেলে চেহারা কালো হয়ে যায়। শেখ হাসিনার কাছে জবাব দিতে পারে না।

কাদের মির্জা বলেন, সে (শাহদাত) আজ কোর্টে কোর্টে ঘুরছে। কাদের ইঙ্গিতে এ ষড়যন্ত্র হচ্ছে একদিন প্রকাশ হবে ইনশা আল্লাহ। ওবায়দুল কাদেরের ইজ্জত যে ছেলে নষ্ট করে, সে ছেলেকে যদি ভোটে আসে, ভোট দেওয়া যায়?...না। আল্লাহর গজব পড়বে এই ছেলের ওপর।

ছোট ভাইয়ের প্রতি ক্ষোভ প্রকাশ করে আরও বলেন, একটা সালিস তার জন্য করতে পারি না পৌরসভায়। সালিসে রায় দিলে যে হেরে যায়, সে তার পক্ষ হয়। সালিস বাস্তবায়ন করতে পারি না এই ছেলের কারণে।

এই ছেলেকে ঘৃণাভরে যদি প্রত্যাখ্যান না করেন, ওবায়দুল কাদের সাহেব যদি মারা যান, তার আত্মার শান্তি পাবে না।


আরও খবর



হজ ভিসায় সৌদির নতুন বিধি-নিষেধ

প্রকাশিত:সোমবার ০৬ মে ২০২৪ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ২৮ মে ২০২৪ |

Image

হজ ভিসা নিয়ে নতুন নিয়ম আনলো সৌদি আরব। এখন থেকে এই ভিসা দিয়ে শুধু জেদ্দা, মদিনা ও মক্কা শহরে ভ্রমণ করা যাবে। তাছাড়া অনুমতি ছাড়া মক্কায় জনসাধারণের প্রবেশাধিকারেও নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে সৌদি সরকার। সারা পৃথিবী থেকে আসা হজযাত্রীদের নিরাপত্তার কথা ভেবেই এসব নিয়ম জারি করা হয়েছে বলে জানিয়েছে সৌদির জননিরাপত্তা বিভাগ।

সৌদি আরবের হজ ও ওমরাহবিষয়ক মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, শুধু হজ ভিসা দিয়ে চলতি বছর হজে অংশ নেওয়া মুসল্লিরা জেদ্দা, মদিনা ও মক্কা শহরে ভ্রমণ করতে পারবেন। নির্ধারিত শহরগুলোর বাইরে ভ্রমণের জন্য এই ভিসা বৈধ হবে না। তাছাড়া এখন থেকে মক্কায় প্রবেশের জন্য অবশ্যই অনুমতিপত্র সঙ্গে রাখতে হবে। এমনকি সৌদি নাগরিকদেরও।

হজের সময় মক্কার পবিত্র স্থানগুলোতে কাজ করার অনুমতি পাওয়া ব্যক্তি, মক্কার স্থানীয় অভিবাসী, পবিত্র হজ পালনের অনুমতিপত্র বা তাছরিহ্ ব্যতীত যে কাউকে আপাতত মক্কায় প্রবেশ থেকে বিরত থাকার আহ্বান জানানো হয়েছে। নির্দেশনা অমান্যকারীদের মক্কায় প্রবেশের চেকপয়েন্ট থেকে ফেরত পাঠানোর পাশাপাশি শাস্তিও দেওয়া হতে পারে।

মন্ত্রণালয় আরও বলেছে, হজ ভিসা শুধু হজ মৌসুমের জন্যই বৈধ। তাছাড়া নতুন নিয়মে এই সময়ের মধ্যে হজ ভিসা নেওয়া ব্যক্তিদের ওমরাহ পালন বা যেকোনো ধরনের আর্থিক বা অবৈতনিক কাজের ওপর নিষেধাজ্ঞা দেওয়া হয়েছে। আর এসব বিধি-নিষেধ লঙ্ঘনকারীরা ভবিষ্যতে হজে অংশ নেওয়ার অনুমতি না-ও পেতে পারেন। সেই সঙ্গে নিয়ম অমান্যকারীকে সৌদি আরব থেকে বের করেও দেওয়া হতে পারে।

এদিকে, উপসাগরীয় সহযোগিতা পরিষদের (জিসিসি) দেশগুলো ছাড়া যেসব আন্তর্জাতিক দর্শনার্থী হজ পালন করতে চান, তাদের ওপর হজ ভিসা নেওয়ার বাধ্যবাধকতা আরোপ করেছে সৌদি সরকার।

এদিকে, নুসুক ও তাওয়াক্কলনা অ্যাপ থেকে ভ্রমণের জন্য ডিজিটাল কার্ড বা অনুমতিপত্র নেওয়ার ব্যবস্থা রেখেছে সৌদির হজ মন্ত্রণালয়। পবিত্র স্থানগুলোতে ঢুকতে হলে ও বিভিন্ন শহর ঘুরে দেখতে হলে হজযাত্রীদের অবশ্যই কার্ডটি দেখাতে হবে।

এই কার্ড কীভাবে পাওয়া যাবে, তা হজযাত্রীদের ভিসা ইস্যু হওয়ার পরে সংশ্লিষ্ট হজ অফিস থেকে জানিয়ে দেওয়া হবে। তাছাড়া হজ পারমিট ইস্যু হওয়ার পর অভ্যন্তরীণ হজযাত্রীরা সেবা প্রদানকারীদের কাছ থেকে এই কার্ড পাবেন।

প্রক্রিয়াটি আরও সহজ করতে সৌদির পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের ভিসা প্ল্যাটফর্মের মাধ্যমে ইলেকট্রনিক রেজিস্ট্রেশন চালু করেছে হজ ও ওমরাহবিষয়ক মন্ত্রণালয়। আবেদনকারীদের অবশ্যই ৭ ধু আল হিজ্জাহ বা ১৩ জুলাইয়ের মধ্যে নিবন্ধন করতে হবে। তবে হজযাত্রীদের কোটা পূরণ না হলে, ওই সময়ের পরও নিবন্ধনের সুযোগ মিলতে পারে।


আরও খবর



সড়ক দুর্ঘটনা রোধে সমন্বিত পদক্ষেপ প্রয়োজন

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ১৪ মে ২০২৪ | হালনাগাদ:সোমবার ২৭ মে ২০২৪ |

Image

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান জানিয়েছেন, সড়ক দুর্ঘটনা রোধে সমন্বিত পদক্ষেপ প্রয়োজন। প্রতিদিন সড়ক দুর্ঘটনায় মানুষ আহত হচ্ছে, নিহত হচ্ছে। সড়কে খালি হচ্ছে হাজারো মায়ের কোল। এসব দুর্ঘটনার সমস্যা সমাধানে সমন্বিত পদক্ষেপ প্রয়োজন। দুর্ঘটনার কারণ চিহ্নিত করে সরকারের বিভিন্ন দপ্তরে বিভিন্ন সময় দাবি করে আসছে নিরাপদ সড়ক চাই। এ বিষয়ে সরকার ২২ অক্টোবর নিরাপদ সড়ক দিবস ঘোষণা করে। যা দেশে গুরুত্ব সহকারে পালিত হচ্ছে।

মন্ত্রী আরও বলেন, আইনে গাড়িচালক, হেলপার, মালিক এবং বিভিন্ন ট্রান্সপোর্ট এজেন্সি সবার দায়িত্ব যথাযথভাবে বিশ্লেষণ করা হয়েছে। যে যেই দায়িত্বে থাকবে তার গাফিলতি হলে কি ধরনের শাস্তি হবে তার সবকিছুই আইনে পরিষ্কার করা হয়েছে। আমরা চাই দুর্ঘটনা কম হোক, দুর্ঘটনায় আর যেন কেউ মৃত্যুবরণ না করে। পৃথিবীর সব দেশে দুর্ঘটনা ঘটে, মানুষের মৃত্যু হয়। বাংলাদেশে যাতে সড়ক দুর্ঘটনা কমে সেজন্যই কাজ করে যাচ্ছি।

একটি আধুনিক শহরে ২৫ শতাংশ সড়ক থাকতে হয় উল্লেখ করে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, আমাদের দেশের কোনো শহরে ২৫ শতাংশ সড়ক নেই। প্রধানমন্ত্রী ঘোষণা দিয়েছিলেন ঢাকাকে যানজট মুক্ত করার। সেজন্য তিনি এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ে, মেট্রোরেল, ফ্লাইওভার চালুর ঘোষণা দেন। এগুলো দৃশ্যমান হয়েছে এবং যানজট অনেকখানি হালকা হয়েছে। সড়ক দুর্ঘটনা রোধে প্রধানমন্ত্রী ২০১৮ সালের জুন মাসে ৬ দফা নির্দেশনা দিয়েছিলেন। আমরা আশা করছি প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনাগুলো বাস্তবায়ন হলে সড়ক দুর্ঘটনা কমে যাবে।

দুর্ঘটনা রোধের কারণ বের করা দরকার উল্লেখ করে মন্ত্রী বলেন, এখন পর্যন্ত যতটা দেখছি সড়ক দুর্ঘটনার মূল কারণ সচেতনতার অভাব। দক্ষ চালকের হাতে যাতে স্টিয়ারিং থাকে আমরা সেই ব্যবস্থা করতে যাচ্ছি। ফিটনেসবিহীন গাড়ির বিষয়ে খেয়াল রাখছি। চালকদের প্রশিক্ষণের অভাবও দুর্ঘটনার অন্যতম কারণ। গাড়ি চালানো অবস্থায় চালকের মোবাইল ব্যবহার, অপরিকল্পিত ভঙ্গুর সড়ক, ওভার ক্রসিং, অতিরিক্ত গতি, ওভার ব্রিজের স্বল্পতা, ট্রাফিক আইন অমান্য করা, ট্রাফিক পুলিশের গাফিলতিও আমরা মাঝেমধ্যে দেখি।

প্রধানমন্ত্রীর ছয়টি নির্দেশনার পর তিনি আরও ১৭টি নির্দেশনা দিয়েছেন। এগুলো বাস্তবায়নে সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয় কাজ করছে। এগুলো বাস্তবায়ন হলে দুর্ঘটনা অনেকাংশ কমে যাবে বলে আশা করছি।

নিজের সড়ক দুর্ঘটনার স্মৃতি স্মরণ করে মন্ত্রী বলেন, রোড এক্সিডেন্টে আমার সব আশা স্তম্ভিত হয়েছিল। মহান আল্লাহ আমার এক রাস্তা বন্ধ করে দিয়েছিলেন এবং এই রাজনীতির রাস্তা ওপেন করে দিয়েছিলেন। সেই জন্য বোধহয় আমি আজকে এ জায়গায় আসতে পেরেছি।


আরও খবর



মানুষের কল্যাণে কাজ করাই আমাদের লক্ষ্য : প্রধানমন্ত্রী

প্রকাশিত:শনিবার ২৫ মে ২০২৪ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ২৮ মে ২০২৪ |

Image

ঢাকায় কোনো কাঁচা বস্তি, অস্বাস্থ্যকর পরিবেশ থাকবে না। সুন্দর পরিবেশে সবাই বসবাস করবে। সেই ব্যবস্থা করে দেবো। এই পদক্ষেপও আমরা নিয়েছি। মানুষের কল্যাণে কাজ করা, এটাই আমাদের লক্ষ্য। এই লক্ষ্য নিয়েই আমরা কাজ করি।

শনিবার (২৫ মে) সকালে পুড়ে যাওয়া বঙ্গবাজারের স্থানে ১০তলা বঙ্গবাজার পাইকারি মার্কেট, শাহবাগে হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দী শিশু উদ্যানের আধুনিকায়নসহ ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের চারটি উন্নয়ন প্রকল্পের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে এসব কথা বলেন তিনি।

শেখ হাসিনা বলেন, আমাদের পরিচ্ছন্নতা কর্মীদের জন্য ফ্ল্যাট করে দিচ্ছি। বস্তিবাসীদের জন্য ভাড়াভিত্তিক ফ্ল্যাট নির্মাণ করে দিচ্ছি। যে বস্তিতে যেরকম ভাড়া সেরকম ভাড়াই দেবে। কিন্তু তারা ফ্ল্যাটে থাকবে। শুধু বড়লোকেরাই ফ্ল্যাটে থাকবে সেটা হতে পারে না, আমাদের রিকশাওয়ালা থেকে শুরু করে দিন মজুররাও ফ্ল্যাটে থাকবে। স্বল্প ভাড়া, কেউ যদি প্রতিদিন ভাড়া দিতে চায়, সেই ব্যবস্থা আছে। কেউ যদি সাত দিনের ভাড়া দিতে চায়, সে ব্যবস্থা আছে। কেউ মাসের ভাড়া দিতে চাইলে সে ব্যবস্থাও হবে। আমরা ইতিমধ্যে ৩০০ পরিবার তুলেছি।

পরিবেশ রক্ষার গাছ লাগানোর আহ্বান জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, যাদের এক টুকরো জমি আছে তারা একটা ফুলের গাছ, একটা ফলের গাছ হলেও লাগান। যাদের গ্রামের বাড়ি আছে সেখানে যেন অনাবাদি জমি না থাকে সেই দিকে দৃষ্টি দিতে হবে।

অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রী মো. তাজুল ইসলাম। এতে আরো বক্তব্য রাখেন ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের মেয়র শেখ ফজলে নূর তাপস, ঢাকা-৮ আসনের সংসদ সদস্য আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিম। অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ের সচিব মুহম্মদ ইব্‌রাহিম।


আরও খবর

কাল ৯০ উপজেলায় ভোট

মঙ্গলবার ২৮ মে ২০২৪