Logo
শিরোনাম
বাউল ছালমা হলেন বরিশাল বিভাগের শ্রেষ্ঠ "জয়িতা" পাংশায় মাদক সহ ৯ মামলার আসামী গ্রেফতার ১৬৩ টাকায় তেল বিক্রির ব্যত্যয় ঘটলে ব্যবস্থা নেয়া হবে: ভোক্তার মহাপরিচালক দুর্গাপুরে বালুবাহী হ্যান্ডট্রলির চাপায় প্রাণ গেল শিক্ষার্থীর নওগাঁ জেলা প্রেস ক্লাবের সভাপতি আবু বক্কর, সাধারণ সম্পাদক বেলায়েত নওগাঁয় প্রাইভেটকার তল্লাসি, ৭২ কেজি গাঁজা সহ যুবক আটক রূপগঞ্জে প্রাইভেটকার চাপায় গৃহবধু নিহত রাঙ্গামাটির বড়ইছড়ি নির্মাণ শ্রমিক বোঝাই ট্রাক খাদে নিহত-২, আহত-২০ মুসলিমদেরকে সঠিক পথ থেকে বিচ্যুত করার জন্য বিভিন্ন ষড়যন্ত্র চলছে নওগাঁয় কম্পিউটার ব্যবসার অন্তরালে অশ্লিল ভিডিও বিক্রি করায় ৩ যুবক আটক

স্বতন্ত্রদের পাশে শেখ হাসিনা : ভয়ভীতি প্রচারণায় বাধা দিলেই ব্যবস্থা

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ০৫ ডিসেম্বর ২০২৩ | হালনাগাদ:শুক্রবার ০১ মার্চ ২০২৪ |

Image

সদরুল আইন :এবার নির্বাচনের সবচেয়ে বড় আকর্ষণ হলো স্বতন্ত্র প্রার্থীরা। প্রায় ৮০০ স্বতন্ত্র প্রার্থী মনোনয়ন জমা দিয়েছিলেন। এদের মধ্যে শতাধিক স্বতন্ত্র প্রার্থীর মনোনয়ন বাতিল হয়েছে। 

 যারা বাতিল হয়েছে তারাও আপিল করেছেন আর যে ৭০০ স্বতন্ত্র প্রার্থী নির্বাচনের জন্য প্রাথমিকভাবে যোগ্য বিবেচিত হয়েছেন তারা এবার নির্বাচনে সবচেয়ে বড় আকর্ষণ।

আওয়ামী লীগের মধ্যে থেকে বিভিন্ন নেতারা স্বতন্ত্র প্রার্থীদেরকে বসিয়ে দেওয়া বা একটা নিয়ম-শৃঙ্খলার মধ্যে আনার জন্য চাপ প্রয়োগ করছিলেন। এ নিয়ে আওয়ামী লীগের মধ্যে স্ববিরোধিতাও লক্ষ্য করা যাচ্ছে।

 আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য আব্দুর রহমান যেমন বলেছেন যে স্বতন্ত্র প্রার্থীদের কোন অস্তিত্ব নাই, তাদের বিরুদ্ধে দলের ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। 

দলের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের যেমন বলছেন যে, স্বতন্ত্র প্রার্থী যে কেউ হতে পারবে না, এটা দল ঠিক করে দেবে, তেমনটি বলেননি আওয়ামী লীগ সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। বরং তিনি স্পষ্টতই স্বতন্ত্র প্রার্থীদের পক্ষে অবস্থান নিয়েছেন।

 যারাই তার কাছে আসছে স্বতন্ত্র প্রার্থীদের বিরুদ্ধে নালিশ করতে তারাই উল্টো ধমক খাচ্ছে। কারণ তিনি বারবার বলে দিয়েছেন যে যার খুশি সে নির্বাচনে দাঁড়াতে পারে। যাদের প্রার্থী করা হয়েছে, তারা নিজ যোগ্যতায় জিতে আসবে। 

শুধু তাই নয়, আওয়ামী লীগ সভাপতি এবং প্রধানমন্ত্রী সাফ জানিয়ে দিয়েছেন যে, কোন স্বতন্ত্র প্রার্থীকে ভয়ভীতি দেখালে, তার নির্বাচনী প্রচারণায় বাধা দিলে বা পেশিশক্তির প্রয়োগ করে তাকে ঠান্ডা করতে চাইলে তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

 একই বার্তা প্রশাসনে এবং আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর কাছে দিয়ে দেওয়া হয়েছে।

অন্যদিকে নির্বাচন কমিশন বলেছে যে স্বতন্ত্র প্রার্থীদের সমস্ত নিরাপত্তা ব্যবস্থা আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী যেন করে সেটি নিশ্চিত করা হবে। এর ফলে এবার নির্বাচনে স্বতন্ত্র প্রার্থীরা সবচেয়ে স্বস্তিতে এবং ফুরফুরে অবস্থানে রয়েছে।

 বহু আসনে স্বতন্ত্র প্রার্থীরা আওয়ামী লীগের জন্য রীতিমতো হুমকি হয়ে আছে এবং অবাক হওয়ার কিছু থাকবে না যদি একটা বিপুল সংখ্যক স্বতন্ত্র প্রার্থীরা এই নির্বাচনে বিজয়ী হয়। 

আওয়ামী লীগ সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দলের বিভিন্ন নেতাদেরকে যারা নির্বাচন নিয়ে আওয়ামী লীগ সভাপতির সাথে নিয়মিত যোগাযোগ করছেন তাদেরকে সুস্পষ্ট ভাবে তিনটি বার্তা দিয়েছেন। 

কোন স্বতন্ত্র প্রার্থীকে বসিয়ে দেওয়া যাবে না। এমনকি আওয়ামী লীগ সভাপতি জাতীয় পার্টি ১৪ দলের নেতাদের সঙ্গে বৈঠকেও তাদেরকে স্ব স্ব প্রতীক নিয়ে উন্মুক্ত নির্বাচনে অংশগ্রহণ করার পরামর্শ দিয়েছেন।

 প্রধানমন্ত্রী ১৪ দলের নেতাদের বলেছেন, আপনারা ১৫ বছর ক্ষমতায় আছেন, আপনাদের সংগঠন কোথায়? আর শেষ পর্যন্ত করুণা করে হলেও ১৪ দলের শরিকদের কিছু আসন দেওয়া হলেও জাতীয় পার্টির সঙ্গে আসন ভাগাভাগির ব্যাপারে সম্মত নন আওয়ামী লীগ সভাপতি।

 বরং তিনি চান বেশি সংখ্যক প্রার্থী অংশগ্রহণ করুক বেশি ভোটাররা ভোট দিক। এর ফলে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থীদের বা স্বতন্ত্র প্রার্থীদের মধ্যে এক বাঁধভাঙা উচ্ছ্বাস লক্ষ্য করা যাচ্ছে। তারা দলের শৃঙ্খলা পরিপন্থী কোন কাজের জন্য তিরস্কৃত বা বহিষ্কৃত হবেন না। 

 তাদেরকে প্রচারণা করার ক্ষেত্রে দলের প্রার্থীরা বাধা দেবেন না। প্রশাসনের পক্ষ থেকে তাদেরকে বসিয়ে দেওয়ার জন্য কোনও পদক্ষেপ গ্রহণ করা হবে না। এই সমস্ত কারণে স্বতন্ত্র প্রার্থীদের মধ্যে একটা বিস্ফোরণ দেখা যাচ্ছে এবারের নির্বাচনে।

বিভিন্ন সূত্রগুলো বলছে যে, আওয়ামী লীগ সভাপতির কৌশলের একটি অংশই হল স্বতন্ত্র প্রার্থীকে নির্বাচনে প্রার্থী করা। আর স্বতন্ত্র প্রার্থীরা যেন নির্বাচনের মাঠে টিকে থাকেন, শক্তপোক্ত করতে পারেন সেটা তিনি মনেপ্রাণে চাইছেন।

 তার প্রধান লক্ষ্য হল নির্বাচনকে অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ করা এবং জনগণের অভিপ্রায়ের যেন প্রতিফলন ঘটে সেটা নিশ্চিত করা। এর ফলে এবারের নির্বাচনে স্বতন্ত্রতা সবচেয়ে বেশি সুবিধাজনক অবস্থানে আছে।


আরও খবর

গ্যাস লিকেজ থেকে বিস্ফোরণ, দগ্ধ সাত

বুধবার ২৮ ফেব্রুয়ারী ২০২৪




দলে দলে ঢুকছে মিয়ানমারের সীমান্তরক্ষী

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ০৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:শুক্রবার ০১ মার্চ ২০২৪ |

Image

মিয়ানমারের অভ্যন্তরীণ সংঘর্ষের জেরে এখন পর্যন্ত দেশটির সীমান্তরক্ষী বাহিনী বর্ডার গার্ড পুলিশের (বিজিপি) ২২৯ জন সদস্য পালিয়ে বাংলাদেশে আশ্রয় নিয়েছেন। মঙ্গলবার (৬ ফেব্রুয়ারি) বেলা ১১টার দিকে বিজিবির জনসংযোগ কর্মকর্তা মো. শরীফুল ইসলাম এই তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

তিনি জানান, বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি) তাদের নিরস্ত্রীকরণ করে নিরাপদ আশ্রয়ে নিয়েছে। মঙ্গলবার সকাল পর্যন্ত আশ্রয় নেওয়া বিজিপির সদস্য সংখ্যা ছিল ১১৩। পরে আরও ৭ জনকে রিসিভ করলে সে সংখ্যা হয় ১১৫। এরপর একসঙ্গে আরও ১১৪ জন প্রবেশ করেন।

আগে যারা প্রবেশ করেছেন তারা সবাই এখনো বাংলাদেশেই রয়েছেন। এর মধ্যে কয়েকজন হাসপাতালে চিকিৎসাও নিচ্ছেন। তাদের নিজ দেশে ফেরাতে মিয়ানমারের সঙ্গে আলোচনা অব্যাহত রেখেছে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়।

গত কয়েক দিন ধরে মিয়ানমারের অভ্যন্তরে সামরিক জান্তা বাহিনীর সঙ্গে বিদ্রোহী গ্রুপের তুমুল লড়াই চলছে। তাদের ছোড়া গুলির সিসা ও রকেট লঞ্চার বান্দরবানের নাইক্ষ্যংছড়ির ঘুমধুম-তুমব্রু সীমান্তে উড়ে এসে পড়ছে। এতে ঘুমধুম-তুমব্রু এলাকার বাসিন্দারা আতঙ্ক ও উৎকণ্ঠায় দিন পার করছেন। ইতোমধ্যে হতাহতের ঘটনাও ঘটেছে।

সোমবার (৫ ফেব্রুয়ারি) দুপুরে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ সাংবাদিকদের জানিয়েছেন, বাংলাদেশে ঢুকে পড়া মিয়ানমারের বর্ডার গার্ড পুলিশ (বিজিপি) সদস্যদের ফিরিয়ে নিতে সে দেশের সরকার যোগাযোগ করেছে।

হাছান মাহমুদ বলেন, মিয়ানমারের সঙ্গে আমাদের নিরবচ্ছিন্ন যোগাযোগ আছে। আজ সকালে মিয়ানমারের পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী আমাদের রাষ্ট্রদূতের সঙ্গে যোগাযোগ করেছেন। তারা তাদের নাগরিকদের ফিরিয়ে নিয়ে যাবে। তাদের বর্ডার গার্ডের সদস্যদের ফিরিয়ে নিয়ে যাবে। এখন তাদের উড়োজাহাজ, নাকি নৌকায় ফিরিয়ে নিয়ে যাওয়া হবে, সেটা নিয়ে আমরা আলোচনার মধ্যে আছি।

মন্ত্রী জানান, এর আগে ভারতেও অনেকে (বিজিপি সদস্য) ঢুকে পড়েছিলেন। ভারত থেকে তাদের উড়োজাহাজে পাঠিয়ে দেওয়া হয়েছিল।

মিয়ানমার থেকে এখনো অনেকে আসছেন উল্লেখ করে পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, মিয়ানমার আমাদের সঙ্গে যোগাযোগ করেছে। আমরাও যোগাযোগ করেছি। এখনো আরও আসছে, আসার সম্ভাবনা আছে। কয়েকজন আহত হয়েছে। তাদের কক্সবাজার হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

সন্ধ্যায় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামালের পক্ষে আইনমন্ত্রী আনিসুল হক জাতীয় সংসদে বলেন, সীমান্তে উত্তেজনার পরিস্থিতি সরকার নিবিড়ভাবে পর্যবেক্ষণে রেখেছে৷ মিয়ানমারের সঙ্গে আলোচনার জন্য পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় বিষয়টি দেখছে।


আরও খবর

গ্যাস লিকেজ থেকে বিস্ফোরণ, দগ্ধ সাত

বুধবার ২৮ ফেব্রুয়ারী ২০২৪




নাইক্ষ্যংছড়ি: আতঙ্কে ঘরছাড়া ৩ গ্রামের মানুষ

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ০৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ২৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ |

Image

মিয়ানমারের অভ্যন্তরে বিদ্রোহী ও সরকারি বাহিনীর মধ্যে চলমান সংঘাত-সংঘর্ষ থামছেই না। দুই বাহিনীর গোলাগুলি ও মর্টার শেলের বিকট শব্দে সীমান্তজুড়ে ভীতিকর পরিবেশ তৈরি হয়েছে। সোমবার (৫ ফেব্রুয়ারি) সকাল থেকে বিদ্রোহীদের অবস্থান লক্ষ্য করে হেলিকপ্টার থেকে ছোঁড়া হচ্ছে গুলি ও মর্টার শেল। গুলির মুহুর্মুহু শব্দে উদ্বেগ-উৎকণ্ঠায় ঘর ছেড়েছেন ঘুমধুম ইউনিয়নের তিন গ্রামের মানুষ। এরই মধ্যে দুপুরে মিয়ানমার থেকে ছুটে আসা একটি মর্টার শেলের আঘাতে নিহত হয়েছেন স্থানীয় জলপাইতলী গ্রামের গৃহবধূ ও এক রোহিঙ্গা। এ সময় আহত হয় এক শিশুও।

মিয়ানমারের অভ্যন্তরে চলমান অস্থিরতায় টেকনাফের হোয়াইক্যং উলুবনিয়া সীমান্ত দিয়ে অনুপ্রবেশের সময় এক রোহিঙ্গা পরিবারকে আটক করেছে বিজিবি। এর আগে মিয়ানমার বিদ্রোহীদের প্রচণ্ড গোলাগুলির মুখে টিকে থাকতে না পেরে বাংলাদেশে আশ্রয় নিয়েছে ১০৩ জন মিয়ানমার বর্ডার গার্ড পুলিশের (বিজিপি) সদস্য।

চলমান পরিস্থিতিতে সীমান্তের ওপারে বসবাস করা মিয়ানমারের চাকমা জাতি ও রোহিঙ্গারা বাংলাদেশে অনুপ্রবেশের অপেক্ষায় জড়ো হচ্ছেন। তবে, বিজিবির পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, সীমান্তে যে কোনো পরিস্থিতি মোকাবিলায় সতর্ক অবস্থানে রয়েছেন তারা।

সোমবার মর্টার শেলের আঘাতে নিহতরা হলেন নাইক্ষ্যংছড়ির ঘুমধুম তুমব্রু জলপাইতলী এলাকার বাসিন্দা হোসনে আরা (৫৫) ও উখিয়া রোহিঙ্গা ক্যাম্প-৮/ই এর ডি ব্লকের বাসিন্দা মৃত ধলু হোসেনের ছেলে নবী হোসেন (৬০)। আহত নুসরাত মনি (৬) স্থানীয় শহিদুল ইসলামের মেয়ে। নিহতরা চাষের জমিতে কাজ শেষে দুপুরের খাওয়ার জন্য বাড়িতে অবস্থান করছিলেন বলে জানিয়েছেন পরিবারের সদস্যরা।

উল্লেখ্য, মিয়ানমারের আরাকান রাজ্য স্বাধীনের নামে সরকারি বাহিনীর বিভিন্ন ক্যাম্পে হামলা চালিয়ে আসছে বিচ্ছিন্নতাবাদী সংগঠন আরাকান আর্মি। প্রতিদিন মিয়ানমারের অভ্যন্তরে কোনো কোনো এলাকায় চলছে দুই বাহিনীর তুমুল সংঘর্ষ। এরই মধ্যে আরাকান রাজ্যের বিভিন্ন অঞ্চল দখলের দাবি করেছে আরাকান আর্মি। দুই পক্ষের চলমান সংঘর্ষে বান্দরবানের নাইক্ষ্যংছড়ির ঘুমধুম ইউনিয়ন, উখিয়ার পালংখালী ও টেকনাফের হোয়াইক্যং ইউনিয়নের সীমান্তে বসবাসকারীদের মধ্যে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়েছে।

ঘুমধুম ইউনিয়নের ২ নম্বর ওয়ার্ডের মেম্বার দ্বীন মোহাম্মদ বলেন, প্রশাসনের পক্ষ থেকে সীমান্তে বসবাসকারীদের বিষয়ে কোনো সিদ্ধান্ত হয়নি। তবে গোলাগুলির আতঙ্কে ইউনিয়নের তিন গ্রামের সহস্রাধিক মানুষ বসতবাড়ি ছেড়ে অন্যত্র আশ্রয় নিয়েছেন। দুজন নিহত হওয়ার পর আতঙ্ক আরও বেড়েছে।

মর্টার শেলের আঘাতে নিহতদের মরদেহ স্বজনদের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন নাইক্ষ্যংছড়ি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আব্দুল মান্নান। তিনি বলেন, সীমান্তের ওপারে গোলাগুলি চললেও আমাদের দেশের পরিস্থিতি স্বাভাবিক রয়েছে। তবে, সীমান্তে বসবাসকারীদের সরানোর বিষয়টি উপজেলা প্রশাসন বলতে পারবে।

টেকনাফ হোয়াইক্যং উলুবনিয়া এলাকার জালাল আহমেদ বলেন, সকাল সাড়ে ১০টার দিক থেকে মিয়ানমারের ওপারে ব্যাপক গোলাগুলি ও মর্টার শেলের শব্দ আমরা শুনতে পারছি। ভয়ে সীমান্ত থেকে লোকজন সরে যাচ্ছেন। অনেকে ঘর থেকে বের হচ্ছেন না।

টেকনাফ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) আদনান চৌধুরী বলেন, ওপার থেকে রোহিঙ্গা ও বিজিপি সদস্যরা পালিয়ে বাংলাদেশে আসতে পারেন এমন আশঙ্কায় সীমান্তে বিজিবি সদস্যরা সতর্ক অবস্থানে রয়েছেন। সাগরে কোস্টগার্ড সদস্যরাও প্রস্তুত রয়েছেন। কোনো অবস্থাতেই আমরা রোহিঙ্গা কিংবা অন্য কাউকে ঢুকতে দেব না।

টেকনাফ-২ বিজিবির অধিনায়ক লে. কর্নেল মো. মহিউদ্দিন আহমেদ বলেন, সীমান্তে আমরা সতর্ক অবস্থানে রয়েছি।

৩৪ বিজিবি কক্সবাজার রিজিয়ন কমান্ডার লে. কর্নেল আব্দুল্লাহ আল মাশরুকী বলেন, কোনো অবস্থাতেই মিয়ানমারের কোনো নাগরিককে বাংলাদেশে অনুপ্রবেশ করতে দেওয়া হবে না।

বিজিবি কক্সবাজার রিজিওয়নের কমান্ডার ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মোরশেদ আলম বলেন, মিয়ানমার অভ্যন্তরে চলা সংঘাতের কারণে আমরা সদর দপ্তরের অনুমতিক্রমে ১০৩ জন বিজিপি সদস্যকে আশ্রয় দিয়েছি। তাদের মিয়ানমার হস্তান্তর করার জন্য পররাষ্ট্র ও স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় কাজ করছে।

 


আরও খবর

গ্যাস লিকেজ থেকে বিস্ফোরণ, দগ্ধ সাত

বুধবার ২৮ ফেব্রুয়ারী ২০২৪




নারী সমাজকে এগিয়ে যাওয়ার শক্তি ও উৎসাহের বাতিঘর পারভীন আকতার

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:শুক্রবার ০১ মার্চ ২০২৪ |

Image

শহিদুল ইসলাম জি এম মিঠন, সিনিয়র রিপোর্টার :

নওগাঁর নারী সমাজের এগিয়ে যাওয়ার শক্তি ও উৎসাহের বাতিঘর হিসেবে পরিচিতি পেয়েছেন পারভীন আকতার। সমাজের পিছিয়ে পড়া, অবহেলিত ও নির্যাতিত নারীদের নতুন উদ্যোমে এগিয়ে নিতে কাজ করে আসছেন পারভীন আকতার। আমাদের সমাজে যে সব নারী তাদের ইচ্ছেশক্তি ও যোগ্যতা দিয়ে নিজেকে সমাজে শীর্ষস্থানে উন্নীত করার গৌরব অর্জন করেছেন তাদের মধ্যে অন্যতম একজন পারভীন আকতার। 

কঠোর পরিশ্রম ও মেধার সমন্বয়ে রাজনৈতিক সফলতা অর্জন করেছেন অপরাজিতা নারী পারভীন আকতার। বর্তমানে তিনি নওগাঁ জেলা পরিষদের সংরক্ষিত আসনের সদস্য ও প্যানেল চেয়ারম্যান হিসেবে জনগণের সেবা করে চলেছেন। একই সঙ্গে নওগাঁ জেলা মহিলা আওয়ামীলীগের সভাপতি হিসেবে নারীদের রাজনৈতিক অধিকার চর্চার প্লাটফরমকে মসৃন করতে বিরামহীন সংগ্রাম করে চলেছেন। 

নওগাঁ সদর উপজেলার বাঙ্গাবাড়িয়া মহল্লার যুদ্ধাহত বীর মুক্তিযোদ্ধা নইমুদ্দীন ও মাতা হাসিনা বেগমের সন্তান পারভীন আকতারের জন্ম ১৯৭৭ সালের ১জানুয়ারীতে। ছোট বেলা থেকেই অধিকার আদায়ে সচেতন পারভীনের রাজনীতির প্রতি ছিল চরম ঝোঁক। ১৯৯৩ সালে ছাত্ররাজনীতির মাধ্যমে রাজনীতির জগতে প্রবেশ করেন পারভীন। এরপর থেকে আওয়ামীলীগ এর রাজনীতির সঙ্গে অঙ্গাঅঙ্গী ভাবে জড়িয়ে রেখেছেন নিজেকে। রাজনীতির পাশাপাশি নিজেকে আর্থিক ভাবে স্বাবলম্বী করার পথ খুজতে গিয়ে এইচএসসি পাসের পর আর পড়ালেখা করতে পারেননি পারভীন আকতার। 

নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করার শুরুর দিকে পারভীন আকতার জেলা যুব উন্নয়ন কেন্দ্র থেকে বøক-বুটিক প্রশিক্ষণ গ্রহণ করে “প্রভাতী বুটিকস হাউস” নামের একটি বুটিক শপের মাধ্যমে ধীরে ধীরে তিনি একজন সফল নারী উদ্যোক্তা হয়ে ওঠেন। তার হাত ধরেই অনেক পিছিয়ে পড়া, নির্যাতিত ও অসহায় নারীদের কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা হয়েছে। নওগাঁ জেলা সদর উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যানের দায়িত্ব পালন কালে ২০১২ সালে তিনি অপরাজিতা প্রকল্পের সাথে নিজেকে যুক্ত করেন। এরপর থেকে অপরাজিতা প্রকল্পের ইউনিয়ন পর্যায়ের সকল কর্মসূচিতে তিনি নিয়মিত অংশ গ্রহন করে জনমানুষের কাছে পরিচিত হয়ে ওঠেন।

তিনি ২০০৯ সালে উপজেলা মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান হিসেবে নির্বাচিত হোন এবং ২০১৩ সাল থেকে তিনি ভারপ্রাপ্ত উপজেলা চেয়াম্যান এর দায়িত্ব পালন করার পর ২০১৪ সালে উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে সরাসরি অংশ গ্রহণ করে পরাজিত হলেও কিন্ত তিনি থেমে থাকেন নি। ২০১৯ সালে তিনি আবারও অপরাজিতা প্রকল্পের সঙ্গে সম্পৃক্ত হন এবং ২০১৬ সাল থেকে নওগাঁ জেলা পরিষদ নির্বাচনে নওগাঁ-৪ নং সংরক্ষিত আসন থেকে সদস্য নির্বাচিত হয়ে বর্তমানে প্যানেল চেয়ারম্যানের দায়িত্ব পালন করছেন।

যে সময়ে তিনি রাজনৈতিক অঙ্গনে পা রাখেন সে সময়ে নারীরা সেভাবে ঘরের বাহিরে কাজ করতেন না। পারিবারিক সিদ্ধান্তেও নারীদের মতামত নেওয়া হতো না সামাজিক বিধি-নিষেধের পাশাপাশি শ্বশুর বাড়ির সম্মতি অর্জন ছিল সবচেয়ে বড় প্রতিবন্ধকতা। পারভীন আকতার ব্যাংকার স্বামী আব্দুল কুদ্দুসের প্রেরণায় সকল বাধা উপেক্ষা পার করে সমাজকে মাদক মুক্ত করতে জনসচেতনতা বৃদ্ধি করতে, বাল্য বিয়ে প্রতিরোধে নারী ও পুরুষের বৈষম্য দূর করতে কাজ করে আসছেন। 

সংসার সামলিয়ে রাজনীতি তারপর বিভিন্ন সামাজিক ও উন্নয়ন সংগঠনের সভাপতি হিসেবে দক্ষতার সাথে দায়িত্ব পালন করে আসছেন। মূলত অপরাজিতা প্রশিক্ষণের মাধ্যমে তিনি নারীর রাজনৈতিক ও সামাজিক অধিকার সম্পর্কে অধিকতর সচেতন হয়ে ওঠেন। অপরাজিতা প্রকল্পের সংস্পর্শে এসেই তিনি সমাজের অবহেলিত, অসহায় মানুষের অবস্থান পরিবর্তন করতে শত-শত উঠান বৈঠক করে নারীর রাজনৈতি অধিকার প্রতিষ্ঠায় মানুষকে সচেতন করার কাজ অব্যাহত রেখেছেন বলে জানান নারী শক্তির উৎস পারভীন আকতার। জীবনের শেষ সময় পর্যন্ত সমাজের পিছিয়ে পড়া নারীদের সামনের দিকে এগিয়ে নিয়ে তাদেরকে আর্থিক ভাবে স্বাবলম্বী করে নতুন পরিচয়ে সমাজে প্রতিষ্ঠিত করতে কাজ করে যাবেন বলে জানান পারভীন আকতার।


আরও খবর

বাউল ছালমা হলেন বরিশাল বিভাগের শ্রেষ্ঠ "জয়িতা"

বৃহস্পতিবার ২৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৪

পাংশায় মাদক সহ ৯ মামলার আসামী গ্রেফতার

বৃহস্পতিবার ২৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৪




নওগাঁয় সরকারি গাছ যাচ্ছে প্রভাবশালীদের পেটে

প্রকাশিত:বুধবার ০৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:শুক্রবার ০১ মার্চ ২০২৪ |

Image

শহিদুল ইসলাম জি এম মিঠন, সিনিয়র রিপোর্টার :

নওগাঁয় সড়কের পাশে রোপন করা সরকারি গাছ যাচ্ছে প্রভাবশালীদের পেটে। নওগাঁর রাণীনগর উপজেলার গোনা ইউনিয়ন এর বড়বড়িয়া বাজার হতে রেললাইন সংযোগ সড়ক এর দুই ধারে সরকারি ভাবে রোপনকৃত বিভিন্ন প্রজাতির গাছগুলো রাতের আধাঁরে কেটে নিয়ে যাচ্ছে প্রভাবশালীরা। পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষার্থে সড়কের পাশ দিয়ে এই গাছগুলো রোপন করা হয়েছিলো বলে জানান সংশ্লিষ্টরা।

গত কয়েক মাসে প্রায় অর্ধশতাধিক গাছ রাতের আধাঁরে কে বা কারা চুরি করে কেটে নিয়ে গেছে। অনুমতি ছাড়াই এসব গাছগুলো কর্তন করায় একদিকে সরকারের লাখ লাখ টাকা ক্ষতি হচ্ছে। অপরদিকে হুমকির মুখে পড়ছে পরিবেশ। বড়বড়িয়া হতে রেললাইন সড়কের দু' পাশে পড়ে আছে শুধু মাটির ভিতরে থাকা গাছের গোড়ার মুল অংশ টি। প্রশাসন কে বৃদ্ধাঙ্গলি দেখিয়ে কতিপয় প্রভাবশালী ব্যক্তিরা লাখ লাখ টাকার সরকারি সম্পদ গাছগুলো লুট করছে বলেই জানান স্থানীয়রা। সরকার দেশের সবুজায়ন বৃদ্ধির লক্ষ্যে যেখানে নানা জাতের পরিবেশ বান্ধব বিভিন্ন গাছ রোপনে নানা প্রকল্প গ্রহণ করছে, আর ঠিক সেই সময়-ই সরকারী রাস্তার গাছ রাতের আঁধারে প্রভাবশালী ব্যক্তিরা কেটে নিয়ে গেলেও তেমন কোন পদক্ষেপ নেই প্রশাসন বা কর্তৃপক্ষের।

বরেন্দ্র উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ রাণীনগর জোনের সহকারী প্রকৌশলী মোঃ ইমানুর রশীদ জানান, আমি গাছ কাটার ঘটনা জানতে পেরে সেখানে লোক পাঠিয়েছি এবং অনুসন্ধান চলছে। যেই গাছ কাটুক না কেন, তাকে অবশ্যই আইনের আওতায় এনে শাস্তির ব্যবস্থা নিশ্চিত করা হবে।


আরও খবর

বাউল ছালমা হলেন বরিশাল বিভাগের শ্রেষ্ঠ "জয়িতা"

বৃহস্পতিবার ২৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৪

পাংশায় মাদক সহ ৯ মামলার আসামী গ্রেফতার

বৃহস্পতিবার ২৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৪




রূপগঞ্জে প্রাইভেটকার চাপায় গৃহবধু নিহত

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ২৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:শুক্রবার ০১ মার্চ ২০২৪ |

Image

নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জের পূর্বাচলে কাঞ্চন- কুড়িল বিশ্বরোড সড়কে ( শেখ হাসিনা সরনি) প্রাইভেটকার চাপায় গৃহবধু আমেনা বেগম(৪০) নিহত হয়েছে। পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে প্রাইভেটকারের চালককে আটক করেছে। জব্দ করা হয়েছে প্রাইভেটকারটি। বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় সড়কের ব্রাক্ষ্মণখালী এলাকায় এ মর্মান্তিক দূর্ঘটনা ঘটে।

নিহত আমেনা বেগম স্থানীয় ব্রাক্ষ্মণখালী এলাকার কাচাঁমাল ব্যবসায়ী শাহজাহান মিয়ার স্ত্রী।

নিহতের পরিবারের বরাত দিয়ে রূপগঞ্জ থানার ওসি দিপক চন্দ্র সরকার জানান, সন্ধ্যার সময় শাহজাহানের স্ত্রী আমেনা বেগম বাড়ী পাশে  লেকেরপাড় থেকে ছাগল নিয়ে বাড়ী ফিরছিল। এসময় কাঞ্চন- কুড়িল বিশ্বরোড সড়ক পারাপারের সময় কুড়িল থেকে আসা দ্রুতগতির একটি প্রাইভেটকার তাকে চাপা দিলে ঘটনাস্থলে মারাযান তিনি। খবর পেয়ে  র‍্যাবের সহায়তায় পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে নিহতের লাশ উদ্ধার করেন। জব্দ করেন প্রাইভেটকারটি। আটক করে প্রাইভেটকার চালককে। 


আরও খবর

বাউল ছালমা হলেন বরিশাল বিভাগের শ্রেষ্ঠ "জয়িতা"

বৃহস্পতিবার ২৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৪

পাংশায় মাদক সহ ৯ মামলার আসামী গ্রেফতার

বৃহস্পতিবার ২৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৪