Logo
শিরোনাম
বাউল ছালমা হলেন বরিশাল বিভাগের শ্রেষ্ঠ "জয়িতা" পাংশায় মাদক সহ ৯ মামলার আসামী গ্রেফতার ১৬৩ টাকায় তেল বিক্রির ব্যত্যয় ঘটলে ব্যবস্থা নেয়া হবে: ভোক্তার মহাপরিচালক দুর্গাপুরে বালুবাহী হ্যান্ডট্রলির চাপায় প্রাণ গেল শিক্ষার্থীর নওগাঁ জেলা প্রেস ক্লাবের সভাপতি আবু বক্কর, সাধারণ সম্পাদক বেলায়েত নওগাঁয় প্রাইভেটকার তল্লাসি, ৭২ কেজি গাঁজা সহ যুবক আটক রূপগঞ্জে প্রাইভেটকার চাপায় গৃহবধু নিহত রাঙ্গামাটির বড়ইছড়ি নির্মাণ শ্রমিক বোঝাই ট্রাক খাদে নিহত-২, আহত-২০ মুসলিমদেরকে সঠিক পথ থেকে বিচ্যুত করার জন্য বিভিন্ন ষড়যন্ত্র চলছে নওগাঁয় কম্পিউটার ব্যবসার অন্তরালে অশ্লিল ভিডিও বিক্রি করায় ৩ যুবক আটক

লন্ডন হাই কমিশনে যথাযোগ্য মর্যাদায় ‘সশস্ত্র বাহিনী দিবস পালন

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ২৩ নভেম্বর 20২৩ | হালনাগাদ:শুক্রবার ০১ মার্চ ২০২৪ |

Image

লন্ডন প্রতিবেদক :

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এবং সশস্ত্রবাহিনীর সদস্যসহ বীর শহীদ মুক্তিযোদ্ধাদের প্রতি গভীর শ্রদ্ধা জ্ঞাপন করে বাংলাদেশ হাইকমিশন, লন্ডন ‘সশস্ত্র বাহিনী দিবস ২০২৩’ যথাযোগ্য মর্যাদায় পালন করেছে। 

এ উপলক্ষে বুধবার লন্ডনে ন্যাশনাল আর্মি মিউজিয়ামে আয়োজিত এক বর্ণাঢ্য অনুষ্ঠানে যুক্তরাজ্যে নিযুক্ত বাংলাদেশের হাইকমিশনার সাইদা মুনা তাসনীম জাতির পিতা এবং সশস্ত্রবাহিনীর সদস্যসহ বীর শহীদ মুক্তিযোদ্ধাদের প্রতি গভীর শ্রদ্ধা জ্ঞাপন করে বলেন,“ “জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ১৯৭২ সালে ধর্মনিরপেক্ষ এবং প্রগতিশীল মূল্যবোধ ভিত্তিক বাংলাদেশ-যুক্তরাজ্য সম্পর্ক প্রতিষ্ঠিত করেছেন। এরই ধারাবাহিকতায় বঙ্গবন্ধুর সুযোগ্য কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার অসামান্য এবং দূরদর্শী নেতৃত্বে যুক্তরাজ্যের সাথে বাংলাদেশের প্রতিরক্ষা, নিরাপত্তা ও কৌশলগত সম্পর্ক গত এক দশকে আরো সুদৃঢ় হয়েছে।

তিনি বলেন, “প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বাংলাদেশকে একটি শান্তিপূর্ণ, উন্নত, আধুনিক ও অসাম্প্রদায়িক দেশ হিসেবে গঠন করতে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ এবং এক্ষেত্রে যুক্তরাজ্যসহ অন্যান্য দেশের সঙ্গে কৌশলগত সম্পর্ক অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ।

হাইকমিশনার বলেন, “গত বছর বাংলাদেশ ও যুক্তরাজ্যের মধ্যে প্রথম প্রতিরক্ষা সংলাপ সফলভাবে সম্পন্ন হয়েছে। শীর্ঘই দ্বিতীয় প্রতিরক্ষা সংলাপ শুরু হবে।” তিনি “ফোর্সেস গোল ২০৩০’ বাস্তবায়নসহ প্রতিরক্ষা ক্ষেত্রে যুক্তরাজ্যের সাথে বহুমাত্রিক সহযোগিতা ভবিষ্যতে আরো জোরদার করার ব্যাপারে দৃঢ় আশাবাদ ব্যক্ত করেন।

হাইকমিশনার বাংলাদেশের মহান মুক্তিযুদ্ধ থেকে শুরু করে দেশের উন্ননয়, অগ্রগতি ও দুর্যোগ ব্যবস্থাপনাসহ বিভিন্ন ক্ষেত্রে সশস্ত্র বাহিনীর অসাধারণ ভূমিকার কথা উল্লেখ করেন। বহির্বিশ্বে বাংলাদেশের সশস্ত্র বাহিনীর ভূমিকার কথা বিশেষভাবে উল্লেখ করে হাইকমিশনার বলেন, “আমাদের সশস্ত্র বাহিনী বৈশ্বিক মঞ্চে জাতীয় পতাকাবাহী হিসেবে এ পর্যন্ত ৪৭ টি দেশে ৬৫টি মিশনে অংশগ্রহণের মাধ্যমে বিশ্বব্যাপী বাংলাদেশের ভাবমূর্তি উজ্জ্বল করেছে।

হাইকমিশনার গত মে মাসে যুক্তরাজ্যে রাজার করোনেশন প্যারেডে বাংলাদেশের সশস্ত্র বাহিনীর অংশগ্রহণের কথা বিশেষভাবে উল্লেখ করে বলেন, যুক্তরাজ্যের সশস্ত্র বাহিনীর সাথে আমাদের সশস্ত্র বাহিনীর দীর্ঘ এবং দৃঢ় প্রতিরক্ষা সম্পর্ক রয়েছে। বিশেষ করে উভয় দেশ সন্ত্রাস দমন, দুর্যোগ মোকাবিলা এবং অন্যান্য পারস্পরিক স্বার্থে প্রশিক্ষণ প্যাকেজ বিনিময় করে। কৌশলগত অংশীদারিত্ব বৃদ্ধি করতে বাংলাদেশ যুক্তরাজ্য থেকে উল্লেখযোগ্য সামরিক সরঞ্জামও সংগ্রহ করেছে।

লন্ডন হাইকমিশনের প্রতিরক্ষা উপদেষ্টা ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মোঃ আব্দুল মতিন স্বাগত বক্তব্যে বলেন, “পেশাগত দায়িত্ব পালনের পাশাপাশি সশস্ত্র বাহিনী বাংলাদেশে দুর্যোগ মোকাবিলা, অবকাঠামো নির্মাণ, আর্তমানবতার সেবাসহ জাতিগঠনমূলক বিভিন্ন কর্মকাণ্ডে নিয়মিত অংশগ্রহণ করছে। জাতিসংঘের শান্তিরক্ষা কার্যক্রমেও নিষ্ঠার সঙ্গে দায়িত্ব পালন করে আন্তর্জাতিক পরিমণ্ডলে বিশেষ সুনাম অর্জন করেছে।” তিনি প্রতিরক্ষা ক্ষেত্রে বাংলাদেশ ও যুক্তরাজ্যের সম্পর্ক খুবই ঘনিষ্ঠ ও আন্তরিক বলে উল্লেখ করেন।

যুক্তরাজ্যের প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের প্রতিনিধি সিকিউরিটি ও অপারেশন বিভাগের ডেপুটি ডিরেক্টর বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত মোঃ মুহিব রহমান অনুষ্ঠানে তার বক্তব্যে ১৯৭২ সালে লন্ডনে বঙ্গবন্ধুর সফর এবং ১০ ডাউনিং স্ট্রিটে স্যার এডওয়ার্ড হীথের সাথে ইতিহাসিক বৈঠকের কথা উল্লেখ করেন। 

অনুষ্ঠানে অল পার্টি পার্লামেন্টারি গ্রুপ অন বাংলাদেশের চেয়ার বিরেন্দ্র শর্মা এমপি, সাইপ্রাসের হাইকমিশনার এন্ড্রিয়াস এস কাকউরিস(Andreas S Kakouris) এবং নামিবিয়ার হাই কমিশনার মিসেস লিন্ডা স্কটসহ (Linda Scott) বিভিন্ন দেশের প্রতিরক্ষা উপদেষ্টা, কূটনৈতিক ফোরামের সদস্য, যুক্তরাজ্য প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়, কমনওয়েলথ ও এফসিডিও এর সম্মানিত প্রতিনিধিগণ এবং যুক্তরাজ্যে প্রবাসী বাংলাদেশী বীর মুক্তিযোদ্ধা ও মুক্তিযুদ্ধের সংগঠকবৃন্দ, বিভিন্ন পেশার বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গ এবং লন্ডনে বাংলাদেশি-বৃটিশ কমিউনিটির বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন। 

বাংলাদেশের স্বাধীনতার ইতিহাস এবং বাংলাদেশের সশস্ত্র বাহিনীর প্রতিষ্ঠা ও দেশে-বিদেশে এর বিশেষ ভূমিকা সম্বলিত বর্ণিল ব্যানারে সুসজ্জিত অনুষ্ঠানে সশস্ত্র বাহিনীর ওপর একটি প্রামান্য চিত্র প্রদর্শন করা হয়। বাংলাদেশ হাইকমিশন, লন্ডনের সহকারি প্রতিরক্ষা উপদেষ্টা উইং কমান্ডার মোঃ সাইফুর রহমান, অনুষ্ঠানটি পরিচালনা করেন।


আরও খবর

রোজার আগে পেঁয়াজ-চিনি আমদানি নিয়ে আলোচনা

শুক্রবার ০৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৪




পাটটগ্রামে পৃথক ঘটনায় নিহত ২

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ২০ ফেব্রুয়ারী ২০24 | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ২৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ |

Image

বুড়িমারী ইউনিয়নের উফারমারা মৌজাস্থ ঘুন্টি নির্মানাধীন নেসকো(বিদ্যুৎ) ভবনের দক্ষিণ পাশে নিপ্লবের বাড়ীর সামনে  বুড়িমারী-লালমনিরহাটগামী পাকা রাস্তার উপর সড়ক দুর্ঘটনায় এক ব্যক্তি নিহত হয়। মৃত ব্যক্তি পাটগ্রাম থানাধীন বুড়িমারী কল্লাটারী গ্রামস্থ মোঃ আব্দুর রহিম ওরেফে সোলা মিয়া এর ছেলে আমিনুর রহমান (৩০)। স্থানীয় সুত্রে জানা যায় যে,মোটরসাইকেল চালক  মোঃ মতিজুল ওরফে করিদুল ইসলামের সাথে আমিনুর রহমান নিজ বাড়ি হতে ঘুন্টি বাজার আসার পথে বুড়িমারী ইউনিয়নের উফারমারা মৌজাস্থ ঘুন্টি এলাকায় নির্মানাধীন নেসকোর ভবন (বিদ্যুৎ) এর দক্ষিণ পাশে একই দিক থেকে অর্থাৎ বুড়িমারী থেকে লালমনিরহাট গামী পাথর বোঝাই ট্রাককে অতিক্রম করাকালে ট্রাকের পিছনের চাকায় পিষ্ঠ হয়ে ঘটনাস্থলে নিহত হন এবং মোটরসাইকেল চালক মোঃ মতিজুল ওরফে করিদুল (৪০) গুরুতর আহত হন। দুর্ঘটনার সংবাদ পেয়ে তাৎক্ষণিক পাটগ্রাম থানা পুলিশ,হাতীবান্ধা হাইওয়ে ও পাটগ্রাম ফায়ার সার্ভিসের(উদ্ধারকর্মী) একটি দল ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়। আহত ব্যক্তিকে দ্রুত পাটগ্রাম উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করানো হয়। আহত ব্যক্তি বর্তমানে পাটগ্রাম উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স এ চিকিৎসাধীন আছেন। হাতীবান্ধা হাইওয়ে পুলিশ লাশের সুরতল রিপোর্ট প্রস্তুত সহ যাবতীয় কার্যক্রম করেন।

পাথর বোঝাই ট্রাকের চালক ও হেলপার পলাতক। ট্রাকটি বর্তমানে হাতীবান্ধা হাইওয়ে পুলিশের হেফাজতে আছে। 

অপরদিকে ,চৈতের বাজার সংলগ্ন পাটগ্রাম হইতে বুড়িমারীগামী সড়কের পাশে তামাক ক্ষেতে মোঃ শহিদার রহমান এক ব্যক্তির মৃতদেহ পাওয়া যায়। মৃত ব্যক্তি পাটগ্রাম থানাধীন পাটগ্রাম ইউনিয়নস্থ টেপুরগাড়ী গ্রামের ধওলা মিয়ার ছেলে। গত ১৮/০২/২০২৪ খ্রি: রাত্রি অনুমান ১০.০০ ঘটিকার পর যেকোন সময় রাস্তা দেয়ে হাঁটার সময় চলন্ত মোটরসাইকেলের ধাক্কায় এমন দুর্ঘটনা ঘটতে পারে বলে প্রাথমিকভাবে ধারণা করছে স্থানীয় লোকজন। উক্ত সংবাদ পেয়ে পাটগ্রাম থানার অফিসার ইনচার্জ সঙ্গীও অফিসার ফোর্স সহ ঘটনাস্থলে উপস্থিত হন। পাটগ্রাম থানা পুলিশ মৃত ব্যক্তির সুরতহাল রিপোর্ট প্রস্তুত সহ যাবতীয় কার্যক্রম শেষে ময়না তদন্তের জন্য প্রয়োজনীয় কাগজপত্র সহ পুলিশ স্কটে মাধ্যমে লালমনিরহাট সদর হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়। মৃত ব্যক্তির পরিবারের অভিযোগের ভিত্তিতে পরবর্তী আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।


আরও খবর

বাউল ছালমা হলেন বরিশাল বিভাগের শ্রেষ্ঠ "জয়িতা"

বৃহস্পতিবার ২৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৪

পাংশায় মাদক সহ ৯ মামলার আসামী গ্রেফতার

বৃহস্পতিবার ২৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৪




অনলাইন গণমাধ্যমের জন্য বিজ্ঞাপন নীতিমালা প্রণয়ন করা হবে

প্রকাশিত:বুধবার ০৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ২৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ |

Image

অনলাইন গণমাধ্যমের জন্য বিজ্ঞাপন নীতিমালা প্রণয়ন করা হবে বলে জানিয়েছেন তথ্য ও সম্প্রচার প্রতিমন্ত্রী মোহাম্মদ আলী আরাফাত।

মঙ্গলবার (৬ ফেব্রুয়ারি) দুপুরে রাজধানীর সার্কিট হাউস রোডের তথ্য ভবনে চলচ্চিত্র ও প্রকাশনা অধিদপ্তরের সম্মেলন কক্ষে অধিদপ্তরের কর্মকর্তাদের সাথে মতবিনিময়কালে এ কথা জানান প্রতিমন্ত্রী।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, অনলাইন পত্রিকা ও নিউজ পোর্টালের জন্য সরকারি বিজ্ঞাপন হার নির্ধারণে নীতিমালা থাকা দরকার। এ সংক্রান্ত নীতিমালা প্রণয়নে প্রয়োজনীয় উদ্যোগ নেওয়া হবে।

বর্তমান সরকারের সময়ে গণমাধ্যমের স্বাধীনতা ও মত প্রকাশের স্বাধীনতার উন্নয়ন হয়েছে উল্লেখ করে প্রতিমন্ত্রী বলেন, গণমাধ্যমের স্বাধীনতা ও মত প্রকাশের স্বাধীনতা রক্ষায় বর্তমান সরকারের সদিচ্ছা রয়েছে। বিগত দিনে যখন সামরিক শাসন ছিল ও সামরিক শাসন থেকে উদ্ভূত দল যখন এ দেশ শাসন করেছে এবং তাদের সাথে বিভিন্ন সময় যখন মুক্তিযুদ্ধবিরোধী অপশক্তি ছিল, সে সময়ে গণমাধ্যমের স্বাধীনতা ও মত প্রকাশের স্বাধীনতার যে বাস্তবতা ছিল, সে জায়গা থেকে এখন আমরা কতটুকু এগিয়েছি, কতটুকু উন্নয়ন হয়েছে, সংখ্যাগত দিক থেকে এবং গুণগত দিক থেকে, এ তুলনামূলক বিষয়গুলো নিয়ে প্রকাশনা বের করতে হবে।

মতবিনিময়ে তিনি আরও বলেন, চলচ্চিত্র ও প্রকাশনা অধিদপ্তরের মাধ্যমে সরকারের উন্নয়ন কার্যক্রম দেশের মানুষের কাছে এবং বিশ্ববাসীর কাছে আরও কার্যকরভাবে পৌঁছে দেওয়ার লক্ষ্যে কাজ করতে হবে। এখন প্রযুক্তি অনেক অগ্রসর হয়ে গেছে, মানুষের চিন্তাভাবনার পরিবর্তন এসেছে। এ বিষয়গুলো মাথায় রেখে অধিদপ্তরের কাজে নতুন নতুন বিষয় সংযোজন করতে হবে।

ছাপাখানা ও প্রকাশনা (ঘোষণা ও নিবন্ধীকরণ) আইন ১৯৭৩ প্রয়োজনবোধে সংস্কারের উদ্যোগ নেওয়া হবে বলেও জানান প্রতিমন্ত্রী।

সভায় উপস্থিত ছিলেন চলচ্চিত্র ও প্রকাশনা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক স. ম. গোলাম কিবরিয়া, গণযোগাযোগ অধিদপ্তরের মহাপরিচালক মো. নিজামূল কবীর, বাংলাদেশ ফিল্ম সেন্সর বোর্ডের ভাইস চেয়ারম্যান খালেদা বেগমসহ চলচ্চিত্র ও প্রকাশনা অধিদপ্তরের বিভিন্ন পর্যায়ের কর্মকর্তারা।

 


আরও খবর

গ্যাস লিকেজ থেকে বিস্ফোরণ, দগ্ধ সাত

বুধবার ২৮ ফেব্রুয়ারী ২০২৪




বাড়তি দামেই বিক্রি হচ্ছে মাছ সবজি

প্রকাশিত:শুক্রবার ০২ ফেব্রুয়ারী 2০২4 | হালনাগাদ:শুক্রবার ০১ মার্চ ২০২৪ |

Image

ভরা মৌসুমে বাজারে প্রচুর সরবরাহ থাকার পরেও লাগামহীন রয়েছে সবজির দাম। ষাটের নিচে তেমন কোনো সবজি নেই বললেই চলে। তবে সপ্তাহের ব্যবধানে কিছুটা কমেছে আলুর দাম। প্রায় আগের দামেই বিক্রি হচ্ছে পেঁয়াজ। কেজিতে ২০-৩০ টাকা কমেছে রসুনের দাম।

শুক্রবার (০২ ফেব্রুয়ারি) রাজধানীর বিভিন্ন বাজার ঘুরে দেখা গেছে, লম্বা বেগুন প্রতিকেজি বিক্রি হচ্ছে ৭০-৮০ টাকা, গোল বেগুন ৮০-৯০ টাকা, ফুলকপি ৪০-৫০ পিস, বাঁধাকপি ৪০-৫০ টাকা, শিম ৮০-১০০ টমেটো ৭০-৮০, পেঁপে ৪০-৫০ টাকা, করলা ৭০-৮০ টাকা, চিচিঙ্গা বিক্রি হচ্ছে ৭০-৮০ টাকা, ঢেঁড়শ ৭০-৮০ টাকা মান ও সাইজভেদে লাউ ৭০-১০০ টাকা, শশা ৫০-৬০, মূলা ৪০-৫০ টাকায় বিক্রি হতে দেখা গেছে। যা গেল সপ্তাহজুড়ে কিছুটা কমে বিক্রি হয়েছে।

এছাড়াও শাকের মধ্যে সরিষা শাক আঁটি ১৫ টাকা, ডাটা শাক ১৫ টাকা, পালং ১৫-২০ টাকা, লাউ শাক ৪০-৫০, লাল শাক ১৫ টাকা, বথুয়া শাক ১৫-২০ টাকা আঁটি বিক্রি হচ্ছে। তবে বাজারে দোকানের তুলনায় ভ্যানে কিংবা ফুটপাতের দোকানগুলোতে প্রত্যেক সবজির দাম ৫-১০ টাকা কমে বিক্রি হচ্ছে।

এদিকে সপ্তাহের ব্যবধানে আলুর দাম কিছুটা কমেছে। ৪০ টাকায় নেমেছে আলুর কেজি। এছাড়াও ভ্যান গাড়িতে কিছু ছোট সাইজের আলু ৩৫ টাকাতেও বিক্রি হতে দেখা গেছে। তবে দেশি আলু বিক্রি হচ্ছে ৬০-৭০ টাকায়। ভরা মৌসুমেও কমছে না পেঁয়াজের দাম। প্রতি কেজি পেঁয়াজ ৯০-১০০ টাকা কেজিতে বিক্রি হচ্ছে। কোনো কোনো বাজারে ১১০-১২০ টাকা পর্যন্ত বিক্রি হতে দেখা গেছে। তবে সপ্তাহের ব্যবধানে কিছুটা কমেছে রসুনের দাম। প্রতি কেজি আমদানি করা রসুন ২২০-২৪০ টাকা বিক্রি হতে দেখা গেছে। নতুন দেশি রসুন ২০০-২২০ টাকা কেজি। এছাড়াও আদা ২২০-২৪০ টাকা কেজি বিক্রি হচ্ছে।

অপরদিকে অস্বস্তি রয়েই গেছে মাছ-মাংসের বাজারে। আবারও ২০০ টাকা ছাড়িয়েছে ব্রয়লার মুরগীর দাম। সোনালি ৩০০-৩৩০ টাকা। আবারও গরুর মাংস ৭০০-৭৫০ টাকায় দাম উঠেছে।

মাছের বাজারে সাইজ ভেদে তেলাপিয়া ২২০-২৩০ ও পাঙাশ ১৮০ থেকে ২২০ টাকা। যা গেল সপ্তাহেও একই দামে বিক্রি হয়েছে। অন্য মাছের মধ্যে মাঝারি ও বড় আকারের চাষের রুই, কাতলা ও মৃগেল মাছের দাম প্রতি কেজি ৩০০ থেকে ৪০০ টাকা। এছাড়াও ৬০০ টাকার নিচে নেই পাবদা, টেংরা, কই, বোয়াল, চিতল, আইড় ও ইলিশ মাছ। মাছ যত বড় তার দাম ততো বেশি দামে বিক্রি হচ্ছে।

 


আরও খবর

১০ হাজার পণ্যের দাম কমেছে আরব আমিরাতে

রবিবার ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪




চোখ রাঙাচ্ছে এডিস মশা

প্রকাশিত:বুধবার ২৮ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ২৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ |

Image

চলতি বছরের শুরুতেই চোখ রাঙাচ্ছে এডিস মশা। সঙ্গে পাল্লা দিয়ে বাড়ছে কিউলেক্স মশার উপদ্রব। মশার কামড়ে অতিষ্ঠ জনজীবন। কিন্তু মশা নিধনে ঢাকার দুই সিটি করপোরেশনের বিশেষ কোনো কার্যক্রম নেই।

২০২৩ সালে ঢাকা শহরে এডিস ও কিউলেক্স মশা উপদ্রব অতীতের সব রেকর্ড ভেঙেছে। গত বছর ঢাকায় ডেঙ্গু আক্রান্তের সংখ্যা সরকারি হিসেবে লাখ ছাড়িয়েছে। আর এ রোগে মারা গেছেন দেড় হাজারের বেশি। এবার বর্ষা মৌসুমে এডিস পরিস্থিতি আরও ভয়াবহ হওয়ার আশঙ্কা।

কীটতত্ত্ববিদদের দাবি, প্রকৃতপক্ষে গত বছর ডেঙ্গু আক্রান্তের সংখ্যা সরকারের হিসাবের দ্বিগুণের বেশি হবে। এবার এডিস মশায় আক্রান্তের হার আরও বাড়তে পারে। গত বছর যেসব স্থানে এডিস মশা ডিম ছেড়েছে, সেসব স্থানে বৃষ্টির পানি জমা মাত্রই এডিস মশা জন্মাবে। এ ভয়াবহ পরিস্থিতি মোকাবিলায় সিটি করপোরেশনকে আগ থেকেই প্রস্তুতি নিতে হবে। পাশাপাশি কোনো ভবনের ছাদ বা আঙিনায় যাতে বৃষ্টির পানি জমা না থাকে, তা নাগরিকদের আগেই নিশ্চিত হতে হবে।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের হেলথ ইমার্জেন্সি অপারেশন সেন্টার ও কন্ট্রোল রুমের তথ্যমতে, চলতি বছরের গত ১ জানুয়ারি থেকে ২৩ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত ঢাকার ১৮টি সরকারি হাসপাতালে ৩৪২ জন ডেঙ্গুরোগী ভর্তি হয়েছে। এ ছাড়া ৫৯টি বেসরকারি হাসপাতালে ১১২ জন ডেঙ্গুরোগী ভর্তি হয়েছেন। তাদের প্রায় সবাই ঢাকার বাসিন্দা।

এর আগে গত বছরের ৮ ডিসেম্বর থেকে ১৮ ডিসেম্বর পর্যন্ত ঢাকার দুই সিটিতে বর্ষা-পরবর্তী এডিস মশার লার্ভা বা শূককীট জরিপ করে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের রোগনিয়ন্ত্রণ শাখা। এ জরিপে উত্তর সিটির ৪০টি ও দক্ষিণের ৫৯টি ওয়ার্ডে মোট তিন হাজার ২৮৩টি বাড়ি থেকে নমুনা সংগ্রহ করে প্রতিষ্ঠানটি। এর মধ্যে ডিএসসিসিতে ১২ দশমিক ৩ শতাংশ ও ডিএনসিসিতে ১১ দশমিক ৩ শতাংশ বাড়ি ডেঙ্গুর উচ্চঝুঁকি পেয়েছে রোগ নিয়ন্ত্রণ শাখা।

২০২২ সালের বর্ষা-পরবর্তী জরিপে উত্তরে শতকরা ৩ দশমিক ৮ শতাংশ ও দক্ষিণ সিটি এলাকায় ৪ দশমিক ১৮ শতাংশ বাড়িতে এডিস মশার লার্ভা বা শূককীটের উপস্থিতি পাওয়া গিয়ে ছিল। সেই হিসেবে ২০২২ সালের বর্ষা-পরবর্তী সময়ের চেয়ে ২০২৩ সালে তা প্রায় তিনগুণ বেড়েছে।


আরও খবর

গ্যাস লিকেজ থেকে বিস্ফোরণ, দগ্ধ সাত

বুধবার ২৮ ফেব্রুয়ারী ২০২৪




নিজ দেশে ফিরতে চায় রোহিঙ্গারা

প্রকাশিত:রবিবার ০৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ২৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ |

Image

রাখাইনে চলমান সংঘাতের কারণে বাংলাদেশে অনুপ্রবেশের জন্য ওপারে সীমান্তে অবস্থান নিয়েছে মিয়ানমারের অনেক রোহিঙ্গা। তবে তাদের এদেশে ঢোকার ব্যাপারে বিরোধিতা করছে উখিয়া-টেকনাফে আশ্রিত রোহিঙ্গারা। তারা বলছেন, নিজ দেশ ছেড়ে এবার ভুল করা যাবে না।

ক্যাম্পে আয়োজিত কনভেনশনে রোহিঙ্গা নেতারা বলেছেন, আরাকান আর্মি তাদের অবস্থান স্পষ্ট করলে এখনই তারা ফিরে যাবেন মিয়ানমারে।

দেশটির অভ্যন্তরে জান্তা বাহিনীর সঙ্গে বিদ্রোহী গোষ্ঠী আরাকান আর্মির তুমুল সংঘর্ষ চলছে। ইতোমধ্যে রাখাইন রাজ্যের বেশ কিছু এলাকা দখলে নিয়েছে সংগঠনটি। ফলে বুচিডংসহ রাখাইনের বিভিন্ন অঞ্চল থেকে রোহিঙ্গারা বাংলাদেশে অনুপ্রবেশের জন্য সীমান্তে অবস্থান নিয়েছে।

এদিন উখিয়া ক্যাম্পের কয়েকজন রোহিঙ্গা জানান, রাখাইনে দুই পক্ষের হামলায় রোহিঙ্গারা প্রতিনিয়ত আক্রান্ত হচ্ছেন। তাই তারা বাংলাদেশে চলে আসার জন্য নিয়মিত যোগাযোগ করছেন এখানকার রোহিঙ্গাদের সঙ্গে।

তবে এবার নিপীড়নের শিকার হলেও কোনো অবস্থাতেই জন্মভূমি না ছাড়ার আহ্বান জানিয়েছেন রোহিঙ্গা নেতারা। তারা বলছেন, ২০১৭ সালে বাংলাদেশে এসে ভুল করেছেন তারা। সেটা দ্বিতীয়বার যেন অন্যরা না করেন। মিয়ানমারে এখন জান্তারা দুর্বল হয়ে পড়েছে। ফলে এখনই স্বদেশে ফিরে যাওয়া জরুরি।

এক রোহিঙ্গা বলেন, আমরা আর কোনও রোহিঙ্গাকে বাংলাদেশে আসতে দিতে চাই না। বরং এখনই সময় সেখানে আমাদের চলে যাওয়ার। এসময়ে যেতে পারলে খুবই ভালো হয়। সেই সুরে সুর মিলিয়ে আরেক রোহিঙ্গা বলেন, কষ্ট পেলেও, জুলুমের শিকার হলেও মিয়ানমারেই থাকা দরকার ওপারের রোহিঙ্গাদের। তারা থাকতে পারলে পরে আমরাও যেতে পারবো।

মিয়ানমারে দ্রুত ফিরে যাওয়ার জন্য এদিন সকালে উখিয়ার লম্বাশিয়া ক্যাম্পে সম্মেলন করেন এফডিএমএন রিপ্রেজেন্টেটিভ কমিটি। এতে নির্বাচিত বিভিন্ন ক্যাম্পের ৪ হাজার প্রতিনিধি অংশগ্রহণ করেন। আরাকান আর্মিকে ইঙ্গিত করে কমিটির নেতা মাস্টার ছৈয়দ উল্লাহ বলেন, সংগঠনটি রোহিঙ্গাদের অবস্থান স্পষ্ট করলে তারা এখনই চলে যেতে প্রস্তুত।

তিনি আরও বলেন, মিয়ানমারের আরকানে আমাদের আত্মীয়স্বজন, মা-বাবা, ভাই-বোন আছে। তাদের ওপর অনেক নির্যাতন হচ্ছে। তাদের প্রতি আহ্বান থাকবে, তারা যেন কোনদিনও দেশ ছেড়ে চলে না আসে। জাতিসংঘের সংস্থাগুলোকে প্রত্যাবাসন ইস্যুতে রোহিঙ্গাদের সঙ্গে আলাপ করে উদ্যোগ নিতে হবে। অন্যথায় একজোট হয়ে আমরা মিয়ানমারে ফিরে যাব।

ছলিম উল্লাহ নামে এক রোহিঙ্গা বলেন, আমাদের দেশ আছে। মিয়ানমারের আরকান আমাদের দেশ। আমরা দেশে ফিরে যেতে চাই।

এদিকে শরণার্থী কমিশন বলছে, নতুন করে যেকোনো অনুপ্রবেশ ঠেকাতে কঠোর অবস্থানে রয়েছে সরকার। শরণার্থী, ত্রাণ ও প্রত্যাবাসান কমিশনার মোহাম্মদ মিজানুর রহমান বলেন, আরও রোহিঙ্গা বাংলাদেশে ঢোকার আশঙ্কা রয়েছে। তবে আমাদের বর্ডার গার্ড (বিজিবি) অত্যন্ত সতর্ক অবস্থানে রয়েছে।

বিজিবির টেকনাফ ব্যাটালিয়নের কমান্ডার লে. কর্নেল মহিউদ্দীন আহমেদ বলেন, রোহিঙ্গাদের সম্ভাব্য প্রবেশ নিয়ে সতর্ক অবস্থানে আছে বিজিবি। সীমান্ত এলাকায় কঠোর নজরদারি বাড়ানো হয়েছে। একজন রোহিঙ্গাকেও প্রবেশ করতে দেওয়া হবে না। আমরা সব সময়ই সজাগ আছি।

 


আরও খবর

গ্যাস লিকেজ থেকে বিস্ফোরণ, দগ্ধ সাত

বুধবার ২৮ ফেব্রুয়ারী ২০২৪