Logo
শিরোনাম

তীব্র তাপপ্রবাহে সুস্থ থাকার উপায়

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ২৩ এপ্রিল ২০২৪ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২১ জুন ২০২৪ |

Image

আবহাওয়া অধিদফতরের হিসাব অনুযায়ী, কোনো এলাকায় যদি তাপমাত্রা ৪০ থেকে ৪২ ডিগ্রি সেলসিয়াস থাকে তাহলে তাকে বলে তীব্র তাপপ্রবাহ। প্রচণ্ড এই গরমে মানুষ বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত হতে পারে। তাপমাত্রা হলে তা যেকোনো স্বাস্থ্যবান লোকের জন্য বিপজ্জনক হতে পারে। তাই তীব্র এই গরমে সুস্থ থাকার জন্য কিছু বিষয়ে খেয়াল রাখা জরুরি-

১. প্রচুর পরিমাণে পানি পান করুন। পানি ধীরে ধীরে পান করুন। ঠান্ডা ও বরফজাতীয় পানি পান করা থেকে বিরত থাকুন। কারণ এই সময়ে খুব বেশি ঠান্ডা পানি পান করলে মানবদেহের ছোট রক্তনালিগুলো ফেটে যেতে পারে।

২. বাইরে যখন তাপমাত্রা ৩৮ ডিগ্রিতে পৌঁছে যায়, তখন আপনি বাইরে থেকে ঘরে ফিরে কখনোই ঠান্ডা পানি পান করবেন না। সব সময় ধীরে ধীরে উষ্ণ পানি পান করুন।

৩. যদি বাইরে থাকার সময় হাত-পা রোদের সংস্পর্শে থাকে, তাহলে বাসায় ফিরেই তড়িঘড়ি হাত-পা ধোবেন না। এক্ষেত্রে গোসল বা হাত-পা ধোয়ার আগে কমপক্ষে আধা ঘণ্টা অপেক্ষা করুন।

৪. তীব্র গরমের এই সময়ে যতটা সম্ভব বাইরে বের না হওয়াই ভালো। বিশেষ করে বেলা ১১টার পর থেকে বিকেল ৪টা পর্যন্ত রোদের তীব্রতা অনেক বেশি থাকে। এই সময়ে ঘরে থাকাই ভালো।

৫. বাইরে বের হতে হলে ছাতা, টুপি সঙ্গে রাখুন। পা ঢাকা জুতা ও হালকা, ঢিলেঢালা সুতির পোশাক পরুন। স্কিন টাইট বা সিনথেটিক কিছু পরবেন না।

৬. তৃষ্ণার্ত বোধ না করলেও নির্দিষ্ট সময় অন্তর পানি পান করুন। সব সময় পানীয় সঙ্গে রাখুন।

৭. শরীরে অস্বস্তি হলে ওআরএস স্যালাইনে পান করতে পারেন। বাড়িতে শরবত, ফলের রস, লাচ্চি বানিয়েও পান করতে পারেন। এভাবে শরীরকে সবসময় হাইড্রেটেড রাখতে হবে।

৮. বাইরে বের হলে বেশিক্ষণ রোদে থাকবেন না। যাদের পেশার জন্য রাস্তায় রোদে থাকতেই হবে, তারা কিছু সময় অন্তর ছায়া বা ঠাণ্ডায় থাকার চেষ্টা করুন।

৯. যারা বেশি শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত ঘরে থাকেন, যাদের কনকনে ঠান্ডা পানি পানের প্রবণতা থাকে এবং গরম থেকে বেরিয়েই দীর্ঘ সময় এসি ঘরে কাটান তাদের অসুখ চট করে ধরে নেওয়ার সম্ভাবনা বেশি। প্রচণ্ড গরম থেকে এসে এসি ঘরে ঢোকার আগে কিছুক্ষণ অপেক্ষা করুন। আবার এসি থেকে বেরিয়েও কিছুটা সময় অপেক্ষা করতে হবে। শরীরকে স্বাভাবিক তাপমাত্রার সঙ্গে মানিয়ে নেওয়ার সময় দিতে হবে।

১০. হিট স্ট্রোক ও হিট ক্র্যাম্প এড়াতে শরীর ঠান্ডা রাখতে হবে। কেউ অসুস্থ হয়ে পড়লে সঙ্গে সঙ্গে তাকে ছায়ায় বা অপেক্ষাকৃত ঠান্ডা জায়গায় নিয়ে যান। চোখে-মুখে পানির ঝাপটা দিন। পারলে ঠান্ডা পানিতে গা স্পঞ্জ করিয়ে দিন।

১১. পুরোনো বা বাসি খাবার এড়িয়ে চলুন।

১২. প্রতিদিন অবশ্যই গোসল করুন।


আরও খবর

ঈদে বালুচর এর পাঞ্জাবি

রবিবার ৩১ মার্চ ২০২৪

বালুচরে শীতের পাঞ্জাবি-কটি

বুধবার ২০ ডিসেম্বর ২০23




তানজিম সাকিবকে শাস্তি দিল আইসিসি

প্রকাশিত:বুধবার ১৯ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২১ জুন ২০২৪ |

Image

বিশ্বকাপে ধারাবাহিক দারুণ বোলিং করে যাচ্ছেন তানজিম সাকিব সেন্ট ভিনসেন্টে অল্প পুঁজি নিয়ে পাওয়ার প্লেতে এক বিধ্বংসী স্পেলে নেপালি টপঅর্ডার যেভাবে তছনছ করে দিয়েছেন তানজিম, চারদিকে তাঁকে নিয়ে এখন প্রশংসা এই সুসময়ে একটা দুঃসংবাদও পেয়েছেন বাংলাদেশি তরুণ পেসার, আচরণবিধি ভাঙায় তাঁকে শাস্তি পেতে হয়েছে আইসিসির

নেপালের ইনিংসের তৃতীয় ওভারে উইকেট শিকারের পর রোহিত পাউডেলের সঙ্গে কথার লড়াই হয় তানজিমের বাংলাদেশি পেসার সময় নেপালি অধিনায়ককে হাত দিয়ে ধাক্কা দেন দুজনের মাঝে চলে আসেন আম্পায়ার তানজিমের আক্রমণাত্মক ম্যানার ধাক্কা দেওয়াটা (ফিজিক্যাল কন্ট্যাক্ট) ঠিক খেলোয়াড়সুলভ আচরণ মনে হয়নি আইসিসির ম্যাচ অফিশিয়ালদের আচরণবিধির লেভেল (ধারা .১২) ভাঙায় তাঁকে ডিমেরিট পয়েন্ট ১৫ শতাংশ ম্যাচ ফি জরিমানা করা হয়েছে তিনি শাস্তি মেনে নিয়েছেন
  
সেদিন কী নিয়ে লেগেছিল দুজনের? ম্যাচের পর সংবাদ সম্মেলনে আসা নেপালি অধিনায়ক রোহিত বলেছিলেন, ‘তানজিদ নতুন বলে সত্যি দারুণ বোলিং করেছেন উইকেট অনেক চ্যালেঞ্জিং ছিল আমাদের মধ্যে আসলে কিছুই হয়নি সে বলছিল, পারলে মারো আমি বলছিলাম, বল করো যাওআর মিক্সড জোনে আসা নেপালের বিপক্ষে বাংলাদেশের ম্যাচের নায়ক তানজিম বলেন, ‘ওকে বলছিলাম, ইটস নট ইজি ব্রাদার ইটস নট ইজি

আইসিসি যে শাস্তিই দিক, মাঠে তানজিম সাকিবের বোলিং আক্রমণাত্মক মনোভাব প্রশংসিতই হচ্ছে দুর্দান্ত বোলিংয়ে তিনি মুগ্ধতা ছড়াচ্ছেন এই বিশ্বকাপে


আরও খবর



এক নজরে ঈদের পাঁচ চলচ্চিত্র

প্রকাশিত:বুধবার ১৯ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২১ জুন ২০২৪ |

Image

মুক্তি পেয়েছে 'তুফান', 'ময়ূরাক্ষী', 'রিভেঞ্জ', 'ডার্ক ওয়ার্ল্ড', ও 'আগন্তুক'।


শাকিব-চঞ্চলের তুফান

পাঁচ সিনেমার মধ্যে প্রচার দৌড়ে এবং দর্শক আগ্রহে এগিয়ে রয়েছে রায়হান রাফি পরিচালিত তুফান। এর মূল আকর্ষণ কেবল শাকিব খান নন। অভিনেতা চঞ্চল চৌধুরী এবং কলকাতার নায়িকা মিমি চক্রবর্তীসহ, দেশের নাটক-সিনেমা জগতের দর্শকপ্রিয় কিছু শিল্পীকে এক পর্দায় এনে হইচই ফেলে দিয়েছেন রাফি। প্রকাশ হয়েছে সিনেমার ট্রেইলার। তাতে শাকিবের দ্বৈত চরিত্রের আভাস মিলেছে।

পুলিশ বুবলীর 'রিভেঞ্জ'

শবনম বুবলী ও জিয়াউল রোশান অভিনীত 'রিভেঞ্জ' মুক্তি পাচ্ছে দেশের প্রায় ৩০টি প্রেক্ষাগৃহে।

নির্মাতা ও প্রযোজক মোহাম্মদ ইকবাল গ্লিটজকে বলেন, "এখন পর্যন্ত ৩০টার মত হল বুকিং হয়েছে। এই সংখ্যা বাড়বে বলে বুঝতে পারছি। চূড়ান্ত হলে সবাইকে জানানো যাবে।"

ময়ূরাক্ষী' কেবল সিনেপ্লেক্সে

জাজ মাল্টিমিডিয়ার পরিবেশনার মুক্তি পাচ্ছে 'ময়ূরাক্ষী'। জাজ মাল্টিমিডিয়ার কর্ণধার আব্দুল আজিজ গ্লিটজকে বলেন," 'ময়ূরাক্ষী' সিনেমাটি স্টার সিনেপ্লেক্স, ব্লকবাস্টার সিনেমাস, লায়ন সিনেমাসসহ মাল্টিপ্লেক্সগুলোতে মুক্তি পাচ্ছে। সিঙ্গেল হলগুলো টার্গেট করা হচ্ছে না।

কলকাতার অভিনেত্রী নিয়ে 'ডার্ক ওয়ার্ল্ড'

প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান দ্য অভি কথাচিত্র থেকে মুক্তি পাচ্ছে 'ডার্ক ওয়ার্ল্ড' 'আগন্তুক' নামের দুই সিনেমা।

অভি কথাচিত্রের কর্ণধার জাহিদ হাসান অভি বলেছেন, ডার্ক ওয়ার্ল্ড যমুনা ব্লকবাস্টার সিনেমাস ছাড়াও ময়মনসিংহের পূরবী, ফতুল্লার বনানী, জয়পুরহাটের নাজমাসহ ১২টি প্রেক্ষাগৃহে মুক্তি পাচ্ছে।

সিনেমাটি পরিচালনা করেছেন মোস্তাফিজুর রহমান মানিক। অভিনয় করেছেন নবাগত মুন্না খান ও কলকাতার অভিনেত্রী কৌশানী মুখোপাধ্যায়।

আগন্তুক', জুটি বেঁধেছেন পূজা ও শ্যামল

পূজা চেরি ও শ্যামল মাওলাকে জুটি করে আগুন্তক সিনেমার চিত্রনাট্য তৈরি করেছিলেন সুমন ধর। সিনেমা পরিচালানও করছেন তিনি।


আরও খবর

ঢাকায় আসছেন নচিকেতা

শুক্রবার ১৪ জুন ২০২৪




জিয়ার স্বাধীনতার ঘোষণা: এবার তারিখটাও বদলে দিলো বিএনপি!

প্রকাশিত:শুক্রবার ৩১ মে ২০২৪ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ১৮ জুন ২০২৪ |

Image


 

আসাদ জামান:


রাজনীতিতে মিথ্যার চর্চা একেবারেই স্বাভাবিক ঘটনা। মিথ্যা না বললে রাজনীতি হয় না। কিন্তু যে মিথ্যা জাতির ইতিহাসকে বদলে দেয়, সে মিথ্যা যে পক্ষ থেকেই হোক, তার প্রতিবাদ হওয়া দরকার। 


এই প্রতিবাদ করার জন্য কোনো দল বা সংগঠনের সক্রিয়া সদস্য বা কর্মী হওয়ার প্রয়োজন নেই। প্রয়োজন কেবল ইতিহাসারে প্রতি দায়বদ্ধতা, সত্যের সারথি হওয়া।



বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা প্রয়াত রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের ৪৩তম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে বুধবার (২৯ মে) গণমাধ্যমে দলটির মহাসচিবের নামে যে ‘বাণী’ পাঠানো হয়েছে, সেখানে বলা হয়েছে, ‘স্বাধীনতা যুদ্ধের শুরুতে রাজনৈতিক নেতৃত্বের অনুপস্থিতিতে দেশের মানুষ যখন দিশেহারা ঠিক সেই মুহূর্তে ২৬ মার্চ কালুরঘাট বেতার কেন্দ্রে মেজর জিয়ার স্বাধীনতার ঘোষণা পুরো জাতিকে স্বাধীনতা যুদ্ধে ঝাঁপিয়ে পড়তে উজ্জীবিত করেছে।’


এতদিন শুধু জিয়াকে স্বাধীনতার ঘোষক দাবি করে আসছিল বিএনপি। কিন্তু তারা কোনোদিন বলেনি, জিয়া এই ঘোষণাটা ২৬ মার্চ দিয়েছিলেন। জন্ম-মৃত্যুবার্ষিকীতে দেওয়া বাণীতে জিয়াকে স্বাধীনতার ঘোষক দাবি করলেও ঘোষণার তারিখটা সব সময় ২৭ মার্চ হিসেবেই উল্লেখ করেছে বিএনপি।


 কখনো কখনো কৌশলে এড়িয়ে গেছে। তবে তাদের নিজেদের লেখা বই-পুস্তক দলিল-দস্তাবেজে জিয়ার স্বাধীনতার ঘোষণার তারিখ ২৭ মার্চ-ই উল্লেখ আছে।


প্রয়াত সাংবাদিক মাহফুজ উল্লাহর লেখা ‘প্রেসিডেন্ট জিয়া: রাজনৈতিক জীবনী’ বইয়ের ২৬ নম্বর পৃষ্ঠায় লেখা হয়েছে— ‘‘সম্প্রতি একাত্তর সালের ২৫ মার্চের ঘটনাবলি নিয়ে যে বিতর্কের সৃষ্টি হয়েছিল সে ব্যাপারে শমসের মুবিন চৌধুরী বীর বিক্রম জানান: সত্যি বলতে কী, ২৭ মার্চ কালুরঘাট বেতরকেন্দ্র থেকে দেওয়া মেজর জিয়ার সেই বিখ্যাত স্বাধীনতার ঘোষণা সম্পর্কে নিজের ভাষ্য দিতে গিয়ে প্রত্যেকেই আসল সত্য থেকে দূরে সরে গেছেন। 


এই সাহসী লোকটির অধীনে চট্টগ্রামে লড়াই করাকালে আমার স্বকর্ণে তা (স্বাধীনতার ঘোষণা) শোনার সৌভাগ্য হয়েছিল। একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হলো— মেজর জিয়ার নির্দেশে ২৮ মার্চ সারাদিন ধরে সেই কেন্দ্র থেকেই আমাকে তার ঐতিহাসিক ঘোষণাটি বার বার প্রচার করতে হয়েছিল। আমার সঙ্গে ছিলেন সুবেদ আলী ভূঁইয়া।


আওয়ামী লীগ নেতা হান্নানের সুনির্দিষ্ট অনুরোধে মেজর জিয়া তার ৩০ মার্চ দেওয়া দ্বিতীয় ভাষণে শেখ মুজিবের নাম অন্তর্ভুক্ত করেন।… মেজর জিয়ার ২৭ মার্চ ঘোষণাটা শেষ হয়েছিল এই কথাটি দিয়ে— ‘Under the circumstances I declare myself provisional head of the government of Bangladesh. Joy Bangla.’ (বর্তমান পরিস্থিতিতে আমি নিজেকে বাংলাদেশ সরকারের অস্থায়ী প্রধান হিসেবে ঘোষণা করছি, জয়বাংলা।)’’



রাষ্ট্রপতি হওয়ার পর জিয়ার যে সরকারি জীবনবৃত্তান্ত প্রকাশিত হয়, সেখানে লেখা ছিল— ‘১৯৭০ সালের অক্টোবরে চট্টগ্রামে নবগঠিত অষ্টম ইস্টবেঙ্গল রেজিমেন্টে জিয়াকে বদলি করা হয়। এই রেজিমেন্টে নিয়োজিত থাকাকালেই তিনি পাকিস্তান সেনাবাহিনীর বিরুদ্ধে বিদ্রোহ করেন এবং ১৯৭১ সালের ২৭ মার্চ সাড়ে সাত কোটি স্বাধীনতাকামী বাঙালির পক্ষে ঐতিহাসিক স্বাধীনতার ঘোষণা দেন।’ (সূত্র: দ্য বাংলাদেশ অবজার্ভার, ২২ এপ্রিল ১৯৭৭)


এ ছাড়া স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্রের স্থপতি বেলাল মোহাম্মদ ২০১০ সালের ২১ মার্চ বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমের সিনিয়র রিপোর্টার প্রদীপ চৌধুরীকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে জিয়ার স্বাধীনতার ঘোষণাপত্র পাঠ সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য দেন। সাক্ষাৎকারটি প্রকাশ হয় ২০১০ সালের ২৮ মার্চ।



ওই সাক্ষাৎকারে বেলাল মোহাম্মদ বলেন, “২৬ মার্চ এদিক-সেদিক টেলিফোন করছি। টেলিফোন দেওয়ার পর চন্দনপুরের তাহের সোবাহান নামে আমার এক বন্ধু ছিল, তিনি বললেন, ‘একজন উচ্চ পদের মেজরের সন্ধান আমি জানি, তবে নাম জানি না। তিনি পটিয়াতে আছেন। তিনি হেডকোয়ার্টারের বাইরে এসেছিলেন বাবর ও সোয়াত জাহাজের অস্ত্র খালাসের জন্য। তিনি আজ রাতে, মানে ২৬ শে মার্চ দিবাগত রাতে সিচুয়েশন অবজার্ভ করার জন্য পটিয়াতে আছেন।”


‘আমাকে উনি অ্যাডভাইজ করলেন, ২৭ তারিখ যদি পটিয়াতে যেতে পারেন নিশ্চয়ই ওনাকে ওখানে পাবেন। বললেন, যেহেতু বাইরে আছেন, নিশ্চয়ই উনি বঙ্গবন্ধুর সাপোর্টার হবেন। আমার আরেক বন্ধুর সাহায্যে আমরা একটা গাড়ির ব্যবস্থা করে পরদিন সকালে রওনা হয়েছি পটিয়ায়। আর আমার সহকর্মীদের বলে দিয়েছি, কালুরঘাটের দিকে আস্তে আস্তে যাবে। আমি পটিয়া থেকে আসার পর প্রোগ্রাম শুরু হবে।’


“পটিয়ায় পৌঁছেই দেখা গেল আর্মি গিজ গিজ করছে।… এখানে যে আর্মি অফিসার আছেন, তার নাম মেজর জিয়াউর রহমান। তার সঙ্গে দেখা হলো। তাকে বললাম, ‘আপনি তো এখানে ব্রডকাস্ট শুনেছেন।’ তিনি বললেন, ‘আপনারা যে বঙ্গবন্ধুর স্বাধীনতার ঘোষণা প্রচার করেছেন, তা শুনেছি এবং খুশি হয়েছি।’”


‘আমি বললাম, আপনি যদি দয়া করে আপনার এই ছাউনিটা এখান থেকে সরিয়ে কালুরঘাটে নিয়ে যেতেন, তাহলে বাড়িটা প্রটেক্ট হবে। আমরাও ওখানে স্থায়ীভাবে থাকতে পারব। স্থায়ীভাবে না থাকতে পারলে কোনো কমিটমেন্ট করা যাবে না। ঠিক টাইমে রেডিওতে প্রোগ্রাম দেওয়া অ্যাডভেঞ্চার নয়। বেশ কিছু লোক লাগে। সব রকমের পয়েন্টে লোক বসে থাকা লাগে।’



“তারপর উনি আর দেরি করেন নাই। সৈন্যদের রওনা করিয়ে দিলেন। নিজেও একটা জিপে করে রওনা হলেন। আমাদের গাড়িটা ওনার গাড়ির পেছনে পেছনে চলল। পথে যেখানেই উনি বেশি মানুষের জটলা দেখলেন, যারা কর্মস্থল ছেড়ে পোটলা-পুটলি নিয়ে চলে যাচ্ছে, সেখানে তিনি দাঁড়িয়ে একটা বক্তৃতা দিলেন।


 ‘আপনারা যার যার কাজের জায়গায় চলে যান। ইনশাল্লাহ দুয়েক দিনের মধ্যে আমরা পাঞ্জাবিদের খতম করে দেবো। আর উর্দু ভাষায় যারা কথা বলে তারা সব আমাদের দুশমন। তাদেরকে শেষ করে দেন।’”


“এটাই ছিল ওনার বক্তব্য। এই দশ জায়গায় থেমে থেমে যাওয়ার কারণে আমাদের কালুরঘাটে পৌঁছতে সন্ধ্যা হয়ে গেল।… আমার সহকর্মী যারা উপস্থিত ছিল, তারা প্রোগ্রাম শুরু করল। একসময় জিয়াউর রহমান ও আমি একটা রুমে বসেছি। 


আমার এক সহকর্মী আমাকে কিছু কাগজপত্র দেখাচ্ছে। আমি কী মনে করে বললাম, ‘আচ্ছা মেজর সাহেব, এখানে তো আমরা সবাই মাইনর, আপনিই একমাত্র মেজর। আপনি কি নিজের কণ্ঠে কিছু বলবেন? উনি বললেন, ‘হ্যাঁ। সত্যিই তো, কী বলা যায়?’”


‘সঙ্গে সঙ্গে একটা কাগজ এগিয়ে দেওয়া হলো। তার প্রতিটি শব্দ তিনিও উচ্চারণ করেছেন এবং আমিও উচ্চারণ করেছি। এভাবে লেখা শুরু হলো— ‘আই, মেজর জিয়া অন বিহাফ অব আওয়ার গ্রেট ন্যাশনাল লিডার বঙ্গবন্ধু শেখ মজিবুর রহমান ডু হেয়ার বাই ডিক্লেয়ার ইন্ডিপেনডেন্স অব বাংলাদেশ।… খোদা হাফেজ জয় বাংলা।’”


‘এই ঘোষণাটির খসড়াও তৈরি হলো আমার সঙ্গে আলাপ করে।… আর আমার সহকর্মীদের বলে দিলাম, কিছুক্ষণের মধ্যে মেজর জিয়া একটা জরুরি ভাষণ দেবেন। এভাবে দুই-তিনবার অ্যাডভান্স অ্যানাউন্সমেন্ট করা হলো। তারপর তিনি নিজের কণ্ঠে ইংরেজিটা পড়েছেন। বাংলাটা আমার সহকর্মী আব্দুল্লাহ আল ফারুকের কণ্ঠস্বর ভালো, তাকে দিয়ে শুনিয়েছি। এভাবেই হলো। 


কোনো রকম পূর্বপ্রস্তুতি ছিল না, পরিকল্পনা ছিল না এবং এটা স্বাধীনতা ঘোষণা না। এটা হচ্ছে বঙ্গবন্ধুর পক্ষ থেকে একই কথার পুনরুক্তি করা।’


‘রাষ্ট্রপতি জিয়া কোনোদিন নিজেকে স্বাধীনতার ঘোষক বলেননি। ২৬ তারিখও বলেননি, উনি সবসময় ২৭ তারিখই (২৭ মার্চ) বলেছেন।… পরবর্তী সময় যে ঘোষক-টোষক বলা হয়েছে, এগুলো তৈরি করা। রাষ্ট্রপতি জিয়া এগুলো ক্লেইম করেননি।’


প্রকৃত অর্থে জিয়াউর রহমান জীবিত অবস্থায় কোনোদিন নিজেকে স্বাধীনতার ঘোষক দাবিই করেননি। তার মৃত্যুর পর বিএনপির রাজনীতি খালেদা জিয়ার হাতে পড়লে এ বিতর্ক প্রথম শুরু হয়। খালেদা জিয়ার হাত থেকে বিএনপির রাজনীতি যখন তারেক রহমানের হাতে পড়ে, তখন এটা ‘পূর্ণতা’ লাভ করে। তারপরও জিয়ার ‘স্বাধীনতার ঘোষণা’ সংক্রান্ত তারিখ বিএনপি এতদিন ২৭ মার্চ-ই বলে আসছিল। হঠাৎ কেন ২৬ মার্চে নিয়ে এলো?


এর পেছনে কারণটা হলো— জিয়ার ২৭ মার্চের ‘বেতার ঘোষণা’কে স্বাধীনতার ঘোষণা দাবি করলেও ক্ষমতায় থেকে এবং ক্ষমতার বাইরে থেকে ২৬ মার্চকেই ‘মহান স্বাধীনতা দিবস’ হিসেবে পালন করে আসছে বিএনপি। এ নিয়ে প্রধান প্রতিপক্ষ আওয়ামী লীগ তো বটেই সুধী এবং সাধারণ মহল থেকেও প্রশ্ন উঠছে— জিয়ার ঘোষণা যদি স্বাধীনতার ঘোষণা হয়, তাহলে স্বাধীনতা দিবস ২৭ মার্চ নয় কেন? 


যে ২৬ মার্চ বিএনপি স্বাধীনতা দিবস পালন করে, সেদিন তো জিয়া ‘স্বাধীনতার ঘোষণা’ দেননি। তার জীবদ্দশায় কোনো দিন দাবিও করেননি যে তিনি ২৬ মার্চ স্বাধীনতার ঘোষণা দিয়েছেন। সুতরাং এ ধরনের প্রশ্ন থেকে বাঁচতে বিএনপি হয়তো জিয়ার ঘোষণার তারিখটাই বদলে দিতে চাচ্ছে!


জিয়ার ‘স্বাধীনতার ঘোষণার’ তারিখটা ছাড়াও মির্জা ফখরুলের ওই ‘বাণী’-তে আরেকটি স্পর্শকাতর ভুল বা কৌশলে স্বাধীনতার প্রকৃত ইতিহাস অস্বীকারের ইঙ্গিত রয়েছে। বাণীর চতুর্থ অনুচ্ছেদে বলা হয়েছে, ‘স্বাধীনতা যুদ্ধের শেষে জাতি বিদেশি শাসন থেকে মুক্তি লাভ করে।’


১৯৭১ সালের বাঙালির যুদ্ধটা ছিল দখলদার পাকিস্তানি বাহিনীর বিরুদ্ধে। বিজয়টাও ছিল পাকিস্তানিদের বিরুদ্ধে। কী এক অজানা কারণে জিয়ার মৃত্যুবার্ষিকীতে দেওয়া বাণীতে ‘পাকিস্তান’ শব্দটার উল্লেখ না করে ‘বিদেশি’ শব্দটা ব্যবহার করল বিএনপি— সেটাও গভীর কৌতূহলের জন্ম দিয়েছে বৈকি! এভাবে ইতিহাসকে অস্বীকার করে বা ভুল ইতিহাস লিখে বিএনপি কী অর্জন করতে চায়, সেটাই এখন দেখার বিষয়। 


অবশ্য বড় দলগুলোর চেয়ারম্যান-মহাসচিব বা সভাপতি-সাধারণ সম্পাদকের নামে পাঠানো বিবৃতি/বাণীর খসড়া সাধারণত অফিস স্টাফরা লিখে থাকেন। দফতর সম্পাদক চোখ বুলিয়ে দেন এবং যার নামে পাঠানো হয়, তিনি সচারাচার এসব বিবৃতি/বাণী পড়ে দেখেন না। ফলে এসব বিবৃতি/বাণীতে থাকা ভুলগুলোকে খুব একটা বেশি গুরুত্ব দেওয়ার সুযোগ থাকে না। তবুও কথা থেকে যায়…।



আরও খবর



গৃহহীনের অভিশাপমুক্ত হলো আরো ৭০ উপজেলা

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ১১ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ২০ জুন ২০24 |

Image

দেশের আরও ২৬টি জেলা এবং ৭০ উপজেলাকে ভূমি ও গৃহহীনমুক্ত ঘোষণা করা হয়েছে। এর মধ্যে দিয়ে এখন পর্যন্ত মোট ৫৮ জেলা ও ৪৬৪টি উপজেলা ভূমি ও গৃহহীনমুক্ত হলো।

 ১১ জুন বেলা ১১টায় গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সে পঞ্চম পর্যায়ের দ্বিতীয় ধাপে আরও ১৮ হাজার ৫৬৬ ভূমি ও গৃহহীন পরিবারকে বিনামূল্যে জমিসহ ঘর বিতরণ কার্যক্রম উদ্বোধনকালে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এ ঘোষণা দেন।

এ সময় ঢাকা, গোপালগঞ্জ, শরীয়তপুর, ফরিদপুর, নেত্রকোণা, কক্সবাজার, চট্টগ্রাম, চাঁদপুর, লক্ষ্মীপুর, নোয়াখালী, কুমিল্লা, ফেনী, গাইবান্ধা, লালমনিরহাট, নীলফামারী, সিরাজগঞ্জ, বগুড়া, সাতক্ষীরা, যশোর, খুলনা, নড়াইল, বাগেরহাট, বরগুনা, বরিশাল, হবিগঞ্জ ও সুনামগঞ্জ; এই ২৬ জেলাকে ভূমি ও গৃহহীনমুক্ত ঘোষণা করা হয়।

ঢাকা জেলার ধামরাই; গোপালগঞ্জের গোপালগঞ্জ সদর; শরিয়তপুরের নড়িয়া, জাজিরা; ফরিদপুরের সদরপুর উপজেলা; নেত্রকোণার খালিয়াজুরী; কক্সবাজারের কক্সবাজার সদর, মহেশখালী, ঈদগাঁও; চট্টগ্রামের চন্দনাইশ, সন্দ্বীপ, সীতাকুন্ড; চাঁদপুরের হাইমচর, চাঁদপুর সদর; লক্ষীপুরের

রামগতি, কমলনগর; নোয়াখালীর হাতিয়া, কোম্পানীগঞ্জ, সুবর্ণচর; কুমিল্লার আদর্শ সদর, মুরাদনগর; ফেনীর সোনাগাজী; গাইবান্ধা জেলার ফুলছড়ি, সাঘাটা; কুড়িগ্রামের কুড়িগ্রাম সদর, উলিপুর, নাগেশ্বরী, রাজারহাট, চররাজিবপুর, রৌমারী; রংপুরের গংগাচড়া, মিঠাপুকুর, পীরগঞ্জ; লালমনিরহাটের কালীগঞ্জ, লালমনিরহাট সদর, পাটগ্রাম, হাতিবান্ধা, আদিতমারী; নীলফামারী সৈয়দপুর, সিরাজগঞ্জের চৌহালী; বগুড়ার শেরপুর; সাতক্ষীরার আশাশুনী; যশোরের মনিরামপুর; খুলনার পাইকগাছা, কয়রা, দাকোপ; নড়াইলের লোহাগড়া, নড়াইল সদর; বাগেরহাটের বাগেরহাট সদর, শরণখোলা, রামপাল, মোল্লাহাট, ফকিরহাট, চিতলমারী, মোরেলগঞ্জ, মোংলা, কচুয়া; ভোলার বোরহানউদ্দিন, চরফ্যাশন, মনপুরা; বরগুনার বরগুনা সদর, আমতলী; বরিশালের বরিশাল সদর, হিজলা, গৌরনদী; হবিগঞ্জের আজমিরীগঞ্জ; সুনামগঞ্জের দিরাই, ছাতক, জগন্নাথপুর, জামালগঞ্জ এই ৭০ উপজেলাকে সম্পূর্ণ ভূমিহীন এবং গৃহহীনমুক্ত ঘোষণা করা হয়েছে। আসন্ন ঈদুল আজহার আগে শেখ হাসিনার ঈদ উপহার হিসেবে ঘর পেলেন অসহায় এসব পরিবার।

প্রধানমন্ত্রীর পক্ষে মাঠ প্রশাসনের কর্মকর্তারা উপকার ভোগীদের হাতে জমির দলিল এবং ঘরের চাবি হস্তান্তর করেন।

পরে গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সে লালমনিরহাটের কালীগঞ্জ, ভোলার চর ফ্যাশন ও কক্সবাজারের ঈদগাঁও এলাকার উপকারভোগীদের সঙ্গে কথা বলেন প্রধানমন্ত্রী। ১৯৭২ সালে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান গৃহহীনদের পুনর্বাসন কর্মসূচি শুরু করেন।

বঙ্গবন্ধুর এ কর্মসূচিকে অনুসরণ করে তার কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ১৯৯৭ সালে আশ্রয়ণ প্রকল্পের মাধ্যমে গৃহ ও ভূমিহীনদের ঘর ও জমির মালিকানা দেওয়ার উদ্যোগ গ্রহণ করেন।

আশ্রয়ণ প্রকল্প ও অন্যান্য প্রকল্পের আওতায় ১৯৯৭ সাল থেকে এ পর্যন্ত সারা দেশে ৮ লাখ ৬৭ হাজার ৯০৪ ভূমি ও গৃহহীন পরিবারের প্রায় ৪৩ লাখ ৪০ হাজার মানুষকে পুনর্বাসন করা হয়েছে। শুধুমাত্র আশ্রয়ণ প্রকল্পের অধীনে ৫ লাখ ৮২ হাজার ৫৩ ভূমি ও গৃহহীন পরিবারের ২৯ লাখ ১০ হাজার ২৬৫ জনকে পুনর্বাসন করা হয়েছে। শুধুমাত্র মুজিব শতবর্ষে ২ লাখ ৬৬ হাজার ১২টি ভূমি ও গৃহহীন পরিবারকে পুনর্বাসন করা হয়েছে।


আরও খবর



জামায়াতের রাজনীতি সমর্থন করি না: ফখরুল

প্রকাশিত:রবিবার ০২ জুন 2০২4 | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ২০ জুন ২০24 |

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক:

বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, আমি জামায়াতের রাজনীতি সমর্থন করি না। কিন্তু তাদের যে সাংগঠনিক কাঠামো তা অত্যন্ত বিজ্ঞানসম্মত। 


নিজেরা নিজেরা পড়ালেখা করে ও পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হতে হয়। রোববার (২ জুন) দুপুরে ঢাকায় জাতীয় প্রেসক্লাবের এক আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।



বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা ও সাবেক প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমানের ৪৩ তম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে এই আলোচনা সভার আয়োজন করে জিয়াউর রহমান ফাউন্ডেশন (জেডআরএফ)।


ফখরুল বলেন, ক্ষমতাসীন সরকার দেশপ্রেমিক নয়, ওরা বর্গী। সেজন্যই দেশের টাকা লুটে বিদেশে নিয়ে যাচ্ছে। ক্ষমতাসীনরা আজ দুর্নীতিতে আকণ্ঠ নিমজ্জিত। জাতি এখন দ্বিধা বিভক্ত। জিয়াউর রহমান তো নিজে রাজনীতিতে আসেননি। 



তাকে নিয়ে আসা হয়েছিল। ৭১ সালে মহান মুক্তিযুদ্ধের সময় তার নেতৃত্ব দেখে ৭৫ সালে সৈনিকেরা তাকে ফের দায়িত্ব দিয়েছিলেন।


তিনি বলেন, আজকে পত্রিকা খুললে শুধু লুট আর লুটের খবর। কারা লুট করছে? যারা বড় বড় কর্তা। সেই আর্মির প্রধান, পুলিশের সাবেক আইজি তারা কী করেছে? সংসদে ভদ্রলোক কয়জন খুঁজে পাবেন? বাংলাদেশ ব্যাংক লুট করছে। রিজার্ভের ডলার লুট করে নিয়ে যাচ্ছে। 


শেয়ার বাজারে রথি মহারথিরা লুট করছে। তারা এতো বড় মানুষ তাদের পাশে যাওয়া যায় না। কেউ দরবেশ, কেউ মাফিয়া, কেউ হুজুর। আজকে চট্টগ্রামে ইসলামী ব্যাংক থেকে ১৫০ ভরি স্বর্ণ গায়েব হয়ে গেছে। কোথাও কোনো জবাবদিহিতা নেই।


বিএনপির মহাসচিব বলেন, জিয়াউর রহমানের পররাষ্ট্রনীতি জানলে আশ্চর্য হতে হবে। তিনি দেশকে একটি তলাবিহীন ঝুড়ি থেকে সমৃদ্ধ বাংলাদেশে পরিণত করেছিলেন। ক্ষমতায় আসার পর দেশের গণতান্ত্রিক প্রতিষ্ঠানগুলোকে সুসংহত করতে উদ্যোগ নেন। 


সকল রাজনৈতিক দলগুলোর সঙ্গে আলোচনা করেছিলেন। তিনি ছিলেন দেশপ্রেমিক। সেজন্যই সকল রাজনৈতিক দল তার ওপর আস্থা রেখেছিল। কমিউনিস্ট পার্টি ও মোজাফফর সাহেবের ন্যাপ জিয়াউর রহমানের ১৯ দফাকে সমর্থন দিয়েছিলেন।


সংগঠনের নির্বাহী পরিচালক অধ্যাপক ডা. ফরহাদ হালিম ডোনারের সভাপতিত্বে ও শাহাদাত বার্ষিকী উদযাপন কমিটির আহ্বায়ক প্রকৌশলী মাহবুব আলমের সঞ্চালনায় সভায় বক্তব্য দেন  ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের রাষ্ট্রবিজ্ঞানের সাবেক শিক্ষক অধ্যাপক ড. নূরুল আমিন বেপারী, সম্মিলিত পেশাজীবী পরিষদের সদস্য সচিব কাদের গণি চৌধুরী প্রমুখ। 


আরও খবর